দ্বিতীয় ডোজের অপেক্ষায় রংপুরের ২ লাখ মানুষ

দ্বিতীয় ডোজের অপেক্ষায় রংপুরের ২ লাখ মানুষ

রংপুর বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক আব্দুল আহাদ নিউজবাংলাকে জানান, বিভাগের আট জেলায় টিকা কার্যক্রম বন্ধের পথে। নতুন করে টিকা না আসলে দ্বিতীয় ডোজ দেয়া সম্ভব হবে না। সেটা কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

রংপুর বিভাগে করোনা টিকার দ্বিতীয় ডোজ পাওয়া নিয়ে অনিশ্চয়তায় পড়েছে ২ লাখের বেশি মানুষ। বিভাগের আট জেলায় আনা টিকার মজুদ শেষ হচ্ছে মঙ্গলবার। নতুন করে টিকা আসা পর্যন্ত প্রথম ডোজ প্রাপ্তরা দ্বিতীয় ডোজের জন্য অপেক্ষা করতে হবে।

রংপুর বিভাগীয় স্বাস্থ্য অফিস জানায়, বিভাগের আট জেলায় দুই দফায় ৯ লাখ ৮৬ হাজার ৫০০ ডোজ টিকা দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে প্রথম ডোজ টিকা দেয়া হয় ৫ লাখ ৯৬ হাজার ৯৪৩ জনকে । শনিবার পর্যন্ত দ্বিতীয় ডোজ দেয়া হয়েছে ৩ লাখ ৬৩ হাজার ১১৭ জনকে।

১৮ মে জরুরিভিত্তিতে আরও ৬ হাজার ডোজ আনা হয় । এখন সবমিলে মজুদ আছে ৩২ হাজার ৪৪০ ডোজ টিকা।

সে অনুযায়ী রংপুর বিভাগে করোনা টিকার দ্বিতীয় ডোজ পাওয়া নিয়ে অনিশ্চয়তায় পড়েছে ২ লাখ ১ হাজার ৩৮৬ জন।

এখন প্রতিদিন গড়ে সাড়ে ৭ হাজার মানুষ টিকা নিচ্ছেন। এ ধারায় মঙ্গলবার মজুদ শেষ হয়ে যাবে।

বিভাগীয় স্বাস্থ্য অফিস জানায়, শনিবার রংপুর বিভাগে করোনার দ্বিতীয় ডোজ দেয়া হয়েছে ৩ লাখ ৬৩ হাজার ১১৭ জনকে।

এর মধ্যে রংপুরে ৭৮ হাজার ৩১৭, দিনাজপুরে ৭৫ হাজার ৩৯৫, পঞ্চগড়ে ৩০ হাজার ৯৬, ঠাকুরগাঁওয়ে ৩৬হাজার ৬৯৯, নীলফামারীতে ৪৮ হাজার ১৫৩, লালমনিরহাটে ২৬ হাজার ৭২৫, কুড়িগ্রামে ৩১ হাজার ৩৩৫ ও গাইবান্ধায় ৩৬ হাজার ১১৭ জন।

রংপুরের সিভিল সার্জন হিড়ম্ব কুমার বলেন, ‘আমাদের টিকা প্রায় শেষের দিকে। যা আছে তা দ্রুত শেষ হয়ে যাবে। বিষয়টি ঊর্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।’

দিনাজপুরের সিভিল সার্জন আব্দুল কুদ্দুস বলেন, ‘আমাদের টিকার মজুদ শেষ পর্যায়ে রয়েছে। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে টিকা আনতে না পারলে কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যাবে। বিষয়টি সংশ্লিষ্ট দপ্তরে জানিয়েছি। ’

রংপুর বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক আব্দুল আহাদ নিউজবাংলাকে জানান, বিভাগের আট জেলায় টিকা কার্যক্রম বন্ধের পথে। নতুন করে টিকা না আসলে দ্বিতীয় ডোজ দেয়া সম্ভব হবে না। সেটা কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

আরও পড়ুন:
কুষ্টিয়ায় ১ ঘণ্টায় শেষ বাকি টিকা
বাংলাদেশ টিকা পেতে ‘মরিয়া’: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
আরও ছয় লাখ টিকা উপহার দেবে চীন
নড়াইলে দ্বিতীয় ডোজের অপেক্ষায় ৭ হাজার মানুষ

শেয়ার করুন

মন্তব্য