যুক্তরাজ্যে তরুণরা পাবেন অ্যাস্ট্রাজেনেকার বিকল্প টিকা

যুক্তরাজ্যে তরুণরা পাবেন অ্যাস্ট্রাজেনেকার বিকল্প টিকা

যুক্তরাজ্যে ৪০ বছরের কম বয়সীরা পাবেন অ্যাস্ট্রাজেনেকার বিকল্প টিকা। ছবি: সংগৃহীত

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, করোনাভাইরাস প্রতিরোধী অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা নিয়েছেন এদের মধ্যে অন্তত ২৪২ জনের রক্ত জমাট বাঁধার খবর পাওয়া গেছে। এদের মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ৪৯ জনের। এদের বড় অংশই তরুণ যাদের বয়স ৪০ এর নীচে।

যুক্তরাজ্যে চল্লিশ বছরের কম বয়সীদের মাঝে অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা নেয়ার পর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা গেছে। এদের কারো কারো রক্ত জমাট বাঁধার খবর পাওয়া গেছে।

দেশটির ওষুধ নিরাপত্তা বিষয়ক সংস্থার তথ্য মতে, সেখানে করোনাভাইরাস প্রতিরোধী অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকার অন্তত: দুই কোটি ৮৫ লাখ ডোজ দেয়া হয়েছে।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এর মধ্যে অন্তত ২৪২ জনের রক্ত জমাট বাঁধার খবর পাওয়া গেছে। এদের মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ৪৯ জনের। এদের বড় অংশই তরুণ যাদের বয়স ৪০ এর নীচে।

দেশটির টিকা ও রোগ প্রতিরোধ কমিটির (জেসিবিআই) শীর্ষ কর্মকর্তা অধ্যাপক ওয়ে সেন লিম বলেন, ‘তরুণ যাদের বয়স ১৮ থেকে ৩৯ এর মধ্যে তাদের অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা না দেয়া নিরাপদ হবে। অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকার বিকল্প না পাওয়া পর্যন্ত তাদের টিকা না নিলেও চলবে। দেশটিতে কোভিড পরিস্থিতি দ্রুত নিয়ন্ত্রণে চলে এসেছে।’

তিনি জানান, এই পরিস্থিতিতে অ্যাস্ট্রাজেনেকার বিকল্প হতে পারে যুক্তরাষ্ট্রের ফাইজার ও মডার্নার টিকা।

দেশটির ওষুধ ও স্বাস্থ্যসেবায় ব্যবহৃত সামগ্রীর নিয়ন্ত্রক সংস্থার (এমএইচআরএ) প্রধান নির্বাহী ডা. জুন রেইন জানান, অ্যাস্ট্রাজেনেকের টিকা ব্যবহারের ঝুঁকি ধীরে ধীরে কমে যাচ্ছে।

অনুর্ধ্ব ৩০ বছর বয়সীদের জন্য বিকল্প টিকা

ইউরোপীয় ইউনিয়নের ওষুধ নিয়ন্ত্রণকারী সংস্থা সম্প্রতি এই টিকার বিরল পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হিসেবে রক্ত জমাট বাঁধার বিষয়টি উল্লেখ করে। তবে টিকা থেকে যে সুরক্ষা পাওয়া যাবে তা ঝুঁকির চেয়ে অনেক বেশি। ইউরোপের কিছু দেশ এরই মধ্যে অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে ৩০ বছরের কম বয়সীদের জন্য অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার বিকল্প টিকার ব্যবস্থা করা হবে বলে গত ৭ এপ্রিল জানিয়েছে যুক্তরাজ্য।

অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা নিয়ে বেশ কিছু দিন থেকেই রক্ত জমাট বেঁধে যাওয়ার অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছিল। ইউরোপের বহু দেশ এরই মধ্যে এই টিকার ব্যবহার নিষিদ্ধ করলেও বিষয়টি নিয়ে এত দিন নীরব ছিল যুক্তরাজ্য।

যুক্তরাজ্যের এমএইচআরএর পর্যালোচনায় দেখা গেছে, যুক্তরাজ্যে মোট দুই কোটি মানুষ অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা নিয়েছেন। মার্চের শেষ পর্যন্ত টিকা নেয়ার পর ৭৯ জনের মধ্যে বিরল রক্ত জমাট বাঁধার সমস্যা দেখা দেয়। এদের মধ্যে ১৯ জন মারা গেছে।

সংস্থাটি জানায়, তার মানে এই নয় যে, টিকার কারণেই রক্ত জমাট বাঁধার ঘটনা ঘটছে। তবে দুটির মধ্যে সংযোগ ক্রমেই দৃঢ় হচ্ছে।

এমএইচআরএ’র প্রধান নির্বাহী ডা. জুন রেইনে বলেন, এই পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া অত্যন্ত বিরল। টিকার কারণেই রক্ত জমাট বাঁধছে কিনা তা নিয়ে গবেষণা চলছে। ঝুঁকি ও সুরক্ষার মধ্যে ভারসাম্য করতে গেলে দেখা যাবে পাল্লা দ্বিতীয়টির দিকে ঝুঁকে আছে।

তবে তিনি আরও বলেন, জনগণের সুরক্ষাই আমাদের কাছে সর্বাধিক অগ্রধিকার পাবে।

এমএইচআরএ’র এই পর্যালোচনার পর যুক্তরাজ্য সরকারের স্বতন্ত্র টিকা বিষয়ক উপদেষ্টা সংস্থা জয়েন্ট কমিটি জেসিভিআইয়ের তথ্য মতে ১৮ থেকে ২৯ বছর বয়সীদের জন্য বিকল্প টিকার ব্যবস্থা করার পরামর্শ দেয়।

এমএইচআরএ জানিয়েছে, যারা অ্যাস্ট্রাজেনেকার প্রথম ডোজের টিকা নিয়েছেন তারা দ্বিতীয় ডোজের টিকাও নির্ভয়ে নিতে পারেন। তবে যাদের রক্ত জমাট বাঁধার উপসর্গ দেখা দিয়েছিল তারা টিকা নেয়া থেকে বিরত থাকবেন।

আরও পড়ুন:
চীনের টিকা আসছে বুধবার
যুক্তরাষ্ট্রের কাছে ২ কোটি টিকা চায় বাংলাদেশ
সম্পূরক পুষ্টিতে টিকার কার্যকারিতা বাড়ে না
টিকার দ্বিতীয় ডোজ: নেত্রকোণায় ঘাটতি প্রায় ১৮ হাজার

শেয়ার করুন

মন্তব্য