বেড়েছে গড় আয়ু, কমেছে মা ও শিশুমৃত্যুর হার

player
বেড়েছে গড় আয়ু, কমেছে মা ও শিশুমৃত্যুর হার

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা। ফাইল ছবি

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা বলেন, স্বাধীনতা অর্জনের প্রাক্কালে দেশের মানুষের গড় আয়ু ছিল ৪৬ দশমিক ৫ বছর। তা ১৯৯৬ সালে বেড়ে দাঁড়ায় ৬২ দশমিক ২ বছর। আর বর্তমানে আরও বেড়ে হয়েছে ৭৩ বছর।

স্বাধীনতার ৫০ বছরে বাংলাদেশের মানুষের গড় আয়ু ৪৬ দশমিক ৫ বছর থেকে বেড়ে হয়েছে ৭০ বছর। এ সময়ে উল্লেখযোগ্য হারে কমেছে মা ও শিশুমৃত্যুর হার।

মৌলিক চিকিৎসা, সংক্রামক রোগ প্রতিরোধ, নিয়ন্ত্রণ ও নির্মূলের মাধ্যমে মানুষের আয়ু বৃদ্ধির সঙ্গে মা ও শিশুর মৃত্যু অনেকাংশে রোধ হয়েছে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে রোববার এক ভার্চুয়াল আলোচনা সভায় মূল প্রবন্ধে সংস্থাটির অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা এসব তথ্য উপস্থাপন করেন।

সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা বলেন, ‘স্বাধীনতার পর বাংলাদেশের মানুষের গড় আয়ু অনেক বেড়েছে। কমেছে শিশুমৃত্যুর হার। টিকাদান কর্মসূচির আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি মিলেছে। আমাদের স্বাস্থ্যের অবকাঠামো উন্নয়ন হয়েছে অনেক।’

গড় আয়ু বৃদ্ধির পরিসংখ্যান তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘স্বাধীনতা অর্জনের প্রাক্কালে দেশের মানুষের গড় আয়ু ছিল ৪৬ দশমিক ৫। তা ১৯৯৬ সালে বেড়ে দাঁড়ায় ৬২ দশমিক ২। আর বর্তমানে আরও বেড়ে হয়েছে ৭৩ বছর। এটা আমাদের দেশের বড় অর্জন।’

শিশুমৃত্যুর হার কমের পরিসংখ্যান নিয়ে তিনি বলেন, ‘১৯৭১ সালে শিশুমৃত্যুর হার প্রতি হাজারে ছিল প্রায় ২০০-এর কাছাকাছি। এটা বর্তমানে কমে প্রতি হাজারে ৫০-এর নিচে আনা সম্ভব হয়েছে। যেভাবে কমে আসছে, এই ধারা অব্যাহত থাকলে আমাদের এসডিজি লক্ষ্যমাত্রায় ২০৩০ সালে পৌঁছাতে পারব।’

মাতৃমৃত্যুর হার কমিয়ে আনা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘গত বছরের ডিসেম্বরে প্রতি হাজারে ৪০০ জন মা সন্তান জন্ম দেয়ার সময় মারা যেতেন। তা কমে বর্তমানে ২০০-এর নিচে নামিয়ে আনা সম্ভব হয়েছে।

‘অপুষ্টি হ্রাস পেয়েছে। আমরা প্রতিটি ধাপে উন্নতি লাভ করেছি। ১৯৯৬ সালে শতকরা ২১ শতাংশ শিশু পুষ্টিহীনতা নিয়ে জন্মগ্রহণ করত। তা কমে বর্তমানে ৮ শতাংশে নেমেছে।’

গ্রামের মানুষের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতে সরকার কাজ করছে উল্লেখ করে অধ্যাপক নাসিমা বলেন, কমিউনিটি ক্লিনিকগুলোতে মাঠ পর্যায়ের মানুষের সেবা দেয়া হচ্ছে। দেশের সব মানুষের সেবা নিশ্চিতে ইউনিয়ন পর্যায়ে স্বাস্থ্য ক্লিনিক তৈরি হয়েছে। সেসব ক্লিনিকে বহির্বিভাগ ও অন্তবিভাগে সেবা দেয়া হচ্ছে। ছুটির দিনেও এসব সেবা দেয়া হয়।

দেশে চিকিৎসার প্রসার বেড়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, এখন আর দেশের মানুষের বিদেশে গিয়ে চিকিৎসা নিতে হয় না। বাংলাদেশে সব ধরনের চিকিৎসার ব্যবস্থা রয়েছে। দেশীয় চিকিৎসার প্রতি মানুষের আস্থা বেড়েছে।

ভার্চুয়াল সভায় অন্যদের মধ্যে অংশ নেন স্বাস্থ্যসচিব লোকমান হোসেন মিয়া, স্বাস্থ্য ও শিক্ষাসচিব আলী নূর, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আবুল বাশার খুরশীদ আলম, ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মাহবুবুর রহমান, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মুখপাত্র অধ্যাপক ডা. মো. নাজমুল ইসলাম।

আরও পড়ুন:
৮ মাস পর ফের চালু স্বাস্থ্য বুলেটিন
রোগ পরীক্ষার মূল্য তালিকা টানানোর নির্দেশ

শেয়ার করুন

মন্তব্য

৯ জেব্রার মৃত্যু: সাফারি পার্কে বিশেষজ্ঞ দল

৯ জেব্রার মৃত্যু: সাফারি পার্কে বিশেষজ্ঞ দল

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কে জেব্রার দল। ছবি: নিউজবাংলা

সাফারি পার্কের প্রকল্প পরিচালক মো. জাহিদুল কবির বলেন, ‘মারা যাওয়ার আগে জেব্রাগুলো দল থেকে আলাদা হয়ে পড়ে যায়। এরপর সঙ্গে সঙ্গে শ্বাসকষ্ট শুরু হয় এবং পেট ফুলে মুখ দিয়ে ফেনা বের হয়। করোনা সন্দেহে পিসিআর ল্যাবে মৃত জেব্রাগুলোর নমুনা পাঠিয়ে পরীক্ষা করা হয়েছে। রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে।’

গাজীপুরের শ্রীপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কে ২২দিনের ব্যবধানে ৯টি জেব্রার মৃত্যু হয়েছে। ২ জানুয়ারি থেকে ২৪ জানুয়ারির মধ্যে জেব্রাগুলো মারা যায়। সবশেষ সোমবার রাতে পার্কে একটি জেব্রার মৃত্যুর পর বিষয়টি প্রকাশ পায়।

এদিকে পরপর নয়টি জেব্রার মৃত্যুর সহস্য উদ্ঘাটনে মঙ্গলবার সকালে সাফারি পার্কে বৈঠকে বসেছে বিশেষজ্ঞ দল।

নিউজবাংলাকে জেব্রার মৃত্যু ও বৈঠকের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সাফারি পার্কের প্রকল্প পরিচালক মো. জাহিদুল কবির।

তিনি বলেন, ‘জেব্রার মৃত্যুর কারণ অনুসন্ধানসহ নানা বিষয় খতিয়ে দেখা হচ্ছে। মঙ্গলবার সকাল থেকে ময়মনসিংহ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভেটেরিনারি অনুষদের তিনজন বিশেষজ্ঞ, ঢাকা চিড়িয়াখানার সাবেক কিউরেটর মো. শহিদুল্ল্যাহ ও গাজীপুর জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে বিশেষজ্ঞ দল বোর্ড মিটিংয়ে বসেছে।’

মৃত্যুর আগে জেব্রাগুলোর মধ্যে কোনো রোগের উপসর্গ দেখা যাচ্ছে না জানিয়ে তিনি বলেন, ‘প্রতিটি জেব্রার মরদেহ ময়নাতদন্ত হয়েছে। মরদেহের বিভিন্ন অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ পরীক্ষাগারে পাঠানো হয়েছে।’

৯ জেব্রার মৃত্যু: সাফারি পার্কে বিশেষজ্ঞ দল

প্রকল্প পরিচালক আরও বলেন, ‘জেব্রার অস্বাভাবিক মৃত্যুর কারণ অনুসন্ধানে মৃত জেব্রাগুলোর ফুসফুস, লিভার, মৃত্যুর পর পেটে থাকা অর্ধগলিত খাবারগুলোর পরীক্ষা করা হয়েছে, যার রিপোর্ট চলে এসেছে। সেগুলো পর্যালোচনা করা হচ্ছে।’

তিনি জানান, মারা যাওয়ার আগে জেব্রাগুলো দল থেকে আলাদা হয়ে পড়ে যায়। এরপর সঙ্গে সঙ্গে শ্বাসকষ্ট শুরু হয় এবং পেট ফুলে মুখ দিয়ে ফেনা বের হয়। করোনা সন্দেহে পিসিআর ল্যাবে মৃত জেব্রাগুলোর নমুনা পাঠিয়ে পরীক্ষা করা হয়েছে। রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে।

এছাড়াও খাবারে বিষক্রিয়ায় মৃত্যু হতে পারে এমন সন্দেহে খাবার পরীক্ষা করা হয়েছে।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘জেব্রাগুলো যে খাবার খাচ্ছে তা পার্কে থাকা অন্যান্য প্রাণীগুলোও খাচ্ছে। খাদ্যে বিষক্রিয়া হয়ে মৃত্যু হলে অন্য প্রাণীগুলোরও মৃত্যু হতে পারতো।’

৯ জেব্রার মৃত্যু: সাফারি পার্কে বিশেষজ্ঞ দল

পার্কের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও সহকারী বনসংরক্ষক তবিবুর রহমান বলেন, ‘জেব্রার মৃতদেহের নমুনা রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট (আইইডিসিআর) ও বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষাকেন্দ্রে পাঠানো হয়েছিল। সোমবার রাতে পরীক্ষার ফলাফলও হাতে এসেছে। ওই ফল নিয়েই মঙ্গলবার সকালে পার্কে বিশেষজ্ঞ দল বৈঠকে বসেছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘সাফারি পার্কে জেব্রাকে ঘাস সরবরাহ করে মাহবুব এন্টারপ্রাইজ নামে একটি প্রতিষ্ঠান। ওই প্রতিষ্ঠানের একজনকে নিয়ে যেসব এলাকা থেকে ঘাস সংগ্রহ করা হয় সেসব এলাকা পরিদর্শন করা হয়েছে।

‘সেখান থেকে বিভিন্ন ধরনের নমুনা সংগ্রহ করা হচ্ছে। সাফারি পার্কের চারণভূমির ঘাস ও মাটি পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে।’

তিনি জানান, পার্কে মোট ৩১টি জেব্রা ছিল। ৯টি জেব্রার মৃত্যুর পর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২২টিতে।’

আরও পড়ুন:
৮ মাস পর ফের চালু স্বাস্থ্য বুলেটিন
রোগ পরীক্ষার মূল্য তালিকা টানানোর নির্দেশ

শেয়ার করুন

বিএনপির আন্দোলনের হুমকি শব্দদূষণ: কাদের

বিএনপির আন্দোলনের হুমকি শব্দদূষণ: কাদের

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। ফাইল ছবি

বিএনপি নেতাদের গণঅভ্যুত্থানের ডাক প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিএনপির সব প্রতিকূলতা ডিঙিয়ে মানুষ এগিয়ে যাচ্ছে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে। জনগণ এখন হতাশাগ্রস্ত বিএনপির আন্দোলনের ডাককে শব্দদূষণ মনে করে।’

বিএনপি নেতাদের আন্দোলনের হুমকিকে শব্দদূষণ বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। বলেছেন, দেশের রাজনীতিতে নয়, দলটি এখন নিজেদের রাজনীতিতেই দুর্দিন অতিক্রম করছে।

রাজধানীতে সরকারি বাসভবনে মঙ্গলবার ব্রিফিংয়ে এসব মন্তব্য করেন ক্ষমতাসীন দলের দ্বিতীয় এই শীর্ষ নেতা। নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচনের প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জে কূটচাল ব্যর্থ হওয়ায় বিএনপির হতাশা আরও ঘনীভুত হয়েছে।’

বিএনপি নেতাদের গণঅভ্যুত্থানের ডাক প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিএনপির সব প্রতিকূলতা ডিঙিয়ে মানুষ এগিয়ে যাচ্ছে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে। জনগণ এখন হতাশাগ্রস্ত বিএনপির আন্দোলনের ডাককে শব্দদূষণ মনে করে।

‘বিএনপি ৬৯ এর মতো গণঅভ্যুত্থানের স্বপ্ন দেখে, কিন্তু নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচনে জনগণ ব্যালটের মাধ্যমে তাদের বিরুদ্ধে যে অভ্যুত্থান দেখিয়েছে, তা বিএনপি দেখেও দেখে না, বুঝেও বোঝে না।’

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের মতে, বিএনপি এখনও অগণতান্ত্রিক পথে ক্ষমতা দখল করে জনগণের ঘাড়ে জগদ্দল পাথরের মতো সওয়ার হওয়ার দিবাস্বপ্ন দেখে।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও অন্যান্য কমিশনারদের নিয়োগে আইন প্রণয়নে উদ্যোগী হয়েছে সরকার। এ বিষয়েও বিএনপি স্বভাবগত সমালোচনা করছে বলে জানালেন ওবায়দুল কাদের। বিএনপি নেতাদের কাছে প্রশ্ন রেখে তিনি বলেন, ‘তাদের শাসনামলে তারা কেন এই আইন করতে পারলেন না?

করোনা সংক্রমণ আবারও বেড়ে যাওয়া প্রসঙ্গে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের দেশবাসীকে স্বাস্থ্যবিধি মানার আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, করোনার সংক্রমণ বাড়লে একটি মহল গুজব এবং অপপ্রচার শুরু করে। জনমনে ভীতি সঞ্চার করতে চায়।

আরও পড়ুন:
৮ মাস পর ফের চালু স্বাস্থ্য বুলেটিন
রোগ পরীক্ষার মূল্য তালিকা টানানোর নির্দেশ

শেয়ার করুন

দুর্নীতির মামলায় ক্যাপ্টেন শওকতকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ

দুর্নীতির মামলায় ক্যাপ্টেন শওকতকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ

মাওয়া আরিচা ফেরিঘাটে ফগ লাইট পরীক্ষা করার পর দেখা যায়, ৭ হাজার ওয়ার্ডের ফগ লাইট কাজ করছে মাত্র ৩ হাজার ওয়ার্ডের সমান। ফাইল ছবি

আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন করপোরেশনের সাবেক মহাব্যবস্থাপক ক্যাপ্টেন শওকত সরদারকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট। ফেরির ফগ লাইট কেনায় অনিয়মের অভিযোগে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন করপোরেশনের পরিচালক ও জিএমসহ ৭ কর্মকর্তার নামে মামলা করে দুর্নীতি দমন কমিশন।

ফেরির ফগ লাইট কেনায় অনিয়মের অভিযোগে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন করপোরেশনের সাবেক মহাব্যবস্থাপক (জিএম) ক্যাপ্টেন শওকত সরদারকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট।

আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে তাকে আত্মসমর্পণ করতে বলা হয়েছে।

আগাম জামিন চেয়ে তার করা আবেদন খারিজ করে মঙ্গলবার বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেয়।

আদালতে আবেদনের পক্ষে ছিলেন জে কে পাল। দুদকের পক্ষে ছিলেন শাহীন আহমেদ। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একেএম আমিন উদ্দিন মানিক।

ফেরির ফগ লাইট কেনায় অনিয়মের অভিযোগে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন করপোরেশনের (বিআইডব্লিউটিসি) পরিচালক ও জিএমসহ ৭ কর্মকর্তার নামে ৫ জানুয়ারি দুদকের ঢাকা সমন্বিত জেলা কার্যালয়-১ এ মামলা করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

মামলায় আসামি করা হয়, বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন করপোরেশনের (বিআইডব্লিউটিসি) সাবেক চেয়ারম্যান ও পরিচালক (কারিগরি) ড. জ্ঞান রঞ্জন শীল, মহাব্যবস্থাপক বা জিএম ক্যাপ্টেন শওকত সরদার, মো. নুরুল হুদা, নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ের ডেপুটি সেক্রেটারি পঙ্কজ কুমার পাল, বাংলাদেশ চিনি ও খাদ্য শিল্প করপোরেশনের (বিএসএফআইসি) সাবেক মহাব্যবস্থাপক (মেকানিক্যাল) ইঞ্জিনিয়ার মো. রহমত উল্লা, বাংলাদেশ জুট মিলস করপোরেশনের (বিজেএমসি) মেকানিক্যাল বিভাগের ম্যানেজার ইঞ্জিনিয়ার মোহাম্মদ নাসির উদ্দিন এবং মেসার্স জনী করপোরেশনের মালিক ওমর আলী।

ঘন কুয়াশায় ফেরি চলাচল স্বাভাবিক রাখতে ১০ কিলোমিটার দেখা যায় এমন উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন ফগ অ্যান্ড সার্চ লাইট ক্রয়ে ৫ কোটি ৬৫ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে তাদের নামে দুদকের সহকারী পরিচালক মো. সাইদুজ্জামান বাদি হয়ে মামলাটি করেন।

মামলার এজাহার থেকে জানা যায়, আসামিরা পরস্পর যোগসাজশে বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির মাধ্যমে মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন ও পিএসআই কমিটির সুপারিশ উপেক্ষা করে সার্চ অ্যান্ড ফগ লাইটের পরিবর্তে উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন সার্চ লাইটসহ বিভিন্ন যন্ত্রাংশ ক্রয় করে সরকারের ৫ কোটি ৬৫ লাখ টাকার আর্থিক ক্ষতি সাধন করেছেন।

অনুমোদনকৃত মামলায় তাদের নামে দণ্ডবিধির ৪০৯/৪২০/১০৯ ধারাসহ ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫ (২) ধারায় অভিযোগ আনা হয়েছে।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০১৫ সালে বিআইডব্লিউটিসির ৬ কোটি টাকার ফগলাইট কিনতে আমেরিকায় যায় প্রতিষ্ঠানটির তখনকার চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান, পরিচালক জ্ঞান রঞ্জন শীল, জিএম ক্যাপ্টেন শওকত সরদার ও নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ের উপসচিব পংকজ কুমার পাল। এই চার সদস্যের মধ্যে ইঞ্জিনিয়ার ছিলেন মাত্র একজন।

৬ কোটি টাকা দিয়ে তারা ১০টি ফগ লাইট ক্রয় করে। যা ছিল নিম্ন মানের। এছাড়া দেশে ফিরে গ্রীষ্মকালেই তারা এই ফগ (কুয়াশা) লাইট পরীক্ষা করেছে। মাওয়া আরিচা ফেরিঘাটে ফগ লাইট পরীক্ষা করার পর দেখা যায়, ৭ হাজার ওয়ার্ডের ফগ লাইট কাজ করছে মাত্র ৩ হাজার ওয়ার্ডের সমান। কিন্তু এর মধ্যে টাকা তুলে নেয় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান জনি করপোরেশন। তবে অনিয়ম ধরা পড়ায় আটকে দেয়া হয় ব্যাংক গ্যারান্টির টাকা।

এরপর ২০১৬ সালে হাইকোর্টের দ্বারস্ত হয় ফগ লাইট আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান জনি করপোরেশন। ওই রিটের দীর্ঘ শুনানি শেষে রিটটি খারিজ করে দিয়ে এ রায় দেয় হাইকোর্টের আরেকটি বেঞ্চ।

আরও পড়ুন:
৮ মাস পর ফের চালু স্বাস্থ্য বুলেটিন
রোগ পরীক্ষার মূল্য তালিকা টানানোর নির্দেশ

শেয়ার করুন

ভোটের পরদিন করালেন মিষ্টিমুখ, ২ মাস পর ফল বাতিল চেয়ে মামলা

ভোটের পরদিন করালেন মিষ্টিমুখ, ২ মাস পর ফল বাতিল চেয়ে মামলা

ভোটের পরদিন বিজয়ী চেয়ারম্যান প্রার্থীকে ফুল দিয়ে অভিনন্দন জানান ও মিষ্টিমুখ করান পরাজিত প্রার্থী আশরাফ উদ্দিন রাজন। ছবি: নিউজবাংলা

নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান খালেদ বলেন, ‘এতদিন পর ফলাফল বাতিল চেয়ে মামলাটি হাস‍্যকর। ২৯ নভেম্বর আমার নামে গেজেট প্রকাশ হয়েছে। শপথ নিয়ে আমি চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করছি। ভোটের পরদিন আশরাফ আমাকে মিষ্টিমুখ করালেন আর এতদিন পর এসে মামলা করলেন।’

ভোটের পরদিন ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে বিজয়ী প্রার্থীকে ফুল দিয়ে বরণ করে নেন পরাজিত প্রার্থী, করান মিষ্টিমুখও।

তবে দুই মাস পর সেই নির্বাচনের ফল বাতিল করে নিজেকে চেয়ারম্যান ঘোষণার দাবি জানিয়ে মামলা করেছেন আশরাফ উদ্দিন রাজন।

লক্ষ্মীপুর জ্যেষ্ঠ সহকারী জজ আদালত ও নির্বাচনি ট্রাইব্যুনালে গত ২ জানুয়ারি মামলা করেন তিনি।

আশরাফ দ্বিতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচনে লক্ষ্মীপুরের কমলনগর উপজেলার চরকাদিরা ইউনিয়নে মোটরসাইকেল প্রতীক নিয়ে চেয়ারম্যান পদে দাঁড়ান। ১১ নভেম্বরের ভোটে জয়ী হন ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থী হাতপাখা প্রতীকের খালেদ সাইফুল্লাহ। আশরাফ ছিলেন দ্বিতীয় অবস্থানে।

ভোটের ফল মেনে নিয়ে আশরাফ অভিনন্দন জানিয়ে খালেদকে ফুল দেন ও মিষ্টিমুখ করান।

আশরাফ মঙ্গলবার সকালে নিউজবাংলাকে মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, ভোটের ফলে দেখানো হয়, তিনি ৩ হাজার ৭৯৭ ভোট পেয়েছেন। বিজয়ী খালেদ পান ৪ হাজার ৭৬৮ ভোট। তবে এজেন্টদের দেয়া প্রতিবেদনে ভোট আরও বেশি পেয়েছেন। প্রিসাইডিং কর্মকর্তারা ‘ওপর মহলের’ নির্দেশে তার ভোট কমিয়ে দিয়েছে।

আশরাফ বলেন, ‘সঠিক গণনা হলে আমিই জয়ী হতাম। তাই খালেদের গেজেট বাতিল করে আমাকে জয়ী ঘোষণা করার জন্য নালিশি মামলা করেছি। এ মামলায় প্রতিদ্বন্দ্বী ছয় প্রার্থীকেই বিবাদী করা হয়েছে।’

তবে এত দিন পরে কেন মামলা সে প্রশ্নের উত্তর দেননি আশরাফ। তিনি বলেন, ‘এটা পরে বলব।’

নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান খালেদ জানান, মামলার কারণে তিনি কারণ দর্শানোর নোটিশ পেয়েছেন।

এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘এতদিন পর ফলাফল বাতিল চেয়ে মামলাটি হাস‍্যকর। ২৯ নভেম্বর আমার নামে গেজেট প্রকাশ হয়েছে। শপথ নিয়ে আমি চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করছি। ভোটের পরদিন আশরাফ আমাকে মিষ্টিমুখ করালেন আর এতদিন পর এসে মামলা করলেন।’

মামলার বিষয়টি এখনও জানেন না কমলনগর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা। তিনি বলেন, ‘মামলার কথা আমার জানা নেই। এ বিষয়ে খোঁজ নিচ্ছি।’

আরও পড়ুন:
৮ মাস পর ফের চালু স্বাস্থ্য বুলেটিন
রোগ পরীক্ষার মূল্য তালিকা টানানোর নির্দেশ

শেয়ার করুন

দেশের প্রতি যাদের মমত্ব কম, তারা অপপ্রচারে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

দেশের প্রতি যাদের মমত্ব কম, তারা অপপ্রচারে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন। ফাইল ছবি

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, ‘যারা দেশ বিরোধী অপপ্রচার করে, তাদের কথায় বিশ্বাস না করার আহ্বান জানাচ্ছি। সঠিক তথ্য জানতে হবে। দেশের প্রতি যাদের মমত্ব কম তারাই অপপ্রচার করে দেশের ক্ষতি করে।’

দেশের প্রতি যাদের মমত্ব কম, তারা দেশবিরোধী অপপ্রচারে লিপ্ত। তাই সামনের বছরগুলোতে বেশ কিছু চ্যালেঞ্জ আসবে বলে মনে করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন।

তিনি বলেন, এসব চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সবাইকে এক সঙ্গে কাজ করে সম্ভাবনাময় বাংলাদেশের কথা বিশ্বময় ছড়িয়ে দিতে হবে।

রাজধানীর ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে মঙ্গলবার সকালে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘরের সামনে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের নেতাদের সঙ্গে নিয়ে শ্রদ্ধা জানিয়ে এসব কথা বলেন তিনি।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘বিশ্বের ৮১টি মিশনে বঙ্গবন্ধু কর্নার করা হয়েছে। মুক্তিযোদ্ধাদের সাক্ষাৎকার নিয়ে তা সংরক্ষণ করা হবে। ১০০ বিশ্ববিদ্যালয়ে বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ নিয়ে সেমিনার ও প্রর্দশনী করা হবে।

‘যারা দেশ বিরোধী অপপ্রচার করে, তাদের কথায় বিশ্বাস না করার আহ্বান জানাচ্ছি। সঠিক তথ্য জানতে হবে। দেশের প্রতি যাদের মমত্ব কম তারাই অপপ্রচার করে দেশের ক্ষতি করে।’

সম্প্রতি র‍্যাবকে শান্তিরক্ষা মিশনে না নিতে জাতিসংঘে ১২ সংগঠন চিঠি দিয়েছে। বিষয়টি নিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান হলেই যে ভালো হবে, এমনটা ভাববার কারণ নেই।’

যে ১২ প্রতিষ্ঠান চিঠি লিখেছে, তাদের বিষয়ে জাতিসংঘে খোঁজখবর নেবার আহ্বান জানান মোমেন।

এসব চিঠি র‍্যাবের শান্তিরক্ষা মিশনে যাওয়ায় কোনো বড় রকমে প্রভাব পড়বে না বলে দাবি করেন তিনি।

বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের ২১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের নেতারা।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন ফাউন্ডেশনটির সভাপতি। বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদনের পর ফাউন্ডেশনের অন্য নেতাদের শপথ পড়ান তিনি।

আরও পড়ুন:
৮ মাস পর ফের চালু স্বাস্থ্য বুলেটিন
রোগ পরীক্ষার মূল্য তালিকা টানানোর নির্দেশ

শেয়ার করুন

ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের হাজতির মৃত্যু

ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের হাজতির মৃত্যু

হাজতির মরদেহটি ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। ফাইল ছবি

ঢামেক হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ বাচ্চু মিয়া বলেন, ‘মরদেহটি ময়নাতদন্তের জন্য ঢামেক হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরির পর ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হবে।’

কেরানীগঞ্জের ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের এক হাজতির মৃত্যু হয়েছে।

মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৭টায় রেজাউল করিম নামের এই হাজতিকে অসুস্থ অবস্থায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

হাসপাতালে নিয়ে আসা কারারক্ষী মোসেফ খান বলেন, ‘রেজাউল করিম কারাগারে হাজতি হিসেবে ছিলেন। আজ সকালে তিনি সেখানে অসুস্থ হয়ে পড়েন। তিনি কী মামলায় হাজতি হিসাবে ছিলেন সেটা জানি না। তার বাবার নাম মৃত হাজী লাল মিয়া। এর বেশি কিছু বলতে পারব না। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ফাইলপত্র নিয়ে ঢামেক মর্গে নিয়ে যাবেন তখন বিস্তারিত জানা যাবে।’

ঢামেক হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ বাচ্চু মিয়া বলেন, ‘মরদেহটি ময়নাতদন্তের জন্য ঢামেক হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরির পর ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হবে।’

আরও পড়ুন:
৮ মাস পর ফের চালু স্বাস্থ্য বুলেটিন
রোগ পরীক্ষার মূল্য তালিকা টানানোর নির্দেশ

শেয়ার করুন

মাদ্রাসাশিক্ষকের এ কেমন নির্মমতা

মাদ্রাসাশিক্ষকের এ কেমন নির্মমতা

হাফেজিয়া মাদ্রাসার সাব্বির শেখ এভাবেই বেত্রাঘাত করেছেন এক শিক্ষক। ছবি: নিউজবাংলা

নির্যাতনের শিকার ১১ বছর বয়সী সাব্বির শেখ শ্রীফলতলা গ্রামের মোহাম্মাদিয়া হাফেজিয়া মাদ্রাসার শিক্ষার্থী। তিন বছর ধরে সে ওই প্রতিষ্ঠানে পড়াশোনা করছে। সহপাঠীদের সঙ্গে দুষ্টুমি করায় গত রোববার তাকে শিক্ষক মেহেদী হাসান বেধম বেত্রাঘাত করেন বলে তার পরিবারের অভিযোগ।

পিঠজুড়ে বেত্রাঘাতের দাগ। বাদ যায়নি হাত-পা শরীরের অন্যান্য অংশও। খুলনার রূপসা উপজেলার শ্রীফলতলা ইউনিয়নের শ্রীফলতলা গ্রামে হাফেজিয়া মাদ্রাসার এক শিশু শিক্ষার্থীকে এভাবেই পেটানোর অভিযোগ উঠেছে প্রতিষ্ঠানটির এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে।

নির্যাতনের শিকার ১১ বছর বয়সী সাব্বির শেখ শ্রীফলতলা গ্রামের মোহাম্মাদিয়া হাফেজিয়া মাদ্রাসার শিক্ষার্থী। তিন বছর ধরে সে ওই প্রতিষ্ঠানে পড়াশোনা করছে। সহপাঠীদের সঙ্গে দুষ্টুমি করায় গত রোববার তাকে শিক্ষক মেহেদী হাসান বেধম বেত্রাঘাত করেন বলে তার পরিবারের অভিযোগ।

রূপসার ঘাটভোগ ইউনিয়নের আনন্দনগর মেঝোঝিলার রউফ শেখ ও লিপি বেগমের সন্তান সাব্বির বর্তমানে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন।

নির্যাত‌নের ঘটনায় সোমবার সাব্বিরের মা লিপি বেগম বা‌দী হ‌য়ে রূপসা থানায় লি‌খিত অভিযোগ ক‌রেন। সেই অভি‌যোগ মামলার এজাহার হি‌সে‌বে রেকর্ড ক‌রেছে পুলিশ।

লিপি বেগম বলেন, সহপাঠীদের সঙ্গে দুষ্টুমি করায় তার ছেলেকে বেত দিয়ে পিটিয়েছে মেহেদী হুজুর; অমানুষিক নির্যাতন করা হয়েছে। একপর্যায়ে সাব্বির পালিয়ে তার গ্রামের বাড়ি আনন্দনগরে চলে আসে। গুরুতর জখম অবস্থায় তাকে রূপসা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি ক‌রা হয়।

এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত মাদ্রাসাশিক্ষকের উপযুক্ত শাস্তি চেয়েছেন সাব্বিরের মা।

ঘটনার পর থেকে শিক্ষক মেহেদী পলাতক। তাকে কোথাও খোঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। তার মোবাইলটিও বন্ধ পাওয়া যাচ্ছে।

রূপসা থানার অফিসার ইনচার্জ সরদার মোশাররফ হোসেন জানান, মাদ্রাসাছাত্রকে পিটিয়ে গুরুতর জখম করার অভিযোগ করেছেন শিশুটির মা। এ বিষয়ে মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়ে‌ছে।

আরও পড়ুন:
৮ মাস পর ফের চালু স্বাস্থ্য বুলেটিন
রোগ পরীক্ষার মূল্য তালিকা টানানোর নির্দেশ

শেয়ার করুন