× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ পৌর নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট

রেস-জেন্ডার
Womens incomplete sex life under the pressure of maintaining masculinity
hear-news
player
print-icon

‘পৌরুষত্বের অনুভূতি’ রক্ষার চাপে নারীর অপূর্ণ যৌনজীবন  

পৌরুষত্বের-অনুভূতি-রক্ষার-চাপে-নারীর-অপূর্ণ-যৌনজীবন- 
গবেষণায় দেখা গেছে, সঙ্গী পৌরুষত্বহীনতায় ভুগছেন বলে মনে করলে নারী তার নিজস্ব চাহিদার প্রকাশ কমিয়ে দেন। ছবি: সংগৃহীত
গবেষণায় দেখা গেছে, একজন নারী যখন দেখেন সক্ষমতা না থাকার পরও তার সঙ্গী নিজেকে ‘আসল পুরুষ’ হিসেবে জাহিরের কসরত করছেন, তখন তিনি তার অনুভূতিকে আঘাতপ্রাপ্ত করতে চান না। এমন অবস্থায় নারী তার চাহিদা বা অতৃপ্তিকে গোপন করতে শুরু করেন। ফলে দুজনের মধ্যে যোগাযোগহীনতা প্রকট হয়ে উঠতে শুরু করে।

সঙ্গীর যৌন-সক্ষমতার ঘাটতির কারণে তৈরি হওয়া উদ্বেগ নারীর যৌনজীবনে ব্যাপক প্রভাব ফেলে। গবেষণা বলছে, উদ্বিগ্ন এসব নারীর নকল অর্গাজমের সম্ভাবনা বেড়ে যায়। শুধু তা-ই নয়, পুরুষ সঙ্গীর কাছে নিজের যৌন চাহিদাও আড়াল করতে শুরু করেন নারীরা।

সোশ্যাল সাইকোলজিক্যাল অ্যান্ড পার্সোনালিটি সায়েন্স জার্নালে সম্প্রতি প্রকাশিত এক গবেষণায় এসেছে এসব তথ্য। সঙ্গীর পৌরুষত্ব নিয়ে নারীর অনাস্থা কীভাবে যৌন সম্পর্কে প্রভাব ফেলে, তা উন্মোচনের চেষ্টা করেছেন গবেষকরা।

পুরুষের সঙ্গে যৌন সম্পর্কের ক্ষেত্রে ১৩২ জন নারীর ওপর চালানো প্রাথমিক সমীক্ষায় গবেষক দলটি দেখতে পায়, যেসব নারী সঙ্গীর তুলনায় বেশি অর্থ উপার্জন করেন, তাদের তুলনায় কম উপার্জনকারী নারীরা প্রায় দ্বিগুণ মাত্রায় অর্গাজমের অভিনয় করেন।

তবে এই নকল অর্গাজমের বিষয়ে পুরুষের ভূমিকার কোনো প্রমাণ পাননি গবেষকরা। এ জন্য সঙ্গীর পৌরুষত্ব নিয়ে নারীর উদ্বেগের সঙ্গে ‘প্রতারণামূলক যৌন সম্পর্কের’ কোনো সম্পর্ক আছে কি না, তা অনুসন্ধানে গবেষণার পরিসর বাড়ানো হয়।

এবার গবেষকরা বেছে নেন ২৭৬ জন নারীকে, যাদের গত ছয় মাসের মধ্যে সঙ্গমের অভিজ্ঞতা রয়েছে।

এসব নারীর অভিজ্ঞতা পর্যালোচনায় দেখা গেছে, সঙ্গী পৌরুষত্বহীনতায় ভুগছেন বলে মনে করলে নারী তার নিজস্ব চাহিদার প্রকাশ কমিয়ে দেন এবং নকল অর্গাজমের দিকে ঝুঁকে পড়েন।

অন্যভাবে বলা যায়, একজন নারী যখন দেখেন সক্ষমতা না থাকার পরও তার সঙ্গী নিজেকে ‘আসল পুরুষ’ হিসেবে জাহিরের কসরত করছেন, তখন তিনি তার অনুভূতিকে আঘাতপ্রাপ্ত করতে চান না। এমন অবস্থায় নারী তার চাহিদা বা অতৃপ্তিকে গোপন করতে শুরু করেন। ফলে দুজনের মধ্যে যোগাযোগহীনতা প্রকট হয়ে উঠতে শুরু করে।

গবেষণার আরেক অংশে ১৯৬ জন নারী অংশ নেন। তাদের এমন একজন পুরুষ সঙ্গীকে কল্পনা করতে বলা হয়েছিল, যার যৌন-সক্ষমতা ভঙ্গুর। এ ক্ষেত্রে দেখা গেছে, এ ধরনের পুরুষের সঙ্গে নারীরা যৌনতাবিষয়ক আলোচনা একেবারেই অনাগ্রহী।

গবেষণাপত্রের অন্যতম লেখক জেসিকা জর্ডান শিগগিরই ফ্লোরিডার ইউনিভার্সিটি অফ টাম্পার সহকারী অধ্যাপক পদে যোগ দিচ্ছেন।

তিনি বলেন, “আমি সব সময় যৌনতায় লিঙ্গ ভূমিকা, বিশেষ করে বিষমকামী নারী ও পুরুষ যেভাবে রোমান্টিক ও যৌন সম্পর্ক স্থাপন করে সেটি বিশ্লেষণে আগ্রহী।

“একজন তরুণী হিসেবে মিডিয়া, বন্ধু এবং বয়স্ক নারীদের কাছ থেকে যৌনতার বিষয়ে অনেক তথ্য আমি পাই। এই যেমন কীভাবে একজন পুরুষকে নিয়ন্ত্রণ করতে হয়। এ ছাড়া একটি উপদেশ আমাকে প্রায়ই শুনতে হয়, তা হলো- আমাকে সব সময় সঙ্গীর ‘পুরুষত্বের অনুভূতি’ রক্ষার যথাসাধ্য চেষ্টা করতে হবে।”

গবেষণার গুরুত্ব তুলে ধরে জর্ডান বলেন, ‘এ বিষয়ে নারীদের সঙ্গে কথা বলে আমরা ভীষণ অবাক হয়েছি। তাদের প্রায় সবাই বিশ্বাস করেন, সঙ্গীর পৌরুষত্বের অনুভূতি রক্ষায় ভূমিকা পালন করা জরুরি।’

তবে এ ধরনের ঘটনা নারীদের ক্লান্ত যৌনজীবনের দিকে ঠেলে দেয় বলেও মনে করছেন গবেষকরা।

জর্ডান বলেন, ‘গবেষণাগুলো প্রমাণ করেছে নারীরা পুরুষ সঙ্গীর পৌরুষত্ব নিয়ে উদ্বেগের শিকার হলে ধারাবাহিক প্রতিক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যান। তারা ক্রমাগত উদ্বেগে ভোগেন এবং যৌনতা নিয়ে আলোচনা বন্ধ করে দেন। শেষ পর্যন্ত একটি অতৃপ্ত যৌনজীবনের মধ্যে ঢুকে যান।’

গবেষক দলের পরামর্শ- এ ধরনের ঘটনা ঘটলে সঙ্গীর সঙ্গে খোলামেলা আলোচনা করা প্রয়োজন।

জর্ডান বলেন, ‘মিলনের বিরতিতে আমরা একে-অপরের সঙ্গে আরও ঘনিষ্ঠ আলাপ-আলোচনা করে থাকি। আপনি যদি সঙ্গীকে নিয়ে উদ্বেগ্ন বোধ করেন, তাহলে সাবধানে পর্যালোচনা করে দেখুন এটা কেন হচ্ছে। বিষয়টি আপনার সঙ্গীর সঙ্গে শেয়ার করুন।

‘এ ক্ষেত্রে অনেক ফলোআপ প্রশ্ন আছে। তবে বড় প্রশ্নটি হলো এর কি কোনো সমাধান আছে? পুরুষ সঙ্গী সম্পর্কে তাদের (নারীর) ধারণা কতটা সঠিক? তাদের অনুমান কি সঠিক? নাকি নারীরা সাধারণভাবে পুরুষের সম্পর্কে ভুল অনুমান করে থাকেন।’

আরও পড়ুন:
চোয়ালের ব্যথাও হতে পারে মেনোপজের লক্ষণ
পিরিয়ড জটিলতায় ছুটি স্পেনের মন্ত্রিসভায় অনুমোদন
চালচিত্র কফিশপের নারী কর্মী পাবেন পিরিয়ডের সময় ছুটি
নারী উদ্যোক্তাদের জুসি ফেস্ট শনিবার
বাইপোলার ডিজঅর্ডার কতটা প্রভাব ফেলে যৌনতায়

মন্তব্য

আরও পড়ুন

রেস-জেন্ডার
What is the reason for so much navipriti across India?

ভারতবর্ষজুড়ে এত নাভিপ্রীতির কী কারণ?

ভারতবর্ষজুড়ে এত নাভিপ্রীতির কী কারণ? ভারতীয় সিনামায় উত্তেজক দৃশ্যে নাভি দেখানোর প্রবণতা নিয়মিত। ছবি: সংগৃহীত
ভারতীয় সিনেমায় ঐতিহ্যগতভাবে যৌন দৃশ্য বা চুম্বন দৃশ্য দেখানো হয় না। এর কারণ এই অঞ্চলে আবেগের প্রকাশ্য প্রদর্শনকে ভালো চোখে দেখা হয় না। প্রকৃত ঘনিষ্ঠতা, মেক আউট বা যৌন মিলনের জায়গায় ফিল্মগুলো যৌনতার ইঙ্গিত দেয়ার জন্য দুটি ফুলের ক্লোজ-আপ বা যুগলকে লুকানোর ছাতা বা গাছ দেখিয়ে এসেছে। এ অবস্থার ‘বিকল্প’ হয়ে উঠেছে নাভি।

শিশুর জন্মের সময় মায়ের গর্ভের সঙ্গে সংযোগ স্থাপনকারী কর্ডটিকে কেটে ফেলার প্রক্রিয়ায় জন্ম হয় নাভির। গোটা পৃথিবীতে নাভিকে শরীরের স্বাভাবিক অংশ মনে করা হলেও ভারতীয় উপমহাদেশে একে নিয়ে রয়েছে বাড়তি আগ্রহ। বিশেষ করে ভারতীয় সিনেমায় দীর্ঘকাল ধরে নাভিকে যৌন উত্তেজক অঙ্গ হিসেবে দেখানো হচ্ছে। কারেন্ট অ্যাফেয়ার্সভিত্তিক সাইট ভাইস বিশেষজ্ঞের সঙ্গে কথা বলে জানার চেষ্টা করেছে নাভি নিয়ে এই বাড়তি আগ্রহের উৎস। নিউজবাংলার পাঠকের জন্য প্রতিবেদনটি ভাষান্তর করেছেন রুবাইদ ইফতেখার।

সঙ্গিনীকে একটি খাবার টেবিলে শুয়ে পড়তে বলছেন নায়ক। সায় দিতেই ‘খুব ভালো মেয়ে’ বলে প্রশংসার বাক্য ঝরে নায়কের কণ্ঠে। এরপর কৌশলী হাতে শাড়ি সরিয়ে সঙ্গিনীর নাভি উন্মোচন। সঙ্গিনীর পেটের ওপর একসঙ্গে দুটি ডিম ভেঙে ছড়িয়ে দেন নায়ক।

একটি শটে দেখা যায় উত্তাপে ডিম ফুটছে। বিস্মিত নায়কের মুখের সামনে উড়তে দেখা যায় বাষ্প। পরক্ষণেই অনুমতির অপেক্ষায় সঙ্গিনীর দিকে ফিরে তাকান তিনি। ডিম রান্নার সময় নায়ক চামচ দিয়ে অমলেটটি উল্টেও দেন একপর্যায়ে। দুজনের কিছু গভীর শ্বাস-প্রশ্বাসের মাঝে প্রস্তুত হয় ‘ডিনার’।
১৯৯৬ সালে মুক্তি পাওয়া লাভ বার্ডস সিনেমার একটি দৃশ্য এভাবেই ডিম ভাজছিলেন সুপারস্টার প্রভু দেবা। যার নাভির ওপরে ভাজা হচ্ছিল তিনিও আরেক মহাতারকা নাগমা।
বলিউড বা বলিউডের বাইরে ভারতীয় সিনেমায় দীর্ঘদিন ধরে এভাবেই নাভির যৌনতাপূর্ণ চিত্রায়ণ হয়েছে। হতে পারে এটি সংস্কৃতির অংশ বা ফেটিশ (বিশেষ কোনো বস্তুর প্রতি আকর্ষণ)।

নারীর জন্য তৈরি বেশির ভাগ ঐতিহ্যবাহী ভারতীয় পোশাক নাভিকে উন্মুক্ত রাখে। দক্ষিণ ভারতীয় বহু চলচ্চিত্রে নাভিকে নারী দেহের সংবেদনশীল ও কামুক অংশ হিসেবে দেখানো হয়। নাভির ক্লোজ-আপ শট বা অভিনেত্রীর নাভিতে পুরুষ অভিনেতা মুখ বা হাত মন্থনের দৃশ্য যৌন দৃশ্যের সমতুল্য হিসেবে বিবেচিত।

চলচ্চিত্রের বাইরে গুগল ট্রেন্ডসে ‘নাভি’ বহুবার সার্চ করা একটি শব্দ। ২০০৪ সাল থেকে শুরু করে এখন পর্যন্ত নাভি শব্দটি নিয়ে গুগল করা শীর্ষস্থানীয় দেশ ভারত। ভারতীয়রা অনলাইনে এ-সম্পর্কিত যেসব ট্রেন্ড খুঁজছেন তার মধ্যে রয়েছে ‘শাড়িতে হট নাভি’, ‘কাজল নাভি’ ও ‘আনুশকা নাভি’। এই সার্চের মূল লক্ষ্য অভিনেতা কাজল আগরওয়াল ও আনুশকা শেঠি, যারা মূলত দক্ষিণ ভারতীয় চলচ্চিত্রে কাজ করেন।

নাভি নিয়ে এমন আকর্ষণ কেন?

ভারতীয় চলচ্চিত্রে এখন প্রায়ই ‘আইটেম সং’ দেখা যায়। এসব গানে অভিনেত্রী স্বল্প পোশাকে প্রলুব্ধ করার ভঙ্গিতে নাচেন। আইটেম গান নারীকে ‘বস্তু’ হিসেবে প্রতিষ্ঠা করে। একই সঙ্গে এটি নারীর যৌনতা ও আকাঙ্ক্ষার প্রকাশ্য ঘোষণা, যদিও তার নির্মাতা পুরুষ। ভারতীয় চলচ্চিত্রের প্রায় সব আইটেম গানে অভিনেত্রীর কোমর ঝাঁকুনি ও দোলানোসহ প্রলোভন ভরা নাচের সঙ্গে তার নাভি দৃশ্যমান রাখা হয়। এর প্রচুর ক্লোজ-আপ থাকায় দর্শকের মনোযোগ আরও আকর্ষিত হয়।

শিশুর জন্মের পর যখন মায়ের গর্ভের সঙ্গে যুক্তকারী কর্ডটি কেটে ফেলা হয়, ওই কর্ডের গোড়াটি শেষ পর্যন্ত শুকিয়ে যায় ও বাইরের দিকে কিংবা ভেতরের দিকে কিছুটা উঁচু বা গভীর হয়ে নাভি পূর্ণতা পায়।

পর্ন ওয়েবসাইটে ‘ভারতীয় নাভি’ সার্চ করলে অভিনেত্রীদের ছোট ছোট ক্লিপ বা তাদের নাভি দেখা যায় এমন দৃশ্যগুলোতে নিয়ে যাবে৷ ‘ন্যাভাল কুইন’ শব্দটি তামান্না ভাটিয়া, ক্যাটরিনা কাইফ, কৃতি শ্যানন, সামান্থা রুথ প্রভু ও তেজস্বী প্রকাশসহ বেশ কয়েকজন ভারতীয় অভিনেত্রীর ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়।

মুম্বাইয়ের ৩৫ বছর বয়সী প্রকৌশলী ভারুন টিনএজ বয়স থেকেই নাভির প্রতি আকৃষ্ট।

তিনি বলেন, ‘সিনেমা হোক বা বিজ্ঞাপন, নাভির দৃশ্য সব জায়গায় দেখতাম। কিছু ইরোটিক গানে শ্রোতাদের আকৃষ্ট করতে নাভির দৃশ্য যুক্ত করা হতো। নাভি নারী দেহের এমন একটা অংশ ছিল, যার সঙ্গে বাস্তব জগতে আমার পরিচয় ঘটে। দক্ষিণ ভারতীয় সিনেমায় নাভির দৃশ্য আমি অনেক পরে দেখেছি। আমি ৯০-এর দশকে বলিউড ফিল্ম দেখে বড় হয়েছি, যেখানে নাভির দৃশ্য দেখানো হয়েছে।’

নাভির প্রতি এমন আকর্ষণকে ভারতীয় সিনেমার অনন্য বৈশিষ্ট্য বলে উল্লেখ করেছেন চলচ্চিত্র সাংবাদিক কিরুবাখার পুরুষোত্তম।

তিনি বলেন, ‘হলিউডে এমন কিছু পাবেন না। একই সঙ্গে যেসব ভারতীয় সিনেমায় নাভি প্রদর্শিত হচ্ছে, সেগুলোতে চুমু খাওয়া বা যৌনতার দৃশ্যও নেই।’

শুরুতে উল্লেখ করা ডিম ভাজার দৃশ্যটি অবশ্য ১৯৯১ সালের হলিউড সিনেমা হট শটসের অনুকরণে নির্মিত। ওই সিনেমায় নায়ক চার্লি শিন নায়িকা ভ্যালেরিয়া গোলিনোর পেটের ওপর বেকন ভেজেছিলেন।

ভারতীয় সিনেমায় ঐতিহ্যগতভাবে যৌন দৃশ্য বা চুম্বন দৃশ্য দেখানো হয় না। এর কারণ এই অঞ্চলে আবেগের প্রকাশ্য প্রদর্শনকে ভালো চোখে দেখা হয় না। প্রকৃত ঘনিষ্ঠতা, মেক আউট বা যৌন মিলনের জায়গায় ফিল্মগুলো যৌনতার ইঙ্গিত দেয়ার জন্য দুটি ফুলের ক্লোজ-আপ বা যুগলকে লুকানোর ছাতা বা গাছ দেখিয়ে এসেছে।

পুরুষোত্তম বলেন, ‘আমার মতে সমাজ হিসেবে, প্রকৃত যৌনতার চেয়ে আমাদের কাছে যৌনতার ইঙ্গিত বেশি গ্রহণযোগ্য। কোনো পুরুষ নারীর নাভি স্পর্শ করলে সেটা ঠিক আছে, কিন্তু অন্য কোনো অঙ্গ স্পর্শ করলেই সিনেমাটি বিতর্কের মুখে পড়তে পারে। এমনকি তা নিষিদ্ধও হয়ে যেতে পারে।’

২০০০ সালের তামিল সিনেমা ‘কুশি’তে এক নারী তার নাভির দিকে তাকিয়ে থাকা পুরুষের সঙ্গে মারামারি করেন। ভারতীয় সিনেমায় ‘ব্যক্তিগত অঙ্গ’ প্রদর্শনে বিধিনিষেধ থাকায় নাভিকে শরীরের একটি যৌন অংশ হিসেবে দেখানো হয় এবং এটি সহজেই দেখা যায়। এ অঞ্চলে নাভি শুধু শরীরের একটি আবেদনময় ও দৃষ্টিনন্দন অংশই নয়, কামোদ্দীপক অংশও।

পুরুষোত্তম ভারতীয় সিনেমায় ফুল, ছাতা এবং গাছ ব্যবহারের মতো ইঙ্গিতপূর্ণ যৌন ক্রিয়াকে জাপানি পর্নের সঙ্গে তুলনা করেছেন, যেখানে তাদের অশ্লীলতার আইন এড়ানোর জন্য যৌনাঙ্গ ঝাপসা করা হয়।

পুরুষোত্তম বলেন, ‘জাপানে হেনতাইয়ের মতো হার্ডকোর পর্ন রয়েছে। তারপরও সেখানে যৌনাঙ্গ ঝাপসা করে রাখা হয়। আমার মতে সাংস্কৃতিক দমন যৌন আকাঙ্ক্ষা ও ফ্যান্টাসিগুলোকে বিশেষ আকর্ষণ হিসেবে প্রকাশ করে।’

তেলেগু সিনেমার পরিচালক কে রাঘবেন্দ্র রাও প্রায়ই তার সিনেমায় নাভিকেন্দ্রিক যৌনতার দৃশ্য রাখেন। যেমন, ১৯৯১ সালের সিনেমা ‘চিন্না গুনদার’-এ নায়ক ভিজয়কান্ত নায়িকার পেটের ওপর একটি লাটিম রেখেছিলেন।

তবে, কেবল ভারতীয়দেরই নাভিপ্রীতি আছে বিষয়টি তেমনও নয়। বিশ্বের বিভিন্ন সংস্কৃতি নাভিকে একটি কামোদ্দীপক স্থান হিসেবে দেখে। জাপানে একটি বার্ষিক নাভি উত্সব রয়েছে।

আমেরিকার সিনেমাগুলো ১৯৩৪ থেকে ১৯৬৮ সাল পর্যন্ত হেইস কোড অনুসরণ করেছে। এ কোডের বিধিনিষেধের মধ্যে একটি ছিল, নাভিকে সব সময় ঢেকে রাখতে হবে। ১৯৫০ সালের সিনেমা সাম লাইক ইট হট-এ মেরিলিন মনরো এমন একটি পোশাক পরেছিলেন যাতে তার দেহের প্রায় পুরোটা দেখা গেলেও একটি ছোট কাপড়ে তার নাভি ঢাকা ছিল। ১৯৬০-এর দশকে কমিউনিটি গাইডলাইনের সঙ্গে এ অবস্থার পরিবর্তন হতে থাকে।

১৯৭০ ও ১৯৮০-র দশকে দক্ষিণ ভারতে সফটকোর পর্ন সিনেমার উত্থান ঘটে। কাহিনি আইয়ার মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম আরকের একটি ভিডিওতে বলেন, চলচ্চিত্র নির্মাতারা তখন একটি আন্দোলন শুরু করেন যা ফ্রেঞ্চ নিউ ওয়েভ ও জার্মান আর্টহাউস সিনেমার মতো ছিল।

১৯৭৮ সালে আইভি শশীর সিনেমা ‘আভালুদে রাভাকাল’ ছিল এ-রেটিং পাওয়া প্রথম মালয়ালম সিনেমা। একইভাবে ভরথান পরিচালিত ‘রথিনিরভেদম’ এক কিশোরের সঙ্গে এক বয়স্ক নারীর প্রেমের মতো নিষিদ্ধ বিষয় নিয়ে তৈরি হয়েছে। এ সময়ে মূলত দক্ষিণ ভারতে নির্মিত সফটকোর পর্ন ভারতজুড়ে ব্যাপক জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। সিল্ক স্মিতা ও ডিস্কো শান্তির মতো অভিনেত্রীরা এ সময়ে খ্যাতনামা হয়ে ওঠেন। ভরথান ও শশীর সিনেমাগুলো সামাজিকভাবে নিষিদ্ধ বিষয়ের ওপর আলোকপাত করেছিল।

ভারতীয় চলচ্চিত্র সমালোচক সি এস ভেঙ্কিটেস্বরন তার বই ‘মালয়ালম সিনেমা: ন্যাচারালাইজিং জেন্ডার হাইরার্কিস’-এ লিখেছেন, ‘এই গল্পগুলো নারী দেহের যৌনতা প্রদর্শনের দারুণ এক সুযোগ দিয়েছে। সিমা (আভালুদে রাভুকালের নায়িকা) ও সুভার মতো অভিনেতারা কেন্দ্রীয় চরিত্র হয়ে উঠেছেন। তারা যে ধরনের যৌনতা প্রকাশ করছেন, যা এর আগে নৈতিক বা আদর্শতার কারণে বাতিল করা হয়নি। তাদের দেহকে ফ্রেমের সামনে ও বর্ণনার উভয় ক্ষেত্রেই সামনের দিকে রাখা হয়েছিল। নায়িকা নিজেকে এমনভাবে স্থাপন করায় ক্যাবারে বা খলনায়কের অশ্লীল আস্তানা তৈরির প্রয়োজন ছিল না।’

এসব মোটা কোমর ও বিশাল বক্ষা নারীর সঙ্গে আইয়ার তুলনা করেছেন প্রাচীন কুশনা সাম্রাজ্যের ইয়াক্সি (যক্ষী) মূর্তিগুলোর।

তিনি বলেন, ‘দক্ষিণ ভারতীয় সিনেমার এ সংস্কৃতি আসলে প্রাচীন আবেদনের ফল। কুশান সাম্রাজ্যের ইয়াক্সিদের (যক্ষী) মতো নাভি উন্মুক্ত করা শাড়ি পরিহিত মোটা কোমর ও বিশাল বক্ষা নারীদের প্রতি কামশক্তির প্রতিফলন এটি।’

চেন্নাইয়ের ২৫ বছর বয়সী প্রকৌশলী নরেন তামিল ও তেলেগু সিনেমা দেখে বেড়ে উঠেছেন। ম্যাগাজিন কিংবা সিনেমা সব জায়গায় তিনি নাভির প্রতি এ আকর্ষণ লক্ষ করেছেন।

ভারুণের মতো নরেনও অনেকগুলো নাভিসংক্রান্ত সাবরেডিটে (রেডিটের গ্রুপ) জড়িত। তিনি ভাইসকে বলেন, ‘আমার মতে নারী দেহে এটাই সবচেয়ে আকর্ষণীয় অংশ। আমি এও দেখেছি, কোনো সিনেমায় গ্ল্যামারাস দৃশ্যের প্রয়োজন না থাকলেও একটি আইটেম গান যুক্ত করা হয়, যেখানে অভিনেত্রীরা তাদের নাভি প্রদর্শন করেন।’

নরেনের একজন সঙ্গিনী আছেন, যার সঙ্গে তিনি নাভি নিয়ে খেলা উপভোগ করেন। এর মধ্যে রয়েছে স্পর্শ করা, হাত বোলানো, আঙুল দেয়া বা শুধু তাকিয়ে থাকা।

তিনি বলেন, ‘ডেটিং শুরুর আগে আমরা বন্ধু ছিলাম। তাই তার কাছে এটি প্রকাশ করা সহজ ছিল। নাভির প্রতি আমার আকর্ষণ সম্পর্কে আমি সব সময়ই সৎ। আমার সঙ্গিনী আমাকে এটা উপভোগ করতে দেয়।’

সিনেমার প্রভাবে মানুষের কি ভিন্ন ধরনের আকর্ষণ জন্মাতে পারে? ভিন্নতা ও বৈচিত্র্যময় যৌনতাবিষয়ক মনোবিদ পম্পি ব্যানার্জির মতে, সিনেমার প্রভাবকে অস্বীকার করার উপায় নেই।

তিনি বলেন, ‘আমাদের চারদিকে যে ধরনের ছবি রয়েছে সেগুলো আমাদের যৌনতার ওপর প্রভাব ফেলে। সিনেমা আমাদের আকাঙ্ক্ষার ধারণাকে আরও পূর্ণ করে তোলে। ভারতীয় সিনেমায় যৌন দৃশ্য কম থাকে বলে নাভিকে যোনিসংক্রান্ত যৌনতার একটি প্রতীক হিসেবে ব্যবহার করা হয়। সেই সঙ্গে নাভি নিয়ে খেলা যৌনকর্মের একটি বিকল্প হয়ে ওঠে।’

ব্যানার্জি নাভির সাংস্কৃতিক তাৎপর্যও তুলে ধরেন। প্রাচীন ভারতীয় গ্রন্থ কামসূত্রে নাভিকে কামপূর্ণ জায়গা হিসেবে দেখানো হয়েছে।

তিনি বলেন, ‘কামসূত্রে নাভির উল্লেখ আছে। এ থেকে ধারণা করা যেতে পারে, তখনকার মানুষও নাভি নিয়ে খেলতে পছন্দ করতেন।’

কামসূত্রে কীভাবে নাভিকে আরও আকর্ষণীয় করে তোলা যায় ও কীভাবে এর যত্ন নিতে হয় বা অলংকার দিয়ে সাজাতে হয় সে বর্ণনাও আছে।

ব্যানার্জি বলেন, ‘ভারতীয় অনেক গহনাই কোমরের সৌন্দর্যকে বিকশিত করে। নাভি প্রেম আসলে আমরা বংশানুক্রমিকভাবে পেয়েছি।’

যৌনতা ও উত্তেজনাকে পরিষ্কারভাবে দেখানো কোনো দৃশ্য ভারতীয় সেন্সর বোর্ডে এ-রেটিং পায়। এ কারণে নির্মাতারা স্বল্পবসনা অভিনেত্রীর নাভির কিছু উত্তেজক দৃশ্য সিনেমায় ঢুকিয়ে দেন। এতে করে এ-র বদলে সিনেমাটি ইউ/এ রেটিং পায়। এর অর্থ হলো, সিনেমাটি সাধারণ দর্শকদের জন্য উন্মুক্ত।

তবে, অনলাইনে ভারতীয় অভিনেত্রীদের নাভি নিয়ে এতটা হইচই হবে সেটা নিশ্চিতভাবেই চলচ্চিত্র নির্মাতারা ভাবেননি। উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, অভিনেতা কারিশমা কাপুরের নাভির ভক্তদের নিয়ে খোলা একটি ফেসবুক গ্রুপে ২০ হাজারের বেশি সদস্য আছে। মাধুরী দীক্ষিতকে নিয়ে খোলা গ্রুপে আছে ৪২ হাজারের বেশি। রেডিটের সাবরেডিত ও গ্রুপে নাভিপ্রেমীদের সংখ্যা দিনদিন বেড়েই চলেছে। একজন রেডিট ব্যবহারকারী স্বীকার করেছেন, তিনি শুধু নাভিসংক্রান্ত যৌন উত্তেজক পোস্ট দেন। কারণ এতে সাড়া বেশি আসে ও ফলোয়ার বাড়ে।

শুধু সিনেমাতেই নাভিকে যৌনতাপূর্ণ দেখানো হয় তা নয়। রিয়েলিটি টিভি সিরিজ শার্ক ট্যাঙ্ক ইন্ডিয়ায় এক কোম্পানি তাদের ‘বেলি বাটন শার্পার’ নিয়ে এসেছিল। তাদের এ পণ্য নাভিকে আরও গভীর ও বৃত্তাকার করে তুলবে এমনটাই ছিল দাবি। তবে এ পণ্যটি শার্ক ট্যাঙ্কের বিচারকদের মাঝে হাস্যরস সৃষ্টি করে এবং তারা একে বাতিল করে দেন।

ভারতীয় জনপ্রিয় অভিনেতা তাপসী পান্নুর দাবি, তেলেগু সিনেমার গানের শুটিংয়ের সময় তার পেটে একবার নারকেল ছুড়ে মারা হয়েছিল।

তিনি বলেন, ‘অন্যদের দিকে ফুল বা ফল ছুড়ে মারা হয়। আমার সময় নারকেল ছুড়ে মারা হলো! আমি একেবারে প্রস্তুত ছিলাম না। আমি জানি না পেটে নারকেল লাগার মধ্যে উত্তেজক কোন বিষয়টা আছে।’

আরেক অভিনেতা ইলিয়ানা ডিক্রুজ ভারতের ডিএনএ পত্রিকাকে তার পেটে চীনামাটির তৈরি ঝিনুক ছুড়ে মারার ঘটনা উল্লেখ করেন।

তিনি বলেন, ‘আমার প্রথম তেলেগু সিনেমায় একটা দৃশ্য ছিল যেখানে একটা চীনামাটির তৈরি ঝিনুক স্লো-মোশনে আমার পেটের ওপর ফেলা হবে। ঝিনুকটা বেশ বড় ও ভারী ছিল। ওই দৃশ্যধারণের পর আমার পেটের পেশিগুলো ব্যথা করছিল। আমার বয়স ছিল ১৮ বছর, আর আমি তখন মোটেই বুঝতে পারছিলাম না বিষয়টিকে কেন সেক্সি হিসেবে ধরা হচ্ছে।’

আরও পড়ুন:
ডব্লিউডব্লিউই মঞ্চ কাঁপালেন আরব নারী
জ্যাক স্প্যারো চরিত্রে জনিকে ফেরাতে ৩০ কোটি ডলার
ড্র করেই চ্যাম্পিয়ন নারী ফুটবল দল
এমআর-নাইন সিনেমায় এলিনা শাম্মী, ঢাকায় শুটিং শুরু
মালয়েশিয়াকে ৬-০ গোলে বিধ্বস্ত করল সাবিনা-আঁখিরা

মন্তব্য

রেস-জেন্ডার
How did Jess become a mother without any signs of pregnancy? Child is not possible but the child was born

গর্ভধারণের কোনো চিহ্ন না রেখেও জেস কীভাবে মা?

গর্ভধারণের কোনো চিহ্ন না রেখেও জেস কীভাবে মা? বিস্ময় জাগানো মা জেস ডেভিস ও তার নবজাতক ফ্রেডি অলিভার ডেভিস। ছবি: সংগৃহীত
ডেভিস বলেন, সন্তানের জন্মের সঙ্গে সঙ্গে জীবনেরও কিছু পরিবর্তন এসেছে। তবে এটা আমার কাছে স্বাভাবিকই মনে হচ্ছে।

কোনো চিহ্নই ছিল না, ছিল না সম্ভাবনাও। তবু ঘটেছে এক বিস্ময়কর ঘটনা। এই পৃথিবীতে এসেছে এক নবজাতক। অথচ যার গর্ভে জন্ম এ শিশুর, সেই তরুণীও জানতেন না রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে আসলে কী ঘটতে যাচ্ছে তার জীবনে।

যুক্তরাজ্যের এক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীর এমন অভিজ্ঞতা রীতিমতো সাড়া ফেলে দিয়েছে। টয়লেটে জন্ম নেয়া শিশুটি নিয়ে রহস্য কূলকিনারায় পৌঁছায়নি এখনও। কীভাবে এ শিশুর জন্ম হলো; মিলছে না তারও ব্যাখ্যা।

সংবাদমাধ্যম ইনডিপেনডেন্ট সম্প্রতি এক প্রতিবেদনে ইউনিভার্সিটি সাউদাম্পটনের ওই ছাত্রীর এসব তথ্য জানিয়েছে।

২০ বছর বয়সে পা দেয়ার আগের দিন গত ১১ জুন ছেলে শিশু প্রসব করেন জেস ডেভিস। ব্রিস্টলের এই তরুণী বিশ্ববিদ্যালয়ে দ্বিতীয় বর্ষে পড়ছেন ইতিহাস ও রাজনীতি নিয়ে।

ডেভিস জানিয়েছেন, তিনি যে গর্ভবতী তা তার কখনই মনে হয়নি। রাতে ঘুমানোর আগে তিনি টয়লেটে যান। তিনি ভেবেছিলেন তার হয়তো ঋতুস্রাবের ব্যথা অনুভূত হচ্ছে। ছিল না গর্ভধারণের কোনো লক্ষণও। তবে আকস্মিকভাবে টয়লেটে বাচ্চা জন্ম দেন।

তার গর্ভে জন্ম নেয়া শিশুটির নাম রাখা হয়েছে ফ্রেডি অলিভার ডেভিস। জন্মের সময় তার ওজন হয়েছিল পাঁচ পাউন্ডের একটু বেশি।

ঘটনার বর্ণনা দিয়ে জেস ডেভিস বলেন, ‘আমার পিরিয়ড সব সময়ই অনিয়মিত। এ কারণে আমি ব্যাপারটা কখনই লক্ষ করিনি। তবে মাঝে মাঝে বমি বমি ভাব হতো। তবে এর জন্য আমি চিকিৎসা নিয়েছি।’

তিনি বলেন, ‘যখন আমার বাচ্চার জন্ম হলো; জীবনে তখন বড় ধাক্কা খেলাম। আমি ভাবছিলাম, এটা স্বপ্ন। যতক্ষণ না পর্যন্ত তার কান্না শুনিনি, ততক্ষণ পর্যন্ত বুঝতে পারছিলাম না; আসলে কী ঘটছে।’

প্রথমে খুব হতাশ হয়ে গেলেও এখন তিনি মাতৃত্ব উপভোগ করছেন বলে জানান এই ব্রিটিশ তরুণী। তিনি বলেন, সে এখন পর্যন্ত সবচেয়ে শান্ত শিশু।

ডেভিস জানান, গত জুনে তিনি যখন ব্যথা অনুভব করেন, ভেবেছিলেন এই ব্যথা হয়তো পিরিয়ডের। এ সময় তিনি একটা গরম পানির বোতল কিনে ব্যথা উপশমে ব্যবহার করেন।

মা হওয়ার দিনের বর্ণনা দিয়ে এই তরুণী বলেন, ‘আমি মাত্র বাসায় এসে পরদিনের জন্মদিনের পার্টির জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিলাম। গোসল করলাম, বাথরুমে গেলাম। এক পর্যায়ে দেখি ব্যথা খারাপের দিকে যাচ্ছে।

‘একপর্যায়ে মনে হলো টয়লেটে যাওয়া দরকার। প্রাকৃতিক কাজের সময়, তখনও আমি ভাবিনি আমি হয়তো সন্তান প্রসব করব। খুব ব্যথা হলো। হঠাৎ বাচ্চা বের হয়ে এলো। কান্না শুনে বুঝতে পারলাম, আসলে কী ঘটেছে।’

এরপর এক বন্ধুর সঙ্গে পরামর্শ করে হাসপাতালে ফোন করেন বলে জানান তিনি। বলেন, পরে প্রিন্স আনি হসপিটালে সন্তানসহ ভর্তি হই।

চিকিৎসকরা বলছেন, ৩৫ সপ্তাহ গর্ভে থেকে জন্মগ্রহণ করেছে এই শিশু। এত নাটকীয় ঘটনা সত্ত্বেও শিশু এবং তার মা সুস্থ আছেন।
নাতির জন্মে খুশি হয়েছেন ডেভিসের মা। এ নিয়ে তিনি খুব উচ্ছ্বসিতও।

ডেভিস বলেন, এই পৃথিবীতে আমার মা হলো সবচেয়ে ভালো ব্যক্তি; তিনি খুবই সহায়ক। সন্তানের জন্মের সঙ্গে সঙ্গে জীবনেরও কিছু পরিবর্তন এসেছে। তবে এটা আমার কাছে স্বাভাবিকই মনে হচ্ছে।

আরও পড়ুন:
অদ্ভুত মুখের শিশুর জন্ম
আশ্রয়কে‌ন্দ্রে শিশুর জন্ম
খুলি ও মগজবিহীন শিশুর জন্ম

মন্তব্য

রেস-জেন্ডার
Online product fair for women entrepreneurs

নারী উদ্যোক্তাদের অনলাইন পণ্যমেলা

নারী উদ্যোক্তাদের অনলাইন পণ্যমেলা
সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট অরুনাংশু দত্ত টিটো মেলা পরিদর্শন করে বলেন, ‘ঠাকুরগাঁওয়ের নারী উদ্যোক্তাদের অংশগ্রহণে এ মেলা নারীদের উৎসাহ জোগাবে এবং তাদের অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী করবে। উপজেলা পরিষদ থেকে এসব উদ্যোক্তাকে সর্বাত্মক সহযোগিতা করা হবে।’

অনলাইনে পণ্যে ক্রেতাদের বিশ্বাস বাড়াতে অনলাইন পণ্যমেলার আয়োজন করেছে ঠাকুরগাঁওয়ের নারী উদ্যোক্তা সানজিদা ইসলাম সেতু।

শহরের জেলা পরিষদ শিশু পার্কের ভেতরে শুক্রবার বিকেল ৫টার দিকে এ মেলার উদ্বোধন করা হয়, যা চলবে শনিবার পর্যন্ত। এই দুই দিন বিকেল ৪টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত মেলার ২৫টি স্টলে নিজেদের তৈরি পণ্য বিক্রি করবেন নারী উদ্যোক্তারা।

নারী উদ্যোক্তা ও ঠাকুরগাঁও অনলাইন উদ্যোক্তা পরিবারের নির্বাহী পরিচালক সানজিদা ইসলাম সেতু জানান, যেসব নারী উদ্যোক্তা এত দিন ফেসবুক পেইজে বিজ্ঞাপন দিয়ে পণ্য বিক্রি করতেন, তাদের উৎসাহ দিতে এবং ক্রেতাদের নারী উদ্যোক্তাদের পণ্যের প্রতি বিশ্বাস জোগাতে এমন আয়োজন করা হয়েছে।

তিনি বলেন, ‘গত তিন বছর যাবৎ অনলাইন উদ্যোক্তা পরিবার নামের একটি ফেসবুক গ্রুপ থেকে নারীদের উদ্যোক্তা হতে উৎসাহিত করে আসছি। নারীদের আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী করতে এমন প্ল্যাটফর্ম তৈরি করেছি। এ কাজে আমাকে সহযোগিতা করেছেন অ্যাডমিন প্যানেলের আরও সাত নারী৷

‘তবে জেলার অনলাইন নারী উদ্যোক্তাদের পণ্যের গুণগত মান ভালো হওয়া সত্ত্বেও অনেক ক্রেতার বিশ্বাস অর্জন সম্ভব হয়নি। তাই ক্রেতাদের বিশ্বাস অর্জন করতে নারী উদ্যোক্তাদের উৎসাহ জোগাতে এমন মেলার আয়োজন করেছি।’

নারী উদ্যোক্তাদের অনলাইন পণ্যমেলা

বিকেল থেকে রাত পর্যন্ত হাজার হাজার দর্শনার্থীর ভিড় দেখা গেছে মেলা চত্বরে। স্টলগুলো ঘুরে দেখা গেছে, নারী উদ্যোক্তাদের নিজ হাতে বানানো পাটের তৈরি ব্যাগসহ শিশুদের খেলনা। এ ছাড়া নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র এমনকি নারীদের নিজ হাতে তৈরি খাবারও রয়েছে স্টলগুলোতে।

আয়মান হস্তশিল্পের পরিচালক নারী উদ্যোক্তা মরিয়ম মেরি নিজ হাতে বানানো পাটের ব্যাগ ও শিশুদের খেলনা বিক্রি করছেন।

তিনি জানান, এ যাবৎ অনলাইনে এক লাখ টাকার পণ্য বিক্রি করেছেন তিনি। তার পণ্য এত দিন অনলাইনে বিক্রি হতো, অনেক ক্রেতা গুণগত মান নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। এখন মেলায় এসে পণ্য দেখছেন এবং কিনছেন।

এ মেলা ক্রেতাদের বিশ্বাস অর্জন করবে বলে আশা করেন এ নারী উদ্যোক্তা।

মেলা দেখতে এসে নিজের অনুভূতির কথা নিউজবাংলাকে বলেন ক্রেতা নিলিমা আক্তার।

তিনি বলেন, ‘এই প্রথম অনলাইনে নারী উদ্যোক্তাদের পণ্য নিয়ে মেলার আয়োজন করা হয়েছে, যা সত্যি খুবই গুরুত্বপূর্ণ অর্থ বহন করে আমার কাছে। আমি এখানে এসে দেখেছি, জেলার নারীরা কতটা মেধাবী। এমন আয়োজন প্রতি ছয় মাস অন্তর হলে নারীরা আরও অনুপ্রাণিত হবে।’

সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট অরুনাংশু দত্ত টিটো মেলা পরিদর্শন করে বলেন, ‘ঠাকুরগাঁওয়ের নারী উদ্যোক্তাদের অংশগ্রহণে এ মেলা নারীদের উৎসাহ জোগাবে এবং তাদের অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী করবে। উপজেলা পরিষদ থেকে এসব উদ্যোক্তাকে সর্বাত্মক সহযোগিতা করা হবে।’

নারী উদ্যোক্তাদের অনলাইন পণ্যমেলা

অনলাইন পণ্যমেলা উদ্বোধন ও পরিদর্শন করেন ঠাকুরগাঁও জেলা পরিষদ প্রশাসক মো. সাদেক কুরাইশী।

তিনি বলেন, ‘অত্যন্ত চমৎকার সব পণ্য তৈরি করেন এ জেলার নারীরা। অনলাইনে তাদের সক্রিয়তা রয়েছে। এখন মেলার আয়োজন করে তাদের উদ্দেশ্য আরও বিস্তৃত হয়েছে। নারী উদ্যোক্তারা এমন আয়োজন করে নিশ্চয়ই সাহসিকতার পরিচয় দিয়েছেন। তাদের সহযোগিতা করে এগিয়ে নিতে হবে।’

জেলা পরিষদের পক্ষ থেকেও তাদের সাধ্যমতো সহযোগিতা করা হবে বলে জানান জেলা পরিষদ প্রশাসক।

আরও পড়ুন:
গুলশান লেডিস ক্লাবে তিন দিনের বৈশাখী মেলা
নিজের সঙ্গে ৩০ নারীকে এগিয়ে এনেছেন শিমু
প্রযুক্তি উদ্যোক্তা লুনা সামসুদ্দোহাকে স্মরণ
ছোট উদ্যোক্তাদের ঋণ পরিশোধে বিশেষ সুবিধা
গ্লোবাল ইয়ুথ লিডারশিপ অ্যাওয়ার্ড পেলেন ব্যারিস্টার ওলোরা

মন্তব্য

রেস-জেন্ডার
France got female speaker

নারী স্পিকার পেল ফ্রান্স

নারী স্পিকার পেল ফ্রান্স ইয়ায়েলই হলেন ফ্রান্সের প্রথম নারী স্পিকার। ছবি: সংগৃহীত
ফ্রান্সের পার্লামেন্ট ইয়ায়েল ব্রাউন-পিভেটকে স্পিকার হিসেবে নির্বাচিত করেছে। তিনি হতে যাচ্ছেন দেশটির নিম্নকক্ষের স্পিকার হিসেবে দায়িত্ব পাওয়া প্রথম নারী। এর আগে গত মাসে একজন নারী প্রধানমন্ত্রীও পেয়েছে দেশটি।

ফ্রান্সের পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ মঙ্গলবার প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল মাখোঁর মধ্যপন্থী জোটের ইয়ায়েল ব্রাউন-পিভেটকে স্পিকার হিসেবে নির্বাচিত করেছে।

দ্য ন্যাশনাল নিউজের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইয়ায়েলই হতে যাচ্ছেন দেশটির নিম্নকক্ষের স্পিকার হিসেবে দায়িত্ব পাওয়া প্রথম নারী। তিনি গর্ভপাতের অধিকারের একজন সমর্থক।

ইমানুয়েল মাখোঁর দল নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারানোর পর এবং ফরাসি রাজনীতির অতি-ডান ও বাম শিবির শক্তিশালী হওয়ার পর জাতীয় পরিষদে এই প্রথম অধিবেশন অনুষ্ঠিত হলো।

এর আগে নির্বাচনে পার্লামেন্টে ৫৭৭টি আসনের মধ্যে ইমানুয়েলের দল জয় পেয়েছে ২৪৫টিতে। নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেতে তাদের দরকার ছিল ২৮৯টি আসন।

এখনও মাখোঁর দলের সংখ্যাগরিষ্ঠতা রয়েছে অ্যাসেম্বলিতে। তবে নতুন কোনো আইন পাস করার জন্য এই সংখ্যাগরিষ্ঠতাও যথেষ্ট নয়।

ইয়ায়েল ব্রাউন-পিভেট একজন প্রাক্তন সমাজতন্ত্রী। ২০১৬ সালে তিনি মাখোঁর পার্টিতে যোগ দেন।

সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের ঘটনাপ্রবাহের দিকে আলোকপাত করে ইয়ায়েল ব্রাউন-পিভেট ফ্রান্সের গর্ভপাত অধিকার রক্ষায় কাজ করেছেন এবং চেম্বারকে আইন রক্ষার বিষয়ে সতর্ক হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

এর আগে গত মাসে ফ্রান্সের শ্রমমন্ত্রী এলিজাবেথ বর্নিকে দেশটির নতুন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দিয়েছিলেন ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল মাখোঁ।

এই নিয়োগের মধ্য দিয়ে ৩০ বছরের বেশি সময় পর দেশটিতে একজন নারী প্রধানমন্ত্রী হয়েছেন।

৬১ বছর বয়সী এই নারী রাজনীতিক বিদায়ী প্রধানমন্ত্রী জ্যঁ ক্যাসটেক্সের স্থলাভিষিক্ত হয়েছেন।

দেশটিতে সবশেষ নারী প্রধানমন্ত্রী হিসেবে অল্প সময়ের জন্য দায়িত্ব পালন করেন ইডিথ ক্রেসন। তিনি ১৯৯১ সালের মে মাস থেকে ১৯৯২-এর এপ্রিল পর্যন্ত দেশটির প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

আরও পড়ুন:
৩০ বছর পর নারী প্রধানমন্ত্রী পেল ফ্রান্স
ফ্রান্সের নির্বাচন ও ভবিতব্যের ম্লান আলো
ম্যাখোঁবিরোধী বিক্ষোভে গুলি, নিহত ২
মাখোঁর জয়ে উচ্ছ্বসিত ইইউ, ধাক্কা খেলেন পুতিন
আবারও ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট মাখোঁ

মন্তব্য

রেস-জেন্ডার
How much more neglect in maternal depression?

মাতৃত্বকালীন বিষণ্ণতা, পাশে থাকা জরুরি

মাতৃত্বকালীন বিষণ্ণতা, পাশে থাকা জরুরি পোস্টপারটাম ডিপ্রেশন কখনই চারিত্রিক সমস্যা কিংবা মায়েদের ইচ্ছাকৃত কোনো কান্ড নয়। ছবি: সংগৃহীত
পোস্টপারটাম ডিপ্রেশন কখনই চারিত্রিক সমস্যা কিংবা মায়েদের ইচ্ছাকৃত নয়। দেশের বেশির ভাগ পরিবার অবশ্য এ জন্য মায়েদের দায়ী করে থাকে। এটি কেবল প্রসব-পরবর্তী অন্য সব সমস্যার মতোই একটি জটিলতা। চিকিৎসায় পুরোপুরি সেরে ওঠা যায়।

সন্তান প্রসবের পর ইমোশনাল এবং হরমোনাল এক সাইক্লোন বয়ে যায় মাতৃমনে। মানে আনন্দ, ভয় এবং আতঙ্কের এক মিশ্র অনুভূতি কাজ করে তখন। এর পরিণতি হতে পারে ডিপ্রেশন বা বিষণ্ণতা!

বিষণ্ণতা শব্দটি আমাদের চারপাশে হরহামেশা শোনা যায়। সবাই আমরা কম-বেশি বিষণ্ণতায় ভুগছি।

নানা কারণে বিষণ্ণতায় ভোগে মানুষ। একেকজনের একেক কারণ। এর ফলে বাড়ছে আত্মহত্যার প্রবণতাও।

তবে সন্তান প্রসবের পর বেশির ভাগ মায়েরা এক ধরনের বিষণ্ণতায় ভোগে। চিকিৎসাবিজ্ঞানে তা ‘মাতৃত্বকালীন বিষণ্ণতা’ নামে পরিচিত।

বেশির ভাগ মা প্রসবের পর ‘বেবি-ব্লু’-তে আক্রান্ত হন; যা সাধারণত মুড সুইং। এটা মূলত অকারণে কান্নাকাটি করা, আতঙ্কিত বা শঙ্কিত হওয়া, ঠিকমতো ঘুম না হওয়ার মতো বিষয়গুলোতে সীমাবদ্ধ থাকে। এটি সাধারণত প্রসবের ২-৩ দিন পর শুরু হয়ে কয়েক সপ্তাহ পর্যন্ত স্থায়ী হতে পারে।

কিছু মায়ের ক্ষেত্রে তা আরও দীর্ঘ হয়ে থাকে। তারা আরও মারাত্মক বিষণ্ণতায় (সিভিয়ার ডিপ্রেশন) ভোগেন, যাকে পোস্টপারটাম ডিপ্রেশন বলা হয়। এর থেকে আরও মারাত্মক একটা কনসিকোয়েন্স হতে পারে, যাকে মেডিক্যাল ভাষায় ‘পোস্টপারটাম সাইকোসিস’ বলা হয়।

পোস্টপারটাম ডিপ্রেশন কখনই চারিত্রিক সমস্যা কিংবা মায়েদের ইচ্ছাকৃত কোনো কাণ্ড নয়। দেশের বেশির ভাগ পরিবার অবশ্য এ জন্য মায়েদেরই দায়ী করে থাকে।

বাস্তবতা হলো, এটি প্রসব-পরবর্তী অন্য সব সমস্যার মতোই একটি শারীরিক জটিলতা। চিকিৎসায় তা পুরোপুরি সেরে ওঠে।

বেবি-ব্লুজের লক্ষণ এবং উপসর্গ:

  • মুড সুইং, আতঙ্কিত থাকা, হতাশা, বিরক্তি, কান্নাকাটি, অমনোযোগী, ক্ষুধামান্দ্য, ঘুমে ব্যাঘাত।

পোস্টপারটাম ডিপ্রেশনের লক্ষণ এবং উপসর্গ:

  • মারাত্মক মুড সুইং, অতিরিক্ত কান্নাকাটি, সন্তানের সঙ্গে বন্ডিং না থাকা, পরিবার-পরিজন থেকে নিজেকে আলাদা করে ফেলা, ক্ষুধামান্দ্য অথবা অতিরিক্ত পরিমাণে খাওয়া-দাওয়া করা, অনিদ্রা অথবা অতিরিক্ত ঘুম, সবকিছু থেকে আগ্রহ হারিয়ে ফেলা।

  • এ ছাড়া অতিরিক্ত রাগ এবং বিরক্তি, ভালো মা হতে না পারার ভয়, আশাহীন হয়ে পড়া, নিজেকে মূল্যহীন মনে করা, লজ্জা এবং ভয়ে কুঁকড়ে থাকা, মনোযোগ নষ্ট হয়ে যাওয়া, কল্পনাশক্তি কমে যাওয়া, সিদ্ধান্তহীনতা, অস্থিরতা, প্যানিকড হয়ে যাওয়া, সন্তান কিংবা নিজের ক্ষতি করার চিন্তা, বারবার আত্মহত্যা করার পরিকল্পনা।

মারাত্মক পোস্টপারটাম সাইকোসিসের লক্ষণ ও উপসর্গ:

  • কনফিউশন এবং ডিসঅরিয়েনটেশন, সন্তান নিয়ে অতিরিক্ত ভাবনা, হ্যালুসিনেশন এবং ডেলিউশন, অনিদ্রা, অতিরিক্ত রাগ , প্যারোনিয়া, সন্তান কিংবা নিজের ক্ষতি করা বা করার চেষ্টা।

কখন চিকিৎসকের শরণাপন্ন হবেন?

  • যদি দুই সপ্তাহ ধরে পরিস্থিতির উন্নতি না হলে।

  • সন্তানের যত্ন নিতে না পারা কিংবা যত্ন নিতে বেশি কষ্ট লাগলে।

  • দৈনন্দিন কাজকর্ম ঠিকমতো করতে না পারলে।

  • নিজের কিংবা সন্তানের ক্ষতি করার চিন্তা মাথায় এলে।

শেষকথা

বিষণ্ণতায় ভোগা রোগীরা চিকিৎসায় সম্পূর্ণ ভালো হয়ে যায়। যারা বিষণ্ণতায় ভুগছেন, তারা নিজেরা হয়তো বুঝতে পারেন না। তাই এগিয়ে আসতে হবে স্বামীকে, পরিবারকে। আপনার কাছের কেউ এমন সমস্যায় ভুগলে, সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিন। তাকে একজন মনোরোগ চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যান।

মন্তব্য

রেস-জেন্ডার
For the first time an Arab woman shook the stage of the WWE

ডব্লিউডব্লিউই মঞ্চ কাঁপালেন আরব নারী

ডব্লিউডব্লিউই মঞ্চ কাঁপালেন আরব নারী আরব নারীদের জন্য অনুপ্রেরণা হতে চান আলিয়াহ। ছবি: সংগৃহীত
মধ্যপ্রাচ্যে আলিয়াহ সবশেষ গিয়েছিলেন ২০০২ সালে। তিনি জানান, সেখানে তার অনেক আত্মীয় এখনও থাকেন। আরব নারীদের জন্য তিনি সবসময় অনুপ্রেরণা হতে চান। তার লক্ষ্য এবার মধ্যপ্রাচ্যে পারফর্ম করা।

আরব পরিবারে বেড়ে ঊঠে একজন পেশাদার রেসলার হওয়া পুরুষের জন্য মোটেও কঠিন কিছু নয়। কিন্তু নারীর জন্য? হয়ত কল্পনাই করা যায় না, কিংবা অসম্ভব।

অথচ এই অসম্ভব কাজটিকেই সম্ভব করেছেন আরব বংশোদ্ভুত কানাডীয় পেশাদার রেসলার আলিয়াহ।

গত বছরের নভেম্বরে ওয়ার্ল্ড রেসলিং এন্টারটেইনমেন্টের (ডব্লিউডব্লিউই) ফ্ল্যাগশিপ শো স্ম্যাকডাউনের মূল ইভেন্টে আলিয়া অংশগ্রহণ করেছেন।

টানা ২০ বছর ধরে প্রতিবছরই হতে থাকা স্ম্যাকডাউন শোতে আরব নারীর অংশগ্রহণের মতো ঘটনা এই প্রথমবারের মত ঘটল।

ডব্লিউডব্লিউই মঞ্চ কাঁপালেন আরব নারী
নভেম্বরে স্ম্যাকডাউনের মঞ্চে আলিয়াহ

আলিয়াহর প্রকৃত নাম নহুফ আল আরাবি। জন্মেছেন কানাডার টরেন্টোতে।

কানাডায় বেড়ে উঠলেও সিরীয় ও ইরাকি বংশোদ্ভুত হওয়ায় রেসলার হিসেবে নিজেকে তৈরি করার রাস্তাটা তার জন্য সহজ ছিল না।

তিনি যখন রেসলার হওয়ার সিদ্ধান্ত নেন তখন পরিবারের সঙ্গে মতবিরোধ দেখা দেয়। প্রথমবার যখন পরিবার তার জীবনের লক্ষ্যের বিষয়ে জানতে পারে, তাদের একটাই উত্তর ছিল, আর তা হল ‘না’।

কিন্ত এরপরেও আলিয়াহ দমে যাননি। তিনি পরিবারকে খণ্ডকালীন চাকরির কথা বলে প্রশিক্ষণ নিতে চলে যান। ১৬ বছর বয়স থেকেই তিনি রেসলার হওয়ার প্রশিক্ষণ শুরু করেন।

পরে ২০১৫ সালে তিনি ডব্লিউডব্লিউইতে ডাক পান। আর ২০২১-এ এসে তিনি স্ম্যাকডাউনেই অংশগ্রহণ করলেন।

আলিয়াহর মতে, যদি আপনার হৃদয়ে কোনো স্বপ্ন থাকে। আপনার তাকে অনুসরণ করা উচিত। সবকিছুই সম্ভব।

ডব্লিউডব্লিউই মঞ্চ কাঁপালেন আরব নারী
১৬ বছর বয়সে পেশাদার রেসলিংয়ের প্রশিক্ষণ নেয়া শুরু করেন আলিয়াহ

আল জাজিরাকে তিনি বলেন, ‘এটা পরাবাস্তব মনে হয়। আমি যখন ছোট ছিলাম তখন থেকেই এটি আমার সবচেয়ে বড় স্বপ্ন।

‘ছোট থাকতে আমি রেসলিং দেখতাম, কিন্তু সত্যিই আমার মতো দেখতে বা আরব কাউকে দেখিনি। আমি আশা করি আরব নারীদের জন্য আমি ভাল উদাহরণ স্থাপন করতে পারব এবং ইচ্ছামত খেলায় যোগ দিতে তাদের অনুপ্রানিত করতে পারবো।’

মধ্যপ্রাচ্যে আলিয়াহ সবশেষ গিয়েছিলেন ২০০২ সালে। তিনি জানান, সেখানে তার অনেক আত্মীয় এখনও থাকেন। আরব নারীদের জন্য তিনি সবসময় অনুপ্রেরণা হতে চান।

তাই আলিয়াহর লক্ষ্য এবার মধ্যপ্রাচ্যে পারফর্ম করা। ডব্লিউডব্লিউই কর্তৃপক্ষও বলছে, মধ্যপ্রাচ্যে তাদের প্রচুর দর্শক থাকায় এমন উদ্যোগ প্রতিষ্ঠানটির জন্য আর্থিকভাবে লাভজনক হতে পারে।

আরও পড়ুন:
আইপিএলের অভিজ্ঞতা কাজে লেগেছে সুপ্তার
‘বিশেষ সুবিধা নয়, বাজেটে নারীর প্রতি বৈষম্যের অবসান চাই’
নারী উদ্যোক্তাদের জন্য সোশ্যাল মিডিয়া প্রিপেইড কার্ড চালু
নিজের শরীর সম্পর্কে নারীরও অজানা অনেক
উত্তেজক পোশাকের নারীর শত্রু কেন নারীরাই

মন্তব্য

রেস-জেন্ডার
Abolition of Abortion Rights Act in the United States

যুক্তরাষ্ট্রে গর্ভপাত অধিকার আইন বাতিল

যুক্তরাষ্ট্রে গর্ভপাত অধিকার আইন বাতিল প্রায় ৫০ বছর ধরে গর্ভপাতের জন্য সাংবিধানিক সুরক্ষা শেষ করার পর গর্ভপাতবিরোধী আইনজীবীরা সুপ্রিম কোর্টের বাইরে উদযাপন করছেন। ছবি: এপি
প্রজনন অধিকার সংগঠন গুটমাচার ইনস্টিটিউট বলছে, ১৯৭৩ সালের আইনি নজির উল্টে যাওয়ায় যুক্তরাষ্ট্রের অন্তত ২৪টির বেশি রাজ্যে এখন গর্ভপাত নিষিদ্ধ করার সম্ভাবনা রয়েছে। এটি অসামঞ্জস্যপূর্ণভাবে নিম্ন আয়ের নারীর ওপর প্রভাব ফেলবে।

যুক্তরাষ্ট্রে বাতিল হলো গর্ভপাত অধিকার আইন। দেশটির সর্বোচ্চ আদালত শুক্রবার ঐতিহাসিক এ রায় দেয়। এতে দেশজুড়ে গর্ভপাতকে বৈধতা দেয়া ১৯৭৩ সালের আইনি সিদ্ধান্ত ‘রো বনাম ওয়েড’ আর থাকছে না। ফলে প্রতিটি রাজ্যই এখন নিজস্বভাবে গর্ভপাত নিষিদ্ধ করার পদক্ষেপ নিতে পারবে।

রায়ে বিচারকরা জানান, সংবিধান গর্ভপাতের অধিকার দেয় না। সিদ্ধান্তের পক্ষে সমর্থন দেন ছয়জন বিচারক, বিপক্ষে তিনজন।

এ রায়ে যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে ব্যাপক প্রতিবাদ ও নিন্দার জন্ম দিয়েছে। প্রজনন অধিকারের সমর্থকরা বলছেন, লাখ লাখ নারী গর্ভপাত পরিষেবাগুলো নিতে পারবেন না।

প্রজনন অধিকার সংগঠন গুটমাচার ইনস্টিটিউট বলছে, ১৯৭৩ সালের আইনি নজির উল্টে যাওয়ায় যুক্তরাষ্ট্রের অন্তত ২৪টির বেশি রাজ্যে এখন গর্ভপাত নিষিদ্ধ করার সম্ভাবনা রয়েছে। এটি অসামঞ্জস্যপূর্ণভাবে নিম্ন আয়ের নারীর ওপর প্রভাব ফেলবে।

বিচারকরা জানান, আগের আইনে ২৪ থেকে ২৮ সপ্তাহের মধ্যে গর্ভপাত বৈধ ছিল। এটি ভুল সিদ্ধান্ত ছিল। কারণ সংবিধানে গর্ভপাতের অধিকার নিয়ে নির্দিষ্ট কিছু উল্লেখ নেই।

রো বনাম ওয়েডের রায়ে যুক্তি দেয়া হয়েছিল, সংবিধানের অধীনে ব্যক্তিগত গোপনীয়তার অধিকার একজন নারীর গর্ভাবস্থা বন্ধ করার ক্ষমতাকে রক্ষা করে।

সুপ্রিম কোর্ট ১৯৯২ সালের সাউথইস্টার্ন পেনসিলভানিয়া বনাম ক্যাসি প্ল্যানড প্যারেন্টহুড নামে একটি রায়ে গর্ভপাতের অধিকারকে পুনরায় নিশ্চিত করেছিল। রায়ে বলা হয়েছিল, গর্ভপাতের বিষয়ে ‘অযথা বোঝা’ চাপিয়ে দেয়া আইনগুলোকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

রক্ষণশীল বিচারপতি স্যামুয়েল আলিটো বলেন, ‘রো এবং প্ল্যানড প্যারেন্টহুড বনাম কেসি ভুল ছিল। এটি অবশ্যই বাতিল করা উচিত।

‘আমরা মনে করি যে রো এবং কেসিকে অবশ্যই বাতিল করা উচিত। সংবিধানে গর্ভপাত উল্লেখ নেই। এ ধরনের অধিকার সাংবিধানিক বিধান দ্বারা সুরক্ষিত নয়।’

বিচারপতি ক্লারেন্স থমাস, নিল গর্সুচ, ব্রেট কাভানাফ এবং অ্যামি রায়ের পক্ষে ভোট দিয়েছেন। বিপক্ষে দেয়া তিন বিচারপতি ট্রাম্পের নিয়োগপ্রাপ্ত।

উদারপন্থি বিচারপতি স্টিফেন ব্রেয়ার, সোনিয়া সোটোমায়র এবং এলেনা কাগান ভিন্নমত পোষণ করেন।

তারা জানান, ‘এটা আদালতের জন্য দুঃখের খবর। তবে লাখ লাখ আমেরিকান নারী আজ একটি মৌলিক সাংবিধানিক সুরক্ষা হারিয়েছেন। আমরা ভিন্নমত পোষণ করছি।’

জনমত জরিপ দেখা গেছে, বেশির ভাগ আমেরিকান গর্ভপাতের অধিকারকে সমর্থন করেন।

গত মাসের শুরুর দিকে সুপ্রিম কোর্টের ফাঁস হওয়া একটি গোপন খসড়া নথিতে ঐতিহাসিক গর্ভপাত অধিকার আইন বাতিল হতে পারে বলে আভাস মিলেছিল। রাজনীতিবিষয়ক সংবাদমাধ্যম পলিটিকো সেই নথি প্রকাশ করেছিল।

আরও পড়ুন:
অনাগত সন্তানকে বাঁচাতে স্বামীর নামে মামলা
‘যৌতুক না পেয়ে’ গর্ভপাত, স্বামী-নার্সসহ গ্রেপ্তার ৫
কৃষ্ণাঙ্গ নারীদের গর্ভপাত ৪৩ শতাংশ বেশি: গবেষণা
অনাকাঙ্ক্ষিত গর্ভধারণে দ্বিগুণ বেড়েছে গর্ভপাত
এক নারীর পরিবর্তে আরেক জনের গর্ভপাতের চেষ্টা তদন্তে কমিটি

মন্তব্য

p
উপরে