কানাডার আরও ১০ গির্জায় আগুন

কানাডার আরও ১০ গির্জায় আগুন

অ্যালবার্টার এডমন্টনে জ্বলছে একটি গির্জা। ছবি: সংগৃহীত

ক্যালগ্যারি পুলিশ জানিয়েছে, স্থানীয় সময় গত বুধবার রাত থেকে বৃহস্পতিবার সকালের মধ্যে এসব অগ্নিসংযোগ হয়েছে। ধ্বংসযজ্ঞের শিকার গির্জাগুলো খ্রিস্ট ধর্মাবলম্বীদের ছিল।

কানাডার অ্যালবার্টা প্রদেশের ১০টি গির্জায় অগ্নিসংযোগ ও ভাঙচুর হয়েছে। এ নিয়ে গত দুই সপ্তাহে দেশটিতে কমপক্ষে ১৫ টি গির্জায় আগুন দেয়া হলো।

কানাডার আদিবাসীদের ওপর শত বছরের নিপীড়ন-ইতিহাসের জেরে পুঞ্জীভূত ক্ষোভের জেরে গির্জায় আগুন দেয়ার সম্ভাবনা উড়িয়ে দিচ্ছে না পুলিশ।

তদন্ত কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে বিবিসির প্রতিবেদনে জানানো হয়, ক্যালগ্যারি শহরের যেসব গির্জায় আগুন দেয়া হয়েছে, সেগুলোতে কমলা ও লাল রং ছেটানো ছিল।

বিষয়টিকে ‘আতঙ্কের’ আখ্যা দিয়েছেন অ্যালবার্টার প্রিমিয়ার জ্যাসন কেনি।

ক্যালগ্যারি পুলিশ জানিয়েছে, স্থানীয় সময় গত বুধবার রাত থেকে বৃহস্পতিবার সকালের মধ্যে এসব অগ্নিসংযোগ হয়েছে। ধ্বংসযজ্ঞের শিকার গির্জাগুলো খ্রিস্ট ধর্মাবলম্বীদের ছিল।

আদিবাসী-অধ্যুষিত দুটি প্রদেশে গত এক মাসে তিন দফায় এক হাজারের বেশি অচিহ্নিত পুরোনো কবর শনাক্তের পর থেকেই বিভিন্ন ক্যাথলিক চার্চে অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটতে শুরু করে।

কবরগুলোর সন্ধান মিলেছে তিনটি সাবেক আবাসিক স্কুলপ্রাঙ্গণে। এর মধ্যে দুটি স্কুল ব্রিটিশ কলাম্বিয়ায় ও আরেকটি সাসকাচোয়ান প্রদেশে অবস্থিত। বেশিরভাগ কবরই আদিবাসী শিশুদের।

আর গির্জা ধ্বংসের ঘটনা ঘটেছে ব্রিটিশ কলাম্বিয়া, অ্যালবার্টা ও নোভা স্কটিশ প্রদেশে। কোনো ঘটনাতেই এখন পর্যন্ত কোনো গ্রেপ্তার বা অভিযোগ গঠন করা হয়নি।

১৮৩১ থেকে ১৯৯৬ সাল পর্যন্ত কানাডার আবাসিক শিক্ষাব্যবস্থার আওতায় পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন করে ফেলা হয়েছিল দেড় লাখ আদিবাসী শিশুকে। তাদের জোর করে খ্রিষ্টানদের আবাসিক স্কুলে রেখে দেয়া হতো, খেতে দেয়া হতো না; চালানো হতো শারীরিক ও যৌন নির্যাতন।

জানা যায়, এই শিশুদের বেশিরভাগেরই পরে আর খোঁজ মেলেনি, তারা ফেরেনি পরিবারের কাছে।

কানাডার ট্রুথ অ্যান্ড রিকন্সিলিয়েশন কমিশন ২০১৫ সালে ‘সাংস্কৃতিক জেনোসাইড’বিষয়ক একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে। সেখানে আদিবাসীদের নির্মূল প্রচেষ্টার অংশ এই জেনোসাইডের কেন্দ্র হিসেবে আবাসিক শিক্ষা ব্যবস্থার কথা উল্লেখ করা হয়।

এ অবস্থায় আদিবাসী শিশুদের কবর আবিষ্কারের ঘটনায় ধাক্কা লেগেছে কানাডার জাতীয় দিবসগুলো উদযাপনের আয়োজনেও, যার অন্যতম ছিল বৃহস্পতিবারের ‘কানাডা ডে’।

আরও পড়ুন:
পুরোনো ক্ষত দগদগে হয়ে উঠছে কানাডার আদিবাসীদের
কানাডার স্কুলে আদিবাসীদের আরও কয়েক শ কবরের সন্ধান
কানাডায় দুটি ক্যাথলিক গির্জা ‘অগ্নিসংযোগে’ ভস্মীভূত

শেয়ার করুন

মন্তব্য