ব্রিটেনে মেয়ে শিক্ষার্থীদের নগ্ন ছবিতে সয়লাব সামাজিকমাধ্যম

অফস্টেডের প্রতিবেদনে উঠে এসেছে, যুক্তরাজ্যে প্রতি ১০ জন মেয়ে শিক্ষার্থীর মধ্যে ৯ জনই অভিযোগ করেছেন সহপাঠীরা তাদেরকে আপত্তিকর ভিডিও ও ছবি পাঠিয়েছে। ছবি: সংগৃহীত

ব্রিটেনে মেয়ে শিক্ষার্থীদের নগ্ন ছবিতে সয়লাব সামাজিকমাধ্যম

সবচেয়ে ন্যক্কারজনক ও ঘৃণিত বিষয়টি হচ্ছে, এমন নৈরাজ্য এতটাই ছড়িয়ে পড়েছে যে মেয়ে শিক্ষার্থীরা এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করা অথবা রুখে দাঁড়ানোর মানসিক জোরও হারিয়ে ফেলেছে। দেশটির শিক্ষা মন্ত্রণালয় ঘোষণা দিয়েছে, অফস্টেডের প্রতিবেদনে উঠে আসা এমন অপ্রত্যাশিত ও ন্যক্কারজনক পরিস্থিতি মোকাবিলায় স্কুল-কলেজের কর্তৃপক্ষকে আরও বেশি সহায়তা দেয়া হবে।

স্কুল-কলেজের ছেলে শিক্ষার্থীরা তাদের সহপাঠীদের আপত্তিকর ও নগ্ন ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে দিচ্ছে।

যুক্তরাজ্যে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সার্বিক পরিবেশ ও মান নিয়ে কাজ করে এমন সংস্থা অফস্টেডের এক প্রতিবেদনে এমনটি উঠে এসেছে।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম কালেকশন গেমস, হোয়াটস অ্যাপ ও স্ন্যাপচ্যাটে সয়লাব হয়ে গেছে মেয়ে শিক্ষার্থীদের একান্ত খোলামেলা ও অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ছবি ও ভিডিও। এবং এই ধরনের ছবি প্রতিনিয়ত শেয়ার করা হচ্ছে এসব মাধ্যমে।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ওপর নজরদারি চালানো সংস্থাটি অন্তত ৯০০ শিক্ষার্থীর সঙ্গে কথা বলে এমন প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।

প্রতি ১০ জন মেয়ে শিক্ষার্থীর মধ্যে ৯ জনই অভিযোগ করেছে সহপাঠীরা তাদেরকে আপত্তিকর ভিডিও ও ছবি পাঠিয়েছে।

প্রভাবশালী ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য ইনডিপেনডেন্টের এক প্রতিবেদনে উঠে এসেছে এসব তথ্য।

স্কুল-কলেজে যৌন হয়রানির ঘটনা এত বেশি নিয়মিত হয়ে উঠেছে যে শিক্ষার্থীরা এ বিষয়ে এখন অভিযোগ করাও বাদ দিচ্ছে।

সংস্থাটি প্রতিবেদন তৈরি করতে দেশটির ৩২টি রাজ্যের সরকারি ও বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে অনুসন্ধান চালিয়েছে।

ব্রিটেনে মেয়ে শিক্ষার্থীদের নগ্ন ছবিতে সয়লাব সামাজিকমাধ্যম

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম কালেকশন গেমস, ওয়াটস অ্যাপ ও স্ন্যাপচ্যাটে সয়লাব হয়ে গেছে মেয়ে শিক্ষার্থীদের একান্ত খোলামেলা ও অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ছবি ও ভিডিও। ছবি: সংগৃহীত

৮০ শতাংশ মেয়ে শিক্ষার্থী জানিয়েছে, সামাজিকমাধ্যমগুলোতে অপ্রত্যাশিত ও আপত্তিকর মন্তব্যেরও শিকার হয়েছে তারা। একই সঙ্গে উত্তেজক ছবি পাঠাতে তাদেরকে নানাভাবে চাপ সৃষ্টি করেছে তাদের সহপাঠীরা।

৬০ শতাংশের বেশি মেয়ে শিক্ষার্থী ক্যাম্পাসের ভেতরে আপত্তিকর স্পর্শের শিকার হয়েছে সহপাঠীদের কাছ থেকে। এদিকে, অন্তত ২৫ শতাংশ ছেলে শিক্ষার্থীও এ ধরনের নিপীড়নের শিকার হয়েছে।

তবে সবচেয়ে হতাশাজনক বিষয় হচ্ছে, এমন ন্যক্কারজনক কাজের জন্য অধিকাংশ ছেলে শিক্ষার্থীর মধ্যে কোনো অনুশোচনার প্রকাশ পায়নি।

অনুসন্ধানে দেখা গেছে, শিক্ষার্থীরা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে যৌন হয়রানি সম্পর্কিত এমন হাজারও অ্যাকাউন্ট নিয়মিত দেখত এবং সেগুলোর ছবি ও ভিডিও শেয়ার করত।

সবচেয়ে ন্যক্কারজনক ও ঘৃণিত বিষয়টি হচ্ছে, এমন নৈরাজ্য এতটাই ছড়িয়ে পড়েছে যে শিক্ষার্থীরা এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করা অথবা রুখে দাঁড়ানোর মানসিক জোরও হারিয়ে ফেলেছে।

দেশটির শিক্ষা মন্ত্রণালয় ঘোষণা দিয়েছে, অফস্টেডের প্রতিবেদনে উঠে আসা এমন অপ্রত্যাশিত ও ন্যক্কারজনক পরিস্থিতি মোকাবিলায় স্কুল-কলেজের কর্তৃপক্ষকে আরও বেশি সহায়তা দেয়া হবে।

এ বিষয়ে দ্য ইনডিপেনডেন্টকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে নারীর প্রতি সহিংসতা বন্ধের দাবিতে গঠিত ঐক্যজোটের পরিচালক অ্যান্ড্রু সিমন বলেন, ‘এমন প্রতিবেদন ভয়াবহ ও সত্যিকার অর্থে দুঃখজনক। আমরা যদি এখনই এই সংকটের লাগাম টেনে ধরতে না পারি, তবে তরুণ শিক্ষার্থীদের পুরো একটি প্রজন্ম নষ্ট হয়ে যাবে।’

অফস্টেডের প্রধান পরিদর্শক আমান্ডা স্পিলম্যান জানান, এমন প্রতিবেদন তাকে ভীষণভাবে মর্মাহত করেছে।

তিনি বলেন, ‘অনেক মেয়ে শিক্ষার্থী মেনে নিয়েছে যে তাদের বড় হওয়ার এই প্রক্রিয়ায় যৌন নিপীড়ন সহ্য করে নিতে হবে। এ বিষয়ে অভিযোগ করার কোনো যৌক্তিকতা নেই বলেও ভ্রান্ত ধারণা জন্মেছে তাদের মধ্যে। আমাদের সম্মিলিতভাবে এই অরাজকতার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে।’

আরও পড়ুন:
মেয়েকে ‘যৌন নির্যাতন করায়’ স্বামীর যৌনাঙ্গ কাটলেন স্ত্রী
যৌন নিপীড়ন: দেড় লাখে মীমাংসার চেষ্টা অধ্যক্ষের
চার শিশুকে যৌন নির্যাতনের অভিযোগে রিকশাচালক গ্রেফতার

শেয়ার করুন

মন্তব্য

যুক্তরাষ্ট্রে এলজিবিটিকিউদের শোভাযাত্রায় ট্রাকের ধাক্কা, নিহত ১

যুক্তরাষ্ট্রে এলজিবিটিকিউদের শোভাযাত্রায় ট্রাকের ধাক্কা, নিহত ১

ফ্লোরিডায় এলজিবিটিকিউ সম্প্রদায়ের শোভাযাত্রায় ট্রাকের ধাক্কায় এক ব্যক্তি নিহত হয়। ছবি: এএফপি

ফ্লোরিডা অঙ্গরাজ্যের ফোর্ট লাউডারডেল শহরের মেয়র ডিন ট্রানট্রালিস বলেন, শোভাযাত্রায় অংশ নেয়া এলজিবিটিকিউ সম্প্রদায়ের ওপর ট্রাকচালক ইচ্ছাকৃতভাবে হামলা চালিয়েছে। চালকের উদ্দেশ্য পরিষ্কার নয়।

যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা অঙ্গরাজ্যে এলজিবিটিকিউ সম্প্রদায়ের মানুষদের শোভাযাত্রা চলাকালে পিকআপ ট্রাকের ধাক্কায় এক ব্যক্তি নিহত হয়েছে। গুরুতর আহত হয়েছে আরও একজন।

ফ্লোরিডার উইলটন ম্যানরস শহরে স্থানীয় সময় শনিবার রাতে ওই ঘটনা ঘটে বলে বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

অঙ্গরাজ্যের ফোর্ট লাউডারডেল শহরের মেয়র ডিন ট্রানট্রালিস বলেন, শোভাযাত্রায় অংশ নেয়া এলজিবিটিকিউ সম্প্রদায়ের মানুষদের ওপর ট্রাকচালক ইচ্ছাকৃতভাবে হামলা চালিয়েছে। চালকের উদ্দেশ্য পরিষ্কার নয়।

মায়ামিভিত্তিক টেলিভিশন স্টেশন ডব্লিউএসভিএনের প্রতিবেদনে বলা হয়, চালকের পরিচয় জনসম্মুখে প্রকাশ করা হয়নি।

উইলটন ম্যানরস শহরে এলজিবিটিকিউ সম্প্রদায়ের উৎসব ‘স্টনওয়াল প্রাইড প্যারেডে’ অংশ নিয়েছেন এমন ভান করেন ওই চালক। শোভাযাত্রায় ভিড়ের ভেতর ঢুকে পড়লে একপর্যায়ে উৎসবে অংশগ্রহণকারীরা সরতে বললে চালক হঠাৎ গাড়ির গতি বাড়িয়ে দেয়।

ফোর্ট লাউডারডেল শহরের গোয়েন্দা পুলিশ এক বিবৃতিতে বলেন, ‘ঘটনাটি তদন্ত করা হচ্ছে। আমরা সব সম্ভাবনা বিবেচনা ও মূল্যায়ন করছি।’

ট্রাকের ধাকায় আহত দুই ব্যক্তিকে দ্রুতই স্থানীয় চিকিৎসা কেন্দ্রে পাঠানো হয়। সেখানে একজনকে মৃত ঘোষণা করা হয়।

ফ্লোরিডার উইলটন ম্যানরস শহরের পুলিশ বিভাগ টুইটবার্তায় বলে, ‘দুঃখজনক ঘটনার কারণে স্টনওয়াল প্রাইড প্যারেড বাতিল করা হয়েছে। তবে উৎসব ঘিরে অন্যান্য অনুষ্ঠান চলবে।’

যুক্তরাষ্ট্রের ডেমোক্র্যাটিক পার্টির নেতা ডেবি ওয়াসারম্যান শুলজ ওই শোভাযাত্রায় ছিলেন।

নিজে অক্ষত রয়েছেন বলে টুইটবার্তায় জানান শুলজ। তবে ওই ঘটনায় একজনের মৃত্যু ও আরেকজন গুরুতর আহত হওয়ায় মর্মাহত হয়েছেন বলে জানান তিনি।

আরও পড়ুন:
মেয়েকে ‘যৌন নির্যাতন করায়’ স্বামীর যৌনাঙ্গ কাটলেন স্ত্রী
যৌন নিপীড়ন: দেড় লাখে মীমাংসার চেষ্টা অধ্যক্ষের
চার শিশুকে যৌন নির্যাতনের অভিযোগে রিকশাচালক গ্রেফতার

শেয়ার করুন

বাবাদের ভালোবাসা জানানোর বিশেষ দিন আজ

বাবাদের ভালোবাসা জানানোর বিশেষ দিন আজ

একসময় বাবা দিবস বেশ টানাপোড়েনের মধ্য দিয়েই পালিত হতো। আসলে মা দিবস নিয়ে মানুষ যতটা উৎসাহ দেখাত, বাবা দিবসে মোটেও তেমনটা দেখাত না; বরং বাবা দিবসের বিষয়টি তাদের কাছে বেশ হাস্যকরই ছিল। ধীরে ধীরে অবস্থা পাল্টায়।

সন্তানের কাছে বটবৃক্ষ সমতুল্য বাবা। তার ছায়ায় স্বস্তির ঘুম দিতে পারে সন্তান। বাবার বিশালতা বোঝাতে গিয়ে হুমায়ূন আহমেদ বলেছিলেন, ‘পৃথিবীতে অসংখ্য খারাপ মানুষ আছে। কিন্তু একজনও খারাপ বাবা নেই।’

বাবা শাশ্বত, চির আপন, চিরন্তন। বাবার তুলনা তিনি নিজেই।

উল্লিখিত দিকটিকে স্বীকৃতি দিতে প্রতিবছর জুনের তৃতীয় রোববার বিশ্বের বেশির ভাগ দেশে পালিত হয় বাবা দিবস।

বাবা দিবসের ইতিহাস ঘেঁটে জানা যায়, বিংশ শতাব্দীর প্রথম দিকে এটা পালন করা শুরু হয়। আসলে মায়েদের পাশাপাশি বাবারাও যে তাদের সন্তানের প্রতি দায়িত্বশীল, এটা বোঝাতেই দিবসটি পালন করা হতে থাকে।

ধারণা করা হয়, ১৯০৮ সালের ৫ জুলাই যুক্তরাষ্ট্রের ওয়েস্ট ভার্জিনিয়ার ফেয়ারমন্টের এক গির্জায় এই দিনটি প্রথম পালিত হয়।

আবার সনোরা স্মার্ট ডড নামের ওয়াশিংটনের এক নারীর মাথায়ও বাবা দিবসের আইডিয়া আসে। যদিও তিনি ১৯০৯ সালে ভার্জিনিয়ার বাবা দিবসের কথা একেবারেই জানতেন না।

ডড এই আইডিয়াটা পান গির্জার এক পুরোহিতের বক্তব্য থেকে। সেই পুরোহিত মাকে নিয়ে অনেক ভালো ভালো কথা বলছিলেন।

তখন তার মনে হয়, তাহলে বাবাদের নিয়েও তো কিছু করা দরকার।

ডড তার বাবাকে খুব ভালোবাসতেন। তিনি সম্পূর্ণ নিজ উদ্যোগেই পরের বছর, অর্থাৎ ১৯ জুন, ১৯১০ সাল থেকে বাবা দিবস পালন করা শুরু করেন।

বাবাদের ভালোবাসা জানানোর বিশেষ দিন আজ

একসময় বাবা দিবস বেশ টানাপোড়েনের মধ্য দিয়েই পালিত হতো।

আসলে মা দিবস নিয়ে মানুষ যতটা উৎসাহ দেখাত, বাবা দিবসে মোটেও তেমনটা দেখাত না; বরং বাবা দিবসের বিষয়টি তাদের কাছে বেশ হাস্যকরই ছিল।

ধীরে ধীরে অবস্থা পাল্টায়। ১৯১৩ সালে আমেরিকান সংসদে বাবা দিবসে ছুটির জন্য একটা বিল উত্থাপন করা হয়।

১৯২৪ সালে তৎকালীন আমেরিকান প্রেসিডেন্ট ক্যালভিন কুলিজ বিলটিতে পূর্ণ সমর্থন দেন।

অবশেষে ১৯৬৬ সালে প্রেসিডেন্ট লিন্ডন বি. জনসন বাবা দিবসে ছুটির ঘোষণা দেন।

আরও পড়ুন:
মেয়েকে ‘যৌন নির্যাতন করায়’ স্বামীর যৌনাঙ্গ কাটলেন স্ত্রী
যৌন নিপীড়ন: দেড় লাখে মীমাংসার চেষ্টা অধ্যক্ষের
চার শিশুকে যৌন নির্যাতনের অভিযোগে রিকশাচালক গ্রেফতার

শেয়ার করুন

বিনামূল্যে ঘর: দৃষ্টি ট্রান্সজেন্ডার ও প্রতিবন্ধীদের দিকে

বিনামূল্যে ঘর: দৃষ্টি ট্রান্সজেন্ডার ও প্রতিবন্ধীদের দিকে

আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের আওতায় ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবার পুনর্বাসনের দ্বিতীয় পর্যায়ে নেত্রকোণায় ঘর প্রদানে প্রশাসনের দৃষ্টি ট্রান্সজেন্ডার ও প্রতিবন্ধীদের দিকে। ছবি: নিউজবাংলা

‘এবার ঘর বিতরণে উপজেলা প্রশাসনকে ট্রান্সজেন্ডার ও প্রতিবন্ধীদের দিকে বিশেষ যত্নশীল হতে বলা হয়েছিল। এর ফলে ৯৬০টি ঘর প্রদানের মধ্যে ৬৫ ঘর প্রতিবন্ধী ও ২৪ ঘর দেয়া হচ্ছে ট্রান্সজেন্ডারদের।’

মুজিববর্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের আওতায় ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবার পুনর্বাসনের দ্বিতীয় পর্যায়ে নেত্রকোণায় ঘর প্রদানে প্রশাসনের দৃষ্টি ট্রান্সজেন্ডার ও প্রতিবন্ধীদের দিকে।

প্রকল্পটির অধীনে এবার জেলায় ১০ উপজেলায় ৯২৫ ছিন্নমূল পরিবার জমিসহ সেমিপাকা ঘর পাচ্ছে।

রোববার ওই পরিবারের হাতে স্বামী ও স্ত্রীর যৌথনামে ভূমির মালিকানা দলিল, নামজারী খতিয়ান ও হস্তান্তর করবে জেলা প্রশাসন।

এর আগে প্রথম পর্যায়ে দেয়া হয়েছে ৯৬০ পরিবারকে।

দ্বিতীয় পর্যায়ের ১৭ কোটি ৫৭ লাখ ৫০ হাজার টাকা ব্যয়ে ৯২৫ ঘরের মধ্যে ৮৯ টি ঘর দেয়া হচ্ছে ট্রান্সজেন্ডার ও প্রতিবন্ধীদের মাঝে।

শনিবার দুপুরে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে সংবাদ সম্মেলনে আসেন জেলা প্রশাসক কাজী মো. আব্দুর রহমান। তিনি বলেন, ‘এবার ঘর বিতরণে উপজেলা প্রশাসনকে ট্রান্সজেন্ডার ও প্রতিবন্ধীদের দিকে বিশেষ যত্নশীল হতে বলা হয়েছিল। এর ফলে ৯৬০টি ঘর প্রদানের মধ্যে ৬৫ ঘর প্রতিবন্ধী ও ২৪ ঘর দেয়া হচ্ছে ট্রান্সজেন্ডারদের।’

প্রথম ধাপে প্রতিটি ঘর নির্মাণে এক লাখ ৭০ হাজার টাকা খরচ হলেও দ্বিতীয় ধাপে ব্যয় হচ্ছে এক লাখ ৯০ হাজার টাকা।

এই প্রকল্পের আওতায় ঘর প্রতি দুটি কক্ষ, একটি রান্না ঘর, টয়লেট ও সামনে খোলা বারান্দা রয়েছে।

জনস্বাস্থ্য বিভাগের প্রকল্পের মাধ্যমে পয়ঃনিষ্কাশনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। রয়েছে বিদ্যুতের ব্যবস্থাও।

রোববার কতগুলো পরিবার উঠতে পারবে-জানতে চাইলে জেলা প্রশাসক বলেন, ‘৬০০ ঘর পুরোপুরি শেষ করা হয়েছে। এসব ঘরে কাল থেকেই তারা বসবাস করা যাবে। বাকিগুলোর কাজ প্রায় শেষের দিকে। দ্রুততম সময়ে কাজ শেষ করে হস্তান্তর করা হবে।’

বিনামূল্যে ঘর: দৃষ্টি ট্রান্সজেন্ডার ও প্রতিবন্ধীদের দিকে

জেলার বিভিন্ন উপজেলায় নির্মানাধীণ ঘর পরিদর্শন করার কথা জানিয়ে জেলা প্রশাসক কাজি মো. আবদুর রহমান বলেন, যাদের ঘর দেয়া হচ্ছে তারা সকলেই হতদরিদ্র ছিন্নমূল মানুষ ।তারা কেউ রিকশা চালান, কেউবা অন্যের বাড়িতে কাজ করেন। আবার কেউ ক্ষুদ্র ব্যবসা এবং মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করেন। এসকল মানুষদের জীবনমান উন্নয়নে সরকারের বিভিন্ন সংস্থার প্রকল্পে সংযুক্তি করা হবে। ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র ঋণ সহায়তা দেয়া হবে। প্রশিক্ষণ দেয়া হবে। তাদেরকে প্রশাসন দেখভাল করবে।

তিনি বলেন, ঘর বরাদ্দ পাওয়া মানুষদের অভিব্যাক্তি ছিল আনন্দের।সরকারের এই প্রকল্পে জমিসহ একেকটি ঘর যেন একেকজন গৃহহীন মানুষের বাস্তবে পরিণত হওয়া স্বপ্ন। গৃহহীনরা পাকা দালান পাবে, এটি তারা কখনো কল্পনাও করেনি। এমতাবস্থায় ঘর পাওয়ার আনন্দে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন তারা।

বিনামূল্যে ঘর: দৃষ্টি ট্রান্সজেন্ডার ও প্রতিবন্ধীদের দিকে

দ্বিতীয় ধাপের ঘরের মধ্যে দুর্গাপুরে ৪৫টি, সদরে ৬৪টি, বারহাট্টায় ২৫টি, কলমাকান্দায় ৫৫টি, আটপাড়ায় ৫০টি, কেন্দুয়ায় ৫৬টি, মোহনগঞ্জে ১০৫টি, মদনে ১০৫টি, খালিয়াজুরীতে ৪০০টি ও পূর্বধলায় ২০টি রয়েছে।

এর মধ্যে সদরে ৮টি ট্রান্সজেন্ডার ৪টি প্রতিবন্ধী, কেন্দুয়ায় ৭টি ট্রান্সজেন্ডার,দুর্গাপুরে ৩টি তৃতীয় লিঙ্গ ১টি প্রতিবন্ধী,পূর্বধলায় ৫টি প্রতিবন্ধী,কলমাকান্দায় ১৫টি প্রতিবন্ধী,মোহনগঞ্জে ৪টি প্রতিবন্ধী, আটপাড়ায় ১০টি প্রতিবন্ধী, মদনে ৬টি তৃতীয় লিঙ্গ ১০টি প্রতিবন্ধী, বারহাট্রায় ৬টি প্রতিবন্ধী ও খালিয়াজুরীতে ১০টি প্রতিবন্ধীদের বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন:
মেয়েকে ‘যৌন নির্যাতন করায়’ স্বামীর যৌনাঙ্গ কাটলেন স্ত্রী
যৌন নিপীড়ন: দেড় লাখে মীমাংসার চেষ্টা অধ্যক্ষের
চার শিশুকে যৌন নির্যাতনের অভিযোগে রিকশাচালক গ্রেফতার

শেয়ার করুন

আগ্নেয়াস্ত্র হাতে ভয় দেখানো শ্বেতাঙ্গ দম্পতি দোষী সাব্যস্ত

আগ্নেয়াস্ত্র হাতে ভয় দেখানো শ্বেতাঙ্গ দম্পতি দোষী সাব্যস্ত

যুক্তরাষ্ট্রে ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটারকর্মীদের দিকে আগ্নেয়াস্ত্র তাক করা শ্বেতাঙ্গ দম্পতি বৃহস্পতিবার আদালতে দোষী সাব্যস্ত হন। ছবি: রয়টার্স

চতুর্থ মাত্রার হামলার অভিযোগে মার্ক ম্যাকক্লোসকিকে সাড়ে সাতশ ডলার জরিমানা করা হয়েছে। আর তার স্ত্রী পেট্রিসিয়া ম্যাকক্লোসকিকে দ্বিতীয় মাত্রার হয়রানির অভিযোগে দুই হাজার ডলার জরিমানা করা হয়।

যুক্তরাষ্ট্রে ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটারকর্মীদের দিকে আগ্নেয়াস্ত্র তাক করে বিশ্বব্যাপী নিন্দা কুড়ানো বিত্তশালী শ্বেতাঙ্গ আইনজীবী দম্পতি আদালতে দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন।

দেশটির মিসৌরি অঙ্গরাজ্যের সেন্ট লুইস শহরের এক আদালতে স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার তাদের দোষী সাব্যস্ত করা হয় বলে আল-জাজিরার প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

সেন্ট লুইসের ২২তম সার্কিট কোর্টের মুখপাত্র টম গ্রস বলেন, অপকর্মের অভিযোগে ওই দম্পতি আদালতে দোষী সাব্যস্ত হন।

চতুর্থ মাত্রার হামলার অভিযোগে মার্ক ম্যাকক্লোসকিকে সাড়ে সাতশ ডলার জরিমানা করা হয়েছে। আর তার স্ত্রী পেট্রিসিয়া ম্যাকক্লোসকিকে দ্বিতীয় মাত্রার হয়রানির অভিযোগে দুই হাজার ডলার জরিমানা করা হয়।

গত বছরের ২৮ জুন পুলিশের নির্যাতন ও বর্ণবাদের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল বের করেন ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটারের কর্মীরা।

শান্তিপূর্ণ মিছিলটি মার্ক ও পেট্রিসিয়ার বাড়ির সামনে দিয়ে যাওয়ার সময় বাড়ির প্রাঙ্গণে খালি পায়ে নেমে বিক্ষোভকারীদের হুমকি দেন ওই দম্পতি। ওই সময় প্যাট্রিসিয়ার হাতে বন্দুক ও মার্কের হাতে রাইফেল ছিল।

বিক্ষোভকারীরা মার্ক বা প্যাট্রিসিয়াকে হুমকি দিয়েছিলেন, এমন কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি।

ওই ঘটনার পর মার্ক-প্যাট্রিসিয়া দম্পতি যুক্তরাষ্ট্রের রক্ষণশীল শ্বেতাঙ্গ ও ন্যায়প্রার্থী কৃষ্ণাঙ্গ মানুষের মধ্যকার বৈষম্যের প্রতীকে পরিণত হন।

আরও পড়ুন:
মেয়েকে ‘যৌন নির্যাতন করায়’ স্বামীর যৌনাঙ্গ কাটলেন স্ত্রী
যৌন নিপীড়ন: দেড় লাখে মীমাংসার চেষ্টা অধ্যক্ষের
চার শিশুকে যৌন নির্যাতনের অভিযোগে রিকশাচালক গ্রেফতার

শেয়ার করুন

ট্রান্সজেন্ডারদের চাকরি দিচ্ছে ফুডপান্ডা

ট্রান্সজেন্ডারদের চাকরি দিচ্ছে ফুডপান্ডা

ফুডপান্ডা বিভিন্ন ব্যাচে প্রশিক্ষণ দিয়ে রাইডার হিসেবে নিয়োগ দিচ্ছে ট্রান্সজেন্ডারসহ লিঙ্গবৈচিত্র্য ও লিঙ্গ রূপান্তরিত সম্প্রদায়ের সদস্যদের। পাশাপাশি দিচ্ছে এ কাজে সহায়ক ডেলিভারি উপকরণ সাইকেল ও স্মার্টফোনসহ অন্যান্য সরঞ্জাম, যাতে তারা ফুডপান্ডার রাইডার হিসেবে স্বাধীনভাবে ও গর্বের সঙ্গে কাজ করতে পারে।

সমাজের মূলধারায় ফিরতে শুরু করেছে ট্রান্সজেন্ডার নাগরিকরা, যারা সমাজে প্রচলিতভাবে হিজড়া হিসেবে পরিচিত। কেউ কেউ প্রাতিষ্ঠানিক কাজেও ভিড়ছে।

কোনো কোনো প্রতিষ্ঠান এই ট্রান্সজেন্ডারদের কাজে সম্পৃক্ত করতে দিচ্ছে নানা ধরনের প্রশিক্ষণ। প্রশিক্ষণ শেষে তারা কাজও দিচ্ছে অনেককে।

এমনই একটি প্রতিষ্ঠান ফুডপান্ডা। দেশজুড়ে ট্রান্সজেন্ডার, লিঙ্গবৈচিত্র্য ও লিঙ্গ রূপান্তরিত জনগোষ্ঠীর জন্য এ অ্যাপভিত্তিক ফুড ডেলিভারি প্রতিষ্ঠানটি অন্তর্ভুক্তিমূলক পরিবেশ সৃষ্টিতে কাজ শুরু করেছে।

এরই ধারাবাহিকতায় ফুডপান্ডা তাদের অন-ডিমান্ড ফুড ও গ্রসারি ডেলিভারি কাজে নিচ্ছে ট্রান্সজেন্ডারদের।

এ উদ্দেশ্যে প্রতিষ্ঠানটি বিভিন্ন ব্যাচে প্রশিক্ষণ দিয়ে রাইডার হিসেবে নিয়োগ দিচ্ছে ট্রান্সজেন্ডারসহ লিঙ্গবৈচিত্র্য ও লিঙ্গ রূপান্তরিত সম্প্রদায়ের সদস্যদের। পাশাপাশি দিচ্ছে এ কাজে সহায়ক ডেলিভারি উপকরণ সাইকেল ও স্মার্টফোনসহ অন্যান্য সরঞ্জাম, যাতে তারা ফুডপান্ডার রাইডার হিসেবে স্বাধীনভাবে ও গর্বের সঙ্গে কাজ করতে পারে।

জানা গেছে, ইতোমধ্যে এই উদ্যোগের অংশ হিসেবে ফুডপান্ডা প্রাথমিকভাবে চট্টগ্রাম ও ঢাকায় ২০ জন রাইডার নিয়োগ করেছে। আরও বেশ কয়েকজন সদস্য ইতিমধ্যে ফুডপান্ডার পান্ডামার্ট ডার্ক স্টোরে ওয়্যারহাউস কর্মী হিসেবে কাজ করছে।

আরও পড়ুন:
মেয়েকে ‘যৌন নির্যাতন করায়’ স্বামীর যৌনাঙ্গ কাটলেন স্ত্রী
যৌন নিপীড়ন: দেড় লাখে মীমাংসার চেষ্টা অধ্যক্ষের
চার শিশুকে যৌন নির্যাতনের অভিযোগে রিকশাচালক গ্রেফতার

শেয়ার করুন

যুক্তরাষ্ট্রে এফটিসির প্রধান হলেন পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত লিনা

যুক্তরাষ্ট্রে এফটিসির প্রধান হলেন পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত লিনা

যুক্তরাষ্ট্রে পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষ সিনেটের শুনানিতে লিনা খান। ফাইল ছবি

বাজারব্যবস্থায় বড় বড় প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের একচেটিয়া কর্তৃত্ব আরোপের তীব্র বিরোধী লিনা খান। অর্থনৈতিক খাতে প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রভাব বিস্তার খর্ব করতে চাওয়া প্রগতিশীলরা লিনার নিয়োগকে বিজয় হিসেবে দেখছেন।

যুক্তরাষ্ট্রে ভোক্তা অধিকার সুরক্ষাবিষয়ক সংস্থা ফেডারেল ট্রেড কমিশনের (এফটিসি) প্রধান হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত নারী লিনা খান।

অ্যামাজন ডটকম, অ্যাপল, ফেসবুক ও অ্যালফাবেটের মতো প্রভাবশালী বহুজাতিক প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের কট্টর সমালোচক হিসেবে পরিচিত ৩২ বছর বয়সী এই নারী।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে জানানো হয়, যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন মঙ্গলবার নিয়োগ দিয়েছেন লিনা খানকে। এর আগে পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষ সিনেট তার নিয়োগ চূড়ান্ত করে।

বাজারব্যবস্থায় বড় বড় প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের একচেটিয়া কর্তৃত্ব আরোপের তীব্র বিরোধী লিনা খান। অর্থনৈতিক খাতে প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রভাব বিস্তার খর্ব করতে চাওয়া প্রগতিশীলরা লিনার নিয়োগকে বিজয় হিসেবে দেখছেন।

কলম্বিয়া ল’ স্কুলে অধ্যাপনা করেছেন লিনা খান। এর আগে কাজ করেছেন হাউস জুডিশিয়ারি কমিটির অ্যান্টিট্রাস্ট (একচেটিয়াত্ববিরোধী) প্যানেলের সদস্য হিসেবে।

কীভাবে অ্যামাজন, অ্যাপল, ফেসবুক ও অ্যালফাবেট বাজারে আধিপত্য বজায় রাখে, সে বিষয়ে বিস্তারিত প্রতিবেদন তৈরিতে সহযোগিতা করেছিলেন তিনি।

পরামর্শক সংস্থা পাবলিক সিটিজেন এক বিবৃতিতে বলেছে, ‘প্রেসিডেন্ট বাইডেন ও সিনেটের এ সিদ্ধান্তকে আমরা সাধুবাদ জানাই। এর মাধ্যমে করপোরেট প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রভাব বিস্তারবিষয়ক সংকটকে স্বীকার করে নেয়া হলো।’

যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক এসব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে বেশ কিছু মামলা ও অনুসন্ধানের উদ্যোগ নিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার ও বিভিন্ন অঙ্গরাজ্য।

এরই মধ্যে ফেসবুকের বিরুদ্ধে মামলা করেছে এফটিসি। অনুসন্ধান শুরু করেছে অ্যামাজন ডটকমের বিরুদ্ধে। গুগলের বিরুদ্ধে মামলা করেছে যুক্তরাষ্ট্রের বিচার বিভাগ।

এসব প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিদের নিয়ে গঠিত প্রতিষ্ঠান ইনফরমেশন টেকনোলজি অ্যান্ড ইনোভেশন ফাউন্ডেশন (আইটিআইএফ)।

লিনা খানকে এফটিসি প্রধান হিসেবে নিয়োগের প্রতিক্রিয়ায় আইটিআইএফ বলছে, এটি মানুষের অনাস্থাবিষয়ক দৃষ্টিভঙ্গিকে আরও উসকে দেবে। এতে লাভবান হবে বিদেশি ও কম মেধাবী প্রতিদ্বন্দ্বীরা; ক্ষতিগ্রস্ত হবে দেশীয় প্রতিষ্ঠান ও মেধাবীরা।

এ বিষয়ে আলাদাভাবে কোনো প্রতিক্রিয়া জানায়নি অ্যাপল ও ফেসবুক। কথা বলতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে গুগল ও অ্যামাজন ডটকম।

এর আগে প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলোর আরেক কট্টর সমালোচক টিম উকে যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের সদস্য হিসেবে মনোনীত করেন বাইডেন।

আরও পড়ুন:
মেয়েকে ‘যৌন নির্যাতন করায়’ স্বামীর যৌনাঙ্গ কাটলেন স্ত্রী
যৌন নিপীড়ন: দেড় লাখে মীমাংসার চেষ্টা অধ্যক্ষের
চার শিশুকে যৌন নির্যাতনের অভিযোগে রিকশাচালক গ্রেফতার

শেয়ার করুন

নারীর ক্ষমতায়নে একসঙ্গে কাজ করবে সিটি ব্যাংক-জেসিআই

নারীর ক্ষমতায়নে একসঙ্গে কাজ করবে সিটি ব্যাংক-জেসিআই

নারীর ক্ষমতায়নে সিটি ব্যাংক ও জুনিয়র চেম্বার ইন্টারন্যাশনালের চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে অতিথিরা

এ বিষয়ে প্রতিষ্ঠান দুটির মধ্যে চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে বলে মঙ্গলবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়। চুক্তির আওতায় যৌথভাবে বিভিন্ন কর্মশালা, সেমিনার ও প্রশিক্ষণের মাধ্যমে নারীর ক্ষমতায়নে কাজ করবে সিটি ব্যাংক ও জেসিআই।

নারীর ক্ষমতায়নে একসঙ্গে কাজ করবে সিটি ব্যাংক ও জুনিয়র চেম্বার ইন্টারন্যাশনাল (জেসিআই)।

এ বিষয়ে প্রতিষ্ঠান দুটির মধ্যে চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে বলে মঙ্গলবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

চুক্তির আওতায় যৌথভাবে বিভিন্ন কর্মশালা, সেমিনার ও প্রশিক্ষণের মাধ্যমে নারীর ক্ষমতায়নে কাজ করবে সিটি ব্যাংক ও জেসিআই।

বিশেষ এই চুক্তির আওতায় নারীদের একটি বিশ্ব সম্প্রদায়ে জড়িত থাকার জন্য নেটওয়ার্কিংয়ের সুযোগও তৈরি করা হবে।

চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষে সই করেন সিটি ব্যাংকের হেড অব রিটেইল ব্যাংকিং অরূপ হায়দার এবং জেসিআই বাংলাদেশ-এর ২০২১ ন্যাশনাল প্রেসিডেন্ট নিয়াজ মোরশেদ এলিট।

অনুষ্ঠানে জেসিআই বাংলাদেশ লিমিটেডের ফার্স্ট লেডি তাসমিনা আহমেদ শ্রাবণী এবং সিটি ব্যাংকের হেড অফ সিটি আলো মারিয়াম জাভেদ জুহিসহ উভয় প্রতিষ্ঠানের ঊধ্বর্তন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
মেয়েকে ‘যৌন নির্যাতন করায়’ স্বামীর যৌনাঙ্গ কাটলেন স্ত্রী
যৌন নিপীড়ন: দেড় লাখে মীমাংসার চেষ্টা অধ্যক্ষের
চার শিশুকে যৌন নির্যাতনের অভিযোগে রিকশাচালক গ্রেফতার

শেয়ার করুন