বাংলাদেশের ডাকের অপেক্ষায় জিদান মিয়া

বাংলাদেশের ডাকের অপেক্ষায় জিদান মিয়া

ইংল্যান্ডে বেড়ে ওঠা ২০ বছরের জিদানের লক্ষ্য বাংলাদেশের হয়ে খেলা। ছবি: সংগৃহীত

ইংলিশ গ্রেট ডেভিড বেকহ্যামের অ্যাকাডেমি থেকে হাতেখড়ি নেয়া এই ফুটবলার ইতোমধ্যে ইউরোপে দ্যুতি ছড়াচ্ছেন। তরুণ এই প্রতিভার স্বপ্ন ইউরোপের সেরা লিগে খেলার পাশাপাশি পিতৃভূমি বাংলাদেশের হয়ে খেলবেন।

ইংল্যান্ডে জন্ম নেয়া বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ফুটবলার জিদান মিয়া সে দেশের বাঙালি ফুটবল কমিউনিটিতে অতিপরিচিত নাম। ইংলিশ গ্রেট ডেভিড বেকহ্যামের অ্যাকাডেমি থেকে হাতেখড়ি নেয়া এই ফুটবলার ইতোমধ্যে ইউরোপে দ্যুতি ছড়াচ্ছেন। তরুণ এই প্রতিভার স্বপ্ন ইউরোপের সেরা লিগে খেলার পাশাপাশি পিতৃভূমি বাংলাদেশের হয়ে খেলবেন।

বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত জামাল ভূঁইয়া ও তারিক কাজী যখন জাতীয় দলে আলো ছড়িয়ে যাচ্ছেন, তখন বাংলাদেশ থেকে কোনো প্রস্তাবই পাননি জিদান। উদগ্রীব হয়ে সেই অপেক্ষায় আছেন জিদান ও তার পরিবার।

জিদানের বাবা সুফিয়ান মিয়া নিউজবাংলাকে বলেন, ‘দেশের জন্য খেলতে পারা হবে গর্বের। এখনও কোনো প্রস্তাব আসেনি। যদি কখনও প্রস্তাব আসে তাহলে জিদানের ইচ্ছা আছে। আমাদের সবারই ইচ্ছা আছে। ফেডারেশন বা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ থেকে প্রস্তাব না আসা পর্যন্ত আমরা তো কিছু করতে পারব না।’

জিদান ২০০১ সালের ৭ই মার্চ লন্ডনে জন্মগ্রহণ করেন। তার ফুটবলের হাতেখড়ি ডেভিড বেকহ্যামের অ্যাকাডেমিতে। সেখানে দুই বছর প্রশিক্ষণ নেয়ার পর জিদান খেলেছেন বেশ কয়েকটি যুবদলে। ইংল্যান্ড, ওয়েলস ছাড়াও খেলেছেন ডেনমার্ক, স্পেন, হংকং ও থাইল্যান্ডে।

পেশাদার ফুটবলার হওয়ার লক্ষ্যে ২০১২ সালের ডিসেম্বরে পাড়ি জমান যুক্তরাষ্ট্রে। খেলেছে ইংলিশ ক্লাব ব্রমলি এফসিতে।

এখন জিদান অপেক্ষায় আছেন ইউরোপের সেরা লিগগুলোতে একটি সুযোগের। তারই অংশ হিসেবে ট্রায়াল দিচ্ছেন এই ফুটবলার।

স্পেনের ঘরোয়া ফুটবলের দ্বিতীয় বিভাগ থেকে সর্বোচ্চ আসর লা লিগায় প্রমোশন পাওয়া রায়ো ভায়েকানোর হয়ে সম্প্রতি অনুশীলন করেছেন তিনি। লা লিগাকে সামনে রেখে স্কোয়াড সাজাচ্ছে মাদ্রিদের দলটি।

তারই ট্রায়ালের অংশ নিতে ইংল্যান্ড থেকে স্পেনে পাড়ি জমিয়েছেন জিদান মিয়া।

বাংলাদেশের ডাকের অপেক্ষায় জিদান মিয়া
২০১৫ সালে এশিয়ান ফুটবল অ্যাওয়ার্ডসে বিশেষ পুরস্কার পান জিদান মিয়া। ছবি: ফেসবুক

ট্রায়াল নাকি প্রশিক্ষণ বিষয়টি নিয়ে এখনও ধোঁয়াশা রয়েছে। এ নিয়ে নিশ্চিত কিছু বলতে এখনই রাজি নন জিদানের বাবা, ‘আমরা কিছু বলতে পারব না যদি না কিছু হয়। খুব দ্রুত কনফার্ম করব। এখন আমরা কিছু জানাতে চাই না।’

ট্রায়ালে টিকে গেলে মেসি-গ্রিজমানদের সঙ্গে লা লিগার ম্যাচ খেলতে দেখা যাবে তাকে। যদি তা না হয় তাহলে কী করবে জিদানের পরিবার?

সুফিয়ান মিয়া নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ইউরোপের সেরা লিগগুলোতে খেলার চেষ্টা করবে সে।’

ইউরোপের সেরা লিগে যদি না হয় তাহলে বাংলাদেশের লিগে খেলার ভাবনা উড়িয়ে দিচ্ছেন না জিদানের বাবা, ‘এরপরে যদি না হয় তাহলে বাংলাদেশের লিগে খেলার ভাবনা থাকতে পারে তার। তবে আগে ইউরোপ।’

কয়েক দিন আগে জাতীয় দলের জার্সিতে অভিষেক হয় ফিনল্যান্ডপ্রবাসী বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ফুটবলার তারিক কাজীর। বিশ্বকাপ বাছাইয়ে তার খেলা মুগ্ধ করেছে দেশের ফুটবল সমর্থকদের।

জামাল ভূঁইয়ার পর দ্বিতীয় প্রবাসী ফুটবলার হিসেবে অভিষেক হয়েছে তার। সেই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশের ফুটবলে যুক্ত হতে পারে জিদান মিয়ার নামও।

আরও পড়ুন:
বাফুফের নির্দিষ্ট পরিকল্পনা না থাকায় হতাশ জামাল
সৌদি আরব যাওয়া নিয়ে শঙ্কায় ফুটবল দল
মেহেদী ম্যাজিকে মুক্তিযোদ্ধার প্রথম জয়
পরের মাঠে নয়, ঘরের মাঠে খেলতে চায় বাংলাদেশ
স্কুল ফুটবলে চ্যাম্পিয়ন বাগেরহাট বহুমুখী কলিজিয়েট স্কুল

শেয়ার করুন

মন্তব্য