বাংলাদেশকে গোল করতে দেবে না ভারত, আদিলের হুংকার

বাংলাদেশকে গোল করতে দেবে না ভারত, আদিলের হুংকার

ছবি: সংগৃহীত

শনিবার এক সাক্ষাতকারে তিনি এমনটাই হুংকার দেন। তাকে প্রশ্ন করা হয়েছিল বাংলাদেশকে গোল করা থেকে বিরত রাখতে পারবেন? এই প্রশ্নের জবাবে আত্মবিশ্বাস নিয়ে গোলবার অক্ষত রাখার নিশ্চয়তা দিয়েছেন ৩১ বছর বয়সী ফুটবলার।

আর একদিন পরেই ভারতের বিপক্ষে বিশ্বকাপ ও এশিয়ান কাপ বাছাইয়ে নিজেদের সপ্তম ম্যাচটি খেলবে বাংলাদেশ। আফগানিস্তানের সঙ্গে ড্রয়ের পর দেশের ফুটবলের সকল উত্তেজনা ভারত ম্যাচকে ঘিরে। প্রতিবেশি দেশটির সঙ্গে ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ের বড় ব্যবধান ছাপিয়ে আলোচনায় থাকে দীর্ঘদিন ধরে চলে আসা দুই দলের দ্বৈরথ।

ভারতকে হারাতে হলে গোল করার বিকল্প নাই বাংলাদেশের। তবে রক্ষণ পেরিয়ে জালের সন্ধান জামাল-তপু-মানিকরা পাবেন না বলে মনে করেন ভারতের ডিফেন্ডার আদিল খান। বাংলাদেশকে গোলই করতে দেবেন না তিনি!

শনিবার এক সাক্ষাতকারে তিনি এমনটাই হুংকার দেন। তাকে প্রশ্ন করা হয়েছিল বাংলাদেশকে গোল করা থেকে বিরত রাখতে পারবেন? এই প্রশ্নের জবাবে আত্মবিশ্বাস নিয়ে গোলবার অক্ষত রাখার নিশ্চয়তা দিয়েছেন ৩১ বছর বয়সী ফুটবলার।

‘নিশ্চিতভাবেই। কারণ আমাদের রক্ষণ কাতারের বিপক্ষে ভালো খেলেছে। বাংলাদেশও ভালো করছে। উন্নতি করছে ফুটবলে। এটা প্রায় সমান সমান। আমরা আগে এক ম্যাচ খেলেছি তাদের সঙ্গে। তারা ভালো খেলেছে আমাদের বিপক্ষে। আমি মনে করি আমাদের রক্ষণ ভালো করেছে।’

সবশেষ ম্যাচে কাতারের কাছে ১০ জনের দল নিয়ে এক গোলে হারে ভারত। এশিয়ান চ্যাম্পিয়নদের বিপক্ষে তাদের রক্ষণভাগ আর গোলকিপার গুরপ্রীত সিংহের অতিমানবীয় পারফরম্যান্সে বড় হার থেকে বাঁচে ভারত। বড় ব্যবধান না হওয়ার কিছুটা দায় কাতারকেও দিতে হবে। অনেকগুলো সহজ সুযোগ নষ্ট করেছে তারা ম্যাচে।

এই আত্মবিশ্বাস থেকে বাংলাদেশকে কঠিন ম্যাচ উপহার দেয়ার প্রতিশ্রুতি আদিলের, ‘এশিয়ান কাপ চ্যাম্পিয়ন কাতারকে অনেক সময় ধরে রুখে দিতে পেরেছি। বাংলাদেশের বিপক্ষে ম্যাচ কঠিন হতে চলেছে। তবে আমরা স্থির বেশি।’

এর আগে এই ভারতের বিপক্ষেই যুবভারতীতে ১-১ গোলে ড্র করে আসে বাংলাদেশ। সেই ম্যাচে দুই দলের মধ্যে গোলের দেখা পায় বাংলাদেশই আগে। পরে আদিলের গোলে ড্রয়ের স্বস্তি নিয়ে মাঠ ছাড়ে ভারত।

কাতার ম্যাচের আত্মবিশ্বাস আর উদ্যম নিয়ে বাংলাদেশকে রুখে দেয়ার প্রতিশ্রুতি দেন ভারতের হয়ে সাত ম্যাচ খেলা এই ডিফেন্ডার।

আদিল বলেন, ‘কাতারের সঙ্গে প্রথম ম্যাচে ড্র করেছি। পরের ম্যাচে এক গোলে হেরেছি। পুরো দল ১০ জন অনেক ভালো ফুটবল খেলেছে। দল সে হিসেবে আত্মবিশ্বাসী। অবশ্যই আমরা আশানুরূপ ফল নিয়ে মাঠ ছাড়তে পারিনি। কিন্তু নিশ্চিতভাবে বাংলাদেশের বিপক্ষে সেই উদ্যম নিয়ে মাঠে নামবে।’

আগামী সাত জুন জসিম বিন হামাদ স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় রাত আটটায় শুরু হবে বাংলাদেশ-ভারত ম্যাচটি।

আরও পড়ুন:
আত্মবিশ্বাস ভারতের বিপক্ষেও ধরে রাখতে চায় বাংলাদেশ
আফগানদের বিপক্ষে পজিটিভ খেলায় খুশি দল
জেমির চোখে ‘প্রাপ্য’, কৃতিত্ব দিতে রাজি নন আনুশ
তপুর গোলে বিশ্বকাপ বাছাইয়ে দ্বিতীয় পয়েন্ট বাংলাদেশের
প্রথমার্ধে আফগানদের বাক্সবন্দী করে রেখেছে বাংলাদেশ

শেয়ার করুন

মন্তব্য