কাতারে জিম-সুইমিংয়ে ফুরফুরে ফুটবলাররা

কাতারে তৃতীয় দিনে সুইমিংয়ে জাতীয় ফুটবল দল। ছবি: বাফুফে

কাতারে জিম-সুইমিংয়ে ফুরফুরে ফুটবলাররা

বিশ্বকাপ ও এশিয়ান কাপের বাছাইপর্বে নিজেদের প্রথম ম্যাচে আফগানিস্তানের বিপক্ষে খেলবে বাংলাদেশ। আগামী ৩ জুনের এই ম্যাচকে সামনে রেখে সোমবার হালকা মেজাজেই ছিলেন জামাল-তপুরা।

কাতারে বিশ্বকাপ বাছাই ম্যাচের দুই দিন আগে ফুটবলারদের ফুরফুরে রাখার পরিকল্পনার অংশ হিসেবে সোমবার মাঠের অনুশীলন রাখা হয়নি। এর মধ্যে টানা দুই দিন মাঠের অনুশীলন, জিমনেসিয়াম ও সুইমিংয়ে ঘাম ঝড়িয়েছেন জাতীয় ফুটবলাররা।

বিশ্বকাপ ও এশিয়ান কাপের বাছাইপর্বে নিজেদের প্রথম ম্যাচে আফগানিস্তানের বিপক্ষে খেলবে বাংলাদেশ। আগামী ৩ জুনের এই ম্যাচকে সামনে রেখে সোমবার হালকা মেজাজেই ছিলেন জামাল-তপুরা।

দুই দলে বিভক্ত হয়ে সকাল ৯টা থেকে ১১টা পর্যন্ত টিম হোটেলে জিমনেসিয়াম ও সুইমিং সেশন শেষ করেছে ফুটবলাররা। এরপরে পুরো দিন বিশ্রামে থাকবেন তারা। তাই বিকেল মাঠের কোনো অনুশীলন রাখেন জাতীয় দলের প্রধান কোচ জেমি ডে।

এদিকে কাতারে পৌঁছে দ্বিতীয়বারের মতো কোভিড পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন সব ফুটবলার। অফিশিয়ালদেরও নেগেটিভ এসেছে।

এদিকে জাতীয় দলের আক্রমণভাগের পরিকল্পনা অনুযায়ী করোনা থেকে সেরে ওঠা ফুটবলার মোহাম্মদ ইব্রাহিমকে কাতারে নিয়ে গেছেন জেমি। মঙ্গলবার দলের সঙ্গে যোগ দেয়ার কথা এই উইঙ্গারের।

একই প্ল্যানের মধ্যে মাহবুবুর রহমান সুফিলকেও রাখা হলেও কোভিড সংক্রান্ত কারণে তাকে নেয়া সম্ভব হচ্ছে না। তাই বাকি তিন ম্যাচই মিস করছেন এই ‘স্পিড স্টার’।

একদিনের বিশ্রামের পর আগামীকাল বিকেলে মাঠের অনুশীলন রাখা হয়েছে। দুই ঘণ্টা অনুশীলন করবেন ফুটবলাররা।

দোহায় বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে ৩ জুন বাংলাদেশ প্রথম ম্যাচ খেলবে আফগানিস্তানের সঙ্গে। ৭ জুন ভারতের সঙ্গে ও টুর্নামেন্টে নিজেদের শেষ ম্যাচে ১৫ জুন বাংলাদেশ লড়বে ওমানের বিপক্ষে।

তিন ড্রয়ে তিন পয়েন্ট নিয়ে চারে ভারত। চার পয়েন্ট নিয়ে আফগানিস্তান আছে তিনে। ১২ পয়েন্ট নিয়ে দুইয়ে ওমান আর ১৬ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের শীর্ষে রয়েছে কাতার।

আরও পড়ুন:
১২ দিন ‘ঘরবন্দী’ থেকে কাতারে ইব্রাহিম
ডিফেন্স সামলে কাউন্টার অ্যাটাকে শান দিচ্ছেন জেমি
বিকেলে দুটি ও রাতে এক ম্যাচ খেলবে জামালরা
৪৪ ডিগ্রি গরমে জামালদের অনুশীলন শুরু
কাতারে কোভিড পরীক্ষায় উত্তীর্ণ জামাল-তপুরা

শেয়ার করুন

মন্তব্য

ওয়েম্বলিতে ইংল্যান্ড-জার্মানি নতুন অধ্যায়ের অপেক্ষায় নয়্যার

ওয়েম্বলিতে ইংল্যান্ড-জার্মানি নতুন অধ্যায়ের অপেক্ষায় নয়্যার

জার্মানির অনুশীলনে মানুয়েল নয়্যার। ছবি: এএফপি

১৯৯৬ সালে ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামে নির্ধারিত সময়ে ১-১ গোলে ড্র থাকার পর টাইব্রেকারে স্বাগতিক ইংল্যান্ডকে হারিয়ে ফাইনালে পৌছায় জার্মানি। ফাইনালে চেক রিপাবলিককে হারিয়ে শিরোপা জিতে নেয় ডাই মানশাফট।

ইউরো ২০২০ আসরের নকআউট পর্বে ইংল্যান্ডকে প্রতিপক্ষ হিসেবে পেয়েছে জার্মানি। ১৯৯৬ সালের সেমিফাইনালের পর এই প্রথম টুর্নামেন্টে ইংল্যান্ডের মুখোমুখি হচ্ছে তারা। জার্মানির অধিনায়ক মানুয়েল নয়্যার চান ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি।

১৯৯৬ সালে ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামে নির্ধারিত সময়ে ১-১ গোলে ড্র থাকার পর টাইব্রেকারে স্বাগতিক ইংল্যান্ডকে হারিয়ে ফাইনালে পৌছায় জার্মানি। ফাইনালে চেক রিপাবলিককে হারিয়ে শিরোপা জিতে নেয় ডাই মানশাফট।

২৫ বছর পর ইতিহাসের পুনরাবৃত্তির সুযোগ পেয়ে উচ্ছ্বসিত নয়্যার। দুই দলের ঐতিহাসিক দ্বৈরথে নতুন অধ্যায় যোগ হতে যাচ্ছে মনে করেন তিনি।

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে নকআউটে লড়াই নিয়ে জার্মানি ও বায়ার্ন মিউনিখের অধিনায়ক সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, ‘স্নায়ুক্ষয়ী এক রোমাঞ্চকর লড়াই হতে যাচ্ছে এটি। ইংল্যান্ডে সম্পুর্ণ ভিন্ন ধরনের খেলা হবে। আমরা আরও এগিয়ে যেতে চাই।’

ইংল্যান্ডকে খোঁচা মেরে এই গোলকিপার যোগ করেন, ‘ওয়েম্বলি আমাদের স্যুট করে।’

ওয়েম্বলিতে জার্মানি-ইংল্যান্ড শত্রুতার সূত্রপাত পুরনো। ১৯৬৬ সালের ফাইনালে এই স্টেডিয়ামেই জার্মানিকে ৪-২ গোলে হারিয়ে নিজেদের একমাত্র বিশ্বকাপ জেতে ইংল্যান্ড।

ফাইনালে নির্ধারিত সময়ে ২-২ গোলে খেলা শেষ হওয়ার পর জেফ হার্স্ট গোল করে স্বাগতিকদের এগিয়ে দেন। ওই গোলটি নিয়েই শুরু হয় বিপত্তি। জার্মানদের দাবি ছিল হার্স্টের গোল গোললাইন অতিক্রম করেনি। কিন্তু রেফারি তাদের দাবি কানে নেননি। গোলটিকে বৈধতা দেন ও জার্মানি ফাইনাল হেরে যায়।

পরে ইম্পেরিয়াল কলেজ অফ লন্ডন ও অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটির একদল গবেষক প্রমাণ করেন হার্স্টের গোলটি গোললাইন অতিক্রমের চেয়ে ২.৫-৬ সেন্টিমিটার দূরে ছিল।

এরপর আর কখনই কোনো টুর্নামেন্টে জার্মানিকে হারাতে পারেনি ইংল্যান্ড। ১৯৯০ ও ২০১০ বিশ্বকাপ ও ১৯৯৬ ইউরোতে জার্মানির কাছে হেরেই বিদায় নিতে হয় তাদের। এর মধ্যে ১৯৯৬-এর হার ছিল ওয়েম্বলিতে।

ওয়েম্বলিতে ইংল্যান্ড-জার্মানি নতুন অধ্যায়ের অপেক্ষায় নয়্যার
হাঙ্গেরির বিপক্ষে সমতাসূচক গোলের পর লিওন গোরেটসকার উচ্ছ্বাস। ছবি: এএফপি



নিজ মাঠে এবার তাই বাড়তি মনোযোগী ইংল্যান্ড। তবে অধিনায়ক নয়্যারের মতো ইতিহাসের দিকে তাকাচ্ছেন জার্মানির তারকা ফরোয়ার্ড লিওন গোরেটস্কা।

একই সুর তার কণ্ঠেও। নকআউটে ইংল্যান্ডকে পাওয়ার পর তিনি বলেন, ‘দারুন আনন্দিত। আর কোনো অনিশ্চয়তায় থাকতে হচ্ছে না। এই প্রতিশ্রুতি দিতে পারি যে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে আমরা আরও ভাল খেলব।’

বুধবার গ্রুপ পর্ব থেকেই ছিটকে পড়ার শঙ্কা তৈরি হয় জার্মান শিবিরে। এফ গ্রুপের গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে ৮৪ মিনিটে গোরেটসকার সমতাসুচক স্ট্রাইকে হাঙ্গেরির সঙ্গে ২-২ গোলের ড্র করে ওয়াকিম লোভের শিষ্যরা। এতে শেষ ১৬ নিশ্চিত হয় জার্মানদের।

কোয়ার্টার ফাইনালে জায়গা পেতে মঙ্গলবার লন্ডনের ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামে গ্যারেথ সাউথগেটের ইংল্যান্ডের বিপক্ষে নামবে জার্মানি।

আরও পড়ুন:
১২ দিন ‘ঘরবন্দী’ থেকে কাতারে ইব্রাহিম
ডিফেন্স সামলে কাউন্টার অ্যাটাকে শান দিচ্ছেন জেমি
বিকেলে দুটি ও রাতে এক ম্যাচ খেলবে জামালরা
৪৪ ডিগ্রি গরমে জামালদের অনুশীলন শুরু
কাতারে কোভিড পরীক্ষায় উত্তীর্ণ জামাল-তপুরা

শেয়ার করুন

মেসির জন্মদিনে ১ টাকায় আটা

মেসির জন্মদিনে ১ টাকায় আটা

৩৫০টি পরিবারে ১ টাকা কেজি দরে আটা বিতরণ করেছে চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদার ‘১৫ মেসি ভক্ত দামুড়হুদা’ নামের সংগঠন। ছবি: নিউজবাংলা

সংগঠনটির মুখপাত্র শুভ দাস জানান, তাদের একটি ফান্ড আছে। সেখানে এলাকার বিত্তবানরা অনুদান দেন। সেই ফান্ডের টাকার সঙ্গে নিজেরা কিছু টাকা মিলিয়ে কিনেছেন আটা ও মাস্ক। ৩৫০টি পরিবারের মাঝে প্রতি কেজি ১ টাকায় এই আটা বিতরণ করেন।

২৪ জুন ছিল আর্জেন্টিনার অধিনায়ক, বিশ্ব বরেণ্য ফুটবলার লিওনেল মেসির জন্মদিন। বিশ্বজুড়ে তার অসংখ্য ভক্ত নানা ভাবে এই দিনটি পালন করেছেন। তবে ভিন্নতা ছিল চুয়াডাঙ্গায়।

চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদার দাসপাড়ায় ‘১৫ মেসি ভক্ত দামুড়হুদা’ নামের একটি সংগঠনের সদস্যরা অসহায় ও দুস্থদের মাঝে বিতরণ করেছেন আটা ও মাস্ক।

এই আটা নিতে যেন কারো মাঝে সংকোচ কাজ না করে সে কারণে প্রতি কেজি আটার বিনিময়ে নেয়া হয়েছে ১ টাকা।

এরপর সামাজিক দূরত্ব মেনে কেটেছেন মেসির জন্মদিনের কেক।

সংগঠনটির মুখপাত্র শুভ দাস নিউজবাংলাকে জানান, এ বছর মেসির জন্মদিনে ৩৪ পাউন্ড কেক কাটার কথা ছিল। কিন্তু লকডাউনের কারণে তা হয়নি।

তাদের একটি ফান্ড আছে। সেখানে এলাকার বিত্তবানরা অনুদান দেন। সেই ফান্ডের টাকার সঙ্গে নিজেরা কিছু টাকা মিলিয়ে কিনেছেন আটা ও মাস্ক। ৩৫০টি পরিবারের মাঝে প্রতি কেজি ১ টাকায় এই আটা বিতরণ করেন।

শুভর আশা আগামী বছর শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়ামে বড় আয়োজন করে তারা মেসির জন্মদিন উদযাপন করবেন।

গত বছর এই ভক্তরাই মেসির জন্মদিন পালন করতে গিয়ে জরিমানা দিয়েছিলেন।

মেসির জন্মদিনে ১ টাকায় আটা

দামুড়হুদা বাসস্ট্যান্ড এলাকায় ওল্ড টাউন কফি হাউসে তারা যখন হইচই করে জন্মদিন উদযাপন করছিলেন তখন ওই এলাকায় ছিল জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ফিরোজ নেতৃত্বে সেনাবাহিনীর একটি টহল দল।

ভ্রাম্যমাণ আদালত ১৫ জনকে ১০০ টাকা করে জরিমানা করে। একই সঙ্গে দোকান খোলা রাখার জন্য দোকানদারকে করা হয় ছয় হাজার টাকা জরিমানা।

বিষয়টি নিয়ে দেশি ও বিদেশি বিভিন্ন গণমাধ্যমে হয়েছিল নানা রকম সমালোচনা।

আরও পড়ুন:
১২ দিন ‘ঘরবন্দী’ থেকে কাতারে ইব্রাহিম
ডিফেন্স সামলে কাউন্টার অ্যাটাকে শান দিচ্ছেন জেমি
বিকেলে দুটি ও রাতে এক ম্যাচ খেলবে জামালরা
৪৪ ডিগ্রি গরমে জামালদের অনুশীলন শুরু
কাতারে কোভিড পরীক্ষায় উত্তীর্ণ জামাল-তপুরা

শেয়ার করুন

ব্রাজিল ম্যাচের রেফারিকে নিষিদ্ধের দাবি কলম্বিয়ার

ব্রাজিল ম্যাচের রেফারিকে নিষিদ্ধের দাবি কলম্বিয়ার

ব্রাজিলের বিপক্ষে গায়ে বল লাগা নিয়ে রেফারি নেস্তর পিতানা সঙ্গে তর্ক করছেন কলম্বিয়ার ফুটবলাররা। ছবি: এএফপি

গোলের আগমুহুর্তে ব্রাজিলিয়ান স্ট্রাইকারের শটের বল গায়ে লাগে আর্জেন্টাইন রেফারি ২০১৮ সালের বিশ্বকাপ ফাইনাল পরিচালনাকারী নেস্তর পিতানার। এতে খেলা থামিয়ে দেয় কলম্বিয়ান ফুটবলাররা। কিন্তু খেলা চালিয়ে যাবার নির্দেশ দেন রেফারি।

কোপা আমেরিকায় ব্রাজিলের বিপক্ষে ম্যাচে দায়িত্বপ্রাপ্ত রেফারিকে নিষিদ্ধ করার দাবী জানিয়েছে কলম্বিয়ান ফুটবল ফেডারেশন (এফসিএফ)। ওই ম্যাচে স্বাগতিক ব্রাজিলের কাছে ২-১ গোলে পরাজিত হয় কলম্বিয়া। তাদের দাবি গায়ে বল লাগার পরও ম্যাচটি বন্ধ না করে পক্ষপাতিত্ব করেছেন রেফারি।

গোলের আগমুহুর্তে ব্রাজিলিয়ান স্ট্রাইকারের শটের বল গায়ে লাগে আর্জেন্টাইন রেফারি ২০১৮ সালের বিশ্বকাপ ফাইনাল পরিচালনাকারী নেস্তর পিতানার। এতে খেলা থামিয়ে দেয় কলম্বিয়া। কিন্তু খেলা চালিয়ে যাবার নির্দেশ দেন রেফারি। যার সুবাদে ব্রাজিলের হয়ে সমতা সুচক গোল করেন রবার্তো ফিরমিনো।

রেফারির সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে বাক বিতান্ডায় জড়িয়ে পড়েন কলম্বিয়ান ফুটবলাররা। ভিডিও অ্যাসিস্টেন্টের সহায়তা নিয়ে বিষয়টি প্রত্যাখ্যান করেন ও খেলা চালিয়ে যাবার নির্দেশ দেন পিতানা। অতিরিক্ত ১০ মিনিটের ম্যাচে নেইমারের কর্নারের ক্রসের বল কাসেমিরো হেড করে ফের কলম্বিয়ার জালে জড়ান। এতেই ২-১ গোলের ব্যবধানে পরাজয় নিশ্চিত হয় কলম্বিয়ার।

এর আগে ম্যাচের ১০ম মিনিটে গোল করে কলম্বিয়াকে এগিয়ে দেন পোর্তো উইঙ্গার লুইস দিয়াস। বিতর্কিত ওই রেফারিকে নিষিদ্ধ করার জন্য দক্ষিন আমেরিকান ফুটবলের নিয়ন্ত্রক সংস্থা কনমেবলের প্রতি আহ্বান জানায় কলম্বিয়ান ফুটবল ফেডারেশন।

বৃহস্পতিবারের ম্যাচে পিতানা ও ভিএআর এর মধ্যে কথোপোকথনের রেকর্ডটি জনসমক্ষে প্রচারের অস্বাভাবিক একটি পদক্ষেপ গ্রহন করেছে সংস্থাটি।

তারা জানায় সেটি এমন একটি গুরুত্বপুর্ন ঘটনা ছিলনা, যে কারণে খেলা থামিয়ে দিতে হবে। ম্যাচে হারার পরও স্বাগতিক ব্রাজিলের পাশাপাশি টুর্নামেন্টের কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছে কলম্বিয়া।

আরও পড়ুন:
১২ দিন ‘ঘরবন্দী’ থেকে কাতারে ইব্রাহিম
ডিফেন্স সামলে কাউন্টার অ্যাটাকে শান দিচ্ছেন জেমি
বিকেলে দুটি ও রাতে এক ম্যাচ খেলবে জামালরা
৪৪ ডিগ্রি গরমে জামালদের অনুশীলন শুরু
কাতারে কোভিড পরীক্ষায় উত্তীর্ণ জামাল-তপুরা

শেয়ার করুন

বলিভিয়াকে হারিয়ে শেষ আট নিশ্চিত উরুগুয়ের

বলিভিয়াকে হারিয়ে শেষ আট নিশ্চিত উরুগুয়ের

বলিভিয়ার বিপক্ষে গোল করার পর এডিনসন কাভানির উদযাপন। ছবি: এএফপি

বলিভিয়াকে ২-০ গোলে হারিয়ে শেষ আট নিশ্চিত করেছে সুয়ারেস-কাভানিরা। দলের হয়ে এক গোল করেন এডিনসন কাভানি। আরেকটি গোল আত্মঘাতী।

কোপা আমেরিকার কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছে উরুগুয়ে। বলিভিয়াকে ২-০ গোলে হারিয়ে শেষ আট নিশ্চিত করেছে সুয়ারেস-কাভানিরা। দলের হয়ে এক গোল করেন এডিনসন কাভানি। আরেকটি গোল আত্মঘাতী।

আর্জেন্টিনার কাছে হেরে টুর্নামেন্ট শুরু করা উরুগুয়ে, বলিভিয়ার বিপক্ষে শুরু করে সাবধানে। ধীরে ধীরে নিজেদের ছন্দ খুঁজে পেলেও গোলের দেখা পাচ্ছিল না টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ ১৫ বারের জয়ী দলটি।

ডেডলক ভাঙে ৪০ মিনিটে। হাইরো কিনতেরোসের আত্মঘাতী গোলে এগিয়ে যায় উরুগুয়ে।

উরুগুয়ের মিডফিল্ডার শোরশান আরাসকেতা ডান প্রান্ত থেকে ক্রস বাড়িয়েছিলেন বলিভিয়ার বক্সে থাকা কাভানি ও লুইস সুয়ারেসের উদ্দেশে। বল বিপদমুক্ত করতে গিয়ে নিজেদের জালের জড়িয়ে দেন কিনতেরোস।

ওই এক গোলের লিড নিয়ের প্রথমার্ধ শেষ করে উরুগুয়ে।

ম্যাচের ফল নিশ্চিত করতে কিছুটা সময় নিয়ে নেয় সেলেস্তেরা। ৭৯ মিনিটে দলের দ্বিতীয় গোল করে তিন পয়েন্ট নিশ্চিত করেন কাভানি।

বাম প্রান্ত থেকে ফাকুন্দো তরেসের ক্রসে বক্সের ভেতর থেকে নিঁখুতভাবে প্লেস করেন ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের এই অভিজ্ঞ স্ট্রাইকার।
বাকি সময়ে ম্যাচে আর ফিরতে পারেনি বলিভিয়া। টুর্নামেন্টে নিজের প্রথম জয় পায় উরুগুয়ে।
রাতের আরেক ম্যাচে চিলিকে ২-০ গোলে হারিয়ে চমক দিয়েছে প্যারাগুয়ে। গ্রুপ-এতে দুই উঠে এসেছে তারা।
গ্রুপে এখনও শীর্ষস্থান আর্জেন্টিনার। তিন ম্যাচে সাত পয়েন্ট নিয়ে সবার ওপরেই আছে লিওনেল মেসির দল। দুইয়ে থাকা প্যারাগুয়ের সংগ্রহ সমান ম্যাচে ৬।
উরুগুয়ে আছে টেবিলের চারে। তিন ম্যাচ থেকে তাদের ঝুলিতে আছে চার পয়েন্ট। মঙ্গলবার সকালে তারা নিজেদের শেষ গ্রুপ ম্যাচে প্যারাগুয়ের মুখোমুখি হবে।
দুই গ্রুপ থেকে চারটি করে দল সরাসরি খেলবে কোয়ার্টার ফাইনালে। বি-গ্রুপ থেকে শেষ আট নিশ্চিত হয়েছে ব্রাজিল, কলম্বিয়া ও পেরুর।
২৮ ও ২৯ জুন শেষ হচ্ছে কোপা আমেরিকার গ্রুপ পর্বের খেলা। ৩ ও ৪ জুলাই হবে কোয়ার্টার ফাইনালের চার ম্যাচ।
৬ ও ৭ জুলাই হবে দুই সেমিফাইনাল। ১০ জুন হবে তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচ। আর ঐতিহাসিক মারাকানায় ফাইনাল ১১ জুলাই।

আরও পড়ুন:
১২ দিন ‘ঘরবন্দী’ থেকে কাতারে ইব্রাহিম
ডিফেন্স সামলে কাউন্টার অ্যাটাকে শান দিচ্ছেন জেমি
বিকেলে দুটি ও রাতে এক ম্যাচ খেলবে জামালরা
৪৪ ডিগ্রি গরমে জামালদের অনুশীলন শুরু
কাতারে কোভিড পরীক্ষায় উত্তীর্ণ জামাল-তপুরা

শেয়ার করুন

মেসি না ম্যারাডোনা: সেরা কে?

মেসি না ম্যারাডোনা: সেরা কে?

ছবি: সংগৃহীত

এই প্রশ্নের সমাধানে আসা শুধু কঠিনই নয় অসম্ভবও বটে। তবে বিতর্কটি ফেলে দেয়া যায় না। আধুনিক ফুটবল কিংবদন্তির ৩৪ তম জন্মদিনে সেটারই বিশ্লেষণ করার চেষ্টা করা যাক।

ফুটবলের সহস্র রেকর্ডের বরপুত্র লিওনেল মেসিকে দীর্ঘদিন যাবতই তুলনা করা হয় ফুটবল ঈশ্বর ডিয়েগো ম্যারাডোনার সঙ্গে। নিজেকে এমন উচ্চতায় নিয়েছেন বলেই এলিট ক্লাবে পেলের সারিতে থাকা ম্যারাডোনার সঙ্গে উচ্চারিত হয় তার নামও। তবে যদি বলা হয় এই দুজনের মধ্যে কে সেরা?

এই প্রশ্নের সমাধানে আসা শুধু কঠিনই নয় অসম্ভবও বটে। তবে বিতর্কটি ফেলে দেয়া যায় না। আধুনিক ফুটবল কিংবদন্তির ৩৪ তম জন্মদিনে সেটারই বিশ্লেষণ করার চেষ্টা করা যাক।

পরিসংখ্যানে কে এগিয়ে?

যদি শুধু গোলের হিসেব বা ট্রফি হিসেব করা হয় তাহলে ম্যারাডোনাকে ছাড়িয়ে যাবেন মেসি। ক্লাব ও জাতীয় দলের জার্সিতে ইতোমধ্যে ৭০০-এর উপরে গোল করেছেন যেখানে ম্যারাডোনার গোলসংখ্যা ৩৪৫-এ থেমে গেছে। মেসি ১০টি লিগ শিরোপার পাশাপাশি চারবার চ্যাম্পিয়নস লিগের ট্রফি জিতেছেন। অন্যদিকে ম্যারাডোনা তিনবার লিগ টাইটেল জেতার পাশাপাশি একটি ইউয়েফা কাপ জেতেন। মেসির ঝুলিতে যেখানে ইতিহাসের সর্বোচ্চ ছয়টি ব্যালন ডর, সেখানে ম্যারাডোনার শূন্য। বলে রাখা ভালো, এই পুরস্কারটি ইউরোপের বাইরের ফুটবলারদের দেয়া শুরু হয় ১৯৯১ সাল থেকে।

ম্যারাডোনাকে টপকে গেছে মেসি?

এতো সহজ নয়। ফুটবলের মাহাত্ম শুধু গোলের হিসেব আর ট্রফির ধাচে পরিমাপ করা কঠিন। প্রথমত, ১৯৮০ সাল ও ৯০-এর প্রথম দিকের ফুটবলটা একেবারে ভিন্ন ছিল এখন থেকে। তখন অতি-ডিফেন্সিভ খেলা হতো প্রচুর কিন্তু এর মাঝেও মাঠে ব্রাজিলের শৈল্পিক ফুটবল দেখেছে বিশ্ব, যেখানে রক্ষণাত্মক ফুটবলের পাশাপাশি গোলের বন্যা দেখা গেছে। তখন ইতালি ফুটবলের রাজধানী ছিল বলা চলে। মিশেল প্লাতিনি, জিকো, রুড খুলিত, মার্কো ফন বাস্টেন ও ফ্রাঙ্ক রাইকার্ডের মতো বিশ্বসেরারা সেরি আ মাতাতেন।

ম্যারাডোনা সেই লিগে রেলিগেশন শঙ্কায় থাকা নাপোলিতে যোগ দেন ১৯৮৪ সালে। সেখানে ইতালির দলটিকে সেরাদের কাতারে নিয়েছেন নিজের দক্ষতায়। এই দলটাকে ১৯৮৬-৮৭ মৌসুমে লিগ শিরোপা জেতান ম্যারাডোনা। আন্ডারডগ দল হিসেবে এসি মিলান ও ইউভেন্তাসের মতো বিশ্বসেরা দলের বিপক্ষে নাপোলিকে একটা কঠিন প্রতিপক্ষ হিসেবে দাঁড় করান।

অন্যদিকে মেসি যখন বার্সেলোনায় খেলেছেন তখন দলের পোস্টার বয় ছিলেন। তাকে একাই দলটাকে কাঁধে বইয়ে আনতে হয়নি। কার্লোস পুয়োল থেকে আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা, চাভি এরনান্দেস, নেইমার ও লুইস সুয়ারেসের মতো বিশ্বসেরা ফুটবলার পাশে পেয়েছেন আর্জেন্টাইন মেগাস্টার।

মেসি না ম্যারাডোনা: সেরা কে?
নাপোলির অধিনায়ক হিসেবে ইউয়েফা কাপ ট্রফি হাতে ডিয়েগো ম্যারাডোনা। ছবি: টুইটার

যখন ম্যারাডোনা খেলেছেন তখন ফুটবল এতোটাই ডিফেন্সিভ ছিল যে ফিফাকে ‘গো ফর গোলস’ নামে একটা ক্যাম্পেইন করতে হয়েছিল। সেরি আয় ১৯৮৬-৮৭ মৌসুমের এক পরিসংখ্যানের মতে ম্যাচ প্রতি গোলের হার ১.৯৩। যেখানে পেপ গার্দিওলার কোচিংয়ে মেসির প্রথম মৌসুমে লা লিগায় গোলের হার ছিল ২.৯০। প্রতি ম্যাচে প্রায় তিনটি করে গোল। ইয়োহান ক্রইফের মতাদর্শে গড়া দর্শনে বার্সেলোনা ওই জেনারেশনের কিছু বিশ্বসেরা ফুটবলারদের পাশে পান মেসি।

কে বেশি কঠিন পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে সফলতা পেয়েছেন?

ম্যারাডোনার শৈশব কেটেছে কঠিন দারিদ্রতার মধ্যে। বুয়েনোস আইরেসের উপকণ্ঠে ভিয়া ফিওরিতা বস্তিতে কঠিন বাস্তবতার মধ্যে বেড়ে ওঠেন তিনি। ১৯৭৬ সালে যখন তিনি তরুণ তখন দেশের সামরিক অভ্যুত্থান দেখেন। ১৯৭০ ও ৮০ সালের শেষদিকে দেশের ভঙ্গুর আর্থ-সামাজিক পরিস্থিতির মধ্যে বড় হন ম্যারাডোনা। সেসময় আর্জেন্টিনার মাথাপিছু আয় কমে দাঁড়িয়েছিল ২০ সেন্টে। ১৯৮২ সালের ইংল্যান্ড-আর্জেন্টিনার লড়া মালভিনাস যুদ্ধ দাগ কেটে যায় ২২ বছরের ডিয়েগোর মনে।

অন্যদিকে অর্থকষ্টে বেড়ে উঠলেও, ১৩ বছর বয়সে নিজের পরিবেশ পালটে ফেলেন মেসি। চলে আসেন বার্সেলোনায়। এটাও ঠিক যে মেসির গ্রোথ হরমোনের জটিলতা দূর করার জন্য প্রয়োজনীয় চিকিৎসার অর্থের কারণেই বার্সেলোনায় মেসিকে ভর্তি করায় তার পরিবার।

ফুটবলের নিয়ম কি মেসিকে বেশি সহায়তা করেছে?

মাঠের মধ্যে ম্যাচ অফিসিয়ালদের কাছে খুব কম নিরাপত্তা পেতেন ম্যারাডোনা। ক্যারিয়ারে বেশ বড় বড় ইনজুরির মধ্য দিয়ে যেতে হয়েছে তাকে। ইতালি ডিফেন্ডার ক্লদিও জেনটিলের রাগবি ট্যাকল বা ‘বিলবাওয়ের কসাই’ খ্যাত আন্দোনি গয়কোচেয়ার ট্যাকলে একেবারে ক্যারিয়ারই শেষ হয়ে যেতে পারত ম্যারাডোনার।

মেসি তার সময়ে ম্যাচ অফিসিয়ালদের কাছ থেকে ম্যারাডোনার সময় থেকে অনেক বেশি সুবিধা পেয়েছেন। ১৯৯৮ সালের বিশ্বকাপে ফিফা একটি নতুন নিয়ম চালু করে যেখানে বলা হয়, ‘পেছন থেকে ট্যাকেল করলে খেলোয়াড়ের নিরাপত্তার জন্য হুমকি। এটা বড় ফাউল হিসেবে ধরা হবে। লাল কার্ড দেয়ার নিয়ম করা হয়েছে।’ এর পরে খেলোয়াড়দের জন্য আরও কম নির্মম হয়ে ওঠে খেলাটা।

অন্যদিকে ম্যারাডোনা প্রযুক্তির যুগে খেলেননি। যে সময়ে সফটও্যয়ার ব্যবহার করে লিওনেল মেসির হাজারও টাচ ও ড্রিবল বিশ্লেষণ করে তার পরবর্তী মুভমেন্ট সম্পর্কে আগে থেকেই সচেতন হতে পারছে বিশ্ব। আর ফুটবলও ট্যাকটিক্যালি এতটা নিঁখুত হয়ে ওঠেনি ম্যারাডোনার সময়ে। মেসির মতো সর্বোচ্চ পর্যায়ের ফুটবলারদের বল পায়ে দক্ষতার পাশাপাশি এখন অনেক বেশি প্রয়োজন 'গেম প্লে অ্যাওয়্যারনেস'।

মেসি না ম্যারাডোনা: সেরা কে?
বার্সার হয়ে চার বার চ্যাম্পিয়নস লিগ জেতা লিওনেল মেসি

কার প্রভাব বেশি পড়েছে বিশ্বে?

১৯৮৬ সালে মেক্সিকোতে যখন বিশ্বকাপটা হচ্ছিল তখন অনেক বিগ্রহের মধ্য দিয়ে যাচ্ছিল আর্জেন্টিনা। ইংল্যান্ডের কাছে মালভিনাস যুদ্ধে হেরে মানসিকভাবে বিধ্বস্ত দেশটি। এই অবস্থায় আর্জেন্টিনাকে একাই কাঁধে করে বিশ্বকাপ জেতানোর সঙ্গে বোনাস হিসেবে সেই ইংল্যান্ডকে জোড়া গোলে হারানোর প্রভাব ছিল অনেক বড়। সঙ্গে নাপোলিকে একা ঘাড়ে নিয়ে বিশ্বকাতারে তোলা, ওই শহরের মানুষদের বহিঃর্বিশ্বের সামনে তুলে ধরাও ছিল অনেক বড় চ্যালেঞ্জ।

সেই হিসেবে মেসি অনেক বেশি সুসজ্জ্বিত ব্যক্তিজীবনে। বিশ্বসেরার আসনে থাকার যে ধারাবাহিকতা মেসি দেখিয়েছেন এক যুগেরও সময় বেশি ধরে। সেটাই আসলে আলোচনায় নিয়ে এসেছে। সেই তুলনায় ম্যারাডোনা শিখরে ছিলেন ছিলেন ছয় কি সাত বছর। কিন্তু মেসির উজ্জল ক্যারিয়ারে ওই একটাই অধরা তাহল বিশ্বকাপ।

ম্যারাডোনা তার ক্যারিয়ারে ১৯৮৬ সালের বিশ্বকাপে গোল্ডেন বল জেতেন। মেসিও ২০১৪ সালে তা জেতেন। কিন্তু ফাইনালে এসেই সব খেই হারিয়েছেন মেসি। যেখানে ১৪৭ ম্যাচে মেসি করেছেন ৭৩টি গোল সেখানে পজিশনের হিসেবে আরও নিচে খেলে ৯১ ম্যাচে ৩৪ গোল করেছেন ম্যারাডোনা। কিন্তু তিন বিশ্বকাপে নক আউট পর্বে কোনো গোল আদায় করতে পারেননি মেসি।

বিশ্বকাপ জেতাই কি সেরার নির্ধারক?

এ নিয়ে বিতর্কের সুযোগ রয়েছে। আলফ্রেড দি স্টেফানো ও ইয়োহান ক্রইফের মতো সর্বকালের ফুটবলার কখনও বিশ্বকাপ খেলেননি কিন্তু তাতে তাদের মাহাত্ম্য কমেনি । অধিকাংশ ফুটবলার যদিও বিশ্বকাপ জেতাটাকেই সেরা মানার ক্ষেত্রে এগিয়ে রাখেন। তবে ম্যারাডোনা নিজেও মেসিকে নিয়ে বলেছিলেন, ‘বিশ্বের সেরা খেলোয়ার হওয়ার জন্য মেসিকে বিশ্বকাপ জিতার প্রয়োজন নাই।’

আরও পড়ুন:
১২ দিন ‘ঘরবন্দী’ থেকে কাতারে ইব্রাহিম
ডিফেন্স সামলে কাউন্টার অ্যাটাকে শান দিচ্ছেন জেমি
বিকেলে দুটি ও রাতে এক ম্যাচ খেলবে জামালরা
৪৪ ডিগ্রি গরমে জামালদের অনুশীলন শুরু
কাতারে কোভিড পরীক্ষায় উত্তীর্ণ জামাল-তপুরা

শেয়ার করুন

জেমির চাওয়া পূরণ করতে চায় বাফুফে

জেমির চাওয়া পূরণ করতে চায় বাফুফে

ছবি: বাফুফে

ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আবু নাইম সোহাগ বলেন, ‘জেমির চাওয়া ছিল ভালো প্রস্তুতি। আমরা তিনটা যে ফিফা উইন্ডো আছে, সেটা ব্যবহার করতে চাই। খেলোয়াড়দের ম্যাচের মধ্যে রাখা। আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতার মধ্যে রাখার মাধ্যমে জাতীয় দলের প্রস্তুতির কাজটা সেরে রাখব।’

এশিয়ান কাপের চূড়ান্ত বাছাইয়ে নামার আগে ভালো প্রস্তুতি নিতে চান জাতীয় দলের প্রধান কোচ জেমি ডে। আগামী বছরের ফেব্রুয়ারিতে চূড়ান্ত পর্ব শুরু। হাতে আছে প্রায় সাত মাস।

তার আগে আগামী তিন ফিফা উইন্ডেতে অন্তত ছয়টি আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচ খেলতে চান এই ইংলিশ টেকটেশিয়ান।

জেমির পরিকল্পনা আমলে নিয়ে জাতীয় দলের প্রস্তুতির জন্য এই কোচের চাওয়া পূরণ করতে চায় বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে)।

বৃহস্পতিবার নিউজবাংলাকে ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আবু নাইম সোহাগ বলেন, ‘জেমির চাওয়া ছিল ভালো প্রস্তুতি। আমরা তিনটা যে ফিফা উইন্ডো আছে, সেটা ব্যবহার করতে চাই। খেলোয়াড়দের ম্যাচের মধ্যে রাখা। আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতার মধ্যে রাখার মাধ্যমে জাতীয় দলের প্রস্তুতির কাজটা সেরে রাখব।’

বার্ষিক ছুটি কাটাতে জেমি এখন ইংল্যান্ডে ফিরে গেছেন। যাওয়ার আগে বাফুফের সঙ্গে কয়েক দফার বৈঠক করে গেছেন এই কোচ। প্রতিপক্ষ হিসেবে একটা ক্যাটাগরি সেট করে গেছেন তিনি।

সোহাগ ব্যাখ্যা দেন, ‘আমাদের আশপাশে ও ১৫০ র‌্যাঙ্কিংয়ের এর আশপাশে যারা রয়েছে তাদের বিপক্ষে খেলার ইচ্ছাও জেমিরা জানিয়েছেন। আমাদের থেকে বেশি র‌্যাঙ্কে যারা আছে তাদের সঙ্গে খেলার ইচ্ছার কথা জানিয়েছেন। এই বিষয়টা বিবেচনায় থাকছে।’

জাতীয় দলের প্রস্তুতির জন্য আগস্টের শেষ দিকে ক্যাম্প শুরু করার প্রাথমিক পরিকল্পনা করছে বাফুফে।

সোহাগ বলেন, ‘১৮ আগস্ট থেকে ২৪ আগস্ট এএফসি কাপের খেলা। তার পূর্বে ১৫ আগস্ট একটা কোয়ালিফায়ার্স খেলা আছে। এর আগে জাতীয় দলের প্রস্তুতি শুরু হতে পারে। জেমি ডে আসতে পারে। আবার সেপ্টেম্বরের ফিফা উইন্ডো কাজে লাগে আগস্টের শেষদিকে ক্যাম্প শুরুর প্রাথমিক ভাবনা রয়েছে।’

এদিকে জাতীয় দলের প্রস্তুতির জন্য সেপ্টেম্বরে সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ আয়োজনের ব্যাপারে পরিকল্পনা করছে ফেডারেশন। তবে, ভেন্যু নিয়ে জটিলতা রয়েছে। ওই সময়ে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামের আধুনিকায়নের কার্যক্রম চলবে।

বিষয়টি নিয়ে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে আলোচনা করে ভেন্যু চূড়ান্ত করা হবে বলে জানালেন বাফুফের সাধারণ সম্পাদক।

সোহাগ বলেন, ‘যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী ও বাফুফের সঙ্গে আলোচনা করে মূল ভেন্যুর ব্যাপারে আমরা আলোচনা করব। সবাইকে জানিয়েছিল বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে হবে। বাট পরিস্থিতি সাপেক্ষে ভেন্যুটি আসলে অন্য কোথাও নিয়ে যাব কি না তা নিয়ে আলোচনা করব।’

আরও পড়ুন:
১২ দিন ‘ঘরবন্দী’ থেকে কাতারে ইব্রাহিম
ডিফেন্স সামলে কাউন্টার অ্যাটাকে শান দিচ্ছেন জেমি
বিকেলে দুটি ও রাতে এক ম্যাচ খেলবে জামালরা
৪৪ ডিগ্রি গরমে জামালদের অনুশীলন শুরু
কাতারে কোভিড পরীক্ষায় উত্তীর্ণ জামাল-তপুরা

শেয়ার করুন

মেসির গেঞ্জিতে চে গুয়েভারা কীভাবে?

মেসির গেঞ্জিতে চে গুয়েভারা কীভাবে?

চে গুয়েভারার মুখায়বের গেঞ্জিসহ মেসির ছবিটি তৈরি করা হয়েছে ফটোশপের সাহায্যে। মেসির মূল ছবিটি ২০০৭ সালের ১০ মার্চ তোলা। ওই দিন ১৯ বছরের মেসি বার্সেলোনার পক্ষে প্রথম হ্যাট্রিক করেন। সেই ম্যাচে দ্বিতীয় গোল করার পর উচ্ছ্বসিত মেসির ছবিটি তোলেন এএফপির ফটো সাংবাদিক সেসার রানহেল।

আর্জেন্টিনার ফুটবল তারকা লিওনেল মেসির জার্সি উঁচিয়ে উচ্ছ্বাস প্রকাশের একটি ছবি ভাইরাল হয়েছে ফেসবুকে। এতে দেখা যায় জার্সির নিচে মেসি কিউবার বিপ্লবী কমিউনিস্ট নেতা চে গুয়েভারার মুখায়ব ছাপানো একটি গেঞ্জি পরেছেন।

বাংলাদেশে মেসিভক্ত অনেকেই শেয়ার করেছেন ছবিটি। দেশের বাইরেও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এটি শেয়ার হচ্ছে।

ফুটবল তারকা লিওনেল মেসি ও কমিউনিস্ট নেতা চে গুয়েভারার জন্ম আর্জেন্টিনায়। করোনাভাইরাসের মহামারি ঠেকাতে গত বছর লকডাউনের সময়ে মেসি ঘোষণা দেন বার্সেলোনার খেলোয়াড়রা ৭০ শতাংশ বেতন ছাঁটাইয়ে রাজি। বেঁচে যাওয়া এই অর্থ ক্লাব কর্মচারীদের জন্য ব্যয় হবে।

এই ঘোষণার পর ইউরোপের সংবাদ মাধ্যমে মেসিকে ভূয়সী প্রশংসা করা হয়। ফরাসি সংবাদপত্র লেকিপ তাকে চে গুয়েভারার সঙ্গে তুলনা করে। এরপর ১৪ জুন চে গুয়েভারার জন্মবর্ষিকীতে আলোচিত ছবিটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়।

কেউ কেউ ছবিটি ফেসবুকে পোস্ট করে ক্যাপশনে লেখেন, ‘মেসির বুকে বিপ্লবী চে। ছবি: কালেক্টেড।’

মেসিকে জন্মদিনে শুভেচ্ছা জানাতেও অনেকে শেয়ার করেছেন ছবিটি।

মেসির গেঞ্জিতে চে গুয়েভারা কীভাবে?
মেসির এমন একটি ছবি ভাইরাল হয়েছে ফেসবুকে

তবে চে গুয়েভারার মুখায়বের গেঞ্জিসহ মেসির ছবিটি তৈরি করা হয়েছে ফটোশপের সাহায্যে। মেসির মূল ছবিটি ২০০৭ সালের ১০ মার্চ তোলা।

ওই দিন ১৯ বছরের মেসি বার্সেলোনার পক্ষে প্রথম হ্যাট্রিক করেন। সেই ম্যাচে দ্বিতীয় গোল করার পর উচ্ছ্বসিত মেসির ছবিটি তোলেন এএফপির ফটো সাংবাদিক সেসার রানহেল

ছবির ক্যাপশনে লেখা হয়, ‘বার্সেলোনার লিওনেল মেসি কাম্প ন্যু স্টেডিয়ামে ১০ মার্চ ২০০৭ স্প্যানিশ লিগের ফুটবল ম্যাচে রিয়াল মাদ্রিদের বিপক্ষে দ্বিতীয় গোল করার পর উচ্ছ্বসিত।’

মেসির গেঞ্জিতে চে গুয়েভারা কীভাবে?
মেসির আলোচিত ছবিটি প্রকৃতপক্ষে ২০০৭ সালের ১০ মার্চ এএফপির তোলা

এফসি বার্সেলোনা তাদের ইউটিউব চ্যানেলে ওই ম্যাচের একটি ভিডিও আপলোড করে যার ক্যাপশন ছিল, ‘দ্য ফার্স্ট অফ মেনি: মেসি’স ডেব্যু হ্যাটট্রিক ফর বার্সেলোনা।’

ভিডিওটির ৯ সেকেন্ডের সময়ে গোল করার পর মেসিকে তার জার্সি তুলে উল্লাস প্রকাশ করতে দেখা যায়। আর সেই সময়ে তোলা আলোকচিত্র ফটোশপে এডিট করে গেঞ্জিতে যোগ করা হয়েছে চে গুয়েভারার মুখের ছবি।

আরও পড়ুন:
১২ দিন ‘ঘরবন্দী’ থেকে কাতারে ইব্রাহিম
ডিফেন্স সামলে কাউন্টার অ্যাটাকে শান দিচ্ছেন জেমি
বিকেলে দুটি ও রাতে এক ম্যাচ খেলবে জামালরা
৪৪ ডিগ্রি গরমে জামালদের অনুশীলন শুরু
কাতারে কোভিড পরীক্ষায় উত্তীর্ণ জামাল-তপুরা

শেয়ার করুন