সৌদি আরব যাওয়া নিয়ে শঙ্কায় ফুটবল দল

সোমবার অনুশীলনে বাংলাদেশ দল। ছবি: বাফুফে

সৌদি আরব যাওয়া নিয়ে শঙ্কায় ফুটবল দল

সৌদি আরবে স্বাস্থ্যবিধি হিসেবে ১০ দিনের কোয়ারেন্টিন পর্ব পালন করার বাধ্যবাধকতা আছে। তাতে কাতার মিশন জটিলতার মধ্যে পড়তে হতে পারে বাংলাদেশের। 

কাতারে বিশ্বকাপ ও এএফসি এশিয়ান কাপ বাছাইয়ের ম্যাচ খেলতে বাংলাদেশ দল পৌঁছাবে জুনের শুরুতে।

সেখানে ৩ জুন বাংলাদেশ প্রথম ম্যাচ খেলবে আফগানিস্তানের সঙ্গে। ৭ জুন ভারতের সঙ্গে ও টুর্নামেন্টে নিজেদের শেষ ম্যাচে ১৫ জুন বাংলাদেশ লড়বে ওমানের বিপক্ষে।

কাতারে যথাযথ প্রস্তুতি নেয়ার সময় না থাকায় সেখানে পৌঁছানোর আগে সৌদি আরবে গিয়ে প্রস্তুতি সারার কথা ছিল বাংলাদেশ দলের।

সৌদি আরবে স্বাস্থ্যবিধি হিসেবে ১০ দিনের কোয়ারেন্টিন পর্ব পালন করার বাধ্যবাধকতা আছে। তাতে কাতার মিশন জটিলতার মধ্যে পড়তে হতে পারে বাংলাদেশের।

সেজন্য সেই কোয়ারেন্টিনের মেয়াদ কমিয়ে সোমবার সৌদি আরবের উদ্দেশে রওনা দেয়ার কথা ছিল বাংলাদেশ দলের। কিন্তু সেটি হয়নি, বরং সোমবার সকালে অনুশীলন করে বাংলাদেশ দল।

সৌদি আরবে কোয়ারেন্টিন কমানোর বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত না পাওয়ায়ই যাওয়া হয়নি বাংলাদেশের।

মঙ্গলবারের মধ্যে সৌদি আরব না গেলে সেখানে একেবারে না যাওয়ার সম্ভাবনাই বেশি। কারণ সেখানে গিয়ে কোয়ারেন্টিন শেষে প্রস্তুতির যে সময় পাওয়া যাবে তা মোটেও যথেষ্ট হবে না। তার চেয়ে দেশের মাটিতে অনুশীলনকেই ভালো ভাবছে বাংলাদেশ দল।

সোমবার সন্ধ্যায় বাংলাদেশ দলের সৌদি আরব যাওয়া নিয়ে বিস্তারিত জানাবে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন।

আরও পড়ুন:
মেহেদী ম্যাজিকে মুক্তিযোদ্ধার প্রথম জয়
পরের মাঠে নয়, ঘরের মাঠে খেলতে চায় বাংলাদেশ
স্কুল ফুটবলে চ্যাম্পিয়ন বাগেরহাট বহুমুখী কলিজিয়েট স্কুল

শেয়ার করুন

মন্তব্য

মেসি জাদুতেও জিতল না আর্জেন্টিনা

মেসি জাদুতেও জিতল না আর্জেন্টিনা

ফ্রি-কিকে গোল করার মুহূর্তে মেসি। ছবি: টুইটার

ব্রাজিলের রিও অলিম্পিক স্টেডিয়ামে নিজেদের প্রথম ম্যাচে চিলির সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করেছে আর্জেন্টিনা।

দুই দুইটি কোপার ফাইনালে যাদের কাছে হেরে ট্রফি জেতা হয়নি, সেই চিলি আবার কোপা আমেরিকার শুরুতে বাধা হয়ে দাঁড়াল আর্জেন্টিনার। লিওনেল মেসির গোলে এগিয়ে গেলেও পরে ড্রয়ের দুঃখ নিয়ে মাঠ ছাড়ে আলবিসিলেস্তেরা।

ব্রাজিলের রিওর অলিম্পিক স্টেডিয়ামে নিজেদের প্রথম ম্যাচে চিলির সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করেছে আর্জেন্টিনা।

ম্যাচের শুরু থেকে বল নিজেদের নিয়ন্ত্রণে রেখে আক্রমণ সাজিয়ে গেছে লিওনেল স্কোলানির শিষ্যরা।

প্রথমার্ধের ১২-১৮ মিনিটে এই ছয় মিনিটে তিন তিনটি সুযোগ হাতছাড়া করে আর্জেন্টিনা। তার একটি ছিল লিড নেয়ার সুবর্ণ সুযোগ। লো সেলসোর ডিফেন্সচেড়া পাস থেকে চিলির গোলকিপার ক্লদিও ব্রাভোকে ওয়ান টু ওয়ানে পেয়ে যান নিকোলাস গঞ্জালেস।

ডি-বক্সের ভেতর থেকে ব্রাভোকেই বিট করতে পারেননি এই ফরোয়ার্ড। আরেকবার হতাশ হয় আকাশী-নীল জার্সিধারীদের সমর্থকরা।

এর মধ্যে আর্জেন্টিনার ইন্টার মিলানের ফরোয়ার্ড লাউতুরো মারতিনেসের একটি শট দারুণভাবে থামিয়ে দেন ব্রাভো। সমতায় চলতে থাকে ম্যাচ।

ঠিক ৩৩ মিনিটে ফ্রি-কিক পায় আর্জেন্টিনা। ডি-বক্সের ঠিক আগে। লিওনেল মেসির জন্য দলকে এগিয়ে নেয়ার সুবর্ণ সুযোগ। এবার হতাশ করেননি খুদে জাদুকর। অনেকটা চিপ শটে বলটাকে দারুণভাবে বাঁকিয়ে ডান বারের কোণ বরাবর পাঠিয়ে দেন মেসি।

অধিনায়কের গোলে ম্যাচে এগিয়ে যাওয়ার উল্লাসে মেতে ওঠে আলবিসেলেস্তেরা।

ম্যাচের ৩৮ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করতে পারতো আর্জেন্টিনা। সিক্স ইয়ার্ডের সামনে থেকে বল জালে জড়াতে ব্যর্থ হোন লাউতারো মার্তিনেস।

এক গোলের স্বস্তি নিয়ে বিরতিতে যায় আর্জেন্টিনা। দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকে মেসিদের চেপে ধরে চিলি।

ম্যাচের ৫৭ মিনিটে ডি-বক্সের ভেতরে দলকে পেনাল্টি এনে দেন আরতুরো ভিদাল। নিজেই পেনাল্টি নেন ভিদাল। তার শট প্রথমবারে থামিয়ে দেন আর্জেন্টিনার গোলকিপার এমিলিয়ানো মার্তিনেস। ফিরতে বলে ভারগাসের হেডে সমতায় ফেরে চিলি।

চিলি ম্যাচের ৬৩ মিনিটে লিড নিয়ে ফেলতে পারতো। বাম প্রান্ত থেকে আসা ক্রসে হেড করেন ভিদাল। তা সরাসরি চলে যায় গোলকিপারের গ্লাভসে।

এরপর ম্যাচ যত গড়িয়েছে গুছিয়ে উঠে আক্রমণ সাজানোর চেষ্টা করছিল লিওনেল স্কালোনির দল। দি মারিয়া বদলি হিসেবে নামার পর খেলার গতি বাড়ে আর্জেন্টিনার। ম্যাচের ৭১ মিনিটে ডি-বক্সের বাইরে থেকে নেয়া মেসির শট রুখে দিয়ে বিপদমুক্ত করেন ব্রাভো।

এরপরে আর গোলের দেখা পায়নি কোনো দলই। গোলশূন্য ড্র নিয়ে মাঠ ছেড়েছে আর্জেন্টিনা ও চিলি। শেষ দুবারের মুখোমুখিতে দুই দলের ম্যাচ ড্রয়ে শেষ হয়েছিল। এবার ৩১ বছরের শিরোপা খরা মেটানোর মিশনে হোঁচট খেয়েই শুরু করতে হয়েছে মেসিদের।

নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে আগামী ১৯ জুন আর্জেন্টিনা খেলবে উরুগুয়ের বিপক্ষে।

আরও পড়ুন:
মেহেদী ম্যাজিকে মুক্তিযোদ্ধার প্রথম জয়
পরের মাঠে নয়, ঘরের মাঠে খেলতে চায় বাংলাদেশ
স্কুল ফুটবলে চ্যাম্পিয়ন বাগেরহাট বহুমুখী কলিজিয়েট স্কুল

শেয়ার করুন

গোল মিসের মিছিলে সুইডেনের সঙ্গে ড্র স্পেনের

গোল মিসের মিছিলে সুইডেনের সঙ্গে ড্র স্পেনের

স্পেনের ডি-বক্সে আরেকটি সুযোগ হাতছাড়া সুইডেনের। ছবি: সংগৃহীত

সেভিয়ায় নিজ মাঠে গ্রুপ ই-এর প্রথম ম্যাচে সুইডেনের সঙ্গে গোলশূন্য ড্র করেছে লুইস এনরিকের দল।

পুরো ম্যাচ দাপট নিয়ে খেলে সুযোগে পর সুযোগ হারিয়ে সুইডেনের কাছে পয়েন্টই খোয়াল তিনবারের ইউরো চ্যাম্পিয়ন স্পেন।

নিজ মাঠ সেভিয়ার এস্তাদিও কার্তুহায় গ্রুপ ই-এর প্রথম ম্যাচে সুইডেনের সঙ্গে গোলশূন্য ড্র করেছে লুইস এনরিকের দল স্পেন।

শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত আধিপত্য নিয়ে খেলে গেছে স্পেন। ৮৫ শতাংশ বল দখল রেখে একের পর এক সুযোগ তৈরি করেছে দলটি। সুইডেন যে একেবারে সুযোগ পায়নি তা নয়। মাঝেমধ্যেই কাউন্টার অ্যাটাকে ঝলক দেখিয়েছে তারা। কিছুটা দুর্ভাগ্যও ছিল তাদের কপালে।

তবে ম্যাচের লাগাম ধরে রেখে আক্রমণ সাজিয়ে যায় স্পেন। প্রথমার্ধের ৩৮ মিনিটে বড় একটি সুযোগ নষ্ট করে স্বাগতিকরা। জর্দি আলবার ক্রস থেকে ডি-বক্সের ভেতরে গোলকিপারকে একা পেয়েও বল বারের বাইরে মেরে দেন আলভারো মোরাতা।

ঠিক তিন মিনিট পরে ভাগ্যের কাছেই বেঁচে যায় স্পেন।

বলা যায় দুর্ভাগ্য সুইডেনের। মাঝমাঠ থেকে বল পেয়ে এক ডিফেন্ডারকে ড্রিবলিং করে বল নিয়ে সিক্স ইয়ার্ডের সামনে চলে আসেন সুইডিশ স্ট্রাইকার আলেক্সান্ডার আইসাক। স্পেনের গোলকিপার উনাই সিমনকে পরাস্ত করে বল বারে যাওয়ার সময় তা ডিফেন্ডার আয়মেরিক লাপোর্তের পায়ে বাধা পেয়ে বারে লেগে ফিরে আসলে হতাশ হতে হয় সুইডেন সমর্থকদের।

দ্বিতীয়ার্ধেও ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ ধরে রাখে স্পেন।

৬১ মিনিটে হঠাতই ছন্দপতন এনরিকের শিষ্যদের। এবার সেই আইসাক বল নিয়ে ঢুকে পড়েন ডি-বক্সের ভেতরে। দুই-তিনজনের জটলায় থাকা বলটা বের করে সিক্স ইয়ার্ডের সামনে থাকা সতীর্থ মার্কাস বার্গকে দিলে খালি পোস্ট পেয়েও বল অবিশ্বাস্যভাবে বারের উপর দিয়ে পাঠিয়ে দেন তিনি। আরেকবার হতাশ হতে হয় সুইডেনকে।

ম্যাচের অতিরিক্ত সময়ে সবচেয়ে বড় সুযোগটা হাতছাড়া হয় স্পেনের।

বদলি হিসেবে নামা দুই খেলোয়াড় পাবলো সারাবিয়া ও জেরার্ড মরেনো এই সুযোগটা তৈরি করেন। সারাবিয়ার উড়ে আসা ক্রসে হেড করেন মরিনো। জালে ঢুকতে থাকা বলটা দারুণভাবে পা দিয়ে বিপদমুক্ত করেন সুইডেনের গোলকিপার রবিন ওলসেন।

তার এক মিনিট পর আরেকটি সুবর্ণ সুযোগ নষ্ট করে স্পেন। এবার বাম প্রান্ত থেকে জর্ডি আলবার ক্রস ঠিকমতো পায়ে জমাতে পারেননি সারাবিয়া। বল পায়ে লেগে সোজা চলে যায় গোলকিপারের হাতে।

সুইডেনের সঙ্গে হোঁচট নিয়েই ইউরো মিশন শুরু করেছে স্পেন। নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে আগামী ২০ জুন স্পেন লড়বে পোল্যান্ডের বিপক্ষে।

আরও পড়ুন:
মেহেদী ম্যাজিকে মুক্তিযোদ্ধার প্রথম জয়
পরের মাঠে নয়, ঘরের মাঠে খেলতে চায় বাংলাদেশ
স্কুল ফুটবলে চ্যাম্পিয়ন বাগেরহাট বহুমুখী কলিজিয়েট স্কুল

শেয়ার করুন

ওমানের বিপক্ষে ‘অসম্ভবকে সম্ভব’ করার লক্ষ্য বাংলাদেশের

ওমানের বিপক্ষে ‘অসম্ভবকে সম্ভব’ করার লক্ষ্য বাংলাদেশের

ছবি: সংগৃহীত

সাত ম্যাচে দুই ড্রয়ে দুই পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের তলানিতে আছে বাংলাদেশ। পাঁচ জয় ও দুই হারে ১৫ পয়েন্ট নিয়ে দুইয়ে ওমান। নিঃসন্দেহে ফেবারিট হিসেবেই মাঠে নামবে দলটি।

বিশ্বকাপ বাছাই থেকে আগেই ছিটকে গেছে বাংলাদেশ। ভারতের কাছে হেরে এশিয়ান কাপের মূল পর্বে যাওয়ার ক্ষীণ আশাটাও নিভে গেছে। প্লে অফ দিয়েই তাই যেতে হচ্ছে জামাল ভূঁইয়াদের।

শেষ ম্যাচ ওমানের বিপক্ষে হার-জিত-ড্র কোনটাই সেই অর্থে প্রভাব রাখছে না এই দুই টুর্নামেন্টে।

তারপরেও বিশ্বকাপ বাছাইয়ের তৃতীয় রাউন্ড নিশ্চিত করা ওমানের বিপক্ষে সম্মানের জন্য লড়বে ক্ষত-বিক্ষত বাংলাদেশ দল।

প্রথম লেগে ৪-১ ব্যবধানে হারা ওমানের বিপক্ষে এক পয়েন্টের আশা করছে বাংলাদেশ দল।

ম্যাচের আগের দিন এই প্রত্যাশার কথা জানালেন জামাল ভূঁইয়ার অবর্তমানে অধিনায়কের দায়িত্ব পাওয়া তপু বর্মন।

জাতীয় দলের এই ডিফেন্ডার বলেন, ‘ওমান সম্পর্কে ভালো ধারণা আছে আমাদের। কাতার ও আফগানিস্তানের বিপক্ষে ওদের শেষ দুইটা খেলা দেখেছি। সেখান থেকে তাদের শক্তি ও দুর্বলতার জায়গা দেখেছি। তাদেরকে কিভাবে আটকাব, তাদের বিপক্ষে কিভাবে আক্রমণ করব, এগুলো নিয়ে অনেক কাজ করেছি।’

দলের নিয়মিত একাদশের পাঁচ ফুটবলার ছিটকে গেছেন ওমানের বিপক্ষে ম্যাচে। কার্ড সমস্যায় জর্জরিত জামাল, বিপলু ও রহমত মিয়া খেলতে পারছেন না। মাসুক মিয়া জনি ও সোহেল রানা ছিটকে গেছেন ইনজুরিতে। এই অবস্থায় ওমানকে দলীয় পারফর্ম করেই রুখে দেয়ার পরিকল্পনা তপুর।

অধিনায়কের আশা, ‘আমার মনে হয়, দলীয়ভাবে যদি ভালো পারফরম করতে পারি, অবশ্যই তাদের থেকে এক পয়েন্ট নিতে পারব। যেহেতু এটা আমাদের বাছাইয়ের শেষ ম্যাচ, দোয়া করবেন, যাতে ভালো একটা ফল পেতে পারি।’

বাছাইপর্বে এ পর্যন্ত সাত ম্যাচে ১৬ গোল হজম করেছে বাংলাদেশ। প্রতিপক্ষের জালে পাঠাতে পেরেছে মাত্র তিনবার। এই ওমানের বিপক্ষে প্রথম লেগে বাংলাদেশের একমাত্র গোলটি এসেছিল বিপলু আহমেদের পা থেকে। ফিরতি লেগে ওই গোলই দলের অনুপ্রেরণা হবে বলে জানালেন বিপলু।

ওমান ম্যাচে ছিটকে যাওয়া এই মিডফিল্ডার বলেন, ‘এর আগে আমরা যখন ওমানের বিপক্ষে তাদের মাঠে খেলেছি, তখন ৫০ মিনিট গোল খাইনি। পরে সামান্য ভুলের জন্য গোল খেয়েছি। ওই ম্যাচে একটা গোলও করেছিলাম। আমি মনে করি, আমার ওই গোলটি ওমানের বিপক্ষে আমাদের খেলোয়াড়দের জন্য অনুপ্রেরণা হিসেবে কাজ করবে।

‘আমাদের খেলোয়াড়দের গোল করার সামর্থ্য আছে। যদি আমরা সেরা পারফরম করতে পারি, কোচ যেভাবে বলে দিয়েছেন, সেটা করতে পারি, তাহলে ইনশাল্লাহ ওমানের কাছ থেকে এক পয়েন্ট নিতে পারি।’

সাত ম্যাচে দুই ড্রয়ে দুই পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের তলানিতে আছে বাংলাদেশ। পাঁচ জয় ও দুই হারে ১৫ পয়েন্ট নিয়ে দুইয়ে ওমান। নিঃসন্দেহে ফেবারিট হিসেবেই মাঠে নামবে দলটি।

এমন দলকে রুখে দিয়ে সম্মান নিয়ে মাঠ ছাড়ার পরিকল্পনা জাতীয় দলের কোচ জেমি ডের। বলেন, ‘ওদের র‌্যাঙ্কিং বলে দেয় ওরা কতো শক্তিশালী। ওদের সঙ্গে খেলাটা কঠিন হবে। আমরা সর্বাত্মক চেষ্টা করব ওদের রুখে দিতে।’

মঙ্গলবার জসিম বিন হামাদ স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় রাত ১১ টা ১০ মিনিটে ওমান-বাংলাদেশ ম্যাচটি শুরু হবে।

আরও পড়ুন:
মেহেদী ম্যাজিকে মুক্তিযোদ্ধার প্রথম জয়
পরের মাঠে নয়, ঘরের মাঠে খেলতে চায় বাংলাদেশ
স্কুল ফুটবলে চ্যাম্পিয়ন বাগেরহাট বহুমুখী কলিজিয়েট স্কুল

শেয়ার করুন

ইউরোর ‘ইতিহাস সেরা’ গোল শিকের

ইউরোর ‘ইতিহাস সেরা’ গোল শিকের

গোলের পর উদযাপনে প্যাট্রিক শিক

স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচের ৫২ মিনিটে শিকের নেয়া শটটা ছিল ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপের ইতিহাসের সবচেয়ে দীর্ঘতম দূরত্বের গোল।

ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপের তৃতীয় দিনেই অসাধারণ একটা গোলের সাক্ষী হলো ফুটবল বিশ্ব। শুধু অসাধারণ বললে হয়তো কম হয়ে যাবে। প্রায় মাঝমাঠ থেকে দুর্দান্ত শটে বল জালে জড়িয়েছেন চেক রিপাবলিকের ফুটবলার প্যাটট্রিক শিক।

অনেকেই এই গোলটাকে চলমান ইউরোর সেরা গোলের তকমা দিয়ে দিচ্ছেন। শুধু চলমান ইউরো নয়, অনেকে টুর্নামেন্টের ইতিহাসের সেরা গোল বলতেও দ্বিধা করছেন না।

মূলত গোলের ধরনে এমনটা দাবি করছেন অনেকে। তার কারণ, স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচের ৫২ মিনিটে শিকের নেয়া শটটা ছিল ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপের ইতিহাসের সবচেয়ে দীর্ঘতম দূরত্বের গোল।

গোলটি এসেছে ৪৯.৭ গজ দূর থেকে। ইউরো ইতিহাসে এটাই এখন রেকর্ড।

এমন রেকর্ডের দিনে স্কটল্যান্ডকে ২-০ গোল ব্যবধানে হারিয়েছে চেক রিপাবলিক। জোড়া গোলে দলকে জয় উপহার দেন বুনডেসলিগার দল বায়ার লেফারকুজেনের এই ফরোয়ার্ড।

এ নিয়ে সবশেষ ১২ ম্যাচে ৭ গোল করেছেন শিক। চেকদের জার্সিতে সবমিলে ২৭ ম্যাচে ১২তম গোলের দেখা পেলেন তিনি।

আরও পড়ুন:
মেহেদী ম্যাজিকে মুক্তিযোদ্ধার প্রথম জয়
পরের মাঠে নয়, ঘরের মাঠে খেলতে চায় বাংলাদেশ
স্কুল ফুটবলে চ্যাম্পিয়ন বাগেরহাট বহুমুখী কলিজিয়েট স্কুল

শেয়ার করুন

দেড় বছরে পুরো দলই বদলে গেছে বাংলাদেশের

দেড় বছরে পুরো দলই বদলে গেছে বাংলাদেশের

ডিফেন্স সামলাচ্ছেন জাতীয় ফুটবলাররা। ছবি: সংগৃহীত

দেড় বছর আগের ওমান ম্যাচে খেলেছেন সেই একাদশের শুধু মোহাম্মদ ইব্রাহিম ও রিয়াদুল হাসান রাফি আছেন যিনি এ ম্যাচে সুযোগ পেতে পারেন। ওই ম্যাচের বাকি ৯ জনই নাই এবারের ম্যাচে।

আর একদিন পরই বিশ্বকাপ ও এশিয়ান কাপ বাছাইয়ে নিজেদের শেষ ম্যাচটি খেলবে বাংলাদেশ। প্রতিপক্ষ শক্তিশালী ওমান। ফ্যাক্ট বলছে, দেড় বছর আগে ২০১৯ সালের নভেম্বরে ওমানের সঙ্গে প্রথম লেগে বাংলাদেশের যে স্কোয়াড ছিল তার সিংহভাগ ফুটবলারই নাই মঙ্গলবারের ম্যাচে।

বলা যায়, একেবারে নতুন একাদশ নিয়ে ওমান রুখে দেয়ার মিশনে নামবে জেমি ডে’র বাহিনী।

দেড় বছর আগের ওমান ম্যাচে খেলেছেন সেই একাদশের শুধু মোহাম্মদ ইব্রাহিম ও রিয়াদুল হাসান রাফি আছেন যিনি এ ম্যাচে সুযোগ পেতে পারেন। ওই ম্যাচের বাকি ৯ জনই নাই এবারের ম্যাচে।

সেবার ওমানের কাছে ৪-১ ব্যবধানে হেরেছিল বাংলাদেশ। একাদশে ছিলেন জীবন, সাদ, জামাল ভূঁইয়া, ইব্রাহিম, সোহেল, বিপলু, রহমত মিয়া, ইয়াসিন, ও রাফি ও গোলকিপার রানা।

এবার জীবন, আশরাফুল রানা, সাদ ও সোহেল রানা ইনজুরিতে ছিটকে গেছেন দল থেকে। কার্ড সমস্যায় ছিটকে গেছেন জামাল, বিপলু ও রহমত ও এবারের স্কোয়াডে জায়গা পাননি ইয়াসিন খান ও রবিউল হাসান।

ওই ম্যাচে বাংলাদেশের জার্সিতে একমাত্র গোলটি এসেছিল বিপলু আহমেদের পা থেকে। কার্ড সমস্যায় তিনিও থাকছেন না মঙ্গলবারের ম্যাচে।

এমন স্কোয়াড নিয়েই শক্তিশালী ওমানের বিপক্ষে জসিম বিন হামাদ স্টেডিয়ামে মঙ্গলবার বাংলাদেশ সময় সাড়ে ১১ টা ১০ এ মাঠে নামবে বাংলাদেশ।

আরও পড়ুন:
মেহেদী ম্যাজিকে মুক্তিযোদ্ধার প্রথম জয়
পরের মাঠে নয়, ঘরের মাঠে খেলতে চায় বাংলাদেশ
স্কুল ফুটবলে চ্যাম্পিয়ন বাগেরহাট বহুমুখী কলিজিয়েট স্কুল

শেয়ার করুন

অভিশাপ মোচনের আরেকটি সুযোগ মেসির

অভিশাপ মোচনের আরেকটি সুযোগ মেসির

আর্জেন্টিনা জাতীয় দলের অনুশীলনে লিওনেল মেসি। ছবি: এএফপি

কোপা আমেরিকায় গ্রুপ বি-র ম্যাচে চিলির মুখোমুখি হচ্ছে আর্জেন্টিনা। রিওর অলিম্পিক স্টেডিয়ামে ম্যাচ শুরু মঙ্গলবার ভোর ৩টায়।

ফুটবলে ব্যক্তিগত অর্জন ও রেকর্ড যা আছে সবই তার নামে। সেরা গোলদাতা, সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার জিতেছেন অসংখ্য। ক্লাব ফুটবলের সম্ভাব্য সবগুলো শিরোপাই জিতেছেন একাধিকবার। সর্বকালের সেরা খেলোয়াড়দের তর্কে তার নাম থাকে পেলে-ম্যারাডোনার সঙ্গেই।

তারপরও লিওনেল মেসির ক্যারিয়ারে রয়েছে বড় এক শূন্যতা। সর্বজয়ী এই কিংবদন্তি আর্জেন্টিনার জার্সিতে এখনও জেতেননি বড় কোনো শিরোপা। ২০০৮ বেইজিং অলিম্পিক স্বর্ণই আকাশি-সাদা জার্সিতে তার সবচেয়ে বড় অর্জন।

চূড়ান্ত সাফল্যের একেবারে কাছে চলে গিয়েছিলেন ২০১৪ সালে। ব্রাজিল বিশ্বকাপের ফাইনালে জার্মানির কাছে অন্তিম মুহূর্তের গোলে হেরে যেতে হয় মেসি ও আর্জেন্টিনাকে। টুর্নামেন্টের সেরা খেলোয়াড় হলেও দলীয় শিরোপার আক্ষেপ থেকেই যায় তার।

পরের দুই বছর আসে আরও দুটি ব্যর্থতা। ২০১৫ ও ২০১৬ কোপা আমেরিকার ফাইনালে চিলির কাছে হেরে রানার্সআপ হয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হয় ছয়বারের ব্যলন ডর জয়ীকে।

পরের বিশ্বকাপ ও কোপা আমেরিকায় আর্জেন্টিনাকে ফাইনালেও নিয়ে জেতে পারেননি মেসি। ফুটবল দলীয় খেলা হলেও, সর্বকালের অন্যতম সেরা ফুটবলারের ওপরই দলের ব্যর্থতার দায় চেপেছে বারবার।

খেলোয়াড় মেসির তুলনায় কিছুটা ব্যর্থ অধিনায়ক মেসি এমন সমালোচনাও হয়েছে। প্রায় একার চেষ্টাতেই বারবার দলকে ফাইনালে তোলার পরও ট্রফি না জেতার বাঁকা কথা শুনতে হচ্ছে তাকে।

৩৩ বছর বয়সী মেসি পৌঁছে গেছেন ক্যারিয়ারের সায়াহ্নে। হতে পারে এটাই তার শেষ কোপা আমেরিকা টুর্নামেন্ট। নিজের সম্ভাব্য শেষ মহাদেশীয় টুর্নামেন্টকে স্মরণীয় করে রাখতেই চাইবেন মেসি।

আর্জেন্টিনার হয়ে একটি শিরোপা জয় যে তার কাছে কতটা গুরুত্বপূর্ণ সেটা আরও একবার মনে করিয়ে দিলেন মেসি।

চিলির বিপক্ষে ম্যাচের আগে আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনে আর্জেন্টাইন অধিনায়ক বলেন, ‘আমি জাতীয় দলের জন্য সব সময়ই প্রস্তুত। আমার সবচেয়ে বড় স্বপ্ন জাতীয় দলের জার্সিতে একটা শিরোপা জেতা। খুব কাছে গিয়েছি কয়েকবার। জিততে পারিনি। কিন্তু আমি চেষ্টা চালিয়ে যাব। স্বপ্ন সত্যি করার জন্য লড়াই করে যাব।’

অভিশাপ মোচনের আরেকটি সুযোগ মেসির
কোপা আমেরিকায় নিজেদের উদ্বোধনী ম্যাচের আগে অনুশীলনে ব্যস্ত আর্জেন্টিনা দল। ছবি: এএফপি



সেই লক্ষ্যে সদলবলে লিওনেল মেসি মাঠে নামছেন আরও একবার। চিলির বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে কোপা আমেরিকা অভিযান শুরু হচ্ছে আর্জেন্টিনার।

বরাবরের মতো আক্রমণভাগ নিয়ে কোনো চিন্তা নেই আলবিসেলেস্তেদের। বিশ্বসেরা মেসির সঙ্গে রয়েছেন লাউতারো মার্তিনেস, আনহেল কোরেয়া ও আনহেল দি মারিয়ার মতো ইউরোপের সেরা লিগের সেরা সব তারকা। সঙ্গে যোগ দিয়েছে একঝাঁক নতুন প্রতিভা। দলের কম্বিনেশন ভালো মানছেন মেসি।

তিনি বলেন, ‘নতুন খেলোয়াড় এলেও দল কীভাবে খেলে সে সম্পর্কে সবারই ধারণা হয়ে গেছে। সর্বশক্তি দিয়ে আঘাত করার এটাই সময়। তেমনটা করতে পারলে কাপ জয়ের জোরালো সম্ভাবনা আছে আমাদের।’

ডিফেন্স নিয়েই যত মাথাব্যাথা হেড কোচ লিওনেল স্কালোনির। নিকোলাস ওটামেন্ডি ও হারমান পাসেজার মতো অভিজ্ঞরা থাকার পরও নিরেট নয় আর্জেন্টিনার রক্ষণ। সেরি আর সেরা ডিফেন্ডার ক্রিস্টিয়ান রোমেরোই একমাত্র উজ্জ্বল ছিলেন বাছাইপর্বের শেষ দুই ম্যাচে।

চিলি ও কলম্বিয়ার সঙ্গে নিজেদের শেষ দুই ম্যাচ ড্র করে আর্জেন্টিনা। চিলির সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করার পর কলম্বিয়ার বিপক্ষে ২-০ গোলে লিড হারায় দুইবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা। শেষ মুহূর্তে ম্যাচে পূর্ণ তিন পয়েন্ট হাতছাড়া হওয়ায় হতাশ হয়েছে পুরো দল জানান মেসি।

যোগ করেন, ‘কলম্বিয়ার বিপক্ষে ম্যাচ যেভাবে শেষ হয়েছে তাতে সবাই খুব অসন্তুষ্ট ছিলাম। ওই অংশটুকু বাদ দিলে ম্যাচের বাকি সময় আমরা ভালোই খেলেছি। কিছু বিষয় শুধরাতে হবে। আমরা নিজেদের আরও উন্নতি করতে চাই।’

মেসির ইতিহাস গড়তে হলে সবচেয়ে বেশি সহায়তা লাগবে ডিফেন্স লাইনের তা নিয়ে সন্দেহ নেই। না হলে রূপকথার অভিশপ্ত রাজপুত্রের মতো আরও একবার খালি হাতেই ফিরতে হবে নাম্বার টেনকে।

কোপা আমেরিকায় চিলির বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে নিজেদের ত্রুটি শুধরে নিতে চাইবে আর্জেন্টিনা। জয় দিয়ে শুরু করতে মুখিয়ে আছেন মেসি।

‘আমরা ভালো খেলছি কিন্তু একটা জয় দরকার। তিন পয়েন্ট পেয়ে শুরু করাটা সব সময়ই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ, এটা দলকে নির্ভার রাখে। আমরা জানি, বিষয়টা কঠিন কিন্তু আশা করছি আমরা তা অর্জন করতে পারব,’ বলেন তিনি।

রিওর অলিম্পিক স্টেডিয়ামে ম্যাচ শুরু হচ্ছে বাংলাদেশ সময় মঙ্গলবার ভোর ৩টায়।

আরও পড়ুন:
মেহেদী ম্যাজিকে মুক্তিযোদ্ধার প্রথম জয়
পরের মাঠে নয়, ঘরের মাঠে খেলতে চায় বাংলাদেশ
স্কুল ফুটবলে চ্যাম্পিয়ন বাগেরহাট বহুমুখী কলিজিয়েট স্কুল

শেয়ার করুন

নেইমার ম্যাজিকে বড় জয়ে শুরু ব্রাজিলের

নেইমার ম্যাজিকে বড় জয়ে শুরু ব্রাজিলের

ভেনেজুয়েলার বিপক্ষে বড় জয়ের পর উচ্ছ্বসিত ব্রাজিলের তিন তারকা জেসুস, নেইমার ও রিবেইরো। ছবি: টুইটার

গ্রুপ ‌‌‌‘এ‌’র প্রথম ম্যাচে ভেনেজুয়েলাকে ৩-০ গোলে হারিয়েছে স্বাগতিক দল। ব্রাজিলের হয়ে স্কোর করেছেন মার্কিনিয়োস, নেইমার ও গাব্রিয়েল বারবোসা। এক গোল করার পাশাপাশি অন্য দুই গোলের পেছনেও সরাসরি ভূমিকা ছিল নেইমারের।

নিজ মাটিতে কোপা আমেরিকার শিরোপা ধরে রাখার মিশন দারুণভাবে শুরু করেছে ব্রাজিল। গ্রুপ ‌‌‌‌‌‌‌‌‌‘এ’র প্রথম ম্যাচে ভেনেজুয়েলাকে ৩-০ গোলে হারিয়েছে স্বাগতিক দল।

ব্রাজিলের হয়ে স্কোর করেছেন মার্কিনিয়োস, নেইমার ও গ্যাব্রিয়েল বারবোসা। এক গোল করার পাশাপাশি অন্য দুই গোলের পেছনেও সরাসরি ভূমিকা ছিল নেইমারের।

নিজেদের দশম কোপা শিরোপা জয়ের মিশনে নামা ব্রাজিলের সামনে ব্রাসিলিয়ার মানে গারিঞ্চা স্টেডিয়ামে নামে খর্বশক্তির এক ভেনেজুয়েলা দল।

ম্যাচের দুই দিন আগে তাদের দলে ১১ জনের করোনাভাইরাস ধরা পড়ে। এদের মধ্যে আটজন খেলোয়াড়ও ছিলেন।

আক্রান্ত ব্যক্তিদের নিয়ে কোনো ঝুঁকি নেয়নি ভেনেজুয়েলা। আইসোলেশনে পাঠানোর পরপরই নতুন করে দেশ থেকে খেলোয়াড় আনিয়েছে তারা।

তবে ঘরোয়া লিগ থেকে আনা অনভিজ্ঞ ও আনকোরা খেলোয়াড় স্কোয়াডের সঙ্গে যোগ দেয়ায় খর্বশক্তির দল নিয়েই ফেভারিট ব্রাজিলের মুখোমুখি হতে হয় তাদের।

ফলে শুরু থেকেই ম্যাচে বল দখলের লড়াইয়ে পিছিয়ে থাকে ভেনেজুয়েলা। দারুণ ছন্দে ম্যাচের লাগাম নিজেদের হাতে রাখেন নেইমার-কাসেমিরো-জেসুসরা।

প্রথম গোল আসে ২৩ মিনিটে। নেইমারের নেয়া কর্নার কিক বল পৌঁছে দেয় রিচার্লিসনের পায়ে। এভারটনের এই ফরোয়ার্ড নিয়ার পোস্টে খুঁজে পান মার্কিনিয়োসকে। কাছ থেকে স্বাগতিকদের এগিয়ে দিতে কোনো ভুল করেননি পিএসজি তারকা।

প্রথমার্ধ শেষে ওই এক গোলে এগিয়ে ছিল ব্রাজিল। বিরতির পরও খুব একটা পাল্টায়নি ম্যাচের চিত্র। বলের পজিশনে প্রাধান্য রেখে ব্রাজিলই নিয়ন্ত্রণ করে ম্যাচ।

সেলেকাওদের সামনে ব্যবধান দ্বিগুণ করার সুযোগ আসে ম্যাচের ৬৩ মিনিটে। দানিলোকে নিজেদের বক্সে ফাউল করেন ভেনেজুয়েলার ডিফেন্ডার ইয়োহান কুমানা।

রেফারি পেনাল্টির নির্দেশ দিলে স্পট থেকে দলের ব্যবধান বাড়াতে কোনো ভুল করেননি তারকা ফরোয়ার্ড ও দলের অধিনায়ক নেইমার।

নিজেদের শেষ গোলের সঙ্গেও নিজের নাম জড়িয়েছেন বিশ্বের সবচেয়ে দামি ফুটবলার। ম্যাচের শেষ বাঁশির মিনিটখানেক আগে নেইমারের বাড়ানো বলেই স্কোরলাইন ৩-০ করে দেন গ্যাব্রিয়েল বারবোসা।

নিজেদের কোপা আমেরিকা শিরোপা রক্ষায় দারুণ শুরু ও প্রতিপক্ষকে সতর্কবার্তা জানিয়ে রাখল ব্রাজিল প্রথম ম্যাচেই।

নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে শুক্রবার পেরুর মুখোমুখি হবে ব্রাজিল। আর ২৪ জুন কলম্বিয়ার বিপক্ষে ম্যাচ খেলে ২৮ জুন ইকুয়েডরের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে গ্রুপ পর্ব শেষ করবে টুর্নামেন্টের ৯ বারের শিরোপাজয়ীরা।

আরও পড়ুন:
মেহেদী ম্যাজিকে মুক্তিযোদ্ধার প্রথম জয়
পরের মাঠে নয়, ঘরের মাঠে খেলতে চায় বাংলাদেশ
স্কুল ফুটবলে চ্যাম্পিয়ন বাগেরহাট বহুমুখী কলিজিয়েট স্কুল

শেয়ার করুন