শিরোপা জিতেই তুরিন অধ্যায় শেষের কাছে রোনালডো

ইতালিয়ান কাপের শিরোপা হাতে ক্রিস্টিয়ানো রোনালডো। ছবি: টুইটার

শিরোপা জিতেই তুরিন অধ্যায় শেষের কাছে রোনালডো

পরের মৌসুমে কোচ আন্দ্রেয়া পিরলোর পাশাপাশি পর্তুগিজ সুপারস্টারকেও তুরিনে দেখা যাবে কি না, সেটা নিয়েও ইতালিয়ান সংবাদমাধ্যমে আছে জোর গুঞ্জন। দলগত ব্যর্থতার পর রোনালডোর আকাশছোঁয়া পারিশ্রমিক আর দিতে না-ও চাইতে পারে ইউভেন্তাস। ফুটবল অঙ্গনে গুজব মৌসুম শেষেই তার বেতন যে দল দিতে পারবে, তাদের হয়েই সই করবেন রোনালডো। তালিকায় আছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও পিএসজির নাম।

মৌসুমটা দারুণ কাটিয়েছেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালডো। সেরি আয় তার পা থেকে এসেছে ৩৩ গোল। ইউভেন্তাস তো বটেই ইতালিতেই তিনি সর্বোচ্চ গোলদাতা। ব্যক্তিগত পারফরম্যান্সে আবারও অন্যতম সেরা সময় কাটিয়েছেন এই পর্তুগিজ গোলমেশিন।

কিন্তু দলীয়ভাবে ইউভেন্তাসের হয়ে বছরটা ভালো যায়নি রোনালডোর। ৯ বছর পর লিগ শিরোপা হাতছাড়া হয়েছে। যে চ্যাম্পিয়নস লিগ জেতার জন্য তাকে ১০৫ মিলিয়ন ইউরোতে রিয়াল মাদ্রিদ থেকে নিয়ে এসেছিল ইউভেন্তাস, সেটাও জেতা হয়নি। এমনকি সামনের মৌসুমে চ্যাম্পিয়নস লিগ খেলা নিয়েও রয়ে গেছে সংশয়।

পরের মৌসুমে কোচ আন্দ্রেয়া পিরলোর পাশাপাশি পর্তুগিজ সুপারস্টারকেও তুরিনে দেখা যাবে কি না, সেটা নিয়েও ইতালিয়ান সংবাদমাধ্যমে আছে জোর গুঞ্জন। দলগত ব্যর্থতার পর রোনালডোর আকাশছোঁয়া পারিশ্রমিক আর দিতে না-ও চাইতে পারে ইউভেন্তাস। ফুটবল অঙ্গনে গুজব মৌসুম শেষেই তার বেতন যে দল দিতে পারবে, তাদের হয়েই সই করবেন রোনালডো। তালিকায় আছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও পিএসজির নাম।

রোববার বোলোনিয়ার মাঠে লিগের শেষ ম্যাচ খেলতে নামবে ইউভেন্তাস। তুরিনের ওল্ড লেডিদের হয়ে সেটাই হতে পারে রোনালডোর শেষ লড়াই।

তার আগে দারুণ এক উপহার দিলেন তিনি ক্লাবকে। দল ছাড়ার আগে নিশ্চিত করলেন খালি হাতে মৌসুম শেষ করছে না ইউভেন্তাস। সান্ত্বনার ইতালিয়ান কাপ জিতলেন দলের হয়ে।

বুধবার রাতে আতালান্তাকে ২-১ গোলে হারিয়ে ট্রফি উঁচিয়ে ধরেছে পিরলো শিষ্যরা। রেজিও এমিলিয়ার স্টেডিয়ামে ডেয়ান কুলুসেভস্কির গোলে এগিয়ে যায় ইউভে। ৩১ মিনিটে এই সুইডের গোলে লিড নেয় রোনালডোর দল।

মিনিট দশেক পর রুসলান মালিনোভস্কির গোলে বিরতির আগেই সমতা ফেরায় আতালান্তা। ১-১ গোলের সমতা নিয়েই বিরতিতে যায় দুই দল।

দ্বিতীয়ার্ধে ইউভেন্তাসের হয়ে জয়সূচক গোলটি করেন ফেদেরিকো কিয়েসা। গোলে অ্যাসিস্ট ছিল কুলুসেভস্কির। এই গোলেই নিশ্চিত হয় মৌসুমে ইউভেন্তাসের প্রথম শিরোপা।

এই শিরোপা জিতে ইংল্যান্ড, স্পেন ও ইতালিতে লিগ ও কাপের ডাবল জেতার অনন্য রেকর্ড গড়লেন রোনালডো। ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের হয়ে তিনি জিতেছেন ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ ও এফএ কাপ। রিয়াল মাদ্রিদের হয়ে জেতেন লা লিগা শিরোপা ও কোপা দেল রে। আর ইউভেন্তাসের হয়ে জিতলেন সেরি আর ও ইতালিয়ান কাপ শিরোপা।

বোলোনিয়ার বিপক্ষে ম্যাচটি যদি রোনালডোর শেষ ম্যাচ হয় তাহলে শিরোপা জেতার তৃপ্তি নিয়েই তুরিন অধ্যায় শেষ করলেন এই বৈশ্বিক সুপারস্টার।

আরও পড়ুন:
‘মাঠ ছাড়তে পেরে খুশি রোনালডো’
রোনালডোকে নিয়ে হতাশ ইউভেন্তাস
ছেলেকে দেশে ফেরাচ্ছেন রোনালডোর মা

শেয়ার করুন

মন্তব্য

নিয়মের বেড়াজালে মোহামেডানের ‘মানবিক আবেদন’

নিয়মের বেড়াজালে মোহামেডানের ‘মানবিক আবেদন’

ছবি: বাফুফে

মোহামেডানের আবেদন ফেডারেশনের নজরে এসেছে বলে নিশ্চিত করেন ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আবু নাইম সোহাগ। তিনি জানান, কোভিডের নিয়মানুযায়ী যে সিদ্ধান্ত আসবে মোহামেডানের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে তাই কার্যকর করা হবে।

দুই দিন পরই যখন প্রিমিয়ার লিগ মাঠে গড়ানোর কথা তখন মোহামেডান ক্লাব শিবিরে করোনাভাইরাসের আঘাত। প্রধান কোচ ও ১২ ফুটবলারসহ ১৭ জন সদস্য করোনায় আক্রান্ত হয়ে এখন কোয়ারেন্টিনে। এই অবস্থায় লিগে নিজেদের ম্যাচগুলো পিছিয়ে দেয়ার মানবিক আবেদন করেছে মোহামেডান।

মঙ্গলবার বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) কাছে শিডিউল পিছিয়ে দেয়ার মানবিক আবেদন করেছে ঐতিহ্যবাহী দলটি।

তাদের আবেদন ফেডারেশনের নজরে এসেছে বলে নিশ্চিত করেন ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আবু নাইম সোহাগ। তিনি জানান, কোভিডের নিয়মানুযায়ী যে সিদ্ধান্ত আসবে মোহামেডানের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে তাই কার্যকর করা হবে।

সোহাগ বলেন, ‘কোভিডে খেলার নিয়মানুযায়ী, ইনজুরি বা কোভিড সংক্রান্ত কারণে গোলকিপারসহ যদি স্কোয়াডে ১৩ জন ফুটবলার অবশিষ্ট থাকে তাহলে দলকে খেলতে হবে।’

এ বিষয়ে বাফুফের ডিসিপ্লিন কমিটি সিদ্ধান্ত নেবে। অচিরেই এ সিদ্ধান্ত জানানো হবে বলে জানায় ফেডারেশন।

এদিকে আগামী ১০ দিনের মধ্যে কর্তব্যরত চিকিৎসক মোহামেডানের করোনায় আক্রান্ত সবাইকে আবারও কোভিড টেস্ট করানোর পরামর্শ দিয়েছেন।

প্রিমিয়ার লিগে ১৫ ম্যাচে ২৮ পয়েন্ট নিয়ে পাঁচে আছে মোহামেডান। একই পয়েন্ট নিয়ে এক ম্যাচ বেশি খেলে গোল ব্যবধানে এগিয়ে থেকে চট্টগ্রাম আবাহনী আছে চারে।

৩২ পয়েন্ট নিয়ে তিনে শেখ জামাল। একই পয়েন্ট নিয়ে দুইয়ে আবাহনী। আর ৪৩ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে অপরাজিত বসুন্ধরা কিংস।

আরও পড়ুন:
‘মাঠ ছাড়তে পেরে খুশি রোনালডো’
রোনালডোকে নিয়ে হতাশ ইউভেন্তাস
ছেলেকে দেশে ফেরাচ্ছেন রোনালডোর মা

শেয়ার করুন

‘বন্দী’ ঢাকায় বিপিএল আয়োজনে জটিলতায় বাফুফে

‘বন্দী’ ঢাকায় বিপিএল আয়োজনে জটিলতায় বাফুফে

ছবি: বাফুফে

রাজধানীর বাইরে তিন ভেন্যুতে লিগের ম্যাচ আয়োজনের শিডিউল থাকায় লিগ আয়োজনে জটিলতার মুখে পড়েছে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে)।

দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বাড়ায় রাজধানী ঢাকার সঙ্গে সীমান্তবর্তী জেলাগুলোর যোগাযোগ বিচ্ছিন্নের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এই সিদ্ধান্তের প্রভাব পড়ছে দেশের ফুটবলে। দীর্ঘ বিরতির পর ২৫ জুন মাঠে গড়ানোর কথা ছিল বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের বাকি ম্যাচগুলো।

রাজধানীর বাইরে তিন ভেন্যুতে লিগের ম্যাচ আয়োজনের শিডিউল থাকায় লিগ আয়োজনে জটিলতার মুখে পড়েছে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে)।

মঙ্গলবার বিকেলে এ নিয়ে লিগের ক্লাবগুলোর অংশগ্রহণে অনলাইনে বৈঠক করে পেশাদার লিগ কমিটি।

লিগের ম্যাচগুলো এই সময়ের মধ্যে কোথায় নেয়া হতে পারে বা কোন ভেন্যুতে কীভাবে আয়োজন করা যেতে পারে তা নিয়ে আলোচনা হয় বৈঠকে।

বৈঠক শেষে পেশাদার লিগ কমিটির চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম মুর্শেদী বলেন, ‘কোভিড, ভারী বৃষ্টির সঙ্গে এখন সরকারের এই সিদ্ধান্ত এসেছে। ফলে নতুন করে আমাদের ভাবতে হচ্ছে। বৈঠকে সবার পরামর্শ চাওয়া হয়েছে। যে তিনটি ভেন্যু রয়েছে গাজীপুর, মুন্সীগঞ্জ এবং কুমিল্লা হয়তো খেলতে যেতে পারব না।’

এমন অবস্থায় ঢাকার মধ্যে তিনটি স্টেডিয়ামে খেলা চালানোর চিন্তা করছে ফেডারেশন। ভেন্যুগুলোর মধ্যে আছে ঢাকা রেসিডেন্সিয়াল মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজ, আর্মি স্টেডিয়ামে ও টঙ্গীপুর।

৩০ জুন মধ্যরাত পর্যন্ত ঢাকার সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ থাকছে সীমান্তবর্তী জেলাগুলোর। লিগ চালু হতে সময় রয়েছে দুইদিন। এর মধ্যে ভেন্যু জটিলতা কাটাতে ইতোমধ্যে ভেন্যু কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ শুরু করেছে ফেডারেশন।

বুধবার আরও একটি বৈঠক রয়েছে লিগ কমিটির। এই বৈঠকে লিগ নিয়ে শিডিউল, ভেন্যুসহ সকল বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত আসবে।

আরও পড়ুন:
‘মাঠ ছাড়তে পেরে খুশি রোনালডো’
রোনালডোকে নিয়ে হতাশ ইউভেন্তাস
ছেলেকে দেশে ফেরাচ্ছেন রোনালডোর মা

শেয়ার করুন

রোহিঙ্গাদের জন্য ক্যাম্প করবেন শরণার্থী থেকে ফুটবলার নাদিয়া ‍

রোহিঙ্গাদের জন্য ক্যাম্প করবেন শরণার্থী থেকে ফুটবলার নাদিয়া ‍

পিএসজির জার্সিতে নাদিয়া নাদিম। ছবি: এএফপি

ক্লাবইউ নামের একটি এনজিও ও পিএসজিকে সঙ্গে নিয়ে নাদিয়া চেষ্টা করছেন শরণার্থী শিবিরের শিশুদের জন্য স্পোর্টস ক্লাব প্রতিষ্ঠা করতে। তার প্রজেক্ট শুরু হচ্ছে বাংলাদেশের কক্সবাজারে বিশ্বের সবচেয়ে বড় রোহিঙ্গা শিবিরে।

নারী ফুটবলের খোঁজখবর যারা রাখেন তাদের কাছে নাদিয়া নাদিমের নামটা নতুন নয়। ডেনমার্কের এই তারকা ফরোয়ার্ড জাতীয় দলের অপরিহার্য সদস্য। ইউরোপিয়ান জায়ান্ট প্যারিস সেইন্ট জার্মেইয়ের (পিএসজি) হয়ে গত মৌসুমে জিতেছেন লিগ শিরোপা।

৯ জুন যুক্তরাষ্ট্রের নারী ফুটবল লিগের (এনডাব্লিউএসএল) দল রেসিং লুইভিল এফসিতে যোগ দেন ৩৩ বছর বয়সী নাদিয়া। বর্তমানের খ্যাতিমান এই ফুটবল তারকা জীবনের শুরুটা এমন ছিল না।

ডেনমার্ক থেকে অনেক দূরের দেশ আফগানিস্তানে জন্ম ও বেড়ে ওঠা নাদিয়া নাদিমের। বাবা ছিলেন আফগানিস্তান সেনাবাহিনীর নামী জেনারেল। তার বয়স যখন ১১, তখন তার বাবাকে হত্যা করে তালেবান।

বাবার মৃত্যুর পর মা ও তিন বোনসহ জাল পাসপোর্টে পাকিস্তান চলে আসে নাদিয়ার পুরো পরিবার। সেখান থেকে তারা পাড়ি জমায় ডেনমার্কে। পুরো পরিবারের জায়গা হয় ডেনিশ রেফিউজি ক্যাম্পে।

শৈশবের সেই দুঃসহ স্মৃতি এখনও তাড়িয়ে বেড়ায় নাদিয়াকে। সিএনএনকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘আমাদের একমাত্র চিন্তা ছিল কীভাবে বেঁচে থাকা যায়। পরের দিন পর্যন্ত কীভাবে টিকে থাকা যায়।

‘সবসময় ভাবতাম আমি কী করব এখন? কী করলে কালকের সকালটা দেখতে পাব?’

শরণার্থী ক্যাম্পেই নাদিয়ার সঙ্গে ফুটবলের পরিচয়। ক্যাম্পের অন্য শিশুদের সঙ্গে ফুটবল খেলতে খেলতে এর প্রেমে পড়ে যান ১১ বছরের নাদিয়া।

‘আমার কাছে দেখেই (ফুটবল) ভালো লেগেছিল। শুরুতে সবাই বলে লাথি মারতাম। বলের পেছনে সবাই মিলে ছোটাছুটি করতাম। একবার খেলা শুরুর পর থেকে আমি কখনোই খেলা ছাড়িনি। সেখান থেকে শুরু করে আমি প্যারিস সেইন্ট জার্মেইয়ে খেলেছি’, বলেন নাদিয়া।

শরণার্থী শিবিরে এক ফুটবল ক্লাবের মাধ্যমে নাদিয়ার হাতেখড়ি হয় মাঠের ফুটবলে। সেখান থেকে বিফিফটিটু আলবোর্গ হয়ে ডেনিশ প্রিমিয়ার লিগের দল আইকে স্কোভবাকেনে সুযোগ পান ২০০৬ সালে।

রোহিঙ্গাদের জন্য ক্যাম্প করবেন শরণার্থী থেকে ফুটবলার নাদিয়া ‍
কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ফুটবল ক্লাব শুরু করতে চান নাদিয়া। ছবি: টুইটার



সেখানে ছয় বছর কাটিয়ে চলে আসেন ফরচুনা হিয়োরিংয়ে। তাদের হয়ে প্রথমবার খেলেন ইউয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগে। সেখান থেকে চলে যান যুক্তরাষ্ট্রের নারী লিগে।

দুই মৌসুম খেলার পর তিনি ডাক পান ম্যানচেস্টার সিটি থেকে। সিটির পর পিএসজি ঘুরে আবারও যুক্তরাষ্ট্রে ফিরেছেন এই স্ট্রাইকার।

সাফল্যের পরও ভুলে যাননি নিজের শুরুর ঘটনা। এখনও তাকে পীড়া দেয় বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে থাকা হাজারো শরণার্থী শিবির ও শরণার্থীদের সংগ্রামের জীবন।

তাই নাদিয়া নিয়েছেন ভিন্ন এক উদ্যোগ। ক্লাবইউ নামের একটি এনজিও ও পিএসজিকে সঙ্গে নিয়ে চেষ্টা করছেন শরণার্থী শিবিরের শিশুদের জন্য স্পোর্টস ক্লাব প্রতিষ্ঠা করতে। তার প্রকল্প শুরু হচ্ছে বাংলাদেশের কক্সবাজারে বিশ্বের সবচেয়ে বড় রোহিঙ্গা শিবিরে।

সিএনএনকে তিনি বলেন, ‘শরণার্থী ক্যাম্পে গেলে বোঝা যায় সেখানকার পরিবেশ কতটা নির্মম ও রূঢ়। আমি জানি। আমার নিজের দেহে তা অনুভব করেছি।

‘কেনিয়া বা বাংলাদেশের কক্সবাজার যেখানে বিশ্বের অন্যতম বড় শরণার্থী ক্যাম্প আছে, এগুলো কোনো সহজ বিষয় নয়।’

নাদিয়ার আশা ক্যাম্পগুলোর নিরানন্দ পরিবেশ থেকে শিশুদের কিছু সময়ের জন্য মুক্তি দেওয়ার পাশাপাশি নিজের মতো আরও দুই-একজন ফুটবলার খুঁজে পাবেন তিনি।

নাদিয়া বলেন, ‘ভেবে দেখুন, কক্সবাজারের লাখ লাখ শরণার্থীর মধ্যে যদি দুই, তিন, চারজন ফুটবল খেলোয়াড়কে পাওয়া যায় এই প্রজেক্টের কারণে। তারা সত্যিই অসম্ভব একটা পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে।

‘আশা করি খেলাধুলার মাধ্যমে তারা এক বা দুই ঘণ্টার জন্য নিজেদের বাস্তবতাকে ভুলে থাকতে পারবে। হয়তো বা নিজের ভবিষ্যত বদলানোরও সুযোগ পাবে।

পিএসজি ও ক্লাবইউ শরণার্থী শিবিরগুলোতে একেকটি করে ক্লাব সেন্টার প্রতিষ্ঠা করবে, যাতে শিশুদের জন্য থাকবে লাইব্রেরি, খেলাধুলার সরঞ্জাম। ক্লাব সেন্টার টুর্নামেন্ট ও ট্রেনিং সেশনও আয়োজন করবে।

ফুটবল মাঠের বাইরে নাদিয়া পড়াশোনা করছেন রিকনস্ট্রাকটিভ সার্জন হতে। ফুটবল মাঠ থেকে অবসরের পর সার্জন হিসেবে কাজ করার পাশাপাশি শিশুদের কল্যাণে নিজেকে ব্যস্ত রাখতে চান এই সুপার উইম্যান।

আরও পড়ুন:
‘মাঠ ছাড়তে পেরে খুশি রোনালডো’
রোনালডোকে নিয়ে হতাশ ইউভেন্তাস
ছেলেকে দেশে ফেরাচ্ছেন রোনালডোর মা

শেয়ার করুন

মেসিকে বিশ্রাম দিতে চান স্কালোনি

মেসিকে বিশ্রাম দিতে চান স্কালোনি

প্যারাগুয়ের বিপক্ষে লিওনেল মেসি। ছবি: এএফপি

বার্সেলোনার হয়ে ব্যস্ত মৌসুম কাটানোর পর মেসি জাতীয় দলের হয়েও প্রতিটি মিনিট মাঠে ছিলেন। শেষ গ্রুপ ম্যাচে মেসিকে বিশ্রাম দিতে চান আর্জেন্টাইন কোচ।

দলের সেরা তারকা, অধিনায়ক ও সবচেয়ে অভিজ্ঞ খেলোয়াড় তিনি। শুধু আর্জেন্টিনা জাতীয় দলেই নয়, বার্সেলোনার জন্যও খাটে একই কথা। লিওনেল মেসি আন্তর্জাতিক ফুটবলের ব্যস্ততমদের একজন।

ক্লাব ফুটবলে সারা বছর চারটি প্রতিযোগিতা মিলিয়ে কমপক্ষে ৫০ ম্যাচের প্রায় প্রতিটি মিনিট খেলার পর জাতীয় দলের হয়েও বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব ও কোপা আমেরিকায় প্রতি ম্যাচে ৯০ মিনিট করে খেলছেন তিনি।

প্যারাগুয়ের বিপক্ষে ম্যাচে শেষদিকে কিছুটা ক্লান্ত লাগছিল আর্জেন্টাইন অধিনায়ককে। মেসি এখন আর তরুণ নেই। ২৪ জুন ৩৪ পূর্ণ করতে যাচ্ছেন এই কিংবদন্তি।

মেসির ফিটনেস ও সুস্থতা ভাবাচ্ছে আর্জেন্টিনার হেড কোচ লিওনেল স্কালোনিকে। প্যারাগুয়ের বিপক্ষে ম্যাচের শেষে সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, 'আমি খেলোয়াড়দের শারীরিক অবস্থা নিয়ে চিন্তিত। আজকের মাঠ খেলার জন্য পারফেক্ট ছিল না। মেসি প্রায় প্রতিটা ম্যাচে খেলছে। তাকে না খেলিয়েও উপায় নেই।'

খেলোয়াড়দের ক্লান্তি ও ফ্যাটিগের হাত থেকে রক্ষা করতে পরের ম্যাচে রোটেশনপদ্ধতি ব্যবহার করতে চান স্কালোনি। কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত হওয়ায় নিজেদের শেষ গ্রুপ ম্যাচে চাপ থাকছে না এমনটা মনে করেন তিনি।

'সামনের ম্যাচে রোটেশন ব্যবহার করার সম্ভাবনা আছে। কোয়ালিফাই করার কারণে আমরা কিছুটা স্বস্তিতে আছি। বিশ্রাম নিয়ে আমাদের আবার অনুশীলনে ফিরতে হবে।'

২৯ জুন বলিভিয়ার বিপক্ষে নিজেদের শেষ গ্রুপ ম্যাচ খেলবে আর্জেন্টিনা। ওই ম্যাচে মেসিকে বিশ্রামে রাখতে পারেন স্কালোনি।

নিজেদের প্রথম ম্যাচে চিলির সঙ্গে ড্র করার পর, উরুগুয়ে ও প্যারাগুয়েকে হারিয়ে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছে আলবিসেলেস্তেরা।

আরও পড়ুন:
‘মাঠ ছাড়তে পেরে খুশি রোনালডো’
রোনালডোকে নিয়ে হতাশ ইউভেন্তাস
ছেলেকে দেশে ফেরাচ্ছেন রোনালডোর মা

শেয়ার করুন

মেসির রেকর্ডের ম্যাচে শেষ আটে আর্জেন্টিনা

মেসির রেকর্ডের ম্যাচে শেষ আটে আর্জেন্টিনা

ম্যাচের একমাত্র গোলের পর পাপু গোমেসের সঙ্গে মেসির উচ্ছ্বাস। ছবি: টুইটার

ব্রাসিলিয়ায় প্যারাগুয়েকে একমাত্র গোলে হারায় ১৪ বারের কোপা চ্যাম্পিয়ন দলটি। দলের হয়ে জয়সূচক গোলটি করেন আলেহান্দ্রো পাপু গোমেস। আর্জেন্টিনার হয়ে রেকর্ড ১৪৭তম ম্যাচ খেলতে নামেন লিওনেল মেসি।

টানা তিন ম্যাচে ড্র করার পর কোপা আমেরিকায় নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে উরুগুয়েকে হারিয়ে জয়ের মুখ দেখে আর্জেন্টিনা। নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে প্যারাগুয়েকে হারিয়ে সেই ধারা অব্যাহত রাখল তারা। এর মধ্য দিয়ে টুর্নামেন্টের শেষ আটে পৌঁছে গেল আলবিসেলেস্তেরা।

ব্রাসিলিয়ায় প্যারাগুয়েকে একমাত্র গোলে হারায় ১৪ বারের কোপা চ্যাম্পিয়ন দলটি। দলের হয়ে জয়সূচক গোলটি করেন আলেহান্দ্রো পাপু গোমেস।

ব্রাজিলের রাজধানীর মানে গারিঞ্চা স্টেডিয়ামে নতুন চেহারার এক আর্জেন্টিনা দলকে নামান কোচ লিওনেল স্কালোনি। আগের ম্যাচের রদরিগো দে পল, জোভানি লো সেলসো ও নিকোলাস ওতামেন্দিকে বদল করেন তিনি।

একাদশে আনেন পাপু গোমেস, সার্হিও আগুয়েরো ও আনহেল দি মারিয়াকে। তবে নিজের রেকর্ড ম্যাচে একাদশে থেকেই শুরু করেন দলের চালিকাশক্তি ও অধিনায়ক লিওনেল মেসি।

আর্জেন্টিনার জার্সি গায়ে এটি ছিল মেসির ১৪৭তম ম্যাচ। এতে করে জাতীয় দলের হয়ে হাভিয়ের মাশচেরানোর খেলা সর্বোচ্চ ১৪৭ ম্যাচের রেকর্ড ছুঁয়ে দিলেন তিনি।

পরের ম্যাচে মাঠে নামলেই রেকর্ডটিকে নিজের করে নেবেন ছয়বারের ব্যালন ডর জয়ী।

প্যারাগুয়ের বিপক্ষে ম্যাচে আগ্রাসীভাবেই শুরু করে আর্জেন্টিনা। আট মিনিটেই এগিয়ে যাওয়ার মোক্ষম সুযোগ পায় তারা।

ডিফেন্ডারদের ভুলে প্যারাগুয়ের বক্সে বল পেয়ে যান দেড় বছর পর জাতীয় দলের জার্সিতে নামা আগুয়েরো। কিন্তু একেবারে কাছ থেকেও শট পোস্টের বাইরে মারেন তিনি।

এর দুই মিনিট পরই অবশ্য গোলের দেখা পায় আলবিসেলেস্তেরা। দি মারিয়ার থ্রু বল পেনাল্টি বক্সের ভেতর পেয়ে যান পাপু গোমেস।

সেখান থেকে দুর্দান্ত এক চিপে প্যারাগুয়ের গোলকিপার আন্তোনি সিলভাকে পরাস্ত করেন সেভিয়ার এই স্ট্রাইকার।

এগিয়ে যাওয়ার পর প্রতিপক্ষের ওপর চড়াও হওয়ার চেষ্টা করে আর্জেন্টিনা। সুযোগও পায় একের পর এক। ১৮ মিনিটে মেসির নেয়া ফ্রি-কিক অল্পের জন্য লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়।

মেসির রেকর্ডের ম্যাচে শেষ আটে আর্জেন্টিনা
প্যারাগুয়ের ডিফেন্সের সঙ্গে বল দখলের লড়াইয়ে লিওনেল মেসি। ছবি: টুইটার

তারপরও চাপ কমায়নি স্কালোনির দল। প্রথমার্ধের ইনজুরি টাইমে আরেকবার স্কোর করেন গোমেস। দি মারিয়ার নেয়া শট আন্তোনিও সিলভ প্রতিহত করলে ফিরতি বল পেয়ে গোমেসের উদ্দেশে বাড়ান লিয়ান্দ্রো পারেদেস।

গোমেস কাছ থেকে লক্ষ্যভেদও করেন। তবে অফসাইডের কারণে রেফারি বাতিল করে দেন গোল।

ফলে এক গোলের লিডের বিরতিতে ফিরতে হয় আর্জেন্টিনাকে।

দ্বিতীয়ার্ধে কিছুটা ঝিমিয়ে পড়ে মেসির দল। আগুয়েরো-দি মারিয়ারা এই অর্ধে তেমন কিছুই করতে পারেননি। মেসিও নিষ্প্রভ ছিলেন ৪৫ মিনিট।

প্যারাগুয়ে তেমন কোনো বিপদে ফেলতে পারেনি আর্জেন্টিনাকে। এই অর্ধে তারা বলের পজেশন বেশি রাখলেও গোলে শট নিয়েছে মাত্র একবার।

শেষ পর্যন্ত ওই এক গোলের জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে আর্জেন্টিনা।

এই জয়ে গ্রুপ-‘এ’র শীর্ষে পৌঁছাল আর্জেন্টিনা। পরের রাউন্ডে যাওয়াও নিশ্চিত তাদের। আপাতত এক সপ্তাহের বিশ্রাম তাদের। মেসিরা ফিরছেন আর্জেন্টিনায় দলীয় ক্যাম্পে।

ব্রাজিলে করোনাভাইরাস মহামারির কারণে নিজ নিজ দেশে ক্যাম্প করছে দলগুলো। ম্যাচের দিন সকালে তারা পৌঁছাচ্ছে ব্রাজিলের ভেন্যুতে।

নিজেদের শেষ ম্যাচে ২৯ জুন বলিভিয়ার বিপক্ষে মাঠে নামবে মেসির দল। আর বৃহস্পতিবার চিলির বিপক্ষে খেলবে প্যারাগুয়ে।

আরও পড়ুন:
‘মাঠ ছাড়তে পেরে খুশি রোনালডো’
রোনালডোকে নিয়ে হতাশ ইউভেন্তাস
ছেলেকে দেশে ফেরাচ্ছেন রোনালডোর মা

শেয়ার করুন

টানা তিন জয়ে নকআউটে অপ্রতিরোধ্য বেলজিয়াম

টানা তিন জয়ে নকআউটে অপ্রতিরোধ্য বেলজিয়াম

বেলজিয়ামের দ্বিতীয় গোলের পর ডি ব্রুইনা ও লুকাকুর উদযাপন ছবি: টুইটার

রাশিয়ার সেন্ট পিটারবুর্গ স্টেডিয়ামে ফিনল্যান্ডকে ২-০ গোলে হারায় বেলজিয়াম। আত্মঘাতী গোলে লিড নেয়ার পর লুকাকুর স্ট্রাইকে দুই গোলে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে বেলজিয়াম।

কোনো বাধাই যেন বেলজিয়ামের কাছে টিকছে না। চলমান ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপে প্রথম দুই ম্যাচে জেতার পর গ্রুপের তৃতীয় ম্যাচে ফিনল্যান্ডকে হারাল লুকাকু-ব্রুইনারা। টানা তিন জয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হিসেবে নকআউট নিশ্চিত করেছে ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষে থাকা দলটি।

রাশিয়ার সেন্ট পিটারবুর্গ স্টেডিয়ামে ফিনল্যান্ডকে ২-০ গোলে হারায় বেলজিয়াম।

ডেনমার্ক ও রাশিয়াকে হারিয়ে উড়ন্ত জয়ে আত্মবিশ্বাসের তুঙ্গে থাকা রবার্তো মার্টিনেজের শিষ্যরা এ ম্যাচেও পুরো শক্তির দল নিয়ে মাঠে নামে। আধিপত্য নিয়ে পুরো ম্যাচ খেলেছে লুকাকুরা।

তবে, প্রথমার্ধ পর্যন্ত বেলজিয়ামকে রুখে দেয় প্রথমবারের মতো ইউরোতে অংশ নেয়া ফিনল্যান্ড।

দ্বিতীয়ার্ধে আর আটকে রাখা সম্ভব হয়নি। ৭৪ মিনিটে আত্মঘাতী গোলে পিছিয়ে পড়ে ফিনল্যান্ড। কেভিন ডি ব্রুইনার কর্নার থেকে উড়ে আসা বলটা হেড করেন থমাস ভার্মালেন।

বারে প্রতিহত হয়ে গোলকিপার লুকাস রাদেকির গায়ে লেগে বল পেরিয়ে যায় গোলবার লাইন। লিড নিয়ে ফেলে বেলজিয়াম।

তার আগেই অবশ্য রোমেলু লুকাকুর গোলে এগিয়ে যেত বেলজিয়াম। ম্যাচের ৬৬ মিনিটে অফসাইডে বাতিল হয় ইন্টার মিলানের এই স্ট্রাইকারের গোল।

এই ম্যাচে তাকে গোল করা থেকে বিরত রাখতে পারেনি ফিনল্যান্ড। ব্রুইনার কাছ থেকে ডি-বক্সের ভেতরে বল পেয়ে একটু ঘুরেই বল জালে জড়িয়ে টুর্নামেন্টে নিজের ৩ নম্বর গোলটি আদায় করে নেন লুকাকু।

তিন ম্যাচেই গোলের দেখা পেলেন এই স্ট্রাইকার। সব মিলিয়ে ৯৬ ম্যাচে তার গোলের সংখ্যা গিয়ে দাঁড়াল ৬৩-তে।

এ জয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে ইতালি ও নেদারল্যান্ডের পর নকআউট পর্বে চলে গেল বেলজিয়াম। রাশিয়াকে ৪-১ ব্যবধানে হারিয়ে গ্রুপ রানার্সআপ হয়ে নকআউট পর্বে চলে গেছে ডেনমার্ক।

আরও পড়ুন:
‘মাঠ ছাড়তে পেরে খুশি রোনালডো’
রোনালডোকে নিয়ে হতাশ ইউভেন্তাস
ছেলেকে দেশে ফেরাচ্ছেন রোনালডোর মা

শেয়ার করুন

নর্থ মেসিডোনিয়াকে গুঁড়িয়ে গ্রুপ সেরা নেদারল্যান্ডস

নর্থ মেসিডোনিয়াকে গুঁড়িয়ে গ্রুপ সেরা নেদারল্যান্ডস

নেদারল্যান্ডসের দ্বিতীয় গোলের পর মালেন, ডিপায় ও উইনালডামের উচ্ছ্বাস। ছবি: টুইটার

গ্রুপ সি-এর শেষ ম্যাচে নর্থ মেসিডোনিয়াকে ৩-০ গোলে বিধ্বস্ত করে অপরাজিত গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়েই পরের রাউন্ডে যায় ১৯৮৮ সালের চ্যাম্পিয়নরা।

আগের ম্যাচে অস্ট্রিয়ার বিপক্ষে দারুণ জয়ে ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপের শেষ ১৬ নিশ্চিত করে নেদারল্যান্ডস। গ্রুপ সি-এর শেষ ম্যাচে নর্থ মেসিডোনিয়াকে ৩-০ গোলে বিধ্বস্ত করে অপরাজিত গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে পরের রাউন্ডে যায় ১৯৮৮ সালের চ্যাম্পিয়নরা।

নেদারল্যান্ডসের ঘর আমস্টার্ডাম অ্যারেনায় শুরুটা ভালো করে নবাগত নর্থ মেসিডোনিয়া। দেশটির ফুটবলের কিংবদন্তি ও অধিনায়ক গোরান প্যানডেভ ম্যাচের আগে জানান এটিই হতে যাচ্ছে জাতীয় দলের হয়ে তার শেষ লড়াই।

২০০১ সালে অভিষেক হওয়ার পর প্যানডেভ জাতীয় দলের জার্সিতে ২০ বছরের ক্যারিয়ারে ১২২টি ম্যাচ খেলেছেন।

অধিনায়কের সম্মানেই কিনা, ম্যাচে আগে জ্বলে ওঠে মেসিডোনিয়া। ১০ মিনিটেই প্যানডেভের বাড়ানো বলে শট নিয়ে গোল করে বসেন ইভান ট্রিচকোভস্কি।

পুরো দল যখন উচ্ছ্বাসে মেতেছে তখনই বেরসিকের মতো বেজে ওঠে রেফারির বাঁশি। ভিডিও অ্যাসিস্ট্যান্টের সাহায্য নিয়ে অফসাইডের কারণে গোল বাতিল করে দেন তিনি। থেমে যায় মেসিডোনিয়ার উৎসবের প্রস্তুতি।

শুরুতে ধাক্কা খেয়ে নড়েচড়ে বসে নেদারল্যান্ডস। ২৪ মিনিটে লিড নেয় তারা মেমফিস ডিপায়ের গোলে।

আক্রমণটা শুরু হয় নেদারল্যান্ডসের বক্স থেকে। ডেলি ব্লিন্ড ট্যাকল করে বল ছাড়িয়ে নেন প্যানডেভের কাছ থেকে। সেখান থেকে বল পেয়ে যান রায়ান গ্রাফেনবার্চ। বেশিক্ষণ বল নিজের কাছে না রেখে ডনিয়েল মালেনের উদ্দেশে বাড়ান এই মিডফিল্ডার।

বল নিয়ে এক ছুটে হাফওয়ে লাইন পার হবার পর মালেন ওয়ান টু ওয়ান করেন ডিপায়ের সঙ্গে। বক্সের ভেতর থেকে ঠান্ডা মাথায় ফিনিশিং টাচ দেন দুই দিন আগে বার্সেলোনায় যোগ দেয়া ডিপায়।

এগিয়ে যাবার পর মাঝমাঠের নিয়ন্ত্রণ নেয়ার চেষ্টা করে নেদারল্যান্ডস। মেসিডোনিয়াকে প্রথমার্ধে তেমন কোনো সুযোগ দেয়নি তারা।

দূর থেকে ভাগ্য পরীক্ষা করেন ইজিয়ান আলিওস্কি ও ট্রিচকোভস্কি। কিন্তু বিফলে যায় তাদের প্রচেষ্টা। ১-০ গোলে এগিয়েই টানেলে ফেরে স্বাগতিক দল।

বিরতি থেকে ফিরে প্রতিপক্ষকে দাঁড়াতেই দেয়নি নেদারল্যান্ডস। দ্বিতীয়ার্ধের পাঁচ মিনিটের মাথায় ব্যবধান দ্বিগুণ করে দেন জর্জিনিয়ো উইনালডাম। বাঁ প্রান্ত থেকে অ্যাসিস্ট ছিল ডিপায়ের।

২-০ ব্যবধানে এগিয়ে যাওয়ার পর ম্যাচভাগ্য নিশ্চিত করতে খুব বেশি সময় নেয়নি ওরানিয়ে। মিনিট দশেকের মধ্যেই ম্যাচ নর্থ মেসিডোনিয়ার ধরাছোঁয়ার বাইরে নিয়ে যায় তারা।

এবারের আক্রমণের উৎস, ডিপায়কে বাড়ানো মালেনের পাস। মেসিডোনিয়ান গোলকিপার স্টোল দিমিত্রোভস্কি ডিপায়ের নেয়া শট ঠেকিয়ে দিলে রিবাউন্ডে বল পেয়ে যান উইনালডাম। কাছ থেকে লক্ষ্যভেদ করতে কোনো ভুল করেননি ডাচ অধিনায়ক।

৫৮ মিনিটে স্কোরলাইন ৩-০ হয়ে যাওয়ার পর মেসিডোনিয়ার সামনে আর কোনো আশা ছিল না। বাকি আধঘণ্টায় তারা চেষ্টা করে বার দুয়েক। কিন্তু ব্যবধান কমাতে পারেনি।

বড় জয়ে সি-গ্রুপ থেকে অপরাজিত হয়ে শেষ ১৬ নিশ্চিত করে নেদারল্যান্ডস। তাদের সঙ্গে দ্বিতীয় হয়ে নক আউটে যাচ্ছে অস্ট্রিয়া।

গ্রুপের অন্য ম্যাচে ক্রিস্টফ বাউমগার্টনারের একমাত্র গোলে ইউক্রেনকে হারায় তারা।

আরও পড়ুন:
‘মাঠ ছাড়তে পেরে খুশি রোনালডো’
রোনালডোকে নিয়ে হতাশ ইউভেন্তাস
ছেলেকে দেশে ফেরাচ্ছেন রোনালডোর মা

শেয়ার করুন