করোনা আক্রান্ত আগুয়েরো

করোনা আক্রান্ত আগুয়েরো

পুরো মৌসুমে সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে মাত্র ৯টি ম্যাচ খেলেছেন আগুয়েরো। ২৬০ মিনিট মাঠে ছিলেন সব মিলিয়ে। গোল করেছেন ২টি। যেগুলো এসেছে চ্যাম্পিয়নস লিগে।

করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ম্যানচেস্টার সিটির তারকা সার্হিও আগুয়েরো। বৃহস্পতিবার রাতে নিজে এই তথ্য নিশ্চিত করেন আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড।

ক্লাবের অন্য আরেক কোভিড পজিটিভ ব্যক্তির কাছ থেকে আক্রান্ত হয়েছেন জানিয়ে এই টুইটে আগুয়েরো লেখেন, ‘সবশেষে পরীক্ষায় আমার কোভিড পজিটিভ এসেছে। আমি আইসোলেশনে আছি এবং সেরে ওঠার জন্য ডাক্তারদের পরামর্শ অনুযায়ী কাজ করছি। সবাই সুস্থ থাকুন।’

ইনজুরির কারণে নতুন বছরে মাত্র একটি ম্যাচ খেলতে পেরেছেন ম্যানচেস্টার সিটির সর্বকালের সেরা গোলদাতা। ৩ জানুয়ারি চেলসির বিপক্ষে চার মিনিট মাঠে ছিলেন তিনি।

পুরো মৌসুমে সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে মাত্র ৯টি ম্যাচ খেলেছেন আগুয়েরো। ২৬০ মিনিট মাঠে ছিলেন সব মিলিয়ে। গোল করেছেন ২টি। যেগুলো এসেছে চ্যাম্পিয়নস লিগে।

আগুয়েরোকে সহ সিটির মোট নয়জন খেলোয়াড় করোনা আক্রান্ত হলেন। এর আগে নতুন বছরের শুরুতেই এরিক গার্সিয়া, গাব্রিয়েল জেসুস ও কাইল ওয়াকার করোনা আক্রান্ত হওয়ায় চেলসির বিপক্ষে ম্যাচ খেলেননি।

সিটির গোলকিপার স্কট কারসন ও তরুণ মিডফিল্ডার কোল পামারের কোভিড ধরা পড়ে ৬ জানুয়ারি।

শেয়ার করুন

মন্তব্য

‘জাস্টিস ফর ডিয়েগো’

‘জাস্টিস ফর ডিয়েগো’

১০ মার্চ ম্যারাডোনা ফ্যানদের বুয়েনোস আইরেসের ওবেলিস্ক মনুমেন্টে সবাইকে সমবেত হওয়ার আহ্বান জানান জিয়ানিনা। তার ও অন্য আয়োজকদের দাবি, ‘তিনি মারা যাননি, তাকে মেরে ফেলা হয়েছে। যারা দায়ী তাদের শাস্তি ও ন্যায়বিচার চাই।’

প্রয়াত কিংবদন্তি ডিয়েগো ম্যারাডোনাকে ‘হত্যার’ ন্যায়বিচারের দাবিতে সমবেত হচ্ছেন তার দুই মেয়ে ও ভক্তরা। ‘জাস্টিস ফর ডিয়েগো’ দাবি জানিয়ে এক পদযাত্রার আহ্বান জানিয়েছেন তার মেয়ে জিয়ানিনা।

ক্রীড়া বিষয়ক সাইট ইএসপিএন জানায়, ১০ মার্চ ম্যারাডোনা ফ্যানদের বুয়েনোস আইরেসের ওবেলিস্ক মনুমেন্টে সবাইকে সমবেত হওয়ার আহ্বান জানান জিয়ানিনা। তার ও অন্য আয়োজকদের দাবি, ‘তিনি মারা যাননি, তাকে মেরে ফেলা হয়েছে। যারা দায়ী তাদের শাস্তি ও ন্যায়বিচার চাই।’

গত ২৫ নভেম্বর হার্ট অ্যাটাকে মারা যান আর্জেন্টাইন ফুটবল ঈশ্বর। তার মৃত্যুর পরই চিকিৎসকদের কোনো ধরনের অবহেলা ছিল কি না সে বিষয়ে তদন্ত শুরু করেছে আর্জেন্টিনার কর্তৃপক্ষ।

সন্দেহের তালিকায় আগে থেকেই আছেন ম্যারাডোনার নিউরোসার্জন লিওপলদো লুকে ও সাইকিয়াট্রিস্ট আগুস্টিনা কোসাচভ। তার মৃত্যুর পর তাদের বাড়ি ও অফিসে তল্লাশি চালানো হয়।

তেমনটা প্রমাণিত হলে তিনজনকে খুনের দায়ে অভিযুক্ত করা হবে। বাবার মৃত্যু নিয়ে ন্যায় বিচারের দাবিতে টুইটারে সোচ্চার হয়েছেন জিয়ানিনা।

‘সবাইকে আসার অনুরোধ করছি। সত্যকে আলোয় নিয়ে আসতে হবে।’

ম্যারাডোনার বড় মেয়ে দালমাও সুর মিলিয়েছেন বোনের সঙ্গে। তার বাবার চিকিৎসকেরা কবে শাস্তি পাবেন? টুইটারে এমন প্রশ্ন তার।

‘লুকেকে জেলখানায় পুরতে আর কতো সময় লাগবে? আর এসব অকেজো মনোবিজ্ঞানী ও মনোবিদদের? নার্সের কী হবে? আদালত কিসের অপেক্ষায় আছে?’

সান ইসিদ্রোর আইনজীবীর কার্যালয় ৮ মার্চ বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে ম্যারাডোনার মৃত্যুর কারণ নিয়ে আলোচনা করবে।

শেয়ার করুন

রুদ্ধশ্বাস ম্যাচ জিতে দুইয়ে ফিরল আবাহনী

রুদ্ধশ্বাস ম্যাচ জিতে দুইয়ে ফিরল আবাহনী

বারিধারার জালে বল জড়িয়ে আবাহনীর উদযাপন ছবি: বাফুফে

বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে উত্তর বারিধারাকে ২-১ গোলের ব্যবধানে শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে হারায় ঢাকা আবাহনী।

আগের ম্যাচে বসুন্ধরা কিংসের কাছে রীতিমতো ধরাশায়ী হয়েছিল ঢাকা আবাহনী। তাই আত্মবিশ্বাস ফিরে পেতে বারিধারা ম্যাচে জয়ের বিকল্প ছিল না আকাশি-হলুদদের। জয়ের বন্দরে পা রাখলেও পুরো ম্যাচে হাঁসফাঁস করে আবাহনী বহর।

বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে বৃহস্পতিবার উত্তর বারিধারাকে ২-১ গোলের ব্যবধানে শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে হারায় ঢাকা আবাহনী।

তবে ম্যাচ যেভাবে শুরু করেছিল তাতে আবাহনীর সামনে বড় ব্যবধানে জেতার সুযোগ তৈরি হয়েছিল। তবে ফিনিশিংয়ের অভাবের সঙ্গে দ্বিতীয়ার্ধে মাঝমাঠের দখল হারানোয় আতঙ্কের কারণ হয়ে দাঁড়ায় মারিও লেমসের শিষ্যদের জন্য।

ধারাবাহিক আক্রমণের পর ম্যাচের ২৬ মিনিটে লিড নেয় আবাহনী। ডি-বক্সের মধ্যে ভুল করে বসেন বারিধারার ডিফেন্ডার মোঃ সোহেল। ডান দিক দিয়ে আবাহনীর জুয়েল রানা বল নিয়ে এগিয়ে যাওয়ার পথে পিছন থেকে ধাক্কা দিলে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। সফল স্পট কিক থেকে আবাহনীকে এগিয়ে নেন ব্রাজিলিয়ান ফ্রান্সিসকো তোরেস।

মাঝেমধ্যেই জ্বলে ওঠে বারিধারাও। এই যেমন ম্যাচের ৪১ মিনিটে বারিধারার মিশরীয় ডিফেন্ডার মাহমুদ সাঈদ আবাহনীর দুই ডিফেন্ডারকে বোকা বানিয়ে ডি-বক্সের বাইরে থেকে দূর পাল্লার শট নিলেও গোলকিপার শহীদুল আলম লাফিয়ে উঠে ফিস্ট করে বিপদমুক্ত করেন।

লিডের স্বস্তি নিয়ে বিরতি থেকে ফিরে প্রথম ২০ মিনিটে গোছানো ফুটবল উপহার দিলেও শেষ দিকে খেই হারিয়ে ফেলে আবাহনী।

ম্যাচের ৫৪ মিনিটে মাঝ মাঠ থেকে রাফায়েল অগোস্তোর বাড়ানো থ্রু বল জুয়েল রানা নিয়ন্ত্রণে নিয়ে ডান পায়ে ক্রস নিলে গোলকিপারের নাগালের বাইরে দিয়ে চলে যায় ফ্রান্সিসকো তোরেসের পায়ে। ডি-বক্সের ভেতর থেকে এই ব্রাজিলিয়ানের শট লক্ষ্যভ্রষ্ট হলে হতাশ হতে হয় সমর্থকদের।

তবে এক মিনিট পরেই তা পুষিয়ে দেন সতীর্থ কার্ভেন্স বেলফোর্ট। রাফায়েলের বাড়ানো পাস থেকে ডি-বক্সের ভেতরে বল নিয়ন্ত্রণে নিয়ে সতীর্থ জুয়েলের দিকে এগিয়ে দিলে বল ক্লিয়ার করতে গিয়ে নিজেদের জালেই বল জড়ান বারিধারার ডিফেন্ডার ফজিলভ।

এতে দুই গোলে লিড নিয়ে নেয় আবাহনী।

এরপরেই যেন গা-ছাড়া ভাব দিয়ে খেলতে থাকে লেমসের শিষ্যরা। আর এটাকেই পুজি করে মাঝমাঠের দখল নিয়ে আক্রমণ সাজাতে থাকে বারিধারা।

যেমন ম্যাচের ৮২ মিনিটে বারিধারার মোস্তফা মাহমুদের নেওয়া ফ্রি-কিক থেকে ডি-বক্সের মধ্যে দুর্দান্ত বাই সাইকেল কিকটা একটুর জন্য জাল খুঁজে পায়নি। ফিস্ট করে এই সুযোগটা নস্যাৎ করে দেন আবাহনীর গোলকিপার শহিদুল আলম সোহেল।

তবে ম্যাচের শেষদিকে খেলাটা জমিয়ে ফেলে বারিধারা। ৯০ মিনিটে বাম প্রান্ত থেকে আরিফ হোসেনের বাঁকানো ক্রস থেকে ডান পায়ের আলতো টোকায় বল জালে জড়ান বারিধারার মাহমোদ সাঈদ। পরে ম্যাচের অতিরিক্ত সময়ে আবাহনীর রক্ষণে ফাউলের শিকারের ঘটনায় পেনাল্টি দাবি তুললেও রেফারি সাড়া না দিলে হতাশ হয়ে হার নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয় কামাল বাবুর বারিধারাকে।

আর বারিধারাকে হারিয়ে জয়ে ফিরল আবাহনী। সঙ্গে শেখ জামালকে হটিয়ে পয়েন্ট টেবিলের দুইয়ে উঠে এলো তারা। আর ১২ ম্যাচে ৯ পয়েন্ট নিয়ে দশে অবস্থান করছে বারিধারা।

শেয়ার করুন

সমঝোতা নয়, নির্বাচনের পথেই হাটছে মোহামেডান

সমঝোতা নয়, নির্বাচনের পথেই হাটছে মোহামেডান

ফাইল ছবি

ক্লাব সূত্রে জানা গেছে, পরিচালক পদে চারজন বেশি প্রার্থী হওয়ায় একটি পক্ষ সমঝোতার উদ্যোগ নিয়েছিল। কিন্তু কেউ প্রত্যাহার করতে রাজি না হওয়ায় শেষ পর্যন্ত আর সমঝোতা হয়নি।

আগের দিন ছিল মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন। কিন্তু ক্লাবের স্থায়ী সদস্যদের অনুরোধে নির্বাচন কমিশন বৃহস্পতিবার দুপুর দু’টা পর্যন্ত মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের সময় বাড়িয়েছিল। সময় বাড়ালেও পরিচালক পদে কেউ মনোনয়ন প্রত্যাহার করেননি।

ফলে ১৬ পরিচালক পদের বিপরীতে ২০ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

শনিবার হোটেল লা মেরিডিয়ানে অনুষ্ঠিত হবে পরিচালক পদে নির্বাচন। ১৬ জন পরিচালক বেছে নেবেন ৩৩৭ জন ভোটার। দুপুর দু’টা থেকে সন্ধ্যা ছয়টা পর্যন্ত চলবে ভোট। এর আগে সকালে হবে বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম)।

ক্লাব সূত্রে জানা গেছে, পরিচালক পদে চারজন বেশি প্রার্থী হওয়ায় একটি পক্ষ সমঝোতার উদ্যোগ নিয়েছিল। কিন্তু কেউ প্রত্যাহার করতে রাজি না হওয়ায় শেষ পর্যন্ত আর সমঝোতা হয়নি।

ফলে নির্বাচনই হচ্ছে ঐত্যিহবাহী ক্লাবটিতে। সমঝোতা না হলেও নির্বাচনকে স্বাগত জানাচ্ছেন ক্লাবের পরিচালক ও আসন্ন নির্বাচনের প্রার্থী মাহবুব আনাম, ‘নির্বাচন একটি সুষ্ঠ ও গণতান্ত্রিক মাধ্যম। ভোটাররা তাদের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করবেন এবং পাশাপাশি নির্বাচিতরাও আরও বেশি দায়িত্ববান হবেন।’

বৃহস্পতিবার বিকেলে প্রধান নির্বাচন কমিশনার এবিএম রিয়াজুল কবির কাউছার বলেন, ‘আমরা প্রত্যাহারের সময়সীমা বাড়ানোর পরেও কোনো প্রত্যাহার পত্র পাইনি। ফলে ২০ জনকে পরিচালক পদে চূড়ান্ত প্রার্থী হিসেবে গণ্য করেছি।’

সভাপতি পদে সাবেক সেনা প্রধান জেনারেল মোহাম্মদ আবদুল মুবীন (অব.) একাই মনোনয়ন পত্র জমা দেন।

ফলে কালই তাকে আনুষ্ঠানিকভাবে মোহামেডান ক্লাবের সভাপতি হিসেবে নির্বাচিত ঘোষণা করেছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার, ‘সভাপতি পদে আমরা একটি মনোনয়নপত্র পেয়েছিলাম। ফলে জেনারেল (অব.) মোহাম্মদ আবদুল মুবীনকে আগামী দুই বছরের জন্য সভাপতি হিসেবে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ঘোষণা করা হচ্ছে।’

সভাপতি: জেনারেল (অব.) মোহাম্মদ আবদুল মুবীন (বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত)।

২০ পরিচালক প্রার্থী- দাতো মোহাম্মদ একরামুল হক, মইন উদ্দিন হাসান রশীদ, মো. মোস্তাকুর রহমান, জামাল রানা, কাজী ফিরোজ রশীদ এমপি, মাসুদুজ্জামান, আবু হাসান চৌধুরী প্রিন্স, মোস্তফা কামাল, খুজিস্তা নূর-ই-নাহরীন, এজিএম সাব্বির, শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন এমপি, সিদ্দিকুর রহমান, সাজেদ এএ আদেল, কবীর ভূইয়া, মাহবুব আনাম, কামরুন নাহার ডানা, হানিফ ভূইয়া, আবদুস সালাম মুর্শেদী এমপি, মঞ্জুর আলম এবং প্রকৌশলী গোলাম মোহাম্মদ আলমগীর।

শেয়ার করুন

পুলিশকে উড়িয়ে দিয়ে জয়ে ফিরল রাসেল

পুলিশকে উড়িয়ে দিয়ে জয়ে ফিরল রাসেল

সবশেষ চার ম্যাচে তিন হারের পর জয় পেল শেখ রাসেল। ফাইল ছবি

বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে বৃহস্পতিবার লিগের প্রথম পর্বের শেষ ম্যাচে পুলিশকে ৫-০ গোলে উড়িয়ে দেয় রাসেল। অল ব্লুস জার্সিতে জোড়া গোল করেছেন আব্দুল্লাহ পারভেজ। সঙ্গে তিন বিদেশির গোল।

প্রিমিয়ার লিগের ম্যাচে বাংলাদেশ পুলিশকে দাঁড়াতেই দিল না শেখ রাসেল। পাঁচ গোলে বিধ্বস্ত করে চার ম্যাচ পর জয়ে ফিরেছে সাইফুল বারী টিটু বাহিনী। পুলিশকে রীতিমত নাকানিচুবানি খাইয়ে বড় জয় নিয়ে মাঠ ছেড়েছে রাসেল।

অল ব্লুস জার্সিতে জোড়া গোল করেছেন আব্দুল্লাহ পারভেজ। সঙ্গে তিন বিদেশির গোল। এতেই পুলিশের নামের পাশে লেখা হয়ে গেল বড় হার। এ নিয়ে টানা দ্বিতীয় ও লিগে ষষ্ঠ হারের স্বাদ পেল পুলিশ।

বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে বৃহস্পতিবার লিগের প্রথম পর্বের শেষ ম্যাচে পুলিশকে ৫-০ গোলে উড়িয়ে দেয় রাসেল।

রেফারির শুরুর বাঁশি বাজানো থেকে ম্যাচে আধিপত্য ধরে রাখে রাসেল।

টানা আক্রমণে ম্যাচের ছয় মিনিটে লিড নিয়ে নেয় রাসেল।

ডান প্রান্ত থেকে হাবিবুর রহমানের লম্বা থ্রোতে ডি-বক্সে বল পেয়ে যান ওবি মোনেকে। মাটিতে পড়ে বল হাওয়ায় ভাসলে হেডে দারুণভাবে বল জালে জড়ান নাইজেরিয়ান এই মিডফিল্ডার।

লিডের পরে আর ধরে রাখা সম্ভব হয়নি রাসেলকে। একের পর এক আক্রমণে তটস্ত করে রাখে পুলিশের রক্ষণ বাধ। ফল হিসেবে ম্যাচের ২৮ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করে তারা। এবার মোনেকের বুদ্ধিদীপ্ত পাস পেয়েই দ্রুতগতির শটে বল ঠিকানায় পৌঁছে দেন লোপেস রদ্রিগেজ।

জোড়া লিডের উল্লাসের রেশ থামতে না থামতে আট মিনিটের মাথায় আব্দুল্লাহ পারভেজের গোলে ব্যবধান ৩-০ করে ফেলে রাসেল। ডান পাশ থেকে খালেকুজ্জামানের পাস ধরে দারুণ এক ভলিতে পোস্টের ডান দিয়ে জালে জড়ান এই অ্যাটাকিং মিডফিল্ডার।

জবাবে প্রথমার্ধে ধারহীন ছিল পুলিশের আক্রমণ। তিন গোলের লিডের স্বস্তি নিয়ে বিরতিতে যায় রাসেল।

দ্বিতীয়ার্ধে ফিরে বলের নিয়ন্ত্রণ কিছুটা হারিয়েছে রাসেল। মাঝমাঠ দখল করে রাখে পুলিশ। তবে গোলমুখে ব্যর্থতা সুযোগ করে দেয় টিটু বাহিনীকে। ম্যাচের ৬৯ মিনিটে বখতিয়ার দুখশবেকভের ক্রস পেয়ে ডান প্রান্ত থেকে আচমকা শট করেন আব্দুল্লাহ। গোলকিপার সাইফুল ইসলাম খানের গ্লাভস ফসকে বল চলে যায় জালে। এক হালি পূর্ণ করে রাসেল।

এই গোলের পুলিশের ফেরা অসম্ভব করে তোলে রাসেল। ব্যাক করা দূরের কথা উল্টো আরও একটি গোল হজম করে পুলিশ। এবার ম্যাচের ৮৪ মিনিটে লোপেজের সিয়ো আসররভের গোলে ব্যবধান ৫-০ করে ফেলে রাসেল।

টানা দুই ম্যাচে হারের পর এই জয় নিঃসন্দেহে বড় স্বস্তি শেখ রাসেলের। সঙ্গে ১২ ম্যাচে ২০ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট টেবিলের চারে উঠে এলো টিটু বাহিনী। আর ১২ পয়েন্ট নিয়ে আটে অবস্থান করছে পাকির আলীর পুলিশ।

শেয়ার করুন

অবিশ্বাস্য কামব্যাকে কোপার ফাইনালে বার্সা

অবিশ্বাস্য কামব্যাকে কোপার ফাইনালে বার্সা

দ্বিতীয় গোলের পর সতীর্থদের সঙ্গে উদযাপনে পিকে। ছবি: টুইটার

৯৩ মিনিটে জেরার্ড পিকের হেড থেকে ম্যাচে ফেরে বার্সা। ৯৪ মিনিটে ব্র্যাথওয়েইটের গোলে নিশ্চিত হয় জয়।

ম্যাচের বয়স ৯৩ মিনিট। সেভিয়ার বিপক্ষে কোপা দেল রে সেমিফাইনালে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে আছে বার্সেলোনা। কিন্তু তাতে লাভ নেই। প্রথম লেগ ২-০ গোলে হারায় খেলা অতিরিক্ত সময়ে নিয়ে যেতে হলেও আরেকটি গোল দরকার কাতালানদের।

এ সময়ে অধিনায়ক লিওনেল মেসির কর্নারটা জুতসই হলো না, কিন্তু সেভিয়া ডিফেন্ডার ঠিকমতো ক্লিয়ার করতে পারলেন না, বল পেলেন বাম উইংয়ে থাকা আঁতোয়ান গ্রিজমান। নিখুঁত ক্রস করতে ভুল করেননি তিনি।

আর সেই ক্রসে মাথা ছোঁয়ান জেরার্ড পিকে। পিকের মাথা থেকে বল যায় জালে, শেষ মুহূর্তের গোলে ম্যাচ বাঁচিয়ে ফেলে বার্সা।

এর আগে মাত্র ১২ মিনিটের মাথায় বক্সের বাইরে থেকে উসমান ডেম্বেলের দারুণ শটে লিড পায় বার্সেলোনা। ম্যাচজুড়ে আক্রমণের বাহার সাজিয়ে বসেছিল কাতালানরা। কিন্তু অধরা দ্বিতীয় গোল ধরা দিচ্ছিল না তাদের কাছে।

জর্দি আলবার দুর্দান্ত এক ভলি ফিরে এসেছিল বারে লেগে। মেসির একটি শট গোললাইন থেকে ক্লিয়ার করেছিল সেভিয়া।

উলটো ৭৩ মিনিটে খেলা শেষ হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা ছিল। সেভিয়ার লুকাস অকাম্পোসকে অস্কার মিনগুয়েজা বক্সের মধ্যে ফাউল করলে পেনাল্টি দেন রেফারি। কিন্তু অকাম্পোসের পেনাল্টি ঠেকিয়ে দেন বার্সা গোলকিপার মার্ক আন্দ্রে টার স্টেগেন।

এরপর পিকের সেই গোল। এরপর অতিরিক্ত সময়ে গিয়ে লিড নিতে অবশ্য সময় নেয়নি বার্সা। মাত্র চার মিনিটের মাথায়ই আলবার ক্রস থেকে গোল করে দুই লেগ মিলিয়ে প্রথমবারের মত বার্সাকে লিড এনে দেন মার্টিন ব্র্যাথওয়েইট।

বাকি সময়ে যতটুকু না আক্রমণ করেছে সেভিয়া, তার চেয়ে বেশি বার্সেলোনা বল নিয়ে যুঝেছে, সময় কাটিয়েছে। মাঝখানে বার্সা ডিফেন্ডার ক্লেমেন্ট লংলের বিপক্ষে একটি পেনাল্টির আবেদন জানালেও, তা নাকচ করে দিলে আর ম্যাচে ফেরা হয়নি সেভিয়ার।

ম্যাচের পর বার্সেলোনা কোচ রোনাল্ড কুম্যান জানান, গ্রীষ্মে বার্সেলোনায় যোগদানের পর এটিই ক্লাবে তার সেরা মুহূর্ত।

তিনি বলেন, ‘হ্যাঁ, এটিই আমার জন্য এখানে আসার পর সবচেয়ে খুশির মুহূর্ত। আমরা দারুণ একটি ম্যাচ খেলেছি।’

এই নিয়ে গত সাত মৌসুমে ষষ্ঠ বারের মতো কোপা দেল রে এর ফাইনালে উঠল বার্সেলোনা। এর মধ্যে বাকি পাঁচ ফাইনালের চারটিই জিতেছে কাতালানরা। আপাতত তাদের অপেক্ষা প্রতিপক্ষে কে হবে, সেটি জানা।

কোপা দেল রে এর অন্য সেমিফাইনালে বৃহস্পতিবার মুখোমুখি হবে অ্যাথলেটিক বিলবাও ও লেভান্তে। প্রথম লেগ শেষে দুই দল রয়েছে ১-১ সমতায়।

শেয়ার করুন

আফগানিস্তান না এলে নেপালের ভাবনা বাংলাদেশের

আফগানিস্তান না এলে নেপালের ভাবনা বাংলাদেশের

আফগানিস্তান না এলে নেপালে চার দেশের সিরিজ খেলার কথা ভাববে বাফুফে। ছবি: ফাইল ছবি

চার দেশের এক সিরিজ আয়োজন করতে চায় অল নেপাল ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন (আনফা)। তারই পরিকল্পনার অংশ হিসেবে বাংলাদেশ অংশ নেয়ার প্রস্তাব দিয়েছে নেপাল। বিষয়টি নিয়ে এখনও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত না নিলেও বিকল্প অপশন হিসেবে সিরিজটা হাতে রাখছে বাফুফে।

চলতি মাসে বিশ্বকাপ বাছাইয়ের জন্য আফগানিস্তানকে ঢাকায় আনার চেষ্টা চালাচ্ছে বাংলাদেশ। এর আগে ঢাকায় আসার ব্যাপারে নেতিবাচক থাকা আফগানরা না এলে বিকল্প ভেবে রেখেছে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে)। কোনভাবেই ফিফা উইন্ডোতে জাতীয় দলের খেলার সূচি নষ্ট করতে চায় না দেশের ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থা।

বিকল্প হিসেবে জাতীয় দলকে নেপালে পাঠানোর বিষয়ে ভাবছে বাফুফে।

চার দেশের এক সিরিজ আয়োজন করতে চায় অল নেপাল ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন (আনফা)। তারই পরিকল্পনার অংশ হিসেবে বাংলাদেশ অংশ নেয়ার প্রস্তাব দিয়েছে নেপাল। বিষয়টি নিয়ে এখনও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত না নিলেও বিকল্প হিসেবে সিরিজটা হাতে রাখছে বাফুফে।

এ নিয়ে বুধবার সংবাদমাধ্যমের কাছে কথা বলেন ফেডারেশনের সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন।

‘একটা প্রস্তাব আসছে। আসলে নেপালের সঙ্গে অস্ট্রেলিয়ার যে ম্যাচটা ছিল সেটা বাতিল হয়ে গেছে। নেপাল জানে আমাদের খেলাও যদি বাতিল হয় তাহলে ফিফা উইন্ডোতে আমরাও খেলতে চাই। নেপাল একটা উদ্যোগ নিচ্ছে, চার দেশের একটা টুর্নামেন্ট আয়োজন করা যায় কি না। এরকম একটা প্রস্তাব নেপাল রেখেছে আমাদের কাছে।’

এ নিয়ে ইতিমধ্যে জাতীয় দলের প্রধান কোচ জেমি ডে’সহ কোচিং স্টাফদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন কাজী সালাউদ্দিন। কথা চলছে জাতীয় দল ব্যবস্থাপনা কমিটির সঙ্গেও। ব্যাটে-বলে মিলে গেলে এই সিরিজকে বিকল্প ভাবছেন তিনি।

বাফুফে সভাপতি বলেন, ‘কোচিং স্টাফদের সঙ্গে বসেছি। তাদের মতামত নিয়েছি। আর জাতীয় দল ব্যবস্থাপনা কমিটির সঙ্গেও কথা হয়েছে। যদি হয় তাহলে আমরা এগিয়ে যাব।’

ঢাকায় আসতে আফগানিস্তানকে চিঠি দিয়েছে বাফুফে। জবাব এলেই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিবে ফেডারেশন।

শেয়ার করুন

টিকা নিলেন পেলে

টিকা নিলেন পেলে

ব্রাজিলের রাজধানী ব্রাসিলিয়ায় টিকা নেন ফুটবল-সম্রাট। বাকিদেরও টিকা নেয়ার আহ্বান জানান এই কিংবদন্তি। টিকা নেয়ার ছবি মঙ্গলবার নিজের ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করে লিখেছেন এটা তার জন্য স্মরণীয় এক দিন।

করোনাভাইরাস প্রতিরোধের টিকা নিয়েছেন পেলে। ব্রাজিলের রাজধানী ব্রাসিলিয়ায় টিকা নেন ফুটবল-সম্রাট। বাকিদেরও টিকা নেয়ার আহ্বান জানান এই কিংবদন্তি।
টিকা নেয়ার ছবি মঙ্গলবার নিজের ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করে লিখেছেন এটা তার জন্য স্মরণীয় এক দিন।

‘আমি টিকা নিয়েছি। মহামারি শেষ হয়নি এখনও। সবার টিকা নেয়া পর্যন্ত সুরক্ষার জন্য আমাদের শৃঙ্খলা বজায় রাখতে হবে। অনুগ্রহ করে ঘরে থাকুন ও যতবার সম্ভব হাত ধোয়ার চেষ্টার করুন। বাইরে যাওয়ার সময় মাস্ক পরুন ও সামাজিক দূরত্ব মেনে চলুন।’

৮০ বছর বয়সী পেলের দেশ ব্রাজিল করোনা মহামারিতে বিশ্বের অন্যতম ক্ষতিগ্রস্ত দেশ। ২১ কোটি জনসংখ্যার দেশটিতে এখন পর্যন্ত দেড় কোটির বেশি লোক আক্রান্ত হয়েছেন করোনায়। মারা গেছেন আড়াই লাখের বেশি মানুষ।

তিনবার বিশ্বকাপ জয়ী পেলে নিজ দেশের মানুষের পাশাপাশি পুরো বিশ্বের সবার প্রতি সুরক্ষা ও সচেতনতার বার্তা ছড়িয়ে দেয়ার আহ্বানও জানান।

শেয়ার করুন

ad-close 103.jpg