দুই প্রতিনিধির প্রশ্নের মুখে বাফুফের খরচের খাত

দুই প্রতিনিধির প্রশ্নের মুখে বাফুফের খরচের খাত

প্রতিবেদনে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ আর বঙ্গমাতা গোল্ডমাতা টুর্নামেন্টের অন্তর্ভুক্তি নিয়ে প্রশ্ন তোলেন শরীয়তপুর জেলা ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের প্রতিনিধি মোজাম্মেল হক চঞ্চল এবং আরও একজন।

নতুন নেতৃত্ব নির্বাচনে ভোটের আগে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফের) সাধারণ বার্ষিক সভায় বার্ষিক আর্থিক প্রতিবেদন পাস হয়েছে। তবে দুই জন প্রতিনিধি এই প্রতিবেদন নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন।

প্রতিবেদনে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ আর বঙ্গমাতা গোল্ডমাতা টুর্নামেন্টের অন্তর্ভুক্তি নিয়ে প্রশ্ন তোলেন শরীয়তপুর জেলা ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের প্রতিনিধি মোজাম্মেল হক চঞ্চল এবং আরও একজন।

রাজধানীর একটি হোটেলে ভোটাভুটির আগে গত বছরের আর্থিক বিবরণী উপস্থাপন করেন দেশের ফুটবল নিয়ন্ত্রক সংস্থার সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুস সালাম মুর্শেদী।

এ সময় বাদল রায় ছাড়া বাফুফের বাকি সকল কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য উপস্থিত ছিলেন। উপস্থিত ছিলেন বিভাগ ও জেলা থেকে আসা ফুটবল সংস্থার প্রতিনিধিরা।

দুই জন প্রতিনিধির তোলা প্রশ্ন এড়িয়েই পাস হয় প্রতিবেদন।

সভা শেষে শরীয়তপুর থেকে আসা চঞ্চল নিউজবাংলাকে বলেন, ‘প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দুটি টুর্নামেন্ট বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ আর বঙ্গমাতা গোল্ডমাতা টুর্নামেন্টকে তারা নিজেদের নামে চালিয়ে নিয়েছে। যদিও এগুলো মূলত যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের টুর্নামেন্ট।’

করোনাকালে বাফুফের অবস্থান নিয়েও প্রশ্ন তোলা হয়েছে বলে জানান চঞ্চল। বলেন, ‘যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় হাজার হাজার ফুটবলারদের সহযোগিতা করেছে। বাফুফে এসময় কী করেছে?

করোনায় ফুটবলের আন্তর্জাতিক সংস্থা ফিফা বাফুফেকে আর্থিক অনুদান দিলেও ফুটবলারদেরকে কোনো সহযোগিতা করা হয়নি বলেও জানান চঞ্চল। তিনি এই বিষয়টি নিয়েও প্রশ্ন তোলেন।

সভায় উপস্থিত ছিলেন বর্তমান বাফুফে সভাপতি সালাউদ্দিন ও সাধারণ সম্পাদক আবু নাঈম সোহাগ। তারা তাদের প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন।

এজিএমে ১৩৯ জন ভোটারের মধ্যে ১৩৬ জন উপস্থিত ছিলেন।

লাঞ্চ বিরতির পর বাফুফে নির্বাচনের ভোটগ্রহণ পর্ব শুরু হয়। বেলা দুইটা থেকে শুরু হয়ে চলবে সন্ধ্যা ছয়টায়। এই ভোটাভোটিতে আগামী চার বছরের জন্য বাফুফের নেতৃত্ব নির্বাচিত হবে।

শেয়ার করুন

মন্তব্য