× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল
যেভাবে আম কাঁঠাল দীর্ঘদিন সংরক্ষণ করবেন
hear-news
player
print-icon

যেভাবে আম-কাঁঠাল দীর্ঘদিন সংরক্ষণ করবেন

যেভাবে-আম-কাঁঠাল-দীর্ঘদিন-সংরক্ষণ-করবেন
দীর্ঘদিন আম সংরক্ষণ করে রাখা যাবে, সে ক্ষেত্রে মানতে হবে কিছু নিয়ম। ফাইল ছবি
আম ও কাঁঠাল ক্লাইমেকটেরিক ফল হওয়ায় এগুলো বেশি দিন রাখা যায় না। তবে কিছু প্রক্রিয়া অবলম্বন করলে এক মাস পর্যন্ত আম সংরক্ষণ করা সম্ভব। 

কাঁঠাল উৎপাদনে বিশ্বে দ্বিতীয়, আর আমের উৎপাদনে বিশ্বে সপ্তম বাংলাদেশ। তবে এসব ফল নির্দিষ্ট মৌসুমে সীমাবদ্ধ। চাইলেও বেশি দিন তাজা সংরক্ষণ করা যায় না। এতে উৎপাদনের প্রায় এক-তৃতীয়াংশ নষ্ট হচ্ছে। তবে নির্দিষ্ট কিছু প্রক্রিয়ার মাধ্যমে এর সংরক্ষণকাল ১৫ দিন থেকে এক মাস বাড়িয়ে নেয়া যায়।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সেসব ফল বেশি দিন সংক্ষণ করা যায়, যেগুলো গাছ থেকে পাড়ার পর এর অবস্থার পরিবর্তন হয় না। এসব ফল পরিপক্ব হওয়ার পর যে অবস্থায় গাছ থেকে পাড়া হয়, সে অবস্থাতেই থাকে। তবে যেসব ফল গাছ থেকে পাড়ার পর অবস্থার পরিবর্তন ঘটে বা পরিপুষ্ট হওয়ার পর ঘরে রাখলে পেকে যায়, সেসব ফলের সংরক্ষণকাল কম। এর মধ্যে আম-কাঁঠাল অন্যতম।

বিজ্ঞানের ভাষায় বললে, ফল দুই ধরনের। একটি ক্লাইমেকটেরিক ফ্রুট, অপরটি নন-ক্লাইমেকটেরিক ফ্রুট।

ক্লাইমেকটেরিট ফলের ক্ষেত্রে দেখা যায়, এসব ফল গাছ থেকে বাড়িতে পেড়ে রাখার পরও রাসায়নিক ক্রিয়াকলাপ চলে। এ ধরনের পরিপক্ক ফল থেকে ইথিলিন উৎপন্ন হয়, যা ফলটিকে আরও পাকিয়ে তোলে। এ ছাড়া ফলের মধ্যে কোষীয় পরিবর্তন ঘটে। আম-কাঁঠাল-পেঁপে-কলা এ ধরনের ফল।

নন-ক্লাইমেকটেরিক ফল থেকে ইথিলিন উৎপন্ন হয় না। ফলে ঘরে রেখে দিলেও পাকে না, মিষ্টিও বাড়ে না। যেমন, আঙ্গুর ও স্ট্রবেরি।

ফল সংরক্ষণের উপায়

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আমের মতো ফলগুলো বিভিন্ন প্রক্রিয়ায় ১৫ থেকে ২০ দিন বা সর্বোচ্চ এক মাস রাখা যায়। সংরক্ষণ সময় বাড়াতে পুরোপুরি পাকার আগে ফল পরিপক্ক হলেই গাছ থেকে পাড়তে হবে। যে স্থানে তা রাখা হবে তা অবশ্যই বাতাস চলাচলের উপযোগী ও শীতল হতে হবে। প্রয়োজনে ইলেকট্রিক ফ্যান ব্যবহার করা যেতে পারে। আর্দ্র আবহাওয়ায় ও বদ্ধ ঘরে আম তাড়াতাড়ি পাকে এবং সহজে পচন ধরে যায়।

যেভাবে আম-কাঁঠাল দীর্ঘদিন সংরক্ষণ করবেন
কাঁঠাল সংরক্ষণে জানতে হবে কিছু বিষয়

তবে একেবারে কম তাপমাত্রায় রাখা যাবে না। কারণ এতে ফলের ওজন কমবে এবং ফল শুকিয়ে যাবে। তাই ১৮ থেকে ২০ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড তাপমাত্রায় সংরক্ষণ করা উপযুক্ত।

কাঁঠালের ক্ষেত্রেও একই পদ্ধতি প্রযোজ্য।

আবার এ সময় কোনো ফলে পচন দেখা দেয়ামাত্রই আলাদা করে রাখতে হবে, কারণ এর জীবাণু অন্যান্য ফলকে আক্রমণ করে।

তবে বাড়িতে রাখতে গেলে আস্ত আম প্রথমে কাগজের ব্যাগে ভরে নিতে হবে। পরে কাগজের ব্যাগটি একটি কাপড়ের ব্যাগে ভরে মুখ বন্ধ করে দিতে হবে। তৃতীয় ধাপে ব্যাগটি অন্য একটি পলিথিন ব্যাগে রাখতে হবে। এরপর ব্যাগটি রেখে দিতে হবে ডিপ ফ্রিজে।

এতে অনেকদিন পর্যন্ত ভালো থাকবে আম।

কাঁঠালের ক্ষেত্রে কোষগুলো আলাদা করে অল্প সময়ের জন্য হলে ফ্রিজের নরমাল অংশে এবং বেশি দিনের জন্য হলে ডিপে সংরক্ষণ করতে হবে।

গরম পানিতে আম শোধন

গরম পানিতে আম শোধন করলে আমের সংরক্ষণক্ষমতা যেমন বাড়বে, তেমনি আমের মধ্যে থাকা দূষিত পদার্থ এবং রোগবালাইও দূর হবে।

বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট (বারি) গরম পানিতে আম শোধনের (হট ওয়াটার ট্রিটমেন্ট) এমন যন্ত্র উদ্ভাবন করেছে। বিদ্যুচ্চালিত এই যন্ত্রে ৫৫ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড তাপমাত্রার পানির ভেতরে পাঁচ মিনিট আম রাখলে তা পরিশোধিত হয়। বিদ্যুচ্চালিত এ যন্ত্রের এক প্রান্তে গরম পানির মধ্যে প্লাস্টিকের আমভর্তি ঝুড়ি চুবিয়ে দেয়া হয়। এটি অন্য প্রান্তে যেতে পাঁচ মিনিট সময় লাগে। পরে আমগুলো থেকে পানি ঝরিয়ে শুকিয়ে নেওয়া হয়।

বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের (বারি) গবেষকরা বলছেন, দেশে গাছ থেকে আম পাড়ার পদ্ধতি অবৈজ্ঞানিক। আম পাড়ার পর আমের বোঁটা থেকে নির্গত রসে ম্যালিক অ্যাসিড থাকে। এই অ্যাসিড আমের পচন ত্বরান্বিত করে। এ রোগকে বোঁটা পচা রোগ বা অ্যানথ্রাক নোজ বলে। এ ছাড়া আমে মাছি পোকার (ফ্রুটফ্লাই) আক্রমণ হয়ে থাকলে ওই পোকার ডিমও সেখানে থাকতে পারে। সেই ডিম কয়েক দিনের ব্যবধানে পোকায় পরিণত হয়। গরম পানিতে শোধন করলে সেই ডিম নষ্ট হয়ে যায়, আমের সংরক্ষণক্ষমতাও বাড়ে। বাড়িতেও একই তাপমাত্রাায় আম শোধণ করে সংরক্ষণ করা যায়।

বারির উদ্যানতত্ত্ব গবেষণা কেন্দ্রের মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা (ফল) বাবুল চন্দ্র সরকার নিউজবাংলাকে বলেন, উচ্চ ইথিলিন উৎপন্ন হয় এমন ফল বেশিদিন থাকে না। তাই বৈজ্ঞানিক ভাবেই আম-কাঁঠাল স্বাভাবিক তাপমাত্রায় বেশি দিন তাজা রাখা যায় না। বেশি দিন কম তাপমাত্রায় রাখলেও পচন ধরে। ঠান্ডাজনিত ক্ষত হয়ে যায়। স্বাদ নষ্ট হয়ে যায়। তাই বিশ্বের কোথাও এসব ফল এক মাসরে বেশি রাখা যায় না।

তিনি বলেন, ‘কোল্ড স্টোরেজের মাধ্যমে কিছুদিন সংরক্ষণ করা যায়। ১৪ থেকে ১৫ ডিগ্রির মধ্যে এবং আর্দ্রতা ৯২ থেকে ৯৫ শতাংশ রাখা গেলে আম-কাঁঠাল সর্বোচ্চ এক মাস রাখা যাবে। ট্রান্সপোর্টেশনের জন্য বা রপ্তানি করার জন্য এ পদ্ধতি ব্যবহার করা সম্ভব। তবে এর বেশি হলেই ফল নষ্ট হয়ে যাবে বা গুণগত মান আর থাকবে না। আবার আমের ক্ষেত্রে হট ওয়াটার ট্রিটমেন্টও ব্যবহার করা যায়।’

তিনি বলেন ‘তবে বিকল্প পদ্ধতি রয়েছে প্রক্রিয়াজাতকরণ ব্যবস্থায়। যেমন কাঁঠাল পুরোপুরি পাকার আগে একটু শক্ত থাকতে কোয়া খুলে তা একই তাপমাত্রায় সংরক্ষণ করা যায়। আবার আমের ক্ষেত্রে পাল্প করে রাখা যায়। পাকা আম ভালোভাবে পরিষ্কার পানিতে ধুয়ে নিয়ে লম্বাভাবে টুকরো করে কাটতে হবে। এই আমের টুকরোগুলো ডিপ ফ্রিজে সংরক্ষণ করা যাবে। বড় বড় কোম্পানি বাণিজ্যিকভাবে আমের পাল্প সংগ্রহ ও সংরক্ষণ করছে। আম-কাঁঠাল থেকে বিভিন্ন প্রক্রিয়াজাতকৃত খাবারও তৈরি করা যায়। তবে সবচেয়ে ভাল বিকল্প হচ্ছে বিভিন্ন ধরনের জাত উদ্ভাবন, যাতে সারা বছর ফলন পাওয়া যায়।’

আম-কাঁঠালের অবস্থা

জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার (এফএও) তথ্য বলছে, ২০ বছর ধরে বাংলাদেশে সাড়ে ১২ শতাংশ হারে ফল উৎপাদন বাড়ছে। কয়েকটি ক্ষেত্রে বাংলাদেশ শীর্ষ ১০ দেশের তালিকায় জায়গা করে নিয়েছে। বাংলাদেশ কাঁঠাল উৎপাদনে সারা বিশ্বে দ্বিতীয়, আমে সপ্তম ও পেয়ারায় অষ্টম। মৌসুমি ফল উৎপাদনে বাংলাদেশ ১০ নম্বর স্থান দখল করেছে। এখন দেশে ৭২টিরও বেশি দেশি-বিদেশি ফল চাষ হচ্ছে।

কৃষি মন্ত্রণালয় বলছে, বর্তমানে দেশে প্রায় ২৪ লাখ টন আম উৎপাদন হচ্ছে। এর মধ্যে বাণিজ্যিকভাবে প্রায় ২৮ হাজার হেক্টর জমিতে ৯ লাখ টন আম উৎপাদন হয়। কাঁঠালের বার্ষিক উৎপাদনের পরিমাণ ১০ লাখ টন। সংরক্ষণ সময় স্বল্পতা ও নানা কারণে মোট উৎপাদনের প্রায় ৩০ শতাংশ নষ্ট হয়ে যায়।

আমের সংরক্ষণ ক্ষমতা বাড়াতে প্রকল্প

কৃষি মন্ত্রণালয়ের বলছে, প্রচুর আম উৎপাদন হলেও রপ্তানিতে অবদান সামান্য – বছরে মাত্র এক হাজার টনের মতো। বিদেশে চাহিদা থাকার পরও কম সংরক্ষণ সময়ের কারণে কাঙ্খিত হারে আম রপ্তানি করা যাচ্ছে না। তাই গরম পানিতে শোধনের মাধ্যমে আমের সংরক্ষণ ক্ষমতা বাড়িয়ে তা রপ্তানি উপযোগী করার প্রকল্প নিচ্ছে সরকার।

‘ভ্যাপার হিট ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট স্থাপনের মাধ্যমে আমের রপ্তানি বাজার সম্পসারণ’ নামে একটি প্রকল্প প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। এ প্রকল্পের মাধ্যমে ১ হাজার ৮০০ জন কৃষক, উদ্যোক্তা ব্যবসায়ী ও প্রক্রিয়াজাতকারীকে প্রশিক্ষণ দেয়া হবে। গরম পানিতে শোধন করলে আমের সংরক্ষণ ক্ষমতা বাড়বে এবং আমে থাকা রোগ-বালাই ও জীবাণুও নষ্ট হবে। একই সঙ্গে সংরক্ষণ ব্যবস্থাও আন্তর্জাতিক পর্যায়ের হবে, যা আমের রপ্তানি উপযোগিতা বাড়বে।

এ প্রকল্পের মাধ্যমে চাঁপাইনবাবগঞ্জসহ আম উৎপাদন এলাকায় বড় পরিসরে ভ্যাপার হিট ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট স্থাপন করা হবে। একই ধরনের ভিএইচটি স্থাপন করতে চায় কৃষি বিপণন অধিদপ্তর, বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (বিএমডিএ), বিএডিসি, ডিএইসহ কয়েকটি সংস্থা।

আরও পড়ুন:
চাঁপাইনবাবগঞ্জের ১০০ জাতের আমের তথ্য নিয়ে বই
নওগাঁর আম গেল ইংল্যান্ড
হাঁড়িভাঙ্গা আমের জন্য অ্যাপ

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাঙালির কাঁদবার দিন

বাঙালির কাঁদবার দিন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। অলঙ্করণ: মামুন হোসাইন
পশ্চিম জার্মানির নেতা নোবেল পুরস্কার বিজয়ী উইলি ব্রানডিট বলেছিলেন, মুজিবকে হত্যার পর বাঙালিদের আর বিশ্বাস করা যায় না। যে বাঙালি শেখ মুজিবকে হত্যা করতে পারে, তারা যেকোনো জঘণ্য কাজ করতে পারে।

আজ বাঙালির কাঁদবার দিন, শোকাবহ ১৫ আগস্ট। জাতীয় শোক দিবস এবং জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭তম শাহাদাতবার্ষিকী।

১৯৭৫ সালের এই দিনে সংঘটিত হয়েছিল ইতিহাসের ঘৃণ্যতম এক কলঙ্কিত অধ্যায়। ৪৭ বছর আগে স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যা করেছিল ক্ষমতালোভী নরপিশাচ কুচক্রী মহল।

আজ যথাযথ মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যে জাতীয় শোক দিবস ও বঙ্গবন্ধুর ৪৩তম শাহাদাতবার্ষিকী পালনের জন্য সরকারি ও বেসরকারিভাবে নানা কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে।

এ ছাড়া আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠন নানা কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন।

বঙ্গবন্ধু ছাড়াও ১৫ আগস্ট রাতে ধানমন্ডির বাড়িতে তার সহধর্মিণী বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব, ছেলে শেখ কামাল, শেখ জামাল ও শিশুপুত্র শেখ রাসেল, পুত্রবধূ সুলতানা কামাল ও রোজী জামাল, বঙ্গবন্ধুর একমাত্র ভাই শেখ আবু নাসের, বঙ্গবন্ধুর ফোন পেয়ে তার জীবন বাঁচাতে ছুটে আসা নিরাপত্তা কর্মকর্তা কর্নেল জামিল, এসবির কর্মকর্তা সিদ্দিকুর রহমান ও সেনাসদস্য সৈয়দ মাহবুবুল হককে হত্যা করা হয়।

বঙ্গবন্ধুর ভাগনে যুবলীগ নেতা শেখ ফজলুল হক মনির বাসায় হামলা চালিয়ে তাকে ও তার অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী আরজু মনি, বঙ্গবন্ধুর ভগ্নিপতি আবদুর রব সেরনিয়াবাতের বাসায় হামলা করে তাকে ও তার কন্যা বেবী, পুত্র আরিফ সেরনিয়াবাত, নাতি সুকান্ত বাবু, সেরনিয়াবাতের বড় ভাইয়ের ছেলে সজীব সেরনিয়াবাত এবং এক আত্মীয় রেন্টু খানকে হত্যা করা হয়।

বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবার, নিকটাত্মীয়সহ ২৬ জনকে ওই রাতে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়। বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা সে সময় তৎকালীন পশ্চিম জার্মানিতে অবস্থান করায় তারা প্রাণে বেঁচে যান।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯২০ সালের ১৭ মার্চ তৎকালীন বৃহত্তর ফরিদপুর জেলার গোপালগঞ্জ মহকুমার টুঙ্গিপাড়ায় জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তিনি ছাত্র অবস্থায় রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন। বায়ান্নর ভাষা আন্দোলনে তিনি ছিলেন সংগ্রামী নেতা। ছিলেন বাঙালি জাতির মুক্তি সনদ ছয় দফার প্রণেতা। সত্তরের নির্বাচনে অংশ নিয়ে বঙ্গবন্ধু আওয়ামী লীগকে এ দেশের গণমানুষের আশা-আকাঙ্ক্ষার প্রতীকে পরিণত করেন। পাকিস্তানের সামরিক জান্তার বিরুদ্ধে গণতান্ত্রিক আন্দোলন গড়ে তুলে ষাটের দশক থেকেই তিনি বাঙালি জাতীয়তাবাদের অগ্রনায়কে পরিণত হন।

১৯৭১ সালের ৭ মার্চ ঢাকার তৎকালীন রেসকোর্স ময়দানে লাখো জনতার উত্তাল সমুদ্রে বঙ্গবন্ধু বজ্রদৃপ্ত কণ্ঠে ঘোষণা করেন, ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম।’ এই ঘোষণায় উদ্দীপ্ত, উজ্জীবিত জাতি স্বাধীনতার মূলমন্ত্র পাঠ করে পাক হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ে। ছিনিয়ে আনে দেশের স্বাধীনতা। জাতির ইতিহাসের শ্রেষ্ঠ মানব, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধুর অমর কীর্তি এই স্বাধীন বাংলাদেশ। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাঙালির স্বাধীনতা ও মুক্তির প্রতীক। তিনি বাংলার মাটি ও মানুষের পরম আত্মীয়, শত বছরের ঘোর নিশীথিনীর তিমির বিদারী অরুণ, ইতিহাসের বিস্ময়কর নেতৃত্বের কালজয়ী স্রষ্টা, বাংলার ইতিহাসের মহানায়ক, স্বাধীন বাংলাদেশের স্বপ্নদ্রষ্টা, স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠাতা। বাঙালি জাতির পিতা। সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি। উন্নত সমৃদ্ধ ‘সোনার বাংলা’র স্বপ্নসারথি।

বঙ্গবন্ধু নিহত হওয়ার পর গোটা বিশ্বে নেমে এসেছিল শোকের ছায়া। হত্যাকারীদের প্রতি ছড়িয়ে পড়েছিল ঘৃণার বিষবাষ্প। পশ্চিম জার্মানির নেতা নোবেল পুরস্কার বিজয়ী উইলি ব্রানডিট বলেছিলেন, মুজিবকে হত্যার পর বাঙালিদের আর বিশ্বাস করা যায় না। যে বাঙালি শেখ মুজিবকে হত্যা করতে পারে, তারা যেকোনো জঘণ্য কাজ করতে পারে।

বঙ্গবন্ধুকে নির্মমভাবে হত্যা করার পর স্বাধীনতাবিরোধীরা এ দেশের রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় পুনর্বাসিত হতে থাকে। তারা এ দেশের ইতিহাস থেকে বঙ্গবন্ধুর নাম মুছে ফেলতে নানা উদ্যোগ নেয়। শাসকদের রোষানলে বঙ্গবন্ধুর নাম উচ্চারণও যেন নিষিদ্ধ হয়ে পড়েছিল। বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার ঠেকাতে কুখ্যাত ‘ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ’ জারি করেছিল মোশতাক সরকার। দীর্ঘ ২১ বছর পর ১৯৯৬ সালে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসীন হলে ‘ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ’বাতিল করে বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচারের পথ উন্মুক্ত করা হয়। বিচার শুরু হয় ১৯৯৮ সালের ৮ নভেম্বর। ২০১০ সালের ২৭ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচারের চূড়ান্ত রায় অনুযায়ী ওইদিন মধ্যরাতের পর পাঁচ খুনির ফাঁসি কার্যকর করা হয়। তবে বিভিন্ন দেশে পলাতক থাকায় কয়েকজন খুনির সাজা এখনও কার্যকর করা যায়নি।

১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করলে স্বাধীনতার স্থপতিকে যথাযোগ্য সম্মান প্রদর্শনের পথ সুগম হয়। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার দিনটিকে জাতীয় শোক দিবস হিসেবে পালন করা হতে থাকে। দিনটিকে সরকারি ছুটির দিনও ঘোষণা করা হয়। তবে ২০০১ সালে বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার গঠন করলে এ ধারাবাহিকতায় ছেদ ঘটে। তারা রাষ্ট্রীয়ভাবে দিবসটি পালন বাতিল করে দেয়। পরে ২০০৭ সালে সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার আবার রাষ্ট্রীয়ভাবে বঙ্গবন্ধুর শাহাদাতবার্ষিকী পালন করার সিদ্ধান্ত নেয়। ওই সরকারের অধীনে অনুষ্ঠিত জাতীয় নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে ২০০৯ সালে আবার ক্ষমতায় আসে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট। ফলে জাতীয় শোক দিবস পালনের ধারাবাহিকতা বজায় থাকে। এবারও যথাযোগ্য মর্যাদায় জাতীয় শোক দিবস পালন করতে রাষ্ট্রীয়ভাবে নানা কর্মসূচি হাতে নেয়া হয়েছে।

আজ সরকারি ছুটি। সব সরকারি, আধা সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ভবন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও বেসরকারি ভবনগুলোয় জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখা হবে। বিদেশে বাংলাদেশ মিশনগুলোয়ও জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখা হবে এবং আলোচনা সভার আয়োজন করা হবে। এ ছাড়া দেশের সব সরকারি হাসপাতালে দিবসটি উপলক্ষে বিনা মূল্যে চিকিৎসাসেবা দেয়া হবে। দিবসটি উপলক্ষে বাংলাদেশ বেতার এবং বাংলাদেশ টেলিভিশনসহ সব বেসরকারি স্যাটেলাইট টেলিভিশন বিশেষ অনুষ্ঠানমালা প্রচার করবে। সংবাদপত্রগুলো বিশেষ ক্রোড়পত্র প্রকাশ করবে। এ ছাড়া পোস্টার, সচিত্র বাংলাদেশের বিশেষ সংখ্যা প্রকাশ ও বিতরণ এবং বঙ্গবন্ধুর ওপর নির্মিত প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন করা হবে। বিভিন্ন মন্ত্রণালয়, বিভাগ, সংস্থা জাতীয় কর্মসূচির সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে কর্মসূচি প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন করবে।

রাষ্ট্রীয় কর্মসূচি: আজ সকাল সাড়ে ৬টায় রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ধানমন্ডিতে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর প্রাঙ্গণে জাতির জনকের প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করবেন। সশস্ত্র বাহিনী গার্ড অফ অনার প্রদর্শন করবে। এ সময় বিশেষ মোনাজাত ও পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত করা হবে।

প্রধানমন্ত্রী সকাল ৮টায় বনানী কবরস্থানে বঙ্গবন্ধুর পরিবারের সদস্য ও অন্যান্য শহীদের কবরে এবং দুপুর ১২টায় গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর কবরে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করবেন। এ সময় ফাতেহা পাঠ ও সশস্ত্র বাহিনীর গার্ড অফ অনার প্রদানসহ বিশেষ মোনাজাত এবং দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে। সারা দেশে সব মসজিদ, মন্দির, গির্জা ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে বিশেষ প্রার্থনার আয়োজন করা হয়েছে।

জেলা ও উপজেলা প্রশাসন আলোচনা সভা, দোয়া মাহফিলসহ জাতীয় কর্মসূচির সঙ্গে সংগতি রেখে কর্মসূচি প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন করবে। এ ছাড়া বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আলোচনা সভা, কবিতা পাঠ, রচনা ও চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা, হামদ ও নাত প্রতিযোগিতা এবং দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে।

আওয়ামী লীগের কর্মসূচি : জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আওয়ামী লীগ বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। এর মধ্যে ১৫ আগস্ট সূর্যোদয়ের ক্ষণে বঙ্গবন্ধু ভবন, দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়সহ সব কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখা ও কালো পতাকা উত্তোলন, সকাল সাড়ে ৬টায় বঙ্গবন্ধু ভবন প্রাঙ্গণে জাতির জনকের প্রতিকৃতিতে এবং ৮টায় বনানী কবরস্থানে ১৫ আগস্টে নিহত ব্যক্তিদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন, কবর জিয়ারত, ফাতেহা পাঠ, মোনাজাত ও দোয়া মাহফিল, দুপুর ১২টায় টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর কবরে শ্রদ্ধা নিবেদন, ফাতেহা পাঠ, মোনাজাত এবং বাদ জোহর দেশব্যাপী মসজিদ-মাদ্রাসায় মিলাদ ও বিশেষ দোয়া মাহফিল যা কেন্দ্রীয়ভাবে জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে অনুষ্ঠিত হবে। পাশাপাশি সব ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে প্রার্থনা সভা। মন্দির, প্যাগোডা, গির্জা, উপাসনালয়ে দেশব্যাপী বিশেষ প্রার্থনা কর্মসূচির অংশ হিসেবে কেন্দ্রীয়ভাবে ১৫ আগস্টের প্রথম প্রহরে (রাত ১২:০১ মিনিট) মিরপুর ব্যাপ্টিস্ট চার্চে (৩/৭-এ সেনপাড়া, পর্বতা, মিরপুর-১০) মোমবাতি প্রজ্বলন ও বিশেষ প্রার্থনা, সকাল ৯টায় তেজগাঁও হলি রোজারি চার্চে বিশেষ প্রার্থনার আয়োজন করবে খ্রিষ্টান সম্প্রদায়, সকাল ১০টায় রাজধানীর মেরুল-বাড্ডা আন্তর্জাতিক বৌদ্ধ বিহারে বৌদ্ধ সম্প্রদায় এবং বেলা ১১টায় ঢাকেশ্বরী জাতীয় মন্দিরে হিন্দু সম্প্রদায় প্রার্থনা সভার আয়োজন করবে।

দুপুরে অসচ্ছল, দুস্থ মানুষের মধ্যে খাবার বিতরণ করা হবে। আর বাদ আসর মহিলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধু ভবন প্রাঙ্গণে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে। পরদিন বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হবে শোকসভা।

এ ছাড়া সিপিবি, গণফোরাম, জাসদ, ন্যাপ ও গণতন্ত্রী পার্টি এবং আওয়ামী লীগের সব সহযোগী ও ভ্রাতপ্র্রতিম সংগঠন বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্য দিয়ে দিবসটি পালন করবে। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এক বিবৃতিতে বঙ্গবন্ধুর ৪৭তম শাহাদাতবার্ষিকী, জাতীয় শোক দিবস যথাযোগ্য মর্যাদা ও ভাবগম্ভীর পরিবেশে দেশবাসীকে সঙ্গে নিয়ে পালন করার জন্য আওয়ামী লীগ, এর সহযোগী ও ভ্রাতপ্রতিম, সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলোর সর্বস্তরের নেতাকর্মী, সমর্থক, শুভানুধ্যায়ীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

আরও পড়ুন:
বঙ্গবন্ধুর ৪ স্মৃতি জাতীয় জাদুঘরে
বঙ্গবন্ধু হত্যার কুশীলব খুঁজতে এ বছরই কমিশন চালুর আশা
বঙ্গবন্ধুকে অবমাননার মামলায় শিক্ষককে এক বছরের দণ্ড
বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিবাদকারীদের রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি কেন নয়: হাইকোর্ট

মন্তব্য

ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল
Body of missing Tiktkar found in Dhaleswari

ধলেশ্বরীতে নিখোঁজ ‘টিকটকারের’ মরদেহ উদ্ধার

ধলেশ্বরীতে নিখোঁজ ‘টিকটকারের’ মরদেহ উদ্ধার
মুন্সীগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার আব্দুল হাকিম স্থানীয়দের বরাতে জানান, তিন কিশোর শনিবার দুপুরে টিকটক ভিডিও করার জন্য মুক্তারপুর সেতুতে যায়। এর মধ্যে দুজন ভিডিওর জন্য নদীতে ঝাঁপ দেয়। তাদের একজন হামিম সাঁতরে তীরে উঠলেও রাসেলকে পাওয়া যায়নি।

মুন্সীগঞ্জের ধলেশ্বরী নদীতে নিখোঁজ কিশোরের ভাসমান মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

জেলার মুক্তারপুর সেতুর পশ্চিম প্রান্তে মালিপাথর এলাকায় নদীর অংশ থেকে সোমবার রাত ১১টার দিকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়।

মৃত মো. রাসেলের বাড়ি বরিশালের হিজলা উপজেলায়। পরিবারসহ তিনি মুন্সীগঞ্জ সদরের দশকানি এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকতেন।

মুক্তারপর নৌপুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ লুৎফর রহমান এসব নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ‘স্থানীয়দের মাধ্যমে খবর পাই ওই কিশোরের মরদেহ নদীতে ভেসে উঠেছে। মুক্তারপুর সেতুর পশ্চিম পাশে ১০০ মিটার দূর থেকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়। আইনি প্রক্রিয়ার জন্য মরদেহ নৌপুলিশের হেফাজতে রাখা হয়েছে।’

মুন্সীগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার আব্দুল হাকিম স্থানীয়দের বরাতে জানান, তিন কিশোর শনিবার দুপুরে টিকটক ভিডিও করার জন্য মুক্তারপুর সেতুতে যায়। এর মধ্যে দুজন ভিডিওর জন্য নদীতে ঝাঁপ দেয়। তাদের একজন হামিম সাঁতরে তীরে উঠলেও রাসেলকে পাওয়া যায়নি।

তিনি আরও জানান, শনিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত খুঁজেও রাসেলকে পাওয়া যায়নি। রোববার রাতে মরদেহ ভেসে উঠলে উদ্ধার করা হয়।

আরও পড়ুন:
বন্ধুর ডাকে বেরিয়ে নিখোঁজ, গুমাই নদীতে মরদেহ
শিক্ষক খাইরুনের মৃত্যুতে সংবাদমাধ্যমের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন
রাজধানীতে দেবরের বাসায় গৃহবধূর ঝুলন্ত মরদেহ
‘ভাইরাল হওয়ার পর মানসিক চাপে পড়েন শিক্ষক খাইরুন’
বাঁশঝাড়ে স্কুলছাত্রের মরদেহ

মন্তব্য

ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল
Rohingya detained with foreign pistol

বিদেশি পিস্তলসহ রোহিঙ্গা আটক

বিদেশি পিস্তলসহ রোহিঙ্গা আটক ২৮ বছর বয়সী আটক রোহিঙ্গা যুবকের নাম মোহাম্মদ হারুন। ছবি: নিউজবাংলা
আটক হারুনের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট ধারায় মামলা করে টেকনাফ থানায় হস্তান্তর করা হবে বলেও জানান ১৬ এপিবিএন কর্মকর্তা হাসান বারী নূর।

কক্সবাজারের টেকনাফে নয়াপাড়া নিবন্ধিত শরণার্থী ক্যাম্প থেকে বিদেশি পিস্তলসহ এক রোহিঙ্গাকে আটক করেছে ১৬ আমর্ড পুলিশ ব্যাটালিয়নের সদস্যরা।

রোববার রাত ৮টার দিকে নয়াপাড়া ক্যাম্পের সি-ব্লক থেকে ওই রোহিঙ্গাকে আটক করা হয়।

বিষয়টি নিউজবাংলাকে নিশ্চিত করেছেন ১৬ আমর্ড পুলিশ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক (অতিরিক্ত ডিআইজি) হাসান বারী নূর।

তিনি জানান, ২৮ বছর বয়সী আটক রোহিঙ্গা যুবকের নাম মোহাম্মদ হারুন। নয়াপাড়া ক্যাম্পের সি-ব্লকের ৮০২ নং শেডের ফজল আহমদের ছেলে তিনি।

হাসান বারী নুর বলেন, ‘রাত ৮টার দিকে সি-ব্লকের একটি এলাকায় অবস্থানকালে হারুনের দেহ তল্লাশি করে বিদেশি পিস্তল ও একটি ম্যাগজিন পাওয়া যায়। পরে তাকে আটক করা হয়।’

আটক হারুনের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট ধারায় মামলা করে টেকনাফ থানায় হস্তান্তর করা হবে বলেও জানান ১৬ এপিবিএন কর্মকর্তা।

আরও পড়ুন:
দুর্বৃত্তের গুলিতে রোহিঙ্গা নেতাসহ নিহত ২
ভাসানচর থেকে পালিয়ে আসা ৭ রোহিঙ্গা আটক
‘আধিপত্য বিস্তারের জেরে’ রোহিঙ্গা যুবক খুন
রোহিঙ্গাদের কারণে বাংলাদেশ ভিকটিম: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
‘রোহিঙ্গা ইস্যু ও জঙ্গিবাদ মোকাবিলায় দরকার আঞ্চলিক পরিকল্পনা’

মন্তব্য

ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল
Bangladesh is far ahead Education Minister

বাংলাদেশ অনেক এগিয়ে: শিক্ষামন্ত্রী

বাংলাদেশ অনেক এগিয়ে: শিক্ষামন্ত্রী বাংলাদেশ প্রগতিশীল কলামিস্ট ফোরামের সেমিনারে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। ছবি: নিউজবাংলা
ডা. দীপু মনি বলেন,‘দেশের মানুষ এখন উন্নয়নের ছোঁয়ায় প্রতিনিয়ত নিজেদেরকে ছাড়িয়ে যাচ্ছেন। বৈশ্বিক মন্দার মাঝে অন্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশ অনেক এগিয়ে আছে। তাই রাস্তায় কেউ হারিকেন নিয়ে নামলেই দেশ শ্রীলঙ্কা হয়ে যাবে না।’

বিশ্বজুড়ে অর্থনৈতিক মন্দার মধ্যে বাংলাদেশ তুলনামূলক অনেক এগিয়ে আছে বলে মনে করেন শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি।

রোববার বিকেলে জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক সেমিনারে তিনি এ কথা বলেন।

বাংলাদেশ প্রগতিশীল কলামিস্ট ফোরাম ‘অশ্রুঝরা আগস্টে শোকসঞ্জাত শক্তির অন্বেষা’ শিরোনামে এ সেমিনারের আয়োজন করে। এতে সভাপতিত্ব করেন ফোরামের সভাপতি ড. মীজানুর রহমান।

প্রধান অতিথি শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার মাধ্যমে দেশকে দ্বিতীয় পাকিস্তান বানাতে চেয়েছিল স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তিরা। বঙ্গবন্ধুকে শোষিত মানুষের পক্ষে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করতে চেয়েছিলেন। তাই তাকে সরিয়ে দেয়ার ষড়যন্ত্র হয়।’

দেশ আগের তুলনায় অনেক ভালো চলছে জানিয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘দেশের মানুষ এখন উন্নয়নের ছোঁয়ায় প্রতিনিয়ত নিজেদেরকে ছাড়িয়ে যাচ্ছেন। বৈশ্বিক মন্দার মধ্যে অন্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশ অনেক এগিয়ে আছে।

‘ক্যান্টনমেন্ট থেকে বেড়ে ওঠা নেতৃত্ব দেশকে অস্থিতিশীল করার পাঁয়তারা করছে। তারা নানা অপপ্রচার চালাচ্ছে। বিদ্যুতের সংকটকে সামনে এনে আতঙ্ক তৈরির চেষ্টা চলছে। অথচ ২০০৮ সালের আগে দেশের মানুষ দুই-তিন ঘণ্টা বিদ্যুৎ পেয়েছে কিনা মনে করতে পারবে না। তাই রাস্তায় কেউ হারিকেন নিয়ে নামলেই দেশ শ্রীলঙ্কা হয়ে যাবে না।’

সেমিনারে নর্থ-সাউথ ইউনিভার্সিটির ভিসি অধ্যাপক ড. আতিকুল ইসলাম, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মশিউর রহমান, জাতীয় কবি নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. সৌমিত্র শেখর, বাংলাদেশ কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি আবদুর রশিদ, বাংলাদেশ প্রগতিশীল কলামিস্ট ফোরামের সহ-সভাপতি অধ্যাপক ড. রশিদ আসকারী সহ ফোরামের শীর্ষ নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করে সিনিয়র সাংবাদিক বিভু রঞ্জন সরকার। স্বাগত বক্তব্য রাখেন অধ্যাপক ড. মিল্টন বিশ্বাস।

আরও পড়ুন:
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সাপ্তাহিক ছুটি দুই দিন করার চিন্তা
লুটের রাজনীতিতে বিশ্বাসীরা মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে: শিক্ষামন্ত্রী
করোনায় শিক্ষায় ক্ষতি পোষাতে পরিকল্পনা অনুমোদন শিগগিরই

মন্তব্য

ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল
The strike of intern doctors of Dhaka Medical is called off

ঢাকা মেডিক্যালের ইন্টার্ন চিকিৎসকদের কর্মবিরতি প্রত্যাহার 

ঢাকা মেডিক্যালের ইন্টার্ন চিকিৎসকদের কর্মবিরতি প্রত্যাহার  ইন্টার্ন চিকিৎসকদের সঙ্গে ঢাকা মেডিক্যাল কর্তৃপক্ষ, পুলিশ, ঢাবি প্রশাসন, ছাত্রলীগের বৈঠক। ছবি: সংগৃহীত
সন্ধ্যার দিকে ঢাকা মেডিক্যা কলেজ হাসপাতালের সভাকক্ষে পুলিশ, ঢাবি ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে দীর্ঘ বৈঠকের পর কর্মবিরতি প্রত্যাহারের এ সিদ্ধান্ত নেয় ইন্টার্ন চিকিৎসকরা। 

সহকর্মী ও ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের শিক্ষার্থীকে মারধরের ঘটনায় ডাকা কর্মবিরতি প্রত্যাহার করেছেন ইন্টার্ন চিকিৎসকরা।

রোববার সন্ধ্যায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ ইন্টার্ন চিকিৎসক পরিষদের সভাপতি ডা. মো. মহিউদ্দিন জিলানী এ ঘোষণা দেন।

তিনি বলেন, ‘১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস। এ ছাড়া চিকিৎসা সেবার কথা মাথায় রেখে আমরা আমাদের কর্মবিরতি প্রত্যাহার করে নিচ্ছি। আজ থেকেই আমরা কাজে যোগদান করছি।’

মহিউদ্দিন জিলানী বলেন, ‘মারধরে জড়িতদের শনাক্তে সবাই আমাদের আশ্বস্ত করেছেন এবং তাদের কাজের অগ্রগতি দেখেই আমরা এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’

এর আগে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ইন্টার্ন চিকিৎসক একেএম সাজ্জাদ হোসেনকে মারধরের ঘটনা ঘটে। মারধকারীরা সে সময় নিজেদের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী বলে পরিচয় দিয়েছিল।

সন্ধ্যার দিকে ঢাকা মেডিক্যা কলেজ হাসপাতালের সভাকক্ষে পুলিশ, ঢাবি ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে দীর্ঘ বৈঠকের পর কর্মবিরতি প্রত্যাহারের এ সিদ্ধান্ত নেয় ইন্টার্ন চিকিৎসকরা।

সভায় উপস্থিত ছিলেন ঢাবির সহকারী প্রক্টর লিটন কুমার সাহা, ঢাকা মেট্রোপলিটনের রমনা জোনের উপ-কমিশনার মো. শহীদুল্লাহ, শাহবাগ থানার ওসি মওদূত হাওলাদার, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের মহাসচিব অধ্যাপক ডা. এম এ আজিজ, সভাপতি অধ্যাপক ডা. ইকবাল আর্সনাল, ঢামেক হাসপাতাল পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. নাজমুল হক, ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. টিটো মিঞা, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয়সহ ইন্টার্ন চিকিৎসক ও সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

আরও পড়ুন:
ইন্টার্নদের কর্মবিরতিতে ঢাকা মেডিক্যালে চাপ
সাংবাদিক মারধরে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি
ডা. সাজ্জাদকে মারধর: ইন্টার্নদের কর্মবিরতির আল্টিমেটাম
শহীদ মিনারে মারধর: ইন্টার্ন চিকিৎসকদের আলটিমেটাম
অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে ৩ জন

মন্তব্য

ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল
Missing Gumai found dead in the river after being called by a friend

বন্ধুর ডাকে বেরিয়ে নিখোঁজ, গুমাই নদীতে মরদেহ

বন্ধুর ডাকে বেরিয়ে নিখোঁজ, গুমাই নদীতে মরদেহ
সাগরের বাবা শাহর আলী জানান, শুক্রবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে এক বন্ধুর মোবাইল কল পেয়ে সাগর বাড়ি থেকে বের হয়। রাতে না ফেরায় তারা বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি করেন। এ সময়ে সাগরের মোবাইল ফোন বন্ধ ছিল।

নেত্রকোণার কলমাকান্দায় নিখোঁজ হওয়ার দুদিন পর গুমাই নদী থেকে সাগর মিয়া নামের কিশোরের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

রোববার বিকেল ৪টার দিকে উপজেলার রাজনগর গ্রামে নদী থেকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়।

সাগর মিয়া কলমাকান্দার পোগলা ইউনিয়নের রামপুর গ্রামের শাহর আলীর ছেলে। সে হাজীগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ে নবম শ্রেণিতে পড়ত।

কলমাকান্দা থানার ওসি মোহাম্মদ আবদুল আহাদ খান এসব তথ্য জানান।

সাগরের বাবা শাহর আলী জানান, শুক্রবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে এক বন্ধুর মোবাইল কল পেয়ে সাগর বাড়ি থেকে বের হয়। রাতে না ফেরায় তারা বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি করেন। এ সময়ে সাগরের মোবাইল ফোন বন্ধ ছিল।

দুপুর ২টার দিকে রাজনগর গ্রামে গুমাই নদীতে সাগরের মরদেহ ভাসতে দেখে এলাকাবাসী থানায় জানান। পুলিশ গিয়ে মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য নেত্রকোণা সদর আধুনিক হাসপাতাল মর্গে নেয়।

ওসি জানান, সাগরের মৃত্যুর কারণ নিশ্চিত হওয়া যায়নি। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

আরও পড়ুন:
শিক্ষক খাইরুনের মৃত্যুতে সংবাদমাধ্যমের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন
রাজধানীতে দেবরের বাসায় গৃহবধূর ঝুলন্ত মরদেহ
‘ভাইরাল হওয়ার পর মানসিক চাপে পড়েন শিক্ষক খাইরুন’
বাঁশঝাড়ে স্কুলছাত্রের মরদেহ
শিক্ষক খাইরুনের মৃত্যু: স্বামী মামুন পুলিশ হেফাজতে

মন্তব্য

ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল
Coaches derailed in Gazipur along with Dhaka rail closure in northern and western areas

গাজীপুরে বগি লাইনচ্যুত, ঢাকার সঙ্গে রেলে বন্ধ উত্তর ও পশ্চিমাঞ্চল

গাজীপুরে বগি লাইনচ্যুত, ঢাকার সঙ্গে রেলে বন্ধ উত্তর ও পশ্চিমাঞ্চল
জয়দেবপুর রেলওয়ে জংশনের ইনচার্জ রেজাউল ইসলাম জানান, ঢাকা থেকে ছেড়ে যাওয়া পঞ্চগড়গামী দ্রুতযান এক্সপ্রেসের চারটি বগি লাইনচ্যুত হলে একটি সম্পূর্ণ উল্টে যায়।

গাজীপুরের ধীরাশ্রম এলাকায় পঞ্চগড়গামী দ্রুতযান এক্সপ্রেসের চারটি যাত্রীবাহী বগি লাইনচ্যুত হয়েছে। এতে আহত হয়েছেন ৭ যাত্রী। দুর্ঘটনার কারণে ঢাকার সঙ্গে উত্তরাঞ্চল ও পশ্চিমাঞ্চলের ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে।

দ্রুতযান এক্সপ্রেস ট্রেনে রোববার রাত সোয়া ৯টার দিকে এই দুর্ঘটনা ঘটে।

আহতদের শহীদ তাজউদ্দিন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

জয়দেবপুর রেলওয়ে জংশনের ইনচার্জ রেজাউল ইসলাম এসব নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, ঢাকা থেকে ছেড়ে যাওয়া পঞ্চগড়গামী দ্রুতযান এক্সপ্রেসের চারটি বগি লাইনচ্যুত হলে একটি সম্পূর্ণ উল্টে যায়। রেললাইন থেকে বগিগুলো না সরানো পর্যন্ত ঢাকার সঙ্গে উত্তরবঙ্গ ও উত্তর-পশ্চিমবঙ্গগামী ট্রেন চলাচল বন্ধ থাকবে।

তিনি আরও জানান, আহতরা হলেন নিপুন, ফাহিম, হিমেল, বিথি, আহসান হাবিব, ইব্রাহিম হোসেন ও জাকিয়া সুলতানা।

আরও পড়ুন:
মিরসরাইয়ে দুর্ঘটনা: আইসিইউতে মারা গেলেন আরেকজন
মীরসরাই দুর্ঘটনা: চমেকে আরও একজনের মৃত্যু
ট্রেন তো সোজা চলে, দুর্ঘটনার দায় রেলের কেন: রেলমন্ত্রী
মীরসরাইয়ের ঘটনায় গেটম্যান বরখাস্ত
মীরসরাই দুর্ঘটনা: ৫ জনের দাফন

মন্তব্য

p
উপরে