হাসপাতালের দুর্নীতি: সাংবাদিকের জামিন

হাসপাতালের দুর্নীতি: সাংবাদিকের জামিন

আদালতে তোলার পর তানুকে পাঁচ দিনের রিমান্ডে পেতে আবেদন করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সদর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) ডালিম কুমার রায়। তানুর আইনজীবী রিমান্ড বাতিল চেয়ে তার জামিনের আবেদন করেন। বিচারক দুই পক্ষের শুনানি শেষে জামিন দেন তানুকে।

ঠাকুরগাঁওয়ে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় গ্রেপ্তার সাংবাদিক তানভীর হাসান তানুকে জামিন দিয়েছে আদালত।

ঠাকুরগাঁওয়ের মুখ্য বিচারিক হাকিম (সিজেএম) আদালতের বিচারক আরিফুল ইসলাম রোববার বেলা সাড়ে তিনটার দিকে পাঁচ হাজার টাকা মুচলেকায় তাকে জামিন দেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন তানুর আইনজীবী আব্দুল হালিম।

আদালতে তোলার পর তানুকে পাঁচ দিনের রিমান্ডে পেতে আবেদন করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সদর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) ডালিম কুমার রায়। তানুর আইনজীবী রিমান্ড বাতিল চেয়ে তার জামিনের আবেদন করেন।

বিচারক দুই পক্ষের শুনানি শেষে জামিন দেন তানুকে।

এর আগে শনিবার রাতে থানাহাজতে অসুস্থ হয়ে পড়ায় তানুকে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। হাসপাতালের বিছানায় হাতকড়া দিয়ে বেঁধে রাখা হয় তাকে।

ঠাকুরগাঁও সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তানভীরুল ইসলাম জানিয়েছিলেন, রাত ১টার দিকে তানুর শ্বাসকষ্ট দেখা দিলে তাকে সদর হাসপাতালে নেয়া হয়।

তানুর বাবা আবু তাহের জানিয়েছিলেন, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছিলেন তানু। সম্প্রতি সুস্থ হন তিনি। তবে এখনও তিনি অসুস্থতা অনুভব করছেন। তাকে নিয়মিত ওষুধ খাওয়ানো হচ্ছে।

হাসপাতালের দুর্নীতি: সাংবাদিকের জামিন

হাসপাতাল থেকে রোববার সকালে তানুকে নেয়া হয় আদালতে।

তানু ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশন ও অনলাইন সংবাদমাধ্যম জাগো নিউজের ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি হিসেবে কর্মরত।

ঠাকুরগাঁওয়ে করোনা রোগীদের খাবারের জন্য বরাদ্দ দেয়া টাকা আত্মসাৎ করে নিম্নমানের খাবার সরবরাহ নিয়ে সংবাদ প্রকাশের জেরে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের মামলায় শনিবার তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে করা মামলায় তাকে ছাড়াও আসামি করা হয়েছে অনলাইন সংবাদমাধ্যম নিউজবাংলা টোয়েন্টিফোর ডটকমের প্রতিনিধি রহিম শুভ ও বাংলাদেশ প্রতিদিনের ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি আব্দুল লতিফ লিটুকে। গ্রেপ্তার-আতঙ্কে আছেন তারাও।

তানুকে গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার চেয়ে জেলা প্রেস ক্লাব চত্বরে বিক্ষোভ করেছেন সংবাদকর্মীরা।

প্রেস ক্লাবের সভাপতি মনসুর আলী বলেন, অভিযোগসংক্রান্ত প্রতিবেদন প্রকাশ হওয়ার পর প্রতিবাদলিপিসহ বিভিন্নভাবে অবস্থান ব্যাখ্যা করার সুযোগ আছে। কিন্তু এ ধরনের কোনো পন্থায় না গিয়ে সরাসরি সাংবাদিকের নামে মামলা করে তাকে গ্রেপ্তারের মাধ্যমে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের অপপ্রয়োগ করা হয়েছে।

সংবাদে যা বলা ছিল

ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালের খাবারের মান নিয়ে ৬ জুলাই নিউজবাংলায় একটি প্রতিবেদন প্রকাশ হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে শনিবার নিউজবাংলার প্রতিনিধিসহ তিনজনের বিরুদ্ধে আইসিটি ধারায় ঠাকুরগাঁও সদর থানায় মামলা করেন হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক নাদিরুল আজিজ চপল।

সংবাদে বলা ছিল, ঠাকুরগাঁও জেলা সদর হাসপাতালে করোনা রোগীদের খাবারের জন্য প্রতিদিন ৩০০ টাকা করে বরাদ্দ থাকলেও তাদের নিম্নমানের খাবার দেয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন রোগী ও স্বজনরা। তারা বলছেন, তিনবেলা যে খাবার তাদের দেয়া হচ্ছে, তার দাম ৭০ থেকে ৮০ টাকা হবে।

হাসপাতালের দুর্নীতি: সাংবাদিকের জামিন

তাদের অভিযোগ, খাবারের সঙ্গে বিভিন্ন ফল দেয়ার কথা থাকলেও তা তারা পাচ্ছেন না। নিম্নমানের খাবারের কারণে অনেকেই বাসা থেকে খাবার আনিয়ে খান। বাইরে থেকে খাবার নিয়ে করোনা ইউনিটে আসা-যাওয়া করায় সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ারও ঝুঁকি রয়েছে।

তাদের সকালের নাশতায় দেয়া হচ্ছে একটি পাঁচ টাকা দামের পাউরুটি, আট টাকা দামের ডিম ও চার-পাঁচ টাকা দামের কলা।

দুপুরে ভাতের সঙ্গে ডাল, একটি ডিম অথবা এক টুকরা মাছ দেয়া হয়। আর রাতে দেয়া হয় ভাত, এক টুকরা মাছ অথবা একটি ডিম। বর্তমান বাজারদরে তিন বেলার এ খাবারের দাম হিসাব করলে দাঁড়ায় ৭০ থেকে ৮০ টাকা।

হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা রাকিবুল ইসলাম চয়ন নিউজবাংলাকে সে সময় বলেন, ‘তালিকা অনুযায়ী চিকিৎসাধীন করোনা রোগীদের সব ধরনের খাদ্য পাওয়ার কথা। আমি আপনার কাছে শুনলাম করোনা রোগীরা খাবার পায় না। খোঁজ নিয়ে আমি দ্রুত এর ব্যবস্থা নেব।’

এর জেরে শনিবার দুপুরে হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক নাদিরুল আজিজ সদর থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে তিন সাংবাদিককে আসামি করে মামলা করেন।

মামলার এজাহারেই হাসপাতালে খাদ্য সরবরাহে ব্যাঘাত ঘটার কথা স্বীকার করে নেয়া হয়েছে। এতে বলা হয়, লকডাউনের কারণে খাদ্য সরবরাহে দুই-এক দিন ‘সামান্য ব্যত্যয়’ হয়েছে।

হাসপাতালের দুর্নীতি: সাংবাদিকের জামিন

আবার সংবাদটিকে মিথ্যা, ভিত্তিহীন, বানোয়াট, জনরোষ সৃষ্টিকারী ও মানহানিকর উল্লেখ করে এজাহারে এও দাবি করা হয় যে, এই সংবাদ প্রকাশের উদ্দেশ্য অসৎ। রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানের কর্মীদের ভাবমূর্তি বিনষ্ট ও সুনাম ক্ষুণ্ণ করা ও আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটিয়ে সরকারকে বেকায়দায় ফেলার মতো অভিযোগও আনা হয় মামলায়।

এমন দুর্বল অভিযোগ থাকার পরও তড়িঘড়ি করে আসামি গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিয়ে জানতে চাইলে ঠাকুরগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তানভীরুল ইসলাম বলেন, ‘মামলার এক নম্বর আসামি থানায় এসেছিলেন। পরবর্তী সময়ে ঊর্ধ্বতনদের সঙ্গে কথা বলে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।’

ঊর্ধ্বতন ব্যক্তি কে, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আসামি থানায় আসার পর তদন্ত কর্মকর্তা আমাকে জানিয়েছেন। আমি পুলিশ সুপার মহোদয়কে জানিয়েছি। তার নির্দেশক্রমেই গ্রেপ্তার করা হয়েছে।’

গ্রেপ্তারের বিষয়ে কোনো চাপ ছিল কি না, এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, ‘তদন্ত কর্মকর্তা স্বাধীন। তিনি আসামিকে গ্রেপ্তার করতে চাইলে আমি কিছু বলতে পারি না।’

আরও পড়ুন:
হাসপাতালে দুর্নীতি: গ্রেপ্তার সাংবাদিক আদালতে
হাসপাতালে দুর্নীতি: গ্রেপ্তার সাংবাদিক হাতকড়াসহ হাসপাতালে
করোনা রোগীর খাদ্যে দুর্নীতি: প্রকাশের জেরে সাংবাদিক গ্রেপ্তার

শেয়ার করুন

মন্তব্য