‘স্বপ্ন দেখে’ স্ত্রী-সন্তানকে হত্যা!

‘স্বপ্ন দেখে’ স্ত্রী-সন্তানকে হত্যা!

গোয়াইনঘাটের আমলগ্রহণকারী আদালতের বিচারক আলমগীর হোসেনের কাছে বৃহস্পতিবার বিকেলে জবানবন্দি দেন হিফজুর। এ সময় স্ত্রী ও সন্তানদের ঘুমন্ত অবস্থায় ধারাল বটি দিয়ে কুপিয়ে খুন করার বর্ণনা দেন তিনি।

সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার ফতেহপুর ইউনিয়নের বিন্নাকান্দি দক্ষিণ পাড়া গ্রামের নিজ ঘর থেকে গত ১৬ জুন সকালে আলিমা বেগম ও তার দুই সন্তান মিজান এবং তানিশার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। ওই ঘর থেকেই আলিমার স্বামী হিফুজরকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়।

হিফজুরই তার স্ত্রী সন্তানদের হত্যা করেছেন বলে ধারণা করছিল পুলিশ। বৃহস্পতিবার এই হত্যার দায় স্বীকার করে তিনি আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন।

আদালতে দেয়া জবানবন্দিতে হিফজুর জানান, ‘স্বপ্ন দেখে’ স্ত্রী-সন্তানকে হত্যা করেন তিনি।

গোয়াইনঘাটের আমলগ্রহণকারী আদালতের বিচারক আলমগীর হোসেনের কাছে বৃহস্পতিবার বিকেলে জবানবন্দি দেন হিফজুর। এ সময় স্ত্রী ও সন্তানদের ঘুমন্ত অবস্থায় ধারাল বটি দিয়ে কুপিয়ে খুন করার বর্ণনা দেন তিনি।

গোয়াইনঘাট থানার পরিদর্শক (তদন্ত) দিলীপ কান্তি নাথ এ তথ্য জানিয়েছেন।

হিফজুরের জবানবন্দির বরাত দিয়ে দিলীপ বলেন, ‘মাছ কাটার স্বপ্ন দেখে’ দুই শিশু সন্তানসহ স্ত্রীকে খুন করার কথা আদালতে স্বীকার করেছেন হিফজুর।

সিলেটের গোয়াইনঘাটে দুই সন্তানসহ আলিমাকে হত্যার ঘটনায় গত রোববার হিফজুরকে পাঁচ দিনের রিমান্ডে নেয় পুলিশ। এর আগের দিন তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। রিমান্ড শেষে বৃহস্পতিবার তাকে আদালতে হাজির করা হয়।

গোয়ানঘাট থানা পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গত ২০ জুন সিলেট ওসমানী হাসপাতাল থেকে ছাড়া পান হিফজুর। এরপর তাকে আদালতে তুলে ৭ দিনের রিমান্ড চাওয়া হয়। শুনানি শেষে গোয়াইনঘাট আমলি আদালতের বিচারক অঞ্জন কান্তি দাস হিফজুরকে ৫ দিনের রিমান্ডে পাঠান।

১৬ জুন থেকে হিফজুর পুলিশ প্রহরায় সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। তার আচরণ প্রথম থেকেই সন্দেহজনক বলে জানিয়েছিল পুলিশ।

খুন হওয়ার সময় পাঁচ মাসের অন্তঃসত্ত্বা ছিলেন আলিমা বেগম। ফলে পুলিশের মতে, তিনজন নয়, ওইদিন খুন করা হয়েছে আদতে চারজনকে।

সিলেটের পুলিশ সুপার কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে গত শনিবার দুপুরে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘হিফজুরের স্ত্রী আলিমাপাঁচ মাসের অন্তঃসত্ত্বা ছিলেন বলে আমরা ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসকদের সঙ্গে কথা বলে জেনেছি। ঘাতকের বটির কোপে তার গর্ভে থাকা পাঁচ মাসের সন্তানও মারা গেছে। সে হিসেবে এ ঘটনায় চারজন মারা গেছেন। আমরা ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন হাতে পাওয়ার পর ভ্রূণহত্যার অভিযোগও আনব।

পুলিশ প্রাথমিকভাবে ধারণা করেছিল সম্পত্তিসংক্রান্ত বিরোধ থেকে এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটতে পারে। তবে তথ্য উপাত্ত এবং বিভিন্নজনকে জিজ্ঞাসাবাদের ভিত্তিতে পুলিশ সন্দেহ করে হিফজুরকে।

১৫ জুন রাতের কোনো এক সময় স্ত্রী ও দুই সন্তানকে হত্যা করেন হিফজুর। ওই রাতে মামার বাসায় থাকায় বেঁচে যায় ওই দম্পতির পাঁচ বছরের ছেলে আফসান। পরদিন নিহত নারীর বাবা আয়ুব আলী বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামাদের আসামি করে মামলা করেন।

পুলিশ জানায়, পেশায় দিনমজুর হিফুজর তার মামার বাড়িতে ঘর বানিয়ে থাকেন। হিফজুর যে ঘরে থাকতেন ওই ঘরটি তার মায়ের পৈত্রিক সম্পত্তি থেকে পাওয়া।

স্থানীয় লোকজন জানান, বুধবার সকালে অনেক বেলা পর্যন্ত ঘুম থেকে উঠছিলেন না হিফজুরের পরিবারের সদস্যরা। দেরি দেখে প্রতিবেশিরা হিফজুরের ঘরের সামনে যান। এসময় ভেতর থেকে কান্নার শব্দ শুনে দরজায় ধাক্কা দেন তারা।

প্রতিবেশিরা জানান, দরজার সিটকিনি খোলাই ছিল। ভেতরে ঢুকে খাটের মধ্যে তিন জনের জবাই করা মরদেহ ও হিফজুরকে রক্তাক্ত অবস্থায় দেখতে পান তারা। পরে পুলিশ লাশ তিনটি উদ্ধার করেন এবং হিফজুরকে হাসপাতালে পাঠায়।

আরও পড়ুন:
গোয়াইনঘাটে তিন খুন: হিফজুর ৫ দিনের রিমান্ডে
গোয়াইনঘাটে তিন খুন: আহত হিফজুর গ্রেপ্তার
গোয়াইনঘাটে তিন খুনে মামলা, আসামি অজ্ঞাতপরিচয়
মামার বাড়িতে থাকায় বেঁচে যায় আফসান
গোয়াইনঘাটে তিন খুন : সন্দেহের তির আহত স্বামীর দিকেই

শেয়ার করুন

মন্তব্য