‘তদন্ত কর্মকর্তা নিজেই পুচি ফ্যামিলির ফ্যান’

‘তদন্ত কর্মকর্তা নিজেই পুচি ফ্যামিলির ফ্যান’

রীদি বলেন, ‘খোঁজ নিয়ে নিশ্চিত হয়েছি, তদন্ত কর্মকর্তা ও পুচি ফ্যামিলির তাপসীর স্বামী পার্থ চৌধুরীর বাড়ি চট্টগ্রামে। তারা পূর্বপরিচিত। তার ওপর তাপসীর টপ ফ্যান হিসাবে নিজেই স্বীকার করেছেন। তাই এই পুলিশ কর্মকর্তার ওপর আমাদের আস্থা নেই।’

পুচি ফ্যামিলির তাপসী দাশের বিরুদ্ধে বিড়াল নির্যাতনের দুটি অভিযোগের তদন্ত কর্মকর্তা এসআই শরিফুল ইসলাম নিজেই তাপসী দাশের ফ্যান। এ কারণে তাপসীর বিরুদ্ধে মুখে মুখে ব্যবস্থা গ্রহণের কথা বললেও গোপনে তাকে সহযোগিতা করছেন।

নিউজবাংলার কাছে এমন অভিযোগ করেছেন এএলবি অ্যানিমাল শেল্টারের চেয়ারম্যান দীপান্বিতা রীদি।

তিনি বলেন, ‘তদন্ত কর্মকর্তা প্রথম দিকে আমাদের অভিযোগ পড়েই বলে ওঠেন, আরে পুচি ফ্যামিলিকে তো আমি চিনি। আমি ওদের টপ ফ্যান। কবে কোন বিড়ালের বিয়ে দিয়েছে, সব মুখস্থ আমার।'

রীদি বলেন, ‘তার এমন কথা শুনেই আমাদের সন্দেহ হয়েছিল। আজ তার প্রমাণ পেলাম। কারণ উনি বিড়াল উদ্ধারের কথা বলে তাপসীর বাসায় যান। ফিরে এসে বলেন, বাসায় তালা।’

রীদি প্রশ্ন রেখে বলেন, ‘বাসায় তালা হলে ভেতর থেকে লাইভ করছে কীভাবে? কারণ আজকেও তিনি লাইভ ভিডিও প্রচার করেছেন ইউটিউবে। খোঁজ নিয়ে নিশ্চিত হয়েছি, তদন্ত কর্মকর্তা ও পুচি ফ্যামিলির তাপসীর স্বামী পার্থ চৌধুরীর বাড়ি চট্টগ্রামে। তারা পূর্বপরিচিত। তার ওপর তাপসীর টপ ফ্যান হিসাবে নিজেই স্বীকার করেছেন। তাই এই পুলিশ কর্মকর্তার ওপর আমাদের আস্থা নেই।’

এসব প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই শরিফুল ইসলাম বলেন, ‘পুচি ফ্যামিলির ফলোয়ার ৪০ হাজারের ওপরে। সেটা কে না দেখে। এখানে ফ্যান হওয়ার কী আছে?’

পুচি ফ্যমিলির তাপসী আপনার পূর্বপরিচিত কি না এমন প্রশ্নে তদন্তকারী কর্মকর্তা বলেন, ‘তাপসীর স্বামী পার্থ চৌধুরীর বাড়ি চট্টগ্রামে। আমার বাড়ি কিশোরগঞ্জে। আর তাপসীর বাড়ি আড়াইহাজারে। তাকে কয়েক দিন ফোন করেছি, কখনও বলেছেন নরসিংদীতে, কখনও বলেছেন নারায়ণগঞ্জে। আজকেও ফোন করেছি, বলেছেন পুরান ঢাকায় আছেন। তার বাসায় গিয়ে কাউকে পাইনি। শুধু ১৫ থেকে ২০টা বিড়াল দেখেছি।’

লিখিত অভিযোগের আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে এসআই শরিফুল বলেন, ‘মনিরা নামে এক নারী তার বিড়াল আটকে রেখেছে বলে তাপসীর বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন, সেই বিড়াল উদ্ধারের জন্যই গিয়েছিলাম।’

এএলবি অ্যানিমাল শেল্টারের বিড়াল নির্যাতনের অভিযোগ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘বিড়ালরে যে মারছে মেডিক্যাল সার্টিফিকেট আছে? এটা কী ধরনের অভিযোগ? এটা প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় কিংবা অধিদপ্তরে অভিযোগ করে তাদের মাধ্যমে আসলে কিংবা আদালতের মাধ্যমে আসলে আমরা ব্যবস্থা গ্রহণ করব। অন্যথায় এ বিষয়ে আমরা কিছু করতে পারব না।’

এএলবি অ্যানিমাল শেল্টারের বিড়ালপ্রেমীরা জানান, বুধবার সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত তারা থানা পুলিশ, মিরপুর ডিওএইচএসের পরিষদ ও খামারবাড়ি প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরে ঘুরেছেন নির্যাতনের শিকার বিড়ালগুলো উদ্ধারের জন্য।

দীপান্বিতা রীদি বলেন, ‘ডিওএইচএসের পরিষদ থেকে তাপসীর বাসায় অভিযান চালানোর সম্মতি দেয়া হলেও পুলিশের তদন্ত কর্মকর্তা আমাদের না নিয়ে তালা মারা দেখে ফিরে এসেছেন বলে দাবি করেন। পরে থানার ওসির কাছে গেলে তিনি জানান, লাইভ স্টকে মামলা করা ছাড়া তারা কোনো ব্যবস্থা নিতে পারবেন না।’

তিনি বলেন, ‘এরপর কর্মীরা খামারবাড়ি প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরে যান। সেখান থেকে বলা হয়, থানাতেই মামলা করতে হবে। সে ক্ষেত্রে পুলিশ চাইলে লাইভ স্টক থেকে একজন প্রতিনিধি পাঠাতে পারেন। আইনগত ব্যবস্থা থানাকেই নিতে হবে।’

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক - ইউটিউবে বিড়ালের নানা কর্মকাণ্ডের ভিডিও প্রচার নিয়ে আলোচিত-সমালোচিত ‘পুচি ফ্যামিলি’ র তাপসী দাশ। তার বিরুদ্ধে বিড়াল নির্যাতনের অভিযোগে গত ১৩ জুন পল্লবী থানায় দুটি লিখিত অভিযোগ জমা দেন এএলবি অ্যানিমাল শেল্টারের তাজকিয়া দিলরুবা ও বিড়ালপ্রেমী আরেক নারী। ওই দুটি লিখিত অভিযোগে বিড়ালের ওপর নানা ধরনের নির্যাতনের অভিযোগ করা হয়।

আরও পড়ুন:
পুলিশের ডাকে সাড়া দিচ্ছেন না ‘পুচি ফ্যামিলি’র তাপসী
বিড়াল নিয়ে ‘মিটিং’ ডেকেছে পুলিশ
‘পুচি ফ্যামিলি’র তাপসীর বিরুদ্ধে বিড়াল নির্যাতনের অভিযোগ
ফটিকছড়িতে মেছো বিড়াল উদ্ধার
গাড়ির মডেল ম্যাও ম্যাও

শেয়ার করুন

মন্তব্য