ধীরাজ হত্যায় মামলা, বিচার দাবিতে অবরোধ

ধীরাজ হত্যায় মামলা, বিচার দাবিতে অবরোধ

ধীরাজ হত্যার প্রতিবাদে সড়ক অবরোধ। ছবি: নিউজবাংলা

পুলিশ ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) সিলেটের পুলিশ সুপার খালেদ উজ জামান সোমবার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এর আগে শনিবার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন সিলেটের পুলিশ সুপার ফরিদ উদ্দিন। পুলিশ এ পর্যন্ত জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৭ জনকে আটক করেছে।

সিলেটের বালাগঞ্জ উপজেলার গহরপুরে ইটভাটার ব্যবস্থাপক ধীরাজ পালকে হত্যার ঘটনায় মামলা হয়েছে।

নিহতের বড় ছেলে প্রভাকর পাল বাপ্পা শনিবার মধ্যরাতে অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তিদের আসামি করে বালাগঞ্জ থানায় এই মামলা করেন।

হত্যার সঙ্গে জড়িতদের গ্রেপ্তার, সুষ্ঠু তদন্ত ও দ্রুত বিচারের দাবিতে রোববার দুপুরে সিলেট-জকিগঞ্জ সড়ক অবরোধ করেন আলমপুরের বাসিন্দারা। প্রায় ঘণ্টাব্যাপী এই কর্মসূচিতে নগরের ২৭ নম্বর ওয়ার্ডের তিন শতাধিক মানুষ অংশ নেন।

ধীরাজ পাল দক্ষিণ সুরমা উপজেলার মোগলাবাজার থানার আলমপুর এলাকার মৃত দিজেন্দ্র পালের ছেলে।

পুলিশ ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) সিলেটের পুলিশ সুপার খালেদ উজ জামান সোমবার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এর আগে শনিবার ঘটনাস্থলে যান সিলেটের পুলিশ সুপার ফরিদ উদ্দিন। পুলিশ এ পর্যন্ত জিজ্ঞাসাবেদের জন্য ৭ জনকে আটক করেছে।

ধীরাজ হত্যায় জড়িতদের গ্রেপ্তারের দাবিতে রোববার দুপুর ১২টায় বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয়ের সামনে মানববন্ধন করেন এলাকাবাসী। কর্মসূচি শেষে সিলেট-জকিগঞ্জ সড়ক অবরোধ করেন তারা।

পরে পুলিশ ও র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে খুনিদের গ্রেপ্তারের আশ্বাস দিলে এলাকাবাসী অবরোধ প্রত্যাহার করেন।

ধীরাজ হত্যায় মামলা, বিচার দাবিতে অবরোধ


অবরোধের কারণে ব্যস্ততম এই সড়কের দুই পাশে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়।

অবরোধ শেষে ২৭ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আজম খানের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল সিলেটের ডিআইজি মফিজ উদ্দিন আহম্মদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও আসামিদের দ্রুত গ্রেপ্তারের আশ্বাস দেন।

অবরোধের সময় র‌্যাব-৯-এর অধিনায়ক আবু মুসা মো. শরীফুল ইসলাম ও মোগলাবাজার থানার ওসি শামসুদ্দোহা ঘটনাস্থলে গিয়ে হত্যার ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও দ্রুত আসামিদের গ্রেপ্তারের আশ্বাস দেন। এ ছাড়া পুলিশ সুপার ফরিদ উদ্দিন আহমদ ফোনে একই আশ্বাস দিলে বিক্ষুব্ধ জনতা অবরোধ তুলে নেন।

অবরোধের সময় উপস্থিত ছিলেন সিলেট সিটি করপোরেশনের ২৭ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আজম খান, আওয়ামী লীগের সভাপতি ইরান আহমদ, সাধারণ সম্পাদক সয়েফ খান, সহসভাপতি আব্দুল মন্নান, ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি গোলজার আহমদ, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আহাদ, কৃষক লীগ নেতা শামীম কবির,

গোটাটিকর ব্রাদার্স ক্লাবের সভাপতি বাবর আহমদ, সমাজসেবী নাজিম উদ্দীন, সিলেট অনলাইন প্রেস ক্লাবের সদস্য আব্দুল হাছিব, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ও ব্যবসায়ী রিকন পাল, পিনাক দে পটল, জাহাঙ্গীর আলম, নিহতের ভাতিজা দিপংকর তালুকদার টিপু, জোবায়ের আহমদ, সরোয়ার আহমদ চৌধুরী, আবদুল্লাহ মো আদিল, ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ ২২ নম্বর ওয়ার্ড ও কুচাই ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকার তিন শতাধিক মানুষ।

এ সময় কাউন্সিলর আজম খান ধীরাজ হত্যার বিচারের দাবি জানিয়ে বলেন, ‘এমন ঘটনায় এলাকাবাসী ক্ষুব্ধ। সর্বস্তরের মানুষ আজ রাস্তায় নেমে এসেছে। এখন পর্যন্ত এই হত্যার কোনো ক্লু উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ। আমরা দ্রুততম সময়ে হত্যা রহস্য উদঘাটন করে আসামিদের গ্রেপ্তারের দাবি জানাচ্ছি।’

বালাগঞ্জের গহরপুর রতনপুর ইটভাটার ব্যবস্থাপক ধীরাজকে তার কর্মস্থলে ঢুকে শুক্রবার দুপুরে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করে দুর্বৃত্তরা। এরপর দুর্বৃত্তরা ইটভাটার টাকাপয়সা লুট করে পালিয়ে যায়।

স্থানীয়রা ধীরাজকে উদ্ধার করে সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনার পর বালাগঞ্জ থানা পুলিশ ও জেলা গোয়েন্দা পুলিশ আলাদা অভিযান চালিয়ে ৭ জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে।

ধীরাজের মরদেহের ময়নাতদন্ত শেষে শনিবার দুপুরে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয় এবং ওই দিন বিকেলে তার সৎকার করা হয়। এরপর রাতে ধীরাজের পরিবারের পক্ষ থেকে অজ্ঞাতপরিচয়দের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়।

শেয়ার করুন

মন্তব্য

মানিকগঞ্জের সেই হাসপাতালে ঢুকতে সংবাদকর্মীর বাধা নেই

মানিকগঞ্জের সেই হাসপাতালে ঢুকতে সংবাদকর্মীর বাধা নেই

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলছে, সংবাদ কর্মীরা হাসপাতালে প্রবেশ করতে পারবে না জানিয়ে মঙ্গলবার যে চিঠি দেয়া হয়েছিল সেখানে ভাষাগত ত্রুটি হয়েছে। ওই চিঠি প্রত্যাহার করা হয়েছে।

এক দিনের ব্যবধানে সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসেছে মানিকগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল। চিঠি দিয়ে হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক জানিয়েছেন, সংবাদ কর্মীরা আগের মতোই হাসপাতালে প্রবেশ করতে পারবেন।

এর আগে করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধির কথা জানিয়ে হাসপাতালে সাংবাদিক প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিল হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

বুধবার মানিকগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক বরাবর পাঠানো এক চিঠিতে নতুন সিদ্ধান্তের কথা জানান হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক।

চিঠিতে বলা হয়, সংবাদ কর্মীরা হাসপাতালে প্রবেশ করতে পারবে না জানিয়ে মঙ্গলবার যে চিঠি দেয়া হয়েছিল সেখানে ভাষাগত ত্রুটি হয়েছে। ওই চিঠি প্রত্যাহার করা হয়েছে। সংবাদকর্মীরা আগের মতোই সংবাদ সংগ্রহ করতে পারবেন।

মঙ্গলবার পাঠানো চিঠিতে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছিল, মানিকগঞ্জের সাত উপজেলায় করোনা সংক্রমণ ও মৃত্যু অস্বাভাবিক হারে বেড়ে গেছে। করোনা রোগী বেড়ে যাওয়ায় মানিকগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালকে সম্পূর্ণভাবে কোভিড ডেডিকেটেড হাসপাতাল হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। হাসপাতালের বিভিন্ন ওয়ার্ডে ও ফ্লোরেও রোগীদের চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

এমন পরিস্থিতিতে সংবাদকর্মী ও চিকিৎসাধীন করোনা রোগীদের সুরক্ষায় হাসপাতালের ভেতরে প্রবেশ থেকে বিরতি থাকার অনুরোধ করা হলো। তবে আগের মতো দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের কাছ থেকে তথ্য নেয়া যাবে।

এর প্রতিক্রিয়ায় মানিকগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক অতীন্দ্র চক্রবর্তী বিপ্লব বলেন, ‘গণমাধ্যমকর্মীরা সব সময় সচেতন ও সুরক্ষা নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন। তবে রোগীদের চিকিৎসা, অনিয়ম, অবহেলা ও অব্যবস্থাপনা হলে তো সংবাদকর্মীদের হাসপাতালে গিয়ে কাজ করতে হবে।’

শেয়ার করুন

পরীমনির বিরুদ্ধে মামলা করতে তৈরি নাসির

পরীমনির বিরুদ্ধে মামলা করতে তৈরি নাসির

নাসির উদ্দিন মাহমুদ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘মিথ্যার আশ্রয় নিয়ে আমাকে জনসমক্ষে সে (পরীমনি) হেয় করেছে। আমি অবশ্যই এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব, মামলা করব।’

র‍্যাবের অভিযানে আটক আলোচিত অভিনেত্রী পরীমনির বিরুদ্ধে শিগগিরই মামলা করবেন বলে জানিয়েছেন ঢাকা বোট ক্লাবের কার্যনির্বাহী কমিটির সাবেক সদস্য নাসির উদ্দিন মাহমুদ।

পরীমনির বাসায় র‍্যাবের অভিযানের মধ্যে বুধবার বিকেলে তিনি নিউজবাংলাকে এ কথা জানান।

পরীমনি গত ৯ জুন রাতে ঢাকা বোট ক্লাবে যাওয়ার পর ধর্ষণচেষ্টা ও হত্যার হুমকি পাওয়ার অভিযোগ তুলে সারা দেশে তোলপাড় ফেলেন।

এরপর ১৪ জুন তিনি সাভার থানায় নাসির উদ্দিন ও অমির বিরুদ্ধে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার মামলা করেন। মামলার পরপরই পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হন নাসির।

১ জুলাই জামিনে কারাগার থেকে মুক্তি পান নাসির উদ্দিন মাহমুদ। শুরু থেকেই তিনি নিজের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ অস্বীকার করছেন।

পরীমনির বাসায় বুধবার র‌্যাবের অভিযানের সময় নাসির নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমার সম্পর্কে সে (পরীমনি) মিথ্যার আশ্রয় নিয়েছিল, যা সত্য নয় তা বলেছিল। ভিডিও ফুটেজ এবং তার কথাবার্তা সবকিছুতেই অসংগতি ছিল। বাস্তবে এর কোনো মিল ছিল না।

‘এই মিথ্যার আশ্রয় নিয়ে আমাকে জনসমক্ষে সে হেয় করেছে। আমি অবশ্যই এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব, মামলা করব।’

তিনি বলেন, ‘আমার মানহানি হয়েছে, আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা কথা ছড়িয়েছে, ফেসবুকে মিথ্যাচার করেছে, বোট ক্লাবে ড্রিংক নিয়ে জোরাজুরি করেছে। আমি মামলা তো করবই। তাকে তো ছাড় দেয়া যায় না। আমি আমার মতো করে লিখে রেখেছি, যেকোনো সময় বিমানবন্দর থানায় পরীমনির বিরুদ্ধে মামলা করব।’

শেয়ার করুন

দরজি মনির ৪ দিনের রিমান্ডে

দরজি মনির ৪ দিনের রিমান্ডে

ঢাকার মুখ্যমহানগর আদালতে (সিএমএম) দর্জি মনির। ছবি: নিউজবাংলা

মামলার এজাহারে বলা হয়, প্রধানমন্ত্রী, প্রধানমন্ত্রীর আইসিটি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়, আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক, স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীসহ বিভিন্ন মন্ত্রী-এমপির সঙ্গে নিজের ছবি এডিট করে বসিয়ে নিজেকে বাংলাদেশ জননেত্রী শেখ হাসিনা পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি হিসেবে দাবি করতেন দরজি মনির।

আওয়ামী লীগের নাম ভাঙিয়ে ‘বাংলাদেশ জননেত্রী শেখ হাসিনা পরিষদ’ নামে একটি ভুঁইফোঁড় সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মনির খান ওরফে দরজি মনিরকে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে করা এক মামলায় চার দিনের রিমান্ডে পেয়েছে ডিবি পুলিশ।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ডিবি পুলিশের সাইবার অ্যান্ড স্পেশাল ক্রাইম বিভাগের পুলিশ পরিদর্শক মুহাম্মদ সাইফুল ইসলাম বুধবার ঢাকার মুখ্য মহানগর আদালতে (সিএমএম) ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন।

দরজি মনিরের পক্ষে আইনজীবী আমানুল করিম লিটন রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিন আবেদন করেন। রাষ্ট্রপক্ষে অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর তাপস কুমার পাল এর বিরোধীতা করেন।

শুনানি শেষে সিএমএম হাকিম ধীমান চন্দ্র মন্ডল ৪ দিনের রিমান্ড আদেশ দেন বলে নিউজবাংলাকে নিশ্চিত করেন আদালতে কামরাঙ্গীরচর থানার সাধারণ নিবন্ধন শাখার কর্মকর্তা পুলিশের উপপরিদর্শক মো. আলমগীর।

মঙ্গলবার দরজি মনিরের বিরুদ্ধে কামরাঙ্গীরচর থানায় মামলাটি করেন ঈসমাইল হোসেন নামে এক ব্যক্তি। গত রোববার রাতে আটক মনিরকে এ মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়।

মামলার এজাহারে বলা হয়, একটি ছোট দরজির দোকানে চাকরি করতেন মনির। হঠাৎ করে নিজেকে রাজনৈতিক নেতা হিসেবে পরিচয় দিতে শুরু করেন। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতার বন্ধু হন। একেক সময় একেক রাজনৈতিক পদবি, বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের এমডি হিসেবে নিজেকে পরিচয় দিতেন।

অভিযোগে বলা হয়, প্রধানমন্ত্রী, প্রধানমন্ত্রীর আইসিটি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়, আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক, স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীসহ বিভিন্ন মন্ত্রী-এমপির সঙ্গে নিজের ছবি এডিট করে বসিয়ে নিজেকে বাংলাদেশ জননেত্রী শেখ হাসিনা পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি হিসেবে দাবি করতেন দরজি মনির।

দরজি মনির ৪ দিনের রিমান্ডে
ফটোশপ করে প্রধানমন্ত্রীসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তির সঙ্গে ছবি বসিয়ে নিজেকে বড় মাপের নেতা দাবি করার অভিযোগ রয়েছে দরজি মনিরের বিরুদ্ধে। ফাইল ছবি

দরজি মনির ও তার সহযোগীরা ঢাকা মহানগরী এবং বিভিন্ন জেলা-উপজেলায় কমিটি দেয়ার নাম করে অনেকের কাছ থেকে টাকা নিতেন বলেও অভিযোগ রয়েছে।

ঈসমাইল হোসেন বলেন, গত ৩০ জুলাই বেলা আড়াইটার দিকে কামরাঙ্গীরচর থানার মাদবর বাজার ৫৭ নম্বর ওয়ার্ডে মনির তার সংগঠনের পদ প্রদান এবং বড় বড় নেতার সঙ্গে সুসম্পর্ক করিয়ে দেয়ার নাম করে দুই লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন। তিনি ডিজিটাল জালিয়াতির মাধ্যমে ছবি এডিট করে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তির সঙ্গে নিজের ছবি বসিয়ে মিথ্যা তথ্য দিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সেই ছবি প্রচার করে সাধারণ মানুষকে ঠকিয়ে আসছেন। এভাবে নিজেকে বড় মাপের নেতা হিসেবে প্রমাণের চেষ্টা করতেন।

তিনি জানান, মনির সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে নিজেকে ঢাকা-২ আসনের সংসদ সদস্য প্রার্থী হিসেবে প্রচার করে এলাকার রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ সৃষ্টি করেন। ফলে সাধারণ জনগণের মধ্যে চরম উত্তেজনা হয়েছে।

শেয়ার করুন

২ ঘণ্টা পর নিয়ন্ত্রণে রূপগঞ্জের কারখানার আগুন

২ ঘণ্টা পর নিয়ন্ত্রণে রূপগঞ্জের কারখানার আগুন

রূপগঞ্জের একটি লেদার কারখানার গুদামঘরে আগুন লাগে। ছবি: নিউজবাংলা

ঘটনাস্থলে প্রত্যক্ষদর্শী ও শ্রমিকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ওই কারখানায় চার শতাধিক শ্রমিক কাজ করেন। লকডাউনের কারণে এটি বন্ধ ছিল। কারখানার কিছু দূরে অবস্থিত এর গুদামঘর। সেখানে দুপুরে আগুন দেখে আশপাশের অন্য ভবনের শ্রমিকরা ছোটাছুটি করতে থাকেন।

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে ইউনাইটেড লেদার কারখানার গুদামে লাগা আগুন ২ ঘণ্টা পর নিয়ন্ত্রণে এসেছে বলে জানিয়েছে ফায়ার সার্ভিস।

উপজেলার তারাব পৌরসভার মৈকুলী এলাকার এম হোসেন কটন অ্যান্ড স্পিনিং মিলের ওই কারখানার গুদামে আগুন লাগে বুধবার দুপুর সাড়ে ১২টায়।

আগুন নিয়ন্ত্রণে আসার বিষয় বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ঢাকা ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের উপপরিচালক দিনোমনি শর্মা।

ঘটনাস্থলে প্রত্যক্ষদর্শী ও শ্রমিকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ওই কারখানায় চার শতাধিক শ্রমিক কাজ করেন। লকডাউনের কারণে এটি বন্ধ ছিল।

কারখানার কিছু দূরে অবস্থিত এর গুদামঘর। সেখানে দুপুরে আগুন দেখে আশপাশের অন্য ভবনের শ্রমিকরা ছোটাছুটি করতে থাকেন।

খবর পেয়ে দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে ঢাকা, ডেমরা, আড়াইহাজার, সোনারগাঁ, নারায়ণগঞ্জ ও কাঞ্চন ফায়ার সার্ভিসের ১৪টি ইউনিট সেখানে গিয়ে দুই ঘণ্টা পর আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

ফায়ার সার্ভিসের উপপরিচালক দিনোমনি শর্মা জানান, কারখানায় রাসায়নিক মজুত থাকায় আগুনের তীব্রতা বেশি ছিল। তবে সেটি বন্ধ থাকায় হতাহতের কোনো ঘটনা ঘটেনি।

শেয়ার করুন

৭ বছর পরও পদ্মার পেটে পিনাক-৬

৭ বছর পরও পদ্মার পেটে পিনাক-৬

পিনাক-৬ ডুবিতে এখনও নিখোঁজ অন্তত ৬০ জন। ছবি: নিউজবাংলা

সময়ের পরিক্রমায় আবারও এলো ৪ আগস্ট। দিনটি মনে করিয়ে দিচ্ছে সাত বছর আগে পদ্মার তীরে এক শোকাতুর দিনের কথা। ঈদ শেষে পিকাক-৬ এ চড়ে ঢাকায় ফিরছিলেন আড়াই শতাধিক যাত্রী। কাওড়াকান্দি থেকে রওনা হয়ে মাওয়ার অদূরে উত্তাল পদ্মার ঢেউয়ের তোড়ে ডুবে যায় লঞ্চটি। এতে অন্তত ৪৭ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। নিখোঁজ কমপক্ষে ৬০ জন।

পদ্মা নদীতে ডুবে যাওয়ার সাত বছর পরও উদ্ধার করা হয়নি যাত্রীবাহী লঞ্চ পিনাক-৬। এর মধ্যে মারা গেছেন এ ঘটনায় করা মামলার প্রধান আসামি। তাতে স্বজন হারানোদের হতাশা আরও ভারী হয়েছে।

সময়ের পরিক্রমায় আবারও এলো ৪ আগস্ট। দিনটি মনে করিয়ে দিচ্ছে সাত বছর আগে পদ্মার তীরে এক শোকাতুর দিনের কথা। ঈদ শেষে পিকাক-৬ এ চড়ে ঢাকায় ফিরছিলেন আড়াই শতাধিক যাত্রী। কাওড়াকান্দি থেকে রওনা হয়ে মাওয়ার অদূরে উত্তাল পদ্মার ঢেউয়ের তোড়ে ডুবে যায় লঞ্চটি।

সরকারি হিসাবে বলা হয়, ২০১৪ সালে ওই লঞ্চ ডুবিতে ৪৭ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। নিখোঁজ অন্তত ৬০ জন।

মরদেহগুলোর মধ্যে পাঁচ নারী, দুই পুরুষ, পাঁচ শিশুসহ ১২ জনের পরিচয় শনাক্ত না হওয়ায় তাদের মরদেহ শিবচরের পাচ্চর এলাকায় বেওয়ারিশ হিসেবে দাফন করে প্রশাসন।

দেশের সর্বাধুনিক প্রযুক্তি সোনার মেশিন (সমুদ্রের তলদেশে জরিপ কাজে ব্যবহৃত) ব্যবহার করেও পদ্মায় ডুবে যাওয়া পিনাক-৬ লঞ্চটির কোনো সন্ধান করা সম্ভব হয়নি।

স্বজনদের দাবি, ডুবে যাওয়া পিনাক-৬-এর ভেতরে অনেক মরদেহ রয়েছে। লঞ্চটি উদ্ধার হলে ভেতরে আটকে থাকা যাত্রীদের দেহাবশেষ পাওয়া যেত।

পিনাক-৬ উদ্ধার অভিযান পরিত্যক্ত ঘোষণার পর স্বজন হারানোদের কেউ কেউ মরদেহের খুঁজে নিজ উদ্যোগে তল্লাশি চালান চাঁদপুর, শরীয়তপুর, বরিশাল, ভোলাসহ ভাটি অঞ্চলে। নদীর একূল-ওকূল তন্ন তন্ন করেও কোনো মরদেহ পাওয়া যায়নি।

পিনাক-৬ ডুবিতে স্বজন হারিয়েছেন মুন্সীগঞ্জের টঙ্গিবাড়ীর বেতকা ইউনিয়নের সাবেক মেম্বার আমানুল হক। জানান, ওই লঞ্চে ঢাকার আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজে পড়ুয়া তার নাতনি ইমা আক্তারও ছিল।

তিনি বলেন, ‘ঘটনার দিন থেকে বিভিন্ন স্থানে টানা ৯ দিন সন্ধান করেও নাতনির খোঁজ পাইনি। খুব আদরের নাতনি ছিল ইমা। ওই লঞ্চ ডুবির পর প্রতিবছর ঈদ এলেই আমাদের পরিবারে ফিরে আসে বিষাদের ছায়া।’

মাদারীপুরের শিবচরের দৌলতপুর গ্রামে ঈদ শেষে ঢাকার পথে পিনাক-৬ এ পদ্মা পারি দিচ্ছিলেন ফরহাদ মাতুব্বর, তার স্ত্রী শিল্পী, এক বছরের সন্তান ফাহিম ও শ্যালক বিল্লাল। এ চারজনের লাশ আজও উদ্ধার হয়নি।

ফরহাদের বোন প্রিয়া আক্তার জানালেন, ওই ঘটনার পর থেকে তাদের পরিবারে কোনো ঈদ নেই। প্রিয়জনের লাশ পাওয়ার আশা ছেড়ে দিয়ে এখন বিচারের অপেক্ষায় প্রিয়া।

পিনাক ডুবির পর লঞ্চের মালিক আবু বক্কর সিদ্দিক কালু, তার ছেলে ওমর ফারুক, কাঁঠালবাড়ী ঘাটের ইজারাদার আতাহার আলীসহ ছয়জনকে আসামি করে মুন্সীগঞ্জের লৌহজং থানায় মামলা হয়। ওই মামলায় আবু বক্কর সিদ্দিক কালুকে চট্টগ্রাম থেকে এবং তার ছেলে ওমর ফারুককে ঢাকা থেকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব।

ইতোমধ্যে মারা গেছেন প্রধান আসামি কালু। এ ছাড়া, লঞ্চটিও উদ্ধার করা যায়নি। তাতে বিচার কার্যক্রমের অগ্রগতি নিয়ে তৈরি হয়েছে আশঙ্কা।

৭ বছর পরও পদ্মার পেটে পিনাক-৬
অনেক চেষ্টা করেও উদ্ধার করা যায়নি পদ্মায় ডুবে যাওয়া পিনাক-৬ লঞ্চ। ফাইল ছবি

শিমুলিয়া বাংলাবাজার নৌরুটের মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মনির হোসেন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘শোকের মাস তার ওপর করোনাভাইরাস। তাই পিনাক-৬ ডুবি উপলক্ষে কোনো অনুষ্ঠান আয়োজন করতে পারিনি। এদিনটি আসলে শিমুলিয়া ঘাটে শোকের ছায়া চলে আসে; মনে হয় কালো অন্ধকার।’

পিনাক-৬ ডোবার পর শিমুলিয়া ঘাটে অনেক পরিবর্তন এসেছে বলে জানালেন মনির হোসেন। বললেন, আগে তিন ঘাটে দায়িত্বে ছিলেন বিআইডব্লিউটিএর একজন নৌ-ট্রাফিকের ইন্সপেক্টর। এখন তিনজন ইন্সপেক্টর ও একজন উপ-পরিচালক লঞ্চ ছাড়া এবং ধারণ ক্ষমতার ব্যাপারে তদারকি করেন। তাদের সঙ্গে সম্মিলিতভাবে কাজ করা হয়।

পিনাক-৬ ডুবির ঘটনায় মামলা প্রসঙ্গে মনির হোসেন জানালেন, লঞ্চটির মালিক আবু বক্কর সিদ্দিক কালু বেশ কিছুদিন আগে মারা গেছেন। মামলায় তার ছেলেই এখন একমাত্র আসামি।

শিমুলিয়া নদী বন্দরের সহকারি পরিচালক নৌ নিরাপত্তা ও ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা মো. সাদাত হোসেন নিউজবাংলাকে জানান, পিনাক-৬ ডোবার আগে তিন ঘাটের দায়িত্ব একজন ইন্সপেক্টর ছিল। সারা রাত লঞ্চ চলত। তদারকি কম ছিল। ধারণক্ষমতার ব্যাপারেও বেশি কিছু বলা হতো না। এখন তিনজন ইন্সপেক্টর দায়িত্বে। এ ছাড়া, ঘাটে আরেকজন উপ-পরিচালক পদে দায়িত্বে রয়েছেন। সবসময় তদারকি চলে।

৭ বছর পরও পদ্মার পেটে পিনাক-৬
পিনাক-৬ ডুবিতে স্বজন হারানোদের কান্না এখনও থামেনি। ফাইল ছবি

তিনি জানান, লঞ্চগুলোর ফিটনেস রেজিস্ট্রেশন আছে কিনা তা যাছাইয়ে নিয়মিত মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হয়। এসবই হয়েছে পিনাক-৬ ডোবার পর। আগে রাতে ২৪ ঘণ্টায় লঞ্চ চলত, এখন সেটি রাত ৮টা পর্যন্ত করা হয়েছে।

লৌহজং থানার ওসি আলমগীর হোসাইন জানান, পিনাক-৬ ডোবার পর বেপরোয়া যান চলাচল, অতিরিক্ত যাত্রী বহন ও অবহেলাজনিত মৃত্যুর অভিযোগ এনে বিআইডব্লিউটিএর পরিবহন পরিদর্শক জাহাঙ্গির ভূঁইয়া বাদী হয়ে একটি মামলা করেছেন। তদন্ত শেষে ২০১৭ সালে আসামিদের বিরুদ্ধে মুন্সীগঞ্জের সংশ্নিষ্ট আদালতে চার্জশিট দাখিল করা হয়েছে। বর্তমানে মামলাটি আদালতে বিচারাধীন।

মুন্সীগঞ্জ আদালত সূত্র জানায়, দীর্ঘদিন কারাগারে থেকে পিনাক-৬ লঞ্চের মালিক আবু বক্কর সিদ্দিক কালু ও তার ছেলে ওমর ফারুকসহ আসামিরা জামিনে রয়েছেন। কালুর মৃত্যুর বিষয়টি তাদের জানা নেই।

শেয়ার করুন

টিকা ছাড়া বাইরে আসা নিয়ে বক্তব্য প্রত্যাহার মন্ত্রীর

টিকা ছাড়া বাইরে আসা নিয়ে বক্তব্য প্রত্যাহার মন্ত্রীর

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক। ফাইল ছবি

মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে বলা হয়, ১৮ বছরের ঊর্ধ্বে সব নাগরিককেই পর্যায়ক্রমে টিকার আওতায় নিয়ে আসা হবে। তবে ‘টিকা নেয়া ছাড়া ১৮ বছরের ঊর্ধ্বে কেউ ১১ আগস্টের পর হতে বাইরে বের হতে পারবে না’ মর্মে বিভিন্ন গণমাধ্যমে মন্ত্রীর যে বক্তব্য প্রচার হচ্ছে ,বক্তব্যের সে অংশটুকু প্রত্যাহার করেছেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক।

করোনাভাইরাস রোধে সরকারের আরোপ করা লকডাউন শেষে টিকা ছাড়া ১৮ বছরের বেশি বয়সীরা বাইরে আসতে পারবেন না বলে যে বক্তব্য দিয়েছিলেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক তা প্রত্যাহার করে নিয়েছেন।

মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক ফোনে নিউজবাংলাকে বক্তব্য প্রত্যাহারের বিষয় নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ‘ওই বক্তব্য প্রত্যাহার করে নিয়েছি।’

মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র তথ্য কর্মকর্তা সুফি আব্দুল্লাহিল মারুফ পরে বক্তব্য প্রত্যাহারের বিষয়টি এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানান।

তিনি জানান, ১৮ বছরের ঊর্ধ্বে সব নাগরিককেই পর্যায়ক্রমে টিকার আওতায় নিয়ে আসা হবে। তবে ‘টিকা নেয়া ছাড়া ১৮ বছরের ঊর্ধ্বে কেউ ১১ আগস্টের পর হতে বাইরে বের হতে পারবে না’ মর্মে বিভিন্ন গণমাধ্যমে মন্ত্রীর যে বক্তব্য প্রচার হচ্ছে, বক্তব্যের সে অংশটুকু প্রত্যাহার করেছেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক।

করোনাভাইরাস রোধে সরকারের আরোপ করা লকডাউনের পর ১১ আগস্ট থেকে অফিস খুলে দেয়া হবে। বাস চলাচল করবে, খুলবে দোকানপাট।

প্রায় ১৩ মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীর সমন্বয়ে সচিবালয়ে এক সভা হয় মঙ্গলবার। সে সভায় সভাপতিত্ব করেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী মোজাম্মেল হক।

সভা শেষে তিনি সাংবাদিকদের জানান, ১১ আগস্টের পর টিকা ছাড়া ১৮ বছরের বেশি বয়সীরা কেউ ঘরের বাইরে যেতে পারবেন না। গেলে শাস্তি পেতে হবে।

তার এমন বক্তব্য বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রচার হয়। একই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। তার মন্ত্রণালয় থেকেও মঙ্গলবার জানানো হয়, তারা এমন কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি।

বুধবার তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী হাছান মাহমুদ জানান, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী মঙ্গলবার যে বক্তব্য দিয়েছেন তা সরকারের কোনো সিদ্ধান্ত নয়।

তিনি বলেন, ‘এমন বক্তব্য কারও ব্যক্তিগত অভিমত হতে পারে, কিন্তু সরকারের সিদ্ধান্ত নয়।’

সচিবালয়ে বুধবার দুপুরে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘সেখানে আসলে এ ধরনের কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। সরকারের এ ধরনের সিদ্ধান্ত হয়নি যে টিকা ছাড়া ১৮ বছরের বেশি বয়সের কেউ বের হলে অপরাধ হবে। সে ধরনের কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি।’

এমন বক্তব্য সরকারের সমন্বয়হীনতা কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘নাহ, এ ধরনের কোনো সিদ্ধান্ত সেখানে হয়নি। আমাদের সচিবও সেই বৈঠকে যুক্ত ছিলেন। এ ধরনের কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। এটি কারও ব্যক্তিগত অভিমত হতে পারে, কিন্তু এই ধরনের সরকারি সিদ্ধান্ত হয়নি।’

মাস্ক পরার ওপর জোর দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘একই সঙ্গে স্বাস্থ্যবিধি যাতে সবাই মানে সেটির ওপর জোর দেয়া হয়েছে।’

এ ছাড়া ওই বৈঠকে পুলিশকে বিচারিক ক্ষমতা দেয়ার বিষয়টিও জানান মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী। পুলিশকে বিচারিক ক্ষমতা দেয়া হচ্ছে না বলেও জানিয়ে দেন তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ।

তিনি বলেন, ‘মাস্ক না পরলে পরে যাতে ইনস্ট্যান্টলি শাস্তি দেয়া যায়, সে জন্য পুলিশের কাছে এ ধরনের... অবশ্যই বিচারিক ক্ষমতা নয়, পুলিশ যেমন অবৈধ যানবাহনের কাছ থেকে জরিমানা আদায় করে, ট্রাফিক পুলিশ ভায়োলেট করলে সেখান থেকে জরিমানা আদায় করে, সুতরাং সেই ধরনের ইনস্টিটিউট দ্বারা ভ্যালিডেটেড অবশ্যই হতে হবে সেটি আইন আনুযায়ী।’

বিষয়টি নিয়ে বিশদ আলোচনা হয়েছে বলেও জানান মন্ত্রী। বলেন, ‘পুলিশ যাতে জরিমানা করতে পারে, সেটি আইনের মধ্যে থেকে কীভাবে করা যায়, সেটি নিয়ে ব্যাপক আলোচনা হয়েছে। সেটা করা প্রয়োজন বলেও সবাই অভিমত ব্যক্ত করেছে।’

৭ আগস্ট থেকে সরকার ব্যাপক টিকা কার্যক্রমে যাচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘১ সপ্তাহে ১৪ হাজার কেন্দ্র থেকে ১ কোটি টিকা দেয়ার লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে।

‘তখন কেউ কেউ, আমার ঠিক মনে নেই, এ ধরনের আলোচনা করেছে। টিকা ছাড়া বের হলে... এ ধরনের কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি।’

শেয়ার করুন

ম্যাজিস্ট্রেট কি কম্পিউটার পোড়ানোর ক্ষমতা রাখেন?

ম্যাজিস্ট্রেট কি কম্পিউটার পোড়ানোর ক্ষমতা রাখেন?

ভ্রাম্যমাণ আদালত আইনে ‘প্রয়োজনে জব্দকৃত বস্তু বিলিবন্দেজ (disposal)’ করার ক্ষমতা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের রয়েছে। তবে আইন বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই ডিজপোজালের অর্থ জব্দ করা বস্তু তাৎক্ষণিকভাবে ধ্বংস করে দেয়া নয়। রেজওয়ানের কম্পিউটারের পর্নোগ্রাফি ধ্বংসের আইনি এখতিয়ার রাখেন ম্যাজিস্ট্রেট, এর পরিবর্তে তিনি কম্পিউটার পুড়িয়ে দিয়ে ক্ষমতার অপব্যবহার করেছেন।  

সাতক্ষীরায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানের সময় এক দোকানিকে জরিমানা করার পাশাপাশি জনসমক্ষে তার কম্পিউটার পুড়িয়ে দেয়ার ঘটনা নিয়ে চলছে আলোচনা।

শাটডাউনের মধ্যে রোববার বিকেলের এ ঘটনা ছড়িয়েছে ফেসবুকে। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জব্দ করা মালামাল এভাবে পুড়িয়ে দিতে পারেন কি না, এমন প্রশ্ন তুলেছেন অনেকে। তবে ম্যাজিস্ট্রেট আসাদুজ্জামানের দাবি, আইনের মধ্যে থেকেই তিনি কম্পিউটার পুড়িয়েছেন। আগামীতেও এ ধরনের অভিযান চলবে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সাতক্ষীরা সদর উপজেলার আবাদেরহাট এলাকায় টেলিকম ব্যবসায়ী রেজওয়ান সরদারের দোকানে রোববার অভিযান চালায় উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) আসাদুজ্জামানের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

রেজওয়ান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বিকেল ৪টার দিকে আমার বাড়িতে বিদ্যুতের সমস্যার কারণে দোকানে সরঞ্জাম নিতে আসি। এ সময় দোকান খোলা দেখে সাতক্ষীরা সদর উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) আসাদুজ্জামান আসেন। তিনি আমাকে এক হাজার টাকা জরিমানা করেন। এরপর আমার একমাত্র আয়ের উৎস দোকানে থাকা কম্পিউটারটি জব্দ করে জনসমক্ষে পুড়িয়ে দেন।’

তিনি বলেন, ‘এই কম্পিউটারের ওপর চলত আমার ছয় সদস্যের সংসার। দাদি, বাবা-মা, স্ত্রী নিয়ে আমার সেই সংসার এখন প্রায় অচল। লকডাউনে এমনিতেই খুব খারাপ অবস্থা, তার ওপর ব্যবসার কম্পিউটার পুড়িয়ে দেয়ায় আমি নিঃস্ব হয়ে গেছি।’

ম্যাজিস্ট্রেট কি কম্পিউটার পোড়ানোর ক্ষমতা রাখেন?
ব্যবসায়ী রেজওয়ানের পুড়িয়ে দেয়া কম্পিউটারের যন্ত্রাংশ

অভিযানের পর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আসাদুজ্জামান সাংবাদিকদের জানান, রেজওয়ানের দোকানের কম্পিউটারে পর্নোগ্রাফি ছিল। এ জন্য সেটি জব্দ করে ফৌজদারি দণ্ডবিধির ২৯২ ধারা অনুযায়ী পুড়িয়ে ফেলা হয়।

অশ্লীল পুস্তকাদি বিক্রয়কেন্দ্রিক অপরাধ ও এ-সংক্রান্ত ক্ষেত্রে অপরাধের শাস্তির বিষয়টি ফৌজদারি দণ্ডবিধির ২৯২ ধারায় উল্লেখ রয়েছে। তবে ওই ধারা অনুযায়ী, এ ধরনের অপরাধের সর্বোচ্চ শাস্তি তিন মাসের কারাদণ্ড অথবা জরিমানা বা উভয় দণ্ড। দণ্ডবিধির এই ধারায় জব্দ করা আলামত ধ্বংসের কোনো বিধান নেই।

বিষয়টি নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আসাদুজ্জামানকে জানানোর পর মঙ্গলবার তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেসির ১২ ধারা অনুসারে তিনি কম্পিউটারটি পোড়ানোর আদেশ দিয়েছিলেন।

মোবাইল কোর্ট আইন, ২০০৯ অনুসারে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার সময়ে পুলিশ, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী বা সংশ্লিষ্ট সরকারি কোনো সংস্থা বা প্রতিষ্ঠানের সহায়তা প্রদানের বাধ্যবাধকতার বিষয়টি উল্লেখ রয়েছে ১২ ধারায়।

১২ (২) ধারায় বলা হয়েছে, ‘মোবাইল কোর্ট পরিচালনার ক্ষেত্রে, উক্ত মোবাইল কোর্ট পরিচালনাকারী এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট বা ডিস্ট্রিক্ট ম্যাজিস্ট্রেট এর সংশ্লিষ্ট অপরাধ সংশ্লেষে তল্লাশি (search), জব্দ (seizure) এবং প্রয়োজনে জব্দকৃত বস্তু বিলিবন্দেজ (disposal) করিবার ক্ষমতা থাকিবে।’

আইন বিশেষজ্ঞরা কী বলছেন

ভ্রাম্যমাণ আদালত আইনে ‘প্রয়োজনে জব্দকৃত বস্তু বিলিবন্দেজ (disposal)’ করার ক্ষমতা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের রয়েছে। তবে আইন বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই ডিজপোজালের অর্থ জব্দ করা বস্তু তাৎক্ষণিকভাবে ধ্বংস করে দেয়া নয়। রেজওয়ানের কম্পিউটারে পর্নোগ্রাফি থাকলে সেগুলো ধ্বংসের আইনি এখতিয়ার রাখেন ম্যাজিস্ট্রেট, এর পরিবর্তে কম্পিউটার পুড়িয়ে দিয়ে তিনি ক্ষমতার অপব্যবহার করেছেন।

ম্যাজিস্ট্রেট কি কম্পিউটার পোড়ানোর ক্ষমতা রাখেন?

আপিল বিভাগের সাবেক বিচারপতি নিজামুল হক নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমি মনে করি কম্পিউটার পোড়ানো ঠিক হয়নি। মোবাইল কোর্ট এমনভাবে একটা জিনিস পুড়িয়ে দেবে বা ধ্বংস করে দেবে তা গ্রহণ করা যায় না।’

সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী জ্যোতির্ময় বড়ুয়া নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ভিডিও যেখানে পাওয়া গেল, সেটা তো ধ্বংস করা যাবে না। কেউ ক্যামেরায় ছবি তুললে ক্যামেরা তো ভেঙে ফেলা যাবে না, বরং ক্যামেরার ছবিগুলো ধ্বংস করা যাবে। যে ম্যাটেরিয়ালটা সাবজেক্ট ম্যাটার, সেটার বাইরে কেন যাবেন। এটা তার (ম্যাজিস্ট্রেট) এখতিয়ার নাই।’

এ অবস্থায় আইনি প্রতিকার চাওয়ার সুযোগ আছে কি না, জানতে চাইলে জ্যোতির্ময় বড়ুয়া বলেন, ‘যার কম্পিউটার পুড়িয়েছে, তিনি সরকারের কাছে ক্ষতিপূরণ চেয়ে দেওয়ানি মামলা করতে পারবেন।’

‘এ ক্ষেত্রে পদ্ধতি হলো, মোবাইল কোর্টে মামলাটি যখন নিষ্পত্তি হয়ে যাবে, সেটা তো আর লংটার্ম না, সামারি প্রসিডিং। তার কম্পিউটারটা যে জব্দ করা হয়েছে সেটার তো ডকুমেন্টে থাকবে। জব্দ তালিকা দেখিয়েই তিনি (রেজওয়ান) ক্ষতিপূরণ চাইতে পারবেন।’

তবে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, রেজওয়ানকে কম্পিউটার জব্দসংক্রান্ত কোনো নথি দেননি নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আসাদুজ্জামান। তাকে কেবল এক হাজার টাকা জরিমানা করার একটি রসিদ দেয়া হয়েছে।

ম্যাজিস্ট্রেট কি কম্পিউটার পোড়ানোর ক্ষমতা রাখেন?
উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) আসাদুজ্জামানের নেতৃত্বে চলে অভিযান

মোবাইল কোর্ট আইনের ১৪ ধারায় ‘সরল বিশ্বাসে কৃত কার্য রক্ষণ’ সংক্রান্ত সুরক্ষা দেয়া হয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে, ‘এই আইন বা তদধীন প্রণীত বিধির অধীন সরল বিশ্বাসে কৃত, বা কৃত বলিয়া বিবেচিত, কোন কার্যের জন্য কোনো ব্যক্তি ক্ষতিগ্রস্ত হইলে তিনি মোবাইল কোর্ট পরিচালনাকারী এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট বা ডিস্ট্রিক্ট ম্যাজিস্ট্রেট বা মোবাইল কোর্ট পরিচালনার সহিত সংশ্লিষ্ট অন্য কোনো কর্মকর্তা বা কর্মচারীর বিরুদ্ধে কোনো দেওয়ানি বা ফৌজদারি মামলা বা অন্য কোনো প্রকার আইনগত কার্যধারা রুজু করিতে পারিবেন না।’

এমন অবস্থায় ক্ষতিগ্রস্ত কেউ কী করে আইনি প্রতিকার পাবেন, এমন প্রশ্নে জ্যোতির্ময় বড়ুয়া নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আইনে তো আর সবকিছু লেখা থাকে না। আর এটা তো সরল বিশ্বাসে হয়েছে এমন কিছুও না।’

সাতক্ষীরার জজ কোর্টের অতিরিক্ত পিপি ফাহিমুল হক কিসলু নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সমাজ ও রাষ্ট্রের জন্য ক্ষতিকর কোনো বেআইনি দ্রব্য বা পণ্য পুড়িয়ে বা অন্য কোনোভাবে বিনষ্ট করতে গেলে আদালতের নির্দেশ থাকতে হবে। সে ক্ষেত্রে নিয়মিত মামলা হতে হবে, সেই মামলার তদন্ত কর্মকর্তা থাকবেন। তারপর আদালত আলামত ধ্বংসের নির্দেশ দিলে তা ধ্বংস করা যেতে পারে।’

তিনি বলেন, ‘কম্পিউটারে কোনো অশ্লীল ছবি বা ভিডিও থাকলে শুধু সেগুলো নষ্ট করা যেতে পারে। তাই বলে কম্পিউটার পুড়িয়ে দেয়া আইনসিদ্ধ নয়।’

শেয়ার করুন