× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

ফ্যাক্ট চেক
Barzals infographic on bans in Qatar is not accurate
hear-news
player
google_news print-icon

কাতারে নিষেধের বেড়াজালের ইনফোগ্রাফটি সঠিক নয়

কাতারে-নিষেধের-বেড়াজালের-ইনফোগ্রাফটি-সঠিক-নয়
কাতারে বিধিনিষেধ নিয়ে এমন ইনফোগ্রাফ ছড়িয়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। ছবি: সংগৃহীত
কাতারের সুপ্রিম কমিটি ফর ডেলিভারি অ্যান্ড লেগ্যাসির (এসসি) পক্ষ থেকে বিবৃতিতে বলা হয়, বিশ্বকাপ উপভোগ করতে আসা সবাইকে স্বাগত জানানো হবে। কাতার সব সময়ই উন্মুক্ত, সহনশীল ও সবাইকে সাদরে গ্রহণ করার দেশ।

কাতার বিশ্বকাপের আগে ‘কাতার ওয়েলকামস ইউ’ শীর্ষক একটি বার্তা-সংবলিত ইনফোগ্রাফ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। এতে বিশ্বকাপের সময় মদ্যপান, সমকামিতা, গালি দেয়াসহ কী কী বিষয় কাতারে নিষিদ্ধ সেগুলোর উল্লেখ রয়েছে।

তবে আয়োজক কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, এ ধরনের কোনো ইনফোগ্রাফ তারা প্রকাশ করেনি এবং এর মাধ্যমে বিভ্রান্তি ছড়ানো হচ্ছে।

কাতারের সুপ্রিম কমিটি ফর ডেলিভারি অ্যান্ড লেগ্যাসির (এসসি) পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়, বিশ্বকাপ উপভোগ করতে আসা সবাইকে স্বাগত জানানো হবে। কাতার সব সময়ই উন্মুক্ত, সহনশীল ও সবাইকে সাদরে গ্রহণ করার দেশ। আন্তর্জাতিক দর্শক ও ভক্তরা এবারের বিশ্বকাপে একই অভিজ্ঞতা লাভ করবেন।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ইনফোগ্রাফে বলা হয়েছে, ডেট করা, অনুমতি ছাড়া কারও ছবি তোলা, উচ্চৈঃস্বরে গান ও বাদ্য বাজানোও নিষেধ।

কাতারের হামাদ বিন খলিফা ইউনিভার্সিটি মিডল ইস্টার্ন স্টাডিজের সহযোগী অধ্যাপক মার্ক ওয়েন জোনস বলেন যে ইনফোগ্রাফটি টুইটারে ১৫ হাজারের বেশিবার রি-টুইট করা হয়েছে এবং ৪৫ হাজার লাইক রয়েছে।

সৌদি আরবের মতো কাতারে মদ্যপান নিষিদ্ধ নয়, তবে জনসমক্ষে মদ্যপান বেআইনি। দেশটির বিভিন্ন লাইসেন্সধারী হোটেল ও ক্লাবে মদ কেনাবেচা হয়।

এসসির পক্ষ থেকে আগেই নিশ্চিত করা হয়েছে, বিশ্বকাপের ভেন্যুগুলোর নির্দিষ্ট স্থানে মদ বিক্রির ব্যবস্থা থাকবে, তবে সেটি খেলা চলাকালীন নয়। খেলা শুরুর তিন ঘণ্টা আগে ও শেষ হওয়ার এক ঘণ্টা পর মদ কেনা যাবে। আর ফিফার অফিশিয়াল ফ্যানজোনে মদ কেনা যাবে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা থেকে রাত ১টা পর্যন্ত।

বিশ্বকাপের সময় চলমান আরকেডিয়া স্পেকটেকুলার ইলেকট্রনিক মিউজিক ফেস্টিভ্যালে প্রতিদিন ভক্তরা সকাল ১০টা থেকে ভোর ৫টা পর্যন্ত মদ্যপান করতে পারবেন। বিশ্বকাপ আয়োজকেরা আশা করছেন, বিখ্যাত ডিজে ও সংগীত শিল্পীদের এই কনসার্টে ২ লাখ লোকের সমাগম হবে।

কাতারে সমকামিতা বেআইনি, যার শাস্তি তিন বছর পর্যন্ত জেল ও জরিমানা। এমনকি মৃত্যুদণ্ডেরও সম্ভাবনা রয়েছে। তবে দেশটিতে সমকামিতার জন্য মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করার নজির এখন পর্যন্ত নেই।

মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল সমকামীদের অধিকারের বিষয়ে কাতারের রেকর্ড নিয়ে উদ্বিগ্ন। তাদের দাবি, দেশটিতে নারী ও এলজিবিটিকিউ প্লাস লোকেরা ‘আইন ও এর প্রয়োগে বৈষম্যের সম্মুখীন’।

কাতার বিশ্বকাপের প্রধান নির্বাহী নাসের আল-খাতার অবশ্য সবার উদ্দেশে বলেছেন, ‘যেকোনো লিঙ্গ, লৈঙ্গিক অভ্যস্ততা, ধর্ম, বর্ণের মানুষ আশ্বস্ত থাকা উচিত। কারণ কাতার বিশ্বের অন্যতম নিরাপদ দেশ। সব মানুষকে এখানে স্বাগত জানানো হবে।’

আরও পড়ুন:
এইচএসসির বিতর্কিত প্রশ্নটি কুমিল্লা বোর্ডের নয়
‘ব্রাজিল শুধু নেইমারের ওপর ভরসা করে না’
মেসির বিশ্বকাপের বুটের ছবি ফাঁস
শরণার্থী ক্যাম্প থেকে বিশ্বকাপের মঞ্চে আওয়ের মাবিল
মাশরাফিকে ‘শীর্ষ ধনী’ বলা প্রতিবেদনই উধাও

মন্তব্য

আরও পড়ুন

ফ্যাক্ট চেক
Teenager killed in twin explosions in Jerusalem

জেরুজালেমে জোড়া বিস্ফোরণে নিহত কিশোর

জেরুজালেমে জোড়া বিস্ফোরণে নিহত কিশোর জেরুজালেমের দুটি ব্যস্ত এলাকায় এমন সময়ে বিস্ফোরণ ঘটে যখন লোকেরা কাজ করতে যাচ্ছিল। ছবি: সংগৃহীত
এখন পর্যন্ত কোনো গোষ্ঠী বিস্ফোরণের পেছনে জড়িত বলে জানায়নি। তবে, ফিলিস্তিনি জঙ্গি গোষ্ঠী হামাস এবং ইসলামিক জিহাদ উভয়ই অপরাধীদের প্রশংসা করেছে।

জেরুজালেমের বাসস্ট্যান্ডে জোড়া বিস্ফোরণের ঘটনায় এক কিশোর নিহত হয়েছেন; আহত হয়েছেন আরও ১৪ জন। ইসরায়েলি পুলিশ এসব নিশ্চিত করেছে।

নিহত কিশোরের নাম আরিয়েহ শ্তসুপাক। তার নাম আরিয়েহ শ্তসুপাক। ১৬ বছরের আরিয়েহ ইসরায়েলি-কানাডিয়ান ধর্মীয় ছাত্র ছিল।

শহরের উপকণ্ঠে দুটি ব্যস্ত এলাকায় বিস্ফোরণগুলো এমন সময়ে ঘটে, যখন মানুষ কাজে যাচ্ছিলেন।

বিবিসির খবরে বলা হয়, জেরুজালেমের প্রধান প্রবেশদ্বারের কাছে গিভাত শৌলে বাংলাদেশ সময় বেলা ১১টার দিকে প্রথম বিস্ফোরণটি হয়।

ইসরায়েলি চিকিত্সকরা বলছেন, এতে ১২ জন আহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে নিহত কিশোরও ছিলেন। শায়ার জেডেক মেডিক্যাল সেন্টারে সে মারা যায়।

প্রায় ৩০ মিনিট পর শহরের আরেকটি প্রবেশদ্বার রামোট জংশনে দ্বিতীয় বিস্ফোরণ হয়। এতে তিনজন সামান্য আহত হয়।

ইসরায়েলের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তামন্ত্রী বলেন, ‘এটি এমন একটি হামলা যা আমরা দীর্ঘ সময়ের মধ্যে দেখিনি।’

এখন পর্যন্ত কোনো গোষ্ঠী বিস্ফোরণের পেছনে জড়িত বলে জানায়নি। তবে, ফিলিস্তিনি জঙ্গি গোষ্ঠী হামাস এবং ইসলামিক জিহাদ উভয়ই অপরাধীদের প্রশংসা করেছে।

মন্তব্য

ফ্যাক্ট চেক
Saudi prince prostrates in victory over Argentina

আর্জেন্টিনার বিপক্ষে জয়, সিজদায় সৌদি যুবরাজ

আর্জেন্টিনার বিপক্ষে জয়, সিজদায় সৌদি যুবরাজ সৌদির জয়ের ম্যাচে সিজদা দিতে দেখা যায় যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানকে। ছবি: ইনস্টাগ্রাম
ইনস্টাগ্রামে একটি ছবিতে দেখা যায়, টিভির পর্দায় পরিবারের সদস্যদের নিয়ে খেলা দেখার সময় আনন্দে ভাইকে জড়িয়ে ধরেছেন এমবিএস। আরেক ছবিতে টেলিভিশন থেকে দূরে গিয়ে সিজদায় লুটিয়ে পড়তে দেখা যায় সৌদি যুবরাজকে।

ফিফা বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে আর্জেন্টিনাকে হারিয়ে উড়ন্ত সূচনা করেছে সৌদি আরব। এ জয়ে আনন্দের বন্যা বইছে সৌদিজুড়ে। জয়ের উচ্ছ্বাস ছুঁয়ে গেছে বাদশাহ থেকে ফকিরকে।

প্রতিবেশী কাতারে মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত ম্যাচে দলের জয় নানাভাবে উদযাপন করেছেন সৌদির নাগরিকরা। দেশটির কার্যত শাসক যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান (এমবিএস) জয় কীভাবে উদযাপন করেছেন, তা প্রকাশ হয়েছে তার ভাই প্রিন্স সৌদের ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টে প্রকাশিত ছবিগুলোতে।

আলঅ্যারাবিয়া নিউজের প্রতিবেদনে জানানো হয়, ইনস্টাগ্রামে একটি ছবিতে দেখা যায়, টিভির পর্দায় পরিবারের সদস্যদের নিয়ে খেলা দেখার সময় আনন্দে ভাইকে জড়িয়ে ধরেছেন এমবিএস।

আরেক ছবিতে টেলিভিশন থেকে দূরে গিয়ে সিজদায় লুটিয়ে পড়তে দেখা যায় সৌদি যুবরাজকে।

এমবিএস ও প্রিন্স সৌদের সঙ্গে বসে খেলা দেখেছেন তাদের বড় ভাই প্রিন্স আবদুলাজিজ, যিনি সৌদির জ্বালানিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

ক্রীড়াবিশ্বকে হতবিহ্বল করে গতকাল লাতিন জায়ান্ট আর্জেন্টিনাকে ২-১ গোলে হারিয়েছে সৌদি আরব।

ওই ম্যাচের মধ্য দিয়ে ১৮তম বারের মতো বিশ্বকাপে খেলে আর্জেন্টিনা। বিপরীতে ষষ্ঠবারের মতো বিশ্বকাপ খেলতে নামে সবুজ বাজপাখিরা।

ম্যাচে আর্জেন্টিনার জয়ের বিষয়ে অনেকেই নিশ্চিত ছিলেন, তবে প্রথমার্ধে অফসাইডে তিন গোল বাতিল হওয়া এবং দ্বিতীয়ার্ধে সৌদির দাপটে হার নিয়ে মাঠ ছাড়েন মেসিরা।

বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচের জয় উদযাপনে বুধবার সৌদিতে ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
বিশ্বকাপের যত আক্ষেপ
হারের অজুহাত দিতে চান না মেসি
ঘুরে দাঁড়ানো ছাড়া পথ নেই: স্কালোনি
মেসিদের হারিয়ে বিশ্বকে চমকে দিল সৌদি আরব
সৌদির অফসাইড ফাঁদে আর্জেন্টিনা, এক গোলে এগিয়ে

মন্তব্য

ফ্যাক্ট চেক
12 beheadings in 10 days in Saudi

সৌদিতে ১০ দিনে ১২ শিরশ্ছেদ

সৌদিতে ১০ দিনে ১২ শিরশ্ছেদ সৌদি আরবে ১০ দিনে ১২ জনের শিরশ্ছেদ করা হয়েছে। ছবি: ডন
মানবাধিকার সংস্থা রিপ্রিভের পরিচালক মায়া ফোয়ার জানান, যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান এই প্রথা কমানোর প্রতিশ্রুতি দিলেও বেশির ভাগেরই শিরশ্ছেদ করা হয় তরবারি দিয়ে। মধ্যপ্রাচ্যের এই দেশটিতে এখনও এমন প্রথা চালু থাকায় উদ্বেগ জানিয়েছে সংস্থাটি।

সৌদি আরবে মাদক সংশ্লিষ্ট অপরাধে গত ১০ দিনে ১২ জনের শিরশ্ছেদ করা হয়েছে। এদের অনেকেরই তরবারি দিয়ে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়।

সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের বিরোধিতায় গত দুই বছর এই ভাবে মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের প্রথা দেশটিতে বন্ধ ছিল।

দণ্ডপ্রাপ্তদের মধ্যে তিনজন পাকিস্তানের, চারজন সিরিয়ার, দুজন জর্দানের ও তিনজন সৌদি নাগরিক। এদের বিরুদ্ধে ভয়াবহ ও সহিংস ধারায় কোনো অভিযোগ ছিল না। এদের সবাই পুরুষ।

এমন সব তথ্য প্রকাশ করে মানবাধিকার সংস্থা রিপ্রিভের পরিচালক মায়া ফোয়ার জানান, যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান এই প্রথা কমানোর প্রতিশ্রুতি দিলেও বেশির ভাগেরই শিরশ্ছেদ করা হয় তরবারি দিয়ে।

মধ্যপ্রাচ্যের এই দেশটিতে এখনও এমন প্রথা চালু থাকায় উদ্বেগ জানিয়েছে সংস্থাটি।

রিপ্রিভের পরিচালক মায়া ফোয়া বলেন, ‘মোহাম্মদ বিন সালমান বারবার তার অগ্রগতি ও প্রগতির দৃষ্টিভঙ্গি বাস্তবায়নে চেষ্টা করে যাচ্ছেন। শিরশ্ছেদের মাধ্যমে মৃত্যুদণ্ড কমাতে এবং মাদক অপরাধের জন্য মৃত্যুদণ্ডের সাজা কমাতে তিনি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। কিন্তু তরবারির মাধ্যমে নির্মম ও বিভীষিকাময় মৃত্যুদণ্ডমুক্ত দুটি বছর শেষ হতে না হতেই সৌদি কর্তৃপক্ষ মাদক অপরাধীদের আবারও ব্যাপক সংখ্যায় এবং গোপনে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর শুরু করেছে।’

আরও পড়ুন:
সবার জন্য উন্মুক্ত হচ্ছে হজ
সৌদি যুবরাজকে প্রধানমন্ত্রী করলেন বাদশাহ
উগ্রবাদী ৫০ লাখ টেলিগ্রাম বার্তা মুছল সৌদি আরব   

মন্তব্য

ফ্যাক্ট চেক
Iran has arrested two popular actresses

বিক্ষোভে সংহতি: ইরানের দুই অভিনেত্রী আটক

বিক্ষোভে সংহতি: ইরানের দুই অভিনেত্রী আটক হেনগামেহ গাজিয়ানি এবং কাতিইয়ুন রিয়াহি হিজাব ছাড়া জনসম্মুখে এসেছিলেন। ছবি: সংগৃহীত
‘সঠিকভাবে’ হিজাব না করার অভিযোগে গ্রেপ্তারের পর মাহসা আমিনি পুলিশ হেফাজতে মারা গেলে গত সেপ্টেম্বরে গোটা দেশে হিজাববিরোধী আন্দোলন ছড়িয়ে পড়ে।

সরকারবিরোধী আন্দোলনের সঙ্গে যোগাযোগের অভিযোগে দুই অভিনেত্রীকে আটক করেছে ইরান সরকার।

হেনগামেহ গাজিয়ানি ও কাতিইয়ুন রিয়াহি এর আগে হিজাববিরোধী বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে সংহতি প্রকাশ করে হিজাব ছাড়া জনসমক্ষে এসেছিলেন।

দেশটির রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা ইরনার বরাতে এ তথ্য জানিয়েছে বিবিসি

‘সঠিকভাবে’ হিজাব না করার অভিযোগে গ্রেপ্তারের পর মাহসা আমিনি পুলিশ হেফাজতে মারা গেলে গত সেপ্টেম্বরে গোটা দেশে হিজাববিরোধী আন্দোলন ছড়িয়ে পড়ে।

পুলিশ হেফাজতে থাকার সময়েই মাহসা অসুস্থ হয়ে পড়েন, এরপর কোমায় চলে যান। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১৬ সেপ্টেম্বর তার মৃত্যু হয়। এর ঠিক পাঁচ দিন পরই ছিল মাহসার জন্মদিন।

একাধিক পুরস্কারপ্রাপ্ত গাজিয়ানি এবং রিয়াহি উভয়েই রবিবার নৈতিকতা পুলিশের হাতে আটক হন।

আটক হওয়ার আগে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে গাজিয়ানি লেখেন, 'আমার সঙ্গে যাই ঘটুক, আমি সব সময় ইরানি জনগণের পাশে আছি। এটাই হয়তো আমার শেষ পোস্ট।'

রবিবার ইরান ফুটবল দলের অধিনায়ক কাতার ফিফা বিশ্বকাপের আসরে বলেন, ‘আমাদের মেনে নিতে হবে যে, ইরানের পরিস্থিতি ভালো নয়, এবং আমাদের জনগণ অখুশি।’

মানবাধিকার সংস্থাগুলোর তথ্য অনুসারে, ইরানে হিজাববিরোধী আন্দোলনে এ পর্যন্ত ৪০০ জনের বেশি নিহত এবং ১৬ হাজার ৮০০ জনের মতো আটক হয়েছেন।

ইরান সরকার বলছে, এটা আন্দোলন নয়, দাঙ্গা। বিদেশি শত্রুদের মদদে এটা পরিচালিত হচ্ছে।

আরও পড়ুন:
বিক্ষোভ দমাতে শ্লীলতাহানিকে অস্ত্রের মতো ব্যবহার ইরানি পুলিশের
ইরানে রক্তক্ষরণে স্কুলছাত্রীর মৃত্যু, প্রাণহানি বেড়ে ২৩৩
ইরান বিক্ষোভের স্ফুলিঙ্গ যে ৩ নারী
ইরানে বিক্ষোভ: আহমাদিনেজাদ নীরব কেন
বিক্ষোভে ২০০ ছাড়াল মৃত্যু, তেহরানের রাস্তায় আইনজীবীরা

মন্তব্য

ফ্যাক্ট চেক
Turkey is conducting airstrikes in Iraq and Syria

ইরাক সিরিয়ায় বিমান হামলা চালাচ্ছে তুরস্ক  

ইরাক সিরিয়ায় বিমান হামলা চালাচ্ছে তুরস্ক   টুইটে তুরস্কের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় যুদ্ধবিমান উড্ডয়নের ছবি প্রকাশ করে। ছবি: সংগৃহীত
তুরস্কের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানায়, অপারেশন ক্লো-সোর্ড’ নাম দেয়া হয়েছে অভিযানের। যেসব কুর্দি ঘাঁটি ব্যবহার করে তুরস্কে হামলা চালানো হয়েছে, তাদের বিমান হামলার লক্ষ্যবস্তু সেসব ঘাঁটি।    

ইস্তাম্বুলে বোমা হামলার জবাব দিতে শুরু তুরস্ক সরকার। হামলার এক সপ্তাহ পর রোববার ইরাক ও সিরিয়ায় কুর্দি ঘাঁটিগুলোয় বিমান হামলা শুরু করেছে আঙ্কারা। তুর্কি প্রেসিডেন্ট এরদোয়াঁর দাবি, কুর্দি জঙ্গিরা ইস্তাম্বুলে হামলা চালিয়েছে।

তুরস্কের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানায়, ‘অপারেশন ক্লো-সোর্ড’ নাম দেয়া হয়েছে অভিযানের। যেসব কুর্দি ঘাঁটি ব্যবহার করে তুরস্কে হামলা চালানো হয়েছে, তাদের বিমান হামলার লক্ষ্যবস্তু সেসব ঘাঁটি।

সিরিয়ান কুর্দিদের এক মুখপাত্র বিবিসিকে জানান, অভ্যন্তরীণভাবে বাস্তুচ্যুত দুটি জনবহুল গ্রাম আক্রান্ত হয়েছে। নিষিদ্ধ কুর্দি সংগঠন পিকেকে ইস্তাম্বুলে হামলা চালানোর কথা অস্বীকার করেছে।

বিমান হামলা শুরুর সঙ্গে সঙ্গে তুরস্কের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় টুইটে বলে, ‘হিসাব নেয়ার সময় এসে গেছে।’

টুইটে একটি যুদ্ধবিমান উড্ডয়নের ছবি এবং একটি বিস্ফোরণের ফুটেজও প্রকাশ করা হয়।

তুরস্কের প্রতিরক্ষামন্ত্রী হুলুসি আকর বলেন, ‘সন্ত্রাসীদের আশ্রয়কেন্দ্র, বাঙ্কার, গুহা, টানেল এবং গুদামগুলো সফলভাবে ধ্বংস করা হয়েছে।’

বিমান হামলার কড়া জবাবের ঘোষণা দিয়েছে সিরিয়ায় কুর্দি নেতৃত্বাধীন বাহিনী। তারা বলছে, কোবানে শহরের পাশাপাশি দুটি ঘনবসতিপূর্ণ গ্রাম হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

অসমর্থিত কিছু প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সেখানে অনেক হতাহতের ঘটনা ঘটেছে। তবে ইরাকে কোন লক্ষ্যবস্তুতে হামলা হয়েছে, তা স্পষ্ট নয়।

ইস্তাম্বুলের ব্যস্ততম রাস্তায় বোমা হামলার এক সপ্তাহ পর এই অভিযান চালানো হয়। ওই ঘটনায় ৬ জন নিহত এবং ৮০ জনেরও বেশি মানুষ আহত হয়।

তুর্কি কর্তৃপক্ষ বোমা হামলার জন্য কুর্দি জঙ্গি গোষ্ঠী পিকেকেকে দায়ী করেছে। তুরস্ক, ইইউ এবং যুক্তরাষ্ট্র পিকেকে-কে একটি সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে বিবেচনা করে।

যদিও সরাসরি বেসামরিক লোকদের লক্ষ্যবস্তু করবে না বলে জানিয়েছে পিকেকে। ইস্তাম্বুলের হামলায় অভিযোগও অস্বীকার করেছে তারা।

হামলায় জড়িত থাকার অভিযোগে কয়েক ডজন মানষকে গ্রেপ্তার করেছে তুর্কি কর্তৃপক্ষ; তাদের মধ্যে একজন সিরিয়ান নারীও আছেন। বলা হচ্ছে, এই নারীই বোমাটি পেতেছিলেন।

গ্রেপ্তারের আগে তুরস্কের বিচারমন্ত্রী জানিয়েছিলেন, যেখানে বিস্ফোরণ ঘটে, সেখানের একটি বেঞ্চে এক নারী ৪০ মিনিট বসে ছিলেন। তিনি ওঠে যাওয়ার পর ব্যাগে থাকা বোমাটি বিস্ফোরিত হয়।

বার্তা সংস্থা এএফপি বলছে, হামলার ঘটনায় বুলগেরিয়ায় পাঁচজনকে অভিযুক্ত করা হয়েছে।

দক্ষিণ-পূর্ব তুরস্কে কুর্দি স্বশাসন অর্জনের জন্য কয়েক দশক ধরে লড়াই করে আসছে কুর্দি যোদ্ধারা।

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে নিজেদের ভূখণ্ডে হামলা ঠেকানোর লক্ষ্যে উত্তর ইরাক এবং সিরিয়ায় অবস্থিত কুর্দি গোষ্ঠীগুলোকে লক্ষ্য করে বেশ কয়েকটি আন্তঃসীমান্ত অভিযান পরিচালনা করেছে আঙ্কারা।

আরও পড়ুন:
ইরাকে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে মৃত বেড়ে ১৫
ইস্তাম্বুলে বিস্ফোরণ: ‘বোমা রাখা ব্যক্তি’ গ্রেপ্তার
ইস্তাম্বুলে বিস্ফোরণ: নিরাপদে আছেন বাংলাদেশিরা  
সফল হয়েও শেষ রক্ষা হলো না ইস্তাম্বুলের চোরদের
তুরস্কে কয়লাখনিতে বিস্ফোরণ, ২৫ মৃত্যু

মন্তব্য

ফ্যাক্ট চেক
Death toll rises to 15 in gas cylinder explosion in Iraq

ইরাকে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে মৃত বেড়ে ১৫

ইরাকে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে মৃত বেড়ে ১৫ ইরাকের উত্তরাঞ্চলীয় শহর সুলাইমানিয়ার একটি আবাসিক এলাকায় বৃহস্পতিবার সিলিন্ডার বিস্ফোরণ ঘটে। ছবি: এএফপি   
সুলাইমানিয়া শহরের সিভিল ডিফেন্সের প্রধান দিয়ার ইব্রাহিম বলেন, ‘ধ্বংসস্তূপের নিচ থেকে মোট ১৫টি মৃতদেহ বের করা হয়েছে। শুক্রবার ভোররাত পর্যন্ত অনুসন্ধান অভিযান অব্যাহত ছিল। ধ্বংসস্তূপের নিচে আর কোনো মরদেহ নেই।’

ইরাকে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৫ হয়েছে। আহত আছেন ১৬ জন। উত্তরাঞ্চলীয় শহর সুলাইমানিয়ার একটি আবাসিক এলাকায় বৃহস্পতিবার এ ঘটনা ঘটে।

সুলাইমানিয়ার সিভিল ডিফেন্স জানায়, বিস্ফোরণে একটি বাড়ি ধসে পড়ে। চাপা পড়াদের উদ্ধারে ১৭ ঘণ্টা অভিযান চলেছে।

কুর্দি অঞ্চলের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহরে সিলিন্ডার বিস্ফোরণের পর আগুন ছড়িয়ে পড়েছিল। পরে দীর্ঘ চেষ্টায় তা নিয়ন্ত্রণে আনেন দমকলকর্মীরা।

শহরের সিভিল ডিফেন্সের প্রধান দিয়ার ইব্রাহিম বলেন, ‘ধ্বংসস্তূপের নিচ থেকে মোট ১৫টি মৃতদেহ বের করা হয়েছে। শুক্রবার ভোররাত পর্যন্ত অনুসন্ধান অভিযান অব্যাহত ছিল। ধ্বংসস্তূপের নিচে আর কোনো মরদেহ নেই।’

শহরের জরুরি প্রতিক্রিয়া প্রধান সামান নাদের বলেন, ‘একটি ট্যাঙ্ক থেকে গ্যাস লিক হওয়ায় বিস্ফোরণ ঘটেছে।’

পুলিশ জানায়, আগুনে বেশ কয়েকটি বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তিনটি বাড়ি এবং অন্তত পাঁচটি গাড়ি ধ্বংস হয়েছে। আবাসিক এলাকার একটি বাড়ির ছাদে রান্নার গ্যাস সিলিন্ডার বসানো হয়েছিল। সেটি থেকে বিস্ফোরণ ঘটে।

ইরাকে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে মৃত বেড়ে ১৫
ধ্বংসস্তূপের নিচে আর কোনো মরদেহ নেই বলে জানিয়েছেন শহরের সিভিল ডিফেন্সের প্রধান দিয়ার ইব্রাহিম

এ ঘটনায় শুক্রবার তিন দিনের শোক ঘোষণা করেছেন সুলাইমানিয়াহ প্রদেশের গভর্নর হাভাল আবুবাকার। তিনি জানিয়েছেন, নিহতদের মধ্যে অন্তত এক শিশু রয়েছে।

বিষয়টি তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন কুর্দিস্তান আঞ্চলিক সরকারের প্রধানমন্ত্রী মাসরুর বারজানি।

ইরাকে অবকাঠামোগত ট্র্যাজেডিগুলো খুব সাধারণ ঘটনা হয়ে উঠেছে। অক্টোবরের শেষের দিকে রাজধানী বাগদাদে একটি গ্যাস ট্যাঙ্কার বিস্ফোরণে অন্তত ৯ জন নিহত এবং বেশ কয়েকজন আহত হন।

এ ছাড়া গত বছরের এপ্রিলে বাগদাদের একটি হাসপাতালের করোনাভাইরাস নিবিড় পরিচর্যা ইউনিটে আগুন লাগলে কমপক্ষে ৮২ জন নিহত হন; আহত হয় শতাধিক মানুষ। অক্সিজেন সিলিন্ডার বিস্ফোরণে ওই দুর্ঘটনা ঘটে।

আরও পড়ুন:
ইরাকের পার্লামেন্টে সদর সমর্থকদের হানা
প্রত্নবস্তু পাচার: ইরাকে ব্রিটেনের নাগরিকের ১৫ বছরের জেল
দেউলিয়া লেবাননের নাগরিকরা ছুটছেন ইরাকে
ইরাকে ক্ষেপণাস্ত্র হামলার দায় নিল ইরান
বাংলাদেশের সঙ্গে বাণিজ্য বাড়াতে চায় ইরাক

মন্তব্য

ফ্যাক্ট চেক
Gaza refugee camp fire kills 21

গাজায় শরণার্থী ক্যাম্পে আগুনে ২১ মৃত্যু

গাজায় শরণার্থী ক্যাম্পে আগুনে ২১ মৃত্যু ফিলিস্তিনের গাজা উপত্যকার শরণার্থী ক্যাম্পে বৃহস্পতিবার আগুন ধরা ভবনে চালানো হচ্ছে তল্লাশি। ছবি: এএফপি
গাজার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, প্রাথমিক তদন্তে ভবনটিতে বিপুল পরিমাণ পেট্রলের মজুত পাওয়া গেছে, যা থেকে আগুন ধরে দ্রুত পুরো ভবনে ছড়িয়ে পড়েছে।

ফিলিস্তিনের গাজা উপত্যকার ঘনবসতিপূর্ণ জাবালিয়া শরণার্থী ক্যাম্পের একটি ভবনে আগুনে কমপক্ষে ২১ জনের মৃত্যু হয়েছে।

স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার এ ঘটনা ঘটে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় স্বাস্থ্য ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কর্মীরা।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের খবরে বলা হয়, ভয়াবহ আগুন চারতলা ভবনটির ওপর পর্যন্ত উঠে যায়, যা নিয়ন্ত্রণে এক ঘণ্টার বেশি সময় লাগে ফায়ার সার্ভিস কর্মীদের।

আগুনে দগ্ধ ও আহত ব্যক্তিদের দ্রুত অ্যাম্বুলেন্স করে স্থানীয় হাসপাতালে নেয়া হয়।

গাজাকে অবরুদ্ধ করে রাখা ইসরায়েল বলেছে, উপত্যকার বাসিন্দাদের মধ্যে হাসপাতালে চিকিৎসা সহায়তা দরকার এমন কাউকে সীমান্ত দিয়ে বাইরে যাওয়ার সুযোগ দেয়া হবে।

গাজার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, প্রাথমিক তদন্তে ভবনটিতে বিপুল পরিমাণ পেট্রলের মজুত পাওয়া গেছে, যা থেকে আগুন ধরে দ্রুত পুরো ভবনে ছড়িয়ে পড়েছে।

একাধিক প্রত্যক্ষদর্শী জানান, তারা ভবন থেকে আর্তচিৎকার শুনলেও আগুনের ব্যাপকতায় সহায়তায় এগিয়ে আসতে পারেননি।

ফিলিস্তিনের প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস ঘটনাটিকে জাতীয় ট্র্যাজেডি আখ্যা দিয়ে এক দিনের শোক ঘোষণা করেছেন।

আব্বাসের দল প্যালেস্টাইন লিবারেশন অর্গানাইজেশনের (পিএলও) নির্বাহী কমিটির মহাসচিব হুসেইন আল-শেখ এক বিবৃতিতে বলেন, ফিলিস্তিন কর্তৃপক্ষ ইসরায়েলকে ইরেজ ক্রসিং খুলে দেয়ার তাগিদ দিচ্ছে, যাতে করে গাজার গুরুতর দগ্ধরা উপত্যকার বাইরে চিকিৎসা নিতে পারেন।

আরও পড়ুন:
গাজায় সংঘাত এবং আবির ও ইসমাইলের গল্প  
গাজায় যুদ্ধবিরতি
গাজায় হামলার ‘চড়া মূল্য দিতে হবে ইসরায়েলকে’
যুদ্ধ বিরতির পর নতুন সংগ্রামে গাজাবাসী
অবরুদ্ধ গাজায় 'স্বর্গীয়' অবসর

মন্তব্য

p
উপরে