ভারতে হিন্দুদের গণহারে ধর্মত্যাগের খবর সত্য নয়

ভারতে হিন্দুদের গণহারে ধর্মত্যাগের খবর সত্য নয়

অনলাইনে ভাইরাল হিন্দু দেব-দেবীদের মূর্তি গুঁড়িয়ে দেয়ার দৃশ্য থেকে কেটে নেয়া ছবি। ছবি: এএফপি

ফ্যাক্ট চেকে জানা গেছে, আপাতদৃষ্টিতে এটি সংবাদ প্রতিবেদন বলে মনে হলেও ভিডিওতে ব্যবহৃত দৃশ্য আসলে মহামারির অনেক আগে ধারণ করা। এর সঙ্গে ভারতের হিন্দুদের ধর্মত্যাগের কোনো সম্পর্ক নেই।

করোনাভাইরাস মহামারিতে বিপর্যস্ত ভারতে সংখ্যাগরিষ্ঠ হিন্দুদের মধ্যে ধর্মত্যাগের হিড়িক পড়েছে বলে সম্প্রতি একটি গুজব ছড়িয়ে পড়ে।

ইরানের একটি সংবাদভিত্তিক অনুষ্ঠানের বরাত দিয়ে ছড়ানো এ খবর ভিত্তিহীন বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা এএফপির ফ্যাক্ট চেক।

ফ্রান্স টোয়েন্টিফোর ডটকমের প্রতিবেদনে জানানো হয়, মে মাসের মাঝামাঝি সময় থেকে হিন্দুদের বিভিন্ন দেব-দেবীর মূর্তি ও অন্যান্য ধর্মীয় নিদর্শন ছুড়ে ফেলার একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়।

ভিডিওতে দাবি করা হয়, ভারতে করোনাভাইরাসের ভয়াবহ বিপর্যয়ের কারণে হিন্দুরা তাদের ভগবানের ওপর ভরসা হারিয়েছেন। করোনার বিস্তার রোধে ব্যর্থ ভগবানের প্রয়োজন নেই বলে ক্ষুব্ধ তারা।

ফ্যাক্ট চেকে জানা গেছে, আপাতদৃষ্টিতে এটি সংবাদ প্রতিবেদন বলে মনে হলেও ভিডিওতে ব্যবহৃত দৃশ্য আসলে মহামারির অনেক আগে ধারণ করা। এর সঙ্গে ভারতের হিন্দুদের ধর্মত্যাগের কোনো সম্পর্ক নেই।

এসব দৃশ্য প্রথম প্রচার হয় ইরানের টিভি চ্যানেল শিয়া ওয়েভসে। ভিডিওর একটি দৃশ্যে দেখা যায়, মাটিতে পড়ে থাকা অর্ধশতাধিক হিন্দু দেবদেবীর মূর্তি একটি বুলডোজার দিয়ে গুঁড়িয়ে দেয়া হচ্ছে।

আরেকটি দৃশ্যে দেখা যায়, এক ব্যক্তি ট্রাক থেকে নদীতে ছুড়ে ফেলছেন একটি বিশাল মূর্তি। সেখানে ইরানের উপস্থাপককে বলতে শোনা যায়, ‘বিপুলসংখ্যক ভারতীয় জনতা নিজেদের ভগবানের মূর্তি রাস্তায় ছুড়ে ফেলছেন। তাদের দেশে করোনার আকাশছোঁয়া সংক্রমণ ও প্রাণহানির কারণে বিশ্বাস হারিয়েছেন তারা… অভিযোগ, এতদিন যাদের পূজা করে এসেছেন, সেই ভগবানরাই শিষ্যদের রক্ষা করেননি।’

বানোয়াট ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রথম প্রচার হয় ১১ মে।

রিভার্স ইমেজ সার্চে দেখা যায়, ভিডিওটি চীনের উহানে করোনাভাইরাসের অস্তিত্ব জানানোরও তিন মাস আগের। ২০১৯ সালের ১৪ সেপ্টেম্বর হিন্দি ভাষায় অনলাইনে প্রথম প্রকাশিত হয় ভিডিওটির একটি অংশ।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ইন্ডিয়া টুডে জানিয়েছে, ভিডিওতে দেখানো হিন্দুদের অন্যতম দেবী দশমার মূর্তিটি আহমেদাবাদের নদীতে ছুড়ে ফেলার ঘটনা ২০১৯ সালের আগস্টের।

প্রচলিত ধর্মীয় রীতি মেনেই এসব মূর্তি নদীতে ফেলেন হিন্দুরা।

কিন্তু দূষণ কমাতে গত কয়েক বছরে এ রীতি কিছুটা বদলেছে। নদীতে মূর্তি ফেলার নিয়ম খানিকটা পাল্টে তা ভেঙে ফেলা হচ্ছে।

এ বিষয়ে কয়েক মাস আগে টুইটারে একটি পোস্টও করেন ভারতের এক কমিশনার বিজয় নেহরা। সেখানেই নদী দূষণ এড়াতে ঐতিহ্য বদলে ফেলার কথা বলেন তিনি।

পরে পৃথক একটি টুইটে তিনি জানান, উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে এসব ছবি ও দৃশ্য ভিন্ন ঘটনার বলে ছড়ানো হচ্ছে।

নেহরার এই টুইটগুলোর সঙ্গে ঘটনার ভিডিও যুক্ত করে স্থানীয় এক সাংবাদিকও আলাদা ভিডিও প্রতিবেদন তৈরি করেন।

সেটি ইরানের একটি সংবাদমাধ্যম গ্রহণ করে এবং সম্পূর্ণ আলাদা খবর শোনায়।

ভিডিওর আরেকটি অংশও (যেখানে ট্রাক থেকে মূর্তি নদীতে ছুড়ে ফেলা দেখানো হয়েছে) অনলাইনে আছে ২০১৫ সাল থেকে।

এই ভিডিওর পেছনের ঘটনা জানা না গেলেও এটা নিশ্চিত যে, এর সঙ্গে করোনাভাইরাস মহামারির কোনো সম্পর্ক নেই।

সব মিলিয়ে ভাইরাল ভিডিও ফুটেজটির সঙ্গে হিন্দুদের দেব-দেবীদের বর্জনের কোনো সম্পর্কই নেই।

আরও পড়ুন:
ব্লুটুথ চিপ নেই অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকায়
গোল্ডফিশের স্মৃতি কি আসলেই ৩ সেকেন্ডের
ছবিটি ইসরায়েলি সেনার নয়, চিলির পুলিশ কর্মকর্তার
নেতানিয়াহুর মুখপাত্র প্রচারিত ভিডিও হামাসের নয়
নাকে লেবুর রস দিলে সারে না করোনা

শেয়ার করুন

মন্তব্য