× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

ইভেন্ট
এবারও ঘুরবে না যশোমাধবের রথের চাকা
hear-news
player
print-icon

এবারও ঘুরবে না যশোমাধবের রথের চাকা

এবারও-ঘুরবে-না-যশোমাধবের-রথের-চাকা
ঢাকার ধামরাই উপজেলার জগন্নাথ রথ বা যশোমাধব রথমন্দির। ছবি: নিউজবাংলা
রথযাত্রার আনুষ্ঠানিকতার বিষয়ে ধামরাই থানার পুলিশ পরিদর্শক আতিক রহমান বলেন, ‘করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় চলমান লকডাউনের মধ্যে সব জমায়েত নিষিদ্ধ করা হয়েছে। একই কারণে রথযাত্রাও বাতিল করা হয়েছে। মন্দিরের ভেতরেই স্বাস্থ্যবিধি মেনে পূজার কাজ শেষ করার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।’

ধামরাইয়ের যশোমাধবের রথের খ্যাতি দেশজুড়ে। প্রতিবছর হিন্দুধর্মাবলম্বীরা দেশের প্রাচীন ও বৃহত্তম এই রথযাত্রায় বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনায় অংশ নেন।

তবে করোনাভাইরাস মহামারির প্রকোপে গত বছর বন্ধ ছিল প্রায় ৪০০ বছরের ঐতিহ্যবাহী এই রথযাত্রা। কেবল ধর্মীয় আচারের মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিল এই ধর্মীয় অনুষ্ঠান। এর আগে ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী এই রথটি পুড়িয়ে দেয়ায় ওই সময় রথযাত্রা বন্ধ ছিল।

শুরুর পর চলতি বছর তৃতীয়বারের মতো রথযাত্রা স্থগিত হলো বলে জানিয়েছে যশোমাধব মন্দির পরিচালনা পর্ষদ।

ঐতিহ্যবাহী এই রথযাত্রার আদ্যোপান্ত নিউজবাংলাকে জানান যশোমাধব মন্দির পরিচালনা পর্ষদের সাধারণ সম্পাদক নন্দ গোপাল সেন।

জগন্নাথ হলেন হিন্দু দেবতা বিষ্ণুর দ্বাপর যুগের অবতার কৃষ্ণের এক বিশেষ রূপ। কৃষ্ণের এই রূপকে তার দাদা বলরাম ও বোন সুভদ্রার সঙ্গে পূজা করা হয়। ভারতের ওড়িশা, ছত্তিশগড় (বস্তার অঞ্চল), পশ্চিমবঙ্গ, ঝাড়খন্ড, বিহার, অসম, মণিপুর ও ত্রিপুরা রাজ্যে এবং বাংলাদেশে জগন্নাথের পূজা প্রচলিত।

ধামরাই উপজেলার এই জগন্নাথ রথ বা যশোমাধব রথ জগন্নাথের প্রতি উৎসর্গ করা একটি রথমন্দির। প্রতিবছর রথযাত্রার দিন একটি সুবিশাল ছয়তলা রথে মাঝে সুভদ্রা, তার ডানে বলরাম ও বাঁয়ে জগন্নাথরূপী কৃষ্ণের প্রতিমা নিয়ে শোভাযাত্রার আয়োজন করা হয় এখানে।

রথটি হিন্দু দেবদেবীর নানা ছবিতে সজ্জিত থাকে। জগন্নাথ দেবের মাসির বাড়ি যাওয়া উপলক্ষে প্রতিবছরই আষাঢ় মাসের শুক্লপক্ষের দ্বিতীয়া তিথিতে রথ টানা হয়। চাকার ওপর স্থাপন করা বিশেষ রথের ভেতর দেবতার প্রতিমা বসিয়ে নেয়া হয় ধামরাই বাজার থেকে পৌর এলাকার কায়েতপাড়ার মাধব মন্দিরে। সারা দেশ থেকে পুণ্যার্থীরা এই রথযাত্রায় অংশগ্রহণ করতে আসেন। আয়োজন করা হয় মাসব্যাপী মেলারও। রথ নিয়ে কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর লিখেছিলেন-

‘রথযাত্রা, লোকারণ্য, মহা ধুমধাম,

ভক্তেরা লুটায়ে পথে করিছে প্রণাম।

পথ ভাবে আমি দেব রথ ভাবে আমি,

মূর্তি ভাবে আমি দেব—হাসে অন্তর্যামী।’

তবে করোনা মহামারি পরিস্থিতিতে আটকে গেছে যশোমাধবের রথের চাকা। ১১ জুলাই আনুষ্ঠানিকভাবে রথযাত্রার দিন হলেও এবারও হচ্ছে না অনুষ্ঠান। প্রতিবছর রথযাত্রা উপলক্ষে পুরো ধামরাই বাজার এলাকায় সাজ সাজ রব থাকলেও এ বছর নেই কোনো আড়ম্বর। কর্মব্যস্ততাও নেই যশোমাধব মন্দির পরিচালনা কমিটিরও।

এবারও ঘুরবে না যশোমাধবের রথের চাকা

নন্দ গোপাল বলেন, ‘লোকমুখে জানা যায়, একসময় ধামরাই এলাকার রাজা ছিলেন শ্রীযশোপাল। সেই সময় সাভারের শিমুলিয়া থেকে সৈন্য-সামন্ত নিয়ে ধামরাইয়ের কাশবন ও দুর্গম এলাকা পার হয়ে পাশের এক গ্রামে যাচ্ছিলেন তিনি। এরই মধ্যে কায়েতপাড়ায় এসে একটি মাটির ঢিবির সামনে থেমে যায় তাকে বহনকারী হাতি। রাজা শতচেষ্টা করেও হাতিটিকে সামনে নিতে পারেন না। তখন তিনি হাতি থেকে নেমে স্থানীয় লোকজনকে ওই মাটির ঢিবি খনন করার নির্দেশ দেন। সেখানে পাওয়া যায় একটি মন্দির। পাওয়া যায় বেশ কিছু মূর্তিও। এর মধ্যে শ্রীবিষ্ণুর মূর্তির মতো দেখতে শ্রীমাধব মূর্তিও ছিল। তখন রাজা ভক্তি করে সেগুলো সঙ্গে নিয়ে যান। সে রাতেই শ্রীমাধবকে স্বপ্নে দেখেন রাজা যশোপাল। দেবতা তাকে নির্দেশ দেন পূজা করার। আর বলে দেন, রাজার নামের সঙ্গে মাধবের নাম জুড়ে নিতে। এরপরেই রাজা যশোপালের নাম হয়ে যায় যশোমাধব। পরে ধামরাই সদরে ঠাকুরবাড়ি পঞ্চাশ গ্রামের বিশিষ্ট পণ্ডিত শ্রীরাম জীবন রায়কে তিনি ওই মাধব মূর্তি নির্মাণের দায়িত্ব দেন। এখনও সেই মূর্তির পূজার প্রচলন রয়েছে। সময়টি ছিল চন্দ্র আষাঢ়ের শুক্লপক্ষের দ্বিতীয়া তিথি। সেই থেকেই শুরু হয় যশোমাধবের পূজা।’

যেভাবে বানানো হয় রথ

নন্দ গোপাল আরও বলেন, ‘বাংলা ১০৭৯ সাল থেকে ধামরাইয়ের রথযাত্রা ও রথমেলা উৎসব পালিত হয়ে আসছে। কালের পরিবর্তনে কখন বাঁশের রথটি কাঠের রথে পরিণত হয় তার সঠিক ইতিহাস জানা যায়নি। বাঁশের রথের পর বাংলা ১২০৪ থেকে ১৩৪৪ সাল পর্যন্ত ঢাকা জেলার সাটুরিয়া থানার বালিয়াটির জমিদাররা বংশানুক্রমে এখানে চারটি রথ তৈরি করেন।

‘১৩৪৪ সালে রথের ঠিকাদার ছিলেন নারায়ণগঞ্জের প্রয়াত সূর্য নারায়ণ সাহা। এ রথ তৈরি করতে সময় লাগে এক বছর। ধামরাই, কালিয়াকৈর, সাটুরিয়া, সিঙ্গাইর থানার বিভিন্ন কাঠশিল্পী যৌথভাবে নির্মাণকাজে অংশ নিয়ে ৬০ ফুট উচ্চতাসম্পন্ন রথটি তৈরি করেন।’

‘তিনতলা রথটির প্রথম ও দ্বিতীয় তলায় চার কোণে চারটি প্রকোষ্ঠ ও তৃতীয় তলায় একটি প্রকোষ্ঠ ছিল। বালিয়াটির জমিদাররা চলে যাওয়ার পরে রথের দেখভালের দায়িত্ব পালন করতেন টাঙ্গাইলের রণদা প্রসাদ সাহার পরিবার।’

মুক্তিযুদ্ধে যেভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয় রথটি

১৯৭১ সালের ৯ এপ্রিল ধামরাই গণহত্যার দিনই এই রথ পুড়িয়ে দেয় পাকিস্তানি হানাদাররা। পুড়িয়ে দেয়ার আগে রথটির কাঠের তৈরি তিনতলাবিশিষ্ট ৪০ ফুট প্রস্থ, ৭৫ ফুট উচ্চতা, ৯টি প্রকোষ্ঠ, ৩২টি চাকা ও ৯টি মাথাবিশিষ্ট কাঠামো ছিল। সৌন্দর্যশৈলীর নানা কারুকার্য খচিত ছিল রথটিতে।

যেভাবে পুনরায় শুরু হয় রথযাত্রা

যশোমাধব মন্দির পরিচালনা পর্ষদের সাধারণ সম্পাদক নন্দ গোপাল জানান, দেশ স্বাধীন হওয়ার পর ১৯৭২ সালে এই রথ না থাকায় উৎসব বন্ধ ছিল এক বছর। পরবর্তী সময়ে ১৯৭৩ সালে হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকেরা ছোট আকারে একটি বাঁশ ও কাঠের রথ নির্মাণ করে উৎসব পালন করে। ১৯৭৪ সালে বৃহৎ রথের আদলে ছোট পরিসরে কাঠের রথ নির্মাণ করে পুনরায় রথ উৎসবের নবযাত্রা শুরু হয়।

এবারও ঘুরবে না যশোমাধবের রথের চাকা

সবশেষ ২০১৩ সালে পুরোনো রথের আদলে দেড় কোটি টাকা ব্যয়ে নতুন রথ তৈরি করে দেয় তৎকালীন সরকার। ৪০ জন শিল্পী ছয় মাসেরও বেশি সময় ধরে নিরলসভাবে কাজ করে ৩৭ ফুট উচ্চতা ও ২০ ফুট প্রস্থের কারুকার্যখচিত বর্তমান রথটি নির্মাণ করেন।

লোহার খাঁচার ওপর সেগুন ও চাম্বল কাঠ বসিয়ে খোদাই করে তৈরি করা হয়েছে আকর্ষণীয় সব শৈল্পিক নিদর্শন। এতে রয়েছে লোহার তৈরি ১৫টি চাকা। রথের সামনে রয়েছে কাঠের তৈরি দুটি ঘোড়া ও সারথি।

এ ছাড়া রথের বিভিন্ন ধাপে প্রকোষ্ঠের মাঝে স্থাপন করা হয়েছে কাঠের তৈরি দেব-দেবীর প্রতিমা। প্রতিবছর রথযাত্রার আগে রং চড়ানো ও সাজসজ্জার কাজ করে এটিতেই অনুষ্ঠিত হয় রথ উৎসব।

নন্দ গোপাল নিউজবাংলাকে বলেন, ‘করোনার কারণে গত বছরের পর এ বছরও সীমিত পরিসরে রথযাত্রা উপলক্ষে কায়েতপাড়া মন্দিরে স্বাস্থ্যবিধি মেনে শুধু ধর্মীয় পূজা-অর্চনা করা হবে। ১১ জুলাই রাতে অধিবাস পূজা হবে। আর বিকেলে প্রশাসনের নির্দেশ পেলে মাসির বাড়ি নেয়া হবে জগন্নাথ, সুভদ্রা ও বলরামকে। তবে রথের মেলা এ বছরও বসছে না।’

রথযাত্রার আনু্ষ্ঠানিকতার বিষয়ে ধামরাই থানার পুলিশ পরিদর্শক আতিক রহমান বলেন, ‘করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় চলমান লকডাউনের মধ্যে সব জমায়েত নিষিদ্ধ করা হয়েছে। একই কারণে রথযাত্রাও বাতিল করা হয়েছে। মন্দিরের ভেতরেই স্বাস্থ্যবিধি মেনে পূজার কাজ শেষ করার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।’

মন্তব্য

আরও পড়ুন

ইভেন্ট
1 arrested with 16 gold bars from Jessore border

যশোর সীমান্তে থেকে ১৬টি স্বর্ণের বারসহ আটক ১

যশোর সীমান্তে থেকে ১৬টি স্বর্ণের বারসহ আটক ১
খুলনা বিজিবি-২১ ব্যাটলিয়নের অধিনায়ক লেফট্যানেন্ট কর্ণেল তানভীর রহমান (পিএসসি) জানান, শার্শার গোগা সীমান্ত দিয়ে বৃহৎ একটি স্বর্ণের চালান হবে এমন খবর পেয়ে গোগা ক্যাম্পের বিজিবি সদস্যরা ওই এলাকার ইউনাইটেড মাধ্যমিক বিদ্যালয় এলাকায় অভিযান চালিয়ে একজনকে আটক করে। পরে তার শরীরে লুকিয়ে রাখা ১৬টি সোনার বার জব্দ করা হয়।

যশোরে ১৬টি সোনার বারসহ এক ব্যক্তিকে আটক করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)।

শার্শার গোগা সীমান্ত থেকে বুধবার সকাল ৯টার দিকে তাকে আটক করা হয়।

৪০ বছর বয়সী জনি বেনাপোল পোর্ট থানার ছোট আঁচড়া গ্রামের বাসিন্দা।

খুলনা বিজিবি-২১ ব্যাটলিয়নের অধিনায়ক লেফট্যানেন্ট কর্ণেল তানভীর রহমান (পিএসসি) নিউজবাংলাকে এসব তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, ‘শার্শার গোগা সীমান্ত দিয়ে বৃহৎ একটি স্বর্ণের চালান হবে এমন খবর পেয়ে গোগা ক্যাম্পের বিজিবি সদস্যরা ওই এলাকার ইউনাইটেড মাধ্যমিক বিদ্যালয় এলাকায় অভিযান চালিয়ে একজনকে আটক করে। পরে তার শরীরে লুকিয়ে রাখা ১৬টি সোনার বার জব্দ করা হয়।

‘এ বারগুলোর ওজন এক কেজি ৮৪৬ গ্রাম। আটক সোনার বারের আনুমানিক মূল্য প্রায় এক কোটি ৫৩ লাখ টাকা।’

সোনার বারসহ আটক আসামি জনিকে শার্শা থানায় দেয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি।

আরও পড়ুন:
বাসের সিটের নিচে ১০ পিস সোনার বার
১ গ্রামের স্বর্ণের বার বাজারে আনলেন সাকিব
লক্ষ্মীদাঁড়ি সীমান্তে ১৫টি সোনার বারসহ আটক ১
যশোরে ২০টি সোনার বার উদ্ধার, আটক ১
২.৪ কেজি সোনা ফেলে দৌড় 

মন্তব্য

ইভেন্ট
Chittagong naval base mosque bomb 5 militants sentenced to death

চট্টগ্রামে নৌ ঘাঁটির মসজিদে বোমা: ৫ জঙ্গির মৃত্যুদণ্ড

চট্টগ্রামে নৌ ঘাঁটির মসজিদে বোমা: ৫ জঙ্গির মৃত্যুদণ্ড প্রতীকী ছবি

চট্টগ্রামে নৌবাহিনীর ঈশা খাঁ ঘাঁটির মসজিদে বোমা বিস্ফোরণের মামলায় নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন জেএমবির ৫ সদস্যকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে আদালত।

জেলার সন্ত্রাসবিরোধী ট্রাইব্যুনালের বিচারক আবদুল হালিম বুধবার সকালে এ রায় ঘোষণা করেন।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী (পিপি) মনোরঞ্জন দাশ নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

আরও আসছে...

আরও পড়ুন:
শিশু ধর্ষণ ও হত্যার দায়ে মৃত্যুদণ্ড
কন্যাকে পায়ে পিষে হত্যা, বাবার মৃত্যুদণ্ড
ব‍্যবসায়ী হত‍্যা মামলায় ২ জনের মৃত‍্যুদণ্ড
স্ত্রী হত্যা মামলায় যুবকের মৃত্যুদণ্ড
ক্ষমা বিশ্বাস হত্যা মামলায় একজনের মৃত্যুদণ্ড

মন্তব্য

ইভেন্ট
Medical students protest in Barishal demanding safe halls

নিরাপদ হলের দাবিতে ব‌রিশা‌লে মেডিক্যাল শিক্ষার্থীদের বি‌ক্ষোভ

নিরাপদ হলের দাবিতে ব‌রিশা‌লে মেডিক্যাল শিক্ষার্থীদের বি‌ক্ষোভ অধ্যক্ষের কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভকারীরা। ছবি: নিউজবাংলা
এহসান উল্লাহ বলেন, ‘ছেলেদের তিনটি ছাত্রাবাসের মধ্যে হাবিবুর রহমান ছাত্রাবাসের অবস্থা খুবই খারাপ। গত রাতেও আমাদের এক সহপাঠীর রুমের পলেস্তরা খসে পড়ে, অল্পের জন্য প্রাণে রক্ষা পায় সে। আমাদের একটাই দাবি, আমরা নিরাপদ হল চাই।’

নিরাপদ হলের দাবিতে অধ্যক্ষের কার্যালয় ঘেরাও করে বিক্ষোভ করছেন বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজের শিক্ষার্থীরা।

বুধবার সকাল ৮টা থেকে অধ্যক্ষের কার্যালয় ও প্রশাস‌নিক ভবনে তালা দিয়ে বিক্ষোভ শুরু করেন তারা।

বিক্ষোভকারীরা বলছেন, মেডিক্যাল কলেজের ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য তিনটি করে আলাদা ছয়টি হল রয়েছে; যার প্রতিটি হলের অবস্থাই জরাজীর্ণ। প্রায় প্রতিনিয়তই হলগুলোর ছাদের পলেস্তরা খসে পড়ে। এতে অনেক সময় অনেক শিক্ষার্থী আহত হচ্ছেন।

কর্তৃপক্ষ বলছেন, শিগগির তারা সংস্কার কাজ শুরু করবেন।

হলের আবা‌সিক শিক্ষার্থী লিসা আক্তার নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ছাত্রী হ‌লের অবস্থা খুবই খারাপ। প্রতিনিয়ত আতংকের মধ্যে থাকতে হয় আমাদের। এখন নিরাপদ হল আমা‌দের দাবি।’

শিক্ষার্থী এহসান উল্লাহ বলেন, ‘ছেলেদের তিনটি ছাত্রাবাসের মধ্যে হাবিবুর রহমান ছাত্রাবাসের অবস্থা খুবই খারাপ। গত রাতেও আমাদের এক সহপাঠীর রুমের পলেস্তরা খসে পড়ে, অল্পের জন্য প্রাণে রক্ষা পায় সে। আমাদের একটাই দাবি, আমরা নিরাপদ হল চাই।’

তাহসিন আহ‌ম্মেদ বলেন, ‘হাবিবুর রহমান ছাত্রাবাস কর্তৃপক্ষ পরিত্যক্ত ঘোষণা করেছে। দ্রুত এই ছাত্রদের পুন:আবাসনের ব্যবস্থা করতে হবে।’

আবাসন সংকট নিরসনের দাবি জানিয়ে বলেন, ‘আমাদের অনেক প্রতিশ্রুতি দেয়া হয়েছে, কিন্তু হল নির্মাণ করা হয়নি। আবাসন সংকট নিরসনে নতুন হল নির্মাণে দৃশ্যমান অগ্রগতি না হলে আমাদের আন্দোলন চালিয়ে যাব।’

হুঁশিয়ারি দিয়ে চতুর্থ ব‌র্ষের শিক্ষার্থী সাগর ‌হো‌সেন ব‌লেন, ‘সাত দি‌নের ম‌ধ্যে হল নির্মাণের দৃশ্যমান কাজ দেখ‌তে চাই। এ ছাড়া ঝুঁকিপূর্ণ হ‌লের ছাত্র-ছাত্রী‌দের নিরাপদ স্থা‌নে রাখার দাবি জানাই। তা না হ‌লে অ‌নি‌র্দিষ্টকা‌লের জন্য অ্যাকা‌ডে‌মিক কার্যক্রম বন্ধ থাক‌বে।’

মেডিক্যাল ক‌লেজের অধ্যক্ষ ম‌নিরুজ্জামান শাহীন নিউজবাংলাকে ব‌লেন, ‘স‌চিব ম‌হোদয় কিছুক্ষণ আ‌গে ফোন ক‌রে হো‌স্টেল সংস্কা‌রের কথা ব‌লে‌ছেন। আমরা অ‌তি দ্রুত কাজ শুরু কর‌ব। এ ছাড়া ক‌লে‌জে দুই‌টি হো‌স্টেল নির্মাণ কাজ শিগগির শুরু হ‌বে।’

আরও পড়ুন:
রাজপথে শক্তি দেখাতে নামছে আওয়ামী লীগও
হলে নিষিদ্ধ রাইসকুকার, মধ্যরাতে শিক্ষার্থীদের প্রতিবাদ
সাংবাদিক মারধরে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি
জ্বালানির দাম বৃদ্ধির প্রতিবাদ সমাবেশে পুলিশের পিটুনি: ঢাবিতে বিক্ষোভ
জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে বিক্ষোভ

মন্তব্য

ইভেন্ট
20 were injured in the clash over arranging the wedding gate stage

‘বিয়ের গেট-মঞ্চ সাজানো’ নিয়ে সংঘর্ষে আহত ২০

‘বিয়ের গেট-মঞ্চ সাজানো’ নিয়ে সংঘর্ষে আহত ২০
অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ ও প্রশাসন) শাহিন বলেন, ‘পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ ৪০ রাউন্ড রাবার বুলেট ছুড়েছে। দফায় দফায় সংঘর্ষে জড়ানোর কারণে টানা আড়াই ঘণ্টা পর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। এ ঘটনায় ৭ জনকে আটক করা হয়েছে। বুধবার দুপুরের মধ্যে মামলা হবে।’

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরে দুই গ্রামবাসীর সংঘর্ষের ঘটনায় ২০ জন আহত হওয়ার খবর জানা গেছে। এ ঘটনায় সাতজনকে আটক করেছে পুলিশ।

উপজেলার কৃষ্ণনগর ইউনিয়নের দৌলতপুর ও সীতারামপুর গ্রামের লোকজনদের মধ্যে দফায় দফায় মঙ্গলবার রাতে এ সংঘর্ষ হয়।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ ও প্রশাসন) মোল্লা মোহাম্মদ শাহিন নিউজবাংলাকে এসব তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি জানান, সীতারামপুর গ্রামের রিয়াজুদ্দিন গোষ্ঠীর রাজুর বাড়িতে বিয়ের অনুষ্ঠানের আয়োজন চলছিল। রাতে ছিল গায়ে হলদু। তবে সেই বিয়ের অনুষ্ঠানের ডেকোরেশনের কাজ পেল দৌলতপুর গ্রামের হাসান আলী বাড়ির এক ছেলে।

ডেকোরেশনের মধ্যে ছিল বিয়ের গেট ও মঞ্চ আলোকসজ্জা করা। ডেকোরেশনের এ কাজ সিতারামপুর গ্রামের লোকজনের ভালো লাগেনি দেখে কথা-কাটাকাটি শুরু হয়। পরে দুই গ্রামের লোকজন সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এতে উভয় পক্ষের অন্তত ২০ জন আহত হয়েছেন।

মোল্লা মোহাম্মদ শাহিন আরও বলেন, ‘পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ ৪০ রাউন্ড রাবার বুলেট ছুড়েছে। দফায় দফায় সংঘর্ষে জড়ানোর কারণে টানা আড়াই ঘণ্টা পর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। এ ঘটনায় ৭ জনকে আটক করা হয়েছে। বুধবার দুপুরের মধ্যে মামলা হবে।’

আরও পড়ুন:
জমিতে মিলল বাইকচালকের মরদেহ, আটক ২
বিক্ষোভ মিছিলে বিএনপি-ছাত্রলীগ সংঘর্ষ
প্রবাসে যাওয়ার টাকা ফেরত নিয়ে সংঘর্ষ, আহত ৩০
পার্লার ব্যবসায়ীর মৃত্যুর ঘটনায় গ্রেপ্তার ২
পুলিশ বন্ধু, ভোলার প্রাণহানি দুর্ঘটনা: বিএনপি নেতা

মন্তব্য

ইভেন্ট
Girder accident Burial of Rubel in Meherpur

গার্ডার দুর্ঘটনা: মেহেরপুরে দাফন রুবেলের

গার্ডার দুর্ঘটনা: মেহেরপুরে দাফন রুবেলের মেহেরপুরে রুবেলের মরদেহ পেয়ে স্বজনদের আহাজারি। ছবি: নিউজবাংলা
সদর উপজেলার রাজনগর গ্রামের রাজনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠে বুধবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে তার জানাজা অনুষ্ঠিত হয়েছে। জানাজা শেষে গ্রামের কবরস্থানে তার দাফন সম্পন্ন হয়।

রাজধানীর উত্তরায় বাস র‌্যাপিড ট্রানজিট বা বিআরটি প্রকল্পের নির্মাণাধীন ফ্লাইওভারের গার্ডার পড়ে পাঁচজন নিহতের ঘটনায় রুবেল হোসেনের দাফন নিজ বাড়ি মেহেরপুরে হয়েছে।

সদর উপজেলার রাজনগর গ্রামের রাজনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠে বুধবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে তার জানাজা অনুষ্ঠিত হয়েছে। জানাজা শেষে গ্রামের কবরস্থানে তার দাফন সম্পন্ন হয়।

ভোরে লাশবাহী ফ্রিজিং গাড়িতে তার মরদেহ বাড়িতে পৌঁছেছে বলে জানিয়েছেন স্বজনরা।

সোমবার বিকেলে রাজধানীর উত্তরায় নির্মাণাধীন বাস র‌্যাপিড ট্রানজিট বা বিআরটি প্রকল্পের ফ্লাইওভারের ভায়াডাক্ট ছিটকে প্রাইভেট কারে পড়ে দুই শিশুসহ পাঁচ আরোহী নিহত হন। দুজনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়।

তারা হলেন ২৬ বছর বয়সী হৃদয় ও ২১ বছর বয়সী রিয়ামনি, যাদের বিয়ে হয়েছে গত শনিবার। সোমবার ছিল বউভাত।

হৃদয়ের বাড়ি রাজধানীর কাওলায়। বউভাত শেষে কনের বাড়ি আশুলিয়ায় যাচ্ছিলেন তারা। ছেলের বাবা রুবেল গাড়িটি চালাচ্ছিলেন।

রুবেল ছাড়াও যারা মারা গেছেন তারা হলেন কনের মা ফাহিমা বেগম, তার বোন ঝরনা বেগম, ৬ বছর বয়সী জান্নাত ও দুই বছর বয়সী জাকারিয়া।

নিহত এই চারজনের দাফন মঙ্গলবার রাতে জামালপুরে সম্পন্ন হয়েছে।

আরও পড়ুন:
গাফিলতি যারই থাকুক, তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা: সড়ক সচিব
পাঁচ প্রাণ ঝরার পর নিরাপত্তায় জোর বিআরটি এমডির
বিআরটি প্রকল্প পরিচালককেও তদন্তের আওতায় চান প্রধানমন্ত্রী
মন্ত্রণালয়ের তদন্তে দায় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের
গার্ডার দুর্ঘটনা: স্ত্রী-সন্তান হারানোর শোক কীভাবে সইবেন জাহিদ

মন্তব্য

ইভেন্ট
Girder accident 4 people buried

গার্ডার দুর্ঘটনা: দাফন হলো ৪ জনের

গার্ডার দুর্ঘটনা: দাফন হলো ৪ জনের নিহত পাঁচজনের মধ্যে চারজনের দাফন হয়েছে জামালপুরে। ছবি: নিউজবাংলা
সরেজমিনে দেখা যায়, লাল নীল বাতির সঙ্গে সাইরেন বাজিয়ে লাশবাহী অ্যাম্বুলেন্সটি এগিয়ে এলে ভিড় জমায় শত শত উৎসুক জনতা। আর অ্যাম্বুলেন্সের দরজা খোলার সঙ্গে সঙ্গে শুরু হয় স্বজনদের চিৎকার। তাদের আহাজারিতে ভারী হয়ে উঠে পরিবেশ। হঠাৎ এমন মৃত্যুতে হতবাক নিহতদের স্বজনসহ এলাকাবাসীও।

রাজধানীর উত্তরায় বাস র‌্যাপিড ট্রানজিট বা বিআরটি প্রকল্পের নির্মাণাধীন ফ্লাইওভারের গার্ডার পড়ে পাঁচজন নিহতের ঘটনায় চারজনের দাফন হয়েছে নিজ বাড়ি জামালপুরে।

মেলান্দহ উপজেলার আগ পয়লা গ্রামে মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে ঝরনা বেগম এবং তার দুই শিশুসন্তান জাকারিয়া ও জান্নাতের দাফন সম্পন্ন হয়।

ইসলামপুর উপজেলার লাউদত্ত গ্রামে রাত সাড়ে ১১টার দিকে জানাজা শেষে কনের মা ফাহিমা বেগমকে নিজ বাড়ির আঙিনায় দাফন করা হয়।

গার্ডার দুর্ঘটনা: দাফন হলো ৪ জনের

সরেজমিনে দেখা যায়, লাল নীল বাতির সঙ্গে সাইরেন বাজিয়ে লাশবাহী অ্যাম্বুলেন্সটি এগিয়ে এলে ভিড় জমায় শত শত উৎসুক জনতা। আর অ্যাম্বুলেন্সের দরজা খোলার সঙ্গে সঙ্গে শুরু হয় স্বজনদের চিৎকার। তাদের আহাজারিতে ভারী হয়ে উঠে পরিবেশ। হঠাৎ এমন মৃত্যুতে হতবাক নিহতদের স্বজনসহ এলাকাবাসীও।

সোমবার বিকেলে রাজধানীর উত্তরায় নির্মাণাধীন বাস র‌্যাপিড ট্রানজিট বা বিআরটি প্রকল্পের ফ্লাইওভারের ভায়াডাক্ট ছিটকে প্রাইভেট কারে পড়ে দুই শিশুসহ পাঁচ আরোহী নিহত হন। দুজনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়। তারা ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

তারা হলেন ২৬ বছর বয়সী হৃদয় ও ২১ বছর বয়সী রিয়ামনি, যাদের বিয়ে হয়েছে গত শনিবার। সোমবার ছিল বউভাত।

হৃদয়ের বাড়ি রাজধানীর কাওলায়। বউভাত শেষে কনের বাড়ি আশুলিয়ায় যাচ্ছিলেন তারা। ছেলের বাবা রুবেল গাড়িটি চালাচ্ছিলেন।

রুবেল ছাড়াও যারা মারা গেছেন তারা হলেন কনের মা ফাহিমা বেগম, তার বোন ঝরনা বেগম, ৬ বছর বয়সী জান্নাত ও দুই বছর বয়সী জাকারিয়া।

আরও পড়ুন:
গাফিলতি যারই থাকুক, তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা: সড়ক সচিব
পাঁচ প্রাণ ঝরার পর নিরাপত্তায় জোর বিআরটি এমডির
বিআরটি প্রকল্প পরিচালককেও তদন্তের আওতায় চান প্রধানমন্ত্রী
মন্ত্রণালয়ের তদন্তে দায় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের
গার্ডার দুর্ঘটনা: স্ত্রী-সন্তান হারানোর শোক কীভাবে সইবেন জাহিদ

মন্তব্য

ইভেন্ট
As a result the students of Khubi returned with the assurance of meeting the demands

দাবি মানার আশ্বাসে হলে ফিরেছেন খুবির শিক্ষার্থীরা

দাবি মানার আশ্বাসে হলে ফিরেছেন খুবির শিক্ষার্থীরা আন্দোলনে খুবি শিক্ষার্থীরা। ছবি: নিউজবাংলা
শিক্ষার্থীরা জানান, মঙ্গলবার দুপুরে অপরাজিতা হলের টয়লেটে গিয়ে এক ছাত্রী আত্মহত্যার উদ্দেশ্যে গলায় বঁটি চালান। এ ঘটনায় সন্ধ্যায় অপরাজিতা হলে দা, বঁটি, চাকু এমনকি রাইস কুকারও নিষিদ্ধ করে হল কর্তৃপক্ষ। ছাত্রীদের রুমে রুমে গিয়ে সরঞ্জামগুলো জব্দ করা হয়। সবাইকে ডাইনিংয়ের খাবার খেতে নির্দেশ দেয়া হয়।

প্রশাসনের দাবি মেনে নেয়ার আশ্বাসে মধ্যরাতে হলে ফিরে গেছেন খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

হল থেকে রাইস কুকার ও রান্নার অন্যান্য সরঞ্জাম সরানোর নির্দেশনা বাতিলসহ ১১ দফা দাবিতে মঙ্গলবার রাত ১১টার দিকে বিক্ষোভ শুরু করেন অপরাজিতা হলের ছাত্রীরা। পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের হাদি চত্বরে অবস্থান নেন তারা। সেখানে তাদের সঙ্গে যোগ দেন অন্যান্য হলের শিক্ষার্থীরাও।

রাত দেড়টার দিকে শিক্ষর্থীদের সব দাবি মেনে নিয়ে লিখিত দেন অপরাজিতা হলের প্রভোস্ট রহিমা নুসরাত রিম্মি। পরে শিক্ষার্থীরা নিজ নিজ হলে ফিরে যান।

শিক্ষার্থীরা জানান, মঙ্গলবার দুপুরে অপরাজিতা হলের টয়লেটে গিয়ে এক ছাত্রী আত্মহত্যার উদ্দেশ্যে গলায় বঁটি চালান। এ ঘটনায় সন্ধ্যায় অপরাজিতা হলে দা, বঁটি, চাকু এমনকি রাইস কুকারও নিষিদ্ধ করে হল কর্তৃপক্ষ। ছাত্রীদের রুমে রুমে গিয়ে সরঞ্জামগুলো জব্দ করা হয়। সবাইকে ডাইনিংয়ের খাবার খেতে নির্দেশ দেয়া হয়।

অপরাজিতা হলের ছাত্রী সুমাইয়া আক্তার বলেন, ‘আমাদের ডাইনিংয়ের খাবারের মান খুবই খারাপ। তার মধ্যে রাইস কুকার নিষিদ্ধ করা হলো। রান্নার সব সরঞ্জামও হলে রাখতে নিষেধ করা হয়েছে।’

লীমা নামের আরেক ছাত্রী বলেন, ‘আন্দোলনে আসতে আমাদের বাধা দেয়া হয়েছিল। আমরা হলের দুটি তালা ভেঙে নেমেছিলাম।’

আন্দোলনের সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রবিষয়ক পরিচালক মো. শরীফ হাসান লিমন এসেছিলেন। তবে তিনি শিক্ষার্থীদের আন্দোলন নিবৃত্ত করতে ব্যর্থ হয়ে একপর্যায়ে ফিরে যান।

পরে রাত দেড়টায় প্রভোস্ট শিক্ষার্থীদের ১১ দফা দাবি মেনে নেয়ার আশ্বাসে লিখিত দেন।

শিক্ষার্থীদের দাবিগুলো হলো-

১. রাইস কুকার ও হলের রান্নার সরঞ্জামাদি ব্যবহারের নিষেধাজ্ঞা তুলে নিতে হবে।

২. সেক্সুয়াল হ্যারাজমেন্টের প্রতিবাদে সোশ্যাল মিডিয়ায় কথা বলার কারণে ব্যক্তিগত আক্রমণ ও পারিবারিক শিক্ষা তুলে কথা বলায় ক্ষমা চাইতে হবে।

৩. হলে প্রয়োজনে অভিভাবক ও মহিলা আত্মীয়দের থাকার অনুমতি প্রদান করতে হবে।

৪. পানির পোকা ও খাবারের সমস্যার স্থায়ী সমাধান করতে হবে।

৫. প্রভোস্ট তার নিজ ডিসিপ্লিনের স্টুডেন্টদের ডেকে নিয়ে ব্যক্তিগত এবং অ্যাকাডেমিক বিষয়ে হয়রানি বন্ধ করতে হবে ও ক্ষমা চাইতে হবে।

৬. হলের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের দুর্ব্যবহার বন্ধ করতে হবে।

৭. যেকোনো পরিস্থিতিতে সিট বাতিলের হুমকি দেয়া বন্ধ করতে হবে।

৮. যেকোনো পরিস্থিতিতে হলের ছাত্রীদের মতামতকে প্রাধান্য দিতে হবে।

৯. হলের মিল খাওয়া বাধ্যতামূলক করা যাবে না।

১০. আন্দোলনের ঘটনাকে কেন্দ্র করে কোনো শিক্ষার্থীকে ব্যক্তিগতভাবে হুমকি দেয়া যাবে না।

১১. এ দাবিগুলো না মানলে প্রভোস্ট কমিটির পদত্যাগ করতে হবে।

আরও পড়ুন:
হলে নিষিদ্ধ রাইসকুকার, মধ্যরাতে শিক্ষার্থীদের প্রতিবাদ

মন্তব্য

p
উপরে