মুসকান জুবেরী হয়ে ওঠার গল্প শোনালেন বাঁধন

মুসকান জুবেরী হয়ে ওঠার গল্প শোনালেন বাঁধন

রবীন্দ্রনাথ এখানে কখনও খেতে আসেননি ওয়েব সিরিজে মুসকান জুবেরী চরিত্রে বাঁধন। ছবি: সংগৃহীত

‘আমি আমাদের দেশের রাইটার মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিনের কাছে খুবই গ্রেটফুল এই জন্য যে, এ রকম একটা পাওয়ারফুল নারী চরিত্র সে ভেবেছে। যদিও এটা কাল্পনিক চরিত্র। কিন্তু বিভিন্ন লেয়ারে লেয়ারে মুশকানকে দৃঢ় করে তোলা হয়েছে।’

দেশের লেখক মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিনের থ্রিলার উপন্যাস ‘রবীন্দ্রনাথ এখানে কখনও খেতে আসেননি’ অবলম্বনে একই নামে ওয়েব সিরিজ নির্মাণ করেছেন কলকাতার নামকরা পরিচালক সৃজিত।

১৩ আগস্ট ভারতীয় ওয়েব প্ল্যাটফর্ম হইচইতে মুক্তি পেয়েছে সিরিজটি। এতে মুসকান জুবেরী নামের এক রহস্যময়ী নারীর চরিত্রে অভিনয় করেছেন এ দেশের বাঁধন।

সিরিজটি মুক্তি পাওয়ার পর কেমন সাড়া পাচ্ছেন অভিনেত্রী? কোন কোন বিষয় নিয়ে হচ্ছে আলোচনা?

নিউজবাংলার সঙ্গে সেসব বিষয় নিয়ে কথা বলেছেন আজমেরী হক বাঁধন।

  • রবীন্দ্রনাথ এখানে কখনও খেতে আসেননি ওয়েব সিরিজটি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে অনেকেই লিখছেন। আপনার চোখে কি পড়েছে?

ওয়েব সিরিজটা যেহেতু এখন স্ট্রিমিং হচ্ছে হইচইতে, ওটা মানুষ দেখেছেন। ভালো রিভিউ আসছে আমার কাছে। আমি দেখতে চাচ্ছিলাম যে আসলে কে কী বলছেন। কেউ কেউ আবার যেসব ত্রুটির কথা বলছেন আমি সেটাও লক্ষ্য করছি; কে কোন জায়গাটার কথা বলছেন।

এক ধরনের মাইন্ডসেট তো আমাদের থাকে। আমরা সব সময়ই আমাদের মাইন্ডসেট থেকে বের হতে পারি না। এটা আমাদের আসলে সামাজিক সমস্যা। যার কারণে নতুন কিছু গ্রহণ করার প্রবণতা কম।

এটা এমন একটি চরিত্র যে চরিত্রটা মানুষ অলরেডি জানেন। কারণ এটা তো একটা উপন্যাসের চরিত্র। এই ধরনের চরিত্র করা কিন্তু কঠিন। কারণ আমরা যখন একটা বই পড়ি তখন আমাদের মাথায় ওই চরিত্রকে আমরা দেখি। সেটার সঙ্গে যখন ভিজ্যুয়ালি মিল পাব না তখন আমার কাছে ভালো নাও লাগতে পারে।

আমি এটা মেনে নিতে চাই। কারণ আমি সবাইকে খুশি করতে পারব না। যাদের ভালো লেগেছে তারা তো খুবই ভালো বলছেন, স্পেশালি আমি এটা উল্লেখ করতে চাই যে কলকাতার দর্শক আমার কাজের প্রশংসা করছেন। এটা আমার কাছে অনেক ভালো লেগেছে।

এর কারণ নতুন কাউকে গ্রহণ করাটা কিন্তু অনেক বড় একটা ব্যাপার এবং সেটা তারা অনেক আন্তরিকতার সঙ্গে করেছেন। কলকাতা থেকে আমি অনেক রেসপন্স পেয়েছি। আমাদের এখানকার যারা আমার পরিচিত বা পরিচিতর পরিচিত বা যারা ফেসবুকে লিখছেন তারা আমাকে অনেক ভালো ফিডব্যাক দিচ্ছেন।

মুসকান জুবেরী হয়ে ওঠার গল্প শোনালেন বাঁধন
মুসকান জুবেরী চরিত্রে বাঁধন। ছবি কোলাজ: নিউজবাংলা

  • দর্শকরা কোন ত্রুটিগুলোর কথা বলছেন?

একেকজন একেক রকম। আমি আসলে ওই বিষয় নিয়ে আলোচনা করতে চাই না। কিন্তু ব্যাপারটা এ রকম না যে, আমি সেগুলো দেখিনি। সেগুলো জানাটাও আমার জন্য ভীষণ জরুরি বলে আমি মনে করি। কোন জায়গাগুলোতে মানুষ মনে করছেন যে, হয়তো আরেকটু বেটার হতো।

কিন্তু আমি যেটা বলছিলাম যে মাইন্ডসেট অনেক বড় একটা ব্যাপার। ওই জায়গা থেকে বের হয়ে যারা দেখেছেন, তারা ভালো বলেছেন। আর যারা বের হতে পারেননি কিংবা অন্য কাউকে ভেবে রেখেছিলেন এই চরিত্রে, তাদের জন্য একটু ডিফিকাল্ট হয়েছে।

আমার চরিত্র নিয়ে মানে মুসকান জুবেরীকে নিয়ে বেশির ভাগ রিভিউ ভালো এসেছে।

  • সাহিত্যের চরিত্র ও পর্দার চরিত্রের যে পার্থক্য, আপনি কি সেটার কথা বলছেন?

এটা খুবই স্বাভাবিক। এটা আসলে হবেই। বই পড়ার একটা সুবিধা হচ্ছে যে আমরা আমাদের মতো করে তা ভাবতে পারি বা দেখতে পারি। কিন্তু যখন আমরা একটা ওয়েব সিরিজ দেখব বা ফিল্ম দেখব, তখন সেটা দেখতে হবে পরিচালক যেভাবে দেখাতে চাচ্ছেন সেভাবে।

  • এই সিরিজকে থ্রিলার বলা হয়। কিন্তু মুসকানের কণ্ঠে- ‘নারীর সফল হতে হলে ডাইনি বা বেশ্যা হতে হয় না’- এই ধরনের একটি সংলাপ শুনে মনে হয় নারীর দৃঢ়তা যেন থ্রিলারকে পেছনে ফেলে দিয়েছে।

প্রথমত, এই ধরনের নারী চরিত্র যে হয় এটা কিন্তু আমাদের এখানে আসলে দেখে না কেউ। আমি আমাদের দেশের রাইটার মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিনের কাছে খুবই গ্রেটফুল এই জন্য যে, এ রকম একটা পাওয়ারফুল নারী চরিত্র সে ভেবেছে।

যদিও এটা কাল্পনিক চরিত্র। কিন্তু বিভিন্ন লেয়ারে লেয়ারে মুশকানকে দৃঢ় করে তোলা হয়েছে।

আপনি যে লাইনের কথা বলছেন, আমি মনে করি এটা আমার দেয়া সিরিজের সবচাইতে বেস্ট ডায়লগ। আমি এই ডায়লগটা ভালোবেসেছি এবং আমি খুবই পছন্দ করেছি যে এ রকম একটা ডায়লগ আসলে মুসকান বলেছে।

মুসকান জুবেরী হয়ে ওঠার গল্প শোনালেন বাঁধন
অভিনেত্রী আজমেরী হক বাঁধন। ছবি: নিউজবাংলা

  • পুরো সিরিজে শাড়ি ছিল মুসকানের কস্টিউম। কেন? আর শাড়িগুলো কোথাকার?

শাড়িগুলো কিন্তু আমাদের এখানকার। আমি বাংলাদেশ থেকে নিয়ে গেছি। লিনা নামের একজনকে আমি চিনি, ওর পরিচিত অনলাইন পেজ জায়া থেকে শাড়িগুলো নিয়েছি। প্রায় সব শাড়ি তার কাছ থেকে নেয়া, আমার ছিল একটা-দুটো।

এখান থেকে শাড়িগুলো নিয়ে গিয়েছিলাম কারণ ঢাকার জামদানি কলকাতায় খুব একটা পাওয়া যায় না; পাওয়া গেলেও সেগুলোর অনেক দাম। কলকাতা থেকে আমাকে অনুরোধ করা হয়েছিল যে, আমি যেন আমারগুলো নিয়ে যাই।

আমরা মুসকানকে এভাবেই পোর্ট্রেট করতে চেয়েছিলাম যে সে সব সময় ঢাকাই জামদানি পরে।

  • পুরো সিরিজেই মুসকানের উপস্থিতি মানেই একটা ভালোলাগার আবেদন তৈরি করে। সেটা উপন্যাসেও এবং সিরিজেও। এটাকে আপনি আবেদন বলবেন না ব্যক্তিত্ব বলবেন?

আমি যখন বইটি পড়ি, তখনই আমার মুশকানকে অনেক অ্যাটার্কটিভ মনে হয়েছে। এর অন্যতম কারণ তার চরিত্রের দৃঢ়তা এবং কনফিডেন্স। আমার কাছে মনে হয়েছে যে মানুষের বাহ্যিক সৌন্দর্য এবং শারীরিক গঠন অনেকভাবে প্রভাবিত হয় মানুষের মানসিক গঠন এবং তার ব্যক্তিত্ব দিয়ে, তার আত্মবিশ্বাস দিয়ে। মুসকানের তো সেটা প্রখর।

তবে আমার কাছে সব মানুষই দেখতে ভালো। সবাই তার তার জায়গা থেকে সুন্দর।

মুসকান জুবেরী হয়ে ওঠার গল্প শোনালেন বাঁধন
মুসকান জুবেরী চরিত্রে বাঁধন। ছবি কোলাজ: নিউজবাংলা

  • সিরিজে মুসকানের অভিনয় ও সংলাপের পরিমিতিবোধের কথা ভালোভাবে উল্লেখ করেছেন অনেকে। এই পরিমিতিবোধের মধ্য দিয়ে অভিনয়শিল্পীর যাওয়াটা কি সাধারণ জীবন-যাপনের মতো, নাকি শিখতে হয়?

আমার জন্য অভিনয়টা মাত্র শুরু হয়েছে। আমি অভিনয় নিয়ে খুব বেশি কিছু বলতে পারি না। কারণ হচ্ছে, অভিনয়ের যে টেকনিক আছে বা মঞ্চ থেকে আসলে বা প্রশিক্ষণ থাকলে বা যারা অলরেডি প্রমাণিত অভিনেতা-অভিনেত্রী তারা ভালো করে বলতে পারবেন।

আমি যেটা করেছি সেটা আমি রেহানা মরিয়ম নূরের ক্ষেত্রে করেছি এবং মুসকানের ক্ষেত্রে করেছি, সেটা হলো আমার পরিচালক যেভাবে চেয়েছেন আমি সেভাবে কাজ করেছি।

আমি খুব গুড লার্নার, আমি ভালো স্টুডেন্ট হিসেবে টিচারদের খুব পছন্দের ছিলাম। মেডিক্যালে যখন পড়েছি, সবাই আমাকে চিনত গুড স্টুডেন্ট হিসেবে।

সৃজিত যেভাবে বলেছেন আমি সেটা ভালো করেছি। আমি হয়তো কিছু জায়গায় মুশকান থেকে বের হয়ে যাচ্ছিলাম, পরিচালক সেগুলো আমাকে ধরিয়ে দিয়েছেন।

  • আর সংলাপ

প্রত্যেকটা সংলাপ মুসকান কেন বলছে সেটা নিয়েও আমাদের বিশ্লেষণ হয়েছে। তখন আমি সেভাবে অ্যাডাপ্ট করেছি এবং প্রচুর রিহার্সেল হয়েছে।

এখান থেকে তো আমি সংলাপ পড়ে গেছিই, ওখানে গিয়েও বিভিন্নভাবে পড়েছি। ওখানে আমি হোটেলে ছিলাম। ওখানে তো আমাকে কেউ চেনে না। আমি ব্রেকফাস্টে যাচ্ছি, জিমে যাচ্ছি আর স্ক্রিপ্ট পড়ছি। ওরা মনে করেছে আমার পরীক্ষা।

সৃজিত আমাকে অনেক সাহায্য করেছেন। সৃজিত আমার সহশিল্পীর সংলাপ বলতেন আর আমি আমারটা।

আমি আমার জায়গা থেকে যা যা করতে পারি সেগুলো করে রাখার চেষ্টা করেছি। আর চরিত্র বা সংলাপের যে পরিমিতিবোধ, কোন সংলাপ কখন কীভাবে বলব, সেগুলো পরিচালক আমাকে দেখিয়ে দিয়েছেন।

মুসকান জুবেরী হয়ে ওঠার গল্প শোনালেন বাঁধন
অভিনেত্রী আজমেরী হক বাঁধন। ছবি: নিউজবাংলা

  • সিরিজে আপনাকে মেডিক্যাল স্টুডেন্ট বলে একটি দায়িত্ব দেয়া হয়। আপনি বাস্তবজীবনেও মেডিক্যাল স্টুডেন্ট। সিরিজের যুক্তিটা নিয়ে কি বলবেন? মেডিক্যাল সায়েন্স কী বলে?

আপনি জানেন নিশ্চয়ই এই ঘটনাটা কিন্তু হয়েছে। এই অ্যাক্সিডেন্টটা হয়েছে এবং এই মানুষগুলো এভাবেই সারভাইব করেছে। এই ঘটনা নিয়ে মুভিও হয়েছে। এমন ঘটনা পৃথিবীতে এক্সিস্ট করে কোথাও কোথাও।

  • সিরিজের কিছু দৃশ্য খুবই বীভৎস। সেসব দৃশ্য পর্দায় আসার আগে স্ক্রলে তা জানিয়ে দেয়া হয়েছে। তারপরও এগুলো প্রতীকী রূপে দেখালে ভালো হতো বলে লিখেছেন কেউ কেউ। আপনি কী বলবেন?

এটা পরিচালক ভালো বলতে পারবেন। পরিচালক যেভাবে দেখাতে চেয়েছেন, আমি সেখানে অ্যাক্ট করেছি। আমার কোনো সমস্যা হয়নি। তবে সবার মেন্টাল স্ট্রেন্থ তো এক রকম নয়। সে জন্য দৃশ্যগুলো স্ক্রিনে আসার আগে স্ক্রলে বলে দেয়া হয়েছে।

  • ‘বইয়ের চেয়ে উপাদেয় খাবার আর নেই’ এমন একটি সংলাপ রয়েছে সিরিজে। হোটেল/রেস্ট্রুরেন্ট তো পুড়ে গেল। সেখানে একটা লাইব্রেরি করার অনুরোধ করেছে মুসকান। এটা কি সেকেন্ড সিজনের ইঙ্গিত দেয়?

সেকেন্ড বইটা তো আছেই। সেখানে রেস্ট্রুরেন্টের জায়গায় একটা লাইব্রেরি হওয়ার কথা বলা আছে। কিন্তু আমি জানি না যে সেকেন্ড সিজন হবে কি না।

যারা পড়েননি তারা পড়ে নিতে পারেন। তবে যেহেতু বই পড়ে সিরিজ দেখলে অসুবিধা হচ্ছে, সে ক্ষেত্রে আসলে বইটা আগেই পড়ে ফেলাটা ঠিক হবে কি না, এ বিষয়ে সাজেশন দিতে পারছি না।

তবে আমি নিজেকে ভীষণ লাকি মনে করছি এই কারণে যে, আমি এ রকম একটি চরিত্রে কাজ করার সুযোগ পেয়েছি।

মুসকান জুবেরী হয়ে ওঠার গল্প শোনালেন বাঁধন
অভিনেত্রী আজমেরী হক বাঁধন। ছবি: নিউজবাংলা

  • আপনার কাছে দর্শকের এখন প্রত্যাশা বাড়ছে। আপনি কী কাজ করবেন, সেদিকে নজর আমাদের সবার।

আমাকে তো তিন বছর সময় অনেকেই পাগল বলেছে, বলেছে যে মাথা খারাপ আমার, কী করছি।

এই কাজগুলোই তো করছি তিন বছর ধরে। আমার পরিকল্পনাতেই ছিল এভাবে কাজ করা বা এই কাজগুলো করা।

এখানে আমার যদি একটা ভুল হয়ে যেত, তাহলে হয়তো বলত যে এটা কেন করলা, আবার এখন আমি ঠিক করছি বলে বলছে যে হ্যাঁ, খুব ভালো করেছ, এরপর সব ভালো করবা।

ব্যাপারটা কিন্তু একেবারে এ রকম না। আমি একজন মানুষ, আমি ভুল করবই এবং সেটা এখন বা পরেও হতে পারে। আমার এত বড় বড় সাকসেসের পরেও আমার ভুল হতে পারে এবং এটা খুবই স্বাভাবিক একটা ঘটনা।

সব ভালো কাজ আমি এখন করতে পারব এটা ভাবার মতো ইমপ্র্যাকটিক্যাল মানুষ আমি না। আমি খুবই মাটিতে থাকার মতো মানুষ। আমি বাস্তবতা জানি এবং মেনে নিয়ে চলতে চাই।

আর ভালো কাজের সুযোগ তো আমার পেতে হবে। প্রথম কথা হচ্ছে, এই সুযোগটা পাওয়ার পরে সেটা আমি কাজে লাগাতে নাও পারি। আমার এখন যে মেন্টাল স্ট্রেন্থ, সেটা নাও থাকতে পারে। আগাম কিছুই বলতে পারছি না।

আমি চেষ্টা করব আমার যে কাজগুলো করার ইচ্ছা, সেগুলো আমি টাকার জন্য করব না। মানে মিনিমাম যে টাকাটা নিতে হয় সেটা নেব। আর কিছু কাজ আমাকে তো সারভাইভ করার জন্য করতে হচ্ছে, হবে। সেটাও আমি করব।

  • পরবর্তী কাজ কী?

জানি না এখনও। আমি একটা কাজের অডিশন দিয়েছি অনলাইনে। সেটা দেশের না বাইরের সেগুলোও এখন বলতে চাচ্ছি না। কাজটি চূড়ান্ত হলে আনন্দ নিয়ে জানাব।

আরও পড়ুন:
পিলে চমকানো সত্য জানাবেন বাঁধন!
‘মুসকানের মতো বাঁধনের প্রেমে পড়াও কঠিন’

শেয়ার করুন

মন্তব্য

বাড্ডায় ফার্নিচারের দোকানে আগুন নিয়ন্ত্রণে

বাড্ডায় ফার্নিচারের দোকানে আগুন নিয়ন্ত্রণে

ফাইল ছবি

ফায়ার সার্ভিসের কন্ট্রোল রুমের ডিউটি অফিসার দেওয়ান আজাদ বলেন, ‘প্রাথমিকভাবে আগুন লাগার কারণ এবং ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ এখনও জানা যায়নি। আগুন নেভানো শেষ হলে তদন্ত করে বিষয়টি জানানো হবে।’

রাজধানীর বাড্ডার সাতারকুল এলাকার একটি ফার্নিচারের দোকানে লাগা আগুন নিয়ন্ত্রণে এনেছে ফায়ার সার্ভিস।

ফায়ার সার্ভিসের কন্ট্রোল রুমের ডিউটি অফিসার দেওয়ান আজাদ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘রাত ১০টা ৫৫ মিনিটে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। তবে সম্পূর্ণভাবে নেভানোর কাজ এখনও চলছে। আগুন নেভাতে ফায়ার সার্ভিসের ৬টি ইউনিট কাজ করে।’

তিনি আরও বলেন, তবে প্রাথমিকভাবে আগুন লাগার কারণ এবং ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ এখনও জানা যায়নি। আগুন নেভানো শেষ হলে তদন্ত করে বিষয়টি জানানো হবে।’

ফায়ার সার্ভিসের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী এ ঘটনায় কেউ হতাহত হয়নি।

শনিবার রাত ১০ টার দিকে আগুনের খবর পায় ফায়ার সার্ভিস। প্রথমে আগুন নিয়ন্ত্রণে ফায়ার সার্ভিসের দুইটি ইউনিট যোগ দেয়। পরে আরও ৪টি ইউনিট কাজে যোগ দেয়।

আরও পড়ুন:
পিলে চমকানো সত্য জানাবেন বাঁধন!
‘মুসকানের মতো বাঁধনের প্রেমে পড়াও কঠিন’

শেয়ার করুন

ধর্মীয় উসকানিমূলক পোস্টের অভিযোগে যুবক গ্রেপ্তার

ধর্মীয় উসকানিমূলক পোস্টের অভিযোগে যুবক গ্রেপ্তার

ফেসবুকে ধর্মীয় উস্কানি ও গুজব ছাড়ানোর অভিযোগে গ্রেপ্তার শোভন কুমার দাস। ছবি: নিউজবাংলা

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে র‍্যাব জানায়, গত ১৫ থেকে ২২ অক্টোবর সকাল থেকে পর্যন্ত বিভিন্ন সময়ে শোভন তার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে বেশ কিছু ধর্মীয় উসকানিমূলক পোস্ট ও লিংক শেয়ার করেন। এ ঘটনায় আরও ৪ থেকে ৫ জন জড়িত। শিগিগিরই তাদের আইনের আওতায় আনা হবে।  

ফেসবুকে ধর্মীয় উসকানি ও গুজব ছাড়ানোর অভিযোগে এক যুবক গ্রেপ্তার হয়েছে যশোরে।

সদরের বকচর হুশতলা এলাকা থেকে শুক্রবার বিকেলে তাকে আটক করে র‍্যাব।

পরে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা দিয়ে তাকে যশোর কোতয়ালি থানায় হস্তান্তর করা হয়।

গ্রেপ্তার যুবকের নাম শোভন কুমার দাস। ২৭ বছরের শোভনের বাড়ি নড়াইল জেলার কালিয়া উপজেলার জোকারচর গ্রামে।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে শনিবার দুপুরে এসব নিশ্চিত করেছেন র‍্যাব যশোর ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার লে. মো. নাজিউর রহমান।

এতে বলা হয়, গত ১৫ থেকে ২২ অক্টোবর সকাল থেকে পর্যন্ত বিভিন্ন সময়ে শোভন তার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে বেশ কিছু ধর্মীয় উসকানিমূলক পোস্ট ও লিংক শেয়ার করেন। এ ঘটনায় আরও ৪ থেকে ৫ জন জড়িত। শিগিগিরই তাদের আইনের আওতায় আনা হবে।

আরও পড়ুন:
পিলে চমকানো সত্য জানাবেন বাঁধন!
‘মুসকানের মতো বাঁধনের প্রেমে পড়াও কঠিন’

শেয়ার করুন

রংপুরে মজুরি বাড়ছে সবচেয়ে বেশি, সিলেটে কম

রংপুরে মজুরি বাড়ছে সবচেয়ে বেশি, সিলেটে কম

বিবিএসের মজুরি সূচকের হালনাগাদ তথ্যে দেখা যাচ্ছে, সেপ্টেম্বরে দেশে শ্রমিকদের গড়ে মজুরি বেড়েছে ৫ দশমিক ৯১ শতাংশ। মঙ্গাকবলিত উত্তরাঞ্চলের রংপুর বিভাগের মজুরি বেড়েছে সবচেয়ে বেশি – ৭ দশমিক ৪১ শতাংশ। আর কম বেড়েছে সবচেয়ে বেশি রেমিট্যান্স আসে যে অঞ্চলে, সেই সিলেট বিভাগে – ৫ দশমিক ৪৯ শতাংশ। তবে বিশ্লেষকরা এ তথ্যের সঙ্গে একমত নন।

মহামারি করোনার ধাক্কা সামলে অর্থনীতির ঘুরে দাঁড়ানোর ইতিবাচক প্রভাব পড়েছে দিনমজুর ও শ্রমিকদের মজুরিতে। গত তিন মাস ধরেই বাড়ছে অর্থনীতির গুরুত্বপূর্ণ সূচক মজুরি।

তবে অবিশ্বাস্য তথ্য হচ্ছে, রংপুরে মজুরি বেড়েছে সবচেয়ে বেশি, সিলেটে সবচেয়ে কম।

সরকারি হিসাবে গত সেপ্টেম্বর মাসে বাংলাদেশের বিভিন্ন খাতের শ্রমিকদের গড়ে মজুরি বেড়েছে ৫ দশমিক ৯১ শতাংশ। এর অর্থ হলো, গত বছরের সেপ্টেম্বরে শ্রমিক ও দিনমজুররা গড়ে ১০০ টাকা মজুরি পেলে এই বছরের সেপ্টেম্বর মাসে পেয়েছেন ১০৫ টাকা ৯১ পয়সা।

দেখা যাচ্ছে, সেপ্টেম্বর মাসে একসময়ের মঙ্গাকবলিত উত্তরাঞ্চলের রংপুর বিভাগের শ্রমিক-দিনমজুরদের মজুরি সবচেয়ে বেশি বেড়েছে – ৭ দশমিক ৪১ শতাংশ।

আর কম বেড়েছে সবচেয়ে বেশি রেমিট্যান্স আসে যে অঞ্চলে, সেই সিলেট বিভাগে – ৫ দশমিক ৪৯ শতাংশ।

সরকারি সংস্থা বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস) যে হিসাব দিচ্ছে, তাতে দেখা যায়, গত কয়েক মাস ধরেই রংপুর অঞ্চলের শ্রমিক ও দিনমজুররা অন্য বিভাগের শ্রমিক ও দিনমজুরদের চেয়ে বেশি মজুরি পাচ্ছেন।

তবে অর্থনীতির গবেষক সাউথ এশিয়ান নেটওয়ার্ক অন ইকোনমিক মডেলিংয়ের (সানেম) নির্বাহী পরিচালক সেলিম রায়হান পরিসংখ্যান ব্যুরোর এই তথ্য নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। তিনি বলেন, ‘এ তথ্য কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়, কেউ বিশ্বাস করবে না।’

নিউজবাংলাকে সেলিম রায়হান বলেন, ‘ঢাকার চেয়ে রংপুরের শ্রমিক-দিনমজুররা বেশি মজুরি পান, এটা কীভাবে সম্ভব? বিবিএসের গবেষণা পদ্ধতিতেই গোলমাল আছে। প্রথম কথা হচ্ছে, এই মহামারিতে কোনো শ্রমিক-দিনমজুরেরই মজুরি বাড়েনি; তারপর আবার রংপুর বিভাগের দিনমজুর-শ্রমিকদের মজুরি বেশি বেড়েছে, এটা কোনোভাবেই সম্ভব নয়।’

এ প্রসঙ্গে বিবিএসের মহাপরিচালক মোহাম্মদ তাজুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা মাঠপর্যায় থেকে যে তথ্য পাই, সেটাই প্রকাশ করি।’

গত বছরের মার্চে দেশে করোনার প্রাদুর্ভাব দেখা দেওয়ার পর থেকেই বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মতো বাংলাদেশের অর্থনীতিও তছনছ হয়ে যায়; পাল্টে যায় সব হিশাব-নিকাশ। যার প্রভাব পড়ে মজুরি সূচকে।

পরিসংখ্যান ব্যুরো বৃহস্পতিবার মজুরি সূচকের হালনাগাদ যে তথ্য প্রকাশ করেছে, তাতে দেখা যায়, গত সেপ্টেম্বর মাসে পয়েন্ট টু পয়েন্ট ভিত্তিতে জাতীয় মজুরি বৃদ্ধির হার দাঁড়িয়েছে ৫ দশমিক ৯১ শতাংশ। এর অর্থ হলো, গত সেপ্টেম্বরে ২০২০ সালের সেপ্টেম্বরের চেয়ে দিনমজুর-শ্রমিকদের মজুরি বেড়েছে ৫ দশমিক ৯১ শতাংশ। আগের দুই মাস আগস্ট ও জুলাইয়ে এই হার ছিল যথাক্রমে ৫ দশমিক ৮০ ও ৫ দশমিক ৭২ শতাংশ।

গত অর্থবছরের শেষ দুই মাস জুন ও মে মাসে এই হার ছিল যথাক্রমে ৫ দশমিক ৯৭ শতাংশ এবং ৫ দশমিক ৮৯ শতাংশ।

বিবিএসের তথ্য বিশ্লেষণে দেখা যায়, ২০১৮-১৯ অর্থবছরে গড় মজুরি সূচক ছিল ৬ দশমিক ৪০ শতাংশ। ২০১৯-২০ অর্থবছরে তা খানিকটা কমে ৬ দশমিক ৩৫ শতাংশে নেমে আসে।

গত ২০২০-২১ অর্থবছরে তা আরও কমে ৬ দশমিক ১২ শতাংশে নেমে আসে।

চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়ে এই সূচক ৬ শতাংশের নিচে নেমে এসে ৫ দশমিক ৭২ শতাংশে দাঁড়ায়। আগস্ট মাসে তা সামান্য বেড়ে ৫ দশমিক ৮০ শতাংশে ওঠে। সেপ্টেম্বরে আরও খানিকটা বেড়ে ৫ দশমিক ৯১ শতাংশে দাঁড়িয়েছে।

অর্থনীতির পরিভাষায়, মূল্যস্ফীতির চেয়ে মজুরি বৃদ্ধির হার বেশি হলে কারও কাছে হাত পাততে হয় না। নিজেদের ক্রয়ক্ষমতা দিয়েই বাজার থেকে বেশি দামে পণ্য কেনা যায়।

রংপুরে মজুরি বাড়ছে সবচেয়ে বেশি, সিলেটে কম

বিবিএসের হিসাবে সেপ্টেম্বর মাসে পয়েন্ট টু পয়েন্ট ভিত্তিতে মূল্যস্ফীতির হার ছিল ৫ দশমিক ৫৯ শতাংশ। এতে দেখা যাচ্ছে, সেপ্টেম্বরে মজুরি বৃদ্ধির হার মূল্যস্ফীতির চেয়ে বেশি।

পরিসংখ্যান ব্যুরোর হিসাব ধরলে, দিনমজুরদের মজুরি বৃদ্ধি পাওয়ায় বাজার থেকে বেশি দামে তাদের পণ্য কিনতে অসুবিধা হওয়ার কথা নয়। কিন্তু বাস্তবে তা হয়নি; বরং কর্মহীন হয়ে যাওয়া গরিব মানুষের জন্য সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ে নানা ধরনের সহায়তা কর্মসূচি নিতে হচ্ছে।

বিশ্বব্যাংক ঢাকা অফিসের সাবেক প্রধান অর্থনীতিবিদ জাহিদ হোসেনও পরিসংখ্যান ব্যুরোর মজুরি সূচকের তথ্য নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন।

তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘অর্থনীতি শাস্ত্রের কোনো যুক্তিতেই বিবিএসের মজুরি হার বৃদ্ধির ব্যাখ্যা দেয়া সম্ভব নয়। সাধারণত যখন শ্রমিকের চাহিদা বাড়ে, সরবরাহ কম থাকে, তখন মজুরি বৃদ্ধি পায়। কিন্তু এই মহামারির সময়ে শ্রমিকের চাহিদা বেশ কমেছে। অনানুষ্ঠানিক খাতে বেকারের সংখ্যা অনেক বেড়েছে। তাহলে মজুরি বাড়ল কোন ভিত্তিতে?

‘মজুরি যদি বাড়ত, তাহলে এই করোনাকালে সরকারকে এত সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচি নিতে হতো না। বিবিএস হয়তো অতীতের মজুরি বৃদ্ধির প্রবণতা দেখে পরিসংখ্যানভিত্তিক বিশ্লেষণ করে এই তথ্য দিয়েছে, যা কোনোভাবেই বাস্তবসম্মত নয়।’

বিবিএস প্রতি মাসে কৃষিশ্রমিক, পরিবহন কর্মী, বিড়িশ্রমিক, জেলে, দিনমজুর, নির্মাণশ্রমিকসহ ৪৪ ধরনের পেশাজীবীর মজুরির তথ্য সংগ্রহ করে মজুরি হার সূচক তৈরি করে। এসব পেশাজীবীর মজুরি খুব কম এবং দক্ষতাও কম। শুধু দৈনিক ভিত্তিতে মজুরি পান বা নগদ টাকার পরিবর্তে অন্য সহায়তা পান, তার ভিত্তিতে কোন মাসে মজুরি হার কত বাড়ল, তা প্রকাশ করে বিবিএস। অথচ করোনায় এসব শ্রমিকই সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন।

পরিসংখ্যান ব্যুরো যে ৪৪ ধরনের পেশাজীবীর মজুরির তথ্য নেয়, তার মধ্যে ২২টি শিল্প খাতের এবং ১১টি করে কৃষি ও সেবা খাতের পেশা। বেতনভোগী কিংবা উচ্চ আয়ের পেশাজীবীদের বিবিএসের মজুরি সূচকে অন্তর্ভুক্ত করা হয় না।

করোনাকালে মজুরির হার বাড়ল কীভাবে – এই প্রশ্ন জাতীয় মজুরির হার সূচক তৈরির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট বিবিএসের জাতীয় আয় শাখার একাধিক কর্মকর্তাকে জিজ্ঞাসা করা হয়। নাম প্রকাশ না করার শর্তে তারা নিউজবাংলাকে বলেন, মাঠপর্যায়ে যে তথ্য পাওয়া গেছে, এর ভিত্তিতে মজুরি সূচকের তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে।

করোনাকালে দিন আনে দিন খায় এমন মানুষের আয় কমে যাওয়ার বিষয়টি দেশের একাধিক গবেষণা প্রতিষ্ঠানের গবেষণায় উঠে এসেছে।

বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান পাওয়ার অ্যান্ড পার্টিসিপেশন রিসার্চ সেন্টার (পিপিআরসি) ও ব্র্যাক ইনস্টিটিউট অব গভর্ন্যান্স অ্যান্ড ডেভেলপমেন্টের (বিআইজিডি) এক যৌথ গবেষণায় দেখা গেছে, গত ফেব্রুয়ারি মাসের তুলনায় এপ্রিল মাসে অতি গরিব, গরিব, গরিব হয়ে যাওয়ার ঝুঁকির মধ্যে থাকা মানুষ এবং গরিব নয় এমন মানুষের দৈনিক আয় ৬৫ থেকে ৭৫ শতাংশ কমেছে। এর মধ্যে গরিব মানুষের আয় ৭৫ শতাংশ ও অতি গরিবের আয় ৭৩ শতাংশ কমেছে। আয় কমে যাওয়ায় সার্বিকভাবে ২৩ শতাংশ মানুষ নতুন করে গরিব হয়েছে।

রংপুরে মজুরি বাড়ছে সবচেয়ে বেশি, সিলেটে কম

মহামারিতে দারিদ্র্য দ্বিগুণ বেড়ে ৪২ শতাংশ হয়েছে বলে গত জানুয়ারিতে হিসাব দিয়েছিল সানেম।

আরেক বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) হিসাবে, করোনার কারণে দারিদ্র্যের হার বেড়ে ৩৫ শতাংশে উন্নীত হয়েছে। ২০১৯ সাল শেষে দারিদ্র্যের হার ছিল সাড়ে ২০ শতাংশ। করোনাকালে আয়বৈষম্যও বেড়েছে বলে মনে করে সিপিডি।

গবেষণা সংস্থাগুলোর গবেষণা প্রতিবেদনে করোনাকালে সমাজের সবচেয়ে নিচে থাকা মানুষের আয় বা মজুরি কমার তথ্য উঠে এলেও বিবিএসের জাতীয় মজুরি হার সূচকে উল্টো চিত্র দেখা যায়। সে জন্য সরকারি সংস্থাটির তথ্য-উপাত্তের গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে বরাবর প্রশ্ন ওঠে।

পরিসংখ্যান ব্যুরোর ২০১৬-১৭ সালের শ্রমশক্তি জরিপের প্রতিবেদন অনুযায়ী দেশের কর্মসংস্থানের বড় অংশই হচ্ছে অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতে। মোট শ্রমশক্তির ৮৫ দশমিক ১ শতাংশই এ খাতে নিয়োজিত। আর ১৪ দশমিক ৯ শতাংশ প্রাতিষ্ঠানিক খাতে কাজ করে।

অন্যদিকে কৃষিক্ষেত্রে নিয়োজিত মোট শ্রমশক্তির ৯৫ দশমিক ৪ শতাংশই অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতে নিয়োজিত। শিল্প খাতের ৮৯ দশমিক ৯ শতাংশ, সেবা খাতের ৭১ দশমিক ৮ শতাংশ শ্রমিক অপ্রাতিষ্ঠানিক কাজে নিয়োজিত।

কোন বিভাগে মজুরি কত বাড়ল

বিবিএসের তথ্যে দেখা যায়, পয়েন্ট টু পয়েন্ট ভিত্তিতে সেপ্টেম্বর মাসে ঢাকা বিভাগে মজুরি বেড়েছে ৫ দশমিক ৫৫ শতাংশ। আগস্ট ও জুলাইয়ে এই হার ছিল যথাক্রমে ৫ দশমিক ৭২ ও ৫ দশমিক ৭৫ শতাংশ।

সেপ্টেম্বরে চট্টগ্রামে মজুরি বাড়ার হার দাঁড়িয়েছে ৫ দশমিক ৮০ শতাংশ। আগস্ট ও জুলাইয়ে ছিল ৫ দশমিক ৮১ ও ৫ দশমিক ৭৭ শতাংশ।

রাজশাহীতে সেপ্টেম্বরে মজুরি বাড়ার হার ছিল ৫ দশমিক ৭৫ শতাংশ। আগস্টে ছিল ৫ দশমিক ৪৩ শতাংশ; জুলাইয়ে ৫ দশমিক ৪৫ শতাংশ।

রংপুরে সেপ্টেম্বরে মজুরি বেড়েছে ৭ দশমিক ৪১ শতাংশ। আগস্টে বেড়েছিল ৬ দশমিক ৬৭ শতাংশ; জুলাইয়ে বৃদ্ধির হার ছিল ৬ দশমিক ২০ শতাংশ।

বরিশাল বিভাগে সেপ্টেম্বর মাসে মজুরি সূচকের হার ছিল ৫ দশমিক ৬৪ শতাংশ। আগস্ট ও জুলাইয়ে ছিল যথাক্রমে ৫ দশমিক ৭৪ ও ৫ দশমিক ৫৭ শতাংশ।

খুলনায় সেপ্টেম্বর মাসে মজুরি বেড়েছে ৬ দশমিক ২৪ শতাংশ। আগস্ট ও জুলাই মাসে বেড়েছিল যথাক্রমে ৫ দশমিক ৫৪ ও ৫ দশমিক ৮৭ শতাংশ।

আর সিলেট বিভাগে সেপ্টেম্বর মাসে মজুরি সূচকের হার ছিল ৫ দশমিক ৪৯ শতাংশ। আগস্টে ছিল ৫ দশমিক ৫৪ শতাংশ; জুলাইয়ে ৫ দশমিক ৫০ শতাংশ।

আরও পড়ুন:
পিলে চমকানো সত্য জানাবেন বাঁধন!
‘মুসকানের মতো বাঁধনের প্রেমে পড়াও কঠিন’

শেয়ার করুন

জমি নিয়ে বিরোধ, চাচাতো ভাইদের হাতে ‘খুন’

জমি নিয়ে বিরোধ, চাচাতো ভাইদের হাতে ‘খুন’

স্থানীয়রা জানান, আবু জাফর তার চাচাতো ভাইদের কাছে কিছু জমি বিক্রি করেন। ২১ অক্টোবর সেই জমির দলিল করা হয়। চাচাতো ভাইয়েরা কৌশলে জাফরের বাড়ির দাগের জমি ভেন্ডারের মাধ্যমে দলিলে যুক্ত করে নেন। ঘটনা জানতে পেরে শনিবার দুপুরে দুই পরিবারের লোকজন বৈঠকে বসেন। সেই বৈঠককে কেন্দ্র করেই হত্যার ঘটনা ঘটে।

বরিশালের বাকেরগঞ্জে জমি নিয়ে বিরোধের জেরে আবু জাফর শরীফ নামের এক যুবক চাচাতো ভাইদের হাতে খুন হয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

উপজেলার কলসকাঠি ইউনিয়নের গুড়িয়া গ্রামে শনিবার বিকেলে এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা জানান, ৩৮ বছর বয়সী আবু জাফর তার চাচাতো ভাইদের কাছে কিছু জমি বিক্রি করেন। ২১ অক্টোবর সেই জমির দলিল করা হয়। চাচাতো ভাইয়েরা কৌশলে জাফরের বাড়ির দাগের জমি ভেন্ডারের মাধ্যমে দলিলে যুক্ত করে নেন। ঘটনা জানতে পেরে শনিবার দুপুরে দুই পরিবারের লোকজন বৈঠকে বসেন। সেই বৈঠককে কেন্দ্র করেই হত্যার ঘটনা ঘটে।

জাফরের ভাই তোফাজ্জেল শরীফ বলেন, ‘চাচাতো ভাই জামাল শরীফ ও আবুল শরীফের কাছে আমার ভাই জাফর কিছু জমি বিক্রয় করে। সেই জমি দলিল করার সময় তারা ভেন্ডারের মাধ্যমে বাড়ির দাগের জমি দলিলে অন্তর্ভুক্ত করে নেয়। সবকিছু জেনে আবু জাফর বাড়ির দুই পরিবারের লোকদের সঙ্গে আলোচনায় বসলে একপর্যায়ে কথা-কাটাকাটি হয়। তখন চাচাতো ভাইয়েরা জাফরকে তাদের ঘরের নিয়ে আটকে রাখে। কিছুক্ষণ পরে রক্তাক্ত অবস্থায় জাফরকে বৈঠকের রুমে ফেলে তারা পালিয়ে যায়। তাকে বাকেরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।’

বাকেরগঞ্জ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সত্যরঞ্জন খাসকেল এ ঘটনা নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, এ বিষয়ে মামলা প্রক্রিয়াধীন। মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য বরিশালের শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

আরও পড়ুন:
পিলে চমকানো সত্য জানাবেন বাঁধন!
‘মুসকানের মতো বাঁধনের প্রেমে পড়াও কঠিন’

শেয়ার করুন

বাড্ডায় ফার্নিচারের দোকানে আগুন

বাড্ডায় ফার্নিচারের দোকানে আগুন

ফাইল ছবি

ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্স অধিদপ্তরের কন্ট্রোল রুমের ডিউটি অফিসার ফরহাদ জানান, সাতারকুল জিএম বাড়ি এলাকায় ফার্নিচারের দোকানে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। আগুন নিয়ন্ত্রণে ফায়ার সার্ভিসের দুইটি ইউনিট ঘটনাস্থলে কাজ করছে, আরও তিনটি ইউনিট যুক্ত হচ্ছে।

রাজধানীর বাড্ডার সাতারকুল এলাকার একটি ফার্নিচারের দোকানে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিট।

শনিবার রাত ১০টার দিকে আগুনের খবর পায় ফায়ার সার্ভিস।

ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্স অধিদপ্তরের কন্ট্রোল রুমের ডিউটি অফিসার ফরহাদ জানান, সাতারকুল জিএম বাড়ি এলাকায় ফার্নিচারের দোকানে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে।

আগুন নিয়ন্ত্রণে ফায়ার সার্ভিসের দুইটি ইউনিট ঘটনাস্থলে কাজ করছে, আরও তিনটি ইউনিট যুক্ত হচ্ছে বলে জানান তিনি।

তবে ফরহাদ হোসেন প্রাথমিকভাবে অগ্নিকাণ্ডের কারণ ও ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ জানাতে পারেননি।

আরও পড়ুন:
পিলে চমকানো সত্য জানাবেন বাঁধন!
‘মুসকানের মতো বাঁধনের প্রেমে পড়াও কঠিন’

শেয়ার করুন

‘গুজব ছড়ানোয়’ ছাত্র অধিকার পরিষদের সাবেক নেতা গ্রেপ্তার

‘গুজব ছড়ানোয়’ ছাত্র অধিকার পরিষদের সাবেক নেতা গ্রেপ্তার

বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক নাজির হোসেন ইমরান। ছবি: নিউজবাংলা

র‍্যাব-১১-এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল তানভীর মাহমুদ পাশা জানান, সাম্প্রদায়িক সহিংসতার প্রতিবাদে নারায়ণগঞ্জে আয়োজিত শান্তিপূর্ণ সমাবেশে ককটেল বিস্ফোরণের গুজব ছড়িয়ে ইমরান জনসাধারণকে উত্তেজিত করার চেষ্টা চালান। পরে ওই পোস্ট ডিলিট করে আত্মগোপনে চলে যান।

ফেসবুকে গুজব ছড়ানোর অভিযোগে নারায়ণগঞ্জ থেকে বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের এক সাবেক নেতাকে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাব।

সিদ্ধিরগঞ্জ উপজেলার পাইনাদী নতুন মহল্লা এলাকা থেকে শনিবার ভোর সাড়ে ৪টার দিকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তার নাজির হোসেন ইমরান বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক।

র‍্যাব-১১-এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল তানভীর মাহমুদ পাশা শনিবার দুপুরে নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

তিনি জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা গেছে, কুমিল্লার নানুয়ার দিঘির পাড়ের মণ্ডপের ঘটনাকে কেন্দ্র করে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্টের উদ্দেশ্যে ইমরান ফেসবুকে বিভিন্ন উসকানিমূলক, বিভ্রান্তিকর ও মিথ্যা তথ্য প্রচার করছিলেন।

সাম্প্রদায়িক সহিংসতার প্রতিবাদে নারায়ণগঞ্জে আয়োজিত শান্তিপূর্ণ সমাবেশে ককটেল বিস্ফোরণের গুজব ছড়িয়ে ইমরান জনসাধারণকে উত্তেজিত করার চেষ্টা চালান। পরে ওই পোস্ট ডিলিট করে আত্মগোপনে চলে যান। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‍্যাব তাকে আটক করে।

এরপর র‍্যাব তাকে আসামি করে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করে হস্তান্তর করেন।

আরও পড়ুন:
পিলে চমকানো সত্য জানাবেন বাঁধন!
‘মুসকানের মতো বাঁধনের প্রেমে পড়াও কঠিন’

শেয়ার করুন

‘রাজাকারের’ ছেলেকে নৌকা, বীর মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতিবাদ

‘রাজাকারের’ ছেলেকে নৌকা, 
বীর মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতিবাদ

যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলার রায়পুরে মুক্তিযোদ্ধা ও স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের মানববন্ধন। ছবি: নিউজবাংলা

মানববন্ধনে অংশ নেয়া বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হাই বলেন, ‘এই দেশের স্বাধীনতাযুদ্ধের বিরোধিতাকারী ছিল রাজাকাররা। এখন কিছু নেতাকর্মী টাকা খেয়ে তাদের মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষে শক্তির দল আওয়ামী লীগে ভিড়িয়েছে। এই জন্য কী বঙ্গবন্ধুর ডাকে এই দেশটাকে স্বাধীন করেছিলাম?’

আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলার রায়পুরে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন বিল্লাল হোসেন। তবে অভিযোগ উঠেছে, তিনি স্বাধীনতা যুদ্ধের বিরোধিতাকারী তৎকালীন শান্তি কমিটির স্থানীয় সভাপতি মোহাম্মদ আলীর ছেলে।

আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের এমন সিদ্ধান্তে বিস্ময় প্রকাশ করেছেন স্থানীয় বীর মুক্তিযোদ্ধা ও আওয়ামী লীগের তৃণমূলের নেতাকর্মীরা। বিল্লালকে নৌকা প্রতীক দেয়ার প্রতিবাদে শনিবার তারা মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিলও করেছেন।

বিল্লালকে নৌকা প্রতীক দেয়ার প্রতিবাদে বিকেলে রায়পুর ইউনিয়ন পরিষদের সামনে ঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধন হয়। পরে একটি বিক্ষোভ মিছিল রায়পুর বাজার প্রদক্ষিণ করে।

নিজের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ অবশ্য অস্বীকার করেছেন আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাওয়া বিল্লাল হোসেন। তার দাবি, তার বাবা রাজাকার ছিলেন না। আর এর আগে তিনি যুবলীগ ও আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পদে ছিলেন।

তবে মানববন্ধনে বক্তারা জানান, রায়পুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ বীর মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের সন্তানদের নিয়ে ঐক্যবদ্ধ। আওয়ামী লীগের একটি পক্ষকে অর্থের মাধ্যমে হাত করে এবং স্থানীয় সংসদ সদস্য রনজিৎ রায়ের মদদপুষ্ট হয়ে বিল্লাল হোসেন আওয়ামী লীগের নেতা হয়ে উঠেছেন।

এভাবেই স্থানীয় আওয়ামী লীগ আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদে বিল্লালকে নৌকার প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করেছে। এখন রাজাকারের ছেলে যদি নৌকা প্রতীক পান তবে আওয়ামী ইজ্জত বলে কিছু থাকবে না বলে মন্তব্য করেন তারা।

মানববন্ধনে অংশ নেয়া বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হাই বলেন, ‘এই দেশের স্বাধীনতাযুদ্ধের বিরোধিতাকারী ছিল রাজাকাররা। এখন কিছু নেতাকর্মী টাকা খেয়ে তাদের মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষে শক্তির দল আওয়ামী লীগে ভিড়িয়েছে। এই জন্য কী বঙ্গবন্ধুর ডাকে এই দেশটাকে স্বাধীন করেছিলাম?’

তিনি আরও বলেন, ‘বাঘারপাড়াসহ রায়পুরে শান্তি কমিটির প্রভাবশালী নেতা ছিল রাজাকার মোহাম্মদ আলী। মুক্তিযুদ্ধের সময়ে মানুষের বাড়িতে ডাকাতির সাথে নিরীহ মানুষকে হত্যা করেছে সে।

‘সেই রাজাকারের ছেলে বিল্লাল হোসেন। তার পরিবারও রাজাকার। বর্তমানে অর্থের প্রভাব খাটিয়ে আওয়ামী লীগের কতিপয় নেতাকে ম্যানেজ করে নৌকা প্রতীক পাওয়ার পায়তারা করছে।’

রাজাকারের সন্তানের পরিবর্তে স্থানীয় আওয়ামী লীগের ত্যাগী নেতাদের নৌকা প্রতীক দেয়ার দাবি জানান তিনি।

মানববন্ধনে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন বীর মুক্তিযোদ্ধা লাল মিয়া, ইয়াকুব আলী, ডা. ইরাদত আলী, হাফিজুর রহমান, আলী বক্স, মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তান ও আওয়ামী লীগ নেতা মফিজুর রহমান, রিপন হোসেন ও মাসুদুর রহমান রাজু।

অভিযোগের বিষয়ে বিল্লাল হোসেন জানান, তার বাবা রাজাকার ছিলেন না। সে সময় রাজাকার কমান্ডার ছিলেন ছড়িয়ালা আজিজ। পরে সভাপতি হন মৌলভী আবুল হোসেন।

তিনি বলেন, ‘আমি ২০০৬ সালে ভোটের মাধ্যমে জিতে রায়পুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হয়েছি। আমি এরশাদের সময় স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলন থেকে শুরু করে বিভিন্ন আন্দোলনে অংশ নিয়েছি। এর আগে যুবলীগ ও আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পদে ছিলাম।’

তবে বিল্লাল হোসেন যাদের রাজাকার কমান্ডার বলছেন কীসের ভিত্তিতে বলেছেন জানতে চাইলে বলেন, ‘স্থানীয় মুরব্বিদের কাছে শুনেছি।’

আরও পড়ুন:
পিলে চমকানো সত্য জানাবেন বাঁধন!
‘মুসকানের মতো বাঁধনের প্রেমে পড়াও কঠিন’

শেয়ার করুন