× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বিনোদন
মনে হয়েছিল ফারুকী ভাই আমাকে বাদ দিয়ে দেবে
hear-news
player
google_news print-icon

‘মনে হয়েছিল ফারুকী ভাই আমাকে বাদ দিয়ে দেবেন’

মনে-হয়েছিল-ফারুকী-ভাই-আমাকে-বাদ-দিয়ে-দেবেন
অভিনেত্রী তাসনিয়া ফারিণ। ছবি: নিউজবাংলা
‘যখন আমি চূড়ান্ত, তখনও জানি না যে গল্প কী, চরিত্র কেমন। যখন আমি স্ক্রিপ্টটা পেলাম, চরিত্রটা পড়লাম, আমি অনেকটা চমকে গিয়েছিলাম। কারণ, এমন চরিত্র আমি আশা করিনি। একদমই করিনি।’

আষাঢ় মাসের বৃষ্টি বৃষ্টি ভাবটা বেশ উপভোগ্য। সূর্যের তীব্রতা নেই, ঠাণ্ডা ঠাণ্ডা একটা পরিবেশ সবখানে।

সেদিন বুধবার (১৬ জুন), গেন্ডারিয়ার একটি শুটিং লোকেশনে আমরা। বাড়িটিকে কেউ বলেন ‘দারোগা বাড়ি’, কেউ বলেন ‘আন্টির বাড়ি’। তিনতলা একটি বাসা। আমরা দাঁড়িয়েছিলাম দোতলার বারান্দায়।

বারান্দার সামনে একটা মাঠের মতো খোলা জায়গা। বৃষ্টির পানি জমে আছে, তবুও খেলছে বাচ্চারা। তার পরেই আবার চিকন পাকা রাস্তা। আর তার পরেই নদী। সেখানে বড় বড় জাহাজ ভেড়ানো। বারান্দা থেকে সব স্পষ্টই দেখা যায়।

রোদ নেই, গরম নেই, অনেক মানুষ ভিড় করেছে সেখানে। তবে আমরা এমন প্রকৃতি দেখতে যাইনি সেখানে। আমাদের উদ্দেশ্য অভিনেত্রী তাসনিয়া ফারিণের সাক্ষাৎকার নেয়া। বিষয় মোস্তফা সরয়ার ফারুকী পরিচালিত প্রথম ওয়েব সিরিজ লেডিস অ্যান্ড জেন্টেলম্যান -এ কাজ করার গল্প শোনা। এতে সাবিলা চরিত্রে অভিনয় করেছেন হালের জনপ্রিয় এ অভিনেত্রী।

সন্ধ্যা ৬টা তখন, কিন্তু শুটিং স্পটে ছিলেন না ফারিণ। আউটডোরে গেছেন। ফিরলেন যখন তখন আর মিষ্টি আলো ছিল না। বলা যায়, আঁধার করেই ফিরলেন তিনি। আর ফিরেই শুরু করলেন কথা বলা।

যেভাবে যুক্ত হওয়া

ডিসেম্বরের কোনো এক শুক্রবার। আমি আমার ফ্যামিলির সঙ্গে ডিনার করতে গিয়েছিলাম। হঠাৎ করে ফারুকী ভাইয়ের একজন সহকারী আমাকে ফোন করেন।

ফোনে আমাকে বিস্তারিত কিছু বলেননি। শুধু বললেন, ভালো একটা প্রজেক্ট আছে। তুমি আগ্রহী হলে ভাইয়া তোমার সঙ্গে কথা বলতে চায়।

প্রাইমারি আলাপে ফারুকী ভাই জিজ্ঞেস করেছিলেন, তোমার বয়স তো কম। কিন্তু পর্দায় কি তোমাকে ২৫ থেকে ২৭ বছরের নারীর চরিত্রে দেখাতে পারব?

‘মনে হয়েছিল ফারুকী ভাই আমাকে বাদ দিয়ে দেবেন’
লেডিস অ্যান্ড জেন্টেলম্যান ওয়েব সিরিজের দৃশ্যে তাসনিয়া ফারিণ। ছবি: সংগৃহীত

তিনি আমার কাছে বিভিন্ন ধরনের ছবি চাইলেন। বিশেষ করে একটু ম্যাচিউর লুকের।

আমি পাঠালাম। তারপর ফারুকী ভাই বললেন যে, তোমাকে যদি বলি ওয়েট গেইন করতে, তুমি কি গেইন করতে পারবে?

আমি বললাম, হ্যাঁ, সমস্যা নাই। তিনি আমার কাছে জানতে চাইলেন, ওয়েট গেইন করতে কত দিন সময় লাগবে?

মজার বিষয় হলো, আমার ওয়েট বাড়াতে এবং ওয়েট কমাতে বেশি সময় লাগে না। আমি জানালাম যে, এক মাস সময় দিলেই আমি ওয়েট গেইন করতে পারব। মানে ৫-৬ কেজি বাড়িয়ে ফেলতে পারব।

এসব কথা হওয়ার পর এক মাস কোনো কথা নেই। এর মধ্যে আমি ওয়েট গেইন শুরু করে দিয়েছে।

আমি কিন্তু জানি না, এই কাজটা হবে কি না, হওয়ার কোনো সম্ভাবনা আছে কি না। তারপরও ওয়েট গেইনটা শুরু করে দিয়েছি। মনে করলাম, দেখি কী হয়।

‘মনে হয়েছিল ফারুকী ভাই আমাকে বাদ দিয়ে দেবেন’
অভিনেত্রী তাসনিয়া ফারিণ। ছবি: সংগৃহীত

এর আগে ফারুকী ভাইয়ের সঙ্গে একটি টিভিসি করেছিলাম। তখন আমি খুব শুকনা ছিলাম। সেখানে ফারুকী ভাই বলেছিলেন যে, তোমাকে নিয়ে একটা চরিত্র ভেবেছিলাম, কিন্তু তুমি যে শুকনা, এমন হলে হবে না।

তারপর আসলে তিশা আপুর প্রবল আগ্রহে ফারুকী ভাই আমার সঙ্গে কথা বলে। কারণ তিশা আপুর মনে হয়েছিল যে ক্যারেক্টারটা আমি করতে পারব।

জানুয়ারি মাসের শুরুর দিকে ফারুকী ভাই আমাকে বাসায় আসতে বলে কথা বলার জন্য। আমি তখন চট্টগ্রামে শুটিংয়ে ছিলাম। আমি সকালের ফ্লাইটে ঢাকা পৌঁছাই এবং দুপুরে ফারুকী ভাইয়ের বাসায় যাই।

আমাকে দেখে তিনি বলেন, ওয়াও, তোমাকে আগের চেয়ে অন্যরকম লাগছে।’ আমি ওয়েট গেইন করছি শুনে তিনি আরও ইমপ্রেসড হন এবং স্বাভাবিক কথাবার্তা হয়।

পরদিন আমি আবার যাই। ওই দিন আমার খুব ছোট একটা অডিশন হয়। আমি জানি না তিনি কী খুঁজে পেলেন। আমাকে বললেন সময় ফাঁকা রাখতে; এক মাস পর জানাচ্ছি।

‘মনে হয়েছিল ফারুকী ভাই আমাকে বাদ দিয়ে দেবেন’
লেডিস অ্যান্ড জেন্টেলম্যান ওয়েব সিরিজের দৃশ্যে তাসনিয়া ফারিণ ছবি: সংগৃহীত

এক মাস আমি এই ‘জানাচ্ছি’র মধ্যে ছিলাম। কী যে একটা অবস্থা। আমি প্রায়ই নক করতাম ফারুকী ভাইয়ের সহকারীদের।

এটা জানুয়ারির কথা বলছি। তার পরেই ফেব্রুয়ারি মাস। ভ্যালেন্টাইনের কাজ শুরু হয়ে যাচ্ছে। প্রচুর কাজের অফার আসছে আমার কাছে। কিন্তু আমি টাইম দিতে পারছি না। এদিকে আমি নিশ্চিতও না যে, আমি ফারুকী ভাইয়ের কাজটি করছি কি না।

শেষের পাঁচ দিন আরও অনেক উদ্বিগ্নতায় কেটেছে। আমি যে চরিত্রে অভিনয় করেছি, সেই চরিত্রের নাম সাবিলা। চরিত্রটির জন্য দুজনকে সিলেক্ট করা হয়। যার মধ্যে আমি ও অন্যজন।

মনে আছে, আমি থাকছি কি না জানতে সকালে ফোন করতে বলেছিল। সকালে ফোন করলাম। বলে রাতে ফোন করতে। রাতে ফোন করলাম, কিন্তু তখনও বলছে না। পরে আমাকে জানাল যে, হ্যাঁ, তুমি থাকছ। অনেক সময় লেগেছে এই প্রজেক্টে ঢুকতে।

গল্প ও চরিত্র

মজার ব্যাপার হচ্ছে, যখন আমি চূড়ান্ত, তখনও জানি না যে গল্প কী, চরিত্র কেমন। আমাকে শুধু দুই-একটা ধারণা দেয়া হয়েছিল। যেমন বলা হয়েছিল, বাবা থাকবে।

‘মনে হয়েছিল ফারুকী ভাই আমাকে বাদ দিয়ে দেবেন’
অভিনেত্রী তাসনিয়া ফারিণ। ছবি: সংগৃহীত

ফারুকী ভাই যখন আমার সঙ্গে কথা বলেছিলেন, তখন আমার ফ্যামিলি নিয়ে অনেক কথা জিজ্ঞেস করেছিলেন।

যখন আমি স্ক্রিপ্টটা পেলাম, চরিত্রটা পড়লাম, আমি অনেকটা চমকে গিয়েছিলাম। কারণ, এমন চরিত্র আমি আশা করিনি। একদমই করিনি।

স্ক্রিপ্ট পড়ার পর ফারুকী ভাইয়ের সঙ্গে কথা বলার জন্য দুই-তিন দিন সময় নিয়েছিলাম। সাধারণত কি হয়, কোনো চরিত্র পড়ার সময় সেই চরিত্রে নিজেকে ভাবি। কিন্তু সাবিলা চরিত্রটি পড়ার সময় নিজেকে আর সেই চরিত্রে বসিয়ে এগোতে পাড়ছিলাম না। এটা আমি কীভাবে করব।

সাবিলা

আমার জীবন ও সাবিলার জীবন অনেকটা ট্রেন লাইনের মতো। অল্প কিছু বিষয় ছাড়া কখনোই মেলানো সম্ভব না। আমাকে নিজেকে সাবিলাতে কনভার্ট হতে হয়েছে। আমি একা পারতাম না। আমি খুব আপসেট হয়ে গিয়েছিলাম যে চরিত্রটা আমি করতে পারব না। ফারুকী ভাই আমাকে বাদ দিয়ে দেবে। কিন্তু ভাইয়া পরে আমাকে বললেন যে, তুমি চিন্তা করো না, তুমি শুধু ক্যারেক্টারটাকে ফিল করো, বাকিটা আমি দেখছি।

ট্রেলার

সাবিলাকে যে হলুদ রঙের ফিতাটি গলায় ঝুলিয়ে রাখতে দেখা যায়, সেটি তার অফিসের আইডি কার্ড। কিন্তু সেটা কী ধরনের অফিস সেটা বলার অনুমতি নেই।

‘মনে হয়েছিল ফারুকী ভাই আমাকে বাদ দিয়ে দেবেন’
লেডিস অ্যান্ড জেন্টেলম্যান ওয়েব সিরিজের দৃশ্যে তাসনিয়া ফারিণ। ছবি: সংগৃহীত

তবে ছোট ছোট করে যদি বলি যে, সাবিলা একজন শ্রমজীবী নারী। মধ্যবিত্ত পরিবারের মেয়ে। তার বাবা আছে, স্বামী আছে। সে একটা অফিসে কাজ করে। তার কলিগরা তাকে নিয়ে কথা বলছে। ট্রেলারে এগুলো দেখানো হয়েছে।

আমি বলব সাবিলার মতো অনেক মেয়ে সারা দেশে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে আছে। ঢাকায় হয়তো আরও বেশি রয়েছে। সাবিলা তাদেরই একজন।

লেডিস অ্যান্ড জেন্টেলম্যান

লেডিস অ্যান্ড জেন্টেলম্যান ওয়েব সিরিজের কঙ্কালটা তৈরি হয়েছে নারী-পুরুষের সম্পর্ক নিয়ে। নারী-পুরুষের সম্পর্ক নানাভাবে এখানে দেখানো হয়েছে। অনেকগুলো দিকের মধ্যে বৈষম্য বা হ্যারেসমেন্ট একটা বিষয়। তবে অবশ্যই অন্য বিষয়েও গুরুত্ব দেয়া হয়েছে এই ওয়েব সিরিজে।

‘মনে হয়েছিল ফারুকী ভাই আমাকে বাদ দিয়ে দেবেন’
অভিনেত্রী তাসনিয়া ফারিণ। ছবি: সংগৃহীত

কাজের অভিজ্ঞতা

আমার কখনও মনে হয়নি আমি একজন খ্যাতিমান পরিচালকের সঙ্গে কাজ করছি। আমার মনে হয়েছে শিল্পী-পরিচালক-ইউনিটের মধ্যে একটা দারুণ সহযোগিতাপূর্ণ সম্পর্ক ছিল। তবে হ্যাঁ, এটা ঠিক যে, একটা চরিত্র অন্যভাবে অ্যাপ্রোচ করার উপায়টা আমি তার সঙ্গে কাজ করতে গিয়ে জেনেছি। ফারুকী ভাই সব সময় গুরুত্ব দেন চরিত্র অনুযায়ী অভিনয়শিল্পীর ভেতরের পরিবর্তন।

ব্যক্তিজীবনে খুব সাদামাটা থাকতে পছন্দ করি আমি। ওয়েব সিরিজে যে চরিত্রটিতে অভিনয় করেছি সেটাও সাদামাটা। পরিচালকের পাশাপাশি ব্যক্তিজীবন এ ক্ষেত্রে আমাকে সাহায্যই করেছে বলা যায়।

প্রাপ্তি

আমি কাজটি করে আনন্দ পেয়েছি। কাজটি যে দেখবে, সে একবার হলেও গল্প ও আমার চরিত্র নিয়ে চিন্তা করবে; মনে করবে যেন এটা আমাদেরই গল্প। আমার সবচেয়ে বেশি পাওয়া হবে যদি দর্শকের মনে থেকে যায় কাজটি। তাই কে কী আলোচনা করল, কোথায় কী ফেম পেলাম সেটা আমার মধ্যে কাজ করে না।

‘মনে হয়েছিল ফারুকী ভাই আমাকে বাদ দিয়ে দেবেন’
লেডিস অ্যান্ড জেন্টেলম্যান ওয়েব সিরিজের দৃশ্যে তাসনিয়া ফারিণ। ছবি: সংগৃহীত

সিনেমা

নাটক তো করছিই। ওয়েব সিরিজ যেমন হুট করে হলো, সিনেমাও তেমন হুট করে হয়ে যাবে। যদি সব ব্যাটে-বলে মিলে যায় তাহলে তো অবশ্যই সিনেমা করব।

আগামী

সিরিজের কারণে ভ্যালেন্টাইন ও রোজার ঈদে কাজ করা হয়নি। তারপর তো আবার লকডাউন। অনেক দিন কাজ করা হয়নি। এখন কোরবানি ঈদের জন্য কাজ করছি। একটু বেছেই কাজ করছি। কারণ, সিরিজের বিষয়টি মাথায় আছে। কেউ যেন এটা না বলতে পারে যে, ওকে তো সিরিজে দেখলাম কিন্তু এখন এটা কী সস্তা ধরনের নাটক করছে। সেই প্রেসারটা একটু আছে। তার জন্য অভিনয়ে আরও নজর দিচ্ছি।

আমি নিজেকে অভিনেত্রী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে চাই। যেখানে অভিনয়ের সুযোগ আছে, সেখানেই আমি আছি।

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বিনোদন
KGF 2 has crossed Rs 600 crore in 7 days

৭ দিনে ৭০০ কোটি রুপি ছাড়িয়েছে ‘কেজিএফ টু’

৭ দিনে ৭০০ কোটি রুপি ছাড়িয়েছে ‘কেজিএফ টু’ কেজিএফ রকিং স্টার যশ।
হিন্দি ছাড়াও সিনেমাটি কন্নড়, তেলেগু, তামিল ও মালায়ালাম ভাষায় মুক্তি পেয়েছে। সব মিলিয়ে প্রথম সপ্তাহের শেষে সিনেমাটি বিশ্বব্যাপী ৭০০ কোটি রুপির বেশি ব্যবসা করেছে।

মুক্তির আগ থেকেই তুমুল আলোচনায় ছিল ভারতের দক্ষিণের কন্নড় সিনেমা কেজিএফ চ্যাপ্টার টু

যেমনটি আলোচনায় ছিল, বাস্তবেও ঠিক তেমনই ঘটছে। গত ১৪ এপ্রিল মুক্তির পর থেকেই বক্স অফিসে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে কেজিএফ টু

ইতোমধ্যে হিন্দি ভার্সনে রেকর্ড গড়েছে সিনেমাটি। ৭ দিনে ২৫৫ কোটি রুপি আয় করেছে। যা বাহুবলি টুর রেকর্ডও ভেঙেছে।

হিন্দি ছাড়াও সিনেমাটি কন্নড়, তেলেগু, তামিল ও মালায়ালাম ভাষায় মুক্তি পেয়েছে। সব মিলিয়ে প্রথম সপ্তাহের শেষে সিনেমাটি বিশ্বব্যাপী ৭০০ কোটি রুপির বেশি ব্যবসা করেছে।

ভারতীয় চলচ্চিত্র বাণিজ্য বিশ্লেষক মনোবালা বিজয়বালান বৃহস্পতিবার দুপুরে এক টুইটে এ তথ্য জানিয়েছেন।

২০১৮ সালের শেষের দিকে মুক্তি পায় প্রশান্ত নীল পরিচালিত এই ফ্র্যাঞ্চাইজির প্রথম সিনেমা কেজিএফ চ্যাপ্টার ওয়ান

মুক্তির পর শুধু ভারতে নয়, বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে থাকা ভারতীয় সিনেমাপ্রেমীদের মধ্যে ব্যাপক সাড়া ফেলেছিল এটি। বক্স অফিসে গড়েছিল ইতিহাস।

গ্যাংস্টারদের নিয়ে গল্পের এই সিনেমায় দুর্দান্ত মারকুটে অভিনয় দিয়ে পুরো ভারত মাতিয়েছিলেন কন্নড় সুপারস্টার যশ। শুধু তা-ই নয়, এই সিনেমা দিয়ে দেশের বাইরেও লাখো ভক্ত-অনুরাগী জুটিয়েছেন এই অভিনেতা।

যশ বাদেও কেজিএফ চ্যাপ্টার টু-তে আরেক মুখ্য ভূমিকায় রয়েছেন বলিউড অভিনেতা সঞ্জয় দত্তকে। এ ছাড়া এতে গুরুত্বপূর্ণ সব চরিত্রে অভিনয় করেছেন রাবিনা ট্যান্ডন, প্রকাশ রাজ, শ্রীনিধি শেট্টির মতো তারকারা।

আরও পড়ুন:
বলিউডে অভিষেকে কোন নায়িকাকে চান যশ
একদিনে ১৩৪ কোটি রুপির ব্যবসা করল ‘কেজিএফ টু’
‘আরআরআর’-এর দুই মাসের রেকর্ড ৩ দিনে ভাঙল ‘কেজিএফ’
‘কেজিএফ টু’ মুক্তির দিন জানালেন যশ

মন্তব্য

বিনোদন
Kolkata International Film Festival starts on 25th April

কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব শুরু ২৫ এপ্রিল

কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব শুরু ২৫ এপ্রিল
উৎসব কমিটির চেয়ারম্যান পরিচালক রাজ চক্রবর্তী বলেন, ‘করোনার বিধিনিষেধ শিথিল হলেও আমাদের সাবধানে থাকতে হবে। সাবধানতার কথা বিবেচনা করেই এবার বাইরের কাউকে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি।’

করোনাভাইরাস সংক্রমণের কারণে স্থগিত থাকা ২৭তম কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব শুরু হচ্ছে আগামী ২৫ এপ্রিল নজরুল মঞ্চে। উৎসব চলবে ১ মে পর্যন্ত।

অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করবেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বলিউড অভিনেতা ও আসানসোল লোকসভা উপনির্বাচনে বিজয়ী তৃণমূল এমপি শত্রুঘ্ন সিনহা।

আরও উপস্থিত থাকবেন অভিনেতা রঞ্জিত মল্লিক, প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়সহ অনেকে।

উৎসব কমিটির চেয়ারম্যান পরিচালক রাজ চক্রবর্তী বলেন, ‘করোনার বিধিনিষেধ শিথিল হলেও আমাদের সাবধানে থাকতে হবে। সাবধানতার কথা বিবেচনা করেই এবার বাইরের কাউকে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি।’

কিংবদন্তি পরিচালক সত্যজিৎ রায়ের জন্মশতবর্ষের শ্রদ্ধায় উৎসবের উদ্বোধনী ফিল্ম হিসেবে একই সঙ্গে নজরুল মঞ্চ ও রবীন্দ্র সদনে দেখানো হবে সত্যজিৎ রায় পরিচালিত অরণ্যের দিনরাত্রি

পরিচালক অরিন্দম শীল সাংবাদিক সম্মেলনে বলেন, ‘সত্যজিৎ রায়ের জন্মশতবর্ষ উপলক্ষে সত্যজিতের সঙ্গে কাজ করা জীবিত শিল্পী ও কলাকুশলীদের এবার সংবর্ধনা দেয়া হবে।

এবার সত্যজিৎ রায় স্মারক বক্তব্য দেবেন পরিচালক সুজিত সরকার। সত্যজিতের জীবন ও কাজের ওপর প্রদর্শনীও থাকছে উৎসবে।

চলচ্চিত্র উৎসবের থিম ‘কান্ট্রি ফিনল্যান্ড’। কলকাতা শহরের ১০ হলে ৪০ দেশের ১৬৩টি সিনেমা দেখানো হবে এবারের উৎসবে।

২৭তম কলকাতা চলচ্চিত্র উৎসবে আটটি বিলুপ্তপ্রায় ভাষার সিনেমা দেখানো হবে। ভাষাগুলো হলো বোরো, টুলু, রাজবংশী, সান্তাড়, ও কোঙ্কনী ও কুড়ুম্বা।

চিদানন্দ দাশগুপ্ত, বুদ্ধদেব দাশগুপ্ত, দিলীপ কুমার, স্বাতীলেখা সেনগুপ্ত ও নিকোলাস জাঙ্কসোকে নিয়ে প্রদর্শনীর ব্যবস্থা থাকছে।

শিশির মঞ্চে তথ্য ও সংস্কৃতি দপ্তরে কলকাতা চলচ্চিত্র উৎসবের প্রস্তুতি নিয়ে সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন সংস্কৃতি দপ্তরের সচিব শান্তনু বসু, মন্ত্রী বিরবাহা হাঁসদা, উৎসব কমিটির চেয়ারম্যান রাজ চক্রবর্তী, পরিচালক গৌতম ঘোষ, পরিচালক অরিন্দম শীল, হরনাথ চক্রবর্তী, অভিনেত্রী জুন মালিয়া।

মন্তব্য

বিনোদন
Priyanka Nicks daughters name is public

মেয়ের নাম কী রাখলেন প্রিয়াঙ্কা-নিক

মেয়ের নাম কী রাখলেন প্রিয়াঙ্কা-নিক তারকা দম্পতি প্রিয়াঙ্কা চোপড়া ও নিক জোনাস। ছবি: সংগৃহীত
যুক্তরাষ্ট্রের সান দিয়াগো শহরের এক হাসপাতালে গত ১৫ জানুয়ারি জন্ম হয়েছে নিক-প্রিয়াঙ্কার মেয়ের। এরপর ২২ জানুয়ারি ইনস্টাগ্রামে এক পোস্টে সারোগেসির মাধ্যমে সন্তান হওয়ার কথা প্রকাশ্যে আনেন প্রিয়াঙ্কা। কিন্তু কখনো সন্তানের নাম কিংবা ছবি, কোনোটাই প্রকাশ্যে আনেননি অভিনেত্রী।

চলতি বছরের শুরুর দিকে বলিউড অভিনেত্রী প্রিয়াঙ্কা চোপড়া জানান যে, তার এবং নিক জোনাসের জীবনে সন্তান এসেছে। সারোগেসির মাধ্যমে তারা মা-বাবা হয়েছেন। তবে ছেলে না মেয়ে সন্তান তা জানাননি তিনি।

সেসময় বিভিন্ন সূত্রের বরাত দিয়ে ভারতীয় একাধিক সংবাদমাধ্যম জানায়, কন্যা সন্তানের মা-বাবা হয়েছেন তারকা দম্পতি।

কিন্তু কখনো সন্তানের নাম কিংবা ছবি, কোনোটাই প্রকাশ্যে আনেননি অভিনেত্রী।

তবে দেশটির একাধিক সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, প্রিয়াঙ্কা-নিক তাদের মেয়ের নাম কী রেখেছেন তা এবার প্রকাশ্যে। তারকা দম্পতি কন্যার নাম রেখেছেন মালতী মারি চোপড়া জোনাস।

জন্ম সনদও নাকি হাতে পেয়েছে হলিউড কেন্দ্রিক একটি সংবাদ সংস্থা। সেই সূত্রেই জানা গেছে এই নাম।

সংস্কৃত এবং ল্যাটিন দুই শব্দ মিশিয়ে মেয়ের নাম রেখেছেন প্রিয়াঙ্কা-নিক। সংস্কৃতে ‘মালতী’ শব্দের অর্থ হল একরকম সুগন্ধযুক্ত ছোট সাদা ফুল অথবা চাঁদের আলো।

অন্যদিকে ‘মারি’ শব্দের অর্থ সমুদ্রকে রক্ষা করে যে নারী। মূলত মাতা মেরিকে অনেক সময় এই আখ্যা দেয়া হয়। যিশুর মাতা মেরিকে ফ্রাঞ্চে ‘মারি’ বলা হয়।

যদিও আনুষ্ঠানিকভাবে এখনও মেয়ের নাম বা ছবি কোনোটাই প্রকাশ্যে আনেননি তারকা জুটি।

যুক্তরাষ্ট্রের সান দিয়াগো শহরের এক হাসপাতালে গত ১৫ জানুয়ারি জন্ম হয়েছে নিক-প্রিয়াঙ্কার মেয়ের।

এরপর ২২ জানুয়ারি ইনস্টাগ্রামে এক পোস্টে সারোগেসির মাধ্যমে সন্তান হওয়ার কথা প্রকাশ্যে আনেন প্রিয়াঙ্কা।

প্রিয়াঙ্কার হাতে রয়েছে বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক প্রোজেক্ট। এর মধ্যে টেক্স অফ ইউ রয়েছে মুক্তির অপেক্ষায়। পাশাপাশি আমাজনের টিভি সিরিজ সিটাডেল-এর শুটিংও শেষ করেছেন অভিনেত্রী।

মন্তব্য

বিনোদন
Akshay apologized

ক্ষমা চাইলেন অক্ষয়

ক্ষমা চাইলেন অক্ষয় বলিউড তারকা অক্ষয় কুমার। ছবি: সংগৃহীত
নিজের স্বাস্থ্য এবং শরীরচর্চা নিয়ে অত্যন্ত সজাগ অক্ষয়। যা তার চারপাশের লোকজন এবং অনুরাগীদেরও অনুপ্রেরণা জোগায়। তাই তিনি এই ধরনের বিজ্ঞাপনে অংশ নেয়ায় রুষ্ট হন অনেকেই।

সম্প্রতি এক পান মসলার কোম্পানির বিজ্ঞাপন করেন বলিউডের অভিনেতা অক্ষয় কুমার। শাহরুখ খান, অজয় দেবগনের মতো বলিউড তারকারা আগে থেকেই সেই সংস্থার ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর।

তবে অক্ষয় এই বিজ্ঞাপনে অংশ হওয়ায় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে নানা প্রতিক্রিয়া জানান তার ভক্ত-অনুরাগীরা। তাই তাদের ভাবনাকে সম্মান জানিয়ে ক্ষমা চেয়ে সেই সংস্থা থেকে নিজেকে সরিয়ে নিলেন অভিনেতা।

নিজের স্বাস্থ্য এবং শরীরচর্চা নিয়ে অত্যন্ত সজাগ অক্ষয়। যা তার চারপাশের লোকজন এবং অনুরাগীদেরও অনুপ্রেরণা জোগায়। তাই তিনি এই ধরনের বিজ্ঞাপনে অংশ নেয়ায় রুষ্ট হন অনেকেই।

এ জন্য বুধবার গভীর রাতে এক টুইট বার্তায় বিজ্ঞাপন থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা করেন অক্ষয়।

সেই পোস্টে ক্ষমা প্রার্থনা করে অভিনেতা লেখেন, ‘আমি ক্ষমাপ্রার্থী। আমার অনুরাগী, শুভাকাঙ্ক্ষীসহ সবার কাছে ক্ষমা চাচ্ছি। গত কয়েক দিন ধরে আপনাদের কাছে থেকে যে প্রতিক্রিয়া পেয়েছি তা আমাকে গভীরভাবে প্রভাবিত করেছে। আমি তামাকজাত পণ্যের বিজ্ঞাপন কখনই করিনি এবং কোনো দিন করব না। বিমন ইলাইচির সঙ্গে আমার চুক্তি নিয়ে আপনাদের আবেগ বুঝতে পারছি। সেই আবেগকে সম্মান জানিয়েই বিনয়ের সঙ্গে সরে দাঁড়াচ্ছি।’

ওই বিজ্ঞাপন থেকে পাওয়া টাকা সমাজসেবার কাজে দান করে দেবেন বলেও জানিয়েছেন অক্ষয়।

তিনি লেখেন, ‘বিজ্ঞাপনের পারিশ্রমিক বাবদ পাওয়া টাকা দান করে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। ওই সংস্থা হয়তো বিজ্ঞাপনটির সম্প্রচার চালিয়ে যাবে, অন্তত আইনিভাবে চুক্তির মেয়াদ শেষ না পর্যন্ত। তার দায় আমারই। তবে কথা দিচ্ছি, আগামী দিনে কাজের ব্যাপারে অত্যন্ত সতর্ক থাকব। বিনিময়ে আপনাদের ভালোবাসা এবং শুভেচ্ছা প্রার্থনা করি।’

তবে সংস্থাটির সঙ্গে চুক্তির মেয়াদ কবে শেষ, তার উল্লেখ করেননি অক্ষয়।

আরও পড়ুন:
‘বচ্চন পাণ্ডে’-তে আকাশছোঁয়া পারিশ্রমিক অক্ষয়ের
টুইটারে আবদার, ভক্তের জন্মদিনে অক্ষয়ের শুভেচ্ছা
সূর্যবংশী: ১০ দিনে আয় ছাড়াল ২০০ কোটি  
অক্ষয়ের ‘সূর্যবংশী’র প্রদর্শনী বন্ধ করে দিলেন কৃষকরা
কিংবদন্তি ইয়ান কার্দোজোকে নিয়ে সিনেমার ফার্স্ট লুক প্রকাশ

মন্তব্য

বিনোদন
Yash wants a heroine in her Bollywood debut

বলিউডে অভিষেকে কোন নায়িকাকে চান যশ

বলিউডে অভিষেকে কোন নায়িকাকে চান যশ ভারতের কন্নড় সিনেমার রকিং স্টার যশ। ছবি: সংগৃহীত
১৪ এপ্রিল কেজিএফ চ্যাপ্টার টু মুক্তির পর ঝড় তুলেছে বক্স অফিসে। জনপ্রিয়তা আর খ্যাতির শীর্ষে এখন যশ। তার সঙ্গে যখন অভিনয় করতে মুখিয়ে আছেন একাধিক অভিনেত্রী, কিন্তু তিনি কার সঙ্গে অভিনয় করার অপেক্ষায় রয়েছেন।

২০১৮ সালের শেষের দিকে মুক্তি পায় ভারতের দক্ষিণের কন্নড় ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির বিগ বাজেটের সিনেমা কেজিএফ চ্যাপ্টার ওয়ান

মুক্তির পর শুধু ভারতে নয়, বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে থাকা ভারতীয় সিনেমাপ্রেমীদের মধ্যে ব্যাপক সাড়া ফেলেছিল এটি। বক্স অফিসে গড়েছিল ইতিহাস।

গ্যাংস্টারদের নিয়ে গল্পের এই সিনেমায় দুর্দান্ত মারকুটে অভিনয় দিয়ে পুরো ভারত মাতিয়েছিলেন কন্নড় রকিং স্টার যশ। শুধু তা-ই নয়, এই সিনেমা দিয়ে দেশের বাইরেও লাখো ভক্ত-অনুরাগী জুটিয়েছেন এই অভিনেতা।

এরপর আবার ১৪ এপ্রিল কেজিএফ চ্যাপ্টার টু মুক্তির পর ঝড় তুলেছে বক্স অফিসে। জনপ্রিয়তা আর খ্যাতির শীর্ষে এখন যশ। তার সঙ্গে যখন অভিনয় করতে মুখিয়ে আছেন একাধিক অভিনেত্রী, কিন্তু তিনি কার সঙ্গে অভিনয় করার অপেক্ষায় রয়েছেন।

সেই অভিনেত্রী আর কেউ নন তিনি বলিউডের মাস্তানি দীপিকা পাডুকোন। ভারতীয় এক সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে এই ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন যশ।

বলিউডে অভিষেকে কোন নায়িকাকে চান যশ

সেই সাক্ষাৎকারে যশ জানান, যদি সুযোগ দেয়া হয় তাহলে দীপিকা পাডুকোনের সঙ্গে কাজ করতে চান তিনি। আর তার বিপরীতে অভিনয় করেই বলিউডে পা রাখতে চান তিনি।

শুধু দর্শকদের নয় অনেক তারকারও পছন্দের অভিনেত্রী দীপিকা। তার সঙ্গে স্ক্রিন শেয়ারের ইচ্ছা প্রকাশ করেন অনেকেই। এবার সেই তালিকায় যোগ হল কেজিএফ তারকা যশ।

আরও পড়ুন:
একদিনে ১৩৪ কোটি রুপির ব্যবসা করল ‘কেজিএফ টু’
‘আরআরআর’-এর দুই মাসের রেকর্ড ৩ দিনে ভাঙল ‘কেজিএফ’
‘কেজিএফ টু’ মুক্তির দিন জানালেন যশ

মন্তব্য

বিনোদন
What is the difference between Southern and Bollywood Sanjay Dutt

দক্ষিণী ও বলিউডের মধ্যে কী পার্থক্য দেখেন সঞ্জয় দত্ত

দক্ষিণী ও বলিউডের মধ্যে কী পার্থক্য দেখেন সঞ্জয় দত্ত
সেই সাক্ষাৎকারে সঞ্জয় দত্ত বলেন, ‘আমার মনে হয় হিন্দি ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি হিরোইজম ভুলতে বসেছে, কিন্তু দক্ষিণী ইন্ডাস্ট্রি বীরত্বকে এখনও ভুলে যায়নি। আমি বলছি না যে স্লাইস অফ লাইফ খারাপ। কিন্তু আমরা কেন আমাদের উত্তরপ্রদেশ, বিহার, ঝাড়খণ্ড, রাজস্থানের দর্শকদের ভুলে গিয়েছি।’

বিগত কয়েক বছরে বলিউডের চেয়ে বেশি সাড়া ফেলছে ভারতের দক্ষিণী সিনেমা। তার উদাহরণ বাহুবলী, পুষ্পা, আরআরআর, কেজিএফসহ অনেক সিনেমা। বর্তমানে বক্স অফিসে চলছে দক্ষিণী কন্নড় সিনেমা কেজিএফ টু-এর ঝড়।

কন্নড়, তেলেগু, তামিল, মালয়ালাম ও হিন্দি ভাষায় মুক্তি পেয়েছে সিনেমাটি। এতে প্রধান ভূমিকায় অভিনয় করেছেন কন্নড় রকিং স্টার যশ। আর অন্যতম আরেক প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেছেন সঞ্জয় দত্ত।

বলিউড ও দক্ষিণী ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির মধ্যে পার্থাক্য কোথায়? সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে তা নিজের অভিমত জানিয়েছেন সঞ্জয় দত্ত।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে দেয়া সেই সাক্ষাৎকারে সঞ্জয় দত্ত বলেন, ‘আমার মনে হয় হিন্দি ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি হিরোইজম ভুলতে বসেছে, কিন্তু দক্ষিণী ইন্ডাস্ট্রি বীরত্বকে এখনও ভুলে যায়নি। আমি বলছি না যে স্লাইস অফ লাইফ খারাপ। কিন্তু আমরা কেন আমাদের উত্তরপ্রদেশ, বিহার, ঝাড়খণ্ড, রাজস্থানের দর্শকদের ভুলে গিয়েছি, যারা আমাদের দর্শকমহলের একটি বড় অংশ।

‘আমি আশা করি, হিন্দি ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে সেই প্রবণতা ফিরে আসবে। আগে আমাদের স্বতন্ত্র প্রযোজক এবং অর্থদাতা ছিল, যা ফিল্ম স্টুডিওগুলোর করপোরেটাইজেশনের অবসান ঘটিয়েছে। করপোরেটাইজেশন ভালো, তবে এটি সিনেমার পছন্দের ক্ষেত্রে হস্তক্ষেপ করা উচিত নয়।’

উদাহরণ দিয়ে তিনি আরও বলেন, ‘দেখুন এস এস রাজমৌলির নির্দিষ্ট প্রযোজক রয়েছেন, যারা তার দৃষ্টিভঙ্গিতে সম্পূর্ণ বিশ্বাস রাখেন। আমাদের সঙ্গে আগেকার দিনে গুলশান রাই, যশ চোপড়া, সুভাষ ঘাই এবং যশ জোহরের মতো প্রযোজকও ছিলেন। তারা যে সিনেমাগুলো তৈরি করেছেন তা দেখুন। দক্ষিণে তারা কাগজে স্ক্রিপ্ট দেখে, এখানে আমরা কাগজে পরিসংখ্যান দেখি।’

সঞ্জয়কে পরবর্তী সময়ে যশ রাজ ফিল্মসের ব্যানারে নির্মিতব্য পৃথ্বীরাজ সিনেমায় দেখা যাবে। এতে আরও রয়েছেন অক্ষয় কুমার, মানুষী চিল্লার, সাক্ষী তানওয়ার এবং সোনু সুদ। এ ছাড়া শামশেরায় দেখা যাবে তাকে।

আরও পড়ুন:
‘সঞ্জু বাবা’র ৬২
মান্যতাই সঞ্জয় দত্তের জীবনের আলো
ক্যান্সারকে হারিয়ে ঠিকই ফিরব: সঞ্জয় দত্ত

মন্তব্য

বিনোদন
Mother is Kajal Agarwal

মা হয়েছেন কাজল আগারওয়াল

মা হয়েছেন কাজল আগারওয়াল ভারতের দক্ষিণী সিনেমার জনপ্রিয় অভিনেত্রী কাজল আগারওয়াল। ছবি: ইনস্টাগ্রাম
চলতি বছর জানুয়ারিতে অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার খবর জানিয়েছিলেন কাজল। ২০২০ সালের অক্টোবরে প্রেমিক গৌতম কিসলুর সঙ্গে সাত পাকে বাঁধা পড়েন অভিনেত্রী। এবার তাদের পরিবারে এলো নতুন সদস্য।

ভারতের দক্ষিণী সিনেমার জনপ্রিয় অভিনেত্রী কাজল আগারওয়াল মা হয়েছেন। মঙ্গলবার সকালে তার কোলজুড়ে এসেছে ফুটফুটে পুত্রসন্তান। মা ও সন্তান দুজনেই সুস্থ আছেন।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে এ তথ্য জানিয়েছেন অভিনেত্রীর বোন নিশা আগারওয়াল।

এটি জীবনের সেরা সুখবর উল্লেখ করেন নিশা। এর আগে তিনি ইনস্টাগ্রামে লিখেছিলেন, ‘এটি একটি আনন্দের দিন, একটি বিশেষ খবর আপনাদের সঙ্গে ভাগ করে নেয়ার অপেক্ষা সইছে না।’

চলতি বছর জানুয়ারিতে অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার খবর জানিয়েছিলেন কাজল। ২০২০ সালের অক্টোবরে প্রেমিক গৌতম কিসলুর সঙ্গে সাত পাকে বাঁধা পড়েন অভিনেত্রী। এবার তাদের পরিবারে এলো নতুন সদস্য। তা নিয়ে ব্যাপক উচ্ছ্বসিত তারকাদম্পতি।

অন্তঃসত্ত্বা অবস্থায় গৌতম কিসলু তাকে যেভাবে দেখভাল করেছেন, তাতে ভীষণ খুশি অভিনেত্রী। গত সপ্তাহে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে স্বামীকে ধন্যবাদ জানিয়ে একটি আবেগঘন বার্তাও লিখেছিলেন কাজল।

মা হয়েছেন কাজল আগারওয়াল
কাজল আগারওয়াল ও তার স্বামী গৌতম কিসলু। ছবি: ইনস্টগ্রাম

সেখানে তাকে তিনি লিখেছিলেন, ‘আমাদের সন্তান আসার আগে কতটা যত্ন নিচ্ছ আমার, আমি জানতে চাই, তুমি ঠিক কতটা অসাধারণ একজন মানুষ আর কতটা অসাধারণ একজন বাবা হতে চলেছ।’

শিগগিরই কাজলকে দেখা যাবে চিরঞ্জীবী এবং রামচরণ অভিনীত আচার্য সিনেমায়। ২৯ এপ্রিল প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পাবে সিনেমাটি।

মন্তব্য

p
উপরে