রিকশা টানার শক্তি ছিল না: রিকশা গার্ল

রিকশা গার্ল চরিত্রে নভেরা রহমান। ছবি: সংগৃহীত

রিকশা টানার শক্তি ছিল না: রিকশা গার্ল

ফার্স্ট লুকে একটি মেয়ের জীবনের নির্মম পরিবর্তন সহজেই বোঝা যায়। বাবার অসুস্থতার পর পরিবার চালাতে মেয়েটিকে বের হতে হয় রিকশা নিয়ে। সেই মেয়ের চরিত্রে অভিনয় করেছেন নভেরা রহমান।

প্রকাশ পেয়েছে আয়নাবাজি খ্যাত পরিচালক অমিতাভ রেজা চৌধুরীর দ্বিতীয় সিনেমা রিকশা গার্লের ফার্স্ট লুক। নিউজবাংলাকে পরিচালক জানিয়েছেন, এটি সিনেমার আন্তর্জাতিক ফার্স্ট লুক।

অমিতাভ বলেন, ‘যেহেতু সিনেমাটি দক্ষিণ আফ্রিকার সবচেয়ে পুরোনো ডারবান আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে প্রতিযোগিতা করতে যাচ্ছে, তাই প্রযোজক ফার্স্ট লুকটা প্রকাশ করেছেন। দেশের প্রেক্ষাগৃহের জন্য যখন ফার্স্ট লুক, টিজার বা ট্রেলার প্রকাশ করা হবে তখন সেটা অন্যরকম হবে।’

২ মিনিট ১৮ সেকেন্ডের ফার্স্ট লুকে বিভিন্ন চরিত্রের কণ্ঠে বাংলা ও ইংরেজি ভাষায় সংলাপ শোনা গেছে। সিনেমাটি বাংলা ও ইংরেজি ভাষাতে দৃশ্যায়িত হয়েছে কি না জানতে চাইলে অমিতাভ বলেন, ‘শুধু বাংলা বা শুধু ইংরেজিতে সিনেমাটি চিত্রায়িত হয়নি, মিক্সডভাবে সংলাপ বলানো হয়েছে।’

সম্পূর্ণ বাংলা ভাষায় সিনেমাটি মুক্তি দেয়া হবে কি না, তা নিয়ে চূড়ান্ত বক্তব্য পাওয়া যায়নি পরিচালকের কাছ থেকে।

ফার্স্ট লুকে একটি মেয়ের জীবনের নির্মম পরিবর্তন সহজেই বোঝা যায়। বাবার অসুস্থতার পর পরিবার চালাতে মেয়েটিকে বের হতে হয় রিকশা নিয়ে। সেই মেয়ের চরিত্রে অভিনয় করেছেন নভেরা রহমান।

রিকশা টানার শক্তি ছিল না: রিকশা গার্ল
রিকশা গার্ল সিনেমায় বিভিন্ন লুকে নভেরা রহমান। ছবি: সংগৃহীত

‘আমি ভেবেছিলাম সেট তৈরি করা হবে, সেখানে আমি রিকশা চালাব। কিন্তু না, আমাকে একদম রাস্তাতেই রিকশা চালাতে হয়েছে। প্রচণ্ড পরিশ্রম। রিকশা চালানো শেখার আগে এক মাস শক্তি বাড়ানোর ট্রেনিং নিতে হয়েছে। প্রথমে আমার রিকশা টানার শক্তি ছিল না।

‘নিকেতনের রাস্তায় আমি রিকশা চালানো প্র্যাকটিস করতাম। সবাই দেখত, একটা মেয়ে জিমের পোশাক পরে রিকশা চালাচ্ছে।’ নিউজবাংলাকে অভিজ্ঞতার কথা জানাতে গিয়ে বলেন নভেরা।

সিনেমায় নভেরার চরিত্রের নাম নাঈমা। নিম্ন আয়ের একটি পরিবারের মেয়ে সে। সদ্য তরুণী হওয়া মেয়েটি মূলত গ্রামের বিভিন্ন জায়গায় আলপনা এবং রং-তুলি দিয়ে নকশা তৈরি করে।

রিকশা টানার শক্তি ছিল না: রিকশা গার্ল
রিকশা গার্ল চরিত্রে নভেরা রহমান। ছবি: সংগৃহীত

সিনেমা নিয়ে আলাদা মুগ্ধতা রয়েছে নাঈমার। কিন্তু সেই স্বপ্নের পৃথিবী ছেড়ে তার আসতে হয় জীবনের কঠিন বাস্তবতায়। রিকশা চালাতে গিয়ে লিঙ্গ বৈষম্যের শিকার হয়ে পুরুষের মতো বেশ নেয় সে। কেটে ফেলে লম্বা চুল।

নভেরা বলেন, ‘অন্যান্য কাজের কারণে আমার আসল চুল কাটা সম্ভব হয়নি। ওগুলো নকল চুল ছিল।’

রিকশা টানার শক্তি ছিল না: রিকশা গার্ল
সিনেমার নাম ভূমিকায় অভিনয় করেছেন নভেরা রহমান ও তার বাবার চরিত্রে নরেশ ভূঁইয়া। ছবি: সংগৃহীত

নভেরা আরও বলেন, ‘নাঈমা সাহসী একটা চরিত্র। সমাজ যে তাকে রিকশা চালানোর ক্ষেত্রেও সমস্যা তৈরি করবে সেটা নাঈমা মনে করেনি প্রথমে। পরে পরিস্থিতি পালটে যায়। তবে নাঈমা কিন্তু নিজেকে অসহায়-অবলা মনে করে না।’

নভেরা গুণী অভিনেত্রী মোমেনা চৌধুরীর মেয়ে। সিনেমাতেও তারা অভিনয় করেছেন মা-মেয়ের চরিত্রে।

রিকশা টানার শক্তি ছিল না: রিকশা গার্ল
Caption

মায়ের সঙ্গে অভিনয় করার অনুভূতি জানতে চাইলে নভেরা বলেন, ‘নিজের মাকে সিনেমায় মা হিসেবে পেয়ে আমার মনে হয় অভিনয় কিছুটা ভালো হয়েছে। আমার মা অসাধারণ একজন অভিনেত্রী, তার সঙ্গে কাজ করতে আমি সব সময় স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করি।’

সিনেমাটি দেশে কবে মুক্তি পাবে তা নিয়ে নিশ্চিত কিছু বলেননি অমিতাভ রেজা চৌধুরী। তবে সিনেমাটি আগে ফেস্টিভ্যালে প্রতিযোগিতা করবে ও প্রদর্শিত হবে, তারপর দেশে মুক্তি পাবে।

রিকশা টানার শক্তি ছিল না: রিকশা গার্ল
রিকশা গার্ল সিনেমার অভিনয়শিল্পীরা। ছবি: সংগৃহীত

মিতালি পারকিন্সের রিকশা গার্ল উপন্যাস অবলম্বনে নির্মিত হয়েছে সিনেমাটি। এটি প্রযোজনা করেছেন এনরিক জে অ্যাডামস, ফরিদুর রেজা সাগর ও জিয়াউদ্দিন আদিল। সিনেমার চিত্রনাট্য করেছেন নাফিস রফিক আমিন ও শরবরী জেড. আহমেদ।

সিনেমায় বিশেষ চরিত্রে অভিনয় করেছেন চিত্রনায়ক সিয়াম। আরও আছেন নরেশ ভূঁইয়া, চম্পাসহ আরও অনেকে।

শেয়ার করুন

মন্তব্য

গান গেয়ে পরীমনির পাশে হিরো আলম

গান গেয়ে পরীমনির পাশে হিরো আলম

এবার পরীমনির পাশে এসে দাঁড়ালেন হিরো আলম। তবে কোনো মন্তব্য দিয়ে নয়, গানে গানে পরীমনির জন্য ন্যায়বিচার চাইলেন এ অভিনেতা-গায়ক।

দেশের জনপ্রিয় অভিনেত্রী পরীমনি ৯ জুন তার বিরুদ্ধে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগ আনার পর দিন থেকেই বিভিন্ন মন্তব্যের মাধ্যমে পরীমনির পাশে দাঁড়িয়েছেন তারকা শিল্পীরা।

এবার পরীমনির পাশে এসে দাঁড়ালেন হিরো আলম। তবে কোনো মন্তব্য দিয়ে নয়, গানে গানে পরীমনির জন্য ন্যায়বিচার চাইলেন এ অভিনেতা-গায়ক।

বাংলা ও ইংরেজি ভাষার গানটি প্রকাশ পেয়েছে হিরো আলমের অফিসিয়াল ইউটিউব চ্যানেলে; বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে।

শিল্পী হয়ে শিল্পীর প্রতি অসম্মান সইব না/শিল্পী হয়ে শিল্পীর অপমান সইব না/উই ওয়ান্ট জাস্টিস ফর পরীমনি- এমন কথার গানের গীতিকার, সুরকার ও সংগীতায়োজক মম রহমান। গানটিতে কণ্ঠও দিয়েছেন তিনি।

এ ব্যাপারে কথা বলতে রাত ১২টার পর তার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

অভিনয়ের পাশাপাশি কিছু দিন হলো গানও গাইছেন হিরো আলম। পাঁচ দিন আগে তিনি সিলেটের লোকগান 'নয়া দামান' কাভার করেছেন। এর একটি মিউজিক ভিডিও নির্মাণ করেছেন হিরো আলম।

শেয়ার করুন

৩২ বছরের ক্যারিয়ারে প্রথমবার বায়োপিকে সালমান

৩২ বছরের ক্যারিয়ারে প্রথমবার বায়োপিকে সালমান

বলিউড সুপারস্টার সালমান খান। ছবি: সংগৃহীত

ভারতীয় এক গণমাধ্যমে বলা হয়েছে, পরিচালক রাজকুমার গুপ্তার এই সিনেমায় সালমানকে দেখা যাবে ‘ব্ল্যাক টাইগার’ খ্যাত ভারতীয় গুপ্তচর রবীন্দ্র কৌশিকের ভূমিকায়। যিনি ভারতের সেরা গুপ্তচর হিসেবে গণ্য হন।

আশির দশকের প্রায় শেষ দিক, ১৯৮৮ সালে মুক্তি পাওয়া বিবি হো তো এইসি সিনেমার রেখার দেবর চরিত্রে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে রূপালি পর্দায় যাত্রা শুরু করেছিলেন বলিউড সুপারস্টার সালমান খান।

এরপর থেকে বলিউডে কেটে গেছে ৩২ বছর। এই সময়ের মধ্যে কমেডি, অ্যাকশন, রোমান্টিকসহ নানা ধরনের সিনেমায় কাজ করেছেন তিনি।

তার ক্যারিয়ারে দীর্ঘ সময়ে এই ধরনের বহু হিট সিনেমা থাকলেও নেই কোনো বায়োপিকে অভিনয়ের রেকর্ড।

তবে সেই রেকর্ড এবার ভাঙতে চলেছেন বলিউডের ‘ভাইজান’ খ্যাত এই অভিনেতা।

ভারতীয় ইতিহাসের অবিশ্বাস্য এক সত্য ঘটনা উপর ভিত্তি করে নির্মিত হতে যাচ্ছে অ্যাকশন ও থ্রিলারধর্মী এই সিনেমাটি।

ভারতীয় এক গণমাধ্যমে বলা হয়েছে, পরিচালক রাজকুমার গুপ্তার এই সিনেমায় সালমানকে দেখা যাবে ‘ব্ল্যাক টাইগার’ খ্যাত ভারতীয় গুপ্তচর রবীন্দ্র কৌশিকের ভূমিকায়। যিনি ভারতের সেরা গুপ্তচর হিসেবে গণ্য হন।

সেই প্রতিবেদনে বলা হচ্ছে, পরিচালক রাজকুমার গুপ্তা গত ৫ বছর ধরে তার জীবন নিয়ে গবেষণা করছেন।

অবশেষে তিনি এমন চিত্রনাট্য তৈরি করতে পেরেছেন যা রবীন্দ্র কৌশিকের অর্জন ও উত্তরাধিকারের বিচার করে।

৩২ বছরের ক্যারিয়ারে প্রথমবার বায়োপিকে সালমান
ভারতীয় গুপ্তচর রবীন্দ্র কৌশিক। ছবি: সংগৃহীত

সালমানকে নাকি এই চিত্রনাট্যও শুনিয়েছেন পরিচালক। ইতিমধ্যে সিনেমাটি করার জন্য সম্মতি জানিয়েছেন টাইগার।

গণমাধ্যমের সেই প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, রবীন্দ্র কৌশিক ১৯৭৪ সালে নবী আহমেদ শাকির নামে ছদ্মবেশে পাকিস্তানে প্রবেশ করেন।

এরপর করাচি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এলএলবি ডিগ্রী নিয়ে পাকিস্তান সেনাবাহিনীতে যোগ দেন। এর মাত্র কয়েক বছরের মধ্যে পাকস্তানি আর্মির মেজর পদে প্রমোশন পান।

৩২ বছরের ক্যারিয়ারে প্রথমবার বায়োপিকে সালমান
ভারতীয় গুপ্তচর রবীন্দ্র কৌশিক। ছবি: সংগৃহীত

কিন্তু ১৯৮৩ সালে তার ধরা পরে যান রবীন্দ্র কৌশিক। এরপর গ্রেপ্তার হন। পরে তার মৃত্যুদণ্ডের রায় হয়।

যদিও পরে সেই রায় পরিবর্তন করে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেয়া হয় তাকে। সবশেষ ২০০১ সালে পাকিস্তানের এক জেলে মৃত্যু হয় ভারতীয় এই গুপ্তচরের।

শেয়ার করুন

‘প্রদর্শনযোগ্য নয়’ সাজ্জাদের সিনেমা ‘সাহস’

‘প্রদর্শনযোগ্য নয়’ সাজ্জাদের সিনেমা ‘সাহস’

সাহস সিনেমার একটি দৃশ্য (বাঁয়ে) ও পরিচালক সাজ্জাদ খান। ছবি: সংগৃহীত

সেন্সর বোর্ডের সচিব মমিনুল হক নিউজবাংলাকে বলেন, ‘হ্যাঁ। সিনেমাটিকে প্রদর্শনের যোগ্য নয় বলে প্রযোজককে চিঠি দেয়া হয়েছে। তিনি চাইলে আপিল করতে পারবেন। এছাড়া তার আর কোনো পদক্ষেপ নেয়ার নাই।’

সাজ্জাদ খান প্রযোজিত ও পরিচালিত সিনেমা সাহস ‘প্রদর্শনযোগ্য নয়’ উল্লেখ করে সিনেমার প্রযোজককে চিঠি দিয়েছে চলচ্চিত্র সেন্সর বোর্ড। বৃহস্পতিবার সকালে প্রযোজক-পরিচালক সাজ্জাদ খান চিঠিটি হাতে পেয়েছেন বলে নিউজবাংলাকে নিশ্চিত করেছেন সাজ্জাদ।

চিঠিতে কি বলা হয়েছে জানতে চাইলে সাজ্জাদ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘চিঠিতে বলা হয়েছে গালাগালি, কিশোর গ্যাঙ, পুলিশের ব্যবহার ঠিক মতো হয়নি।’

নিজের মতামত জানিয়ে সাজ্জাদ বলেন, ‘আমি সিনেমায় কিশোর গ্যাঙের বিরুদ্ধে কথা বলেছি। আমি টেকনিক্যালি পুলিশের পোশাক দেখায়নি, সাধারণ পোশাক দেখিয়েছি। তারপরও কেন তারা এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বুঝতে পারছি না।

‘আমার সিনেমায় একটি জায়গা ছাড়া কোনো রক্তপাত নেই; অশ্লিল দৃশ্য বা ধর্ষণের দৃশ্য নেই। তারা গালাগালির কথা উল্লেখ করেছেন। ঠিক আছে, গালি কোনো দৃশ্যে কেটে দিতে বললে, সেটি আমরা করতে পারি। কিন্তু তারা কোনো কর্তন না দিয়ে সরাসরি সিনেমাটি প্রদর্শনের যোগ্য নয় বলে উল্লেখ করেছেন।’

সাজ্জাদ জানান, তিনি এখনও সিদ্ধান্ত নেননি বিষয়টি নিয়ে তার পরবর্তী পদক্ষেপ কী হবে। তবে তিনি তার পরিচিতদের সিনেমাটি দেখাবেন। কোথায় সমস্যা সেটা বোঝার চেষ্টা করবেন।

সেন্সর বোর্ডের সদস্য প্রযোজক খোরশেদ আলম খসরু এবং অরুণা বিশ্বাসের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে খসরু ফোন ধরেননি আর অরুণার ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

‘প্রদর্শনযোগ্য নয়’ সাজ্জাদের সিনেমা ‘সাহস’
‘সাহস’ সিনেমার দৃশ্যে অর্ষা ও মোস্তাফিজুর নূর ইমরান। ছবি: সংগৃহীত

বোর্ডের আরেক সদস্য পরিচালক মুশফিকুর রহমান গুলজার নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এগুলো নিয়ে আমাদের বাইরে কথা বলার নিয়ম নেই। সেন্সর বোর্ডের সঙ্গে যোগাযোগ করেন।’

সেন্সর বোর্ডের সচিব মো. মমিনুল হক নিউজবাংলাকে বলেন, ‘হ্যাঁ। সিনেমাটিকে প্রদর্শনের যোগ্য নয় বলে উল্লেখ করা হয়েছে। সেন্সর বোর্ডের সদস্যদের পর্যবেক্ষণ থেকেই এমন সিদ্ধান্ত দেয়া হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘সিনেমার প্রযোজক যদি মনে করেন যে তার সিনেমার সব কিছু ঠিক আছে, তাহলে এখন তিনি আপিল করতে পারবেন। এছাড়া তার আর কোনো পদক্ষেপ নেয়ার নাই তার। আপিল বোর্ড যদি মনে করেন যে সেন্সর বোর্ড ভুল করেছে, তাহলে সিনেমাটি নিশ্চয়ই সেন্সর পাবে।’

সচিব জানান, আপিল করতে চাইলে তথ্য সচিব বরাবর আবেদন করতে হবে। তথ্য সচিব একটি সভা ডাকবেন, যার সভাপতিত্ব করবেন কেবিনেট সচিব। সেখান থেকে আসবে সিদ্ধান্ত।

গত বছরের নভেম্বরে বাগেরহাটে শুরু হয় সাহস নামের সিনেমার শুটিং। সিনেমায় প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেছেন লাক্স-চ্যানেল আই সুপারস্টার অর্ষা। তার সঙ্গে আছেন মোস্তাফিজুর নূর ইমরান।

এতে অভিনয় করেন বাগেরহাটের স্থানীয় থিয়েটার গ্রুপ থিয়েটার রেপার্টরি বাগেরহাটের তরুণ শিল্পীরাও।

শেয়ার করুন

নিজের যে সিনেমার রিমেক দেখতে চান মাধুরী

নিজের যে সিনেমার রিমেক দেখতে চান মাধুরী

বলিউডের জনপ্রিয় অভিনেত্রী মাধুরী দীক্ষিত। ছবি: ইনস্টাগ্রাম

সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে মাধুরীকে জিজ্ঞেস করা হয় নিজের কোন সিনেমার রিমেক দেখতে চান তিনি। এমন প্রশ্নের জবাবে ঈষৎ হেসে তিনি বলেন, ‘আমার পক্ষে এই উত্তর দেয়া বেশ কঠিন। তবে এই বিষয়ে তুমি আমাকে সাহায্য করতে পারো, তুমি বলো কোন সিনেমার রিমেক দেখতে চাও?’

বলিউডের ‘ধকধক গার্ল’ খ্যাত জনপ্রিয় অভিনেত্রী মাধুরী দীক্ষিতের সৌন্দর্যে এক কথায় মুগ্ধ সবাই। ভারত তো বটেই, তার সৌন্দর্যে মুগ্ধ এ দেশের দর্শকরাও।

কিন্তু বিয়ের পর অনেক বছর তাকে রুপালি পর্দায় দেখতে পাননি তার ভক্তরা। তবে তার জনপ্রিয়তায় বিন্দুমাত্র ভাটা পড়েনি।

তিনি এখন ব্যস্ত বিভিন্ন রকম টিভি শো ও বেশ কিছু প্রজেক্ট নিয়ে।

নব্বইয়ের দশকে ক্যারিয়ারের শীর্ষে থাকা এই অভিনেত্রী উপহার দিয়েছেন একের পর এক হিট সিনেমা।

সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে তাকে জিজ্ঞেস করা হয় নিজের কোন সিনেমার রিমেক দেখতে চান তিনি।

এমন প্রশ্নের জবাবে ঈষৎ হেসে মাধুরী বলেন, ‘আমার পক্ষে এই উত্তর দেয়া বেশ কঠিন। তবে এই বিষয়ে তুমি আমাকে সাহায্য করতে পারো, তুমি বলো কোন সিনেমার রিমেক দেখতে চাও?’

এরপর ওয়াজুদআজা নাচলে নামে মাধুরীর দুটি সিনেমার নাম উঠে আসে।

এই সিনেমা দুটির নাম শুনে মাধুরী বলেন, ‘আরও একটা সিনেমা আছে, যেটার গল্প বেশ সুন্দর। সেই সিনেমার গানগুলোও খুব জনপ্রিয়তা পেয়েছিল। সিনেমাটির নামসয়লাব

নিজের যে সিনেমার রিমেক দেখতে চান মাধুরী
বলিউডের জনপ্রিয় অভিনেত্রী মাধুরী দীক্ষিত। ছবি: সংগৃহীত

‘একদম অন্য রকমের গল্প ফুটিয়ে তোলা হয়েছিল এই সিনেমাটিতে। এই সিনেমাটি আরেকবার তৈরি হতে পারে।’

মাধুরী এও জানালেন ১৯৯০ সালে মুক্তি পাওয়া সয়লাব সিনেমাটি তার ভীষণ প্রিয়।

নিজের যে সিনেমার রিমেক দেখতে চান মাধুরী
বলিউডের জনপ্রিয় অভিনেত্রী মাধুরী দীক্ষিত। ছবি: সংগৃহীত

সেই সঙ্গে এই অভিনেত্রী আরও যোগ করেন, এটার উত্তর দেয়া আমার কাছে খুব কঠিন। আমার মনে হয় কিছু জিনিস যেমনটা রয়েছে তেমনভাবেই রেখে দেয়া ভালো। সেগুলোর রিমেক না হওয়াই ভালো। আমাদের এখন দরকার নতুন ভাবনা, নতুন স্ক্রিপ্ট।

সম্প্রতি মাধুরী তার ইউটিউব চ্যানেলে প্রকাশ করেছেন সেই সাক্ষাৎকারটি।

শেয়ার করুন

অনুদানপ্রাপ্তদের কার সিনেমা কেমন

অনুদানপ্রাপ্তদের কার সিনেমা কেমন

২০২০-২১ অর্থবছরে অনুদান পাওয়া সিনেমার ১৪ জন পরিচালক-প্রযোজক। ছবি কোলাজ: নিউজবাংলা

২০টি সিনেমাকে দেয়া হয়েছে অনুদান। এর মধ্যে রয়েছে মুক্তিযুদ্ধ, শিশুতোষ ও অন্যান্য গল্পের সিনেমা। সিনেমাগুলো কেমন, কারা অভিনয় করবেন, কবে থেকে এর দৃশ্যধারণ শুরু হবে, তা নিয়ে ১৪টি সিনেমার সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলেছে নিউজবাংলা।

রুচিশীল ও শিল্পমানসমৃদ্ধ পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র নির্মাণে সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা ও সহায়তা দিতে প্রতিবছরের মতো ২০২০-২১ অর্থবছরে অনুদানপ্রাপ্তদের নাম প্রকাশ করেছে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়।

২০টি সিনেমাকে দেয়া হয়েছে অনুদান। এর মধ্যে রয়েছে মুক্তিযুদ্ধ, শিশুতোষ ও অন্যান্য গল্পের সিনেমা। সিনেমাগুলো কেমন, কারা অভিনয় করবেন, কবে থেকে এর দৃশ্যধারণ শুরু হবে, তা নিয়ে ১৪টি সিনেমার সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলেছে নিউজবাংলা।

নির্মাতা নঈম ইমতিয়াজ নেয়ামুল নির্মাণ করবেন মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক সিনেমা সাড়ে তিন হাত ভূমি। পরিচালক নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সিনেমাটি নির্মিত হবে দেশের জনপ্রিয় কথাসাহিত্যিক ইমদাদুল হক মিলনের উপন্যাস সাড়ে তিন হাত ভূমি অবলম্বনে।’

জয় বাংলা সিনেমাটি নির্মাণ করবেন পরিচালক কাজী হায়াৎ। সিনেমাটিতে দেশ ও রাজনীতির বিষয় থাকবে। তিনি জানান, সিনেমাটি হবে নরম ধাঁচের।

পরিচালক বলেন, ‘ঈদের পর শুটিং শুরু করার ইচ্ছা আছে। করোনার মধ্যে যারা কাজ করতে চান, তাদের নিয়েই সিনেমাটি নির্মাণ করব।’

পরিচালক অনিরুদ্ধ রাসেল অনেক দিন আগেই জামদানী সিনেমাটি নির্মাণ করবেন বলে জানিয়েছিলেন গণমাধ্যমে। ভার্টেক্স মাল্টিমিডিয়ার প্রযোজনায় সিনেমায় অভিনয় করার কথা ছিল আনিসুর রহমান মিলন ও শিবা খানের।

কিন্তু সিনেমাটির কাজ শুরু হয়নি। ২০২০-২১ অর্থবছরে সিনেমাটি পেয়েছে সরকারি অনুদান।

অনিরুদ্ধ রাসেল নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সিনেমার কাজটি কবে থেকে শুরু করব সেটা এখনও চূড়ান্ত না। এর আগে যাদের নিয়ে কাজটি করতে চেয়েছিলাম, তারা সিনেমায় থাকতেও পারেন নাও পারেন। এটা আসলে নতুন করে কথা বলতে হবে।’

আনিসুর রহমান মিলন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘কয়েক বছর আগে আমি সিনেমাটি করতে চেয়েছিলাম। কিন্তু চুক্তির তো একটা মেয়াদ থাকে; সেটা শেষ হয়ে গেছে। সিনেমাটি অনুদান পেয়েছে, এখন যদি তারা মনে করেন আমাকে কাস্ট করবেন, তাহলে আবার নতুন করে কথা বলতে হবে। যদি আমি পারি তাহলে করব, না হলে করব না।’

প্রথমবারের মতো দ্বিতীয়বারও সাহিত্যকেই অবলম্বন করেছেন নির্মাতা জাহিদুর রহিম অঞ্জন। সরকারি অনুদানে তার প্রথম সিনেমা ছিল মেঘমল্লার। আখতারুজ্জমান ইলিয়াসের ‘রেইনকোট’ গল্প অবলম্বনে তিনি সেটি নির্মাণ করেছিলেন।

এবার জাহিদুর রহিম অঞ্জন নির্মাণ করতে যাচ্ছেন চাঁদের অমাবস্যা। সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহর উপন্যাস অবলম্বনে তিনি নির্মাণ করবেন সিনেমাটি।

জাহিদুর রহিম অঞ্জন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমরা শীতকালে সিনেমাটি নির্মাণ করব। উপন্যাসে যেহেতু শীতকালের বর্ণনা রয়েছে, আমরা সেটি ধরতে চাই। নভেম্বরে শুটিং শুরু করার পরিকল্পনা আছে।’

সরকারি অনুদানে প্রযোজক হিসেবে জয়া আহসানের দ্বিতীয় সিনেমা রইদ। এটি পরিচালনা করবেন মেজবাউর রহমান সুমন। সূর্যের ‘রোদ’ শব্দটি আঞ্চলিকভাবে অনেক অঞ্চলে ‘রইদ’ বললে। সেখান থেকেই সিনেমার নাম দেয়া হয়েছে রইদ

মেজবাউর রহমান সুমন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘রইদ নামটা আমাদের সিনেমার ওয়ার্কিং টাইটেল। এটা পরিবর্তন হবে। সিনেমাটি শুরু করব আগামী বছর। আগে হাওয়া সিনেমার কাজ শেষ করতে চাই।’

অমিতাভ রেজা তার তৃতীয় সিনেমার প্লট হিসেবে বেছে নিয়েছেন হুমায়ূন আহমেদের সাহিত্যকে। হুমায়ূন আহমেদের ‘পেন্সিলে আঁকা পরী’ উপন্যাস থেকে সিনেমা নির্মাণ করবেন অমিতাভ রেজা। বিষয়টি তিনি নিশ্চিত করেছেন নিউজবাংলাকে।

অরুণ চৌধুরী নির্মাণ করবেন জলে জ্বলে। সিনেমার এই নামটি পরিবর্তন হতে পারে বলে জানান পরিচালক। সিনেমার অভিনয়শিল্পীদের মধ্যে চূড়ান্ত হয়েছেন ফজলুর রহমান বাবু।

নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘এটি একটি মেয়ে ও তার বাবার গল্প।’

প্রযোজক হিসেবে অনুদান পেয়েছেন পিপলু আর খান। তার সিনেমার নাম বলি। সিনেমাটি নির্মাণ করবেন ইকবাল হোসাইন চৌধুরী। তিনি একসময় সাংবাদিক পেশায় ছিলেন। এখন কানাডায় চলচ্চিত্র বিষয়ে লেখাপড়া করছেন।

বলি সিনেমাটি চট্টগ্রামের বলি খেলাকে কেন্দ্র করে নির্মিত হবে বলে জানান পিপলু আর খান। তিনি বলেন, ‘একজন সাবেক বলি খেলোয়াড়কে নিয়ে নির্মিত হবে সিনেমাটি। শীতকালে হবে সিনেমার শুটিং।’

দেশাত্মবোধের সিনেমা নির্মাণ করবেন আশুতোষ সুজন। দ্রুতই সিনেমার কাজ শুরু করতে চান তিনি। এখন সিনেমার প্রি-প্রোডাকশনের কাজ চলছে বলে নিউজবাংলাকে জানান পরিচালক।

প্রি-প্রোডাকশনের কাজ চলছে নির্মাতা এস এ হক অলিকেরও। তার সিনেমা গলুই। নৌকাবাইচের গল্প নিয়ে সিনেমাটি নির্মিত হবে বলে জানান এই পরিচালক। তাই বর্ষার এই সময়টাই ধরতে চান ক্যামেরায়।

স্বপ্নকে বাস্তবায়নের জন্য নিম্নবিত্ত থেকে শুরু করে উচ্চবিত্ত সবাই অনেক সময় ভুল সিদ্ধান্ত নিয়ে নেন জীবনে। পরিবারকে ভালো রাখতে কাজের সন্ধানে বিদেশে যান বিভিন্ন উপায়ে।

এমনই এক প্রেক্ষাপটের সিনেমা জলরঙ। দেলোয়ার হোসেন দিলুর প্রযোজনায় সিনেমাটি নির্মাণ করবেন কবিরুল ইসলাম রানা।

নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘শীতকালে সিনেমাটির দৃশ্যধারণ শুরু হবে। টেকনাফ, ছেড়া দ্বীপ, কক্সবাজারসহ থাইল্যান্ডেও সিনেমার দৃশ্যধারণ করতে হবে।’

‘ধান কাটার মৌসুমে যারা নিজের এলাকা ছেড়ে অন্য এলাকায় ধান কাটতে যেত তাদের বলা হতো দাওয়াল। ১৯৪৭ সালে পাকিস্তান সরকারের এক অধ্যাদেশের বিপক্ষে আন্দোলনে নামে তারা। নির্যাতিত দাওয়ালদের পক্ষে এগিয়ে আসেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। এমন প্রেক্ষাপটে আমাদের সিনেমা।’ বলেন রাকিবুল হাসান চৌধুরী পিকলু।

তিনি আরও জানান, ধান কাটার সময়ে সিনেমাটির শুটিং করবেন তিনি।

হরিজন খ্যাত পরিচালক মির্জা সাখাওয়াৎ হোসেন নির্মাণ করবেন ভাঙন। এটি একটি রেলস্টেশনের গল্প। তিনি জানান, প্রান্তিক ও ছিন্নমূল মানুষের কথাই প্রাধান্য পাবে সিনেমায়।

মুক্তিযুদ্ধ ও বঙ্গবন্ধু হত্যার পেইন্টিং নিয়ে সিনেমা মৃত্যুঞ্জয়ী। শিল্পী শাহাবুদ্দিন আহমেদসহ আরও কয়েকজন গুণী শিল্পীর উল্লেখযোগ্য কাজ নিয়ে সিনেমাটি নির্মাণ করবেন উজ্জ্বল কুমার মন্ডল।

২০টি সিনেমার মধ্যে সর্বোচ্চ ৭০ লাখ টাকা পাচ্ছেন চাঁদের অমাবস্যা সিনেমার পরিচালক ও প্রযোজক জাহিদুর রহিম অঞ্জন। ৫০ লাখ টাকা পাবে মাইক সিনেমাটি। এ ছাড়া মৃত্যুঞ্জয়ী, জয় বাংলা, জামদানী ও দাওয়াল সিনেমা-সংশ্লিষ্টরা পাবেন ৬৫ লাখ টাকা করে। আর বাকিরা সবাই পাবেন ৬০ লাখ টাকা করে। ২০টি সিনেমার মোট বাজেট ১২ কোটি ২০ লাখ টাকা।

শেয়ার করুন

‘দ্য ফ্যামিলি ম্যান’-এর প্রিয়মণিকে ৩০০ রুপি দিয়েছিলেন শাহরুখ!

‘দ্য ফ্যামিলি ম্যান’-এর প্রিয়মণিকে ৩০০ রুপি দিয়েছিলেন শাহরুখ!

দক্ষিণী জনপ্রিয় অভিনেত্রী প্রিয়মণি ও বলিউড সুপারস্টার শাহরুখ খান। ছবি: সংগৃহীত

২০১৩ সালে মুক্তি পাওয়া সুপারহিট সিনেমা চেন্নাই এক্সপ্রেস-এর এক আইটেম গানে শাহরুখের সঙ্গে নেচেছিলেন প্রিয়মণি। এক সাক্ষাৎকারে এই অভিনেত্রী জানান, সেই গানের শুটিং চলাকালীন তাকে ৩০০ রুপি দিয়েছিলেন শাহরুখ। যা তিনি আজও সযত্নে রেখে দিয়েছেন! কিন্তু কেন তাকে ৩০০ রুপি দিয়েছিলেন বলিউড বাদশাহ?

বিভিন্ন সাক্ষাৎকারে বলিউডের সুপারস্টার শাহরুখ খানের নম্রতা ও হৃদ্যতার প্রশংসা বিভিন্ন সময়ই শোনা গেছে তার সহকর্মীদের কাছ থেকে।

বলিউড তো বটেই, এমনকি ভারতের দক্ষিণী শোবিজ তারকারাও তার প্রশংসা করার তালিকা থেকে বাদ যাননি।

সম্প্রতি এই তালিকায় যোগ হলেন ‘দ্য ফ্যামিলি ম্যান’ সিরিজের দক্ষিণী অভিনেত্রী প্রিয়মণি।

সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে এই অভিনেত্রী শাহরুখের সঙ্গে চেন্নাই এক্সপ্রেস সিনেমাতে তার কাজ করার অভিজ্ঞতা নিয়ে বলতে গিয়ে বলিউড ‘বাদশাহ’র উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করেন প্রিয়মণি।

২০১৩ সালে মুক্তি পাওয়া সুপারহিট সিনেমা চেন্নাই এক্সপ্রেস-এর এক আইটেম গানে শাহরুখের সঙ্গে নেচেছিলেন প্রিয়মণি।

সাক্ষাৎকারে এই অভিনেত্রী জানান, সেই গানের শুটিং চলাকালীন তাকে ৩০০ রুপি দিয়েছিলেন শাহরুখ। যা তিনি আজও সযত্নে রেখে দিয়েছেন!

কিন্তু কেন তাকে ৩০০ রুপি দিয়েছিলেন বলিউড বাদশাহ?

সেই প্রশ্নের জবাবও দিয়েছেন অভিনেত্রী। তবে তার আগে শাহরুখের ব্যাপারে বলতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘চেন্নাই এক্সপ্রেসের এই গানের জন্য মোট ৫ দিনের শুট ছিল। হইচই করে জমিয়ে শুটিং সেরেছিলাম আমরা।

‘তখনই টের পেয়েছিলাম কেন শাহরুখকে ‘বাদশাহ’ বলা হয়। এত বড় সুপারস্টার হয়েও আর পাঁচজন মানুষের মতোই ভীষণ সাধারণ তিনি।’

‘দ্য ফ্যামিলি ম্যান’-এর প্রিয়মণিকে ৩০০ রুপি দিয়েছিলেন শাহরুখ!
চেন্নাই এক্সপ্রেস সিনেমার সেই আইটেম গানের দৃশ্যে প্রিয়মণি ও শাহরুখ খান। ছবি: সংগৃহীত

প্রিয়মণি বলেন, ‘সেবারই বুঝেছিলাম তার আশপাশে থাকা মানুষ ও সহকর্মীদের সুবিধা-অসুবিধার দিকে তীক্ষ্ণ নজর তার। তারকা হিসেবে ছেড়েই দিন, শাহরুখের মিষ্টি ব্যবহারের জন্যই তাকে ভালো না বেসে উপায় নেই!’

‘দ্য ফ্যামিলি ম্যান’-এর প্রিয়মণিকে ৩০০ রুপি দিয়েছিলেন শাহরুখ!
জনপ্রিয় ওয়েব সিরিজ ‘দ্য ফ্যামিলি ম্যান টু’তে অভিনেতা মনোজ বাজপেয়ির সঙ্গে প্রিয়মণি। ছবি: সংগৃহীত

এরপরেই ওঠে সেই ৩০০ রুপির প্রসঙ্গ। দক্ষিণী এই অভিনেত্রীর কথায়, একদিন শুটিং শেষে শাহরুখ এবং সেটের অনেকে মিলে ভীষণ হাসি, মজা, আড্ডা চলছিল।

এমন সময় আড্ডাটাকে আরও জমিয়ে তুলতে নিজের আই প্যাড বের করে আমার সঙ্গে ‘কৌন বনেগা ক্রোড়পতি’ খেলা শুরু করলেন শাহরুখ। হাসতে হাসতে খেলায় অংশ নিলাম আমি।

‘দ্য ফ্যামিলি ম্যান’-এর প্রিয়মণিকে ৩০০ রুপি দিয়েছিলেন শাহরুখ!
দক্ষিণী সিনেমা ও ওয়েব সিরিজ ‘দ্য ফ্যামিলি ম্যান’র জনপ্রিয় অভিনেত্রী প্রিয়মণি। ছবি:ইনস্টাগ্রাম

সেই খেলাতে প্রশ্নের ঠিকঠাক জবাব দেয়ার জন্য আমাকে ৩০০ রুপি দিয়েছিলেন শাহরুখ! সেই স্মৃতি ও পুরস্কার আমার কাছে আজও অমূল্য।

শেয়ার করুন

প্রথমবার ইরফান-তৌসিফ, মাঝে তানহা

প্রথমবার ইরফান-তৌসিফ, মাঝে তানহা

ইরফান সাজ্জাদ (বাঁয়ে) ও তৌসিফ মাহবুবের সঙ্গে তানহা তাসনিয়া। ছবি: সংগৃহীত

নির্মাতা জাহিদ প্রীতম বলেন, ‘যে গল্প আমাকে ভাবায় না, আমি সেটা কখনও বলতে চাই না। আমি সব সময় চাই দর্শকদের হতবাক করে বিনোদন দিতে। একজন গল্পকার হিসেবে আমি চাই, আমার চরিত্রগুলো খুব সুন্দরভাবে ফুটে উঠুক। আমি খুব আশাবাদী।’

আসছে কোরবানি ঈদকে কেন্দ্র করে জাহিদ প্রীতম নির্মাণ করেছেন তার ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় ফিকশন ভুল করো না। এটি নির্মিত হয়েছে টাইগার মিডিয়ার ব্যানারে।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে পরিচালক দাবি করেন ক্রিমিনাল সাইকোলজি ও রোমান্টিক-থ্রিলার জনরার ফিকশনে নির্মিত হয়েছে নাটকটি।

প্রথমবারের মতো নাটকে একসঙ্গে কাজ করেছেন সময়ের অন্যতম ব্যস্ত অভিনেতা তৌসিফ মাহাবুব ও ইরফান সাজ্জাদ। এই গল্পের মধ্যমণি মডেল ও অভিনেত্রী তানহা তাসনিয়া। নাটকে আরও আছেন শাহেদ আলী, ফরহাদ লিমন।

৬০ মিনিট দৈর্ঘ্যের ফিকশনটি নিয়ে টাইগার মিডিয়ার কর্ণধার জাহিদ হাসান অভি বলেন, ‘গল্পটি পড়ে আমার কাছে মনে হয়েছে, এই সময়ে আমি এই গল্পটিই দেখাতে চাই। গল্পটি প্রথম যখন আমি প্রীতমের মুখে শুনি, তখনই আমার মনে হয়েছে, কাজটা ঠিকঠাক করতে পারলে সময়ের সেরা গল্পগুলোর একটি হতে পারে।’

নির্মাতা জাহিদ প্রীতম বলেন, ‘যে গল্প আমাকে ভাবায় না, আমি সেটা কখনও বলতে চাই না। আমি সব সময় চাই দর্শকদের হতবাক করে বিনোদন দিতে। একজন গল্পকার হিসেবে আমি চাই, আমার চরিত্রগুলো খুব সুন্দরভাবে ফুটে উঠুক। আমি খুব আশাবাদী।’

এই গল্পে সিনেমাটোগ্রাফি করছেন বিদ্রোহী দীপন। কস্টিউম ডিজাইন করেছেন মৌরিন শুভ্রা। একটি গানও থাকছে এই নাটকে। এতে কণ্ঠ দিয়েছেন অজয় ও রাত্রি। নাটকটির শুটিং হয়েছে উত্তরা ও পূর্বাচলে। ফিকশনটি আসছে ঈদে ওটিটির পাশাপাশি, ইউটিউব ও একটি বেসরকারি চ্যানেলে দেখা যাবে।

শেয়ার করুন