ঈদে সিঙ্গেলস্ক্রিনে দর্শক কমছে, বাড়ছে সিনেপ্লেক্সে

আনন্দ সিনেমা হলে চলছে বাদশা- দ্য ডন (উপরে), সিনেপ্লেক্সে দর্শকদের ভীর বারছে। ছবি: নিউজবাংলা

ঈদে সিঙ্গেলস্ক্রিনে দর্শক কমছে, বাড়ছে সিনেপ্লেক্সে

মিঞা আলাউদ্দিন এবং আনন্দ সিনেমা হলের কর্মী- দুজনেই জানালেন যে, ভালো সিনেমা বা বড় বাজেটের সিনেমা মুক্তি পেলে আরও কিছু দর্শক পাওয়া যেত।

ঈদে বন্ধ আছে অধিকাংশ সিনেমা হল। রাজধানীর চিত্রামহল ও বিজিবি সিনেমা হলে চলছে ডিপজল-মৌসুমী অভিনীত ঈদের একমাত্র নতুন সিনেমা সৌভাগ্য। এছাড়া ফার্মগেটের আনন্দতে চলছে জিৎ-নুসরাত ফারিয়ার পুরনো সিনেমা বাদশা- দ্য ডন

স্টার সিনেপ্লেক্সের বসুন্ধরা শাখা ছাড়া সীমান্ত সম্ভার ও এসকে টাওয়ারের শাখা চালু রয়েছে। সেখানে প্রদর্শিত হচ্ছে আগে মুক্তি পাওয়া ইংরেজি সিনেমাগুলো।

এই সিনেমাহলগুলোতে ঘুরে জানা গেল চিত্রামহল ও আনন্দতে ঈদেরর দিনের প্রথম শোতে দর্শক কিছু থাকলেও পরের শোগুলো থেকে দর্শক কমা শুরু করেছে।

চিত্রামহলে ঈদের দিন সৌভাগ্য সিনেমাটির টিকিট বিক্রি হয়েছে ১৫ হাজার থেকে ১৬ হাজার টাকার। নিউজবাংলাকে বিষয়টি জানিয়েছেন প্রদর্শক সমিতির উপদেষ্টা মিঞা আলাউদ্দিন।

তিনি বলেন, ‘ঈদের দিন রাতে চিত্রামহলের সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আমার কথা হয়েছে। তারা জানাল পনের-ষোল হাজার টাকা বিক্রি হয়েছে। করোনা পরিস্থির মধ্যেই প্রথম শোতে দর্শক ভালোই ছিল। কিন্তু ধীরে ধীরে দর্শকের পরিমাণ কমতে শুরু করেছে।’

ফার্মগেটের আনন্দ সিনেমা হলে চলছে বাদশা- দ্য ডন সিনেমাটি। সেখানকার এক কর্মী নিউজবাংলাকে জানালেন একই কথা। ঈদের দিন প্রথম শোতে দর্শক কিছু থাকলেও দ্বিতীয় দিনে দর্শক সংখ্যা একেবারেই কমে গেছে।

মিঞা আলাউদ্দিন এবং আনন্দ সিনেমা হলের কর্মী- দুজনেই জানালেন যে, ভালো সিনেমা বা বড় বাজেটের সিনেমা মুক্তি পেলে আরও কিছু দর্শক পাওয়া যেত।

অন্যদিকে সিনেপ্লেক্সে এই চিত্র কিছুটা উল্টো। রাজধানীর সীমান্ত সম্ভার ও মহাখালীর এসকে টাওয়ারে থাকা স্টার সিনেপ্লেক্সে প্রদর্শিত হচ্ছে গডজিলা ভার্সেস কং এবং রায়া অ্যান্ড দ্য লাস্ট ড্রাগন

ঈদে সিঙ্গেলস্ক্রিনে দর্শক কমছে, বাড়ছে সিনেপ্লেক্সে
সীমান্ত সম্ভারে সিনেপ্লেক্স শাখায় কিছু দর্শক। ছবি: নিউজবাংলা

সীমান্ত সম্ভারে খোজ নিয়ে জানা গেল ঈদের দিনে দর্শক একটু কম থাকলেও দ্বিতীয় দিনে দর্শক বাড়ছে। সীমান্ত সম্ভারের স্টার সিনেপ্লেক্সে টিকেট কাউন্টারের কর্মী জানালেন, দ্বিতীয় দিনে ৬০ থেকে ৮০ জন করে দর্শক পাচ্ছেন তারা।

সীমান্ত সম্ভারে গডজিলা ভার্সেস কং দেখতে এসেছেন এমন ছয়জন দর্শকের সঙ্গে হয় নিউজবাংলার। তারা প্রত্যেকেই জানিয়েছেন, ঈদের মধ্যে পরিবার-স্বজনের দেখা করার পাশাপাশি বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা দেয়া হয়। এসবের মধ্যে সিনেমা দেখা একটা উদযাপনের মতো।

ছোট বাচ্চাদের নিয়ে একই সিনেমা দেখতে এসেছিলেন এক অভিভাবক। সময় না মেলায় তারা অবশ্য সিনেমাটি দেখেননি। এছাড়া সিনেমা হলটির পাশেই ফুড কোর্ট, সেখানে অনেক ভিড় দেখা গেছে।

তাদের মধ্যে অনেকেই সিনেমা দেখে বের হয়েছেন, অনেকে আছেন আছেন সিনেমা দেখার অপেক্ষায়।

রাজধানীর অন্য বড় হলগুলোর মধ্যে অন্যতম বলাকা, মধুমিতা, শ্যামলী অনেকদিন ধরেই বন্ধ রয়েছে।

আরও পড়ুন:
বিক্ষোভ’র টিজার প্রশংসিত, চিন্তা শান্তকে নিয়ে
ঈদে রুপালি পর্দায় নতুন ডিপজল, পুরনো শাকিব-সিয়াম
ঈদে আসছে ‘কসাই’, দেখা যাবে ২০ টাকায়

শেয়ার করুন

মন্তব্য

নীল রানাউতের স্বপ্ন যেভাবে সত্য হয়েছিল

নীল রানাউতের স্বপ্ন যেভাবে সত্য হয়েছিল

বলিউড অভিনেত্রী কিয়ারা আদভানি ও যুক্তরাষ্ট্রের জনপ্রিয় মডেল ও অভিনেত্রী কিম কার্দাশিয়ানের রূপে নীল রানাউত। ছবি: সংগৃহীত

ঘরে পাওয়া সবধরনের অব্যবহৃত কাপড় ও জিনিসপত্র নীল রানাউত পোশাক তৈরিতে কাজে লাগাতেন। মা ও দাদীর প্যাটিকোট, ব্লাউজ থেকে শুরু করে রেলস্টেশনে ফেরি করে তার বাবার ছোলা বিক্রির কাজে ব্যবহৃত সিলভারের ছোট বাটিও কাজে লাগাতেন তিনি। এছাড়া, কলাপাতা, ফুল, মানুষের কৃত্রিম চুল সহ আরও হরেক রকমের জিনিস তিনি কাজে লাগিয়েছেন রকমারি ও সৃজনশীল পোশাক তৈরির কাজে।

বলিউড কাঁপানো অভিনেত্রীদের পোশাকের আদলে কস্টিউম বানিয়ে নেন ত্রিপুরের ছেলে নীল রানাউত। সেই কস্টিউম পড়ে তাদের মতো করে মেকআপ নিয়ে তাদের স্টাইলে ছবি তুলে বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যমে পোস্ট দিতেন তিনি।

তার অভিনব কস্টিউম আর মডেলিংয়ের ছবিগুলো এরিইমধ্যে ব্যাপক সাড়া ফেলে দেয় ইনস্টাগ্রামে।

গ্রামের এক দরিদ্রপরিবারে জন্ম নেয়া নীলের সৃজনশীল কাজের প্রশংসা করেন তার স্বপ্নের তারকা কঙ্গনা রানাউত নিজেও।

পারিবারিক নাম সর্বজিৎ সরকার হলেও তার পরিচিতি ছাপিয়ে গেছে নীল রানাউত নামেই।

সুপরিচিত পাওয়া নাম নীল রানাউত-এর কারণ তিনি ব্যাখ্যা দিয়েছেন ভারতের বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে দেয়া সাক্ষাতকারে।

নীল তার প্রিয় রং। আবার নীল তার পোষা প্রাণীর নাম। দুই মিলিয়ে তিনি নিয়েছেন নীল নামটি। আর নামের রানাউত অংশটি তিনি নিয়েছেন তার প্রিয় তারকা কঙ্গনা রানাউতের নাম থেকে।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম টিকটিক আর ইনস্টাগ্রামে জনপ্রিয় নীল রানাউতের সৃজনশীলতা মুগ্ধ করে সোশ্যাল মিডিয়া ব্যক্তিত্ব ও দিল্লির জনপ্রিয় মডেল কুশা কাপিলাকে।

কাপিলার বিভিন্ন পরামর্শে নিজের প্রতি আত্মবিশ্বাস আরও দৃঢ় হয় নীলের।

কাপিলার মাধ্যমে নীলের যোগযোগ হয় দিল্লির প্রভাবশালী ফ্যাশন ডিজাইনার আবু জানি সন্দ্বীপ কসলার সঙ্গে। এরপর আর পিছনে ফিরতে হয়নি নীলকে।

সন্দ্বীপ কসলার তৈরি পোশাকে র‍্যাম্প মডেলও বনে যান তিনি।

এক প্রতিক্রিয়ার নীল বলেন, ‘প্রথমে ভীষণ কষ্ট হয়েছিলো হাই-হিল পরে হাঁটতে। দিল্লির বিলাসবহুল হোটেলে থেকে টানা অনুশীলন করে পরে আয়ত্ব করে নিয়েছিলাম হাই-হিল পরে হাঁটার। হাজারো দর্শকের সামনে র‍্যাম্পে হাঁটা শুরু করতে গিয়ে ভীষণ নার্ভাস ছিলাম। কাপিলার কথায় আত্মবিশ্বাস ফিরে পেলাম আর জীবনের প্রথম যুদ্ধজয়ের অভিজ্ঞতা নিলাম করতালির মধ্য দিয়ে।’

নীল রানাউতের স্বপ্ন যেভাবে সত্য হয়েছিল

গ্রামের এক দরিদ্রপরিবারে জন্ম নেয়া নীল রানাউতের সৃজনশীল কাজের প্রশংসা করেন তার স্বপ্নের অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাউত নিজেও। ছবি: সংগৃহীত

শুরুর গ্লানি

নীলের বাবা-মা, আত্মীয়-স্বজন কেউই পছন্দ করতো না তার এমন সৃষ্টিশীল কাজকে। সবার অমতে যাত্রা শুরু করতে হয় তাকে।

ঘরে পাওয়া সবধরনের অব্যবহৃত কাপড় ও জিনিসপত্র তিনি পোশাক তৈরিতে কাজে লাগাতেন। মা ও দাদীর প্যাটিকোট, ব্লাউজ থেকে শুরু করে রেলস্টেশনে ফেরি করে তার বাবার ছোলা বিক্রির কাজে ব্যবহৃত সিলভারের ছোট বাটিও কাজে লাগাতেন তিনি।

এছাড়া, কলাপাতা, ফুল, মানুষের কৃত্রিম চুল সহ আরও হরেক রকমের জিনিস তিনি কাজে লাগিয়েছেন রকমারি ও সৃজনশীল পোশাক তৈরির কাজে।

নিজের আত্মতৃপ্তিও ভাগাভাগি করেছেন বিভিন্ন সাক্ষাতকারে। দিল্লিতে সেই জমকালো ফ্যাশন-শোতে অংশ নেয়া, নামি-দামি ব্যক্তিদের সঙ্গে উঠাবসা আর বড় বড় হোটেলে থাকার পর এখন আর তাকে নিজের কাজের জন্যে পারিবারিক বাধার শিকার হতে হয়না।

নিজের পরিবার ও বন্ধু-বান্ধব এখন নীলকে তার কাজের জন্যে গুরুত্ব দিতে এখন আর ভুল করেন না।

আরও পড়ুন:
বিক্ষোভ’র টিজার প্রশংসিত, চিন্তা শান্তকে নিয়ে
ঈদে রুপালি পর্দায় নতুন ডিপজল, পুরনো শাকিব-সিয়াম
ঈদে আসছে ‘কসাই’, দেখা যাবে ২০ টাকায়

শেয়ার করুন

‘ইন্ডিয়া’ নাম মুছে ফেলতে চান কঙ্গনা

‘ইন্ডিয়া’ নাম মুছে ফেলতে চান কঙ্গনা

বলিউড অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাউত। ছবি: সংগৃহীত

এবার কঙ্গনা সামাজিক ফেসবুকে মন্তব্য করেছেন ইংরেজদের দেয়া ‘ইন্ডিয়া’ নাম মুছে ফেলা হোক। ইন্ডিয়ার বদলে দেশের নাম ‘ভারত’ থাকুক।

বলিউডের ‘কন্ট্রোভার্সি কুইন’ হিসেবে পরিচিত অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাউত যেন বিতর্কের মধ্যমণিতেই থাকতে ভালোবাসেন। সম্প্রতি, নানা বিতর্কের জেরে তার টুইটার অ্যাকাউন্টটিও বন্ধ করে দিয়েছে স্বয়ং টুইটার কর্তৃপক্ষ।

তারপরেও বিতর্কিত মন্তব্য করা বাদ দেননি কঙ্গনা। ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের স্বঘোষিত অনুগামী এই অভিনেত্রী হামেশাই দেশপ্রেমের বুলি ওড়াতে ভালোবাসেন। এবারও তার ব্যতিক্রম হলো না।

এবার কঙ্গনা সামাজিক ফেসবুকে মন্তব্য করেছেন ইংরেজদের দেয়া ‘ইন্ডিয়া’ নাম মুছে ফেলা হোক। ইন্ডিয়ার বদলে দেশের নাম ‘ভারত’ থাকুক।

সেই পোস্টে কঙ্গনা লেখেন, ‘ভারত তখনই নিজেদের শ্রেষ্ঠত্ব তুলে ধরতে পারবে, যখন দেশটি তাদের আধ্যাত্মিকতা ও প্রজ্ঞায় মোড়ানো প্রাচীন আমলের অসাধারণ সভ্যতায় ফিরতে পারবে। বিশ্ব আমাদের তাকিয়ে দেখবে এবং আমরা বৈশ্বিক নেতা হিসেবে আবির্ভূত হব। আমরা নগরায়ণের দিকে এগিয়ে যাব, তবে পশ্চিমা বিশ্বকে নকল করে নয়। আমরা আমাদের শেকড় বেদ, গীতা ও যোগব্যায়াম ধরে রাখব। আমরা কি দাসত্বের নাম ইন্ডিয়া থেকে ভারতে ফিরে আসতে পারি না?’

এই অভিনেত্রী বলছেন, ভারতের নাম ইন্ডিয়া দিয়েছে ব্রিটিশরা। ইন্ডিয়ার আক্ষরিক অর্থ সিন্ধু নদের পূর্ব দিক। বলুন তো, কেউ কি কোনো সন্তানকে আলাদা আলাদা অঙ্গের নামে ডাকতে পারে। বিষয়টির গোড়াতেই গলদ রয়েছে।

‘এবার ভারত নাম নিয়ে বলতে দিন। নামটি তিনটি সংস্কৃত শব্দ থেকে এসেছে। তিনটি সংস্কৃত শব্দ—‘ভা’ অর্থে ‘ভাব’, ‘র’ অর্থে ‘রাগ’ ও ‘ত’ অর্থে ‘তাল’ মিলিয়ে ভারত শব্দটি তৈরি হয়েছে।’

‘ইন্ডিয়া’ নাম মুছে ফেলতে চান কঙ্গনা
বলিউড অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাউত। ছবি: সংগৃহীত

এখানেই শেষ করেননি কঙ্গনা। বলেন, ‘হ্যাঁ, আমাদের পূর্বপুরুষরা দাসত্বের মধ্যে ছিল। সভ্যতার সঙ্গে সংস্কৃতি, রীতিনীতি ও সৌন্দর্যবোধের ব্যাপারগুলোও বিবর্তিত হয়েছে। প্রত্যেকটা নামেরই একটা প্রাণ আছে। ব্রিটিশরা এটা জানত। আর তাই তারা বিভিন্ন জায়গার ও স্থাপনায় নতুন নতুন নাম দেয়। আমাদের অবশ্যই হারানো খ্যাতি ফিরিয়ে আনতে হবে। ভারত নাম দিয়েই হোক শুরু।’

‘ইন্ডিয়া’ নাম মুছে ফেলতে চান কঙ্গনা
বলিউড অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাউত। ছবি: সংগৃহীত

কঙ্গনার এই যুক্তি অনেকে সমর্থন করলেও একমত নন অনেকেই। কেউ কেউ বলছেন কঙ্গনা ভারত নামের উৎস সম্পর্কেই জানেন না। তারা বলছেন, পুরাণকাহিনি শকুন্তলা আর দুষ্মন্তের পুত্র ভরত রাজার নাম থেকে এসেছে ‘ভারত’।

আরও পড়ুন:
বিক্ষোভ’র টিজার প্রশংসিত, চিন্তা শান্তকে নিয়ে
ঈদে রুপালি পর্দায় নতুন ডিপজল, পুরনো শাকিব-সিয়াম
ঈদে আসছে ‘কসাই’, দেখা যাবে ২০ টাকায়

শেয়ার করুন

ঈদে আসছে ‘লিডার’

ঈদে আসছে ‘লিডার’

‘লিডার-আমিই বাংলাদেশ’ সিনেমার শুটিং থেকে তোলা ছবিতে শাকিব খান ও বুবলী। ছবি: সংগৃহীত

চলচ্চিত্রটির প্রযোজক সৈয়দ আশিক রহমান বলেন, ‘আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি, আগামী ঈদুল আজহায় বাংলাদেশসহ আন্তর্জাতিক অঙ্গনে লিডার-আমিই বাংলাদেশ রিলিজ হবে ইনশাআল্লাহ।’

আগামী ঈদুল আজহায় মুক্তি পেতে যাচ্ছে ঢাকাই চলচ্চিত্রের সুপারস্টার শাকিব খান ও চিত্রনায়িকা বুবলী অভিনীত চলচ্চিত্র লিডার- আমিই বাংলাদেশ। ইতিমধ্যে সিনেমাটির ৬০ ভাগ শুটিং শেষ হয়েছে।

সিনেমাটির নির্মাতা প্রতিষ্ঠান বেঙ্গল মাল্টিমিডিয়া লিমিটেডের পক্ষ থেকে বুধবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

গত ২৫ মে রাজধানীর উত্তরায় শুটিং শুরু হয়েছিল এই সিনেমাটির। উত্তরার বিভিন্ন লোকেশনে টানা ৮ দিন শুটিং শেষে অল্প কিছু দিনের বিরতি দেয়া হয়।

পরে গত ১৭ জুন থেকে এফডিসিতে সেট বানিয়ে টানা ৫ দিন শুটিং হয়। সেট পরিবর্তনের জন্য ২ দিনের বিরতি দিয়ে আবার বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হবে টানা ১০ দিনের শুটিং।

বেঙ্গল মাল্টিমিডিয়া লিমিটেডের পরিচালক ও চলচ্চিত্রটির প্রযোজক সৈয়দ আশিক রহমান বলেন, ‘ইতিমধ্যে ৬০ ভাগ শুটিং অত্যন্ত সফলতার সাথে শেষ হয়েছে। আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি, আগামী ঈদুল আজহায় বাংলাদেশসহ আন্তর্জাতিক অঙ্গনে লিডার-আমিই বাংলাদেশ রিলিজ হবে ইনশাআল্লাহ।’

চলতি বছরের ১৮ ফেব্রুয়ারি সিনেমাটির মহরত অনুষ্ঠিত হয়।

দেলোয়ার হোসেন দিলের গল্পে সিনেমাটি পরিচালনা করছেন তপু খান।

ঈদে আসছে ‘লিডার’

‘লিডার-আমিই বাংলাদেশ’ সিনেমায় ফার্স্ট লুকে শাকিব খান ও বুবলীর। ছবি: সংগৃহীত

তপু খান বলেন, ‘প্রতিদিন শাকিব ভাই, বুবলীসহ সবাই যথাসময়ে সেটে এসে শুটিং করছেন। বৃষ্টির কারণে কিছুটা সমস্যায় পড়লেও আমরা ইতিমধ্যে ৬০ ভাগ শুটিং শেষ করতে পেরেছি। সামনের কাজগুলোও একইভাবে শেষ করতে পারব বলে আমার বিশ্বাস।’

আরও পড়ুন:
বিক্ষোভ’র টিজার প্রশংসিত, চিন্তা শান্তকে নিয়ে
ঈদে রুপালি পর্দায় নতুন ডিপজল, পুরনো শাকিব-সিয়াম
ঈদে আসছে ‘কসাই’, দেখা যাবে ২০ টাকায়

শেয়ার করুন

আসছে ‘কিল বিল’-এর রিমেক, প্রধান চরিত্রে কে?

আসছে ‘কিল বিল’-এর রিমেক, প্রধান চরিত্রে কে?

‘কিল বিল’ সিনেমার রিমেক বানাবেন বলিউড নির্মাতা অনুরাগ কাশ্যপ। ছবি: সংগৃহীত

তবে এ প্রসঙ্গে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পরিচালকের ঘনিষ্ঠ একজন জানান, এখনও একেবারে প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে এই সিনেমার ব্যাপারটি। তবে এই খবর সংবাদমাধ্যমের কাছে কীভাবে পৌঁছালো সেটাই বুঝে উঠতে পারছি না!

২০০৩ সালে মুক্তি পেয়েছিল হলিউডের সাড়া জাগানো সিনেমা ‘কিল বিল’।

আমেরিকান মার্শাল আর্ট নির্ভর এই সিনেমাটি নির্মাণ করেছিলেন খ্যাতিমান পরিচালক কোয়েন্টিন টরেন্টিনো।

ব্যাপক অ্যাকশন নির্ভর এই সিনেমার মূখ্য চরিত্রে উমা থুরম্যানের অভিনয় করেন আজও স্মরণ করে দর্শকরা।

ভারতীয় একাধিক সংবাদমাধ্যম বলছে, এবার এই কিল বিল সিনেমার হিন্দি রিমেক নির্মাণ করতে যাচ্ছেন বলিউডের নামকরা পরিচালক অনুরাগ কাশ্যপ।

যদিও এ ব্যাপারে অনুরাগ কাশ্যপ কিংবা তার টিমের কেউ মুখ খোলেননি এখনও।

তবে এ প্রসঙ্গে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পরিচালকের ঘনিষ্ঠ একজন জানান, এখনও একেবারে প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে এই সিনেমার ব্যাপারটি। তবে এই খবর সংবাদমাধ্যমের কাছে কীভাবে পৌঁছালো সেটাই বুঝে উঠতে পারছি না!

সিনেমাটির হিন্দি রিমেকে উমা থুরম্যানের ভূমিকায় কৃতি শ্যাননকে দেখা যাবে সেই খবরের সত্যতাতেও সায় জানিয়েছেন অনুরাগের সেই ঘনিষ্ঠজন।

আসছে ‘কিল বিল’-এর রিমেক, প্রধান চরিত্রে কে?
বলিউড অভিনেত্রী কৃতি শ্যানন। ছবি: ইনস্টাগ্রাম

শোনা যাচ্ছে আর অল্প কিছুদিনের মধ্যেই নাকি একাধিক মার্শাল আর্ট আর তলোয়ার ও বন্দুক চালানোর প্রশিক্ষণও শুরু করে দেবেন কৃতি।

আরও পড়ুন:
বিক্ষোভ’র টিজার প্রশংসিত, চিন্তা শান্তকে নিয়ে
ঈদে রুপালি পর্দায় নতুন ডিপজল, পুরনো শাকিব-সিয়াম
ঈদে আসছে ‘কসাই’, দেখা যাবে ২০ টাকায়

শেয়ার করুন

একই বাড়িতে থাকবেন সুশান্তের দুই বান্ধবী অঙ্কিতা-রিয়া?

একই বাড়িতে থাকবেন সুশান্তের দুই বান্ধবী অঙ্কিতা-রিয়া?

এ খবর প্রকাশের পর থেকে সুশান্তের ভক্তদের মাঝে ছড়িয়েছে কৌতূহল। এবার কি তাহলে এক বাড়িতে থেকে মুখোমুখি হবেন সুশান্তের সাবেক দুই বান্ধবী? তবে পুরোটাই নির্ভর করছে রিয়া ও অঙ্কিতার সিদ্ধান্তের ওপর।

অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর পর এক বছর ধরে বলিউডের আলোচিত দুই অভিনেত্রী রিয়া চক্রবর্তী ও অঙ্কিতা লোখান্ডে। দুজনই সুশান্তের সাবেক বান্ধবী।

তাদের মধ্যে সুশান্তের মৃত্যুর ঘটনায় করা মামলার অভিযুক্তও রিয়া। যদিও রিয়াকে প্রেমিকা হিসেবে কোনোদিনই পরিচয় দেননি সুশান্ত। কিন্তু তার মৃত্যুর পর রিয়া নিজেই সুশান্তের প্রেমিকা ছিলেন বলে দাবি করেন।

অন্যদিকে সুশান্ত ও অঙ্কিতার প্রেমকাহিনি শুধু বলিউড নয়, ভক্তকূলও জানত। ২০১৬ সালে ভেঙে যায় তাদের টানা সাত বছরের সম্পর্ক। ওই বছরই সুশান্তের সঙ্গে পরিচয় রিয়ার।

এবার শোনা যাচ্ছে এক ছাদের নিচে থাকতে পারেন সুশান্তের এই দুই সাবেক বান্ধবী।

ভারতীয় একাধিক সংবাদমাধ্যমে বলা হচ্ছে, বিগ বসের ১৫ নম্বর সিজনের জন্য দুজনের কাছেই প্রস্তাব গেছে।

এ খবর প্রকাশের পর সুশান্তের ভক্তদের মধ্যে দেখা গেছে কৌতূহল। এবার এক বাড়িতে থেকে সুশান্তের সাবেক দুই বান্ধবী মুখোমুখি হবেন কি না, সে প্রশ্ন অনেকের।

তবে পুরোটাই নির্ভর করছে রিয়া ও অঙ্কিতার সিদ্ধান্তের ওপর।

একই বাড়িতে থাকবেন সুশান্তের দুই বান্ধবী অঙ্কিতা-রিয়া?
বলিউড অভিনেত্রী অঙ্কিতা লোখান্ডে। ছবি: ইনস্টাগ্রাম

সুশান্তের মৃত্যুর পর তার পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছেন অঙ্কিতা। তার মৃত্যু নিয়ে সরাসরি রিয়ার দিকে আঙুল না তুললেও সুশান্তকে নিয়ে রিয়ার একাধিক দাবিকে ‌মিথ্যা বলেছেন অঙ্কিতা।

একই বাড়িতে থাকবেন সুশান্তের দুই বান্ধবী অঙ্কিতা-রিয়া?
বলিউড অভিনেত্রী রিয়া চক্রবর্তী। ছবি: ইনস্টাগ্রাম

অন্যদিকে অঙ্কিতা ‘সুশান্তের বিধবা’ সাজার চেষ্টা করছেন বলে মন্তব্য করেছেন রিয়া।

তর্ক-বিতর্কে ভরপুর বিগ বস শোতে এই দুই অভিনেত্রী অংশ নিলে যে টিআরপি রাতারাতি বাড়বে, তা নিয়ে দ্বিমত নেই কারও।

তাই হয়তো বিগ বসের ১৫ নম্বর সিজনে রিয়া-অঙ্কিতাকেই তুরুপের তাস হিসেবে দেখছেন নির্মাতারা।

আরও পড়ুন:
বিক্ষোভ’র টিজার প্রশংসিত, চিন্তা শান্তকে নিয়ে
ঈদে রুপালি পর্দায় নতুন ডিপজল, পুরনো শাকিব-সিয়াম
ঈদে আসছে ‘কসাই’, দেখা যাবে ২০ টাকায়

শেয়ার করুন

বোট ক্লাবে পরীমনির ১০ সেকেন্ডের নতুন ক্লিপ

বোট ক্লাবে পরীমনির ১০ সেকেন্ডের নতুন ক্লিপ

বোট ক্লাবে পরীমনির নতুন একটি ভিডিও ক্লিপ প্রকাশ্যে এসেছে

নিউজবাংলা ১০ সেকেন্ডের নতুন একটি ভিডিও পেয়েছে, যাতে অনেক কিছুই স্পষ্ট। পরীমনি ও তার সঙ্গীদের বসে থাকা, কথাবার্তাও সব শোনা যায়। যদিও এই ১০ সেকেন্ডে আসলে পুরো ঘটনা নিয়ে সিদ্ধান্তে আসা কঠিন। ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে পরীমনি ও তার তিন সঙ্গী বসে আছেন একটি টেবিল ঘিরে। তাদের সামনে দাঁড়িয়ে কথা বলছেন নাসির উদ্দিন মাহমুদ।

ঢাকা বোট ক্লাবে পরীমনি ও তার সঙ্গীরা কী করেছিলেন, তার একটি নমুনা প্রকাশ হয়েছে। ১০ সেকেন্ডের নতুন একটি ভিডিও ক্লিপে পরীমনি ও তার সঙ্গীদের একটি গোল টেবিলের চারপাশে বসে থাকতে দেখা গেছে।

সেই টেবিলে কয়েকটি বোতল রাখা ছিল। আর পরীমনির কণ্ঠস্বরও শোনা গেছে, যা ছিল অনেকটাই রাগান্বিত। তিনি ধমক দিচ্ছিলেন।

গত ৯ জুন রাতে ঢাকা বোট ক্লাবে গিয়ে ধর্ষণচেষ্টা ও হত্যার হুমকি পাওয়ার অভিযোগ করে তোলপাড় ফেলে দেন বাংলা চলচ্চিত্রের ঝলমলে এই তারকা।

অভিযোগ করেন, বোট ক্লাবের সাবেক সভাপতি নাসির উদ্দিন মাহমুদ এই অপকর্ম করেছেন। তার অভিযোগে পরদিনই গ্রেপ্তার হন জাতীয় পার্টির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য।

তবে গ্রেপ্তারের আগে নাসির করেন পাল্টা অভিযোগ। তার দাবি, পরীমনি তাদের ক্লাবে গিয়ে জোর করে মদ খেতে চেয়েছেন। তারা বাধা দিলে করেছেন হামলা।

পরীমনির সেদিন সঙ্গীসহ ক্লাবে ঢোকার ভিডিও পাওয়া গেছে দুই দিন পরই। তবে ভেতরের কী হয়েছে, তার কোনো ভিডিও আসেনি কোথাও। যদিও অন্ধকারের মধ্যে ১৫ সেকেন্ডের একটি ভিডিও পরীমনি নিজেই দেন, তাতে কোনো কিছুই স্পষ্ট ছিল না।

এর মধ্যে নিউজবাংলা ১০ সেকেন্ডের নতুন একটি ভিডিও পেয়েছে, যাতে অনেক কিছুই স্পষ্ট। তাদের বসে থাকা, কথাবার্তাও সব শোনা যায়। যদিও এই ১০ সেকেন্ডে আসলে পুরো ঘটনা নিয়ে সিদ্ধান্তে আসা কঠিন।

ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, পরীমনি ও তার তিন সঙ্গী বসে আছেন একটি টেবিল ঘিরে। তাদের সামনে দাঁড়িয়ে কথা বলছেন নাসির উদ্দিন মাহমুদ।

ভিডিওটি দেখে ধারণা করা হচ্ছে এটি মেবাইলে ধারণ করা। এতে দেখা যায়, নাসির উদ্দিন দাঁড়িয়ে পরীমনিকে কিছু বলছেন। অন্যদিকে বাকি সবাই চুপ থাকলেও শোনা গেছে পরীমনির উচ্চকণ্ঠ।

বোট ক্লাবে পরীমনির ১০ সেকেন্ডের নতুন ক্লিপ
বোট ক্লাবে গিয়ে ধর্ষণ ও প্রাণনাশের মুখে পড়েছিলেন বলে সম্প্রতি অভিযোগ তোলেন পরীমনি। ছবি: নিউজবাংলা

ভিডিওর শুরুতেই পরীমনির কণ্ঠে উচ্চস্বরে ‘এই’ শব্দটি শোনা যায়। এরপর নাসির ইংরেজিতে কিছু বলেন। যেখানে ‘ওয়ার্নিং দিস’ শব্দটি স্পষ্ট।

এরপর নাসির আবার বলেন, ‘নো, আমি চলে আসছি, অমি প্লিজ।’ এ সময় অমি কোনো উত্তর দিচ্ছিলেন কি না তা স্পষ্ট নয়।

তবে নাসিরের কথা শেষ হতে না-হতেই পরীমনি হাত নাড়িয়ে বলে ওঠেন, ‘যা, যা, যা।’

এই কথা বলেই পরীমনি একটি গ্লাস মুখে তোলেন। সেই গ্লাসে কী ছিল তাও স্পষ্ট নয়।

ভিডিওতে থাকা নাসিরের শেষ কথাটি খুব স্পষ্ট। তিনি খুব জোর দিয়ে বলেছেন, ‘দিস ইস টু মাচ (এটা কিন্তু বেশি হচ্ছে)।’

এই ভিডিওর বিষয়ে পরীমনির কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি। গুলশানে অল কমিউনিটি ক্লাবে পরীমনির ভাঙচুরের অভিযোগ পাওয়ার পর থেকে তার ফোন বন্ধ রয়েছে।

ক্লাবের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এই ক্লাবে গত ৭ জুন পরীমনি তার কয়েকজন সঙ্গীকে নিয়ে গিয়েছিলেন। সেখানে মদ খাওয়ার পর ভাঙচুর করেছেন। পরে ৯৯৯ নম্বরে ফোন করে পুলিশকে ডেকে আনা হয়। এরপর পুলিশ করে সাধারণ ডায়েরি।

তবে ওই রাতে সংবাদ সম্মেলন করে পরীমনি এই অভিযোগ আনার পেছনে উদ্দেশ্য নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। বলেন, এই কথা সত্য হলে কেন এতদিন পর তা সামনে আনা হয়েছে।

নাসির উদ্দিন মাহমুদ এই ক্লাবেরও সদস্য। আর ক্লাব কর্তৃপক্ষ সেদিন পরীমনির সেখানে প্রবেশ ও বেরিয়ে যাওয়ার একটি ভিডিও প্রকাশ করেছে।

এই দুই ক্লাব নিয়ে আলোচনার মধ্যে বনানী ক্লাবেও রাতে গিয়ে পরীমনির অপ্রীতিকর আচরণের অভিযোগ এসেছে। এই অভিযোগ নিয়ে অবশ্য এই নায়িকা কোনো বক্তব্য দেননি।

বোট ক্লাবে পরীমনির ১০ সেকেন্ডের নতুন ক্লিপ

পরীমনি যে বর্ণনা দিয়েছিলেন সেই রাতের

১৪ জুন রাতে গণমাধ্যমকে সেই রাতের বর্ণনা দেন পরীমনি। যেখানে তিনি বলেন, ‘কাজের ব্যাপারে বোট ক্লাবে গিয়েছিলাম। অমি অনেক দিন থেকেই বলছিল একটা কাজ করতে হবে। কিন্তু সময়ের কারণে কাজের ব্যাপারে কথা বলতে পারছিলাম না। কিন্তু শেষ পর্যন্ত পরিচিত বলে কাজের জন্য কথা বলতে রাজি হই।

‘সেখানে আগে থেকে উপস্থিত ছিলেন চার থেকে পাঁচ ব্যক্তি। তারা বসতে বলে প্রথমে কফি ও পরে কোক খাওয়ার প্রস্তাব দেন।

‘কফি আসতে দেরি হচ্ছে বলে দেয়া হয় কোক। কিন্তু সেই কোকের স্বাদ ছিল সন্দেহজনক।

“ক্লাবের ভেতরে থাকা ‘মুরব্বি’ গোছের একজন নিজের নাম নাসির উদ্দিন মাহমুদ বলে জানান। কথাবার্তার একপর্যায়ে আমার মুখে মদের বোতল ঠেলে দেন। জিমিকে মারধর করেন ব্যাপকভাবে।”

নতুন প্রকাশ হওয়া দশ সেকেন্ডের এই ভিডিও দেখে মনে হয় যে, নাসির কিছু একটা করতে মানা করছেন পরীমনিসহ অন্যদের। কিন্তু পরীমনি সেটা শুনছেন না। যা কিনা নাসির গ্রেপ্তার হওয়ার দিন তার যে বক্তব্য, তার সঙ্গে মিলে যায়।

নাসির বলেছিলেন, ‘আমি যখন বের হচ্ছিলাম, তখন তারা ঢোকে। তারা কাউন্টার থেকে দামি মদ জোর করে নেয়ার চেষ্টা করছিল। আমি বাধা দিতে গেলে পরীমনি আমার ওপর উত্তেজিত হয়ে যায়। গালিগালাজ করে ও গ্লাস প্লেট ভাঙতে থাকে।’

বোট ক্লাবে পরীমনির ১০ সেকেন্ডের নতুন ক্লিপ
পরীমনির মামলায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে নাসির উদ্দিন মাহমুদকে। ছবি: নিউজবাংলা

নাসিরের বক্তব্য যা ছিল

বোট ক্লাবের সাবেক সভাপতি গ্রেপ্তার হওয়ার আগে সাংবাদিকদের কাছে সেই রাতের ভিন্ন একটি বর্ণনা দিয়েছেন।

তিনি বলেন, ‘আমাদের কাউন্টারে খুব দামি ড্রিঙ্কস ছিল, দামি বড় বড় ড্রিঙ্কস ছিল সেটা তারা (পরীমনি ও তার সঙ্গীরা) জোর করে নেয়ার চেষ্টা করেছিল।’

তিনি বলেন, ‘তারা তো নিতে পারে নাই, তারা তো ক্লাবের মেম্বার না। আমি জাস্ট তাদেরকে বাধা দিছি যে নেয়া যাবে না। নিতে হলে তোমাদের… দিতে হবে এটা বিক্রিযোগ্য না। বাই দিস টাইম আমাদের বার ক্লোসড। এটা দেয়া যাবে না।

‘এর পরই সে (পরীমনি) উত্তেজিত হয়ে যায়। উত্তেজিত হয়ে একটার পর গ্লাস প্লেট… সে আমাকে গালিগালাজ শুরু করে। আমাদের স্টাফরা তাকে থামানোর চেষ্টা করে।’

নাসির উদ্দিনের দাবি, তিনি পরীমনিকে আগে থেকে চিনতেন না। আর ঘটনার সময় তিনি তাকে থামাতে চেষ্টা করেন। এ সময় তিনি মারধরের শিকার হন।

তিনি বলেন, ‘তার (পরীমনির) সঙ্গে যে একটা ছেলে ছিল সে আমাকে চড়-থাপ্পড় দেয় ও গ্লাস ছুড়ে মারে। সেটি আমার গায়ে লাগে। এই অবস্থায় আমাদের সিকিউরিটিদের আমি নির্দেশ দেই, তখন সিকিউরিটিরা তাকে উঠিয়ে নিয়ে যায়। যখন সিকিউরিটিরা নিয়ে যায় বাই দিস টাইম সে অনেক ড্রিঙ্ক করে ফেলেছে এবং এটা আমাদের সিসি ক্যামেরায় দেখবেন যে, সে ড্রিঙ্ক করা অবস্থায় গাড়িতে উঠতে পারছে।’

আরও পড়ুন:
বিক্ষোভ’র টিজার প্রশংসিত, চিন্তা শান্তকে নিয়ে
ঈদে রুপালি পর্দায় নতুন ডিপজল, পুরনো শাকিব-সিয়াম
ঈদে আসছে ‘কসাই’, দেখা যাবে ২০ টাকায়

শেয়ার করুন

দুই বাংলাতেই কটাক্ষের শিকার হচ্ছি: মিথিলা

দুই বাংলাতেই কটাক্ষের শিকার হচ্ছি: মিথিলা

অভিনেত্রী ও উন্নয়নকর্মী রাফিয়াথ রশিদ মিথিলা। ছবি: সংগৃহীত

“আমি বাংলাদেশের সংস্কৃতিকে কলুষিত করেছি। আমি নাকি ‘চরিত্রহীন মা’। এই ‘অসভ্য’ মা ‘অসভ্য’ জাতির জন্ম দেবে। এসব হয়রানির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ হোক সমস্বরে।”

অনলাইনে কটাক্ষ বা সাইবার বুলিংয়ের শিকার হচ্ছেন দেশের নামকরা শিল্পীরা। যাদের মধ্যে অভিনেত্রীদেরই বাজে মন্তব্য বেশি করছেন নেটিজেনরা। দেশের অভিনেত্রী, উন্নয়নকর্মী রাফিয়াথ রশিদ মিথিলা শুধু দেশে নন, কলকাতাতেও অনলাইনে কটাক্ষের শিকার হচ্ছেন তিনি।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে এমন কথাই বলেছেন এই অভিনেত্রী।

মিথিলা বলেন, ‘আমাকে আর সৃজিতকে নিয়ে বা আমার বিয়ে নিয়ে দুদিকেই অনলাইনে অসংখ্য কটাক্ষের শিকার হচ্ছি। তবে সাম্প্রতিক সময়ে অরুচিকর কথা বেড়েছে। আমাকে অসভ্য বলে মানুষ নিজে যে অসভ্যতার পরিচয় দিচ্ছে, সেটা একেবারেই স্বাস্থ্যকর নয়।’

তিনি আরও বলেন, ‘বাংলাদেশে তো মানুষের সবচেয়ে বেশি রাগ আমার ওপর। মানুষ প্রশ্ন করছেন মেয়ে হয়ে কেন আমি বিবাহবিচ্ছেদ করলাম? মেয়েদের নাকি এসব করতে নেই। তাহসানের ওপর কিন্তু মানুষের রাগ নেই। রাগ যত আমার ওপর। আমি কেন বিয়ে করলাম? আর সৃজিত তো ইসলাম ধর্মীও নয়।

“আমি বাংলাদেশের সংস্কৃতিকে কলুষিত করেছি। আমি নাকি ‘চরিত্রহীন মা’। এই ‘অসভ্য’ মা ‘অসভ্য’ জাতির জন্ম দেবে। এসব হয়রানির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ হোক সমস্বরে।”

দুই বাংলাতেই কটাক্ষের শিকার হচ্ছি: মিথিলা
অভিনেত্রী ও উন্নয়নকর্মী রাফিয়াথ রশিদ মিথিলা। ছবি: সংগৃহীত

তাহসান প্রসঙ্গেও কথা বলেন মিথিলা। তিনি বলেন, “তাহসান আমার প্রাক্তন স্বামী। আমরা আজও বন্ধু। আমাদের প্রতিদিন কথা হয়। মানুষকে বুঝতে হবে আমরা দুজনে এক বাচ্চার বাবা-মা। আয়রা আমায় বলতে পারে, ‘মা আমি বাবার কাছে যাব’।”

দুই বাংলাতেই কটাক্ষের শিকার হচ্ছি: মিথিলা
তাহসান ও মেয়ে আয়রার সঙ্গে মিথিলা। ছবি: সংগ্রহীত

করোনার কারণে ৩ মাস হলো সৃজিতের সঙ্গে দেখা নেই মিথিলার। ডিসেম্বরে তাদের বিবাহবার্ষিকী।

এ প্রসঙ্গে মিথিলা বলেন, ‘বিয়ের পরে আমি আর সৃজিত ৭ থেকে ৮ মাস একসঙ্গে থেকেছি। আবার আমি কাজে ঢাকায় চলে এসেছি। আমরা দুজনেই অনেক ব্যস্ত। তারপরে এই করোনা। কলকাতায় আয়রার স্কুল খুলে যাচ্ছে। অনলাইনে ক্লাস সম্ভব হলেও ওর নতুন বইপত্র সব কলকাতায় পড়ে আছে। এই মহামারির নানা নিয়ম পেরিয়ে আমরা কীভাবে একসঙ্গে থাকব, সেটা নিয়ে রোজ ভাবি। আলোচনা করি।’

দুই বাংলাতেই কটাক্ষের শিকার হচ্ছি: মিথিলা
সৃজিত ও মিথিলা। ছবি: সংগৃহীত

দেশের নাটক, সিনেমা, ওয়েব সিরিজে ব্যস্ত মিথিলা। কাজের প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘মন ভালো রাখতে কাজ করে যাওয়া ছাড়া আর কিছু করার নেই। এর সঙ্গে আমার অফিশিয়াল কাজ তো চলছেই।

‘এমন করতে হচ্ছে যে, শুটিং করতে করতে অফিসের কাজ করি। আবার অফিস ও মেয়ে আয়রাকে মানুষ করতে করতে ছবির সংলাপ মুখস্থ করি।’

সৃজিতের সিনেমায় কাজ করবেন কি না, জানতে চাইলে মিথিলা বলেন, ‘সৃজিত বউকে কোনো দিন ওর ছবিতে নেবে না। সৃজিতকে চিনি আমি।’

আরও পড়ুন:
বিক্ষোভ’র টিজার প্রশংসিত, চিন্তা শান্তকে নিয়ে
ঈদে রুপালি পর্দায় নতুন ডিপজল, পুরনো শাকিব-সিয়াম
ঈদে আসছে ‘কসাই’, দেখা যাবে ২০ টাকায়

শেয়ার করুন