ইংল্যান্ডের স্কুলসংগীতের পাঠ্যক্রমে ‘মুন্নি বদনাম হুয়ি’

player
ইংল্যান্ডের স্কুলসংগীতের পাঠ্যক্রমে ‘মুন্নি বদনাম হুয়ি’

২০১০ সালে বলিউডের জনপ্রিয় সিনেমা ছিল ‘দাবাং’। এটিতে প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেছেন বলিউডের সুপারস্টার সালমান খান। সিনেমাটির সঙ্গে সঙ্গে এটির গানগুলোও পায় ব্যাপক জনপ্রিয়তা। গানটির দৃশ্যায়নে ছিলেন মালাইকা অরোরা।

ইংল্যান্ডের ডিপার্টমেন্ট ফর এডুকেশনের (ডিএফই) নতুন সংগীত পাঠ্যক্রমে অন্তর্ভুক্ত হয়েছে বলিউডের জনপ্রিয় আইটেম সং ‘মুন্নি বদনাম হুয়ি’।

ভারতীয় সংগীতের যে বৈচিত্র্যময়তা সেটা বোঝাতেই বেশ কয়েকটি গানের সঙ্গে ‘দাবাং’ সিনেমার এই গানটি অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

এ ছাড়া আরও অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে কিশোরী আমোনকারের ‘সহেলি রে’, অনুষ্কা শঙ্করের ‘ইন্ডিয়ান সামার’, এআর রাহমানের ‘জয় হো’।

সংগীতের উল্লেখযোগ্য অংশ হিসেবে এই গানগুলো পাঠ্যক্রমের অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। ভারতীয় সংবাদ সংস্থা পিটিআইর বরাদ দিয়ে এ তথ্য জানিয়েছে সেখানকার স্থানীয় গণমাধ্যম।

বিশ শতকে ভারতীয় শাস্ত্রীয় সংগীতের অন্যতম প্রধান কণ্ঠশিল্পী ছিলেন কিশোরী আমনকার।

তিনি বলেছিলেন, ‘আমার কাছে, এটি (সংগীত) আধ্যাত্মিকতার সঙ্গে কথোপকথন, যা এই বিশ্ব চরাচরের সঙ্গে সূত্র স্থাপনে সাহায্য করে।’

রবি শঙ্কর এবং অনুষ্কা শঙ্করের যন্ত্রসংগীতও একই রকম গুরুত্বপূর্ণ বলে উল্লেখ করা হয়েছে এই স্কুলের নির্দেশিকায়।

ইংল্যান্ডের স্কুলসংগীতের পাঠ্যক্রমে ‘মুন্নি বদনাম হুয়ি’

২০১০ সালে বলিউডের জনপ্রিয় সিনেমা ছিল ‘দাবাং’। এটিতে প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেছেন বলিউডের সুপারস্টার সালমান খান। সিনেমাটির সঙ্গে সঙ্গে এটির গানগুলোও পায় ব্যাপক জনপ্রিয়তা। গানটির দৃশ্যায়নে ছিলেন মালাইকা অরোরা।

এই গানের অন্তর্ভুক্তি কেন করা হলো সেই সম্পর্কে নির্দেশিকায় বলা হয়েছে, ‘বলিউডের সিনেমায় আইটেম গানের গুরুত্ব আছে।’

নির্দেশিকায় আরও বলা হয়েছে সংগীতের দ্রুত লয়, মনভোলানো দৃশ্যপট ও লাস্যময়ী নাচের জন্য এই গানটি দর্শকদের মনে গেঁথে গিয়েছে।

এদিকে আন্তর্জাতিক মহলে বলিউডি গান বোঝাতে ‘মুন্নি বদনাম হুয়ি’-কে বেছে নেয়ায় বেজায় উচ্ছ্বসিত মালাইকা অরোরা।

শেয়ার করুন

মন্তব্য

মা-বাবা হলেন প্রিয়াঙ্কা-নিক

মা-বাবা হলেন প্রিয়াঙ্কা-নিক

মা-বাবা হয়েছেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়া-নিক জোনাস। ছবি: সংগ্রহীত

সন্তানের জন্য সবার কাছে আশীর্বাদ চেয়েছেন তারকা দম্পতি। সেই সঙ্গে অনুরোধ করেছেন, আপাতত তাদের ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে বাড়তি কৌতূহল দেখানো যেন বন্ধ করেন সবাই।

বিচ্ছেদ নিয়ে কত কথাই না হলো কিছুদিন আগে। প্রিয়াঙ্কা চোপড়া আর নিকের বিচ্ছেদের জল্পনায় পাকাপাকি দাড়ি টানলেন দম্পতি। নিন্দুকদের মুখ বন্ধ করে খুশির খবর দিলেন ‘নিকিয়াঙ্কা’।

মা-বাবা হয়েছেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়া-নিক জোনাস। শুক্রবার মধ্যরাতে নিজের ইনস্টাগ্রামে মা হওয়ার কথা জানান অভিনেত্রী।

জানিয়েছেন, সারোগেসির মাধ্যমে সন্তান এসেছে নিকিয়াঙ্কার কোলে। সারোগেসি হলো অন্যের গর্ভে সন্তান বড় করা এবং জন্ম দেয়া। অর্থাৎ প্রিয়াঙ্কা-নিকের সন্তান অন্য কোনো নারীর গর্ভে বড় হয়েছে এবং জন্ম দিয়েছে।

সন্তানের জন্য সবার কাছে আশীর্বাদ চেয়েছেন তারকা দম্পতি। একই সঙ্গে অনুরোধ করেছেন, আপাতত তাদের ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে বাড়তি কৌতূহল দেখানো যেন বন্ধ করেন সবাই।

প্রিয়াঙ্কার নামের পাশ থেকে জোনাস পদবি তুলে দিতেই জল্পনায় মেতে উঠেছিল আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম। ছড়িয়েছিল নিক-প্রিয়াঙ্কার বিচ্ছেদের গুঞ্জনও। তার মধ্যেই মাতৃত্বের ইঙ্গিত দিয়েছেন অভিনেত্রী, কিন্তু কেউ বুঝতে পারেনি।

গত বছর বিয়ের তিন বছর উদযাপন করেছেন তারকা দম্পতি। নিকের চেয়ে ১০ বছরের বড় প্রিয়াঙ্কা; প্রণয় থেকে পরিণয়, প্রতি ক্ষেত্রেই ছিল সমালোচনা। সব কিছু ছাপিয়ে নিকিয়াঙ্কা যেন আবারও প্রমাণ করে দিলেন, বয়স নিছকই সংখ্যামাত্র। চাইলে যে কোনো বয়সেই সুখটা উপভোগ করা যায়।

শেয়ার করুন

হয়ে গেল পরী-রাজের হলুদ, বিয়ে আজ

হয়ে গেল পরী-রাজের হলুদ, বিয়ে আজ

হলুদ শাড়িতে পরীমনি এবং সাদা-হলুদ পায়জামা-পাঞ্জাবিতে সেজেছেন শরিফুল ইসলাম রাজ। ছবি: নিউজবাংলা

পরিচালক গিয়াসউদ্দিন সেলিম বলেন, ‘এখন আসলে কিছু আনুষ্ঠানিকতা হচ্ছে। তখন (১৭ অক্টোবর) তো কোনো আয়োজন করা হয়নি। তাই কাছের মানুষ এবং পরিবারের সদস্যদের নিয়ে এ আয়োজন।’ এরই মধ্যে হলুদের কিছু ছবি প্রকাশ পেয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

শুক্রবার রাতে হলুদ সন্ধ্যা হয়ে গেল অভিনয়শিল্পী দম্পতি পরীমনি ও শরিফুল ইসলাম রাজের। শনিবার হবে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা।

নিউজবাংলাকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন পরিচালক গিয়াসউদ্দিন সেলিম।

পাঠক, হয়তো ভাবছেন, এখন আবার হলুদ-বিয়ে কিসের! সবাইকে চমকে দিয়ে সম্প্রতি মা হওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন পরীমনি। বাবার নামে বলেছেন শরিফুল ইসলাম রাজের নাম। রাজও জানিয়েছেন, তাদের বিয়ে হয়েছে ১৭ অক্টোবর। তাহলে এখন আবার কিসের হলুদ-বিয়ে!

গিয়াসউদ্দিন সেলিম বলেন, ‘এখন আসলে কিছু আনুষ্ঠানিকতা হচ্ছে। তখন (১৭ অক্টোবর) তো কোনো আয়োজন করা হয়নি। তাই কাছের মানুষ এবং পরিবারের সদস্যদের নিয়ে এ আয়োজন।’

এরই মধ্যে হলুদের কিছু ছবি প্রকাশ পেয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। হলুদ শাড়িতে পরীমনি এবং সাদা-হলুদ পায়জামা-পাঞ্জাবিতে সেজেছিলেন রাজ। হলুদ ফুলে সাজানো হয়েছিল ঘরের দেয়াল।

আয়োজনে আমন্ত্রিত ছিলেন নির্মাতা গিয়াসউদ্দিন সেলিম, চয়নিকা চৌধুরী, রেদওয়ান রনি। কিছু অপরিচিত মুখও দেখা গেছে ফেসবুকে প্রকাশ পাওয়া ছবিতে। ধারণা করা হচ্ছে তারাই হয়তো পরিবারের সদস্য। এ ব্যাপারে তেমন কিছু বলতে চাননি সেলিম।

তিনি বলেছেন, ‘এ আয়োজনের মাধ্যমে পরী-রাজের পরিবারের সদস্যদের দেখা হওয়ার সুযোগ হয়েছে।’

সেলিমের পরিচালনায় গুণিন ওয়েব ফিল্মে প্রথমবার এক সঙ্গে কাজ করেন রাজ-পরী। পরী শিগগিরই মা নামের একটি সিনেমার শুটিংয়ে অংশ নেবেন।

শেয়ার করুন

সরকারি প্রহরী নিয়ে জমি দখলে ইউপি চেয়ারম্যান!

সরকারি প্রহরী নিয়ে জমি দখলে ইউপি চেয়ারম্যান!

সরকারি প্রহরী নিয়ে করা হচ্ছে ভবন নির্মাণের কাজ। ছবি: নিউজবাংলা

বালিয়াডাঙ্গি উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা জুবায়ের হোসেন বলেন, ‘এ বিষয়ে একটি অভিযোগ আমার কাছে এসেছে। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গী উপজেলায় সরকারি প্রহরীকে নিয়ে অন্যের জমি দখলের অভিযোগ উঠেছে নবনির্বাচিত এক ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে।

অভিযুক্ত সোহেল রানা উপজেলার দুওসুও ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হিসেবে সম্প্রতি শপথ গ্রহণ করেন। নির্বাচনে বিরোধী সমর্থকদের দমন নিপীড়নের জন্যই তিনি এ কাজ করেছেন বলে অভিযোগ ভুক্তভোগীদের।

দখল করে যে স্থানে ভবন নির্মাণ করা হচ্ছে, সে জমির কিছু কাগজপত্র দেখিয়ে এর মালিকানা দাবি করছেন মজিবর রহমান নামের সাবেক এক ইউপি সদস্য। জমি দখলের বিষয়ে তিনি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর একটি অভিযোগপত্র দিয়েছেন।

শুক্রবার দুপুরে দুওসুও ইউনিয়নের সমির উদ্দিন কলেজের সামনের রাস্তার পাশের ওই জমিতে দেখা যায়, ইউনিয়নে কর্মরত ৯ জন প্রহরী পাহারা বসিয়ে একটি ভবন নির্মাণের কাজ করাচ্ছেন চেয়ারম্যান সোহেল।

কথা হয় উপস্থিত প্রহরী শরিফুল ইসলামের সঙ্গে। ভবন নির্মাণের স্থানে পাহারা দেয়ায় কারণ জানতে চাইলে তিনি চেয়ারম্যানের আদেশের একটি কাগজ দেখান।

তিনি বলেন, ‘গত চার দিন ধরে আমরা এই ভবন নির্মাণের কাজ দেখাশোনা করছি। ইউনিয়নের সব প্রহরীকে এখানে থাকার আদেশ দিয়েছেন চেয়ারম্যান। কেউ বাধা দিতে আসলে আমাদেরকে প্রতিহত করার নির্দেশনা দেয়া আছে।’

চেয়ারম্যানের স্বাক্ষরিত কাগজে লেখা রয়েছে, খতিয়ান নম্বর ২৮৪, দাগ নম্বর ৮৭৮৮, ১৩ শতক জমির মধ্যে ২ শতক জমিতে ঘর নির্মাণের কাজে ইউনিয়নের সব গ্রাম পুলিশকে আইন শৃঙ্খলা ও নিরাপত্তার দায়িত্ব পালনের জন্যে বলা হলো।

ইউনিয়নের সব প্রহরী এনে এভাবে ব্যক্তিগত কাজ করার ব্যাপারটি বেআইনি বলে মনে করেন দুওসুও ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম।

জমির মালিকানা দাবি করা মজিবর রহমান বলেন, ‘আমি এবার ইউপি নির্বাচনে সোহেলের বিরোধী প্রার্থী আনারস মার্কার মোকলেসুরের নির্বাচন করেছিলাম। তখন থেকেই তিনি আমার ওপর ক্ষিপ্ত। নির্বাচনে জেতার পরেই আমাকে হুমকি দিয়েছিলেন। এখন শপথ গ্রহণের পরপরই আমার জমি দখলে ব্যস্ত হয়ে গেছেন নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান।’

মজিবরের অভিযোগের বিষয়ে চেয়ারম্যান সোহেল বলেন, ‘জমিটা আমি নিজের জন্যে দখল করছি না। আমার ভাগনি জামাই সৈয়দ আলী এই জমির মালিক। এক পক্ষের লিখিত অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে বিষয়টি নিয়ে মজিবরের সঙ্গে আলোচনায় বসতে একটি নোটিশ পাঠিয়েছিলাম। কিন্তু তিনি আমার নোটিশ গ্রহণ করেননি। বরং তিনি বলেছেন, আমাকে নাকি চেয়ারম্যান হিসেবে মানেন না। তাই সৈয়দ আলীর হক বুঝিয়ে দিতে আমি তাকে জমি দখল করে দিচ্ছি।’

এদিকে চেয়াম্যানের পাঠানো কোন নোটিশ পাননি বলে জানান সাবেক ইউপি সদস্য ও জমির মালিকানা দাবি করা মজিবর রহমান।

ইউনিয়ন পরিষদ ও পুরো এলাকা ফাঁকা করে প্রহরীদের ব্যবহার করা নিয়ে প্রশ্ন করলে চেয়ারম্যান সোহেল বলেন, ‘আমি মনে করেছি সেখানে আইন শৃঙ্খলার অবনতি হতে পারে। তাই পাহারা বসানো হয়েছে।’

বিষয়টি নিয়ে কথা হয় জমির মালিক দাবিদার চেয়ারম্যান সোহেলের ভাগনি জামাই সৈয়দ আলীর সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘ক্রয় সূত্রে এই জমির মালিক আমি। কিন্তু মজিবর রহমান আমার জমিতেই আমাকে কাজ করতে দিচ্ছিলেন না। চেয়ারম্যান আমার আত্মীয়। সেই সঙ্গে আমি তার ইউনিয়নের একজন নাগরিক। তাই আমি তার কাছে সাহায্য চেয়েছি।’

এ বিষয়ে বালিয়াডাঙ্গি উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা জুবায়ের হোসেন বলেন, ‘এ বিষয়ে একটি অভিযোগ আমার কাছে এসেছে। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

শেয়ার করুন

দেশে কাঁচা পাটের দাম নির্ধারণ

দেশে কাঁচা পাটের দাম নির্ধারণ

অসাধু ব্যবসায়ীদের দৌরাত্ম্য বন্ধ করতে কাঁচা পাটের মণ প্রতি দাম নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে। ফাইল ছবি

বিজেএমএ মহাসচিব এম বারিক খান বলেন, ‘প্রতি বছরই কাঁচা পাট সংগ্রহ নিয়ে জটিলতার মধ্যে পড়তে হয়। কিছু অসাধু ব্যবসায়ীরা কম দামে পাট কিনে তা মজুদ করে, পরবর্তীতে সেগুলো বেশি দামে বিক্রি করে। যার ফলে গত বছর ১৮শ টাকার কাঁচা পাট সাত হাজার টাকায়ও কিনতে হয়েছে।’

প্রথমবারের মতো কাঁচা পাটের দাম নির্ধারণ করে দিয়েছে পাট ব্যবসার সঙ্গে সম্পৃক্ত ব্যবসায়ী সংগঠনগুলো। প্রতিবছরই কাঁচা পাট সংগ্রহ নিয়ে সৃষ্ট জটিলতা নিরসনে এবছর উচ্চসাঁট পাটের প্রতি মণ তিন হাজার টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

সম্প্রতি বাংলাদেশ জুট মিলস অ্যাসোসিয়েশন (বিজেএমএ), বাংলাদেশ জুট স্পিনার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিজেএমএ) ও বাংলাদেশ জুট অ্যাসোসিয়েশনের (বিজেএ) নির্বাহী বোর্ডের যৌথ সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

যদিও পাট আইনে এভাবে কাঁচা পাটের দাম নির্ধারণ করার সুযোগ নেই। ফলে ব্যবসায়ীদের পক্ষ থেকে প্রতি বছরই কাঁচা পাটের দাম নির্ধারণের দাবি জানানো হলেও বাস্তবে তা করা হয় না।

তবে পাট আইনে বলা আছে, ‘সরকার, আদেশ দ্বারা বিভিন্ন শ্রেণির পাট বা পাটজাত পণ্যের সর্বনিম্ন এবং সর্বোচ্চ মূল্য নির্ধারণ করতে পারবে, এবং সব এলাকা বা ব্যক্তি বা গোষ্ঠী বা নির্দিষ্ট কোনও এলাকা বা গোষ্ঠীর ক্ষেত্রে উক্তরূপে মূল্য নির্ধারণ করা যাবে। এবং এই আদেশ দ্বারা নির্ধারিত সর্বনিম্ন মূল্যের কম বা সর্বোচ্চ মূল্যের বেশি দামে কোন ব্যক্তি পাট বা পাটজাত পণ্য ক্রয়-বিক্রয় করতে পারবে না।’

এ বিষয়ে বাংলাদেশ জুট মিলস অ্যাসোসিয়েশন (বিজেএমএ) মহাসচিব এম বারিক খান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘প্রতি বছরই কাঁচা পাট সংগ্রহ নিয়ে জটিলতার মধ্যে পড়তে হয়। দেশে যে পরিমাণ পাট উৎপাদন হয় তার প্রায় ৮০ শতাংশ দেশীয় পাটকলগুলো ব্যবহার করে। কিন্ত বাজারের কিছু অসাধু ব্যবসায়ীরা কম দামে পাট কিনে তা মজুদ করে, পরবর্তীতে সেগুলো বেশি দামে বিক্রি করে। যার ফলে গত বছর ১৮শ টাকার কাঁচা পাট সাত হাজার টাকায়ও কিনতে হয়েছে।’

তিনি বলেন, অসাধু ব্যবসায়ীদের দৌরাত্ম্য বন্ধ করতে আর কৃষকরা যাতে ন্যায্য দাম পায় সেজন্য এবছর উচ্চাসাঁট কাঁচা পাটের মণ প্রতি দাম নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে। পাট ব্যবসার সঙ্গে সরাসরি সম্পৃক্ত ব্যবসায়ী ও সংগঠনের নেতারা একত্রিত হয়ে এই দাম নির্ধারণ করেছে। আশা করি এ দামেই এ বছর পাট কেনা সম্ভব হবে।’

এ সংক্রান্ত একটি চিঠিতে বলা হয়েছে, এ খাতের অসাধু মধ্যসত্বভোগী ব্যবসায়ীরা অবৈধভাবে কাঁচাপাট মজুদ করে বাজারে কৃত্রিম সংকট তৈরি করে অস্বাভাবিক দামে বিক্রি করে। এতে উৎপাদিত পন্যের দাম বেড়ে যাওয়ায় রপ্তানি বাজার ক্রমান্বয়ে সংকুচিত হচ্ছে, বিদেশী ক্রেতারা বিকল্প পণ্যের দিকে ঝুঁকছেন।

চিঠিতে আরও বলা হয়েছে, এ শিল্পের সঙ্গে জড়িত চার থেকে পাঁচ কোটি কৃষক, শ্রমিকের জীবন আজ হুমকির সম্মুখীন। এ অবস্থা চলতে থাকলে অদূর ভবিষ্যতে দেশের পাটশিল্প ধ্বংস হয়ে যাবে বলে আশংকা প্রকাশ করা হয়।

এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বরাবরও চিঠি দেয়া হয়েছে বলেও উল্লেখ করা হয়েছে। নির্ধারিত মূল্য ২০ জানুয়ারি থেকে কার্যকর হয়েছে।

করোনা মহামারির মধ্যেও দেশের রপ্তানি বাণিজ্যে সুবাতাস বইছে। একের পর এক নতুন রেকর্ড সৃষ্টি করে সবাইকে অবাক করে দিচ্ছেন রপ্তানিকারকরা।

অতীতের সব রেকর্ড ছাপিয়ে সদ্যসমাপ্ত ডিসেম্বরে রপ্তানি আয় গিয়ে ঠেকেছে অর্ধবিলিয়ন (৫০০ কোটি) ডলারে। বর্তমান বিনিময় হারে (৮৫ টাকা ৮০ পয়সা) টাকার অঙ্কে এই অর্থের পরিমাণ প্রায় ৪৩ হাজার কোটি টাকা। প্রবৃদ্ধি হয়েছে প্রায় ৫০ শতাংশ। লক্ষ্যের চেয়ে বেশি এসেছে ২৫ দশমিক ৪৫ শতাংশ।

এই উল্লম্ফনে রপ্তানি আয়ের প্রধান খাত তৈরি পোশাক, চামড়া, হোম টেক্সটাইল, হিমায়িত মাছ, কৃষিপণ্যসহ প্রায় সব খাতেই অভাবনীয় সাফল্য এসেছে। ব্যতিক্রম শুধু ছিল পাট খাত।

২০২০-২১ অর্থবছরে অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে ১১৬ কোটি ১৫ লাখ (১.১৬ বিলিয়ন) ডলারের পাট ও পাটজাত পণ্য রপ্তানি করে রপ্তানি তালিকায় চামড়াকে পেছনে ফেলে দ্বিতীয় স্থানে উঠে এসেছিল এই খাত।

সেই সুদিন ফুরিয়ে গেছে ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রথমার্ধে। অর্থবছরের জুলাই-ডিসেম্বরে পাট ও পাটজাত পণ্য রপ্তানি থেকে ৫৯ কোটি ডলার আয় করেছে বাংলাদেশ। গত অর্থবছরের একই সময়ে আয় হয়েছিল ৬৬ কোটি ৮১ লাখ ডলার। এই ছয় মাসের লক্ষ্যমাত্রা ধরা ছিল ৬৯ কোটি ৮০ লাখ ডলার।

এই হিসাবেই জুলাই-ডিসেম্বর সময়ে গত অর্থবছরের একই সময়ের চেয়ে পাট খাতে রপ্তানি আয় কমেছে ১১ দশমিক ৬৮ শতাংশ। লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে কমেছে ১৫ দশমিক ৪৭ শতাংশ।

এদিকে, লোকসানের চাপে বাংলাদেশ পাটকল করপোরেশনের (বিজেএমসি) ২৫টি পাটকল ২০২০ সালের ১ জুলাই বন্ধ করে দেয় সরকার। সে কারণে রাষ্ট্রায়ত্ত কোনো পাটকল এখন উৎপাদনে নেই; সরকারিভাবে পাট ও পাটজাত পণ্য এখন আর রপ্তানি হয় না।

শেয়ার করুন

নিখোঁজের ৮ দিন পর মিলল মরদেহ

নিখোঁজের ৮ দিন পর মিলল মরদেহ

ফাইল ছবি/ নিউজবাংলা

৮ দিন আগে দুলাভাইয়ের ভ্যান নিয়ে বের হন মহসীন। তারপর থেকে তাকে পাওয়া যায়নি। শুক্রবার একটি ক্ষেতে পাওয়া যায় তার মরদেহ। দুলাভাইয়ের ধারণা, ভ্যান ছিনতাইয়ের জন্য মহসীনকে হত্যা করা হয়েছে।

নওগাঁর মহাদেবপুরের একটি ক্ষেত থেকে যুবকের রক্তাক্ত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। মরদেহটি উপজেলার আতুড়া গ্ৰামের মহসিন আলীর বলে শনাক্ত করেছেন স্বজনরা। তারা জানান, মহসিন ৮ দিন ধরে নিখোঁজ ছিলেন।

উপজেলার মহিষবাথান মোড়ে একটি হলুদের ক্ষেতে শুক্রবার রাতে পাওয়া যায় মরদেহটি।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন, মহাদেবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-তদন্ত) আবুল কালাম আজাদ।

তিনি জানান, ওই ক্ষেতে মরদেহ পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয়রা। পুলিশ গিয়ে রাত ৯টার দিকে সেটি উদ্ধার করে। খবর পেয়ে সেখানে গিয়ে মরদেহ শনাক্ত করেন মহসিনের স্বজনরা।

মহসীনের ভগ্নিপতি ভ্যানচালক মইনুল ইসলাম বলেন, ‘গত ১৩ জানুয়ারি দুপুরে মহসীনের ফোনে একটা কল আসে। তাকে আমার চার্জার ভ্যানটি নিয়ে যেতে বলা হয়... কিছুক্ষণ পর আমার ভ্যান নিয়ে সে বের হয়।

‘সেদিন রাত সাড়ে ৮টার দিকে তার সঙ্গে যোগাযোগ হয়। সে বলে সে পত্নীতলা থানার নজিপুর বাজারে আছে। পরে রাত ৯ টার দিকে তাকে কল দেই। ফোন তখন থেকে বন্ধ পাওয়া যায়। পরদিন থানায় আমরা একটি জিডি করেছিলাম। আজকে ক্ষেতে যে লাশ পাওয়া গেছে সেটির শরীর, গঠন ও পোশাক দেখে তা মহসীনের বলে আমরা নিশ্চিত করেছি।’

মইনুলের ধারণা, মহসীনকে হত্যা করে ভ্যান ছিনতাই করা হয়েছে।

মহাদেবপুর থানার ওসি আবুল কালাম জানান, মরদেহের শরীরে আঘাতের বেশকিছু চিহ্ন আছে। ঘটনাস্থল থেকে বিভিন্ন আলামত জব্দ করা হয়েছে। মহসীনের পরিবার মামলা করলে পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শেয়ার করুন

ট্রান্সজেন্ডার নারীকে হত্যাচেষ্টার অভিযোগে মামলা

ট্রান্সজেন্ডার নারীকে হত্যাচেষ্টার অভিযোগে মামলা

শুক্রবার রাজধানীর ভাটারা থানায় ভুক্তভোগীর দায়ের করা মামলায় এমন অভিযোগ করা হয়েছে। এ সময় তার মোবাইলসহ মূল্যবান জিনিস ছিনিয়ে নেয়া হয়েছে বলেও জানানো হয়েছে।

রাজধানীর বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার এক বাসায় ট্রান্সজেন্ডার এক নারীকে নির্যাতন ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগ উঠেছে এক নারীসহ তিনজনের বিরুদ্ধে। অভিযুক্ত ওই নারী এই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

শুক্রবার রাজধানীর ভাটারা থানায় ভুক্তভোগীর দায়ের করা মামলায় এমন অভিযোগ করা হয়েছে। এ সময় তার মোবাইলসহ মূল্যবান জিনিস ছিনিয়ে নেয়া হয়েছে বলেও জানিয়েছেন তিনি। মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ভাটারা থানার ওসি সাজেদুর রহমান।

তিনি বলেন, ‘মামলাটি আজই (শুক্রবার) হয়েছে। তদন্তে অভিযুক্তদের সম্পৃক্ততা পাওয়া গেলে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

মামলার আসামিদের দু’জনের নাম জানা গেছে। তারা হলেন রিশু ও সাইমা নিরা। অপরজন অজ্ঞাত।

মামলা সূত্রে জানা যায়, ভুক্তভোগী ট্রান্সজেন্ডার নারী একজন মেকাপ আর্টিস্ট। সে সূত্রে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ইনস্টাগ্রামে এক যুবকের সঙ্গে পরিচয় হয় তার। ১০ জানুয়ারি বিকেলে ওই যুবকের সঙ্গে নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি সংলগ্ন একটি রেস্টুরেন্টের সামনে তার দেখা হয়। ওই যুবক কথার এক পর্যায়ে জানান, তার স্ত্রী ওই ট্রান্সজেন্ডার নারীর ভক্ত। স্ত্রীকে সারপ্রাইজ দেয়ার জন্য তাকে তার বাসায় যাওয়ার অনুরোধ করেন।

এজাহারে ভুক্তভোগী জানান, তিনি ওই যুবকের কথা বিশ্বাস করে বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার সি ব্লকে ৫ নম্বর সড়কের এক বাসার দ্বিতীয় তলার ফ্ল্যাটে যান। সেখানে যাওয়ার পর তিনি এক নারী ও আরেকজন পুরুষকে দেখতে পান।

ওই তিনজন ভুক্তভোগীকে বিবস্ত্র করে ভিডিও ধারণ করে। এতে বাধা দিলে তিনজন তাকে মারধর শুরু করে এবং বলতে থাকে এই ভিডিও তারা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেবে। এ সময় তিনজন নিজেদেরকে আইনের লোক পরিচয় দেয়। তাদের কাছে অস্ত্র ও ওয়াকিটকি ছিল বলে জানান তিনি।

মামলায় আরো অভিযোগ করা হয়, ভুক্তভোগীর কাছে থাকা মোবাইল ফোন, সোনার চেইন, নগদ টাকা ছিনিয়ে নেয়া হয়। এরপর তার কাছে এক লাখ টাকা দাবি করে বলা হয়, না দিলে মেরে পূর্বাচলে ফেলে দেয়া হবে।

পরবর্তীতে প্রাণ ভিক্ষা চাইলে তাকে থানায় নিয়ে যাবে বলে ঢাকার বিভিন্ন রাস্তায় ঘুরিয়ে রাত ৮টার দিকে রামপুরা এলাকায় একটি হাসপাতালের সামনে ফেলে যায়।

এদিকে ট্রান্সজেন্ডার ওই অভিযোগকে মিথ্যা ও বানোয়াট বলে দাবি করছেন সংশ্লিষ্ট ফ্ল্যাটের অভিযুক্ত নারী। একটি রেডিওতে আরজে হিসেবে কাজ করেছেন দাবি করে তিনি বলেন, ‘আমার সঙ্গে তার কখনও দেখা হয়নি। আমাকে উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে ফাঁসানো হচ্ছে।’

কোনো পরিচয় না থাকলে কেন তাকে ফাঁসানো হচ্ছে- এমন প্রশ্নে ওই নারী বলেন, ‘আমার কাছ থেকে টাকা আদায় করার জন্য এমনটি করতে পারে। আর ওই ট্রান্সজেন্ডার যে মিথ্যাচার করছে, তার সব প্রমাণসহ আমার ফেসবুকে পোস্ট দেব। মামলার তদন্ত কর্মকর্তাকেও জানাব।’

শেয়ার করুন

মিলারের আবেগভরা বিদায়ী কথন

মিলারের আবেগভরা বিদায়ী কথন

যুক্তরাষ্ট্রের বিদায়ী রাষ্ট্রদূত রবার্ট আর্ল মিলার বলেন, এই মহান দেশের এত মানুষের উষ্ণতা, ভালোবাসা, আন্তরিকতা এবং উদারতা অনুভব করতে পেরে নিজেকে একজন অনন্য বাংলাদেশি বলে মনে হচ্ছে। ছবি: যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস

শুক্রবার বিকেলের ফ্লাইটে দেশের পথে উড়াল দেয়া রবার্ট আর্ল মিলারের এক আবেগী কথন প্রকাশ করেছে ঢাকার যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাস। যার পরতে পরতে রয়েছে গত তিন বছর বাংলাদেশে তার অবস্থানের স্মৃতি আর অভিজ্ঞতা।

তিন বছরের কূটনৈতিক মিশন শেষে নিজ দেশে ফেরত গেছেন ঢাকায় নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত রবার্ট আর্ল মিলার। ৩৫ বছরের কূটনৈতিক ক্যারিয়ারে এটা ছিল তার শেষ সরকারি মিশন। এরপর অবসর জীবন কাটাবেন তিনি।

শুক্রবার বিকেলের ফ্লাইটে দেশের পথে উড়াল দেয়া মিলারের এক আবেগী কথন প্রকাশ করেছে ঢাকার যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাস। যার পরতে পরতে রয়েছে গত তিন বছর বাংলাদেশে তার অবস্থানের স্মৃতি আর অভিজ্ঞতা।

নিউজবাংলার পাঠকদের জন্য তা হুবহু তুলে ধরা হলো-

আমাকে যদি বাংলাদেশে আমার তিন বছরের প্রিয় স্মৃতি জানতে চাওয়া হয়, তাহলে তার সব বর্ণনা করা আমার পক্ষে প্রায় অসম্ভব।

কিন্তু আমি জানি এখানকার রিকশার রং আর চালকদের মুখের অবয়ব, কথা আমার মনে পড়ে যাবে। পুরান ঢাকার ছাদ আর রংবেরঙের ঘুড়ি, বিদ্যুতের তারে পাখির নাচানাচি আর সন্ধ্যার আকাশে উড়ে যাওয়া পাখির ঝাঁক আমাকে স্মৃতিকাতর করবে।

মিলারের আবেগভরা বিদায়ী কথন

আমার চোখে ভাসবে স্কুল ইউনিফর্ম পরা শিশুরা গ্রামের রাস্তায় হেঁটে বাড়ি যাচ্ছে। জাহাজভর্তি চট্টগ্রামের নদী। কক্সবাজারের সাম্পান বা চাঁদের নৌকা, যা আমার চোখে পৃথিবীর সবচেয়ে সুন্দর নৌকা।

সিলেটের গাঢ় সবুজ পাহাড় আর বরিশালের উদ্দাম সবুজ আমি কোনো দিন ভুলব না। বান্দরবানের পাহাড় ও সুন্দরবনের ম্যানগ্রোভে সকালের কুয়াশা দেখার স্মৃতি আমার জীবনের অনন্য অর্জন।

গত তিন বছরে বাংলাদেশে যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত হিসেবে দায়িত্ব পালন করা আমার জীবনের একটি বড় সম্মান এবং আনন্দ।

আমি বিশ্বাস করি যুক্তরাষ্ট্র-বাংলাদেশ সম্পর্ক আরও শক্তিশালী এবং আরও মজবুত হবে। সিনেটর এডওয়ার্ড কেনেডি যেমন ১৯৭২ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে দেয়া ভাষণে বলেছিলেন, আমেরিকার আসল পররাষ্ট্রনীতি হচ্ছে নাগরিক থেকে নাগরিক, বন্ধু থেকে বন্ধু, মানুষ থেকে মানুষ। আমি আশা করি আমি আমাদের বন্ধু-থেকে-বন্ধু আর বন্ধনকে শক্তিশালী করতে কিছুটা হলেও অবদান রেখেছি।

আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বলেছিলাম আমার প্রথম আট মাসে আমি বাংলাদেশের আটটি বিভাগ ঘুরে দেখব। আমি তা করার মতো ভাগ্যবান ছিলাম। এই মহান দেশের এত মানুষের সঙ্গে দেখা করতে পারা, উষ্ণতা, ভালোবাসা, আন্তরিকতা এবং উদারতা অনুভব করতে পেরে আমিও নিজেকে একজন অনন্য বাংলাদেশি বলে মনে করি।

মিলারের আবেগভরা বিদায়ী কথন

বাংলাদেশের জনগণের আন্তরিকতা ও অনুগ্রহের স্মৃতি আমি আমৃত্যু হৃদয়ে ধারণ করব। এই অসাধারণ দেশে এমন একটি বিশেষ সুবিধাপ্রাপ্ত অতিথি হওয়ার সুযোগের জন্য আমি কৃতজ্ঞতায় ভরা হৃদয় নিয়ে বিদায় নিচ্ছি।

যখন রাষ্ট্রদূত হাস আসবেন, অনুগ্রহ করে তাকেও একই উষ্ণতা দেখান এবং আমাকে এবং আমার পরিবারের প্রতি অনুগ্রহ করে সদয় থাকবেন।

শেয়ার করুন