বাবার পাশে চিরনিদ্রায় মিতা হক

প্রয়াত রবীন্দ্র সংগীতশিল্পী মিতা হক। ছবি: সংগৃহীত

বাবার পাশে চিরনিদ্রায় মিতা হক

কিডনি সমস্যাসহ কোভিড পরবর্তী নানা শারীরিক জটিলতা ছিল মিতা হকের। রবিবার ভোর ৬টা ২০ মিনিটে প্রয়াত হন এই সংগীতসাধক।

বিশিষ্ট সংস্কৃতিকর্মী, রবীন্দ্রসংগীতের স্বনামধন্য শিল্পী ও গুরু, মিতা হকের দাফন সম্পন্ন হয়েছে। কেরানীগঞ্জের ভাওয়াল মনোহরিয়া গ্রামের পারিবারিক গোরস্থানে তাকে সমাহিত করা হয়।

সাংস্কৃতিক সংগঠন ছায়ানট সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানায়, মিতা হকের পিতা, প্রখ্যাত সাংবাদিক রেজাউল হকের পাশেই চিরনিদ্রায় শায়িত করা হয়েছে তাকে। বাদ জোহর মিতার জানাজা হয় আটি ভাওয়াল উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে।

কিডনি সমস্যাসহ কোভিড পরবর্তী নানা শারীরিক জটিলতা ছিল মিতা হকের। রবিবার ভোর ৬টা ২০ মিনিটে প্রয়াত হন এই সংগীতসাধক।

তাঁর অনেক শিষ্য-ভক্ত ও সহযোদ্ধাদের শ্রদ্ধা-ভালোবাসা জানানোর জন্য সকাল ১১টায় মিতা হকের মরদেহ নেয়া হয় রাজধানীর ছায়ানট সংস্কৃতি ভবনে। রবীন্দ্রসংগীতের সুরে তাকে শেষ বিদায় জানান তার দীর্ঘদিনের সহকর্মীরা। শ্রদ্ধা জানানো শেষে মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় কেরানীগঞ্জে।

বাবার পাশে চিরনিদ্রায় মিতা হক
ছায়ানটে শেষবারের মতো মিতা হকের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন। ছবি: সংগৃহীত

মিতা হকের জন্ম ১৯৬২ সালে। গত বছর পাঁচেক তিনি জটিল কিডনি রোগে ভুগছিলেন। গান গেয়ে খ্যাতির শিখরে উঠবার পাশাপাশি তিনি আজীবন তার জ্ঞানের রসদ ভাগ করে নিয়েছেন অন্যদের সঙ্গে।

বাবার পাশে চিরনিদ্রায় মিতা হক
ছায়ানটে শেষবারের মতো মিতা হকের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন। ছবি: সংগৃহীত

সরল আন্তরিকতা দিয়ে সবার মন জয় করে নেয়া মিতা দেড় দশক শিক্ষকতা করেছেন ছায়ানট সংগীতবিদ্যায়তনে। সংগঠক হিসেবেও দীর্ঘকাল কাজ করে গেছেন তিনি। ছিলেন জাতীয় রবীন্দ্রসঙ্গীত সম্মিলন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক এবং ছায়ানটের সদস্য। রাষ্ট্রীয় সম্মাননা হিসাবে পেয়েছেন একুশে পদক।

আরও পড়ুন:
চলে গেলেন মিতা হক

শেয়ার করুন

মন্তব্য

তাহসান-মিথিলার দেখা হলো, কথা হলো

তাহসান-মিথিলার দেখা হলো, কথা হলো

তাহসান ও মিথিলা। ছবি: সংগৃহীত

তাহসান আরও বলেন, ‘আমরা একসঙ্গে এলে অনেক মানুষ এই অনুষ্ঠানটা দেখবে। তাই এই অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বলতে চাই যে, আমরা দুজনে হয়ত আলাদা হয়ে গেছি, কিন্তু আমরা সসম্মানে পাশাপশি বসে কথা বলতে পারি। একে অপরকে কটূ কথা না বলে শ্রদ্ধা নিয়ে কথা বলা যায়।’

তাহসান খান ও মিথিলা- দুজনেই নিজেদের জায়গায় প্রতিষ্ঠিত। তাহসান সংগীত ও অভিনয় নিয়ে কাজ করেন। মিথিলা অভিনেত্রী ও উন্নয়ন কর্মী। পাঁচ বছর আগে তাদের বিয়ে বিচ্ছেদ হয়। তারপর থেকে দুজনকে একসঙ্গে কোনো অনুষ্ঠানে দেখা যায়নি।

ঈদের দ্বিতীয় দিন শনিবার তাদের একসঙ্গে অনুষ্ঠানে দেখা গেল। অনলাইনে যুক্ত ছিলেন তারা। অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করেন নাভিদ মাহবুব। ইতিবাচকতা ছড়িয়ে দিতেই একসঙ্গে হাজির হয়েছিলেন তাহসান-মিথিলা।

অনুষ্ঠানের শেষ দিকে একে-অপরকে নিয়ে কিছু কথা বলেন তাহসান-মিথিলা। শুরু করেন তাহসান। তিনি বলেন, ‘আমার আর তার (মিথিলা) বিচ্ছেদ হয়েছে পাঁচ বছর। সঙ্গত কারণেই আমরা একসঙ্গে কাজ করছি না। কিন্তু তারপরও আমার কোনো পোস্টে বা তার কোনো পোস্টে নেতিবাচক কথা লেখা হয় না।

‘আমরা যারা পাবলিক ফিগার, তারা কথা বলি না জন্য বিষয়টা আরও বেড়ে যাচ্ছে। এটা নিয়ে আমাদের কথা বলা উচিত। বাজে মন্তব্য করতে আসলে কোনো বীরত্ব নেই বরং নিজের হীনম্মন্যতা প্রকাশ পায়।’

তাহসান-মিথিলার দেখা হলো, কথা হলো
নাভিদ মাহবুবের উপস্থাপনায় তাহসান ও মিথিলা। ছবি: সংগৃহীত

তাহসান আরও বলেন, ‘আমরা একসঙ্গে এলে অনেক মানুষ এই অনুষ্ঠানটা দেখবে। তাই এই অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বলতে চাই যে, আমরা দুজনে হয়ত আলাদা হয়ে গেছি, কিন্তু আমরা সসম্মানে পাশাপশি বসে কথা বলতে পারি। একে অপরকে কটূ কথা না বলে শ্রদ্ধা নিয়ে কথা বলা যায়।’

মিথিলাও কণ্ঠ মেলান তাহসানের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘আমরা প্রথমে এটাতে রাজি ছিলাম না। কিন্তু পরে মনে হলো যে না, এখান থেকে ভালো কিছু কথা বলা যাবে। তাছাড়া ইতিবাচকতার একটি ভালো উদাহরণ তৈরি করা দরকার আমাদের।’

সন্তানের কথা উল্লেখ করে মিথিলা বলেন, ‘এই দেশে তো আমার সন্তানকেও আমার বড় করতে হবে। যত খারাপই মানুষ বলে যাক, আমি ভালোটাই বলে যাব। আমি উল্টো একটা গালি দেব না আমাকে গালি দিচ্ছে বলে।’

পুরো অনুষ্ঠানে তাহসান মিথিলাকে নিয়ে কোনো কথা না বললেও মিথিলা ছোট ছোট করে কিছু কথা বলেছেন। মিথিলা বলেন, ‘তাহসান হলো সেইসব ফার্স্ট বয়দের একজন যে সব সময় বলবে পরীক্ষায় পারি না কিছু, কিন্তু পরে নাইনটি নাইন পাবে।’

অনলাইনে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে ইভ্যালি। যার চিফ গুডনেস অফিসারের দায়িত্বে আছেন তাহসান। আর প্রতিষ্ঠানটির ফেস অব লাইফস্টাইল হিসেবে যুক্ত হন মিথিলা।

আরও পড়ুন:
চলে গেলেন মিতা হক

শেয়ার করুন

ঈদে সিঙ্গেলস্ক্রিনে দর্শক কমছে, বাড়ছে সিনেপ্লেক্সে

ঈদে সিঙ্গেলস্ক্রিনে দর্শক কমছে, বাড়ছে সিনেপ্লেক্সে

আনন্দ সিনেমা হলে চলছে বাদশা- দ্য ডন (উপরে), সিনেপ্লেক্সে দর্শকদের ভীর বারছে। ছবি: নিউজবাংলা

মিঞা আলাউদ্দিন এবং আনন্দ সিনেমা হলের কর্মী- দুজনেই জানালেন যে, ভালো সিনেমা বা বড় বাজেটের সিনেমা মুক্তি পেলে আরও কিছু দর্শক পাওয়া যেত।

ঈদে বন্ধ আছে অধিকাংশ সিনেমা হল। রাজধানীর চিত্রামহল ও বিজিবি সিনেমা হলে চলছে ডিপজল-মৌসুমী অভিনীত ঈদের একমাত্র নতুন সিনেমা সৌভাগ্য। এছাড়া ফার্মগেটের আনন্দতে চলছে জিৎ-নুসরাত ফারিয়ার পুরনো সিনেমা বাদশা- দ্য ডন

স্টার সিনেপ্লেক্সের বসুন্ধরা শাখা ছাড়া সীমান্ত সম্ভার ও এসকে টাওয়ারের শাখা চালু রয়েছে। সেখানে প্রদর্শিত হচ্ছে আগে মুক্তি পাওয়া ইংরেজি সিনেমাগুলো।

এই সিনেমাহলগুলোতে ঘুরে জানা গেল চিত্রামহল ও আনন্দতে ঈদেরর দিনের প্রথম শোতে দর্শক কিছু থাকলেও পরের শোগুলো থেকে দর্শক কমা শুরু করেছে।

চিত্রামহলে ঈদের দিন সৌভাগ্য সিনেমাটির টিকিট বিক্রি হয়েছে ১৫ হাজার থেকে ১৬ হাজার টাকার। নিউজবাংলাকে বিষয়টি জানিয়েছেন প্রদর্শক সমিতির উপদেষ্টা মিঞা আলাউদ্দিন।

তিনি বলেন, ‘ঈদের দিন রাতে চিত্রামহলের সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আমার কথা হয়েছে। তারা জানাল পনের-ষোল হাজার টাকা বিক্রি হয়েছে। করোনা পরিস্থির মধ্যেই প্রথম শোতে দর্শক ভালোই ছিল। কিন্তু ধীরে ধীরে দর্শকের পরিমাণ কমতে শুরু করেছে।’

ফার্মগেটের আনন্দ সিনেমা হলে চলছে বাদশা- দ্য ডন সিনেমাটি। সেখানকার এক কর্মী নিউজবাংলাকে জানালেন একই কথা। ঈদের দিন প্রথম শোতে দর্শক কিছু থাকলেও দ্বিতীয় দিনে দর্শক সংখ্যা একেবারেই কমে গেছে।

মিঞা আলাউদ্দিন এবং আনন্দ সিনেমা হলের কর্মী- দুজনেই জানালেন যে, ভালো সিনেমা বা বড় বাজেটের সিনেমা মুক্তি পেলে আরও কিছু দর্শক পাওয়া যেত।

অন্যদিকে সিনেপ্লেক্সে এই চিত্র কিছুটা উল্টো। রাজধানীর সীমান্ত সম্ভার ও মহাখালীর এসকে টাওয়ারে থাকা স্টার সিনেপ্লেক্সে প্রদর্শিত হচ্ছে গডজিলা ভার্সেস কং এবং রায়া অ্যান্ড দ্য লাস্ট ড্রাগন

ঈদে সিঙ্গেলস্কৃনে দর্শক কমছে, বাড়ছে সিনেপ্লেক্সে
সীমান্ত সম্ভারে সিনেপ্লেক্স শাখায় কিছু দর্শক। ছবি: নিউজবাংলা

সীমান্ত সম্ভারে খোজ নিয়ে জানা গেল ঈদের দিনে দর্শক একটু কম থাকলেও দ্বিতীয় দিনে দর্শক বাড়ছে। সীমান্ত সম্ভারের স্টার সিনেপ্লেক্সে টিকেট কাউন্টারের কর্মী জানালেন, দ্বিতীয় দিনে ৬০ থেকে ৮০ জন করে দর্শক পাচ্ছেন তারা।

সীমান্ত সম্ভারে গডজিলা ভার্সেস কং দেখতে এসেছেন এমন ছয়জন দর্শকের সঙ্গে হয় নিউজবাংলার। তারা প্রত্যেকেই জানিয়েছেন, ঈদের মধ্যে পরিবার-স্বজনের দেখা করার পাশাপাশি বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা দেয়া হয়। এসবের মধ্যে সিনেমা দেখা একটা উদযাপনের মতো।

ছোট বাচ্চাদের নিয়ে একই সিনেমা দেখতে এসেছিলেন এক অভিভাবক। সময় না মেলায় তারা অবশ্য সিনেমাটি দেখেননি। এছাড়া সিনেমা হলটির পাশেই ফুড কোর্ট, সেখানে অনেক ভিড় দেখা গেছে।

তাদের মধ্যে অনেকেই সিনেমা দেখে বের হয়েছেন, অনেকে আছেন আছেন সিনেমা দেখার অপেক্ষায়।

রাজধানীর অন্য বড় হলগুলোর মধ্যে অন্যতম বলাকা, মধুমিতা, শ্যামলী অনেকদিন ধরেই বন্ধ রয়েছে।

আরও পড়ুন:
চলে গেলেন মিতা হক

শেয়ার করুন

সাত ছোট গল্প নিয়ে অংশুর ‘গল্প গল্প খেলা’

সাত ছোট গল্প নিয়ে অংশুর ‘গল্প গল্প খেলা’

গল্প গল্প খেলা কনটেন্টেন পোস্টার। ছবি: সংগ্রহীত

বিরতি ভেঙে ‘ছোট ছোট কিছু ব্যতিক্রমী গল্প যেগুলোতে সিরিয়াস নোটে কিছু বলব না, একটু ফ্যান্টাসি থাকবে, একটু বার্তা থাকবে, অতিপ্রাকৃত কিছুও থাকবে আবার হাস্যরসও থাকবে। তেমন কিছু কাজ নিয়েই এ কাজ।’

ঈদ উৎসবে টেলিভিশন পর্দায় ফিরেছেন ন ডরাই খ্যাত নির্মাতা তানিম রহমান অংশু। মহামারির কারণে বড়পর্দায় নতুন কোনো গল্প নিয়ে হাজির হতে না পারলেও মেতে উঠেছেন ছোট ছোট গল্পের খেলায়।

ঈদ উপলক্ষ্যে দীপ্ত টিভির সাত দিনের বিশেষ আয়োজন ‘গল্প গল্প খেলা’য় সাতটি টেলিভিশন ফিকশন নিয়ে হাজির হয়েছেন অংশু। এতে বিভিন্ন চরিত্রে অংশ নিয়েছেন দেশের জনপ্রিয় তারকারা। প্রচার শুরু হয়ে গেছে স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রগুলো।

সাকিব হাসান বাঁধনের চিত্রনাট্যে ঈদের প্রথম দিন প্রচারিত হয় ‘ইচিং বিচিং প্রাইভেট কোচিং’, দ্বিতীয় দিন ‘লাশে গেলাম ফেঁসে’, তৃতীয় দিন প্রচারিত হবে রুদ্র হকের চিত্রনাট্যে ‘জ্বীনের বিয়ে’ ও চতুর্থ দিন ‘মিঞাও’ এবং সাকিব হাসান বাঁধনের চিত্রনাট্যে ঈদের পঞ্চম দিন ‘বেঈমান পাখি’, ৬ষ্ঠ দিন ‘খাটাখাট’, ৭ম দিন প্রচার হবে ‘কিয়েক্টা অবস্থা’।

বিরতি ভেঙে ‘গল্প গল্প খেলা’ নিয়ে অংশু বলেন, ‘ন ডরাইয়ের পর এক-দেড় বছর করোনা মহামারিতে কিছুই করা হচ্ছিল না। তাই ভাবলাম একটু একটু করে কাজ শুরু করি।

‘ছোট ছোট কিছু ব্যতিক্রমী গল্প যেগুলোতে সিরিয়াস নোটে কিছু বলব না, একটু ফ্যান্টাসি থাকবে, একটু বার্তা থাকবে, অতিপ্রাকৃত কিছুও থাকবে আবার হাস্যরসও থাকবে। তেমন কিছু কাজ নিয়েই এ কাজ।’

সাত ছোট গল্প নিয়ে অংশুর ‘গল্প গল্প খেলা’
পরিচালক তানিম রহমান অংশু ও কনটেন্টের পোস্টার। ছবি: সংগৃহীত

এর বিভিন্ন গল্পে অভিনয় করেছেন আজাদ আবুল কালাম, মিথিলা, তানজিন তিশা, মনোজ প্রামাণিক, লুৎফর রহমান জর্জ, তৌফিকুল হাসান নেহাল, সাদিকা স্বর্ণা, লোবা রহমান।

আলফা আই’র প্রযোজনায় টিএম প্রোডাকশানের নির্মাণে চলচ্চিত্রগুলো প্রচারিত হচ্ছে প্রতিদিন রাত ১০টায়। দীপ্ত টিভি ছাড়াও এগুলো প্রচারিত হচ্ছে ওয়েব প্লাটফর্ম বায়োস্কোপে।

আরও পড়ুন:
চলে গেলেন মিতা হক

শেয়ার করুন

উদ্ধার হলো নোবেলের হ্যাকড ফেসবুক পেজ

উদ্ধার হলো নোবেলের হ্যাকড ফেসবুক পেজ

কণ্ঠশিল্পী নোবেল। ছবি: সংগৃহীত

হ্যাকারের হুমকির কারণে অনেকক্ষণ সেসব স্ট্যাটাস সরাতে পারেননি নোবেল। ফেসবুক পেজটি নিয়ন্ত্রণে চলে আসার পর সব স্ট্যাটাস মুছে ফেলেছেন এই কণ্ঠশিল্পী।

একদিনের নানা ঝামেলার পর শনিবার নিজের ভেরিফেইড ফেসবুক পেজ হ্যাকারের কাছ থেকে উদ্ধার করতে পেরেছেন সংগীতশিল্পী নোবেল। বৃহস্পতিবার দুপুরে নিউজবাংলাকে এ খবর নিশ্চিত করেন তরুণ এ কণ্ঠশিল্পী।

তিনি বলেন, ‘কিছুক্ষণ আগেই ফেসবুক পেজ উদ্ধার করতে পেরেছি। আর কোনো সমস্যা নাই। কারা এটা করেছিল, তা জানা সম্ভব হয়নি।’

হ্যাকড হওয়া ভেরিফাইড পেজেও এ কথা জানিয়েছেন তিনি। লিখেছেন, ‘আলহামদুলিল্লাহ! ফেসবুক রিকভার্ড! ইয়েস!’

নোবেলের ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে ঢুকে জেমস, ইথুন বাবু ও তাপসকে নিয়ে রেখা স্ট্যাটাসগুলো পাওয়া যায়নি। এগুলো হ্যাকার লিখেছিলেন বলে জানিয়েছিলেন নোবেল।

শুক্রবার হঠাৎ করেই নোবেলের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে জনপ্রিয় ব্যান্ড তারকা জেমস ও সংগীতাঙ্গনের কিছু বিষয় নিয়ে একের পর এক স্ট্যাটাস দেখা যায়। হঠাৎ এত বেপরোয়া হয়ে ওঠার কারণ তখনও অজানা ছিল সবার।

পরে সন্ধ্যার দিকে জানা যায়, নোবেলের ভেরিফাইড ফেসবুকটি হ্যাকড হয়েছে। আর সেসব কথা হ্যাকারই লিখেছেন।

হ্যাকারের হুমকির কারণে অনেকক্ষণ সেসব স্ট্যাটাস সরাতে পারেননি নোবেল। ফেসবুক পেজটি নিয়ন্ত্রণে চলে আসার পর সব স্ট্যাটাস মুছে ফেলেছেন এই কণ্ঠশিল্পী।

শেষ তার গাওয়া ‘অভিনয়’ গানটি প্রশংসিত হয়। ‘মেহেরবান’ নামের আরেক গান আছে প্রকাশের অপেক্ষায়।

ভারতের সংগীত বিষয়ক রিয়েলিটি শো সা রে গা মা পা- তে অংশগ্রহণ করে আলোচনায় আসেন এই শিল্পী।

আরও পড়ুন:
চলে গেলেন মিতা হক

শেয়ার করুন

এক দিনেই ইতিহাস গড়ল সালমানের ‘রাধে’

এক দিনেই ইতিহাস গড়ল সালমানের ‘রাধে’

রাধে সিনেমার পোস্টার। ছবি: সংগৃহীত

সালমান তার ইনস্টাতে দর্শকদের ধন্যবাদ দিয়ে জানিয়েছেন, ‘তোমাদের সবাইকে ধন্যবাদ এমন একটি উপহার দেয়ার জন্য। রাধে মুক্তির প্রথম দিনেই বলিউডের সবচেয়ে বেশি দেখা সিনেমার ইতিহাস গড়েছে।'

বলিউড ভাইজান সালমান খানের ঈদের সিনেমা রাধে- ইওর মোস্ট ওয়ান্টেড ভাই। ১৩ মে সিনেমাটি মুক্তি পায় ভারত ও ভারতের বাইরের বিভিন্ন দেশের প্রেক্ষাগৃহে। ওটিটি প্ল্যাটফর্ম জিফাইভেও মুক্তি পায় সিনেমাটি।

মুক্তির দিনেই সিনেমাটি ইতিহাস গড়েছে বলে দাবি করেছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম। সালমান খানসহ সিনেমাটির অন্য অভিনয়শিল্পীরাও টুইট করে জানিয়েছেন খবরটি।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ও সালমানের দাবি, প্রথম দিনে সিনেমাটি দেখেছে ৪০ লাখেরও বেশি দর্শক। দিশা পাটানি, জ্যাকি শ্রফও তাদের ইনস্টা পোস্টে জানিয়েছেন খবরটি।

সালমান তার ইনস্টাতে দর্শকদের ধন্যবাদ দিয়ে জানিয়েছেন, ‘তোমাদের সবাইকে ধন্যবাদ এমন একটি উপহার দেয়ার জন্য। রাধে মুক্তির প্রথম দিনেই বলিউডের সবচেয়ে বেশি দেখা সিনেমার ইতিহাস গড়েছে। বলিউড ইনডাস্ট্রি তোমাদের ভালোবাসা ছাড়া টিকে থাকতে পারবে না।’

সিনেমার এমন ইতিহাস গড়লেও বলিউড ট্রেড অ্যানালিস্ট তারান আদর্শ তার টুইটারে জানিয়েছেন, রাধে সিনেমাটি হতাশ করেছে। দর্শকদের উচ্চ প্রত্যাশা মেটাতে পারেনি সিনেমাটি। খুব সহজেই অনুমান করা যায় সিনেমাটির প্লট।

রাধে সিনেমাটি দেখার সুযোগ পাচ্ছেন বাংলাদেশের দর্শকরাও। অন্য সব দেশে সিনেমাটি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেলেও বাংলাদেশে ওটিটিতে মুক্তি পেয়েছে সিনেমাটি। জিফাইভ সাবস্ক্রাইবাররা সিনেমাটি উপভোগ করতে পারবেন।

আরও পড়ুন:
চলে গেলেন মিতা হক

শেয়ার করুন

জেমসকে নিয়ে লিখিনি, অ্যাকাউন্ট হ্যাক হয়েছে: নোবেল

জেমসকে নিয়ে লিখিনি, অ্যাকাউন্ট হ্যাক হয়েছে: নোবেল

সংগীতশিল্পী নোবেল ও তার ফেসবুকে পাওয়া স্ট্যাটাস। ছবি কোলাজ: নিউজবাংলা

তরুণ এই সংগীতশিল্পী জানান, পেজ থেকে সাদা পাঞ্জাবি পরা যে ছবিটি পোস্ট করে ‘ঈদ মোবারক’ লেখা হয়েছে সেই পোস্টটি শুধু তার। এ ছাড়া, যত পোস্ট আছে সব হ্যাকারের করা। নোবেল ধারণা করছেন ২৪ ঘণ্টা আগে তার পেজ হ্যাক হয়েছে।

হঠাৎ করেই ফেসবুকে জেমসসহ সংগীতাঙ্গনের আরও কিছু বিষয় নিয়ে স্ট্যাটাস দেখা গেছে সংগীতশিল্পী নোবেলের ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ব্যাপক সমালোচনা শুরুর পর নোবেল দাবি করলেন, এসব স্ট্যাটাস তার লেখা নয়, অ্যাকাউন্ট হ্যাক হয়েছে।

শুক্রবার সন্ধ্যায় নিউজবাংলার কাছে এই দাবি করে তিনি বলেন, ‘আমার ফেসবুক পেজ হ্যাক হয়েছে। এটি অনেকক্ষণ আগেই বুঝেছি। ফেসবুক পেজটা আমার কাছেই আছে। একটা এডিটর অ্যাকাউন্ট হ্যাক হয়ে গেছে।’

নোবেল আরও বলেন, ‘অ্যাডমিন আইডি আমার কাছে আছে, এডিটর অ্যাকাউন্ট থেকে কেউ উল্টা পাল্টা পোস্ট দিচ্ছে।’

তরুণ এই সংগীতশিল্পী জানান, পেজ থেকে সাদা পাঞ্জাবি পরা যে ছবিটি পোস্ট করে ‘ঈদ মোবারক’ লেখা হয়েছে সেই পোস্টটি শুধু তার। এ ছাড়া, যত পোস্ট আছে সব হ্যাকারের করা। নোবেল ধারণা করছেন ২৪ ঘণ্টা আগে তার পেজ হ্যাক হয়েছে।

পোস্ট সরিয়ে দিলে হ্যাকার আরও বাজে কিছু করবে এমন হুমকি পেয়েছেন বলেও জানালেন নোবেল। বলেন, ‘আমি যদি পোস্টগুলো ডিলিট করি, তাহলে হ্যাকার আবার পোস্ট করবে এবং পোস্টে গালাগালি শুরু করবে। তাই আমি ভয় পেয়ে পোস্টগুলো ডিলিট করছি না।’

এই সমস্যা ঠিক করার কাজ চলছে বলে জানান তিনি। সমস্যা সমাধানে আইটি বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে কথা বলেছেন নোবেল।

ঈদের দিন ভোরে হঠাৎ করেই একের পর এক স্ট্যাটাস দেখা যায় এই কণ্ঠশিল্পীর পেজে। যেখানে ব্যান্ড তারকা জেমসকে হেয় করে স্ট্যাটাস লেখা হয়।

সেসব স্ট্যাটাসে লেখা ছিল, ‘তোদের সো কল্ড লেজেন্ড জেমসের কয়ডা গান রিলিজ হইসে গত কয়েক বছরে? ঝিমায় গেছে নাকি? লুল!’

‘জেমস কে ওপেন CHALLENGE! একই গান জেমস গাবে, আমিও গাবো!’

‘ওই জেমস! গান গাবা এক স্টেজে? তেমারে ১০০০ মিউজিশিয়ান দেবো। আর আমি একা একটা মাইক্রোফোন!’

’জেমস “অভিনয়” কভার করুক। তারপর বুঝবো কার গলায় কত জোর। আমি জেমসের গান ঘুমায় ঘুমায় গেয়ে দেবো। লুল।’

‘লেগেন্ড রে!! ওরে লেগেন্ড!! গলা দিয়ে আওয়াজ বেরোয়না! আবার লেগেন্ড মারায়! বুইড়া!’

‘ওই জেমস! ঈদের গান কই? নাকি ভয়েস গেছেগা?’

আরও পড়ুন:
চলে গেলেন মিতা হক

শেয়ার করুন

বিক্ষোভ’র টিজার প্রশংসিত, চিন্তা শান্তকে নিয়ে

বিক্ষোভ’র টিজার প্রশংসিত, চিন্তা শান্তকে নিয়ে

বিক্ষোভ সিনেমার দৃশ্যে শান্ত খান ও শ্রাবন্তী। ছবি: সংগৃহীত

ইউটিউবে এক মন্তব্যকারী লিখেছেন, ‘সময়োপযোগী কাহিনি। শ্রাবন্তী একদম পারফেক্ট। সৌন্দর্য-অভিনয় দুই দিক দিয়েই শ্রাবন্তী সেরা। চিন্তা শুধু শান্ত খানকে নিয়ে।’

শামীম আহমেদ রনি পরিচালিত সিনেমা বিক্ষোভ। ২০১৯ সালে সিনেমা কাজ শুরু হলেও সিনেমার টিজার প্রকাশ পেলো ২০২১ এ। শুক্রবার (১৪ মে) এর প্রথম টিজার প্রকাশ পেয়েছে।

টিজারটি দেখে ইউটিউবে এবং ফেসবুকে সবাই প্রশংসা করেছেন। নির্মাতা শামীম আহমেদ রনিকে জানিয়েছেন বাহবা। প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান শাপলা মিডিয়াকে এমন সিনেমা আরও নির্মাণ করতে উৎসাহ দিয়েছেন দর্শকরা।

টিজারে দেখা গেছে কলকাতার শ্রাবন্তী, রজতাভ দত্ত, রাহুল দেবকে। আছেন কলকাতার আরও কয়েকজন অভিনয়শিল্পী। এমন সব গুণী অভিনয়শিল্পীদের দেখে দর্শকরা ধারণা করছেন সিনেমাটি ভালোই হবে।

কিন্তু সিনেমার প্রধান চরিত্র শান্ত খানকে নিয়ে চিন্তায় পড়েছেন কয়েকজন দর্শক। তারা মনে করছেন এতসব ভালো অভিনয়শিল্পীদের মধ্যে যদি কোনো নড়বড়ে অভিনেতা থাকে সে হলো শান্ত খান।

ইউটিউবে এক মন্তব্যকারী লিখেছেন, ‘সময়োপযোগী কাহিনি। শ্রাবন্তী একদম পারফেক্ট। সৌন্দর্য-অভিনয় দুই দিক দিয়েই শ্রাবন্তী সেরা। চিন্তা শুধু শান্ত খানকে নিয়ে।’

আরেকজন মন্তব্যকারী লিখেছেন, ‘শ্রাবন্তী ঠিকঠাক। গোলমাল মনে হয় শান্ত খানই বাঁধাবে।’

ফেসবুকে চলচ্চিত্রের গ্রুপগুলোতেও টিজারটি নিয়ে শুরু হয়েছে আলোচনা। অধিকাংশই টিজারের প্রশংসা করলেও শান্ত খানকে নিয়ে আলাদা করে ভেবেছেন কেউ কেউ।

সেই সংখ্য খুব কম হলেও একজন লিখেছেন, ‘রাহুল দেব, রজতাভ দত্ত, শ্রাবন্তীদের সামনে শান্ত খানকে দাঁড় করিয়ে দেয়াটা একটা দুঃসাহস মনে হয়েছে আমার কাছে। বুদ্ধি করে তার ক্লোজ শটের ডায়লগও রাখা হয়নি, পাছে অভিনয়ের সমস্যাটা না ধরা পড়ে! টিজারে যা মনে হচ্ছে, শান্ত ছাড়া বাকিরা ছবি এগিয়ে নেবে।’

কিছু দর্শকের এই উদ্বেগের বিষয় নিয়ে বিক্ষোভ সিনেমার পরিচালক শামীম আহমেদ রনিকে একাধিকবার হোয়াটস অ্যাপে যোগাযোগ করেও পাওয়া যায়নি। সিনেমাটি কমে মুক্তি পাবে তা এখনও চূড়ান্ত না।

আরও পড়ুন:
চলে গেলেন মিতা হক

শেয়ার করুন