‘পোস্টারের এই অবস্থা, মুভি কেমন হবে…’

তুমি আছো তুমি নেই সিনেমার দুটি পোস্টার। ছবি: সংগৃহীত

‘পোস্টারের এই অবস্থা, মুভি কেমন হবে…’

সিনেমার কেন্দ্রীয় নারী চরিত্রে অভিনয় করেছেন দীঘি। তিনি একটি পোস্টার শেয়ার করেছেন তার ফেসবুকে। সেখানে অধিকাংশই শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। একজন লিখেছেন, ‘পোস্টারের ডিজাইন আরও উন্নত হওয়া উচিত ছিল। যাই হোক, অভিনন্দন।’

পোস্টার দেখতে ভালো না হলেই যে সিনেমা ভালো হবে না, এমনটা বলা যায় না। করোনার আগের অনেক সিনেমার পোস্টার-ট্রেলার দেখে ফেসবুকে প্রশংসায় পঞ্চমুখ ছিলেন সিনেমাপ্রেমীরা। তবে শেষপর্যন্ত সেসব সিনেমা দর্শকদের ভালো লাগেনি, ফলে ব্যবসা সফলও হয়নি।

অন্যদিকে পোস্টার বা ট্রেলার ভালো হয়নি, কিন্তু সিনেমাটি দেখে দর্শক মুগ্ধ হয়েছেন, এমন উদাহরণও খুব একটা নেই।

সম্প্রতি প্রকাশ পাওয়া তুমি আছো তুমি নেই সিনেমার পোস্টার তেমন মন ভরাতে পারেনি চলচ্চিত্রপ্রেমীদের। ফেসবুকে প্রকাশিত পোস্টারের মন্তব্য পড়ে তেমনটাই ধারণা করা যায়।

তুমি আছো তুমি নেই সিনেমায় অভিনয় করেছেন এ প্রজন্মের অভিনয়শিল্পী দীঘি এবং আসিফ ইমরোজ। সিনেমাটি পরিচালনা করেছেন ঢাকাই সিনেমার নামকরা পরিচালক দেলোয়ার জাহান ঝন্টু। স্বাভাবিকভাবেই সবার প্রত্যাশা ছিল বেশি।

ফেসবুকের বিভিন্ন গ্রুপ ও ব্যক্তিগত আইডি থেকে প্রকাশ হয়েছে সিনেমার পোস্টার। সেখানে অনেক মন্তব্যের মধ্যে একটি মন্তব্য এমন- ‘পোস্টারের এই অবস্থা। মুভি কেমন হবে.....’

তুমি আছো তুমি নেই সিনেমার পোস্টার নিয়ে বিভিন্ন মন্তব্য। ছবি: সংগৃহীত

আরও অনেক মন্তব্যের মধ্যে রয়েছে,

‘১৯৭১ সালের পোস্টার’

‘এই পোস্টার দেখে আমি হিরো আলমের ফ্যান হয়ে গেছি’

‘২০২১ সাল চলে পোস্টার দেখলে কে বলবে’

‘সেকেলে ভাব! এখন ২০২১’

‘পোষ্টার দেখেই করোনা পালাইছে’

‘কোন আমলের পোস্টার’

‘২০২১ এ আইসা যদি এইরকম র্থাড ক্লাস মার্কা পোস্টার বানায় হাহা তো দিবই বুঝেন নাই ব্যাপার টা’

সিনেমার কেন্দ্রীয় নারী চরিত্রে অভিনয় করেছেন দীঘি। তিনি একটি পোস্টার শেয়ার করেছেন তার ফেসবুকে। সেখানে অধিকাংশই শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। মন্তব্যকারীরা তাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন বড় পর্দায় অভিষিক্ত হওয়ার জন্য।

তবে একজন ইংরেজিতে লিখেছেন ভিন্ন কথা। বাংলায় তার অর্থ হয়- ‘পোস্টারের ডিজাইন আরও উন্নত হওয়া উচিত ছিল। যাই হোক, অভিনন্দন।’

সিনেমার পোস্টার নিয়ে মন্তব্য করার পাশাপাশি দীঘিকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন একজন। ছবি: সংগৃহীত

তুমি আছো তুমি নেই সিনেমাটির মাধ্যমে বড় পর্দায় অভিষেক হতে যাচ্ছে দীঘির। কিন্তু প্রথম সিনেমার পোস্টার নিয়ে দর্শকদের এমন মন্তব্যে দীঘির কোনো প্রতিক্রিয়া আছে কিনা জানতে যোগাযোগ করা হয়েছিল। তবে তিনি ফোন ধরেননি।

বিষয়টি নিয়ে কথা বলেছেন সিনেমার পরিচালক দেলোয়ার জাহান ঝন্টু।

নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘পুরনো সময়, নতুন সময় বলে কিছু নেই। পুরনো এই ডিজাইনগুলোই দর্শকরা পছন্দ করে। নতুন ডিজাইনে পোস্টার করলে দর্শক সিনেমা দেখতে যায় না।’

তিনি আরও বলেন, ‘সিনেমার গল্প ও নির্মাণে নতুনত্ব আনতে হবে। তাহলে দর্শকরা সিনেমা দেখতে যাবে।’

আরও পড়ুন:
ঢাকায় ডিজনির ‘রায়া অ্যান্ড দ্য লাস্ট ড্রাগন’
‘যারা মন্তব্য করে তাদের কাজ নাই’
সিনেমা হল: হাজার কোটি টাকার ঋণ যেসব শর্তে

শেয়ার করুন

মন্তব্য

পুরোপুরি সুস্থ না হয়ে দেশে ফিরছেন না ফারুক

পুরোপুরি সুস্থ না হয়ে দেশে ফিরছেন না ফারুক

রোশান হোসেন পাঠান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বাবার শারীরিক অবস্থা আগের চেয়ে আরও একটু ভালোর দিকে। ধীরে ধীরে শারীরিক অবস্থার উন্নতি হচ্ছে। এখন একটু করে খাওয়াদাওয়া করছেন ও কথা বলার চেষ্টা করছেন।’

অভিনেতা ও ঢাকা-১৭ আসনের সংসদ সদস্য আকবর হোসেন পাঠান ফারুকের শারীরিক অবস্থার আরও একটু ভালো হয়েছে। তবে পুরোপুরি সুস্থ না হওয়া পর্যন্ত তাকে দেশে না আনার কথা ভাবছে পরিবার।

বৃহস্পতিবার দুপুরে নিউজবাংলাকে এ তথ্য জানান ফারুকের ছেলে রোশান হোসেন পাঠান।

তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বাবার শারীরিক অবস্থা আগের চেয়ে আরও একটু ভালো দিকে। ধীরে ধীরে শারীরিক অবস্থার উন্নতি হচ্ছে। এখন একটু করে খাওয়াদাওয়া করছেন ও কথা বলার চেষ্টা করছেন।’

কবে নাগাদ তাকে দেশে নিয়ে আসা হবে, জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘এখনও সিদ্ধান্ত নিইনি। সেখানে এক রকমের ট্রিটমেন্ট চলছে। এই অবস্থায় দেশে নিয়ে এলে আবার এখানেও এক ধরনের ট্রিটমেন্ট চালাতে হবে। সে ক্ষেত্রে ঝামেলা হতে পারে। তাই পুরোপুরি সুস্থ হওয়ার পর্যন্ত দেশে না নিয়ে আসার কথাই ভাবছি আমরা।’

গত ৪ মার্চ নিয়মিত চেকআপের জন্য সিঙ্গাপুরে যান ফারুক। তিনি সস্ত্রীক করোনায় আক্রান্ত ছিলেন। সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ‘মিয়া ভাই’-খ্যাত এ অভিনেতা।

১৯৭১ সালে জলছবি চলচ্চিত্রে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে ফারুকের চলচ্চিত্রে অভিষেক। তিনি লাঠিয়াল, সুজন সখী, নয়নমনি, সারেং বৌ, গোলাপী এখন ট্রেনে, সাহেব, আলোর মিছিল, দিন যায় কথা থাকে, মিয়া ভাইসহ শতাধিক চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন।

লাঠিয়াল চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য ফারুক ১৯৭৫ সালে শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেতা হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান। ২০১৬ সালে তিনি আজীবন সম্মাননা অর্জন করেন।

আরও পড়ুন:
ঢাকায় ডিজনির ‘রায়া অ্যান্ড দ্য লাস্ট ড্রাগন’
‘যারা মন্তব্য করে তাদের কাজ নাই’
সিনেমা হল: হাজার কোটি টাকার ঋণ যেসব শর্তে

শেয়ার করুন

প্রয়োজনে কারফিউ চান সুবর্ণা

প্রয়োজনে কারফিউ চান সুবর্ণা

সুবর্ণা মুস্তাফা লেখেন, ‘লকডাউন আরও দৃঢ় ও জোরালো করা উচিত। আমরা এখনও মহামারির ভয়াবহতার সম্মুখিন হইনি। তবে আমাদের আচরণ সেদিকেই নিয়ে যাচ্ছে। এ ক্ষেত্রে প্রয়োজনে সরকারের কারফিউ কার্যকর করা উচিত। জীবন আগে।’

দেশে করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ চলছে। এ ঢেউয়ে আক্রান্ত আর মৃতের সংখ্যা বেড়ে চলছে। এ থেকে নিস্তার পাচ্ছেন না কোনো পেশার মানুষ। এরই মধ্যে আক্রান্ত হয়ে প্রাণ হারিয়েছেন অনেক তারকা।

এমন অবস্থায় দেশের জনপ্রিয় অভিনেত্রী সুবর্ণা মুস্তাফা মনে করছেন, করোনার মহামারি ঠেকাতে প্রয়োজনে সরকারের কারফিউ কার্যকর করা উচিত।

নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক অ্যাকাউন্টে একটি স্ট্যাটাসে এমন মতামত ব্যক্ত করেছেন তিনি।

সুবর্ণা মুস্তাফা লেখেন, ‘লকডাউন আরও দৃঢ় ও জোরালো করা উচিত। আমরা এখনও মহামারির ভয়াবহতার সম্মুখিন হইনি। তবে আমাদের আচরণ সেদিকেই নিয়ে যাচ্ছে। এ ক্ষেত্রে প্রয়োজনে সরকারের কারফিউ কার্যকর করা উচিত। জীবন আগে।’

গত ৭ ফেব্রুয়ারি সারা দেশে করোনাভাইরাসের টিকাদান কর্মসূচি শুরুর পরদিনই টিকা নেন এ অভিনেত্রী।

সেই সময় টিকা নেয়ার একটি ছবি ফেসবুকে পোস্ট করে সুবর্ণা মুস্তাফা লেখেন, ‘ভ্যাকসিন নিয়ে ফেললাম। এমন উদ্যোগের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনাকে অনেক ধন্যবাদ।’

আরও পড়ুন:
ঢাকায় ডিজনির ‘রায়া অ্যান্ড দ্য লাস্ট ড্রাগন’
‘যারা মন্তব্য করে তাদের কাজ নাই’
সিনেমা হল: হাজার কোটি টাকার ঋণ যেসব শর্তে

শেয়ার করুন

হিরো আলমের ভিডিও ও ব্যাচেলর পয়েন্টের তফাত নিয়ে প্রশ্ন

হিরো আলমের ভিডিও ও ব্যাচেলর পয়েন্টের তফাত নিয়ে প্রশ্ন

তরুণ নির্মাতা শাহাদত রাসেল এই ধারাবাহিকটিকে ‘ভাদাইম্মার সাত বউ’ বা ‘হিরো আলমের ভিডিও’র সঙ্গে তুলনা করেছেন। তবে এটি স্বীকার করেছেন, ব্যাচেলর পয়েন্ট-এর নির্মাণ সেগুলোর চেয়ে ভালো। 

সময়ের অন্যতম আলোচিত ধারাবাহিক নাটক ব্যাচেলর পয়েন্ট। তিন বছর ধরে প্রচারিত নাটকটির তৃতীয় সিজন শেষ হয়েছে মাত্র কয়েক দিন আগে। এখনও শেষ হওয়ার আবেগে ভাসছেন ব্যাচেলর পয়েন্ট -এর দর্শকরা।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে নাটকটির চতুর্থ সিজন দেখারও আরজি জানাচ্ছেন দর্শকরা। দর্শকদের সেই আবেগ মেশানো আরজি নাড়া দিয়েছে নাটকটির নির্মাতা কাজল আরেফিন অমিকে।

তিনি ফেসবুকে লিখেন, ‘জানি না সিজন-৪ করব কি না, তবে এইটুকু নিশ্চিত করে বলছি, যদি জীবিত থাকি এবং সুস্থ থাকি তাহলে কখনও না কখনও, কোনো না কোনো মাধ্যমে আপনাদের সামনে অবশ্যই তুলে ধরব কেমন আছে আপনাদের প্রিয় চরিত্রগুলো।’

তবে এরই মধ্যে ব্যাচেলর পয়েন্ট কনটেন্টটি নিয়ে সমালোচনা করেছেন তরুণ নির্মাতা শাহাদত রাসেল। তিনি এই ধারাবাহিকটিকে ‘ভাদাইম্মার সাত বউ’ বা ‘হিরো আলমের ভিডিও’র সঙ্গে তুলনা করেছেন। তবে এটি স্বীকার করেছেন, ব্যাচেলর পয়েন্ট-এর নির্মাণ সেগুলোর চেয়ে ভালো।

এ নিয়ে নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক অ্যাকাউন্টে স্ট্যাটাস দিয়েছেন তিনি।

শাহাদাত রাসেল লেখেন, ‘ব্যাচেলর পয়েন্টের একটা পর্বের কিছু অংশ আমি দেখেছিলাম। ব্যক্তি হিসেবে আমার ভীষণ পছন্দের ছোট ভাই পলাশ এখানে কাবিলা চরিত্রে অভিনয় করেছে বলে।

‘আমার মনে হয়েছে যে ভাদাইম্মার সাত বউ এবং হিরো আলমের ভিডিওর চেয়ে ব্যাচেলর পয়েন্ট টেকনিক্যালি আধুনিক ও রিচ। ব্যস, এটাই একমাত্র তফাত পেয়েছি। স্ক্রিপ্ট ও ফিলোসফিটা একই। আমার কাছে ব্যাচেলর পয়েন্ট হচ্ছে বাঙালির রুচির যে দুর্ভিক্ষ চলছে তার ব্যারোমিটার।’

নাটকটির নির্মাতা কাজল আরেফিন অমির একটি বক্তব্য তুলে ধরে রাসেল লেখেন, ‘অবশ্য নির্মাতা অমি বলেছে যে “যারা ব্যাচেলার পয়েন্টকে ভাঁড়ামি বলে তারা কমেডিই বোঝে না।’’’

বিখ্যাত কমেডিয়ান চার্লি চ্যাপলিনের জন্মদিনের প্রসঙ্গ টেনে রাসেল লেখেন, ‘হ্যাঁ আমি চার্লি চ্যাপলিন থেকে সারা জীবন অ্যাকশন শিখেছি কেবল।

‘ক্ষমা করবেন চার্লি চ্যাপলিন অথর্ব উনমানুষের দেশে জন্মেছি বলেই আজকে আপনার জন্মদিনে এটা নিয়ে লিখতে হলো। শুভ জন্মদিন মায়াস্ত্রো।’

ব্যাচেলর পয়েন্ট নাটিকটির দ্বিতীয় ও তৃতীয় সিজনের বিভিন্ন পর্ব দেয়া রয়েছে ধ্রুব টিভি নামের একটি ইউটিউব চ্যানেলে। এখানে থাকা সব পর্বের সর্বনিম্ন ভিউ দেড় মিলিয়ন।

আরও পড়ুন:
ঢাকায় ডিজনির ‘রায়া অ্যান্ড দ্য লাস্ট ড্রাগন’
‘যারা মন্তব্য করে তাদের কাজ নাই’
সিনেমা হল: হাজার কোটি টাকার ঋণ যেসব শর্তে

শেয়ার করুন

হলিউডকে যেভাবে নাম শেখালেন প্রিয়াঙ্কা

হলিউডকে যেভাবে নাম শেখালেন প্রিয়াঙ্কা

প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। ছবি: সংগৃহীত

কোয়িান্টিকোর উদাহারণ দিয়ে প্রিয়াঙ্কা চোপড়া বলেন, ‘আমি কোয়ান্টিকোতে অভিনয়ের সময় ভারতীয় হয়ে থাকতে পরছিলাম না। কারণ হলিউডের কাছে এই পরিচয় একদমই অচেনা বা গারুত্বহীন।’

সিনেমার অঘোষিত তীর্থস্থান যেন হলিউড। সেখানে যেতে চান চলচ্চিত্র অভিনয়শিল্পী থেকে শুরু করে পরিচালক, প্রযোজক, ক্রুসহ সংশ্লিষ্ট সবাই। কিন্তু জায়গাটা এত সহজ না। সেখানে যেতে এবং টিকে থাকতে পার করতে হয় নানা ঘাত-প্রতিঘাত।

বলিউডের জনপ্রিয় অভিনেত্রী প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। তিন বছর ধরে তিনি হয়েছেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়া জোনাস। তার স্বামী যুক্তরাষ্ট্রের সংগীতশিল্পী ও অভিনেতা। নিকের সঙ্গে পরিচয় হওয়ার আগে থেকেই হলিউডে কাজ শুরু করেন প্রিয়াঙ্কা। তিনি বলিউডের একমাত্র শিল্পী, যিনি এখন দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন হলিউড।

সাত-আট বছর ধরে হলিউডে কাজ করছেন প্রিয়াঙ্কা। গিয়েছিলেন গান করতে। পিপবুলের সঙ্গে তার গান প্রকাশ হওয়ার পর পরই জনপ্রিয় টিভি শো কোয়ান্টিকোতে জায়গা করে নেন তিনি। অভিনয় করেছেন অনেক সিনেমাতেও।

এতকিছুর পরও মনের মতো কাজ করতে পারছিলেন না প্রিয়াঙ্কা। এই অভিনেত্রী মনে করেন, সেটা তিনি এখনও পারছেন না। এর অন্যতম কারণ জাতিগত অস্পষ্টতা বা বর্ণ বৈষম্য। নিজেই এ কথা জানিয়েছেন সম্প্রতি।

প্রিয়াঙ্কা বলেন, ‘আমি হলিউডের মেইনস্ট্রিমে কাজ করতে গিয়ে জাতিগত অস্পষ্টতা বা বর্ণ বৈষম্যের শিকার হয়েছি।’

হলিউডকে যেভাবে নাম শেখালেন প্রিয়াঙ্কা

প্রিয়াঙ্কার নাম ও নামের উচ্চারণ নিয়েও ঝামেলায় পরতে হয়েছে তাকে। সেই অভিজ্ঞতার কথা বলতে গিয়ে প্রিয়াঙ্কা বলেন, ‘‘আমার নামের ‘চোপড়া’ অংশটি কেউ উচ্চারণ করতে পারছিল না। তখন আমি তাদের বললাম, তোমরা যদি ‘অপরা’ উচ্চারণ করতে পার, তাহলে ‘চোপড়া’ শব্দটিও উচ্চারণ করতে পারবে। এইভাবে তাদেরকে আমার নাম বলা শিখিয়েছি।’

হলিউডকে যেভাবে নাম শেখালেন প্রিয়াঙ্কা

কোয়ান্টিকোর উদাহারণ দিয়ে প্রিয়াঙ্কা চোপড়া বলেন, ‘আমি কোয়ান্টিকোতে অভিনয়ের সময় ভারতীয় হয়ে থাকতে পরছিলাম না। কারণ হলিউডের কাছে এই পরিচয় একদমই অচেনা বা গুরুত্বহীন।’

হলিউডকে যেভাবে নাম শেখালেন প্রিয়াঙ্কা

সম্প্রতি বলিউডের আরেক অভিনেতা কবির বেদির আত্মজীবনীর মোড়ক উন্মোচন করেন। সেই অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়া।

আরও পড়ুন:
ঢাকায় ডিজনির ‘রায়া অ্যান্ড দ্য লাস্ট ড্রাগন’
‘যারা মন্তব্য করে তাদের কাজ নাই’
সিনেমা হল: হাজার কোটি টাকার ঋণ যেসব শর্তে

শেয়ার করুন

সালমানের সিনেমাতেও ভরসা পাচ্ছেন না হল মালিকরা

সালমানের সিনেমাতেও ভরসা পাচ্ছেন না হল মালিকরা

রাধে: ইয়োর মোস্ট ওয়ান্টেড ভাই সিনেমার পোস্টার। ছবি: সংগৃহীত

এসব দ্বিধা-সমস্যা কাটিয়ে এবার ঘোষণা এলো সিনেমাটি মুক্তির। সঙ্গে জানা গেল, মুক্তির তারিখও। ঈদেই মুক্তি পাচ্ছে সালমান খানের রাধে: ইয়োর মোস্ট ওয়ান্টেড ভাই। ১৩ মে ভারত ও ভারতের বাইরে মুক্তি পাবে সিনেমাটি।

যেন খেলা চলছে বলিউড ভাইজান সালমান খানের সিনেমা রাধে-ইয়োর মোস্ট ওয়ান্টেড ভাই সিনেমা নিয়ে। গত বছরের ঈদেই সিনেমাটি মুক্তি পাওয়ার কথা ছিল। কোভিডের কারণে তা আর সম্ভব হয়নি। তাই এই ঈদে সিনেমাটি মুক্তির প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন সালমান।

এর মধ্যে হঠাৎ করে জানা গেল সিনেমাটি ওয়েবে বিক্রি করে দিয়েছেন সালমান। এমন খবর পেয়ে হল মালিকরা সিনেমাটি হলে মুক্তি দেয়ার জন্য লিখিত অনুরোধ করেন সালমানকে। সালমানও তাদের কথা রাখেন। সিদ্ধান্ত নেন হলেই মুক্তি দেবেন সিনেমাটি।

এরপর এক ওয়েব টক শোতে এসে সালমান জানান, এ বছর হয়তো রাধে সিনেমাটি মুক্তি না-ও পেতে পারে। কারণ, করোনা পরিস্থিতি খারাপ। হলে গিয়ে সিনেমা দেখার পরিস্থিতি নেই। তিনি আরও জানান, তারা প্রস্তুত আছেন, যদি পরিস্থিতি ভালো হয় তাহলে অবশ্যই রাধে সিনেমাটি মুক্তি পাবে।

এসব দ্বিধা-সমস্যা কাটিয়ে এবার ঘোষণা এলো সিনেমাটি মুক্তির। সঙ্গে জানা গেল, মুক্তির তারিখও। ঈদেই মুক্তি পাচ্ছে সালমান খানের রাধে: ইয়োর মোস্ট ওয়ান্টেড ভাই। ১৩ মে ভারত ও ভারতের বাইরে মুক্তি পাবে সিনেমাটি।

ওটিটিতেও আসবে রাধে। জিপ্লেক্সে দেখা যাবে ভাইজানের সিনেমা। সিনেমাটি পরিচালনা করেছেন প্রভু দেবা। তবে সালমান খানের এই সিনেমা নিয়ে ব্যবসায়ীরা যতটা আশাবাদী, করোনা পরিস্থিতিতে সেই আশা কি পূরণ হবে?

সালমানের সিনেমাতেও ভরসা পাচ্ছেন না হল মালিকরা
সালমান খানসহ রাধে সিনেমার অভিনয়শিল্পীরা ও পরিচালক। ছবি: সংগৃহীত

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম বলছে, অধিকাংশ হল মালিকই সিনেমা হল খোলার ব্যাপারে উদাসীন। হল খুললেই যে দর্শক সালমানের সিনেমা দেখতে ভিড় করবেন, তা নিয়ে ভরসা করতে পারছেন না তারা।

রাধে সিনেমাটি মুক্তি পাবে প্রায় চল্লিশটি দেশে এবং একসঙ্গে। লকডাউনের পর প্রথম ব্রিটেনে মুক্তি পেতে যচ্ছে কোনো ভারতীয় সিনেমা। অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, উত্তর আমেরিকা ও ইউরোপের নানা দেশেও মুক্তি পাচ্ছে সিনেমাটি।

আরও পড়ুন:
ঢাকায় ডিজনির ‘রায়া অ্যান্ড দ্য লাস্ট ড্রাগন’
‘যারা মন্তব্য করে তাদের কাজ নাই’
সিনেমা হল: হাজার কোটি টাকার ঋণ যেসব শর্তে

শেয়ার করুন

ফেসবুক হ্যাকড, মামলা করছেন চাঁদনী

ফেসবুক হ্যাকড, মামলা করছেন চাঁদনী

অভিনেত্রী ও নৃত্যশিল্পী চাঁদনী মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছেন। ছবি: সংগৃহীত

চলতি বছরের ২৫ জানুয়ারি বিষয়টি নিয়ে ভাটারা থানায় জিডি করেন চাঁদনী। সেখানেও তিনি উল্লেখ করেছেন যে, সেই আইডি থেকে বিভিন্ন ধরণের ছবি পোস্ট করা হচ্ছে।

নৃত্যশিল্পী ও জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত অভিনেত্রী মেহবুবা মাহনূর চাঁদনীর ফেসবুক অ্যাকাউন্ট হ্যাক হয়েছে। অভিনেত্রীর দাবি, সেই অ্যাকাউন্ট থেকে বাজে ছবি পোস্ট করছে হ্যাকাররা।

নিউজবাংলার সঙ্গে আলাপকালে এসব তথ্য জানান চাঁদনী।

তিনি জানান, গত বছরের ১২ নভেম্বর তার ফেসবুক অ্যাকাউন্টটা হ্যাক হয়। সেই অ্যাকাউন্ট থেকে অন্য মেয়ের ছবি ছড়ানো হচ্ছে।

চাঁদনী আরও জানান, বিষয়টি নিয়ে জিডি করে রেখেছেন তিনি। তবে এবার মামলা করবেন।

ঘটনাটি ঘটেছে পাঁচ মাস হলো। এত পরে কেন মামলার কথা ভাবছেন, জানতে চাইলে চাঁদনী বলেন, ‘এতদিন শিওর ছিলাম না যে কাজটি কারা করেছে। এখন আমি নিশ্চিত হয়েছি কারা এটার সঙ্গে জড়িত।’

ঘটনার কিছু বর্ণনা দিয়ে চাঁদনী বলেন, ‘একজন নৃত্যশিল্পী কোরিওগ্রাফার, নামটা এখন বলছি না, সে পরিচিত মুখ। তার একটা ফেসবুক লাইভে আমি গিয়েছিলাম। সে আমার অ্যাকাউন্ট থেকে লাইভটা শেয়ার করতে চায়। তখন আমি তাকে বলি আমার ফেসবুকে ঢুকতে পারছি না।

‘তার কথায় তারই এক পরিচিতকে আমার সব তথ্য দেই। সে আমার আইডি উদ্ধার করে দেয় কিন্তু ভেরিফায়েড কোড তার কাছে যায়।

‘বিষয়টি নিয়ে কথা বলতে গেলে নৃত্যশিল্পীর পরিচিতজন বিভিন্ন ব্যস্ততা দেখায়। পরে আর দিলোই না।

চাঁদনী বলেন, ‘আমার কাছে এখন পরিস্কার এই দুইজনই আমার অ্যাকাউন্ট হ্যাক করেছে।’

চলতি বছরের ২৫ জানুয়ারি বিষয়টি নিয়ে ভাটারা থানায় জিডি করেন চাঁদনী। সেখানেও তিনি উল্লেখ করেছেন যে, সেই আইডি থেকে বিভিন্ন ধরণের ছবি পোস্ট করা হচ্ছে।

দীর্ঘ বিরতির পর সম্প্রতি চাঁদনী অভিনয় করেছেন ‘অসমাপ্ত চা’ নামের একটি স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রে।

আরও পড়ুন:
ঢাকায় ডিজনির ‘রায়া অ্যান্ড দ্য লাস্ট ড্রাগন’
‘যারা মন্তব্য করে তাদের কাজ নাই’
সিনেমা হল: হাজার কোটি টাকার ঋণ যেসব শর্তে

শেয়ার করুন

পর্দার প্রতিদ্বন্দ্বী জিমে সহকারী

পর্দার প্রতিদ্বন্দ্বী জিমে সহকারী

ওয়ার্ক আউটের সময় সারা ও জাহ্নবী। ছবি: সংগৃহীত

মালদ্বীপে ছুটি কাটাতে গেলেও জিম করা বাদ যায়নি দুই নায়িকার। সুইমিং পুলের পাশেই এই দুই নায়িকা জিমের পোশাকে বেশ অনেকটা সময় দিয়েছেন।

তারা পর্দায় প্রতিদ্বন্দ্বী। সারা আলি খান ও জাহ্নবী কাপুর- দুজনেই ক্যারিয়ারে এবং বয়সে উঠতি নায়িকা। দুজনের মধ্যে সারা দুই বছরের বড়। তারপরও তাদের সম্পর্ক বন্ধুর মতোই। তবে রুপালি পর্দার সমিকরণে তাদের মধ্যে অদৃশ্যভাবেই আছে নায়িকা লড়াই।

দুজনেই এখন ভীষণ ব্যস্ত। সিনেমা, ফটোশুট, জিমে সময় কেটে যায় তাদের। করোনার কারণে কিছুটা সময় পেয়েছেন দুজনেই। আর সময় পেতেই ছুটে গেছেন মালদ্বীপ। জাহ্নবী তো অনেকদিন ধরেই আছেন সেখানে। সম্প্রতি সেখানে গেছেন সারা।

মালদ্বীপে এই দুই নায়িকাকে দেখা গেল একসঙ্গে; তাও আবার ওয়ার্ক আউট করার সময়। পর্দায় কে আগে, কে পরে ভুলে হাতে হাত রেখে কাটিয়ে দিলেন কিছু মুহূর্ত।

মালদ্বীপে ছুটি কাটাতে গেলেও জিম করা বাদ যায়নি দুই নায়িকার। সুইমিং পুলের পাশেই এই দুই নায়িকা জিমের পোশাকে বেশ অনেকটা সময় দিয়েছেন। সেই ছবি ইনস্টাতে পোস্ট করেছেন সারা আলি।

সেখানে দেখা যাচ্ছে, দুজনে পাশাপাশি দাঁড়িয়ে একই ঢংয়ে শরীর চর্চা করছেন। ব্যায়াম করতে একে অপরকে সাহায্য করতে দেখা গেছে ভিডিওতে। সেসময় তাদের সঙ্গে ছিলেন একজন ট্রেইনারও।

পর্দার প্রতিদ্বন্দ্বী জিমে সহকারী
শরীর চর্চায় ব্যস্ত জাহ্নবী কাপুর ও সারা আলি খান। ছবি: সংগৃহীত

জাহ্নবী কাপুর মালদ্বীপে সময় কাটাচ্ছেন তার বন্ধুদের সঙ্গে। অন্যদিকে সারার সঙ্গে আছেন তার মা অম্রিতা সিং।

এর আগেও জাহ্নবী এবং সারাকে একসঙ্গে দেখা গেছে এবং সেটিও জিম থেকে ফেরার সময়।

আরও পড়ুন:
ঢাকায় ডিজনির ‘রায়া অ্যান্ড দ্য লাস্ট ড্রাগন’
‘যারা মন্তব্য করে তাদের কাজ নাই’
সিনেমা হল: হাজার কোটি টাকার ঋণ যেসব শর্তে

শেয়ার করুন