করোনায় আক্রান্ত কুমার শানু

কুমার শানু

করোনায় আক্রান্ত কুমার শানু

কয়েকদিন আগে জ্বর এসেছিল কুমার শানুর। এরপর করোনা সন্দেহে পরীক্ষা করানো হয়। এরপরই জানা যায়, তিনি  করোনা পজিটিভ । 

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ভারতের জনপ্রিয় গায়ক কুমার শানু। বৃহস্পতিবার রাতে কুমার শানুর ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে তার টিম লিখেছে, ' দুর্ভাগ্যজনকভাবে শানু দা করোনা আক্রান্ত। সবাই তার সুস্বাস্থ্যের জন্য প্রার্থনা করুন। ধন্যবাদ।'

কুমার শানুর টিম জানায়, কয়েকদিন আগে জ্বর এসেছিল কুমার শানুর। এরপর করোনা সন্দেহে পরীক্ষা করানো হয়। এরপরই জানা যায়, তিনি করোনা পজিটিভ ।

কুমার শানুর ১৪ অক্টোবর স্ত্রী সালোনি এবং কন্যা শ্যানন এবং আনাবেলের সঙ্গে থাকার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলেসে যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু অসুস্থতার কারণে সে পরিকল্পনা বাতিল করা হয়।

কুমার শানুর যুক্তরাষ্ট্রপ্রবাসী স্ত্রী সালোনিকে উদ্ধৃত করে ভারতের বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম জানায়, সতর্কতামূলক পদক্ষেপ হিসেবে বৃহন্মুম্বই মিউনিসিপ্যাল করপোরেশন কুমার শানুর বাড়ি সিল করে দিয়েছে ।এখন তিনি সেখানে ১৪ দিনের কোয়ারেনটিনে আছেন। সুস্থ হয়ে উঠলে আগামি ৮ নভেম্বর তিনি যুক্তরাষ্ট্রের উদ্দেশে রওনা করবেন। যদি কুমার শানু তখনো সুস্থ না হন তা হলে তার পরিবার মুম্বাই চলে আসবেন।


কিছুদিন আগে স্টার জলসার রিয়্যালিটি শো 'সুপার সিঙ্গার' এর গ্র্যান্ড ফিনালের দিন বিচারক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জনপ্রিয় এই সঙ্গীতশিল্পী।

সূত্র : হিন্দুস্তান টাইমস ও টাইমস অব ইন্ডিয়া

শেয়ার করুন

মন্তব্য

জেমসের কাছে ক্ষমা চেয়ে হ্যাকড নাটকের ইঙ্গিত নোবেলের?

জেমসের কাছে ক্ষমা চেয়ে হ্যাকড নাটকের ইঙ্গিত নোবেলের?

জেমসের কাছে ক্ষমা চেয়েছেন নোবেল। ছবি কোলাজ: নিউজবাংলা

ক্ষমা চেয়ে নোবেল লেখেন, ‘তবুও, যদি নিজের ছোট ভাই এবং আপনার সবচেয়ে বড় ভক্ত মনে করে আমাকে একটু ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখতেন, আপনার কাছে চিরকৃতজ্ঞ থাকতাম।’

দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয়দের মধ্যে অন্যতম সংগীতশিল্পী জেমসের কাছে ক্ষমা চেয়েছেন তরুণ কণ্ঠশিল্পী নোবেল। রাত নয়টার দিকে নিজের ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে এক স্ট্যাটাসের মাধ্যমে জেমসের কাছে নিজেকে ক্ষমা করে দেয়ার আর্জি জানান তিনি।

নোবেল লেখেন, ‘জেমস ভাই। আমার তো মায়ের পেটের বড় ভাই নাই। যদি থাকতো, আমি তাকে আপনার মতো করেই ভালোবাসতাম, শ্রদ্ধা করতাম।’

নিজের ভুল শিকার করে নোবেল লেখেন, ‘জেনে না জেনে, বুঝে না বুঝে, রাগ অভিমানে, অনেক অন্যায় করে ফেলেছি। গুরু!! যে ভুল আমি করেছি, সে ভুলের ক্ষমা চাওয়ার যোগ্য আমি নই।’

এর পর ক্ষমা চেয়ে নোবেল লেখেন, ‘তবুও, যদি নিজের ছোট ভাই এবং আপনার সবচেয়ে বড় ভক্ত মনে করে আমাকে একটু ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখতেন, আপনার কাছে চিরকৃতজ্ঞ থাকতাম।’

এই ক্ষমা চাওয়ার কারণে নতুন প্রশ্নের জন্ম দিলেন নোবেল। ১৪ মে যখন ‘জেমস কে ওপেন CHALLENGE! একই গান জেমস গাবে, আমিও গাবো!’, ‘ওই জেমস! গান গাবা এক স্টেজে? তোমারে ১০০০ মিউজিশিয়ান দেবো। আর আমি একা একটা মাইক্রোফোন!’, ‘ওই জেমস! ঈদের গান কই? নাকি ভয়েস গেছেগা?’ স্ট্যাটাসগুলো পোস্ট হওয়ার পর নোবেল বলেছিলেন, তার ভেরিফাইড ফেসবুক পেজ হ্যাকড হয়েছে এবং স্ট্যাটাসগুলো হ্যাকার লিখেছে।

যদি স্ট্যাটাসগুলো হ্যাকার লিখে থাকে, তাহলে জেমসের কাছে নোবেলের ক্ষমা চাওয়ার কোনো কারণ নেই।

তাহলে কেন তিনি জেমসের কাছে ক্ষমা চাইলেন, জানতে একাধিকবার ফোন করেও নোবেলকে পাওয়া যায়নি। হোয়াটস অ্যাপে প্রশ্ন লিখে পাঠানো হলে, তিনি তা দেখেও কোনো উত্তর দেননি।

প্রশ্ন পাঠানোর দেড় ঘণ্টা পর হোয়াটস অ্যাপে নোবেল ভয়েস এসএমএসে জানান, ভেরিফাইড ফেসবুক পেজ হ্যাক হয়েছিল। কিন্তু তার পেজের সিকিউরিটি সিস্টেম দুর্বল হওয়ায় জেমসকে নিয়ে বাজেভাবে লেখার সুযোগ পেয়েছে হ্যাকার। এই দুর্বলতা নিজের মেনে নিয়েই ক্ষমা চেয়েছেন নোবেল।

শেয়ার করুন

আর এমন ভুল হবে না: নোবেল

আর এমন ভুল হবে না: নোবেল

কণ্ঠশিল্পী নোবেল। ছবি: সংগৃহীত

শেষে তিনি সাংবাদিকদের উদ্দেশ্য করে লেখেন, ‘আমি সকল সাংবাদিক ভাইদের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে কথা দিচ্ছি পরবর্তীতে এরকম ভুল আর হবে না... সবাইকে ভালোবাসা... ঈদ মোবারক।’

ঈদের দিন (১৪ মে) থেকে নানা আলোচনা-সমালোচনার মধ্যে ছিলেন তরুণ কণ্ঠশিল্পী নোবেল। শেষ সোমবার (১৭ মে) তার নামে জিডিও হয়। তার একদিন পর নোবেল তার ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে সাংবাদিক ভাইদের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে জানালেন, এমন ভুল আর হবে না।

কিছুটা কষ্ট নিয়ে তিনি লেখেন, ‘রোড এক্সিডেন্টের পর আমাকে কেউ একবার কল করে খবর নিল না। নিজের আবেগ আসলে ধরে রাখতে পারি নাই। আমি মাত্র ২৪ বছর বয়সী একজন তরুণ শিল্পী। আমিও তো দেশের জন্য সুনাম কুড়িয়ে এনেছি।’

ভুলের কথা উল্লেখ করে তিনি লেখেন, ‘আমি না হয় ভুল করব। সেগুলি ভুল ধরে দেওয়ার দায়িত্ব তো আপনাদের। সেখানে অনেকেই আমাকে প্রতিনিয়ত হেয় করছেন। তাই আসলে রাগ সামলাতে পারিনি।’

শেষে তিনি সাংবাদিকদের উদ্দেশ্য করে লেখেন, ‘আমি সকল সাংবাদিক ভাইদের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে কথা দিচ্ছি পরবর্তীতে এরকম ভুল আর হবে না... সবাইকে ভালোবাসা... ঈদ মোবারক।’

আরও পড়ুন: জেমসের কাছে ক্ষমা চেয়ে হ্যাকড নাটকের ইঙ্গিত নোবেলের?

সাংবাদিককে তুলে নিয়ে আসার হুমকি দিয়েছিলেন নোবেল। স্ট্যাটাসে লিখেছিলেন ‘‘পৃথিবীর সমস্ত সাংবাদিকদের ওপেন চ্যালেঞ্জ! আমার একটা ‘চুল’ ছিড়ে দেখাও! প্লিজ, অনেক দিন ‘চুল’ কাটি নাই।’’

এ ছাড়া ঈদের দিন শুক্রবার (১৪ মে) থেকেই ভেরিফেইড ফেসবুক হ্যাকড হওয়া, সুরকার আহমেদ হুমায়ূনের ক্যারিয়ার শেষ করে দেয়ার হুমকি, নিজের মৃত্যুর তারিখ ঘোষণা, গানের ইতি টানার পোস্টে সয়লাব ছিল তার পেজ।

শেয়ার করুন

অ্যাম্বুলেন্সের ভাড়া নিয়ে শ্রীলেখার ক্ষোভ

অ্যাম্বুলেন্সের ভাড়া নিয়ে শ্রীলেখার ক্ষোভ

সেখানে লেখেন, ‘উত্তরপাড়া থেকে কলকাতায় করোনা রোগীকে আনতে অ্যাম্বুলেন্স ভাড়া দিতে হল ৩৩ হাজার টাকা। গহনা বন্ধক দিয়ে টাকা মেটালেন স্ত্রী। এই লজ্জা আমরা কোথায় রাখব?’

করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে ক্রমশ খারাপ পরিস্থিতি তৈরি হচ্ছে ভারতের পশ্চিমবঙ্গে। সংক্রমণ রোধে গত রোববার থেকে দেয়া হয়েছে দুই সপ্তাহের লকডাউন। বন্ধ রয়েছে সরকারি-বেসরকারি সব রকমের পরিবহন ব্যবস্থা।

যার সুযোগ নিয়ে ভাড়া বাড়িয়ে দিয়েছে অ্যাম্বুলেন্স ব্যবসায়ীরা। রোগীকে হাসপাতালে নিয়ে যেতে প্রায় সর্বশান্ত হতে হচ্ছে পরিবারকে।

এবার বিষয়টি নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন অভিনেত্রী শ্রীলেখা মিত্র।

নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক অ্যাকাউন্টে লিখিত তথ্য সম্বলিত একটি ছবি পোস্ট করেছেন এই অভিনেত্রী।

সেখানে লেখেন, ‘উত্তরপাড়া থেকে কলকাতায় করোনা রোগীকে আনতে অ্যাম্বুলেন্স ভাড়া দিতে হল ৩৩ হাজার টাকা। গহনা বন্ধক দিয়ে টাকা মেটালেন স্ত্রী। এই লজ্জা আমরা কোথায় রাখব?’

‘বড় বড় ভাষণ না দিয়ে কি.মি. পিছু ভাড়া নির্দিষ্ট করুক রাজ্য সরকার। প্রযোজনে কঠোর ব্যবস্থা নিক। প্রতি বৎসর ২ লাখ টাকা অনুদান পেয়ে ফুর্তি করেছে ক্লাবগুললো। কোথাও তারা এগিয়ে আসছে না কেন? লাখ লাখ টাকা পেয়েও সব ক্লাবই সেবাকাজে অনুপস্থিত।’

লিখিত তথ্য সম্বলিত এই ছবিটি পোস্ট করে শ্রীলেখা লেখেন, ‘যারা শুধু কেন্দ্রকে দুষছেন আর রাজ্যের ব্যাপারে চোখে ঠুলি এটেছেন, এটা বিশেষ করে তাদের জন্য। বিজেমূল (বিজেপি+তৃণমূল) হইতে আর কতবার সাবধান করব আপনাদের? লেসার ইভিল থিওরি আর কপচাবেন না, যথেষ্ট হয়েছে। জয় বাংলা।’

শেয়ার করুন

সালমানের ‘কেরামতি’ শেষ!

সালমানের ‘কেরামতি’ শেষ!

সালমান খান। ছবি: সংগৃহীত

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম আরও জানিয়েছে, সালমানের মতো এখন আরও অনেকেই আছে। পেশিবহুল চেহারা, মারপিটের কেরামতিসহ আরও নানাভাবে যে তারা বড় পর্দায় বাজিমাত করতে পারেন, সে কথা ভালোই বুঝতে পারছেন তিনি।

সালমান খানের কেরামতি নাকি শেষ! অন্য কেউ নয়, এমনটা জানিয়েছেন স্বয়ং ভাইজান। সেই ‘মুন্না’ বা ‘প্রেম’ চরিত্রের সালমানকে পর্দাতে যতটা আকর্ষণীয় লাগত, এখন আর তেমন লাগে না দর্শকদের।

বিষয়টি সালমান নিজেই বুঝতে পারছেন। ঈদের সিনেমা রাধে: ইওর মোস্ট ওয়ান্টেড ভাই সিনেমাটি নিয়ে দর্শকরা হতাশ হওয়ার পর এমন উপলব্ধি হয়েছে তার।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে সালমান বলেছেন, ‘আমার বয়স এখন ৫৫-৫৬। কিন্তু ১৪-১৫ বছরে বয়সে আমি যা করতাম এখনও আমি তাই করছি। এই প্রজন্মে টাইগার শ্রফ আছেন, বরুণ ধাওয়ান, রণবীর সিং এবং আয়ুষ শর্মারা আছেন। তাই আমাদের আরও বেশি পরিশ্রম করতে হবে।’

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম আরও জানিয়েছে, সালমানের মতো এখন আরও অনেকেই আছে। পেশিবহুল চেহারা, মারপিটের কেরামতিসহ আরও নানাভাবে যে তারা বড় পর্দায় বাজিমাত করতে পারেন, সে কথা ভালোই বুঝতে পারছেন তিনি। তাই তরুণদের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করার বিষয় নিয়ে চিন্তা করছেন সালমান।

সালমানের ‘কেরামতি’ শেষ!
বলিউড ভাইজান সুপারস্টার সালমান খান। ছবি: সংগৃহীত

বলিউড ভাইজান বিশ্বাস করেন পরিশ্রমের বিকল্প নেই। অভিনেতা জানিয়েছেন, নিজেকে নতুন করে উপস্থাপন করতে আরও বেশি ঘাম ঝরাবেন তিনি। দর্শকরা নিশ্চয়ই এই পরিশ্রমের দাম দেবেন বলে মনে করেন সালমান।

রাধে প্রথম দিনে সবচেয়ে বেশি দেখার রেকর্ড গড়লেও দর্শকদের নিরাশ করেছে। অসংখ্য ট্রল, মিম তো তাই বলছে। আইএমডিবিতে রাধের রেটিং মাত্র ১ দশমিক ৭।

শেয়ার করুন

এই আমাদের আচরণ: জয়া

এই আমাদের আচরণ: জয়া

সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা ও গ্রেফতার নিয়ে জয়ার প্রতিবাদ। ছবি: সংগৃহীত

রোজিনাকে তার পরিবারের কাছে দ্রুত ফিরিয়ে দেয়ার দাবি জানিয়ে জয়া লেখেনে, ‘স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতেই এমন অশুভ একটি ঘটনা আমাদের দেখতে হলো?’

সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা ও গ্রেফতারের প্রতিবাদ করেছেন জনপ্রিয় অভিনেত্রী জয়া আহসান।

নিজের ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে বিষয়টি নিয়ে জয়া লিখেছেন, ‘রোজিনা সাংবাদিকতার দায়িত্ব পালন করতে গিয়েছিলেন, সিঁধ কাটতে নয়। দেখতে পেলাম হেনস্তার শিকার হয়ে তিনি মাটিতে পড়ে যাচ্ছেন। এই আমাদের আচরণ! এই আমাদের সভ্যতা!’

তিনি আরও লেখেন, ‘রোজিনার গলার ওপর চেপে বসা আঙুলগুলো গভীর অর্থময় এক প্রতীকের মতো লাগছে। মনে হচ্ছে, আঙুলগুলো কোনো ব্যক্তির গলায় নয়, বরং বাংলাদেশের বাকস্বাধীনতার কণ্ঠনালিতে চেপে বসেছে।’

রোজিনাকে তার পরিবারের কাছে দ্রুত ফিরিয়ে দেয়ার দাবি জানিয়ে জয়া লেখেন, ‘স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতেই এমন অশুভ একটি ঘটনা আমাদের দেখতে হলো?’

রোজিনা ইসলাম সোমবার সচিবালয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে গেলে তাকে অবরুদ্ধ করে রাখেন সেখানকার কর্মকর্তারা। ওই সময় তাকে নির্যাতনের অভিযোগ করেছেন স্বজনেরা।

সোমবার রাতে রোজিনাকে শাহবাগ থানায় নিয়ে রাষ্ট্রীয় গোপন নথি চুরির অভিযোগে মামলা করে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

মঙ্গলবার সকালে রোজিনাকে ঢাকার মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করা হয়। সেখানে জামিন আবেদন করেন রোজিনার আইনজীবীরা। জামিন আবেদন আংশিক শুনানি শেষে বাকি শুনানির জন্য বৃহস্পতিবার দিন ধার্য করা হয়েছে। এখন রোজিনা ইসলামকে রাখা কাসিমপুর কারাগারে।

শেয়ার করুন

শুটিংয়ে ঝন্টুর কাছে পণ্ড হলো লেবুর ‘টেবিল ওয়ার্ক’

শুটিংয়ে ঝন্টুর কাছে পণ্ড হলো লেবুর ‘টেবিল ওয়ার্ক’

সিনেমার সেটে দুই পরিচালক। ছবি: নিউজবাংলা

টেবিল ওয়ার্ক অনুযায়ী সে কাজ করতে গিয়ে মহা ঝামেলায় পড়েন লেবু। পরিচালক দেলোয়ার জাহান ঝন্টু দৃশ্য ধারণের প্রক্রিয়া, ক্যামেরা অ্যাঙ্গেল এবং ক্যামেরার মুভমেন্টে ভুল ধরা, নতুন উপায় বের করা এবং পরিচালককে সে অনুযায়ী কাজ করতে বলেন।

এফডিসিতে শুরু হয়েছে প্রেম প্রীতির বন্ধন নামের নতুন একটি সিনেমার দৃশ্যধারণ। এটি পরিচালনা করছেন সোলায়মান আলী লেবু। সিনেমায় অভিনয় করছেন অপু বিশ্বাস, জয় চৌধুরী, মিশা সওদাগর। সোমবার (১৭ মে) ছিল সিনেমার প্রথম দিনের শুটিং।

শুটিং সেটে গিয়ে দেখা গেল পরিচালক লেবু তার ‘ওস্তাদ’ দেলোয়ার জাহান ঝন্টুকে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। নিজের প্রথম পরিচালিত সিনেমার কাজে ‘ওস্তাদ’ থাকবেন না, তা কি করে হয়।

কিন্তু ওস্তাদের জ্বালায় নিজের মতো করে নির্দেশনাই দিতে পারছিলেন না লেবু। প্রথম সিনেমা হওয়ায় বেশ ভালো করে টেবিল ওয়ার্ক অর্থাৎ শট ডিভিশনসহ নানাকিছু করে এনেছেন তিনি। সিনেমাটোগ্রাফার, প্রোডাকশন ম্যানেজারসহ বসে পরিচালক লেবু এ কাজ করেছেন।

কিন্তু টেবিল ওয়ার্ক অনুযায়ী সে কাজ করতে গিয়ে মহা ঝামেলায় পড়েন লেবু। পরিচালক দেলোয়ার জাহান ঝন্টু দৃশ্য ধারণের প্রক্রিয়া, ক্যামেরা অ্যাঙ্গেল এবং ক্যামেরার মুভমেন্টে ভুল ধরেন, নতুন উপায় বের করেন এবং পরিচালককে সে অনুযায়ী কাজ করতে বলেন।

পরিচালক লেবু তার টেবিল ওয়ার্কের ওপর আস্থা রেখে কাজ করতে চান, তাই ‘ওস্তাদ’ এর সঙ্গে মাঝে মাঝেই যুক্তি-তর্কে জড়ান। কিন্তু ঝন্টুর উচ্চকণ্ঠ ও সাড়াশি আচরণের কারণে যুক্তিতে ঠিক থেকেও পরাস্ত হন লেবু। সিনেমাটোগ্রাফার এবং প্রোডাকশর ম্যানেজারও জেষ্ঠ্য পরিচালক ঝন্টুর কথার পিঠে নিজেদের যুক্তি প্রতিষ্ঠা করতে ব্যর্থ হন।

শুটিংয়ে ঝন্টুর কাছে পণ্ড হলো লেবুর ‘টেবিল ওয়ার্ক’
প্রথম সিনেমান শুটিংয়ে সোলায়মান আলী লেবু, দেলোয়ার জাহান ঝন্টু ও সিনেমাটোগ্রাফার। ছবি:নিউজবাংলা

অনেক রকম কথার মধ্যে ঝন্টু এক পর্যায়ে লেবুকে বলেন, ‘তুমি ডিরেক্টরই না। নতুন হিসেবে তোমাকে এ কথা বলতে পারি। টেবিলে বসে ওনেক কিছু করা যায়। সেটা ভালো। কিন্তু স্পটে প্রায়ই সেগুলো পরিবর্তন করতে হয়। পুরো জিনিসটা দেখার পর মনে হয় অন্যভাবে করতে ভালো লাগবে।’

যুক্তি-তর্ক করলেও লেবু তার ‘ওস্তাদ’ এর প্রতি সহনশীল ছিলেন। ঝন্টুর মতো করেই শেষ পর্যন্ত কাজ করছেন তিনি, কিন্তু সেটা অখুশি হয়ে। ‘ওস্তাদ’ এর প্রতি শ্রদ্ধা জানাতেই তার কথা মেনে নিয়েছেন লেবু। তবে তিনি টেবিল ওয়ার্ক অনুযায়ী কাজ করতে চেয়েছিলেন।

নিউজবাংলাকে লেবু বলেন, ‘একজনের গল্পের কাজ অন্য জন করতে পারবে না। এটা তো ড্রামা। আমি যখন এটা নিয়ে ভেবেছি, তখন আমি সিনেমাটি মনে মনে দেখেছি। সে অনুযায়ী কাজটি করেছি।’

শুটিংয়ে ঝন্টুর কাছে পণ্ড হলো লেবুর ‘টেবিল ওয়ার্ক’
শুটিং সেটে কথা বলছেন দেলোয়ার জাহান ঝন্টু ও সোলায়মান আলী লেবু। ছবি: নিউজবাংলা

তিনি আরও বলেন, ‘সাগরেদের তো ভুল হবেই। কিন্তু ওস্তাদও তো ভুল করতে পারে। আর ওস্তাদের ভুল হলে যে সাগরেদের কিছু করার থাকে না, সেটা বুঝলাম।’

লেবু-ঝন্টু যখন দৃশ্যধারণের নানা বিষয় নিয়ে যুক্তি-তর্কে ছিলেন, তখন অপু বিশ্বাস, মিশা সওদাগর ও জয়কে অসহায় দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে। তারা একে ওপরের সঙ্গে কথা বলেছেন, বসে থেকেছেন। মাঝে মাঝে মিশা সওদাগরকে ওস্তাদ-সাগরেদের কথার মধ্যে ঢুকতে দেখা গেঝে। সেখানে তিনি ঝন্টুর কথা মতো কাজ করার অনুরোধ করেছেন লেবুকে।

শেয়ার করুন

‘শেরনি’ হয়ে আসছেন বিদ্যা বালান

‘শেরনি’ হয়ে আসছেন বিদ্যা বালান

করোনা পরিস্থিতির কারণে সিনেমা হলের দরজা কবে খুলবে তার ঠিক নেই। এমন পরিস্থিতিতে অনলাইন অনলাইনের সিনেমাটি মুক্তি পেতে যাচ্ছে। আগামী জুনে আমাজন প্রাইম ভিডিও প্ল্যাটফর্মে মুক্তি পাবে সিনেমাটি।

বেশ কয়েক বছর বিরতির পরে শেরনি অবতারে ফিরছেন বিদ্যা বালান।

নিজের ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টে শেরনির পোস্টার প্রকাশ করে এ কথা নিজেই জানিয়েছেন কাহানি খ্যাত এই অভিনেত্রী।

সেই পোস্টারের ক্যাপশনে বিদ্যা লেখেন, ‘নির্ভয়ে সে বাইরের দুনিয়ায় পা রাখল! আমার সর্বশেষ চলচ্চিত্র “শেরেনি” ঘোষণা দিতে পেরে আমি খুশি।’

করোনা পরিস্থিতির কারণে সিনেমা হলের দরজা কবে খুলবে তার ঠিক নেই। এমন পরিস্থিতিতে অনলাইন অনলাইনের সিনেমাটি মুক্তি পেতে যাচ্ছে। আগামী জুনে আমাজন প্রাইম ভিডিও প্ল্যাটফর্মে মুক্তি পাবে সিনেমাটি।

নিউটন সিনেমার পরিচালক অমিত মাসুরকরের পরিচালনার শেরনিতে বিদ্যা বালানকে দেখা যাবে একজন ফরেস্ট অফিসারের ভূমিকায়।

গত বছর ফেব্রুয়ারি মাসে নিজের এই নতুন সিনেমার কথা সোশ্যাল মিডিয়ায় জানিয়েছিলেন বিদ্যা।

এই সিনেমার শুটিংয়ের শুরু থেকেই একাধিক বিতর্ক হয়েছে। শোনা যায়, ভারতের মধ্যপ্রদেশের জঙ্গলে শেরনির শুটিং করছিলেন বলিউড অভিনেত্রী বিদ্যা বালান। শুটিংয়ে বিদ্যার উপস্থিতির খবর পেয়ে তাকে নৈশভোজের নিমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন রাজ্যের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বিজয় শাহ। কিন্তু বিদ্যা সে নিমন্ত্রণে সাড়া দেননি।

এ ঘটনার পরের দিন বিদ্যাসহ সিনেমার কলাকুশলীদের শুটিং সেটে ঢুকতে বাধা দেন মধ্যপ্রদেশের বালাঘাট জেলা বন কর্মকর্তা। তাদের বলা হয়, শুধু দুটি গাড়ি জঙ্গলে ঢুকতে পারবে। এমন পরিস্থিতিতে বন্ধ হয়ে যায় শুটিং।

সে সময় টাইমস নাউয়ের প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানানো হয়। তবে মন্ত্রী কখন নিমন্ত্রণ জানিয়েছেন বা কবে বিদ্যার শুটিং বন্ধ হয়েছে, সে বিষয়ে প্রতিবেদনে কিছু জানানো হয়নি।

তবে শুটিং বন্ধে কোনো ভূমিকা নেই বলে দাবি করেছিলেন মধ্যপ্রদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বিজয় শাহ।

এর আগেই একবার শেরনি সিনেমার শুটিং বন্ধ হয়ে যায়। সে সময় এই সিনেমার অভিনেতা বিজয় রাজের বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল, তিনি শুটিং সেটের এক নারীকে উত্ত্যক্ত করেছেন। ওই নারীর অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে পুলিশ বিজয় রাজকে গ্রেপ্তারও করে।

সিনেমায় বিদ্যা ছাড়াও রয়েছেন বিজয় রাজ, নীরজ কবি, ব্রীজেন্দ্র কালরা, ইলা অরুণ, শরৎ সাক্সেনা।

শেয়ার করুন