20201002104319.jpg
20201003015625.jpg
সব সিনেমা হল খুলবে কি

দেশের সিনেমা হল খোলার ঘোষণা দিলেও কতটি খুলবে তার নিশ্চয়তা পাওয়া যাচ্ছে না। ছবি: নিউজবাংলা

সব সিনেমা হল খুলবে কি

শুক্রবার থেকে সিনেমা হল খোলার ঘোষণা এলেও খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে অনেক হল খোলার ব্যাপারে আগ্রহী নন মালিকেরা। হলগুলো প্রস্তুত নয়। হাতে সিনেমাও নেই।

১৬ অক্টোবর শুক্রবার থেকে সারা দেশের সিনেমা হল বা প্রেক্ষাগৃহগুলো খোলার ঘোষণা দিয়েছে সরকার। সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে হলের আসন সংখ্যার কমপক্ষে অর্ধেক খালি রাখতে হবে।

কিন্তু দীর্ঘ আট মাস ধরে বন্ধ থাকা হলগুলোর কতগুলো আসলে এদিন খোলার মতো অবস্থায় আছে? সিনেমা ও দর্শক উভয়ের খরায় ভোগা হলগুলো এমনিতেই একটির পর একটি বন্ধ করে দিচ্ছিলেন মালিকেরা। তারা বলছেন, দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার কারণে সংস্কার ছাড়া অনেক হল খোলা কঠিন হয়ে যাবে। এ ছাড়া তাদের হাতে নতুন সিনেমাও নেই।

চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতির সহসভাপতি মিয়া আলাউদ্দীন বলেন, দীর্ঘদিন হল বন্ধ থাকায় অনেক যন্ত্রপাতি অকেজো হয়ে পড়েছে। এগুলো সংস্কার করার প্রয়োজন আছে।

মিয়া আলাউদ্দীন নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার থানার সাথী সিনেমা হলের মালিক।

দু’দশক আগেও সারা দেশে এক হাজারের ওপরে সিনেমা হল ছিল। কিন্তু একের পর এক বন্ধ হতে হতে দেশে এখন প্রায় একশর মত সিনেমা হল আছে। সেগুলোরও বেশিরভাগ বন্ধের আলোচনার মধ্যে আছে।

সিনেমা হল খোলা বিষয়ে জানতে চাইলে জামালপুরের ঝংকার সিনেমা হলের মালিক রাজকুমার গুপ্ত বলেন, ‘হল খোলার অনুমতি পেয়ে লাভ কী? চালাবো কোন সিনেমা? সিনেমাতো নেই।’

Cinema Hall
সিনেমা হল খুলছে ১৬ অক্টোবর। ছবি: নিউজবাংলা

প্রেক্ষাগৃহ ব্যবসার অবস্থা খুব খারাপ জানিয়ে বরিশাল অভিরুচি সিনেমা হলের মালিক এবায়দুল হক চান বলেন, দীর্ঘদিন বন্ধ থেকে সিট-কলকব্জা সব নষ্টের পর্যায়ে চলে গেছে। সংস্কার না করতে পারলে হল খুলতে পারবো না।

ব্যবসা বন্ধ করে দিতে হচ্ছে বলে আক্ষেপ জানিয়ে দিনাজপুর মডার্ন সিনেমা হলের মালিক সেহজাদা পারভেজ বলেন, ‘হল খুললেও নতুন ছবি নাই, ভালো ছবি নাই। পুরান ছবি দিয়ে আর কতদিন হল চালাবো?’

এছাড়া ফরিদপুরের বনলতা সিনেমা হলের মালিক মিলন পাল, কুমিল্লা রুপালী সিনেমা হলের স্বত্বাধিকারী নিজামউদ্দিনসহ অন্তত আরও পাঁচটি সিনেমা হলের মালিক একই শঙ্কার কথা জানিয়েছেন।

সারা দেশে হলগুলোয় যারা সিনেমা সরবরাহ করেন সেই প্রযোজক ও পরিবেশক সমিতির সভাপতি খোরশেদ আলম খসরু বলেন, ‘হল খোলার ঘোষণা হলেও আমাদের সঙ্গে কোনো হল মালিক এখনও সিনেমার জন্য যোগাযোগ করেনি। আমাদের হাতে তো কোনো সিনেমা নেই।

তিনি জানান, ১৬ তারিখ মুক্তির জন্য ‘সাহসী হিরো আলম’ নামে একটিমাত্র সিনেমা জমা আছে। একটি সিনেমা দিয়ে সারা দেশের হল চলবে কীভাবে?

তবে সিনেমার অভাবের অভিযোগ অস্বীকার করে পরিচালক সমিতির সভাপতি মুশফিকুর রহমান গুলজার বলেন, ‘অনেক সিনেমা জমা আছে আমাদের হাতে। দুই ঈদের কমপক্ষে ৮টি সিনেমা তৈরি হয়ে আছে। সব মিলিয়ে কমপক্ষে ১৫-২০ সিনেমা রেডি আছে যা দিয়ে ৩-৪ মাস চালানো যাবে। এর মাঝে নতুন সিনেমা তো তৈরি হবে।’

ঘোষণা এলেও হল খোলা বিষয়ে কোনো সাড়া পড়েনি রাজধানীর সিনেমা হলগুলোতে।

সরেজমিনে রাজধানীর বলাকা সিনেমা হলে দেখা যায় তালাবন্ধ মূল দরজার ভিতরে দুজন নিরাপত্তা কর্মী ছাড়া আর কেউ নেই। নিরাপত্তা কর্মী নুরুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা এখনো জানি না হল খোলা হবে কিনা।’

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক মধুমিতা সিনেমা হলের এক কর্মকতা বলেন, ‘হল খোলার ঘোষণা এলেই তো হবে না। ভালো সিনেমা না থাকলে কি দিয়ে হল চালাবে?’

এছাড়া রাজধানীর ‘জোনাকী’ও ‘আনন্দ’সিনেমা হলে গিয়ে কথা বলার জন্য পাওয়া যায়নি কাউকে।

শেয়ার করুন

মন্তব্য