‘কিউটিস’ নিয়ে মামলা খেল নেটফ্লিক্স

‘কিউটিস’ নিয়ে মামলা খেল নেটফ্লিক্স

চলচ্চিত্রটি সেনেগালের ১১ বছর বয়সী একটি মেয়ে ‘অ্যামি’কে ঘিরে তৈরি।

বিশ্বব্যাপী জনপ্রিয় অনলাইন স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্ম নেটফ্লিক্স। সারা বিশ্বের ‘বিশেষ বিশেষ’ চলচ্চিত্র, ডকুমেন্টারি ও সিরিজ সম্প্রচার করা হয় এতে।

সম্প্রতি সম্প্রচারিত চলচ্চিত্র ‘কিউটিস’ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাসে নেটফ্লিক্সের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

মামলায় অভিযোগ করা হয়, চলচ্চিত্রটি সম্প্রচার করে নেটফ্লিক্স ১৮ বছরের কম বয়সী শিশুদের ‘অশ্লীল প্রদর্শনী’ প্রচার করছে।

টেক্সাসের টায়লার বিভাগের জেলা অ্যাটর্নি লুকাস বাবিন বলেন, ‘চলচ্চিত্রটি আমাদের বিভাগে প্রচার করার জন্য আমরা নেটফ্লিক্সকে অভিযুক্ত করছি।‘

আদালতে মামলা করার সময় বলা হয়, নেটফ্লিক্স এমন একটা চলচ্চিত্র প্রচার করছে যেখানে ১৮ বছরের কম বয়সী শিশুদের ‘অশ্লীলভাবে’ প্রদর্শন করা হচ্ছে তাদের পোশাকের মাধ্যমে, যা শিশুদের বয়সের সঙ্গে বেমানান।

মামলায় নেটফ্লিক্সকে ২০ হাজার ডলার জরিমানারও আবেদন করা হয়েছে।

অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করে নেটফ্লিক্স বলেছে, ‘এর কোনো ভিত্তি নেই। আমরা চলচ্চিত্রটির পাশে আছি।’

‘কিউটিস’ চলচ্চিত্রটি সেনেগালের ১১ বছর বয়সী একটি মেয়ে ‘অ্যামি’কে ঘিরে তৈরি।

সিনেমাটিতে দেখা যায়- অ্যামি সেনেগালের ধর্মীয় পরিবেশে বড় হওয়া এক শিশু, যে তার সমবয়সীদের একটি নাচের দলে যোগ দেয়।

চলচ্চিত্রটির জন্য পরিচালক ও লেখক ফরাসি-সেনেগাল বংশোদ্ভূত মাইমুনা ডোউকোর এ বছরের সানড্যান্স ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে ‘ওয়ার্ল্ড সিনেমা ড্রামাটিক ডিরেক্টর’ পুরস্কার পান।

সানড্যান্স ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে চলচ্চিত্রটি মনোনয়ন পাবার পরেই নেটফ্লিক্স সেটি তাদের প্ল্যাটফর্মে সম্প্রচারের জন্য নির্বাচন করে।

পরিচালক মাইমুনা ডোউকোরের মতে, চলচ্চিত্রটি গভীরভাবে নারীবাদী ও সক্রিয়তাবাদী বার্তা দেয়। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো কীভাবে মেয়েদেরকে যৌনতার প্রতি আকৃষ্ট করতে উৎসাহিত করে- তা দেখানো হয়েছে কিউটিসে।

সূত্র: বিবিসি

শেয়ার করুন

মন্তব্য