× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

শিক্ষা
BCS cannot be given more than twice The information is not correct
google_news print-icon

দুই বারের বেশি বিসিএস দেয়া যাবে না, তথ্যটি ঠিক নয়

দুই-বারের-বেশি-বিসিএস-দেয়া-যাবে-না-তথ্যটি-ঠিক-নয়-
ফাইল ছবি
পিএসসি জানিয়েছে, কেউ বিসিএস পরীক্ষায় দুবারের বেশি অংশ নিতে পারবেন না, এমন কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। পিএসসির কোনো সভায় এ বিষয়ে আলোচনা হয়নি।

বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (বিসিএস) পরীক্ষায় কেউ দুই বারের বেশি আবেদন করতে পারবেন না বলে যে খবর ছড়িয়েছে তা ঠিক নয়।

সরকারি কর্ম কমিশনের (পিএসসি) ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা বুধবার নিউজবাংলাকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

পিএসসি জানিয়েছে, কেউ বিসিএস পরীক্ষায় দুবারের বেশি অংশ নিতে পারবেন না, এমন কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। পিএসসির কোনো সভায় এ বিষয়ে আলোচনা হয়নি।

সম্প্রতি একটি নিউজপোর্টালের বরাতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে এ সংক্রান্ত একটি তথ্য ভাইরাল হয়। এতে বলা হয়, বিসিএসে দুই বারের বেশি আবেদন করা যাবে না।

আরও পড়ুন:
কানাডার নাগরিকত্ব নেয়ায় চাকরিচ্যুত বিসিএস ১৮ ব্যাচের এক কর্মকর্তা
৪৫তম বিসিএসের ফল প্রকাশ, পাস ১২ হাজার ৭৮৯
বিসিএস: প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারীদের জন্য নির্দেশনা

মন্তব্য

আরও পড়ুন

শিক্ষা
DU admission fee increased by Tk 50 application starts on 18 December

ঢাবিতে ভর্তি ফি বাড়ল ৫০ টাকা, আবেদন শুরু ১৮ ডিসেম্বর

ঢাবিতে ভর্তি ফি বাড়ল ৫০ টাকা, আবেদন শুরু ১৮ ডিসেম্বর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। ফাইল ছবি
সভায় ‘আন্ডারগ্র্যাজুয়েট প্রোগ্রাম’-এ ভর্তি পরীক্ষার সময়সূচি নির্ধারণ করা হয়েছে। সময়সূচি অনুযায়ী কলা, আইন ও সামাজিক বিজ্ঞান ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার মাধ্যমে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তিযুদ্ধ শুরু হবে। এ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে ২৩ ফেব্রুয়ারি। এ ছাড়া ব্যবসায় শিক্ষা ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা ২৪ ফেব্রুয়ারি, বিজ্ঞান ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা ১ মার্চ এবং চারুকলা ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা (সাধারণ জ্ঞান ও অংকন) অনুষ্ঠিত হবে আগামী ৯ মার্চ।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ২০২৩-২৪ শিক্ষাবর্ষের আন্ডারগ্র্যাজুয়েট প্রোগ্রামে ভর্তির আবেদন আগামী ১৮ ডিসেম্বর দুপুর ১২টা থেকে শুরু হবে। আবেদনের শেষ সময় ২০২৪ সালের ৫ জানুয়ারি রাত ১১টা ৫৯ মিনিট পর্যন্ত। এ ছাড়া গতবারের চেয়ে ৫০ টাকা বাড়িয়ে এবার আবেদন ফি করা হয়েছে ১০৫০ টাকা।

মঙ্গলবার বিশ্ববিদ্যালয়ের নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবন মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত সাধারণ ভর্তি কমিটির সভায় এসব সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। সভায় বিশ্ববিদ্যালয়ের চারটি ইউনিটে ভর্তির তারিখও চূড়ান্ত করা হয়। উপাচার্য অধ্যাপক এ.এস.এম মাকসুদ কামাল সভার সভাপতিত্ব করেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের অনলাইন ভর্তি কমিটির আহ্বায়ক অধ্যাপক মোস্তাফিজুর রহমান এ সব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

২০২৩-২৪ শিক্ষাবর্ষে ৪টি ইউনিটের মাধ্যমে ‘আন্ডারগ্র্যাজুয়েট প্রোগ্রাম’-এ ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। ইউনিটগুলো হচ্ছে- কলা, আইন ও সামাজিক বিজ্ঞান ইউনিট; বিজ্ঞান ইউনিট; ব্যবসায় শিক্ষা ইউনিট এবং চারুকলা ইউনিট।

সভায় ‘আন্ডারগ্র্যাজুয়েট প্রোগ্রাম’-এ ভর্তি পরীক্ষার সময়সূচি নির্ধারণ করা হয়েছে। সময়সূচি অনুযায়ী কলা, আইন ও সামাজিক বিজ্ঞান ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার মাধ্যমে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তিযুদ্ধ শুরু হবে। এ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে ২৩ ফেব্রুয়ারি। এ ছাড়া ব্যবসায় শিক্ষা ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা ২৪ ফেব্রুয়ারি, বিজ্ঞান ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা ১ মার্চ এবং চারুকলা ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা (সাধারণ জ্ঞান ও অংকন) অনুষ্ঠিত হবে আগামী ৯ মার্চ।

আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি বৃহস্পতিবার থেকে সংশ্লিষ্ট ইউনিটের পরীক্ষা শুরুর এক ঘণ্টা আগ পর্যন্ত ভর্তি পরীক্ষার প্রবেশপত্র ডাউনলোড করা যাবে।

সকল ইউনিটের পরীক্ষা সকাল এগারোটা থেকে দুপুর সাড়ে বারোটা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হবে। চারুকলা ইউনিট ব্যতীত অন্য ৩টি ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা ঢাকাসহ ৮টি বিভাগীয় শহরে অনুষ্ঠিত হবে। বিভাগীয় কেন্দ্রসমূহ হচ্ছে- রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়, বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ও বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়।

সভায় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক মমতাজ উদ্দিন আহমেদ, অনলাইন ভর্তি কমিটির আহ্বায়ক অধ্যাপক ড. মো. মোস্তাফিজুর রহমান, বিভিন্ন অনুষদের ডিন, বিভিন্ন হলের প্রাধ্যক্ষ, বিভিন্ন বিভাগের চেয়ারম্যান, বিভিন্ন ইনস্টিটিউটের পরিচালক এবং সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

সভায় চারুকলা ইউনিট ছাড়া অন্যান্য ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় ৬০ নম্বরের নৈর্ব্যক্তিক এবং ৪০ নম্বরের লিখিত পরীক্ষা গ্রহণের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। শুধুমাত্র চারুকলা ইউনিটের পরীক্ষায় ৪০ নম্বরের নৈর্ব্যক্তিক এবং ৬০ নম্বরের অংকন পরীক্ষা গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। চারুকলা ইউনিটের নৈর্ব্যক্তিক পরীক্ষার জন্য ৩০ মিনিট এবং লিখিত পরীক্ষার জন্য ৬০ মিনিট সময় নির্ধারণ করা হয়েছে। অন্যান্য ইউনিটের নৈর্ব্যক্তিক পরীক্ষার জন্য ৪৫ মিনিট এবং লিখিত পরীক্ষার জন্য ৪৫ মিনিট সময় নির্ধারণ করা হয়েছে। ভর্তি পরীক্ষায় মোট ১২০ নম্বরের ভিত্তিতে শিক্ষার্থীদের মূল্যায়ন করা হবে। এর মধ্যে ভর্তি পরীক্ষায় ১০০ এবং মাধ্যমিক/সমমান এবং উচ্চ মাধ্যমিক/সমমান পরীক্ষার ফলাফলের ওপর থাকবে ২০ নম্বর।

ভর্তিচ্ছু আবেদনকারীদের ন্যূনতম যোগ্যতা হিসেবে ২০১৮ থেকে ২০২১ সন পর্যন্ত মাধ্যমিক/সমমান এবং ২০২৩ সনের উচ্চ মাধ্যমিক/সমমান পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হবে।

পরীক্ষায় (৪র্থ বিষয়সহ) বিজ্ঞান ইউনিটের জন্য জিপিএ-দ্বয়ের যোগফল ন্যূনতম ৮ এবং আলাদাভাবে জিপিএ ৩.৫, কলা, আইন ও সামাজিক বিজ্ঞান ইউনিটের জন্য এ যোগ্যতা ন্যূনতম ৭.৫ এবং আলাদাভাবে জিপিএ ৩.০, ব্যবসায় শিক্ষা ইউনিটের জন্য ন্যূনতম ৭.৫ এবং আলাদাভাবে জিপিএ ৩.০ এবং চারুকলা ইউনিটের জন্য জিপিএ-দ্বয়ের যোগফল ন্যূনতম ৬.৫ এবং আলাদাভাবে জিপিএ ৩.০ থাকতে হবে।

মন্তব্য

শিক্ষা
What is the logic of failing to change the role after the exam
ময়মনসিংহ শিক্ষা বোর্ডে এইচএসসির ফল

পরীক্ষার পর রোল পরিবর্তনে ফেল, যৌক্তিকতা কতটুকু!

পরীক্ষার পর রোল পরিবর্তনে ফেল, যৌক্তিকতা কতটুকু! ময়মনসিংহ শিক্ষা বোর্ড। ছবি: সংগৃহীত
ফেল করা শিক্ষার্থীদের অনেকের দাবি, প্রবেশপত্রে থাকা রোল নম্বরই তারা পরীক্ষার খাতায় লিখেছিলেন। অথচ ফল প্রকাশের তারা জানতে পারেন যে প্রবেশপত্র ও রোল নম্বর বদলে গেছে। নতুন প্রবেশপত্র অনুযায়ী তাদেরকে ফল নিতে হয়েছে। আর রোল নম্বর পাল্টে যাওয়ায় তাদেরকে অকৃতকার্য দেখানো হয়েছে।

ময়মনসিংহ শিক্ষা বোর্ডের অধীনে এবারের এইচএসসি পরীক্ষায় ২৮৬টি কলেজের ৭৫ হাজার ৮৪৫ জন শিক্ষার্থী অংশ নেন। পাসের হার ৭০ দশমিক ৪৪ শতাংশ। তবে অকৃতকার্য হওয়া শিক্ষার্থীদের একটি অংশের অভিযোগ, শিক্ষাবোর্ডের প্রযুক্তিগত ত্রুটি বলি হয়েছেন তারা। ফল প্রকাশের আগ মুহূর্তে নতুন করে রোল নম্বর নির্ধারণ করায় তাদের ফল পাল্টে গেছে।

ফেল করা শিক্ষার্থীদের অনেকের দাবি, প্রবেশপত্রে থাকা রোল নম্বরই তারা পরীক্ষার খাতায় লিখেছিলেন। অথচ ফল প্রকাশের তারা জানতে পারেন যে প্রবেশপত্র ও রোল নম্বর বদলে গেছে। নতুন প্রবেশপত্র অনুযায়ী তাদেরকে ফল নিতে হয়েছে। আর রোল নম্বর পাল্টে যাওয়ায় তাদেরকে অকৃতকার্য দেখানো হয়েছে।

ময়মনসিংহ শিক্ষা বোর্ডের অধীনে ভালুকা আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে এ বছর এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ নেন ৫৬ পরীক্ষার্থী। পাস করেন মাত্র ১৬ জন। তাদের একজন কাকন আক্তার তার নতুন রোল নম্বরে অনলাইনে অনুসন্ধান করে দেখেন, নিজের নামের পরিবর্তে সুসং দুর্গাপুর সরকারি মহাবিদ্যালয়ের মাজহারুল ইসলাম নামের এক শিক্ষার্থীর নাম আসে।

একই ঘটনা ঘটেছে ওই কলেজের ইসরাত জাহান জেরিনসহ নতুন রোল পাওয়া ৫১ শিক্ষার্থীর ক্ষেত্রে। ভালুকার মর্নিং সান স্কুল অ্যান্ড কলেজ ও বাটাজোর সোনার বাংলা স্কুল অ্যান্ড কলেজ, গফরগাঁও উপজেলার হুরমত উল্লাহ কলেজসহ আরও কয়েকটি কলেজের পরীক্ষার্থীদের ক্ষেত্রে একই ধরনের ঘটনা ঘটেছে।

পরীক্ষায় প্রবেশপত্রের রোল নম্বর জটিলতার বিষয়টি নিয়ে পরদিন সোমবার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কালামের কাছে যান কয়েকটি কলেজের শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা। সেখানে তারা দাবি করেন, কলেজগুলো কারসাজি করে এমনটি করেছে। শতভাগ পাস করানোর জন্য কিছু শিক্ষার্থীকে গ্যারান্টি দিয়ে এনে ভর্তি করে তাদের শুধু পাস করানো হয়েছে। বাকিদের ফেল করানো হয়ে থাকতে পারে।

এ সময় শিক্ষার্থীদের তোপের মুখে পড়েন ভালুকা আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে। এরপর শিক্ষা বোর্ডের সামনে মানববন্ধন করেন অকৃতকার্য এসব শিক্ষার্থী।

বাস্তবেই এ বোর্ডে এইচএসসি পরীক্ষার ফল পরিবর্তন হয়েছে নাকি বিষয়টি অকৃতকার্য হওয়া শিক্ষার্থীদের বোঝার ভুল- এসব প্রশ্নের উত্তর খুঁজেছে নিউজবাংলা।

অনুসন্ধানে জানা যায়, ময়মনসিংহ শিক্ষা বোর্ডের নিজস্ব জনবল সংকট রয়েছে। এ অবস্থায় এই বোর্ডের কাজটি করে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ও যশোর শিক্ষা বোর্ড। প্রযুক্তিগত ত্রুটির কারণে ফল প্রকাশের আগমুহূর্তে ধরা পড়ে জটিলতা। পরীক্ষার খাতায় লেখা বিভিন্ন শিক্ষার্থীর রোল নম্বরে অন্য শিক্ষার্থীর ফল আসতে থাকে। এমন অবস্থায় বিষয়টি সমাধানে কাজ করে শিক্ষা বোর্ড। পরে রেজিস্ট্রেশন নম্বর ও খাতার সঙ্গে মিল করে ফল তৈরি করা হয়।

তবে এমনটা মানতে নারাজ ফেল করা শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা। তারা মনে করেন, খাতায় লেখা রোল নম্বর এবং পরে ফলাফলের জন্য দেয়া অন্য রোল নম্বরের জন্যই ভুল ফল এসেছে। তাই আবারও খাতা দেখে সুষ্ঠুভাবে ফল তৈরি করে তা প্রকাশ করতে হবে। নয়ত অকৃতকার্য হওয়া শিক্ষার্থীদের নিয়ে বোর্ডের সামনে লাগাতার মানববন্ধন করা হবে।

পরীক্ষার পর রোল পরিবর্তনে ফেল, যৌক্তিকতা কতটুকু!

এদিকে ময়মনসিংহ শিক্ষা বোর্ডের ঊর্ধ্বতন একাধিক কর্মকর্তা অভিযোগ করেন, একটি মহল অকৃতকার্য হওয়া শিক্ষার্থীদের উসকানি দিয়ে ক্ষেপিয়ে তুলছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে তারা নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমরা জানি যে কোন রাজনৈতিক নেতা এসব কোমলমতি শিক্ষার্থীকে নিয়ে রাজনীতি করছে। এক রাজনৈতিক নেতা বোর্ডে একটি কাজে সুপারিশ করেছিলেন। সেটি না মানায় ফেল করা শিক্ষার্থীদের উস্কে দেয়া হচ্ছে। এসব বিষয় ইতোমধ্যে গোয়েন্দা সংস্থাকেও জানানো হয়েছে।’

তবে শিক্ষার্থীরা বাইরের কারও ইন্ধনের অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। ভালুকা আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থী কাকন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘খাতায় লেখা রোল নম্বরে ফল প্রকাশ না করে নতুন রোল নম্বরে প্রকাশ করার কারণেই ফেল করেছি। আমার আত্মবিশ্বাস রয়েছে যে পাস করব। কারও ইশারায় আমরা ক্ষুব্ধ হয়ে মানববন্ধন করিনি। আমাদের খাতাগুলো নির্দিষ্টভাবে চিহ্নিত করে আবারও দেখে ফল প্রকাশের দাবি জানাচ্ছি।’

একই কলেজের অধ্যক্ষ মো. হাফিজ উদ্দিন সুমন বলেন, ‘এমন ফলাফলে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা আমাদের দায়ী করেছেন। অথচ এসব বিষয়ে আমাদের কিছুই করার নেই। ফেল করা শিক্ষার্থীরা আসলেই ফেল করেছে কিনা, তা বোর্ডই ভালো বলতে পারবে।’

একই বক্তব্য দিয়েছেন মর্নিং সান স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ আতাউর রহমান জুয়েল।

ময়মনসিংহ শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক মো. সামছুল ইসলাম বলেন, ‘৮ হাজারের মতো শিক্ষার্থীর রোল নম্বর ডুপ্লিকেশন হয় প্রযুক্তিগত ত্রুটির কারণে। পরে সূক্ষ্মভাবে বিষয়টি তদারকি করে ফল প্রকাশের এক মাস আগে নতুন প্রবেশপত্র পাঠানো হয় সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলোতে। রোল নম্বর পরিবর্তনের সঙ্গে ফলের কোনো সম্পর্ক নেই।’

এ বিষয়ে ময়মনসিংহ শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান ড. গাজী হাসান কামালের সঙ্গে কথা বলে নিউজবাংলা। তিনি বলেন, ‘প্রযুক্তিগত ত্রুটির কারণে এমনটি হয়েছে। ফল প্রস্তুত করা হয় রেজিস্ট্রেশন নম্বর দিয়ে। এ জন্য রোল নম্বর প্রয়োজন নেই। যেগুলোতে সমস্যা হয়েছে, সেগুলো খুব সতর্কতার সঙ্গে করা হয়েছে। ফল সঠিক রয়েছে। তারপরও লিখিতভাবে আবেদন করলে পুনরায় খাতা দেখে সমাধান করা হবে।’

আরও পড়ুন:
চায়ের দোকান করেও জিপিএ-৫ পেলেন স্মৃতি
এইচএসসির ফল পুনঃনিরীক্ষা করা যাবে যেভাবে
রাজশাহী বোর্ডে এগিয়ে মেয়েরা, কমেছে পাস ও জিপিএ ৫
ফরিদপুরে এইচএসসি পরীক্ষায় ফেল: শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা
সিলেটে কমেছে পাসের হার ও জিপিএ-৫

মন্তব্য

শিক্ষা
How can HSC result be rechecked?

এইচএসসির ফল পুনঃনিরীক্ষা করা যাবে যেভাবে

এইচএসসির ফল পুনঃনিরীক্ষা করা যাবে যেভাবে ফল পেয়ে উচ্ছ্বসিত ভিকারুননিসার ছাত্রীরা। ফাইল ছবি
উদাহরণ দিয়ে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘ঢাকা বোর্ডের কোনো পরীক্ষার্থীর রোল নম্বর 123456 হলে এবং পরীক্ষার্থী আবেদন করতে চাইলে মেসেজ অপশনে RSC dha 123456 লিখে সেন্ড করতে হবে 16222 নম্বরে। ফিরতি এসএমএসে আবেদন বাবদ কত টাকা কেটে নেয়া হবে, তা এবং একটি PIN প্রদান করা হবে। এতে সম্মত থাকলে মেসেজ অপশনে গিয়ে RSC space Yes space PIN space Contact Number (যেকোনো মোবাইল অপারেটর) লিখে সেন্ড করতে হবে 16222 নম্বরে।’

চলতি বছরের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হয়েছে রোববার। এ পরীক্ষায় অংশ নেয়া পরীক্ষার্থীরা ২৭ নভেম্বর থেকে ৩ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময়ে তাদের ফল পুনঃনিরীক্ষা করতে পারবেন।

মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড ঢাকার পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক মো. আবুল বাশার স্বাক্ষরিত রোববারের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, শুধু টেলিটক প্রিপেইড মোবাইল ফোন থেকে পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন করা যাবে। আবেদন করতে মোবাইলের মেসেজ অপশনে গিয়ে প্রথমে RSC লিখে স্পেস দিয়ে বোর্ডের নামের প্রথম তিন অক্ষর লিখতে হবে। পরে স্পেস দিয়ে রোল নম্বর লিখে স্পেস দিয়ে বিষয় কোড লিখে সেন্ড করতে হবে 16222 নম্বরে।

উদাহরণ দিয়ে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘ঢাকা বোর্ডের কোনো পরীক্ষার্থীর রোল নম্বর 123456 হলে এবং পরীক্ষার্থী আবেদন করতে চাইলে মেসেজ অপশনে RSC dha 123456 লিখে সেন্ড করতে হবে 16222 নম্বরে। ফিরতি এসএমএসে আবেদন বাবদ কত টাকা কেটে নেয়া হবে, তা এবং একটি PIN প্রদান করা হবে। এতে সম্মত থাকলে মেসেজ অপশনে গিয়ে RSC space Yes space PIN space Contact Number (যেকোনো মোবাইল অপারেটর) লিখে সেন্ড করতে হবে 16222 নম্বরে।’

বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, ‘পুনঃনিরীক্ষণের ক্ষেত্রে একই এসএমএসের মাধ্যমে একাধিক বিষয়ের জন্য আবেদন করা যাবে। সে ক্ষেত্রে কমা দিয়ে বিষয়/পত্রের কোডগুলো আলাদা করে লিখতে হবে। যেমন: পদার্থ ও রসায়ন দুটি বিষয়ের/পত্রের জন্য আপনার টেলিটক প্রিপেইড মোবাইলের মেসেজ অপশনে গিয়ে RSC space dha space Roll Number space 174, 175, 176 লিখতে হবে।’

এতে আরও বলা হয়, প্রতি পত্রের জন্য আবেদন ফি নেয়া হবে ১৫০ টাকা। দ্বিপত্র বিশিষ্ট বিষয়ের ক্ষেত্রে উভয় পত্রেই আবেদন করতে হবে। ম্যানুয়াল কোনো আবেদন গ্রহণ করা হবে না।

আরও পড়ুন:
কুমিল্লায় পাসের হার ৭৫ দশমিক ৩৪ শতাংশ, এগিয়ে মেয়েরা
এইচএসসিতে পাসের হার কমেছে
ফেনী গার্লস ক্যাডেট কলেজে শতভাগ জিপিএ-৫
পাসে এগিয়ে ছাত্রীরা
এইচএসসি ও সমমানে পাস ৭৮.৬৪%

মন্তব্য

শিক্ষা
Faridpur HSC exam failure Student commits suicide

ফরিদপুরে এইচএসসি পরীক্ষায় ফেল: শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা

ফরিদপুরে এইচএসসি পরীক্ষায় ফেল: শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা
সদরপুর থানা ওসি মামুন আল রশিদ বলেন, ‘খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। আইনি প্রক্রিয়া শেষে নিহতের মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।’

ফরিদপুরের সদরপুর উপজেলায় এইচএসসি পরীক্ষায় ফেল করায় সাদিয়া আক্তার নামের এক শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছে।

রোববার দুপুরে উপজেলা সদর ইউনিয়নের সতারো রশি গ্রামে এ দুর্ঘটনাটি ঘটে। সাদিয়া আক্তার উপজেলার চরবিষ্ণুপুর ইউনিয়নের আলী হোসেনের ডাঙ্গী গ্রামের বাসিন্দা।

স্থানীয়দের সূত্রে জানা যায়, সাদিয়া সদরপুর সরকারি কলেজ থেকে চলতি বছর এইচএসসি পরিক্ষা অংশগ্রহণ করেন। পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশের পর ইংরেজি বিষয়ে অকৃতকার্য হয়েছে জেনে নিজের ঘরে ফ্যানের সঙ্গে ওড়না পেঁচিয়ে ফাঁস নেয় সাদিয়া। পরে প্রতিবেশীরা তাকে সদরপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ ব্যাপারে সদরপুর থানা ওসি মামুন আল রশিদ বলেন, ‘খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। আইনি প্রক্রিয়া শেষে নিহতের মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
সিলেটে কমেছে পাসের হার ও জিপিএ-৫
দিনাজপুরের ১৬ কলেজে ৪৬ পরীক্ষার্থী, সবাই ফেল
বরিশালে পাসের হার ৮০ দশমিক ৬৫, এবারও মেয়েরা এগিয়ে
কুমিল্লায় পাসের হার ৭৫ দশমিক ৩৪ শতাংশ, এগিয়ে মেয়েরা
এইচএসসিতে পাসের হার কমেছে

মন্তব্য

শিক্ষা
All 46 HSC students from 16 colleges in Dinajpur failed

দিনাজপুরের ১৬ কলেজে ৪৬ পরীক্ষার্থী, সবাই ফেল

দিনাজপুরের ১৬ কলেজে ৪৬ পরীক্ষার্থী, সবাই ফেল উত্তর লক্ষিপুর উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের ফটক। ছবি: নিউজবাংলা
দিনাজপুরে ৬৭১টি কলেজের মধ্যে ১৬টি কলেজের সকলেই অকৃতকার্য হওয়ার বিষয়ে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মীর সাজ্জাদ আলী বলেন, ‘অকৃতকার্য হওয়া কলেজগুলো সরেজমিন পরিদর্শন করে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

দিনাজপুরের মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের অধীনে চলতি বছর অনুষ্ঠিত উচ্চ মাধ্যমিক সার্টিফিকেট পরীক্ষার (এইচএসসি) ফলাফল ঘোষণা করা হয়েছে রোববার। এই বোর্ডে ৬৭১টি কলেজের শিক্ষার্থীরা পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করেন। এর মধ্যে ১৬টি কলেজের শিক্ষার্থীর সংখ্যা ছিল মাত্র ৪৬ জন। ফলাফলে ১৬টি কলেজের সকলেই অকৃতকার্য হয়েছে।

রোববার দুপুর আড়াইটার দিকে দিনাজপুর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মীর সাজ্জাদ আলী এ তথ্য জানান।

শিক্ষা বোর্ড সূত্রে অনুযায়ী, এই শিক্ষা বোর্ডের অধীনে রংপুর বিভাগের ৮টি জেলার ৬৭১টি কলেজের মোট ১ লাখ ১২ হাজার ২৬৮ জন পরীক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করেন। তাদের মধ্যে কৃতকার্য হয়েছে ৮২ হাজার ৫৭৯ জন। এই বোর্ডে পাশের হার ৭৪ দশমিক ৪৮ শতাংশ।

তবে, ৬৭১টি কলেজের মধ্যে ১৬টি কলেজের কেউই পাশ করতে পারেনি। এইচএসসি পরীক্ষায় ১৬টি কলেজের মোট ৪৬ জন পরীক্ষায় অকৃতকার্য হয়েছেন।

কলেজগুলো হলো কুড়িগ্রাম জেলার রাজিবপুর উপজেলার মোহানগঞ্জ আদর্শ কলেজ (১১ জন), একই জেলার উলিপুর উপজেলার বাগুয়া অনন্তপুর স্কুল ও কলেজ (৪ জন), রৌমারি উপজেলার দাঁতভাঙ্গা মডেল কলেজ (১ জন), নাগেশ্বরী উপজেলার সমাজকল্যাণ মহিলা কলেজ (১ জন) ও ভুরুঙ্গামারি উপজেলার মেইডাম কলেজ (১ জন), লালমনিহাট জেলার আদিতমারি উপজেলার বেহলাবাড়ী স্কুল এন্ড কলেজ (৫ জন), একই জেলার আদিতমারি উপজেলার কুমরিরহাট এসসি স্কুল এন্ড কলেজ (২ জন), কালিগঞ্জ উপজেলার দুহুলি এসসি হাই স্কুল ও কলেজ (১ জন), দক্ষিণ ঘানাসিয়াম স্কুল ও কলেজ (১ জন), দিনাজপুর জেলার বিরামপুর উপজেলার বেপারিতলা আদর্শ কলেজ (৫ জন) ও ফুলবাড়ী উপজেলার উত্তর লক্ষিপুর হাই স্কুল ও কলেজ (১ জন), ঠাকুরগাঁও জেলার বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার মোড়লহাট জনতা স্কুল ও কলেজে (৫ জন), সদর উপজেলার কদমরাসুল হাট স্কুল এন্ড কলেজ (৪ জন) ও পীরগঞ্জ উপজেলার পীরগঞ্জ আদর্শ কলেজ (১ জন), গাইবান্ধা জেলার পলাশবাড়ী উপজেলার ফকিরহাট মহিলা কলেজ (২ জন), নীলফামারীর জলঢাকা উপজেলার গলমুন্ডা আদর্শ কলেজ (১ জন)।

১৬টি কলেজের ফলাফল শূন্যের বিষয়ে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মীর সাজ্জাদ আলী বলেন, ‘অকৃতকার্য হওয়া কলেজগুলো সরেজমিন পরিদর্শন করে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

আরও পড়ুন:
এইচএসসি ও সমমানে পাস ৭৮.৬৪%
প্রধানমন্ত্রীর কাছে এইচএসসির ফল হস্তান্তর
এইচএসসির ফল আজ, জানা যাবে যেভাবে
২৬ নভেম্বর এইচএসসির ফল প্রকাশ
এইচএসসির উত্তরপত্র শিক্ষার্থীদের দিয়ে মূল্যায়ন!

মন্তব্য

শিক্ষা
Barisal board passing rate is 8065 this year also girls are ahead

বরিশালে পাসের হার ৮০ দশমিক ৬৫, এবারও মেয়েরা এগিয়ে

বরিশালে পাসের হার ৮০ দশমিক ৬৫, এবারও মেয়েরা এগিয়ে
শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অরুণ কুমার গাইন বলেন, ‘বিগত দিনের ধারাবাহিকতায় এবারেও ছেলেদের চেয়ে মেয়েরা ভালো ফলাফল করেছে। আর জিপিএ-৫ এর দিক থেকে এবারেও মানবিক বিভাগের শিক্ষার্থীরা এগিয়ে রয়েছে।’

বরিশাল মাধ্যমিক ও উচ্চ-মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ডে এইচএসসি পরীক্ষায় শিক্ষার্থীদের পাসের হার ও জিপিএ-৫ প্রাপ্তির সংখ্যা গত বছরের চেয়ে কমেছে অনেকটাই। তবে শতভাগ বা পূর্ণ নম্বরের পরীক্ষার হিসেব কষলে ২০১৯ সালের পর এবারে বরিশাল বোর্ডে ফলাফলের পরিসংখ্যান অনেকটা ভালোই হয়েছে বলে জানিয়েছেন পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অরুণ কুমার গাইন।

তিনি জানান, ২০১৯ সালে যেখানে গড় পাসের হার ছিল ৭০ দশমিক ৬৫, সেখানে এবারে গড় পাশের হার ৮০ দশমিক ৬৫। যদিও গতবছর পাসের হার ছিল ৮৬ দশমিক ৯৫ শতাংশ।

পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক বলেন, ‘হিসেবে বিগত দিনের থেকে ফলাফল অনেক ভালো হয়েছে এবার। আর এজন্য শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি শিক্ষক ও অভিভাবকদের প্রচেষ্টাকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই। আর গোটা দেশের মধ্যে যদি বরিশাল বোর্ড শীর্ষে থাকে তাহলে তো আমাদের জন্য খুবই আনন্দের কথা।’

তিনি জানান, গত বছর জিপিএ-৫ পেয়েছিল ৭ হাজার ৩৮৬ জন, তবে এবারে পেয়েছে তার প্রায় অর্ধেক ৩ হাজার ৯৯৩ জন। তবে ২০১৯ সালের থেকে দ্বিগুনেরও বেশি এবারের সংখ্যা, ওই সালে এইচএসসিতে জিপিএ-৫ পেয়েছিল ১ হাজার ২০১ জন।

শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অরুণ কুমার গাইন বলেন, ‘বিগত দিনের ধারাবাহিকতায় এবারেও ছেলেদের চেয়ে মেয়েরা ভালো ফলাফল করেছে। আর জিপিএ-৫ এর দিক থেকে এবারেও মানবিক বিভাগের শিক্ষার্থীরা এগিয়ে রয়েছে।’

এদিকে তিন বিভাগে পাসের হার মিলেয়ে দেখা যায় মেয়েরা ৮৫ দশমিক ৭৬ শতাংশ পাস করেছে, যেখানে ছেলেদের পাসের হার ৭৫ দশমিক ৪৬ শতাংশ।

উল্লেখ্য, এ বছর ১৩১টি কেন্দ্রে ৩৩৫টি কলেজের ৬৮ হাজার ৩৯৩ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে ৬৭ হাজার ৪৬৫ জন। এর মধ্যে পাস করেছে ৫৪ হাজার ৪১৩ জন শিক্ষার্থী। আর মোট কলেজের মধ্যে ১৩টির শতভাগ পরীক্ষার্থী পাশ করেছে এবং ২৮৯ কলেজের ৫০ শতাংশের ওপরে পরীক্ষার্থী পাস করেছে। আর বোর্ডের মধ্যে শুধুমাত্র পটুয়াখালী জেলার মাত্র ১ টি কলেজে পাসের হার ৫ শতাংশের নীচে রয়েছে, তবে কোনো কলেজ নেই যেখানে কেউ পাশ করেনি।

এছাড়া এ পরীক্ষায় অংশগ্রহনকারীদের মধ্যে ১২ জন মেয়ে ও ২৯ জন ছেলে পরীক্ষার্থী বিভিন্ন সময়ে অসদুপায় অবলম্বন করায় বহিষ্কার হয়েছে।

আরও পড়ুন:
প্রধানমন্ত্রীর কাছে এইচএসসির ফল হস্তান্তর
এইচএসসির ফল আজ, জানা যাবে যেভাবে
২৬ নভেম্বর এইচএসসির ফল প্রকাশ
এইচএসসির উত্তরপত্র শিক্ষার্থীদের দিয়ে মূল্যায়ন!
অধ্যক্ষের ‘গাফিলতিতে’ এইচএসসি পরীক্ষা দেয়া হলো না ফারিয়ার

মন্তব্য

শিক্ষা
The pass rate in Comilla is 7534 percent girls ahead

কুমিল্লায় পাসের হার ৭৫ দশমিক ৩৪ শতাংশ, এগিয়ে মেয়েরা

কুমিল্লায় পাসের হার ৭৫ দশমিক ৩৪ শতাংশ, এগিয়ে মেয়েরা কুমিল্লা বোর্ডে শতভাগ পাস করা সোনার বাংলা কলেজে রোববার এইচএসসির ফল ঘোষণা করা হয়। ছবি: নিউজবাংলা
এইচএসসি পরীক্ষায় কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ড থেকে অংশগ্রহণ করে এক লাখ ১০ হাজার ৬৫৫ জন। সব বিষয়ে উত্তীর্ণ হয়েছে ৮৩ হাজার ৩৭০ জন। আর জিপিএ-৫ পেয়েছে পাঁচ হাজার ৬৫৫ জন।

কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ডে এইচএসসি পরীক্ষায় পাসের হার ৭৫ দশমিক ৩৪ শতাংশ। গত দুই বছরের তুলনায় এবারের পাসে হার কম। ঘোষিত ফলাফলে ছেলেদের তুলনায় এগিয়ে আছে মেয়েরা।

পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক ড. আসাদুজ্জামান রোববার বিকেল ৩টায় এ তথ্য জানান।

ফলাফল শিটের তথ্য অনুযায়ী ২০২৩ সালের এইচএসসি পরীক্ষায় কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ড থেকে অংশগ্রহণ করে এক লাখ ১০ হাজার ৬৫৫ জন। সব বিষয়ে উত্তীর্ণ হয়েছে ৮৩ হাজার ৩৭০ জন, যা মোট ফলের ৭৫ দশমিক ৩৪ শতাংশ। এবারের পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়েছে পাঁচ হাজার ৬৫৫ জন, যা মোট ফলের ছয় দশমিক ৭৮ শতাংশ।

কুমিল্লা বোর্ডে ২০২২ সালে পাসের হার ছিল ৯০ দশমিক ৭৫ শতাংশ। জিপিএ-৫ পেয়েছিল ১৫ হাজার ২৪ জন। এ ছাড়া ২০২১ সালে পাসের হার ছিল ৯৭ দশমিক ৪৮ শতাংশ। জিপিএ-৫ ছিল ১৪ হাজার ১৬২ জন।

এ বছর ৪৬ হাজার ৯৮৫ জন ছেলে ও ৬৩ হাজার ৬৭০ জন মেয়ে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে। এর মধ্যে ৩৪ হাজার ১৭৭ জন ছেলে ও ৪৯ হাজার ১৯৩ জন মেয়ে পাস করেছে। জিপি-৫ পেয়েছে দুই হাজার ১৩২ জন ছেলে ও তিন হাজার ৫২৩ জন মেয়ে শিক্ষার্থী।

মন্তব্য

p
উপরে