× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

শিক্ষা
Jobis 30 teachers received grants for research projects
hear-news
player
google_news print-icon

গবেষণা প্রকল্পে অনুদান পেলেন জবির ৩০ শিক্ষক

গবেষণা-প্রকল্পে-অনুদান-পেলেন-জবির-৩০-শিক্ষক
চলতি অর্থবছরে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি কর্মসূচির বিভিন্ন খাত থেকে মোট ৬৮২টি গবেষণা প্রকল্পে অনুদানের জন্য নির্বাচিত এক হাজার ৩৬৪ জন গবেষকের তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে। তাদের মধ্যে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩০ জন শিক্ষক যুগ্মভাবে ১৫টি প্রকল্পের আওতায় নির্বাচিত হয়েছেন৷

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ে বিশেষ গবেষণা প্রকল্পে অনুদানের জন্য জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) ৩০ জন শিক্ষক মনোনীত হয়েছেন। ২০২২-২৩ অর্থবছরে গবেষণার জন্য প্রকল্প অনুযায়ী ফেলোশিপপ্রাপ্ত শিক্ষক ও গবেষকদের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় থেকে সর্বনিম্ন চার লাখ টাকা আর্থিক সহায়তা দেয়া হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা পরিচালক অধ্যাপক ড. পরিমল বালা নিউজবাংলাকে এ তথ্য জানান।

তিনি জানান, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩০ জন শিক্ষক এ বছর ফেলোশিপ পেয়েছেন। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের ফেলোশিপ থেকে প্রাপ্ত অর্থ গবেষণার কাজকে আরও বেগবান করবে। গবেষণার জন্য এ টাকার পরিমাণ আরও বৃদ্ধি করা উচিত, যাতে শিক্ষক ও গবেষকরা তাদের গবেষণা কাজ ভালো সুবিধা নিয়ে করতে পারেন৷’

চলতি অর্থবছরে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি কর্মসূচির বিভিন্ন খাত থেকে মোট ৬৮২টি গবেষণা প্রকল্পে অনুদানের জন্য নির্বাচিত এক হাজার ৩৬৪ জন গবেষকের তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে। তাদের মধ্যে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩০ জন শিক্ষক যুগ্মভাবে ১৫টি প্রকল্পের আওতায় নির্বাচিত হয়েছেন৷

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অনুদান পাওয়া শিক্ষকরা হলেন- রসায়ন বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. শাহজাহান, অধ্যাপক ড. আবদুস সামাদ, অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ লোকমান হোসেন, অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ সৈয়দ আলম, অধ্যাপক ড. আবুল কালাম মো. লুৎফর রহমান, অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ জমির হোসেন, সহযোগী অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ মাহমুদুর রহমান, সহযোগী অধ্যাপক ড. নাফিস আহমেদ, সহযোগী অধ্যাপক ড. মো. দেলোয়ার হোসেন, সহযোগী অধ্যাপক ড. জয়ন্ত কুমার সাহা, সহকারী অধ্যাপক মো. ইলিয়াছ ও সহকারী অধ্যাপক আব্দুল আউয়াল।

গণিত বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. সরোয়ার আলম, অধ্যাপক ড. রবীন্দ্রনাথ মণ্ডল, সহযোগী অধ্যাপক ড. সিদ্ধার্থ ভৌমিক, সহযোগী অধ্যাপক ড. বিষ্ণু পদ ঘোষ, সহকারী অধ্যাপক মো. জাকির হোসেন ও গৌতম কুমার সাহা, ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. মনিরুজ্জামান ও সহকারী অধ্যাপক নিউটন হাওলাদার।

এছাড়াও প্রাণিবিদ্যা বিভাগ থেকে অধ্যাপক দোলন রায়, সহযোগী অধ্যাপক ড. বিপ্লব কুমার মণ্ডল, সহযোগী অধ্যাপক ড. মোসা. উম্মে হাবিবা খাতুন, সহযোগী অধ্যাপক ড. শায়ের মাহমুদ ইবনে আলম, সহযোগী অধ্যাপক ড. তনিমা মুস্তাফা, সহযোগী অধ্যাপক ড. সুমাইয়া আহমেদ, সহযোগী অধ্যাপক ড. রুমানা তাছমীন, প্রভাষক শিল্পী সাহা এবং উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. কাজী নাহিদা বেগম, সহকারী ও অধ্যাপক মেঘলা সাহা পিংকি।

আরও পড়ুন:
জবি ক্যাম্পাসে বদ্ধ নর্দমা, মশার রাজত্ব
জবির পরিসংখ্যান বিভাগে বিনা মূল্যে জরুরি স্বাস্থ্যসেবা
ডেঙ্গুতে জবি ছাত্রদল নেতার মৃত্যু
‘গোল্ড মেডেল’ পেলেন জবির চার শিক্ষার্থী
‘ডিন্‌স অ্যাওয়ার্ড’ পাবেন জবি শিক্ষার্থীরা

মন্তব্য

আরও পড়ুন

শিক্ষা
Zabir 95 researchers in the list of the worlds best

বিশ্বসেরার তালিকায় জবির ৯৫ গবেষক

বিশ্বসেরার তালিকায় জবির ৯৫ গবেষক
অ্যালপার ডগার (এডি) সায়েন্টিফিক ইনডেক্স-২০২৩ এ বিশ্বসেরা গবেষকদের তালিকায় স্থান পেয়েছেন তারা। তালিকায় দেশের ১৬৮টি সরকারি-বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের ৬ হাজার ৩৩৫ জন গবেষক রয়েছেন।

বিশ্বসেরা গবেষক র‌্যাংকিংয়ে স্থান পেয়েছেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) বিভিন্ন বিভাগের ৯৫ জন গবেষক। তাদের মধ্যে ৯৩ জন শিক্ষক ও ২ জন শিক্ষার্থী রয়েছেন।

অ্যালপার ডগার (এডি) সায়েন্টিফিক ইনডেক্স-২০২৩ এ বিশ্বসেরা গবেষকদের তালিকায় স্থান পেয়েছেন তারা। তালিকায় দেশের ১৬৮টি সরকারি-বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের ৬ হাজার ৩৩৫ জন গবেষক রয়েছেন।

তালিকায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকদের মধ্যে প্রথম স্থানে রয়েছেন অধ্যাপক ড. মো. কামরুল আলম খান, দ্বিতীয় সালেহ আহাম্মেদ ও তৃতীয় স্থানে মো. শরিফুল আলম। তালিকায় বাংলাদেশি শীর্ষ ৫ হাজার গবেষকের মধ্যে জবির ৮৯ জনের নাম রয়েছে।

ইনডেক্স অনুযায়ী বাংলাদেশি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থান ১৯তম, আঞ্চলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে ১৫০৮তম আর বিশ্ব র‌্যাংকিংয়ে ৪৫৩৩তম।

এডি সায়েন্টিফিক ইনডেক্স বিশ্বের ২১৬টি দেশের ১৯৫২৫টি বিশ্ববিদ্যালয়ের ১২ লাখ ৪১ হাজার ৫২৩ জন বিজ্ঞানী বা বৈজ্ঞানিক গবেষকের তালিকা করেছে। তাদের সবার গবেষণাসহ বিভিন্ন কর্ম বিশ্লেষণ করে বৈশ্বিক, আঞ্চলিক ও দেশভিত্তিক বিজ্ঞানী ও বিশ্ববিদ্যালয়ের র‌্যাংকিং করা হয়েছে।

সায়েন্টিফিক ইনডেক্স গবেষকদের গুগল স্কলারের রিসার্চ প্রোফাইলের বিগত পাঁচ বছরের গবেষণার এইচ ইনডেক্স, আইটেন ইনডেক্স ও সাইটেশনের তথ্যের ভিত্তিতে এই র‌্যাংকিং প্রকাশ করা হয়েছে।

এ বিষয়ে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা পরিচালক অধ্যাপক ড. পরিমল বালা বলেন, ‘এডি সায়েন্টিফিক ইনডেক্স র‍্যাংকিংয়ে আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। এটি আমাদের জন্য গর্বের। তবে এ তালিকায় স্থান পাওয়ার যোগ্য আরও অনেক শিক্ষকই আছেন, যারা বিভিন্ন ধরনের গবেষণা করেছেন। কিন্তু গবেষণাপত্র অনলাইনে আপলোড না করায় তাদের নাম আসেনি। আমরা আশাবাদী, আগামীতে এই সংখ্যা অনেক বাড়বে।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. ইমদাদুল হক বলেন, ‘বিশ্বসেরা গবেষকদের তালিকায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের যেসব শিক্ষক স্থান পেয়েছেন তাদের অভিনন্দন। ইতোমধ্যে আমরা বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা কার্যক্রম আরও গতিশীল করতে বুয়েট, ঢাবিসহ বেশ কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয় ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি করেছি। আগামীতে গবেষণায় আরও ভালো ফল আসবে এবং মান আরও উন্নত হবে বলে আশা করছি।’

এর আগে ২০২১ সালে প্রকাশিত তালিকায় দেশের মোট এক হাজার ৭৮৮ জন গবেষকের মধ্যে জবির ২১ জন এবং ২০২২ সালে দুই হাজার ৭৭২ জনের মধ্যে ৬৩ জন গবেষক স্থান পেয়েছিলেন।

এদিকে বিশ্বব্যাপী বিজ্ঞানীদের তালিকা ও র‌্যাংকিং প্রকাশ করা এডি সায়েন্টিফিক ইনডেক্স লিমিটেডের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তালিকার শীর্ষ ১০ বা ১০০-তে বাংলাদেশের কোনো বিজ্ঞানীর নাম নেই। তবে সায়েন্টিফিক ইনডেক্সে বিশ্বের শীর্ষ ২ শতাংশ বিজ্ঞানীর তালিকায় বাংলাদেশের ৩ জন ঠাঁই পেয়েছেন। তাদের মধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন এবং আইসিডিডিআর,বির ২ জন রয়েছেন। তাদের মধ্যে শীর্ষে আছেন আইসিডিডিআর,বির বিজ্ঞানী রাশিদুল হক।

আরও পড়ুন:
আলোকসজ্জায় বর্ণিল রাজধানী
গবেষণায় জবির সঙ্গে কাজ করবে রোমানিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়
জবিতে আওয়ামীপন্থী শিক্ষকদের নতুন দলের আত্মপ্রকাশ
জবিতে আর্জেন্টিনাকে হারাল ব্রাজিল
জবিতে যিশুখ্রিষ্টের প্রাক-জন্মদিন উদযাপন

মন্তব্য

শিক্ষা
Researchers at DU develop black fever detection method

ঢাবিতে কালাজ্বর শনাক্তকরণ পদ্ধতি উদ্ভাবন

ঢাবিতে কালাজ্বর শনাক্তকরণ পদ্ধতি উদ্ভাবন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সোমবার সংবাদ সম্মেলনে কালাজ্বর নির্ণয়ের নতুন পদ্ধতি সম্পর্কে তথ্য তুলে ধরা হয়। ছবি: নিউজবাংলা
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান বলেন, ‘মৌলিক গবেষণার ক্ষেত্রে এটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি উল্লেখযোগ্য সাফল্য। এখানে বিশ্বমানের অনেক গবেষক ও বিজ্ঞানী রয়েছেন। নতুন নতুন উদ্ভাবনের মাধ্যমে তারা দেশের আর্থসামাজিক উন্নয়নে ভূমিকা রাখতে সক্ষম।’

প্রাণঘাতী রোগ কালাজ্বর নির্ভুলভাবে শনাক্ত করার পদ্ধতি উদ্ভাবন করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। অণুজীব বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক মুহাম্মদ মনজুরুল করিমের নেতৃত্বে একটি গবেষক দল এই পদ্ধতি উদ্ভাবন করেছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক আব্দুল মতিন চৌধুরী ভার্চুয়াল ক্লাসরুমে সোমবার সংবাদ সম্মেলনে কালাজ্বর নির্ণয়ের এই নতুন পদ্ধতি সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান।

বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক মমতাজ উদ্দিন আহমেদ, স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. মো. টিটো মিঞা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় জীববিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. এ কে এম মাহবুব হাসান, চিকিৎসা অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডা. শাহরিয়ার নবী, অণুজীব বিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারপারসন অধ্যাপক ড. আনোয়ারা বেগমসহ বিভিন্ন অনুষদের ডিন, বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক ও গবেষক দলের সদস্যবৃন্দ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

উপাচার্য এই অসাধারণ উদ্ভাবনের জন্য গবেষক দলকে অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, ‘মৌলিক গবেষণার ক্ষেত্রে এটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি উল্লেখযোগ্য সাফল্য।

‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশ্বমানের অনেক গবেষক ও বিজ্ঞানী রয়েছেন। নতুন নতুন উদ্ভাবনের মাধ্যমে তারা দেশের আর্থসামাজিক উন্নয়নে ভূমিকা রাখতে সক্ষম। আধুনিক ও সমৃদ্ধ ল্যাব স্থাপন করা গেলে শিগগির এই বিশ্ববিদ্যালয়ে কোভিড-১৯ টিকাসহ বিভিন্ন ধরনের টিকা উদ্ভাবন ও উৎপাদন করা যাবে।’

গবেষক দলের প্রধান অধ্যাপক মুহাম্মদ মনজুরুল করিম জানান, ‘রিয়েল টাইম পিসিআরভিত্তিক এই মলিকুলার ডায়াগনস্টিক পদ্ধতি সম্পূর্ণ নির্ভুল ও নিখুঁতভাবে কালাজ্বর শনাক্তকরণের একটি রোগীবান্ধব পদ্ধতি। মূত্রের নমুনা ব্যবহার করে এই পদ্ধতিতে মাত্র ৩ ঘণ্টার মধ্যে কালাজ্বর শনাক্ত করা সম্ভব।

‘কালাজ্বর শনাক্তকরণে আগে রক্তের ইমিউনোক্রোমাটোগ্রাফিক পরীক্ষা এবং অস্থি-মজ্জা, যকৃত, প্লিহা, লিম্ফ নোড-এর টিস্যু অণুবীক্ষণ যন্ত্রের মাধ্যমে পরীক্ষা করা হতো। এতে রোগ শনাক্তকরণের জন্য ৭দিন সময় লেগে যেত। নতুন এই পদ্ধতিতে কালাজ্বর নির্ণয় ও নির্মূলের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ একধাপ এগিয়ে গেল।’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অণুজীব বিজ্ঞান বিভাগের গবেষকদের এই গবেষণা ইতোমধ্যে বিশ্বখ্যাত জার্নাল PLOS Global Public Health-এ প্রকাশ হয়েছে।

আরও পড়ুন:
জনবল নিচ্ছে বিজ্ঞান ও শিল্প গবেষণা পরিষদ
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ফেলোশিপ পাচ্ছেন জবির ৯০ শিক্ষার্থী
ঢাবিতে প্রেজেন্টেশন-পরীক্ষায় মুখ খোলা রাখার নির্দেশনা বাতিলের দাবি

মন্তব্য

শিক্ষা
Romanian universities will work with Jobi on research

গবেষণায় জবির সঙ্গে কাজ করবে রোমানিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়

গবেষণায় জবির সঙ্গে কাজ করবে রোমানিয়ার বিশ্ববিদ্যালয় ওরেডিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক দল জবির ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের সেমিনার কক্ষে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের সঙ্গে শিক্ষা ও গবেষণা বিষয়ে মতবিনিময় করেন।
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক ও শিক্ষার্থী ছাড়াও দেশের অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও গবেষকরা রোমানিয়ার দ্য ইউনিভার্সিটি অব ওরেডিয়ায় গবেষণাসহ বিভিন্ন শিক্ষা বিষয়ক কার্যক্রমে অংশ নেয়ার সুযেগ পাবেন।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) সঙ্গে শিক্ষা ও গবেষণা খাতে কাজ করবে ইউরোপের দেশ রোমানিয়ার ওরেডিয়া বিশ্ববিদ্যালয়।

রোববার (১১ ডিসেম্বর) বেলা সাড়ে ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি গবেষক দল জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত উপাচার্য অধ্যাপক ড. কামালউদ্দীন আহমদের সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে গবেষণার ক্ষেত্রে এক সঙ্গে কাজ করার কথা জানায়।

গবেষক দলের পক্ষ থেকে বলা হয়, ‘আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলাদেশের কিছু শিক্ষার্থী মেডিসিন অনুষেদে পড়াশোনা করছেন। তবে যদি ভূগোল বিভাগে কেউ পড়তে যান তাকে অগ্রিম অভিনন্দন।’

বাংলাদেশি অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও গবেষকরাও রোমানিয়ার দ্য ইউনিভার্সিটি অব ওরেডিয়ায় নানা ধরনের গবেষণার সুবিধা পাবেন বলে জানান তারা।

জবির ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের অধ্যাপক ড. মল্লিক আকরাম হোসেনের আমন্ত্রণে ওরেডিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের তিন সদস্যের গবেষক দল পরিদর্শনে আসে। গবেষক দলের প্রধান ওরেডিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের জিওগ্রাফি, ট্যুরিজম অ্যান্ড স্পোর্ট অনুষদের ডিন ড. আলেক্সজান্ডার।

দলের অন্য সদস্যরা হলেন একই অনুষদের অধ্যাপক ড. ডোরিনা ক্যামেলিয়া এবং সহকারী অধ্যাপক ড. টিউডর ইউলিয়ান।

এর আগে, গবেষক দল ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের সেমিনার কক্ষে বিভাগের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের সঙ্গে শিক্ষা ও গবেষণা বিষয়ে মতবিনিময় করেন।

এ সময় রোমানিয়ার ভৌগলিক নানা দিক নিয়ে তথ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়। এছাড়া রোমানিয়ায় ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের শিক্ষার্থীদের বৃত্তি নিয়ে পড়তে যাওয়াসহ নানা প্রশ্নের উত্তর দেন তারা।

মতবিনিময় সভায় লাইফ অ্যান্ড আর্থ সায়েন্স অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. মনিরুজ্জামান খন্দকার, ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের অধ্যাপক ড. মল্লিক আকরাম হোসেন, বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. আব্দুল কাদের, অধ্যাপক ড. মো. মনিরুজ্জমান, ড. নিগার সুলতানা, এন এম রিফাত নাসের, ড. নাজমুন নাহার, মো. মহিউদ্দিন, মো. আশ্রাফ উদ্দিন, ড. রিফফাত মাহমুদ ও সামিনা বেগমসহ বিভাগের বিভিন্ন ব্যাচের শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য

শিক্ষা
Mobile phones increase the risk of stroke

মোবাইলের অতিরিক্ত ব্যবহার বাড়ায় স্ট্রোকের ঝুঁকি

মোবাইলের অতিরিক্ত ব্যবহার বাড়ায় স্ট্রোকের ঝুঁকি প্রতীকী ছবি
‘খাবারে বাড়তি লবণ না খাওয়া, ডায়াবেটিস কন্ট্রোল করা, নিয়মিত শরীর চর্চা করা, স্ট্রেস না নেয়া, ধূমপান না করার ওপর জোর দিতে হবে। মোবাইল ফোন কম ব্যবহার করতে হবে। অধিক সময় মোবাইল ফোন নিয়ে বসে থাকলে স্ট্রেস বেড়ে গিয়ে হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়তে পারে।’

দেশে স্ট্রোকে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর ঘটনা ক্রমাগত বাড়ছে। অন্য কারণের পাশাপাশি অতিরিক্ত মোবাইল ফোন ব্যবহার স্ট্রোকের ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয়। সঠিক সচেতনতা এবং সমন্বিত চিকিৎসা কার্যক্রম চালুর মাধ্যমে স্ট্রোকের মৃত্যুঝুঁকি ও পঙ্গুত্ব কমানো সম্ভব।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) রোববার আয়োজিত স্ট্রোক বিষয়ক এক বৈজ্ঞানিক সেমিনারে বিশেষজ্ঞরা এমন তথ্য তুলে ধরেন।

বিএসএমএমইউ-এর শহীদ ডা. মিল্টন হলে এই সেমিনারের আয়োজন করে নিউরো সার্জারি বিভাগ।

সেমিনারে প্রধান অতিথি ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদ।

তিনি বলেন, ‘স্ট্রোকে আক্রান্ত রোগীদের দ্রুত হাসপাতালে নেয়া সম্ভব হলে অনেক মৃত্যু ঠেকানো সম্ভব। তবে স্ট্রোকের চিকিৎসা করার চেয়ে স্ট্রোক প্রতিরোধ করাটা জরুরি। এজন্য সবাইকে সচেতন হতে হবে।

‘খাবারে বাড়তি লবণ না খাওয়া, ডায়াবেটিস কন্ট্রোল করা, নিয়মিত শরীর চর্চা করা, স্ট্রেস না নেয়া, ধূমপান না করার ওপর জোর দিতে হবে। মোবাইল ফোন কম ব্যবহার করতে হবে। অধিক সময় মোবাইল ফোন নিয়ে বসে থাকলে স্ট্রেস বেড়ে গিয়ে হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়তে পারে।’

বিশ্ব স্ট্রোক দিবস পালিত হয়েছে ২৯ অক্টোবর, শনিবার। ‘জানুন স্ট্রোকের লক্ষণ, মিনিটেই বাঁচিয়ে দিন বহু জীবন’ স্লোগান নিয়ে বিএসএমএমইউ-তে দিবসটি পালিত হয়।

ধারাবাহিক কর্মসূচির অংশ হিসেবে রোববার সকালে বিএসএমএমইউ-এর নিউরোলজি, নিউরো মেডিসিন ও নিউরো সার্জারি বিভাগ পৃথক শোভাযাত্রার আয়োজন করে। এছাড়াও নিউরো সার্জারি বিভাগ আয়োজন করে বৈজ্ঞানিক সেমিনার।

সেমিনারে বলা হয়, বিশ্বব্যাপী মানুষের মৃত্যুর দ্বিতীয় প্রধান কারণ স্ট্রোক। বিশ্বে প্রতি মিনিটে ১০ জন স্ট্রোকের কারণে মারা যাচ্ছে। বিশ্বে প্রতি হাজারে ৮ থেকে ১০ জন মানুষ স্ট্রোকে আক্রান্ত হচ্ছে। আর স্ট্রোক আক্রান্ত রোগীর ৪৮ শতাংশের উচ্চ রক্তচাপ থাকে।

বিশ্বে প্রতি লাখে ২ থেকে ১৩টি শিশু স্ট্রোকে আক্রান্ত হয়। শিশুদের স্ট্রোকের অর্ধেক হয় রক্ত চলাচল বন্ধ হওয়ার কারণে। বাকি অর্ধেক হয় মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণের মাধ্যমে। ২৫ ভাগ শিশু বার বার স্ট্রোকে আক্রান্ত হয়। স্ট্রোকে আক্রান্ত ৬৬ ভাগ শিশুর হাত-পায়ের দুর্বলতা ও খিঁচুনি দেখা দিতে পারে। স্ট্রোক শিশুদের শারীরিক ও মানসিক বিকাশে ব্যাঘাত ঘটায়।

বাংলাদেশে স্ট্রোকে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। স্ট্রোকের চিকিৎসার জন্য দ্রুত চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়াটা জরুরি। এই সময়ের মধ্যে জরুরি চিকিৎসা সেবা দেয়া সম্ভব হলে রোগীর মৃত্যু ও পঙ্গুত্ব কমানো সম্ভব। শতকরা ৮০ ভাগ স্ট্রোক আক্রান্ত রোগী ওষুধের মাধ্যমেই সুস্থ হয়।

সেমিনারে আরও বলা হয়, স্ট্রোক প্রতিরোধে ৭টি পদক্ষেপ খুবই গুরুত্বপূর্ণ। খাবারে তেল ও লবণের ব্যবহার কমানো, ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখা, নিয়মিত শরীরচর্চা করা, ধূমপান ও অ্যালকোহল সেবন থেকে বিরত থাকা, ডায়াবেটিস ও উচ্চ রক্তচাপ থাকলে নিয়ন্ত্রণে রাখা, রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখা ও স্ট্রেস কমাতে নামাজ, উপাসনা বা মেডিটেশন করা।

সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন বিএসএমএমইউ-এর নিউরো সার্জারি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. আখলাক হোসেন খান।

অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ হোসেন, অধ্যাপক ডা. হারাধন দেবনাথ, অধ্যাপক ডা. মো. হাবিবুর রহমান দুলাল, অধ্যাপক ডা. আবু নাসার রিজভী, অধ্যাপক ডা. সোহেল মাহমুদ আরাফাত, অধ্যাপক ডা. ধীমান চৌধুরী, অধ্যাপক ডা. মওদুদুল হক, অধ্যাপক ডা. আইউব আনসারী, অধ্যাপক ডা. সুকৃতি দাস, অধ্যাপক ডা. হাসান জাহিদুর রহমান, অধ্যাপক ডা. কনোজ কুমার বর্মন, অধ্যাপক ডা. মো. শহীদুল্লাহ, অধ্যাপক ডা. সুভাষ কান্তি দে, সহযোগী অধ্যাপক ডা. কে এম তারিকুল ইসলাম, সহযোগী অধ্যাপক ডা. শামসুল আলম, সহকারী অধ্যাপক ডা. মো. রকিবুল ইসলাম, সহযোগী অধ্যাপক ডা. রেজাউল আমিন ও ডা. খায়রুন নবী খানসহ অন্যান্য শিক্ষক ও চিকিৎসকবৃন্দ সেমিনারে উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
স্ট্রোকে আক্রান্ত হচ্ছেন যুবকেরাও, চিকিৎসায় দেরিতে ক্ষতি বেশি
স্ট্রোক মোকাবিলায় প্রয়োজন সমন্বিত উদ্যোগ
কম বয়সীদের স্ট্রোক বাড়ছে
বছরে ১৮ লাখের বেশি স্ট্রোকের রোগী

মন্তব্য

শিক্ষা
Various activities on BSMMU Research Day

বিএসএমএমইউ গবেষণা দিবসে নানা আয়োজন

বিএসএমএমইউ গবেষণা দিবসে নানা আয়োজন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় গবেষণা দিবসে বৃহস্পতিবার ক্যাম্পাসে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের হয়। ছবি: নিউজবাংলা
বিএসএমএমইউ-এর উপাচার্য অধ্যাপক শরফুদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘রোগ প্রতিরোধের ক্ষেত্রে গবেষণার বিকল্প নেই। গবেষণা ক্ষেত্রে এই বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক, চিকিৎসকদের মাঝে ব্যাপক আগ্রহ সৃষ্টি হয়েছে। তাদের চাহিদা পূরণে গবেষণা খাতে বছরে ৫০ কোটি টাকা বরাদ্দ প্রয়োজন।’

বর্ণাঢ্য আয়োজনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) চতুর্থ গবেষণা দিবস পালিত হয়েছে বৃহস্পতিবার।

দিবসটির কর্মসূচি মধ্যে ছিল- শোভাযাত্রা, গবেষণা পোস্টারিং, ওরাল প্রেজেন্টেশন, মিট দ্য প্রেস, গবেষণা অ্যাওয়ার্ড প্রদান ও আলোচনা সভা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের বি ব্লকে স্থাপিত বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে সকাল ৮টায় শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। সেখান থেকে একটি বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের হয়ে বটতলা, টিএসসি, এ-ব্লক, ডি-ব্লক, সি-ব্লক ঘুরে কেবিন ব্লকে গিয়ে শেষ হয়।

সকাল সাড়ে ৮টা থেকে বৈজ্ঞানিক অধিবেশন ও পোস্টার প্রেজেন্টেশনে অংশ নেন বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের চিকিৎসক-গবেষকরা। বৈজ্ঞানিক অধিবেশনে ১০টি ওরাল প্রেজেন্টেশন ও ২০টি পোস্টার প্রেজেন্টেশন করা হয়। ১০টায় মিট দ্য প্রেস ও ১১টায় ছিল আলোচনা সভা।

এ বছর শ্রেষ্ঠ গবেষণার জন্য কয়েকশ’ গবেষকের মাঝ থেকে অধ্যাপক, সহযোগী অধ্যাপক, সহকারী অধ্যাপক, মেডিক্যাল অফিসারসহ ১৬ জনকে গবেষণা পদক বা রিসার্চ অ্যাওয়ার্ড দেয়া হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিমন্ত্রী ইয়াফেস ওসমান। তিনি বলেন, ‘ডিজিটাল বাংলাদেশে চিকিৎসা বিজ্ঞানকে এগিয়ে নিতে গবেষণার বিকল্প নেই। গবেষণার ধারা অব্যাহত না রাখতে পারলে দেশ পিছিয়ে যাবে। তরুণ চিকিৎসকরা গবেষণার মাধ্যমে উন্নয়ন ও অগ্রগতির দিক দিয়ে চিকিৎসা বিজ্ঞানে আমূল পরিবর্তন আনতে সক্ষম হবেন বলে আমি বিশ্বাস করি।’

সভাপতির বক্তব্যে বিএসএমএমইউ-এর উপাচার্য অধ্যাপক শরফুদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘রোগ প্রতিরোধের ক্ষেত্রে গবেষণার বিকল্প নেই। শুধু ডায়াবেটিস প্রতিরোধ করতে পারলেই বছরে এক লাখ কোটি টাকা সাশ্রয় করা সম্ভব।

‘বিএসএমএমইউ-তে গবেষণা কার্যক্রম ত্বরান্বিত করতে উপাচার্য অ্যাওয়ার্ড প্রবর্তন করা হয়েছে। গবেষণা ক্ষেত্রে এই বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক, চিকিৎসকদের মাঝে ব্যাপক আগ্রহ সৃষ্টি হয়েছে। তাদের চাহিদা পূরণে গবেষণা খাতে বছরে ৫০ কোটি টাকা বরাদ্দ প্রয়োজন।’

তিনি জানান, ইতোমধ্যে গবেষণা খাতে বরাদ্দ পাঁচ গুণ বাড়িয়ে ২২ কোটি ৪০ লাখ টাকা করা হয়েছে। এছাড়াও গবেষণা কার্যক্রম এগিয়ে নিতে চলতি শিক্ষাবর্ষে একসঙ্গে ২৪ গবেষক-চিকিৎসককে পিএইচডি কোর্সে এনরোলমেন্ট করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেয়া সমন্বিত গবেষণা পুরস্কারের ২০ শতাংশ এই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, চিকিৎসক ও রেসিডেন্টরা অর্জন করেছেন।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. দিল আফরোজ বেগম। তিনি বলেন, ‘বিশ্বমানের চিকিৎসা শিক্ষা, চিকিৎসা সেবা ও গবেষণার ক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের পক্ষ থেকে যথাসম্ভব সহায়তা দেয়া হবে।’

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বিএমআরসি চেয়ারম্যান অধ্যাপক সৈয়দ মোদাদ্দের আলী বলেন, ‘গবেষণায় ইথিক্যাল পার্ট খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তাই গবেষণার ক্ষেত্রে ইথিক্যাল মানদণ্ড বজায় রাখতে হবে।’

বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশনে (বিএমএ) সভাপতি মোস্তফা জালাল মহিউদ্দীন বলেন, ‘গবেষণার মাধ্যমে চিকিৎসা বিজ্ঞানে এগিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে অভীষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছানো সম্ভব।’

আলোচনা সভায় স্বাগত বক্তব্যে বিএসএমএমইউ-এর উপাচার্য (গবেষণা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক জাহিদ হোসেন বলেন, ‘দেশে চিকিৎসা বিজ্ঞান গবেষণায় এই বিশ্ববিদ্যালয় নেতৃত্বের ভূমিকা পালন করছে। গবেষণা দিবস পালনের মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা কার্যক্রম আরও বেগবান হবে।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন অনুষদের ডিন, বিভিন্ন বিভাগের চেয়ারম্যান, অধ্যাপক, চিকিৎসক, কর্মকর্তা, নার্স, কর্মচারীবৃন্দ শোভাযাত্রায় অংশ নেন।

আরও পড়ুন:
বিএসএমএমইউতে ভাঙারির নামে ‘পুকুরচুরি’
বিএসএমএমইউ-তে স্বাস্থ্য পরীক্ষার ফল এখন অনলাইনে
‘ক্যাডাভেরিক ট্রান্সপ্ল্যান্টের মাধ্যমে বাঁচবে প্রাণ’
দেশে বছরে ছানি রোগী বাড়ছে ১ লাখের বেশি
দেশে চালু হচ্ছে সুপার স্পেশালাইজড হাসপাতাল

মন্তব্য

শিক্ষা
Thanks to research the country is self sufficient in food today Industries Minister

গবেষণার কল্যাণে দেশ আজ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ : শিল্পমন্ত্রী

গবেষণার কল্যাণে দেশ আজ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ : শিল্পমন্ত্রী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে শনিবার বেলুন উড়িয়ে গবেষণা ও প্রকাশনা মেলার উদ্বোধন করেন শিল্পমন্ত্রী নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন : ছবি : নিউজবাংলা
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শতবর্ষপূর্তি উপলক্ষে শনিবার ক্যাম্পাসে শুরু হয়েছে গবেষণা ও প্রকাশনা মেলা। দুই দিনব্যাপী এই আয়োজনে বিভিন্ন অনুষদ, বিভাগ, ইনস্টিটিউট, প্রকাশনা সংস্থা ও গবেষণা কেন্দ্রের শতাধিক স্টল রয়েছে।

কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকদের গবেষণার কল্যাণে বিপুল জনসংখ্যার দেশ হওয়া সত্ত্বেও আমরা খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ। তাদের গবেষণায় ধানের বিভিন্ন জাত উদ্ভাবন হয়েছে। সেগুলোকে আমরা দেশের কাজে লাগাচ্ছি।’

শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন শনিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শতবর্ষপূর্তি উপলক্ষে আয়োজিত গবেষণা ও প্রকাশনা মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন। দুই দিনব্যাপী এই মেলা সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৬টা পর্যন্ত উন্মুক্ত থাকবে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রযুক্তিগত দক্ষতা অর্জনের ওপর গুরুত্বারোপ করেন। তিনি বলেন, চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় বর্তমান প্রজন্মকে সুদক্ষ কর্মী বাহিনী হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। গবেষণা ও উদ্ভাবনের মাধ্যমে দেশের রপ্তানি খাতকে বহুমুখী করতে হবে। সেই চেষ্টা চলছে।’

মন্ত্রী বলেন, ‘তৈরি পোশাক আমাদের প্রধান রপ্তানি পণ্য হলেও এর মূল তুলা আমরা আমদানি করি। চামড়া একটি বড় শিল্প। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের লেদার ইঞ্জিনিয়ারিং ইনস্টিটিউট কাজ করছে। এক্ষেত্রে গবেষণা প্রয়োজন। চতুর্থ শিল্প বিপ্লব আসন্ন৷ রোবটিক্সের কারণে আমাদের কর্মীবাহিনী কর্মহীন হয়ে পড়ে কি না তা নিয়ে আমাদের ভাবতে হচ্ছে।’

গবেষকদের সার্বিক সহায়তার আশ্বাস দিয়ে শিল্পমন্ত্রী বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে যারা গবেষণায় নিয়োজিত আছেন তাদের প্রতি আমরা যেন সহানুভূতিশীল হই। আমার মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে ইন্টার্নিসহ কাজ করার সুযোগ করে দেব।’

এ সময় তিনি গবেষকদের সহায়তায় এগিয়ে আসার জন্য শিল্প মালিক ও অ্যালামনাইদের প্রতি আহ্বান জানান।

শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বলেন, ‘কর্মদক্ষ ও যুগোপযোগী গ্র্যাজুয়েট তৈরির জন্য একাডেমিক মাস্টার প্ল্যান প্রণয়ন করতে হবে। প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথমে একাডেমিক মাস্টার প্ল্যান হবে এবং এর ভিত্তিতে অবকাঠামোগত মাস্টার প্ল্যান হবে।

‘প্রথমে একাডেমিক গোল সেট করতে হবে। সেখানে গবেষণার বিষয়টি থাকবে এবং তার সঙ্গে আনুষঙ্গিক বিষয় হল অবকাঠামো।’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান সমাজের চাহিদা অনুযায়ী শিক্ষা ও গবেষণা কার্যক্রম পরিচালনার ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

সভাপতির বক্তব্যে তিনি বলেন, ইন্ডাস্ট্রি-একাডেমিয়া সম্পর্ক স্থাপন এবং প্রকাশনা, গবেষণা ও উদ্ভাবন কার্যক্রম জোরদার করার লক্ষ্যে এই মেলার আয়োজন করা হয়েছে। আশা করি সামাজিক চাহিদা নিরূপণ, নতুন জ্ঞান সৃষ্টি ও বিতরণের ক্ষেত্রে এই মেলা কার্যকর ভূমিকা রাখবে।

‘বিদেশি শিক্ষার্থীদের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার প্রচুর আগ্রহ রয়েছে। ভর্তিকেন্দ্রিক জটিলতা ও দীর্ঘসূত্রতার কারণে তারা আসতে চায় না।’

ভর্তিকেন্দ্রিক জটিলতা ও দীর্ঘসূত্রতা নিরসনে তিনি পররাষ্ট্র ও শিক্ষা মন্ত্রলায়ের প্রতি আহ্বান জানান।

বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার প্রবীর কুমার সরকারের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ, উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামাল ও কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক মমতাজ উদ্দিন আহমেদ বক্তব্য দেন।

আলোচনা পর্ব শেষে বেলুন উড়িয়ে মেলার উদ্বোধন করা হয়। উদ্বোধন শেষে অতিথিরা মেলার বিভিন্ন স্টল ঘুরে দেখেন।

মেলায় যা থাকছে

দুই দিনব্যাপী এই মেলায় বিভিন্ন অনুষদ, বিভাগ, ইনস্টিটিউট, প্রকাশনা সংস্থা ও গবেষণা কেন্দ্রের শতাধিক স্টল রয়েছে। এসব স্টলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শতবর্ষ উপলক্ষে প্রকাশিত বিভিন্ন প্রকাশনা ও উদ্ভাবনসহ ৫৫টি গ্রন্থ, ২৬টি বিশেষ জার্নাল, ২১৬টি গবেষণা প্রজেক্ট, ৬২৪টি পোস্টার ও ৮৬টি ফ্লাইয়ার ব্রুশিয়ার স্থান পেয়েছে।

উদ্বোধনী দিনে বিকেল ৩টায় কলা অনুষদ, বিজ্ঞান অনুষদ, আইন অনুষদ, বিজনেস স্টাডিজ অনুষদ ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের পৃথক উপস্থাপনা ছিল।

রোববার সমাপনী দিনে সকাল ১০টায় জীববিজ্ঞান অনুষদ, ফার্মেসি অনুষদ, আর্থ অ্যান্ড এনভায়রমেন্টাল সায়েন্সেস অনুষদ, ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টেকনোলজি অনুষদ এবং চারুকলা অনুষদের পৃথক উপস্থাপনা থাকবে।

এছাড়া সব ইনস্টিটিউটের পক্ষে একটি এবং গবেষণা কেন্দ্র/ব্যুরোর পক্ষে একটি উপস্থাপনা থাকবে। বিকেল ৪টায় সমাপনী অনুষ্ঠানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শতবর্ষ উপলক্ষে আয়োজিত কবিতা, রচনা ও ফটোগ্রাফি প্রতিযোগিতা এবং প্রতিটি জার্নালের বিশেষ সংখ্যার শ্রেষ্ঠ আর্টিক্যাল লেখককে সনদ, ক্রেস্ট ও প্রাইজমানি দেয়া হবে।

এছাড়া প্রতিটি অনুষদ, ইনস্টিটিউট ও সেন্টারের পোস্টার থেকে নির্বাচিত প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় পোস্টার উপস্থাপনকারীকেও পুরস্কার দেয়া হবে।

আরও পড়ুন:
ঢাবিতে আবরার স্মরণসভায় ছাত্রলীগের হামলা
রিজভীর রুচির পরিচয় পেয়েছে ঢাবি শিক্ষক সমিতি
ঢাবি ক্যাম্পাসকে সন্ত্রাসের অভয়ারণ্য করা হয়েছে: সাদা দল
ছাত্রদলের দুই গ্রুপ জয়বাংলা বলে হামলায় জড়িয়েছে: ছাত্রলীগ
ঢাবিতে ছাত্রদলের ওপর ছাত্রলীগের হামলা

মন্তব্য

p
উপরে