× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

শিক্ষা
Abuse of Power Performing Arts Demonstration of Power
hear-news
player
google_news print-icon

ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্ষমতার অপব্যবহার বিরোধী পারফর্মিং আর্ট

ড্যাফোডিল-বিশ্ববিদ্যালয়ে-ক্ষমতার-অপব্যবহার-বিরোধী-পারফর্মিং-আর্ট
ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়ে পারফর্মিং আর্ট। ছবি: সংগৃহীত
পারফর্মিং আর্টের অভিনেতা নাহিদুল ইসলাম নাহিদ বলেন, ‘আমাদের চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা অসংগতি নিয়ে পারফর্মিং আর্ট প্রদর্শনের প্রস্তুতি নিই। আমাদের মনে হয়েছে, সমাজের নানা অসংগতির মূলে রয়েছে ক্ষমতার অপব্যবহার। সবাই যার যার জায়গা থেকে সঠিক কাজটি করলেই কোনো অসুবিধা থাকবে না সমাজে।’

সমাজের নানা অসংগতি নিয়ে ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়ে দিনব্যাপী পারফর্মিং আর্ট প্রদর্শনী হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের নলেজ ভ্যালিতে বৃহস্পতিবার কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের আর্ট অব লিভিং কোর্সের শিক্ষার্থীরা এই প্রদর্শনী করেন।

‘ক্ষমতা’ নামে পারফর্মিং আর্টের পরিকল্পনা ও নির্দেশনা দিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের আর্ট অব লিভিং-এর শিক্ষক সুজন নাজির।

এই পারফর্মিং আর্টের মাধ্যমে সমাজের নানা অসংগতি, ক্ষমতার অপব্যবহার, দুর্নীতি, হয়রানি, সুশাসনের বিষয়গুলো তুলে ধরেন শিক্ষার্থীরা। ৪০ জন শিক্ষার্থী এ পারফর্মিং আর্টে নানা চরিত্রে অংশ নেন।

পারফর্মিং আর্টের অভিনেতা নাহিদুল ইসলাম নাহিদ বলেন, ‘আমাদের চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা অসংগতি নিয়ে পারফর্মিং আর্ট প্রদর্শনের প্রস্তুতি নিই। আমাদের মনে হয়েছে, সমাজের নানা অসংগতির মূলে রয়েছে ক্ষমতার অপব্যবহার। সবাই যার যার জায়গা থেকে সঠিক কাজটি করলেই কোনো অসুবিধা থাকবে না সমাজে। আমরা মনে করি শুধু নিজেরাই এমন চর্চা করলেই হবে না, এ চর্চা ছড়িয়ে দিতে হবে সবার মাঝে।’

আরও পড়ুন:
সোহরাওয়ার্দীতে গাছ কাটা বিরোধী পারফর্মিং আর্ট

মন্তব্য

আরও পড়ুন

শিক্ষা
A woman riding a rickshaw was killed after being hit by a private car in DU

টিএসসিতে চাপা দিয়ে নারীকে নীলক্ষেত পর্যন্ত টেনে নিল গাড়ি

টিএসসিতে চাপা দিয়ে নারীকে নীলক্ষেত পর্যন্ত টেনে নিল গাড়ি নারীকে রিকশা থেকে ফেলে টিএসসি থেকে নীলক্ষেত থেকে টেনে-হিঁচড়ে নিয়ে যায় প্রাইভেট কারটি। এক পর্যায়ে চালককে আটকে পিটুনি দেয় পথচারীরা। ছবি কোলাজ: নিউজবাংলা
এক নারীকে সড়ক দিয়ে টেনে নেয়ার ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছে ফেসবুকে। এতে দেখা গেছে, গাড়ির বাম পাশে সামনের চাকার পেছনে বাঁধিয়ে ওই নারীকে টেনে নিয়ে যাচ্ছে প্রাইভেট কার। এক পর্যায়ে চালককে আটকায় পথচারীরা।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) ক্যাম্পাসে নারীকে রিকশা থেকে ফেলে টিএসসি থেকে নীলক্ষেত পর্যন্ত টেনে-হিঁচড়ে নিয়ে গেছে একটি প্রাইভেট কার।

শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকের এ ঘটনায় আহত ওই নারীকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে কিছুক্ষণ পর তার মৃত্যু হয়।

নিহত ৪৫ বছর বয়সী নারীর নাম রুবিনা আক্তার। তিনি গৃহবধূ ছিলেন; থাকতেন তেজগাঁওয়ে। তার ১২ বছরের এক ছেলে আছে। দুই বছর আগে তার স্বামী মারা গেছেন।

ঢামেক পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ বাচ্চু মিয়া নিউজবাংলাকে এসব নিশ্চিত করেছেন।

ওই নারীকে সড়ক দিয়ে টেনে নেয়ার ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছে ফেসবুকে। এতে দেখা যায়, গাড়ির বাম পাশে সামনের চাকার পেছনে আটকে পড়া নারীকে টেনে নিয়ে যাচ্ছে প্রাইভেট কারটি। এক পর্যায়ে গাড়িটিকে আটকায় পথচারীরা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরিয়াল টিম জানায়, গাড়িচালক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের সাবেক সহযোগী অধ্যাপক; নাম আজাহার জাফর শাহ।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী টিএসসির একাধিক ভ্রাম্যমাণ দোকানদার নিউজবাংলাকে জানায়, একটি রিকশায় ওই নারী শাহবাগ থেকে টিএসসির দিকে আসছিলেন। এ সময় পেছন থেকে একটি প্রাইভেট কার রিকশাকে ধাক্কা দিলে, তিনি পড়ে যান। নারীকে চাপা দেয়ার পর চালক গাড়ি না থামিয়ে চালিয়ে যেতে থাকেন। আশপাশের লোকজন গাড়িটিকে থামানোর চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন।

চাপা পড়া নারীকে হিঁচড়ে নীলক্ষেত মোড় পর্যন্ত নিয়ে যাওয়া হয়। এক পর্যায়ে আশপাশের লোকজন গাড়িটিকে থামাতে সক্ষম হন।

ঘটনাস্থলে উপস্থিত এক রিকশাচালক নিউজবাংলাকে জানান, নারীকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠিয়ে গাড়ির চালককে ইট দিয়ে আঘাত করে লোকজন। তাকে ৩-৪ মিনিট মারধর করা হয়। পরে পুলিশ চালককে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায়।

ঘটনাস্থলে থাকা শাহবাগ থানা পুলিশের উপপরিদর্শক জাফর বলেন, ‘একজন নারী কার দুর্ঘটনার শিকার হয়েছেন। কারচালককে উত্তেজিত জনতা আটক করে পিটিয়েছে।’

আরও পড়ুন:
ঢাবির হলে শিক্ষার্থীকে রড দিয়ে পিটিয়েছে ছাত্রলীগের কর্মী
ঢাবি প্রক্টরের বিরুদ্ধে ‘গুরুতর’ অভিযোগ

মন্তব্য

শিক্ষা
11th admission application through digital system started on December 8

ডিজিটাল পদ্ধতিতে একাদশে ভর্তি, আবেদন শুরু ৮ ডিসেম্বর

ডিজিটাল পদ্ধতিতে একাদশে ভর্তি, আবেদন শুরু ৮ ডিসেম্বর ২৮ নভেম্বর চলতি বছরের এসএসসি পরীক্ষার ফল প্রকাশের পর রাজধানীর ভিকারুননিসা নূন স্কুলের শিক্ষার্থীরাও আনন্দ-উচ্ছ্বাস মেতে ওঠে। ছবি: পিয়াস বিশ্বাস/নিউজবাংলা
ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান ও আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় কমিটির সভাপতি তপন কুমার সরকার বলেন, ‘আগামী ৮ ডিসেম্বর থেকে একাদশে ভর্তির অনলাইন আবেদন শুরু হবে, যা চলবে ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত। শিক্ষার্থীরা সর্বনিম্ন পাঁচটি এবং সর্বোচ্চ ১০টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পছন্দক্রম দিয়ে আবেদন করতে পারবে।’

উচ্চ মাধ্যমিক বা একাদশ শ্রেণিতে শিক্ষার্থীদের ভর্তির অনলাইনে আবেদন শুরু হবে আগামী ৮ ডিসেম্বর, যা চলবে ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত। এ বছর আবেদন করতে হবে আগের বছরের মতো ডিজিটাল পদ্ধতিতে।

বৃহস্পতিবার ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান ও আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় কমিটির সভাপতি তপন কুমার সরকার এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, ‘আগামী ৮ ডিসেম্বর থেকে একাদশে ভর্তির অনলাইন আবেদন শুরু হবে, যা চলবে ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত। শিক্ষার্থীরা সর্বনিম্ন পাঁচটি এবং সর্বোচ্চ ১০টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পছন্দক্রম দিয়ে আবেদন করতে পারবে।’

তপন কুমার সরকার বলেন, ‘বৃহস্পতিবার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে অনুষ্ঠিত একাদশে ভর্তিবিষয়ক এক সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। আগামী সপ্তাহে ভর্তি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হবে।’

এর আগে গত সোমবার ফল প্রকাশের দিন শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি জানিয়েছিলেন, উচ্চ মাধ্যমিকের ভর্তি যে পদ্ধতিতে হয়, এবারও সেই একই পদ্ধতিতে হবে। কোনো ব্যত্যয় হবে না।

এ বছর ৯টি শিক্ষা বোর্ড এবং মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে মাধ্যমিক ও সমমানের চূড়ান্ত পরীক্ষায় অংশ নেয় ১৯ লাখ ৯৪ হাজার ১৩৭ জন শিক্ষার্থী। তাদের মধ্যে ১৭ লাখ ৪৩ হাজার ৬১৯ জন পাস করেছে। তবে সরকারি ও বেসরকারি কলেজ মিলিয়ে ২৫ লাখের মতো শিক্ষার্থী ভর্তির সুযোগ রয়েছে একাদশ শ্রেণিতে।

গত ২৮ নভেম্বর চলতি বছরের এসএসসি ও সমমানের ফল প্রকাশ করা হয়। পরীক্ষায় গড় পাসের হার ৮৭ দশমিক ৪৪ শতাংশ, যা আগের বছর ছিল ৯৩ দশমিক ৫৮ শতাংশ।

এবার সাধারণ ৯টি শিক্ষা বোর্ডে পাসের হার ৮৮ দশমিক ১০ শতাংশ। মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডে পাসের হার ৮২ দশমিক ২২ শতাংশ আর কারিগরি শিক্ষা বোর্ডে ৮৯ দশমিক ৫৫ শতাংশ।

আরও পড়ুন:
এসএসসিতে এক লাখ বেশি ফেলের পেছনে কী কারণ
পা দিয়ে লিখে জিপিএ ফাইভ পেল মানিক
উপযুক্ত শিক্ষকের অভাব আছে: শিক্ষামন্ত্রী
৪৫ বছরে এসএসসি দিয়ে পেলেন জিপিএ ফাইভ
বাবার মরদেহ রেখে পরীক্ষা দেয়া সুমাইয়া পেল জিপিএ ফাইভ

মন্তব্য

শিক্ষা
Professor Dr Hafiza Khatun gold medal launched in Jabi

জাবিতে ‘প্রফেসর ড. হাফিজা খাতুন স্বর্ণপদক’ চালু

জাবিতে ‘প্রফেসর ড. হাফিজা খাতুন স্বর্ণপদক’ চালু
জাবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. নুরুল আলম বলেন, ‘এই স্বর্ণপদক চালুর ফলে বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্রীড়াবিদরা অনুপ্রেরণা ও উৎসাহ পাবেন। তারা ক্রীড়া নৈপুণ্যে আরও মনোযোগী হবেন।’

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় ছাত্র ও ছাত্রী চ্যাম্পিয়নকে প্রদানের লক্ষ্যে ‘প্রফেসর ড. হাফিজা খাতুন স্বর্ণপদক’ চালু করা হয়েছে।

পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. হাফিজা খাতুন বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় ছাত্র ও ছাত্রী চ্যাম্পিয়নকে স্বর্ণপদক প্রদানের লক্ষ্যে ১০ লাখ টাকার চেক হস্তান্তর করেন জাবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. নূরুল আলমের কাছে।

জাবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. নুরুল আলম বলেন, ‘এই স্বর্ণপদক চালুর ফলে বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্রীড়াবিদরা অনুপ্রেরণা ও উৎসাহ পাবেন। তারা ক্রীড়া নৈপুণ্যে আরও মনোযোগী হবেন।’

পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. হাফিজা খাতুন বলেন, ‘খেলাধুলায় স্বর্ণপদক চালু করতে বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মতিতে আমি আনন্দিত। আমি বিশ্বাস করি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় আমাকে তৈরি করেছে এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আমি বিকশিত হয়েছি। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়কে আমি হৃদয়ে ধারণ করি।’

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক শেখ মো. মনজুরুল হক, রেজিস্ট্রার (চুক্তিভিত্তিক) রহিমা কানিজ, মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের অধ্যাপক ও পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক কোষাধ্যক্ষ ড. আনোয়ার খসরু পারভেজ, ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের অধ্যাপক মো. শাহেদুর রশিদ এবং অধ্যাপক ড. খন্দকার হাসান মাহমুদ।

প্রফেসর ড. হাফিজ খাতুন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্রী। তিনি মুক্তিযুদ্ধ উত্তর স্বাধীন-স্বার্বভৌম বাংলাদেশে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের দ্বিতীয় এবং মেয়েদের মধ্যে প্রথম ব্যাচের ভূগোল বিভাগের শিক্ষার্থী ছিলেন। বিভিন্ন খেলায় দক্ষতা ও পারদর্শীতার জন্য তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের খেলাধুলায় সর্বোচ্চ খেতাব ‘ব্লু’ প্ৰাপ্ত হয়েছিলেন।

১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে হাফিজা খাতুন অংশগ্রহণ করেছেন। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মধ্যে ড. হাফিজা খাতুন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগদানকারী শিক্ষকদের মধ্যে প্রথম। তিনি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের এ্যালামনাই এসোসিয়েশনের নির্বাচিত সহ-সভাপতি।

আরও পড়ুন:
জাবিতে ‘প্রজাপতি মেলা’ এবার ২ ডিসেম্বর
মসজিদ নির্মাণের দাবিতে জাবিতে মানববন্ধন
ছাত্রকে থাপ্পড় দেয়া জাবির ২ ছাত্রীর বহিষ্কারাদেশ অবৈধ
জাবিতে নিরাপত্তা কর্মকর্তারই মোটরসাইকেল চুরি
ঢাবিতে ঢুকলে জাবি অধ্যাপককে জীবন বিপন্নের হুমকি

মন্তব্য

শিক্ষা
3 institutions are saddened as no one passed in SSC

এসএসসিতে একজনও পাস না করায় ৩ প্রতিষ্ঠানকে শোকজ

এসএসসিতে একজনও পাস না করায় ৩ প্রতিষ্ঠানকে শোকজ
শোকজ নোটিশ পাওয়া এমপিওভুক্ত ওই প্রতিষ্ঠানগুলো হলো জেলার উল্লাপাড়া উপজেলার বাঙ্গালা ইউনিয়নের ইসলামপুর (মাঝিপাড়া) ধরইল দাখিল মাদ্রাসা, রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়নের কালিকাপুর দাখিল মাদ্রাসা ও বড়পাঙ্গাসী ইউনিয়নের খন্দকার নূরুন নাহার জয়নাল আবেদিন দাখিল মাদ্রাসা।

সিরাজগঞ্জে এবার এসএসসি পরীক্ষায় কোনো শিক্ষার্থী পাস না করায় ৩টি প্রতিষ্ঠানের কাছে কারণ দর্শানোর (শোকজ) নোটিশ দিয়েছে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা এ কে এম শামসুল হক স্বাক্ষরিত শোকজ নোটিশ বৃহস্পতিবার প্রতিষ্ঠান প্রধানের হাতে গিয়ে পৌঁছেছে। আগামী ৩ কার্যদিবসের মধ্যে লিখিতভাবে জবাব দিতে বলা হয়েছে নোটিশে।

শিক্ষা কর্মকর্তা একেএম শামসুল হক এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

শোকজ নোটিশ পাওয়া এমপিওভুক্ত ওই প্রতিষ্ঠানগুলো হলো জেলার উল্লাপাড়া উপজেলার বাঙ্গালা ইউনিয়নের ইসলামপুর (মাঝিপাড়া) ধরইল দাখিল মাদ্রাসা, রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়নের কালিকাপুর দাখিল মাদ্রাসা ও বড়পাঙ্গাসী ইউনিয়নের খন্দকার নূরুন নাহার জয়নাল আবেদিন দাখিল মাদ্রাসা।

শিক্ষা কর্মকর্তা শামসুল হক জানান, প্রতিষ্ঠানগুলোর পক্ষ থেকে নোটিশের জবাব পাওয়ার পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আরও পড়ুন:
বাবার মরদেহ রেখে পরীক্ষা দেয়া সুমাইয়া পেল জিপিএ ফাইভ
রাজশাহীতে পাসের হার কমলেও বেড়েছে জিপিএ ফাইভ, এগিয়ে মেয়েরা
চট্টগ্রামে কমেছে পাসের হার, বেড়েছে জিপিএ ফাইভ
এসএসসির সাফল্যে বাঁধভাঙা উচ্ছ্বাস
পাসের হারে সিলেট কেন তলানিতে

মন্তব্য

শিক্ষা
No unnecessary construction of buildings in universities UGC

বিশ্ববিদ্যালয়গুলোয় অপ্রয়োজনে ভবন নির্মাণ নয়: ইউজিসি

বিশ্ববিদ্যালয়গুলোয় অপ্রয়োজনে ভবন নির্মাণ নয়: ইউজিসি
একাডেমিক, প্রশাসনিক ও আবাসিক ভবন নির্মানের বিষয়টি প্রয়োজন ও অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাবে (ডিপিপি) অন্তর্ভুক্ত করার পরামর্শ দিয়েছেন ইউজিসি সদস্য অধ্যাপক ড. মো. আবু তাহের।

পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে অপ্রয়োজনে ভবন নির্মান না করার পরামর্শ দিয়েছে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন (ইউজিসি)। এক্ষেত্রে একাডেমিক, প্রশাসনিক ও আবাসিক ভবন নির্মানের বিষয়টি প্রয়োজন ও অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাবে (ডিপিপি) অন্তর্ভুক্ত করার পরামর্শ দিয়েছেন ইউজিসি সদস্য অধ্যাপক ড. মো. আবু তাহের।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়ন প্রকল্পসমূহ নির্দিষ্ট সময়ে ও পরিকল্পনামাফিক বাস্তবায়নের পরামর্শও দিয়েছেন তিনি। এসব প্রকল্পের কাজ যথাসময়ে সম্পন্ন করতে তদারকি জোরদার করবে ইউজিসি।

বৃহস্পতিবার পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০২২-২০২৩ অর্থবছরের বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি (এপিএ) মোতাবেক কর্মসম্পাদন, প্রমাণক সংরক্ষণ ও কমিশনে প্রেরণ সংক্রান্ত কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে অধ্যাপক ড. মো. আবু তাহের এ আহ্বান জানান।

ইউজিসি অডিটোরিয়ামে বৃহস্পতিবার দিনব্যাপী এই কর্মশালা হয়। এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ইউজিসি সচিব ড. ফেরদৌস জামান।

আবু তাহের বলেন, ‘উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় উল্লেখযোগ্য সংখ্যক পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারী ও শিক্ষার্থীদের জন্য আবাসিক ভবন এবং হল নির্মাণ করা হচ্ছে। সরেজমিনে দেখা গেছে, কোনো কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকদের জন্য নির্মিত বহুতল ভবনের অধিকাংশ ফ্ল্যাটই খালি পড়ে আছে।’

আবাসিক সংকটে শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসের বাইরে থাকতে বাধ্য হচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘যে ভবনটির প্রকৃত প্রয়োজন সেটিকে উন্নয়ন প্রকল্পে যুক্ত করতে হবে। অপ্রয়োজনে ভবন নির্মাণ হলে কেবল রাষ্ট্রীয় সম্পদের অপচয় হবে।’

উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়নে ধীর গতি রয়েছে বলেও মনে করেন আবু তাহের। অনেক বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রকল্পের কাজ নির্দিষ্ট সময়ে শেষ হচ্ছে না উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘এ ক্ষেত্রে বারবার তারা সময় ও ব্যয় বৃদ্ধির জন্য আবেদন করছেন। এতে সরকারের ব্যয় বেড়ে যাচ্ছে।’

উন্নয়ন প্রকল্পে অনিয়ম সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ও সংশ্লিষ্ট শিক্ষক-কর্মকর্তারা অনিয়মে জড়িয়ে পড়েছেন। শিক্ষকদের বিরুদ্ধে এসব অনিয়মের তদন্ত অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক।’

আরও পড়ুন:
গবেষণায় বিদেশি অনুদান নিতে পরামর্শ ইউজিসির
বিশ্ববিদ্যালয়ে ই-নথি চায় ইউজিসি
প্রস্তুতি ছাড়া বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন নিয়ে উদ্বিগ্ন ইউজিসি করছে নীতিমালা
বিশ্ববিদ্যালয়ে বিদ্যুৎ ব্যবহারে মিতব্যয়ী হতে বলেছে ইউজিসি
বিশ্ববিদ্যালয়ে র‌্যাগ ডে বন্ধের নির্দেশ ইউজিসির

মন্তব্য

শিক্ষা
Pre birthday celebration of Jesus Christ in Jabi

জবিতে যিশুখ্রিষ্টের প্রাক-জন্মদিন উদযাপন

জবিতে যিশুখ্রিষ্টের প্রাক-জন্মদিন উদযাপন
জবি উপাচার্য বলেন, ‘বাঙালির ঐতিহ্যের সঙ্গে ধর্মীয় সংস্কৃতি মিশে আছে। কোনো ধর্মই মাদক নিতে বলে না, মিথ্যা বলা শেখায় না, কারোর কোনো ক্ষতি করতে বলে না। প্রত্যেকে প্রত্যেক ধর্মের বাণীগুলো মেনে চললে কেউই পথভ্রষ্ট হবে না।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) অধ্যয়নরত খ্রিষ্টান শিক্ষার্থীদের উদ্যোগে যিশুখ্রিষ্টের জন্মদিন উপলক্ষে প্রাক-বড়দিন ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের সম্মেলনকক্ষে বৃহস্পতিবার বিকেলে এই আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। আলোচনা সভা শেষে কাটা হয় কেক।

বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মিল্টন বিশ্বাসের সভাপতিত্বে ও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় প্রেস ক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জগেশ রায়ের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. ইমদাদুল হক।

উপাচার্য বলেন, ‘বাঙালির ঐতিহ্যের সঙ্গে ধর্মীয় সংস্কৃতি মিশে আছে। কোনো ধর্মই মাদক নিতে বলে না, মিথ্যা বলা শেখায় না, কারোর কোনো ক্ষতি করতে বলে না। প্রত্যেকে প্রত্যেক ধর্মের বাণীগুলো মেনে চললে কেউই পথভ্রষ্ট হবে না।

‘বর্তমানে ধর্মের নামে হানাহানি চলে। বড় বড় রাষ্ট্রে এখন দেখা যায় ধর্মীয় ছোট ছোট বিষয় নিয়ে বিশ্বকে অস্থিতিশীল করে তোলা হয়। আমাদের প্রত্যেকের সব ধর্মকে শ্রদ্ধা করা উচিত।’

নতুন ক্যাম্পাসের মাস্টারপ্ল্যান হয়ে গেছে জানিয়ে উপাচার্য বলেন, ‘সেখানে মসজিদ, মন্দির, গির্জা সবই হবে। সব শিক্ষার্থী তাদের নিজ ধর্ম পালন করে সহাবস্থান তৈরি করবে সেখানে।’

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. মো. আবুল হোসেন, সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. এ. কে. এম. লুৎফর রহমান, প্রক্টর অধ্যাপক ড. মোস্তফা কামাল, সহকারী প্রক্টর ও খ্রিষ্টান ধর্মাবলম্বী শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
ডেঙ্গুতে জবি ছাত্রদল নেতার মৃত্যু
‘গোল্ড মেডেল’ পেলেন জবির চার শিক্ষার্থী
‘ডিন্‌স অ্যাওয়ার্ড’ পাবেন জবি শিক্ষার্থীরা
পাঠশালা থেকে বিশ্ববিদ্যালয়
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘বঙ্গবন্ধু চেয়ার’ প্রবর্তন

মন্তব্য

শিক্ষা
Application for 45th BCS has not started not mentioned cadre post

৪৫তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি, নন-ক্যাডার পদ উল্লেখ

৪৫তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি, নন-ক্যাডার পদ উল্লেখ পিএসসি ভবন। ফাইল ছবি
পিএসসির পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক আনন্দ কুমারের সই করা বুধবারের বিজ্ঞপ্তিতে নন-ক্যাডার পদ ১ হাজার ২২টি বলা হয়েছে। এ ছাড়া সাধারণ ক্যাডারের ২ হাজার ৩০৯ পদে নিয়োগ হবে বলে জানানো হয়েছে।

৪৫তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ সরকারি কর্মকমিশন (পিএসসি)।

বিজ্ঞপ্তিতে নন-ক্যাডার পদের সংখ্যাও উল্লেখ করা হয়েছে।

পিএসসির পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক আনন্দ কুমারের সই করা বুধবারের বিজ্ঞপ্তিতে নন-ক্যাডার পদ ১ হাজার ২২টি বলা হয়েছে। এ ছাড়া সাধারণ ক্যাডারের ২ হাজার ৩০৯ পদে নিয়োগ হবে বলে জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, আগামী ১০ ডিসেম্বর থেকে এ নিয়োগের আবেদন শুরু হয়ে চলবে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত।

বিসিএসে এই প্রথম নন-ক্যাডার পদের কথা উল্লেখ করেছে পিএসসি।

এর আগে পিএসসি বিসিএসের নন-ক্যাডার পদের বিষয়ে নতুন সিদ্ধান্ত নিলে তার বিপক্ষে ৪০তম বিসিএসের নন-ক্যাডার এবং ৪১ থেকে ৪৪তম বিসিএস চাকরিপ্রার্থীরা পিএসসির সামনে টানা ১৫ দিন আন্দোলন করেন।

৩০ অক্টোবর থেকে শুরু হওয়া এই আন্দোলনের মূল বিষয় ছিল নন-ক্যাডার পদের ঘোষণা হঠাৎ করে নিয়েছে পিএসসি। এতে করে ৪০তম বিসিএসের নন-ক্যাডার প্রার্থীদের পদ ঘাটতি দেখা দেবে। যদিও এখন এই আন্দোলন স্থগিত রয়েছে।

৪৫তম বিসিএসে সবচেয়ে বেশি নিয়োগ দেয়া হবে স্বাস্থ্য ক্যাডারে। এতে নিয়োগ পাবেন ৫৩৯ চিকিৎসক। এর মধ্যে সহকারী সার্জন পদে ৪৫০ ও ডেন্টাল সার্জন পদে ৮৯ জনকে নিয়োগ দেয়া হবে। এ ছাড়া শিক্ষা ক্যাডারে ৪৩৭, প্রশাসনে ২৭৪, পুলিশে ৮০, কাস্টমসে ৫৪, আনসারে ২৫, কর ক্যাডারে ৩০ এবং পররাষ্ট্র, বন, রেল, কৃষি, মৎস্যসহ অন্যান্য ক্যাডারে ৮৭০ জনকে নিয়োগ দেয়া হবে।

নন-ক্যাডারের মধ্যে নবম গ্রেডে ৫০৫, দশম গ্রেডে ৬০, ১১ ও ১২তম গ্রেডে ৪৫৭ জনকে নিয়োগ দেয়া হবে।

বিস্তারিত বিজ্ঞপ্তিটি কমিশনের ওয়েবসাইট এবং টেলিটক বাংলাদেশ লিমিটেডের ওয়েবসাইটে পাওয়া যাবে। আগামী ১০ ডিসেম্বর সকাল ১০টা থেকে অনলাইনে আবেদন প্রক্রিয়া শুরু হবে। ৩১ ডিসেম্বর সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত অনলাইনে আবেদন করা ও আবেদন ফি জমা দেয়া যাবে।

আরও পড়ুন:
৪৪তম বিসিএস: লিখিত পরীক্ষা শুরু ২৯ ডিসেম্বর
৪৪তম বিসিএস: অনিয়মের অভিযোগে মানববন্ধন
৪৪তম বিসিএস প্রিলির ফল প্রকাশ
৪৪তম বিসিএস প্রিলির ফল চলতি মাসে
৪৩তম বিসিএস: লিখিত পরীক্ষা শুরু ২৪ জুলাই

মন্তব্য

p
উপরে