× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

শিক্ষা
Chabi Teachers Association is angry with the appointment of more than the prescribed posts
hear-news
player
google_news print-icon

নির্ধারিত পদের চেয়ে অতিরিক্ত নিয়োগে ক্ষুব্ধ চবি শিক্ষক সমিতি

নির্ধারিত-পদের-চেয়ে-অতিরিক্ত-নিয়োগে-ক্ষুব্ধ-চবি-শিক্ষক-সমিতি
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস। ফাইল ছবি
চবি শিক্ষক সমিতির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অধ্যাপক আবদুল হক বলেন, ‘আমরা ২৪ অক্টোবর একটা জরুরি সভায় বসেছিলাম। গত ১৪ অক্টোবর সিন্ডিকেট সভার কিছু সিদ্ধান্তের বিষয়ে এবং পাশাপাশি পূর্বের কিছু দাবি দাওয়া নিয়ে কয়েকটি সিদ্ধান্ত উঠে আসে। আমাদের সিদ্ধান্তগুলো চিঠিতে উল্লেখ আছে।’

বিজ্ঞাপনে নির্ধারণ করা পদের চেয়ে অতিরিক্ত পদে শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) শিক্ষক সমিতি।

গত বৃহস্পতিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বরাবর শিক্ষক সমিতির পক্ষ থেকে দেয়া চিঠিতে এ কথা জানানো হয়। এতে সই করেছেন সমিতির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অধ্যাপক আবদুল হক ও সাধারণ সম্পাদক ড. সজীব কুমার ঘোষ।

চিঠিতে ২ ডিসেম্বরের মধ্যে সিন্ডিকেটে শিক্ষক প্রতিনিধি পদে নির্বাচনের দাবি জানানো হয়। এতে পাঁচটি বিষয়ে সিদ্ধান্ত উল্লেখ করে সংশ্লিষ্ট বিষয়ে পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য বলা হয়।

চিঠি থেকে জানা যায়, গত ২৪ অক্টোবর শিক্ষক সমিতির একটি বৈঠক হয়। সেখানে পাঁচটি সিদ্ধান্ত নেয় চবি শিক্ষক সমিতি।

চিঠিতে প্রথম সিদ্ধান্তে বলা হয়, কোনো অবস্থাতেই যেন ক্ষতিগ্রস্ত শিক্ষকদের জ্যেষ্ঠতা লঙ্ঘিত না হয় সে ব্যাপারে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য শিক্ষক সমিতি প্রশাসনের কাছে পুনরায় জোর দাবি জানাচ্ছে এবং আগামী ২ ডিসেম্বরের মধ্যে প্রশাসনের পক্ষ থেকে সন্তোষজনক সুরাহা না হলে চবি শিক্ষক সমিতি কঠোর আন্দোলন কর্মসূচি গ্রহণ করতে বাধ্য হবে।

দ্বিতীয় সিদ্ধান্তে বলা হয়, সহকারী অধ্যাপক থেকে সহযোগী অধ্যাপক এবং সহযোগী অধ্যাপক থেকে অধ্যাপক পদে পদোন্নতির ক্ষেত্রে আবেদনের তারিখ হতে কার্যকর করা সংক্রান্ত দাবি অবিলম্বে বাস্তবায়নের জন্য শিক্ষক সমিতি জোর দবি জানাচ্ছে।

তৃতীয় সিদ্ধান্ত নিয়ে চিঠিতে বলা হয়, বিজ্ঞাপিত পদের অতিরিক্ত শিক্ষক নিয়োগদানের ব্যাপারে সিন্ডিকেটের ইতোপূর্বে গৃহীত সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে গত ১৪ অক্টোবর অনুষ্ঠিত সিন্ডিকেট সভায় বিজ্ঞাপিত পদের অতিরিক্ত শিক্ষক নিয়োগের বিষয়টি অনুমোদন করায় পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদের কারণে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হয়েছে বলে শিক্ষক সমিতি মনে করে। এ ধরনের বিতর্ক সৃষ্টিকারী কর্মকাণ্ড থেকে বিরত থাকার জন্য শিক্ষক সমিতি প্রশাসনকে অনুরোধ জানাচ্ছে।

চতুর্থ সিদ্ধান্তে বলা হয়, ২ ডিসেম্বর তারিখের মধ্যে সিন্ডিকেট নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য শিক্ষক সমিতি প্রশাসনের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছে।

শেষ সিদ্ধান্তে চিঠিতে বলা হয়, গত ১৬ অক্টোবর বাংলাদেশ স্টাডিজ বিভাগের সভাপতি প্রফেসর মো. সেকান্দর চৌধুরীকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেয়া ও দায়িত্ব হস্তান্তরের নির্দেশনা প্রদান করা হয় যা অত্যন্ত অসৌজন্যমূলক, অনভিপ্রেত ও নজিরবিহীন এবং স্বাভাবিক শিক্ষা কার্যক্রমের পরিপন্থি বলে শিক্ষক সমিতি মনে করে।

এ বিষয়ে চবি শিক্ষক সমিতির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অধ্যাপক আবদুল হক বলেন, ‘আমরা ২৪ অক্টোবর একটা জরুরি সভায় বসেছিলাম। গত ১৪ অক্টোবর সিন্ডিকেট সভার কিছু সিদ্ধান্তের বিষয়ে এবং পাশাপাশি পূর্বের কিছু দাবি দাওয়া নিয়ে কয়েকটি সিদ্ধান্ত উঠে আসে। আমাদের সিদ্ধান্তগুলো চিঠিতে উল্লেখ আছে।’

এই শিক্ষক বলেন, ‘আমাদের শিক্ষকগণ ও শিক্ষক সমিতি মনে করছে, সিন্ডিকেটে তাদের কোনো প্রতিনিধি নেই। ফলে তাদের দাবি, অধিকার কিংবা তারা যদি কোনো অবিচারের শিকার হন শিক্ষক প্রতিনিধি না থাকায় সেটা সভায় যথাযথ গুরুত্ব পাচ্ছে না।’

এ বিষয়ে বক্তব্য জানতে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. শিরীণ আখতারকে একাধিকবার কল দেয়া হলেও তিনি রিসভ করেননি। কল ধরেননি উপ-উপাচার্য অধ্যাপক বেনু কুমার দেও।

ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার অধ্যাপক এস এম মনিরুল হাসান এ বিষয়ে কিছু জানেন না বলে জানিয়েছেন।

আরও পড়ুন:
দাবি মানার আশ্বাসে হলে ফিরলেন চবির ছাত্রীরা
সান্ধ্য আইন বাতিল দাবিতে ভিসির বাড়ির সামনে চবি ছাত্রীরা
হলে প্রবেশের সময়সীমাকে চবি ছাত্রীদের প্রত্যাখ্যান

মন্তব্য

আরও পড়ুন

শিক্ষা
Chhatra League committee announcement in 16 sections of Jabir

জবির ১৬ বিভাগে ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণা

জবির ১৬ বিভাগে ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণা ক্যাম্পাসে কর্মসূচিতে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা। ফাইল ছবি
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম আকতার হোসাইন বলেন, ‘দীর্ঘদিন যাবৎ জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি হয়নি। যার ফলে অনেক কর্মীই কোনো রাজনৈতিক পরিচয় পায়নি। সে জন্যই আমরা বিভাগভিত্তিক কমিটি দিচ্ছি। সামনে যেহেতু নির্বাচন, তাই দেশরত্ন শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ কাজ করবে।’

বিভাগে বিভাগে কমিটি দিচ্ছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) শাখা ছাত্রলীগ। এরই মধ্যে ঘোষণা করা হয়েছে ১৬টি বিভাগে আংশিক কমিটি।

বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি মো. ইব্রাহীম ফরাজি ও সাধারণ সম্পাদক এস এম আকতার হোসাইনের সই করা পৃথক বিজ্ঞপ্তিতে এসব কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার রাতে চারটি ও শুক্রবার রাতে আরও ১২টি কমিটির অনুমোদন দেয়া হয়। এসব কমিটিতে স্নাতকপর্যায়ের শিক্ষার্থীরা পদ পেয়েছেন।

লোকপ্রশাসন বিভাগে সভাপতি হিসেবে রাকিবুল হাফিজ অন্তর ও সাধারণ সম্পাদক মো. আরিফুল ইসলাম, ইতিহাস বিভাগে সভাপতি চয়ন কুমার রায় ও সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগে সভাপতি আহমেদ হাসনাত ও সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ আরিফ, প্রাণিবিদ্যা বিভাগে সভাপতি নাহিদুল ইসলাম হিমেল ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল ফাহিম, ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগে সভাপতি বায়েজিদ শেখ ও সাধারণ সম্পাদক মাশরাফি রহমান খান, ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগে সভাপতি হা-মীম ইবনে বাসার ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে আল-আমিন দিমানকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

এ ছাড়াও অন্য বিভাগগুলোর মধ্যে নৃবিজ্ঞান বিভাগে সভাপতি হিসেবে মশিউর রহমান শুভ ও সাধারণ সম্পাদক শামসুল আলম রাফি, ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগে সভাপতি আকরাম হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক মো. ইমতিয়াজ আহম্মেদ রওনক, উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগে সভাপতি সোহানুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক আশিকুর রহমান, মনোবিজ্ঞান বিভাগে সভাপতি রাসেল মোল্লা ও সাধারণ সম্পাদক মো. আকিব হায়দার ইমন, ফার্মেসি বিভাগে সভাপতি মো. আসিফ আরাফাত নিলয় ও সাধারণ সম্পাদক এস এম বায়েজিদ, কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে সভাপতি সুমিত দত্ত ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে তারিদ্দোহা সৌম্য দায়িত্ব পেয়েছেন।

বাংলা বিভাগের সভাপতি হয়েছেন তুষার মাহমুদ, সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে অর্জুন বিশ্বাসকে। এই কমিটিতে সহসভাপতি পদে রয়েছেন মাহমুদুল হক সামি, মো. তরিকুল ইসলাম, মাহমুদুজ্জামান পাভেল, পাবুন চন্দ্ৰ অধিকারী, জুনাঈদ হুসাইন রায়িন। যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন আটজন। সাংগঠনিক সম্পাদক করা হয় আফসানা মীমী ও ফারহানা জেসমিনকে।

অর্থনীতি বিভাগের সভাপতি প্রিয়দর্শী চাকমা ও সাধারণ সম্পাদক ইকবাল মাহমুদ রানা। কমিটির অন্যরা হলেন সহসভাপতি ইব্রাহীম খলিল, মৃদুল হাসান, ইবনুল ইয়াসিন ও সৌরভ সূত্রধর, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মুকিত উল ইসলাম, মমতাজুর রহমান, মো. নবুয়ত হোসেন নুহান ও মেহেদী হাসান আবির।

নাফিস ইকবাল তাশিককে সভাপতি ও রাসেল আহমেদকে সাধারণ সম্পাদক করে গঠিত নাট্যকলা বিভাগের কমিটির অন্যরা হলেন সহসভাপতি আলিমুল ইসলাম, অনামিকা ইবাদ, মো. মোস্তাকিন মিয়া, মো. ইবনে সিনা ইউনুস ও মিঠুন চন্দ্র দাস। এতে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন পাঁচজন।
পরিসংখ্যান বিভাগের সভাপতি আব্দুল্লাহ আল রাফি সাকিব ও সাধারণ সম্পাদক মো. শাহীন আলম। কমিটির অন্যরা হলেন সহসভাপতি আবির মাহমুদ, জারিফ তাজওয়ার, শাহ নাবিল হোসেন তানিম ও রকিবুল ইসলাম। যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান সিফাত, মো. মাঈনুল হক সাকিব, মো. ওমর ফারুক জয়, রিফাত চৌধুরী সজল, শরিফুল হক তানজীম, তৌফাতুল ফেরদৌসী ঝিলিক ও আয়শা ইশরাত।

এ বিষয়ে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম আকতার হোসাইন বলেন, ‘দীর্ঘদিন যাবৎ জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি হয়নি। যার ফলে অনেক কর্মীই কোনো রাজনৈতিক পরিচয় পায়নি। সে জন্যই আমরা বিভাগভিত্তিক কমিটি দিচ্ছি। সামনে যেহেতু নির্বাচন, তাই দেশরত্ন শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ কাজ করবে।’

এর আগে ২৫ থেকে ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিটি অনুষদ, বিভাগ এবং ইনস্টিটিউটের পদপ্রত্যাশীদের সিভি জমা নেয় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ।

আরও পড়ুন:
ছাত্রলীগের সংঘর্ষে ফের উত্তপ্ত চবি, আহত ৮
‘শাসন করতে’ ছাত্রলীগ নেতার জুতাপেটা
ছাত্রলীগের বয়সসীমা ‘উনত্রিশ’ই থাকছে

মন্তব্য

শিক্ষা
Chabi injured in BCL clash again

ছাত্রলীগের সংঘর্ষে ফের উত্তপ্ত চবি, আহত ৮

ছাত্রলীগের সংঘর্ষে ফের উত্তপ্ত চবি, আহত ৮ চবিতে এ এফ রহমান হল ছাত্রলীগের বগি ভিত্তিক দুই উপগ্রুপের সদস্যরা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে
দেয়াল লিখনকে কেন্দ্র করে বিশ্ববিদ্যালয়ের এ এফ রহমান হলে ছাত্রলীগের বগি ভিত্তিক উপগ্রুপ বিজয় ও ভিএক্সের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

দেয়াল লিখনকে কেন্দ্র করে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের এ এফ রহমান হলে শুক্রবার রাত ১০টার দিকে ছাত্রলীগের বগি ভিত্তিক উপগ্রুপ বিজয় ও ভিএক্সের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়; রাত সাড়ে ১১টা পর্যন্ত তা চলছিল। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত আট জন আহত হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে।

একপর্যায়ে বিজয় গ্রুপের কর্মীদের বের করে দিয়ে ভিএক্স গ্রুপের কর্মীরা হলে অবস্থান নেন। তখন বিজয় গ্রুপের কর্মীরা হলের মাঠে অবস্থান নেয়। এ সময় দুই পক্ষের মধ্যেই ইট-পাটকেল নিক্ষেপ চলে, হলের কক্ষও ভাঙচুর করা হয়।

বিবদমান ভিএক্স গ্রুপ সাবেক সিটি মেয়র আ.জ.ম. নাছির উদ্দিনের এবং বিজয় গ্রুপ শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলের অনুসারী হিসেবে ক্যাম্পাসে পরিচিত।

বর্তমানে পুলিশ ও প্রক্টরিয়াল টিম পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা চালাচ্ছেন।

বিশ্ববিদ্যালয় মেডিক্যাল সেন্টারের প্রধান কর্মকর্তা ডা. মো. আবু তৈয়ব নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সংঘর্ষে আহত হয়ে আট জন চিকিৎসা নিয়েছেন। তাদের মধ্যে চার জনকে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।’

বিজয় গ্রুপের নেতা ও শাখা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. ইলিয়াস নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এত জায়গা থাকতেও গতকাল উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে এ এফ রহমান হলের বিজয়গ্রুপের দেয়াল লিখনের ওপর ভিএক্স গ্রুপ তাদের প্রচার চালায়। বিষয়টি প্রভোস্টকে জানিয়েছি।’

সংঘর্ষের জন্য ছাত্রলীগ নেতা ইলিয়াস বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরকে দায়ী করেছেন। তিনি বলেন, ‘চবিতে প্রক্টরের ইশারা ছাড়া গাছের পাতাও পড়ে না। উনার ইশারা ছাড়া এ এফ রহমান হলে কেন দেয়াল লিখন হবে? আজ এ ইস্যুকে কেন্দ্র করেই তারা (ভিএক্স) অস্ত্র নিয়ে হলে হামলা চালায়। হল দখলসহ সব কিছুর জন্য প্রক্টরই দায়ী। প্রক্টর স্যার চাচ্ছেন ছাত্রলীগের মধ্যে তার গ্রুপ থাকুক। নেতারা ছাত্রলীগ কন্ট্রোল করলে কোনো সমস্যা থাকে না, তবে এখানে প্রক্টরই ছাত্রলীগকে কন্ট্রোল করতে চাইছেন।’

ভিএক্স গ্রুপের নেতা ও শাখা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি প্রদীপ চক্রবর্তী দুর্জয় বলেন, ‘ভিএক্সের কর্মীরা দেয়াল লিখন করেছে, বিজয়ের কর্মীরা সেটা মুছে ফেলে। হলতো কারো একার সম্পত্তি না, যে কারো লেখার ওপর অন্য কেউ লিখবে। এ জন্য ভিক্সের কর্মীরা প্রতিবাদ জানিয়েছে। সংঘর্ষ যেন বড় না হয় সেজন্য দুইপক্ষ কথা বলে ব্যবস্থা নিচ্ছি।’

সহকারী প্রক্টর ড. শহীদুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা ঘটনাস্থলে আছি, পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছে।’

এ বিষয়ে জানতে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. রবিউল হাসান ভুঁইয়াকে একাধিকবার কল দিয়েও কথা বলা সম্ভব হয়নি।

আরও পড়ুন:
ছাত্রলীগের বয়সসীমা ‘উনত্রিশ’ই থাকছে
ঢাকা মহানগর ছাত্রলীগের সম্মেলন আজ
ফের সড়কে চবি চারুকলার শিক্ষার্থীরা
ছাত্রলীগের সম্মেলন ৬ ডিসেম্বর: কাদের
দুধ দিয়ে গোসল করে ভাইরাল ছাত্রলীগ নেতাকে কুপিয়ে জখম

মন্তব্য

শিক্ষা
It will be murder case DC Ramana

এটি হত্যাকাণ্ড, মামলা হবে: ডিসি রমনা

এটি হত্যাকাণ্ড, মামলা হবে: ডিসি রমনা নারীকে রিকশা থেকে ফেলে টিএসসি থেকে নীলক্ষেত থেকে টেনে-হিঁচড়ে নিয়ে যায় প্রাইভেট কারটি। এক পর্যায়ে চালককে আটকে পিটুনি দেয় পথচারীরা। ছবি কোলাজ: নিউজবাংলা
পুলিশের রমনা বিভাগের ডিসি শহীদুল্লাহ বলেন, ‘যেহেতু এটা মর্মান্তিক মৃত্যুর ঘটনা, তাই আমরা একটা মামলা নেব। গাড়িটি জব্দ করা হয়েছে। আমরা আইনগত ব্যবস্থা নিচ্ছি। সড়ক আইন অনুযায়ী রেকলেস ড্রাইভিংয়ে মৃত্যু ঘটনার শাস্তির বিধান আছে। এই আইনে তার যাতে সর্বোচ্চ শাস্তি হয়, সেটি আমরা চেষ্টা করব।’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে নারীকে প্রাইভেট কারের নিচে ফেলে টিএসসি থেকে নীলক্ষেত পর্যন্ত টেনে-হিঁচড়ে নিয়ে যাওয়ার ঘটনাকে হত্যাকাণ্ড বলে উল্লেখ করেছে পুলিশ।

এ ঘটনায় মামলা হবে জানিয়ে রমনা বিভাগের ডিসি শহীদুল্লাহ বলেন, ‘এটি অবশ্যই একটি হত্যাকাণ্ড।’

শুক্রবার রাতে শাহবাগ থানায় সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

ডিসি শহীদুল্লাহ্ বলেন, ‘আমরা জানতে পেরেছি, ওই নারী দেবরের সঙ্গে মোটরসাইকেলে করে শ্বশুরবাড়ি থেকে বাবার বাড়ি হাজারীবাগে যাচ্ছিলেন। তারা যখন শাহবাগ থেকে টিএসসির আগে কাজী নজরুলের মাজারের উল্টো দিকের রাস্তায় পৌঁছান, তখন প্রাইভেট কারটি মোটরসাইকেলে ধাক্কা দেয়। এতে ওই নারী সড়কে পড়ে যান ও প্রাইভেট কারের সঙ্গে আটকে যান।

‘তবে চালক গাড়িটি না থামিয়ে টেনে-হিঁচড়ে তাকে নিয়ে যান। অনেক চেষ্টা করেও তাকে থামানো যায়নি। উনি টিএসসি পৌঁছালে আমাদের মোবাইল টিমও তাকে থামানোর চেষ্টা করে। তারপরও উনি গাড়ি না থামিয়ে নীলক্ষেত মোড়ের দিকে চলে যান। পরে উত্তেজিত জনতা তাকে থামায়।’

তিনি বলেন, ‘গাড়ির চালক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষক। উত্তেজিত জনতার পিটুনিতে তার অবস্থাও সঙ্কটাপন্ন।’

ডিসি আরও বলেন, ‘যেহেতু এটা মর্মান্তিক মৃত্যুর ঘটনা, তাই আমরা একটা মামলা নেব। গাড়িটি জব্দ করা হয়েছে। আমরা আইনগত ব্যবস্থা নিচ্ছি।’

মামলার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘সড়ক আইন অনুযায়ী রেকলেস ড্রাইভিংয়ে মৃত্যু ঘটনার শাস্তির বিধান আছে। এই আইনে তার যাতে সর্বোচ্চ শাস্তি হয়, সেটি আমরা চেষ্টা করব।’

তিনি আরও বলেন, ‘ঘটনার পর আমরা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ওই শিক্ষকের স্বজনদের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেছি। একটা নম্বর পেয়েছি। তবে ঘটনা জানাতে যোগাযোগের পর থেকে মোবাইল ফোন নম্বরটি বন্ধ পাওয়া যাচ্ছে। তাদের কারও সঙ্গে যোগাযোগের সুযোগ পেলে সাবেক ওই শিক্ষক সুস্থ নাকি অসুস্থ ছিলেন সে বিষয়ে জানা যেত।’

নিহতদের পক্ষে এখন পর্যন্ত কেউ মামলা করতে আসেননি জানিয়ে ডিসি শহীদুল্লাহ্ বলেন, ‘উনারা হয়তো ব্যস্ত আছেন। কিছুক্ষণ পর আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করবেন।’

এ বিষয়ে দুর্ঘটনার শিকার নারীর পরিবারকে সর্বোচ্চ আইনগত সহযোগিতা দেয়া হবে বলে জানান তিনি।

দুর্ঘটনায় প্রাণ হারানো নারী রুবিনা আক্তার তিনি গৃহবধূ ছিলেন। থাকতেন তেজগাঁওয়ে। তার ১২ বছরের একটি ছেলে আছে। দুই বছর আগে তার স্বামী মারা গেছেন।

অন্যদিকে গাড়িচালক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের সাবেক সহযোগী অধ্যাপক আজাহার জাফর শাহ।

আরও পড়ুন:
টিএসসিতে চাপা দিয়ে নারীকে নীলক্ষেত পর্যন্ত টেনে নিল গাড়ি
মতিঝিলে ট্রাকচাপায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত
বাবা-ছেলেকে পিষ্ট করে হোটেলে কাভার্ড ভ্যান, নিহত ৫
বাসচাপায় মোটরসাইকেলের দুই আরোহী নিহত
মেয়েকে মাদ্রাসায় দিতে গিয়ে বাসচাপায় মা-বাবাও নিহত

মন্তব্য

শিক্ষা
Zabir Prajapati Mela is vibrant with childrens colors

জাবির প্রজাপতি মেলায় একঝাঁক শিশু

জাবির প্রজাপতি মেলায় একঝাঁক শিশু জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রজাপতির মেলায় প্রজাপতি দেখছে শিশুরা। ছবি: নিউজবাংলা
২০১০ সাল থেকে প্রতিবছর জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রজাপতি মেলা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। প্রজাপতি সংরক্ষণ ও জনসচেতনতা বাড়াতে এই মেলার আয়োজন করা হয়।

কেউ জীবন্ত প্রজাপতি দেখছে, কেউ বা আবার শরীরে আঁকছে প্রজাপতির আল্পনা। কেউ কেউ রং-তুলিতে আঁকছে প্রজাপতির রঙিন ছবি। এভাবেই শিশুদের পদচারণায় প্রাণবন্ত ছিল জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রজাপতি মেলা।

শুক্রবার (২ ডিসেম্বর) সকাল ১০টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের আয়োজনে জহির রায়হান অডিটোরিয়ামের সামনে শুরু হওয়া এ মেলা চলে বিকেল পর্যন্ত।

মেলার উদ্বোধন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য শেখ মনজুরুল হক। তিনি বলেন, ‘প্রজাপতি সংরক্ষণে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগ অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে। বর্তমানে এই ক্যাম্পাসে প্রজাপতির সংখ্যা দিন দিন কমে যাচ্ছে বলেও শোনা যাচ্ছে। আমরা চিন্তা করছি বিশ্ববিদ্যালয়ের একটা নির্দিষ্ট জায়গাকে শুধুমাত্র প্রজাপতির জন্য নির্দিষ্ট করে দেয়া যায় কি-না।’

জাবির প্রজাপতি মেলায় একঝাঁক শিশু

এবারের মেলায় ছিল জীবন্ত প্রজাপতি প্রদর্শনী, প্রজাপতির হাট দর্শন, শিশু-কিশোরদের জন্য প্রজাপতি নিয়ে ছবি আঁকা ও কুইজ প্রতিযোগিতা, প্রজাপতি বিষয়ক আলোকচিত্র প্রতিযোগিতা ও প্রদর্শনী, প্রজাপতি চেনা প্রতিযোগিতা, প্রজাপতির আদলে তৈরি ঘুড়ি ওড়ানোর প্রতিযোগিতা, বারোয়ারি বিতর্ক প্রতিযোগিতা, প্রজাপতি বিষয়ক তথ্যচিত্র প্রদর্শন ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান।

প্রকৃতি সংরক্ষণে সার্বিক অবদানের জন্য এবারের প্রজাপতি মেলায় ‘তরুপল্লব’ সংগঠনকে ‘বাটারফ্লাই অ্যাওয়ার্ড-২০২২’ দেয়া হয়। এ ছাড়া ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের শিক্ষার্থী দীপ্ত বিশ্বাসকে দেয়া হয় ‘বাটারফ্লাই ইয়াং ইনথুজিয়াস্ট’ অ্যাওয়ার্ড।

বাবার সঙ্গে রাজধানীর শ্যামলী থেকে মেলা দেখতে আসা নার্সারিতে পড়া আদিন আহমেদ। সে নিউজবাংলাকে বলে, ‘বাবার সঙ্গে মেলায় ঘুরতে এসেছি। অনেক রঙের প্রজাপতি দেখেছি, চিত্র এঁকেছি। মেলায় এসে আমার ভাল্লাগছে।’

মেলার আহ্বায়ক প্রাণিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক মনোয়ার হোসেন বলেন, ‘একটা সময় জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়েই প্রজাপতি ছিল ১১০ প্রকার। এখন সে সংখ্যা কমে দাঁড়িয়েছে ৫২টিতে। প্রাণ-প্রকৃতির প্রতি গণসচেতনতা বাড়ানো এবারের প্রজাপতি মেলার অন্যতম উদ্দেশ্য। মানুষের প্রকৃতির প্রতি, প্রজাপতির প্রতি সচেতন হওয়া উচিত।’

তিনি আরও বলেন, ‘জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় প্রজাপতি মেলাকে ঘিরে প্রকৃতিপ্রেমীদের তীর্থক্ষেত্র হয়ে উঠেছে, যা বিশ্ববিদ্যালয়ের মর্যাদা উঁচুতে তুলে ধরবে।’

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, ২০১০ সাল থেকে প্রতিবছর জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রজাপতি মেলা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। প্রজাপতি সংরক্ষণ ও জনসচেতনতা বাড়াতে এই মেলার আয়োজন করা হয়।

আরও পড়ুন:
ঢাবিতে ঢুকলে জাবি অধ্যাপককে জীবন বিপন্নের হুমকি
জাবি প্রশাসনের বিরুদ্ধে দুদকে সাবেক অধ্যাপকের অভিযোগ
জাবিতে গাড়িচালকদের প্রাথমিক চিকিৎসাবিষয়ক প্রশিক্ষণ
জাবির সাবেক ভিসির গাড়িচালকের ঘরে মদভর্তি ট্রাংক
জাবি ছাত্র ইউনিয়নের নেতৃত্বে অর্ণব-অমর্ত্য

মন্তব্য

শিক্ষা
A woman riding a rickshaw was killed after being hit by a private car in DU

টিএসসিতে চাপা দিয়ে নারীকে নীলক্ষেত পর্যন্ত টেনে নিল গাড়ি

টিএসসিতে চাপা দিয়ে নারীকে নীলক্ষেত পর্যন্ত টেনে নিল গাড়ি নারীকে রিকশা থেকে ফেলে টিএসসি থেকে নীলক্ষেত থেকে টেনে-হিঁচড়ে নিয়ে যায় প্রাইভেট কারটি। এক পর্যায়ে চালককে আটকে পিটুনি দেয় পথচারীরা। ছবি কোলাজ: নিউজবাংলা
এক নারীকে সড়ক দিয়ে টেনে নেয়ার ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছে ফেসবুকে। এতে দেখা গেছে, গাড়ির বাম পাশে সামনের চাকার পেছনে বাঁধিয়ে ওই নারীকে টেনে নিয়ে যাচ্ছে প্রাইভেট কার। এক পর্যায়ে চালককে আটকায় পথচারীরা।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) ক্যাম্পাসে নারীকে রিকশা থেকে ফেলে টিএসসি থেকে নীলক্ষেত পর্যন্ত টেনে-হিঁচড়ে নিয়ে গেছে একটি প্রাইভেট কার।

শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকের এ ঘটনায় আহত ওই নারীকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে কিছুক্ষণ পর তার মৃত্যু হয়।

নিহত ৪৫ বছর বয়সী নারীর নাম রুবিনা আক্তার। তিনি গৃহবধূ ছিলেন; থাকতেন তেজগাঁওয়ে। তার ১২ বছরের এক ছেলে আছে। দুই বছর আগে তার স্বামী মারা গেছেন।

ঢামেক পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ বাচ্চু মিয়া নিউজবাংলাকে এসব নিশ্চিত করেছেন।

ওই নারীকে সড়ক দিয়ে টেনে নেয়ার ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছে ফেসবুকে। এতে দেখা যায়, গাড়ির বাম পাশে সামনের চাকার পেছনে আটকে পড়া নারীকে টেনে নিয়ে যাচ্ছে প্রাইভেট কারটি। এক পর্যায়ে গাড়িটিকে আটকায় পথচারীরা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরিয়াল টিম জানায়, গাড়িচালক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের সাবেক সহযোগী অধ্যাপক; নাম আজাহার জাফর শাহ।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী টিএসসির একাধিক ভ্রাম্যমাণ দোকানদার নিউজবাংলাকে জানায়, একটি রিকশায় ওই নারী শাহবাগ থেকে টিএসসির দিকে আসছিলেন। এ সময় পেছন থেকে একটি প্রাইভেট কার রিকশাকে ধাক্কা দিলে, তিনি পড়ে যান। নারীকে চাপা দেয়ার পর চালক গাড়ি না থামিয়ে চালিয়ে যেতে থাকেন। আশপাশের লোকজন গাড়িটিকে থামানোর চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন।

চাপা পড়া নারীকে হিঁচড়ে নীলক্ষেত মোড় পর্যন্ত নিয়ে যাওয়া হয়। এক পর্যায়ে আশপাশের লোকজন গাড়িটিকে থামাতে সক্ষম হন।

ঘটনাস্থলে উপস্থিত এক রিকশাচালক নিউজবাংলাকে জানান, নারীকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠিয়ে গাড়ির চালককে ইট দিয়ে আঘাত করে লোকজন। তাকে ৩-৪ মিনিট মারধর করা হয়। পরে পুলিশ চালককে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায়।

ঘটনাস্থলে থাকা শাহবাগ থানা পুলিশের উপপরিদর্শক জাফর বলেন, ‘একজন নারী কার দুর্ঘটনার শিকার হয়েছেন। কারচালককে উত্তেজিত জনতা আটক করে পিটিয়েছে।’

আরও পড়ুন:
ঢাবির হলে শিক্ষার্থীকে রড দিয়ে পিটিয়েছে ছাত্রলীগের কর্মী
ঢাবি প্রক্টরের বিরুদ্ধে ‘গুরুতর’ অভিযোগ

মন্তব্য

শিক্ষা
Butterfly Fair in Jabi is on December 2

জাবিতে ‘প্রজাপতি মেলা’ এবার ২ ডিসেম্বর

জাবিতে ‘প্রজাপতি মেলা’ এবার ২ ডিসেম্বর ২০১০ সাল থেকে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রতিবছর অনুষ্ঠিত হচ্ছে প্রজাপতি মেলা। ছবি: নিউজবাংলা
২০১০ সাল থেকে প্রতিবছর জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘প্রজাপতি মেলা’ অনুষ্ঠিত হচ্ছে। প্রজাপতি সংরক্ষণ ও জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে এ মেলার আয়োজন করা হয়।

‘উড়লে আকাশে প্রজাপতি, প্রকৃতি পায় নতুন গতি’- এই স্লোগানে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে আগামী ২ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হবে প্রজাপতি মেলা-২০২২।

বুধবার মেলার আহ্বায়ক ও প্রাণিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক মনোয়ার হোসেন স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানানো হয়।

প্রতিবছরের মতো এবারও মেলায় থাকবে প্রজাপতি প্রদর্শন, শিশু-কিশোরদের জন্য প্রজাপতি-বিষয়ক ছবি আঁকা ও কুইজ প্রতিযোগিতা, প্রজাপতি-বিষয়ক আলোকচিত্র প্রতিযোগিতা, প্রজাপতি চেনা প্রতিযোগিতা, প্রজাপতি-বিষয়ক তথ্যচিত্র প্রদর্শনী, বারোয়ারি বিতর্ক প্রতিযোগিতা, ঘুড়ি ওড়ানোসহ নানা আয়োজন।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয় প্রকৃতি সংরক্ষণে সার্বিক অবদানের জন্য ‘তরুপল্লব’ সংগঠনকে এবার ‘বাটারফ্লাই অ্যাওয়ার্ড-২০২২’ দেয়া হবে। আর ‘বাটারফ্লাই ইয়াং ইনথুজিয়াস্ট অ্যাওয়ার্ড’ দেয়া হবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের শিক্ষার্থী দীপ্ত বিশ্বাসকে।

২০১০ সাল থেকে প্রতিবছর জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রজাপতি মেলা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। প্রজাপতি সংরক্ষণ ও জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে এই মেলার আয়োজন করা হয়।

আরও পড়ুন:
জাবিতে গাড়িচালকদের প্রাথমিক চিকিৎসাবিষয়ক প্রশিক্ষণ
জাবির সাবেক ভিসির গাড়িচালকের ঘরে মদভর্তি ট্রাংক
জাবি ছাত্র ইউনিয়নের নেতৃত্বে অর্ণব-অমর্ত্য
জাবির ভিসি হতে এগিয়ে আমির
জাবি ছাত্রীকে কারণ দর্শানোর নোটিশ 

মন্তব্য

শিক্ষা
Radical changes are being brought in the countrys education system Education Minister

দেশের শিক্ষা ব্যবস্থায় আমূল পরিবর্তন আনা হচ্ছে: শিক্ষামন্ত্রী

দেশের শিক্ষা ব্যবস্থায় আমূল পরিবর্তন আনা হচ্ছে: শিক্ষামন্ত্রী স্টেট ইউনিভার্সিটির ষষ্ঠ সমাবর্তনে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি। ছবি: নিউজবাংলা
শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘রূপকল্প ২০৪১ বাস্তবায়নে শিক্ষা ব্যবস্থায় আমূল পরিবর্তন আনা হচ্ছে। উচ্চ শিক্ষার জন্য কৌশলগত পরিকল্পনা হাতে নেয়া হয়েছে। এজন্য বাংলাদেশ অ্যাক্রেডিটেশন কাউন্সিল গঠন করা হয়েছে। ন্যাশনাল ব্লেন্ডেড এডুকেশন মাস্টার প্লান চূড়ান্তকরণের পর্যায়ে রয়েছে। অবকাঠামোর পাশাপাশি শিক্ষায় প্রযুক্তির মেলবন্ধন করা হচ্ছে।’

দেশের শিক্ষা ব্যবস্থায় আমূল পরিবর্তন আনা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি।

বুধবার দুপুরে বেসরকারি স্টেট ইউনিভার্সিটির (এসইউবি) ষষ্ঠ সমাবর্তনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা জানান।

মন্ত্রী বলেন, ‘রূপকল্প ২০৪১ বাস্তবায়নে শিক্ষা ব্যবস্থায় আমূল পরিবর্তন আনা হচ্ছে। উচ্চ শিক্ষার জন্য কৌশলগত পরিকল্পনা হাতে নেয়া হয়েছে। এজন্য বাংলাদেশ অ্যাক্রেডিটেশন কাউন্সিল গঠন করা হয়েছে। ন্যাশনাল ব্লেন্ডেড এডুকেশন মাস্টার প্লান চূড়ান্তকরণের পর্যায়ে রয়েছে। অবকাঠামোর পাশাপাশি শিক্ষায় প্রযুক্তির মেলবন্ধন করা হচ্ছে।’

দেশের শিক্ষা ব্যবস্থায় আমূল পরিবর্তন আনা হচ্ছে: শিক্ষামন্ত্রী
এক শিক্ষার্থীর হাতে পদক তুলে দিচ্ছেন শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি। ছবি: নিউজবাংলা

তিনি বলেন, ‘ভবিষ্যতের রূপকল্পের বাংলাদেশ গড়তে হলে ঔপনিবেশিক আমল থেকে চলা মুখস্থ নির্ভর আর পরীক্ষায় উগড়ে দেয়া শিক্ষা ব্যবস্থা দিয়ে চলবে না। বরং শিক্ষাকে আনন্দময় করতে হবে। সমস্যা সমাধানে দক্ষতা বাড়াতে হবে। আত্মশক্তিতে বলীয়ান হতে হবে।’

রূপগঞ্জের কাঞ্চনে অবস্থিত বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থায়ী ক্যাম্পাসে এই সমাবর্তন অনুষ্ঠিত হয়। রাষ্ট্রপতি ও এসইউবির চ্যান্সেলর মো. আবদুল হামিদের সম্মতিতে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি সমাবর্তন অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন এবং গ্র্যাজুয়েটদের মধ্যে সনদ বিতরণ করেন।

দীপু মনি বলেন, ‘আমরা আমাদের অবকাঠামোর উন্নয়ন করেছি তার সঙ্গে প্রযুক্তির যে মেলবন্ধন ঘটাতে হবে সেই লক্ষে আমরা কাজ করছি। আমাদের সামনে অনেক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হবে। চতুর্থ সম্ভবনার দার আমাদের উন্মুক্ত। সেটাকে কাজে লাগাতে হবে। আমাদের প্রযুক্তি ব্যবহারে দক্ষ না প্রযুক্তি তৈরিতে দক্ষ হতে হবে।

‘সেই হিসেবে আমাদের শিক্ষার্থীদের গড়ে তুলতে হবে। প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিশুরা খেলতে খেলতে কোডিং শিখতে পারে সে ব্যবস্থা করছি। যাতে আমাদের শিক্ষার্থীরা প্রযুক্তি উদ্ভাবনে সফল হয়। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের যখন গড়ে উঠে তখন অনিশ্চয়তা ছিল এর উদ্দেশ্য নিয়ে, লক্ষ্য নিয়ে। সময়ের ব্যবধানে অনেক বিশ্ববিদ্যালয় তা প্রমাণ করতে পেরেছে।’

নতুন গ্র্যাজুয়েটদের অভিনন্দন জানিয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘এই ধরনের সমাবর্তনে আসলে আমার ভালো লাগে। কারণ তারুণ্যের উচ্ছ্বাসটা টের পাই। তরুণরাই ভবিষ্যৎ। তারাই নেতৃত্ব দিয়ে দেশকে সঠিক গন্তব্যে পৌঁছে দেবে।’

দেশের শিক্ষা ব্যবস্থায় আমূল পরিবর্তন আনা হচ্ছে: শিক্ষামন্ত্রী
উচ্ছ্বাসে মেতেছেন শিক্ষার্থীরা। ছবি: নিউজবাংলা

তিনি বলেন, ‘স্বপ্ন দেখতে হবে। আমাদের হাজার বছরের ঐতিহ্য রয়েছে। বঙ্গবন্ধুর কথায় বলতে হয় আমাদের কেউ দাবায়ে রাখতে পারবে না।’

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. মো. আনোয়ারুল কবির। সমাবর্তনে বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শিক্ষাবিদ, সাহিত্যিক ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের সাবেক অধ্যাপক ড. সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম, বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টি বোর্ডের সভাপতি ডাক্তার এ এম শামীমসহ প্রমুখ।

আরও পড়ুন:
উপযুক্ত শিক্ষকের অভাব আছে: শিক্ষামন্ত্রী
বন্দুকের নল ঠেকিয়ে ক্ষমতা দখলের সুযোগ নেই: দীপু মনি
মানসম্মত শিক্ষা অনেক বড় চ্যালেঞ্জ: দীপু মনি

মন্তব্য

p
উপরে