চবিতে টিকা: নাম দিয়েছেন আরও সাড়ে ১৩ হাজার শিক্ষার্থী

চবিতে টিকা: নাম দিয়েছেন আরও সাড়ে ১৩ হাজার শিক্ষার্থী

আইসিটি সেলের তথ্য অনুযায়ী, টিকা পাওয়ার জন্য নতুন করে ১৩ হাজার ৬৫০ জন শিক্ষার্থী তাদের নাম ও যাবতীয় তথ্য তালিকাভুক্ত করেছেন। এর মধ্যে আবাসিক ২ হাজার ৩৫৮ জন শিক্ষার্থী এবং অনাবাসিক ১১ হাজার ২৯২ জন শিক্ষার্থী রয়েছেন। 

করোনাভাইরাস প্রতিরোধী টিকা পাওয়ার জন্য গুগল ফরমে নামসহ বিস্তারিত তথ্য জমা দিয়েছেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) আরও ১৩ হাজার ৬৫০ শিক্ষার্থী।

শনিবার নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের আইসিটি সেলের সহকারী পরিচালক ড. কাজী তানভীর আহমেদ।

এর আগে জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) না থাকায় করোনা প্রতিরোধক টিকার জন্য নিবন্ধন করতে পারছিলেন না বিশ্ববিদ্যালয়টির অনেক শিক্ষার্থী। এছাড়া প্রায় অর্ধেকের বেশি শিক্ষার্থী ৪মার্চ টিকা প্রাপ্তির জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের দেয়া ফরমে নাম ও তথ্য তালিকাভুক্ত করেননি।

১০ জুলাই বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বাদ যাওয়া ও এনআইডি না থাকা শিক্ষার্থীদের পুনরায় নাম ও তথ্য জমা দেয়ার নির্দেশ দেন। এক্ষেত্রে যাদের এনআইডি নেই তাদের জন্মনিবনন্ধনের নম্বর দিতে বলা হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের আইসিটি সেলের দেয়া তথ্য অনুযায়ী, টিকা পাওয়ার জন্য নতুন করে ১৩ হাজার ৬৫০ জন শিক্ষার্থী তাদের নাম ও যাবতীয় তথ্য তালিকাভুক্ত করেছেন। এর মধ্যে আবাসিক ২ হাজার ৩৫৮ জন শিক্ষার্থী এবং অনাবাসিক ১১ হাজার ২৯২ জন শিক্ষার্থী রয়েছেন।

তালিকাভুক্ত শিক্ষার্থীদের মধ্যে যাদের জাতীয় পরিচয় পত্র (এনআইডি) আছে এমন শিক্ষার্থীর সংখ্যা ১০ হাজার ৮০৫ জন এবং এনআইডি না থাকায় জন্মনিবনন্ধনের নম্বর দিয়ে তথ্য জমা দিয়েছেন ২ হাজার ৮৪৫ জন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) অধ্যাপক এস এম মনিরুল হাসান বলেন, ‘ইউজিসি আমাদের কাছে চাহিদা দিয়েছে। আমরা ইউজিসিতে তথ্যগুলো পাঠাব।’

তিনি আরও বলেন, ‘জন্মসনদের নম্বর যারা দিয়েছেন, তাদের জন্য আমরা চেষ্টা করব নির্বাচন কমিশনে যোগাযোগ করার। তাদের যেন দ্রুত এনআইডি সরবরাহ করে। আমাদের ধারণা নির্বাচন কমিশন আমাদের এ ব্যাপারে সহযোগিতা করবে।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের আইসিটি সেলের তথ্য অনুযায়ী ৪ মার্চের দেয়া ফরমে আবাসিক আড়াই হাজার এবং অনাবাসিক প্রায় ১০ হাজার শিক্ষার্থী তদের নাম ও তথ্য তালিকাভুক্ত করেন। বিশ্ববিদ্যালয় সেগুলো ইউজিসিতে পাঠায়। ইউজিসি থেকে চবির ১০ হাজার ১ জনের একটি তালিকা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে পাঠানোর কথা বলে জানা গেছে।

শেয়ার করুন

মন্তব্য