জগন্নাথের খেলার মাঠে পশুর হাট, অনুমতি নেই

জগন্নাথের খেলার মাঠে পশুর হাট, অনুমতি নেই

জগন্নাথের খেলার মাঠে হাট বসেছে। ছবি: সংগৃহীত

এর মধ্যে দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে বিক্রেতারা হাটে কোরবানির পশুও আনা শুরু করেছেন। হাটে আসা একাধিক বিক্রেতার সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, প্রতি বছর এখানে হাট বসে বলেই তারা এবারও এসেছেন গরু নিয়ে।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) একমাত্র খেলার মাঠে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের অনুমতি না নিয়েই কোরবানির পশুর হাট বসিয়েছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ইজারাদাররা।

সরেজমিনে দেখা যায়, পুরান ঢাকার গেন্ডারিয়ায় অবস্থিত জবির কেন্দ্রীয় ও একমাত্র খেলার মাঠটিতে বাঁশের খুঁটি ও প্যান্ডেল দিয়ে কোরবানির পশুর হাট বসানো হয়েছে।

এর মধ্যে দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে বিক্রেতারা হাটে কোরবানির পশুও আনা শুরু করেছেন। হাটে আসা একাধিক বিক্রেতার সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, প্রতিবছর এখানে হাট বসে বলেই তারা এবারও এসেছেন গরু নিয়ে।

তবে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের অভিযোগ, কোরবানির পশুর হাট বসালেও নেয়া হয়নি তাদের অনুমতি। অনেকটা অগোচরেই কর্তৃপক্ষকে না জানিয়ে হাট বসিয়েছেন ইজারাদাররা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. মোস্তফা কামাল নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমাদের অনুমতি না নিয়েই খেলার মাঠে পশুর হাট বসানো হয়েছে। আমি গতকাল পরিদর্শন করে গেন্ডারিয়া থানাকে অবহিত করেছি। তারা হাট বন্ধ করে দেবে বলে আমাকে জানিয়েছে।’

এর আগেও প্রায় প্রতি ঈদেই বিশ্ববিদ্যালয়ের খেলার মাঠে কোরবানির পশুর হাট বসানো হয়ে আসছে।

এই খেলার মাঠেই গত ১০ জুন দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৪৫ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর শামসুজ্জোহা ও সিটি করপোরেশনের সাব অ্যাসিস্ট্যান্ট ইঞ্জিনিয়ার হরিদাস মল্লিক মাঠের ভেতর ম্যাপ অনুযায়ী চার কোনায় খুঁটি বসান। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে না জানিয়ে মাঠের মধ্যে মার্কেট নির্মাণের পরিকল্পনায় বিষয়টি নজরে আসার পর ক্ষোভ প্রকাশ করেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন ও শিক্ষার্থীরা। এর পরিপ্রেক্ষিতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপসের সঙ্গে বৈঠকে বসেন। বৈঠক শেষে খেলার মাঠের সংস্কার হলেও শিক্ষার্থীরা খেলতে পারবেন বলে আশ্বস্ত করেছেন তিনি।

শেয়ার করুন

মন্তব্য