সংকটে থাকা নন-এমপিও শিক্ষকরা পাচ্ছেন অনুদান

সংকটে থাকা নন-এমপিও শিক্ষকরা পাচ্ছেন অনুদান

মহামারিতে আর্থিকভাবে সংকটে থাকা নন-এমপিও শিক্ষক, কর্মচারীদের জন্যে অনুদানের ব্যবস্থা করেছে সরকার। নন-এমপিওভুক্ত বিজয় ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের শিক্ষকরা। ছবি: সংগৃহীত

কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আমিনুল ইসলাম খান জানান, এই অনুদানের অংশ হিসেবে একজন শিক্ষক পাচ্ছেন ৫ হাজার এবং কর্মচারী আড়াই হাজার টাকা। প্রধানমন্ত্রীর দেয়া অনুদানের অর্থ ইতোমধ্যে চেক ও ‘নগদ’ হিসাবের মাধ্যমে বিতরণ শুরু হয়েছে।

করোনা মহামারিতে আর্থিকভাবে সংকটে থাকা নন-এমপিও শিক্ষক, কর্মচারীদের জন্য অনুদানের ব্যবস্থা করেছে সরকার। এই অনুদানের অংশ হিসেবে একজন শিক্ষক এককালীন পাচ্ছেন ৫ হাজার। প্রতি কর্মচারীকে দেয়া হচ্ছে আড়াই হাজার টাকা করে। ইতোমধ্যে দেশের বিভিন্ন স্থানে অনুদানের এ অর্থ বিতরণ শুরু হয়েছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আমিনুল ইসলাম খান।

তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেয়া অনুদানের অর্থ ইতোমধ্যে চেক ও ‘নগদ’ হিসাবের মাধ্যমে বিতরণ শুরু হয়েছে।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে নন-এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, শিক্ষক-কর্মচারী ফেডারেশনের সভাপতি অধ্যক্ষ গোলাম মাহমুদুন্নবী ডলার নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ইতোমধ্যে শিক্ষক এবং কর্মচারীরা অনুদানের অর্থ পেতে শুরু করেছেন। এ জন্য প্রধানমন্ত্রীকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই। পাশাপাশি নন-এমপিভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোকে এমপিওভুক্তির মাধ্যমে এ সমস্যার স্থায়ী সমাধান করার জন্য বিনীত অনুরোধ জানাই।’

অনুদানের অর্থ পাওয়া তেমনই একজন খুলনা আইডিয়াল কলেজের হিসাববিজ্ঞানের প্রভাষক মো. রেজাউল কবির। তিনি বলেন, ‘এই দুঃসময়ে অর্থসহায়তা দেয়ায় প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমি চিরকৃতজ্ঞ।’

উল্লেখ্য, গত ১২ মে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নন-এমপিওভুক্ত শিক্ষক ও কর্মচারীদের জন্য প্রায় ৭৫ কোটি টাকা অনুদান দিয়েছেন। কোভিড-১৯ মহামারির মধ্যে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ হয়ে যাওয়ায় সৃষ্ট পরিস্থিতিতে শিক্ষক-কর্মচারীদের আর্থিক সহায়তা দিতে প্রধানমন্ত্রী এ উদ্যোগ নিয়েছেন।

এ অনুদানের মধ্যে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগকে দেয়া হয়েছে ৪৬ কোটি ৬৩ লাখ টাকা এবং কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগকে ২৮ কোটি ১৮ লাখ টাকা।

এ অনুদান পাবেন মোট ১ লাখ ৬৭ হাজার শিক্ষক-কর্মচারী। এর মধ্যে সাধারণ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ১ লাখ ৫ হাজার ৭৮৫ জন শিক্ষক-কর্মচারী এবং কারিগরি শিক্ষা, মাদ্রাসা শিক্ষা ও স্বতন্ত্র এবতেদায়ি মাদ্রাসা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ৬১ হাজার ৪৪০ জন শিক্ষক-কর্মচারী।

করোনায় সংকটে ননএমপিও শিক্ষকরা

করোনায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় সবচেয়ে বেশি সংকটে পড়েছেন ননএমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীরা। বেঁচে থাকার জন্য অনেক শিক্ষক-কর্মচারীই পেশা পরিবর্তন করছেন। কেউ কৃষিকাজ করছেন, কেউবা ভ্যান-ইজিবাইক চালাচ্ছেন, আবার কেউবা দোকানদারী করছেন। অনেক শিক্ষক-কর্মচারীই শহর ছেড়ে চলে গেছেন গ্রামে।

তেমনই একজন ফেনীর একটি বেসরকারী কলেজের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক শিক্ষক নিউজবাংলাকে বলেন, করোনা শুরু হওয়ার পর কলেজ থেকে আর কোন টাকা দেয়া হয়নি। আমার পরিবারে সদস্য সংখ্যা ৫জন। আগে কলেজ থেকে বেতন না দিলেও টিউশনি করে চলতাম। কিন্তু করোনা শুরু হওয়ার পর টিউশনিও বন্ধ। চলবো কি করে বলেন?

তিনি আরও বলেন, জীবন বাঁচাতে বাধ্য হয়ে মুদির দোকান দিয়েছি। এ ছাড়া আর কোন উপায় ছিল না।

এমপিও হলো মান্থলি পেমেন্ট অর্ডার বা মাসিক বেতন আদেশ, যার মাধ্যমে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক ও কর্মচারীদের বেতন পরিশোধ করে সরকার। বেশির ভাগ বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের আয়ে ঘাটতি থাকার কারণে শিক্ষকদের কাছে এমপিওভুক্তি একটি কাঙ্ক্ষিত বিষয়।

সর্বশেষ সরকার বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করে ২০১৯ সালে। ওই বছরের ২৩ অক্টোবর ২ হাজার ৭৩০ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির ঘোষণা দেন প্রধানমন্ত্রী। পরে চূড়ান্ত বাছাইয়ে ২ হাজার ৬১৫টি প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির ছাড়পত্র পায়। এরপর আবার ২০১৯ সালের ১২ নভেম্বর ছয়টি এবং ১৪ নভেম্বর একটি প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করা হয়।

দেশে এ পর্যন্ত এমপিওভুক্ত হয়েছে এমন বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা প্রায় ৩৩ হাজার। আর এমপিওভুক্ত হয়নি এখনও প্রায় ৭ হাজার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান।

দেশে করোনা শনাক্ত হয় গত বছরের ৮ মার্চ। ভাইরাসের বিস্তার রোধে গত বছরের ১৭ মার্চ থেকে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করে সরকার। দফায় দফায় তা বাড়িয়ে ৩০ জুন পর্যন্ত করা হয়।

আরও পড়ুন:
প্রধানমন্ত্রীর অনুদান পেল মারুফের পরিবার
প্রধানমন্ত্রীর অনুদান নিয়ে কী পরিকল্পনা বাহফের

শেয়ার করুন

মন্তব্য

ইউজিসি স্বর্ণপদকের আবেদন আহ্বান

ইউজিসি স্বর্ণপদকের আবেদন আহ্বান

ইউজিসির রিসার্চ সাপোর্ট অ্যান্ড পাবলিক রিলেশনস বিভাগের অফিস আদেশে জানানো হয়েছে, দেশের পাবলিক ও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের পূর্ণকালীন শিক্ষকরা ইউজিসি স্বর্ণপদকের জন্য আবেদন করতে পারবেন।

‘ইউজিসি স্বর্ণপদক ২০২০’ এর জন্য আবেদন আহ্বান করেছে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন (ইউজিসি)। আবেদনপত্র পাঠাতে হবে আগামী ৫ ডিসেম্বরের মধ্যে।

বৃহস্পতিবার ইউজিসির রিসার্চ সাপোর্ট অ্যান্ড পাবলিক রিলেশনস বিভাগের পরিচালক মো. কামাল হোসেনের সই করা অফিস আদেশে থেকে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এতে আবেদনের শর্ত হিসেবে বলা হয়েছে-

১. দেশের পাবলিক ও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের পূর্ণকালীন শিক্ষকরা ইউজিসি স্বর্ণপদকের জন্য আবেদন করতে পারবেন।

২. আবেদনকারীকে অবশ্যই বাংলাদেশি নাগরিক হতে হবে।

৩. প্রকাশিত প্রবন্ধ বা বই অবশ্যই ২০২০ সালে প্রকাশিত হতে হবে। কোনো পুনর্মুদ্রিত প্রবন্ধ বাঁ পুস্তক গ্রহণযোগ্য হবে না।

৪. বর্ণনা ও জরিপমূলক, অনুবাদ বা সম্পাদনা কর্ম এবং রিভিউ আর্টিকেল এই স্বর্ণপদকের জন্য বিবেচিত হবে না।

৫. প্রবন্ধ যদি যৌথ প্রকাশনা হয় সেক্ষেত্রে কেবল প্রধান লেখক বা সর্বশেষ লেখক অন্যান্য সহলেখকের সম্মতিপত্রসহ আবেদন করতে পারবেন।

৬. বইয়ের ক্ষেত্রে একাধিক লেখক হলে যৌথভাবে আবেদন করতে হবে।

৭. বাংলা ও ইংরেজিতে সর্বোচ্চ ২০০ শব্দের মধ্যে জীবনবৃত্তান্ত জমা দিতে হবে।

৮. প্রকাশিত প্রবন্ধের ক্ষেত্রে ছয় কপি এবং বইয়ের ক্ষেত্রে চার কপি জমা দিতে হবে।

৯. বাংলা ও ইংরেজিতে সর্বোচ্চ ২০০ শব্দের মধ্যে সারাংশ জমা দিতে হবে।

১০. প্রবন্ধের সফট কপি [email protected] ঠিকানায় অবশ্যই জমা দিতে হবে।

১৯৮০ সালে প্রবর্তিত হয় ‘ইউজিসি অ্যাওয়ার্ড’। বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের উচ্চশিক্ষায় মৌলিক গবেষণা ও প্রকাশনায় উৎসাহ দিতে এই সম্মাননার নাম পরবর্তীতে ‘ইউজিসি স্বর্ণপদক’ করা হয়।

আরও পড়ুন:
প্রধানমন্ত্রীর অনুদান পেল মারুফের পরিবার
প্রধানমন্ত্রীর অনুদান নিয়ে কী পরিকল্পনা বাহফের

শেয়ার করুন

শিক্ষক সমিতির পদত্যাগ চায় জবি নীলদল

শিক্ষক সমিতির পদত্যাগ চায় জবি নীলদল

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, বর্তমানে এই কমিটির জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতি হিসেবে দায়িত্ব পালনের আইনি এবং নৈতিক কোনো অধিকার নেই। মেয়াদোত্তীর্ণ শিক্ষক সমিতিকে কোনো ধরনের স্বীকৃতি না দিতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) শিক্ষক সমিতির মেয়াদ উত্তীর্ণ কমিটির পদত্যাগ দাবি করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের নীলদলের একাংশ। একই সঙ্গে মেয়াদোত্তীর্ণ শিক্ষক সমিতিকে কোনো ধরনের স্বীকৃতি না দিতেও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানানো হয়েছে।

বুধবার রাতে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় নীলদলের সভাপতি ড. মো. আবুল হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক মো. কামাল হোসেন স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ দাবি জানানো হয়।

এতে বলা হয়েছে, শিক্ষক সমিতির ২০২০ সালের কমিটির নেতারা শিক্ষকদের ন্যায্য অধিকার প্রতিষ্ঠার বদলে নিজেদের স্বার্থসিদ্ধিতে তৎপর। শিক্ষক সমিতির গঠনতন্ত্র অনুযায়ী ২০২০ সালের নভেম্বর মাসে তাদের দায়িত্ব ছিল নির্বাচন কমিশন গঠন করা। কিন্তু এই সমিতি শিক্ষকদের প্রতি দায়বদ্ধতাকে পাশ কাটিয়ে এবং সমিতির গঠনতন্ত্রকে অবমাননা করে অবৈধভাবে দুই বছর পদ আঁকড়ে ধরে নিজেদের স্বার্থসিদ্ধিতে ব্যস্ত। যথাসময়ে নির্বাচন কমিশন গঠন না করে তারা শিক্ষক সমিতির গঠনতন্ত্র লঙ্ঘন করেছেন।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, বর্তমানে এই কমিটির জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতি হিসেবে দায়িত্ব পালনের আইনি এবং নৈতিক কোনো অধিকার নেই। মেয়াদোত্তীর্ণ শিক্ষক সমিতিকে কোনো ধরনের স্বীকৃতি না দিতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।

এ বিষয়ে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় নীল দলের সভাপতি ড. মো. আবুল হোসেন বলেন, ‘মেয়াদ শেষ হলেও সাধারণ শিক্ষকদের মতামত উপেক্ষা করে এ সমিতি প্রায় দুই বছর ধরে দায়িত্ব পালন করে আসছে। এটি সমিতির গঠনতন্ত্রবিরোধী। সমিতির গঠনতন্ত্রকে ঠিক রেখে সাধারণ শিক্ষকদের মতামতের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে এবং গণতান্ত্রিক ধারাবাহিকতা অক্ষুন্ন রাখতে আমি পদত্যাগ করেছি।’

ড. মো. আবুল হোসেন জবি শিক্ষক সমিতির ২০২০ সালের কমিটির কার্যনির্বাহী সদস্য ছিলেন। একই সঙ্গে তিনি জবি নীলদলের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন।

শিক্ষক সমিতির পদত্যাগ চায় জবি নীলদল
মেয়াদ উত্তীর্ণ শিক্ষক সমিতির পদত্যাগ চেয়ে জবি নীলদলের বিজ্ঞপ্তি

বুধবার রাতে তিনি শিক্ষক সমিতি থেকে পদত্যাগের পরই নীলদলের পক্ষ থেকে এ দাবি জানানো হয়।

ড. মো. আবুল হোসেনের পদত্যাগ ও জবি নীলদলের পক্ষ থেকে শিক্ষক সমিতির পদত্যাগের দাবি জানানোর পরপরই শিক্ষক সমিতির নির্বাচন কমিশন গঠনের খবর আসে।

৫ অক্টোবর অনুষ্ঠিত কার্যনির্বাহী পরিষদের ২৩তম সভার সিদ্ধান্ত ও গঠনতন্ত্র অনুযায়ী শিক্ষক সমিতির কার্যনির্বাহী পরিষদ নির্বাচন-২০২২ আয়োজনের লক্ষ্যে প্রধান নির্বাচন কমিশনার মনোনীত করে নির্বাচন কমিশন গঠন করা হয়েছে।

৮ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত সাধারণ সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি কার্যনির্বাহী পরিষদের নির্বাচন ২৫ অক্টোবর থেকে ১০ নভেম্বরের মধ্যে শেষ করার বিষয়ে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এটি ১০ অক্টোবর শিক্ষক সমিতির প্যাডে প্রকাশ করা হয়।

ক্যাম্পাস খোলার পরই বর্তমান নেতারা শিক্ষক সমিতির ব্যানার ও পদ পরিচয়ে নিজেরা প্রোগ্রাম করেন ও অন্য প্রোগ্রামেও অংশ নেন। এ নিয়েও প্রশ্ন তুলেছে জবি নীল দল।

শিক্ষক সমিতির বর্তমান কমিটির সভাপতি নূ‌রে আলম আব্দুল্লাহ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সাধারণ সভার মাধ্যমে দায়িত্ব হস্তান্তর না করা পর্যন্ত শিক্ষক সমিতি বহাল থাকবে। তবে এসময় সমিতি সীমিত আকারে তাদের কার্যাবলি পরিচালনা করবে।

‘দায়িত্ব হস্তান্তর ছাড়া কোনো সাধারণ সভা করা যাবে না। ড. আবুল হোসেন যখন সাধারণ সম্পাদক ছিলেন, তখন শিক্ষক সমিতির কার্যনির্বাহী পরিষদ নির্বাচিত হওয়ার পরেও পিকনিকের আয়োজন করেছিলেন। গত শিক্ষক সমিতিও ইলেকশন কমিশন গঠনের পরে পিকনিকের আয়োজন করেছিল।’

এ বিষয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার অধ্যাপক ড. সুরঞ্জন কুমার দাস বলেন, ‘গঠনতন্ত্র অনুযায়ী নির্বাচন পরিচালিত হবে। তফসিল ঘোষণার কাজ বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হবে।’

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির গঠনতন্ত্রের ধারা ৫ এর ৩ উপধারায় কার্যনির্বাহী পরিষদের মেয়াদের বিষয়ে লেখা রয়েছে, ‘কার্যনির্বাহী পরিষদের মেয়াদ হবে বছরের ১ জানুয়ারী থেকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত। তবে নতুন কার্যনির্বাহী পরিষদ দায়িত্ব নেয়ার আগে পর্যন্ত বর্তমান পরিষদ দায়িত্ব পালন করবে।’

এর আগে ২০২০ সালের ২৫ নভেম্বর শিক্ষক সমিতির বর্তমান কমিটির দ্বিতীয় সাধারণ সভার ৫ নম্বর সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাভাবিক কার্যক্রম শুরুর ঘোষণা দেয়ার এক মাসের মধ্যে নির্বাচন কমিশন গঠনের মাধ্যমে নির্বাচনের ব্যবস্থা করতে হবে। এ সময় পর্যন্ত বর্তমান শিক্ষক সমিতি দায়িত্ব পালন করবে।

করোনা পরিস্থিতির উন্নতি হওয়ার পর একটি সাধারণ সভা আয়োজন করে সভার মতামতের পরিপ্রেক্ষিতে কার্যনির্বাহী পরিষদ দ্বারা নির্বাচন কমিশন গঠনের মাধ্যমে নির্বাচন আয়োজনের ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে সিদ্ধান্ত নেয় জবিশিস।

আরও পড়ুন:
প্রধানমন্ত্রীর অনুদান পেল মারুফের পরিবার
প্রধানমন্ত্রীর অনুদান নিয়ে কী পরিকল্পনা বাহফের

শেয়ার করুন

শিক্ষার্থীদের চুল কর্তন: ফারহানার বক্তব্য ছাড়াই তদন্ত প্রতিবেদন

শিক্ষার্থীদের চুল কর্তন: ফারহানার বক্তব্য ছাড়াই তদন্ত প্রতিবেদন

রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ও বাংলাদেশ অধ্যয়ন বিভাগের শিক্ষক ফারহানা ইয়াসমিন বাতেন। ছবি: সংগৃহীত

রবীন্দ্র অধ্যয়ন বিভাগের চেয়ারম্যান ও তদন্ত কমিটির প্রধান লায়লা ফেরদৌস হিমেল বলেন, ‘আমরা শিক্ষিকা ফারহানা ইয়াসমিন বাতেনের জন্য বিকেল ৪টা পর্যন্ত অপেক্ষা করলেও তিনি আসেননি এবং কোনো যোগাযোগ করেননি। ইতোপূর্বে ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী ও অন্যদের সঙ্গে কথা বলে এবং সিসিটিভি ফুটেজ দেখে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে তৈরি করা প্রতিবেদন বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রারের কাছে জমা দিয়েছি।’

সিরাজগঞ্জের রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৪ শিক্ষার্থীর মাথার চুল কেটে দেয়ার ঘটনায় সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ও বাংলাদেশ অধ্যয়ন বিভাগের শিক্ষক ফারহানা ইয়াসমিন বাতেনের বক্তব্য ছাড়াই তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দুপুর ১টার দিকে তদন্ত কমিটির কাছে নিজের বক্তব্য জানানোর কথা থাকলেও আসেননি শিক্ষক ফারহানা। বিকেল ৪টা পর্যন্ত অপেক্ষা করেও তিনি না আসায় বিকেল ৫টার দিকে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার মো. সোহরাব আলীর কাছে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয় তদন্ত কমিটি।

বিষয়টি নিউজবাংলাকে নিশ্চিত করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের রবীন্দ্র অধ্যয়ন বিভাগের চেয়ারম্যান ও তদন্ত কমিটির প্রধান লায়লা ফেরদৌস হিমেল।

তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমরা শিক্ষিকা ফারহানা ইয়াসমিন বাতেনের জন্য বিকেল ৪টা পর্যন্ত অপেক্ষা করলেও তিনি আসেননি এবং কোনো যোগাযোগ করেননি। ইতোপূর্বে ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী ও অন্যদের সঙ্গে কথা বলে এবং সিসিটিভি ফুটেজ দেখে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে তৈরি করা প্রতিবেদন বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রারের কাছে জমা দিয়েছি।’

এই শিক্ষক আরও বলেন, ‘আমরা তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিলেও সেটি এখনও খোলা হয়নি। আগামীকাল (শুক্রবার) অনুষ্ঠিত সিন্ডিকেট সভায় সবার সামনে এটা খোলা হবে এবং উপস্থিত সিন্ডিকেট সদস্যদের আলোচনা ও মতামতের ভিত্তিতে তার (ফারহানা) বিরুদ্ধে পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘ফারহানা ইয়াসমিন বাতেনকে তিন দফায় তদন্ত কমিটি ডাকার পরও না এসে তিনি সময় চেয়ে বসেন। প্রথমে তাকে আর সময় দেয়ার সিদ্ধান্ত না থাকলেও তিনি বার বার ইমেইলে সময়ের আবেদন করেন। তার আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে তদন্ত কমিটি তাকে দুই সপ্তাহ সময় দিয়ে আজ (বৃহিস্পতিবার) দুপুর ১টায় উপস্থিত হয়ে বক্তব্য উপস্থাপনের জন্য নতুন সময় বেঁধে দিয়েছিল। তবুও তিনি আসেননি।

‘প্রতিবেদন জমা দেয়ার সময়ের বাধ্যবাধকতা থাকায় আমরা আজ তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিয়েছি।’

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের অতিরিক্ত দায়িত্বপ্রাপ্ত ভিসি ও ট্রেজারার আব্দুল লতিফ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আজ তদন্ত কমিটি প্রতিবেদন জমা দিয়েছে। আগামীকাল (শুক্রবার) সিন্ডিকেট সভায় সবার সামনে সেটি উন্মোচন করা হবে। প্রতিবেদনের উপর ভিত্তি করে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। ওই শিক্ষিকার বিরুদ্ধে অপরাধ প্রমাণ হলে ওই সভাতেই তার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।’

রাজধানীর ধানমন্ডিতে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসন ভবনে শুক্রবার বিকেলে সিন্ডিকেট সভা অনুষ্ঠিত হবে বলেও জানান আব্দুল লতিফ।

এ বিষয়ে শিক্ষক ফারহানাকে কয়েকবার কল করা হলেও তিনি রিসিভ করেননি।

শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, গত ২৬ সেপ্টেম্বর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ও বাংলাদেশ অধ্যয়ন বিভাগের প্রথম বর্ষের ফাইনাল পরীক্ষার হলে ঢোকার সময় বিভাগের শিক্ষক ফারহানা ইয়াসমিন বাতেন দরজায় কাঁচি হাতে দাঁড়িয়ে ছিলেন। শিক্ষার্থীরা হলে ঢোকার সময় যাদের মাথার চুল হাতের মুঠোর মধ্যে ধরা যায়, তাদের সামনের অংশের বেশ খানিকটা কেটে দেন তিনি। এভাবে ১৪ শিক্ষার্থীর চুল কেটে দেন ওই শিক্ষক।

ওই ঘটনা নিয়ে শিক্ষার্থীরা ফেসবুকে পোস্ট দিলে বিষয়টি ভাইরাল হয়।

শিক্ষার্থীরা অভিযোগ করেন, ফারহানা ইয়াসমিন শিক্ষার্থীদের গালিগালাজ করে পরীক্ষার হলে যেতে বাধ্য করেন। এর প্রতিবাদ করলে নাজমুল হাসান তুহিন নামের ১ম বর্ষের এক শিক্ষার্থীকে নিজ কক্ষে ডেকে নিয়ে গালিগালাজ করেন এবং বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্থায়ী বহিষ্কারের হুমকি দেন।

ওই ঘটনার পর ‘অপমান সইতে না পেরে’ তুহিন রাতে দ্বারিয়াপুরের শাহমুখদুম ছাত্রাবাসের নিজ কক্ষে দরজা আটকে ঘুমের ওষুধ খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন। সহপাঠীরা বিষয়টি টের পেয়ে তাকে অচেতন অবস্থায় এনায়েতপুর খাজা ইউনুস আলী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন।

২৮ সেপ্টেম্বর রাতে শিক্ষক ফারহানা ইয়াসমিন বাতেন তার বিভাগের চেয়ারম্যান পদ, সহকারী প্রক্টর পদ ও প্রক্টরিয়াল বোর্ডের সদস্য পদ থেকে লিখিতভাবে পদত্যাগ করেন।

ঘটনার তদন্তে পরে রবীন্দ্র অধ্যয়ন বিভাগের চেয়ারম্যান লায়লা ফেরদৌস হিমেলকে প্রধান করে পাঁচ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়।

আরও পড়ুন:
প্রধানমন্ত্রীর অনুদান পেল মারুফের পরিবার
প্রধানমন্ত্রীর অনুদান নিয়ে কী পরিকল্পনা বাহফের

শেয়ার করুন

এসএসসি পরীক্ষায় প্রশ্ন যাবে ফয়েল প্যাকেটে

এসএসসি পরীক্ষায় প্রশ্ন যাবে ফয়েল প্যাকেটে

প্রশ্নপত্র ফাঁস রোধে ফয়েল পেপারে মোড়ানো প্যাকেটে কেন্দ্রে কেন্দ্রে প্রশ্নপত্র পাঠানোর সিদ্ধান্ত হয়েছে। কেন্দ্রের বাইরে অভিভাবকরা যেন অযথা ভিড় না করেন, সে জন্য কেন্দ্রসচিবের পক্ষ থেকে মাইকিং করে সতর্ক করতে বলা হয়েছে। পরীক্ষার দিন কেন্দ্রের ২০০ গজ পর্যন্ত এলাকায় অভিভাবক ও সাধারণের প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হবে।

চলতি বছরের এসএসসি ও সমমান পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁস রোধে নেয়া হচ্ছে নানা সতর্কতামূলক পদক্ষেপ। এর অংশ হিসেবে ফয়েল পেপারে মোড়ানো প্যাকেটে প্রশ্নপত্র পাঠানো হবে কেন্দ্রে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে বৃহস্পতিবার পরীক্ষার প্রস্তুতি সভায় এ বিষয়ে আলোচনা ও সিদ্ধান্ত হয়।

ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক এস এম আমিরুল ইসলাম বলেন, ‘এসএসসি পরীক্ষার প্রস্তুতি সম্পর্কে বৈঠকে জানতে চাওয়া হয়েছে, আমরা বিস্তারিত জানিয়েছি। ইতোমধ্যে প্রশ্নপত্র সরকারি ট্রেজারে পাঠানো হয়েছে। ঢাকা বোর্ডের অধীনে ১৩টি জেলার মধ্যে ৮টিতে ওএমআর শিট, উত্তরপত্র ও অতিরিক্ত উত্তরপত্র পাঠানো হয়েছে, বাকি ৫ জেলায় আগামী সপ্তাহের মধ্যে পাঠানো হবে। সেসব বিষয় আজ মন্ত্রণালয়কে অবহিত করা হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘পরীক্ষা কেন্দ্রে কড়া নিরাপত্তা ও স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিতের বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। এ ছাড়া আরও কয়েকটি বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে, যা পরে জানানো হবে।’

ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা জানান, সভায় শুরুতে এসএসসি পরীক্ষার প্রস্তুতির বিষয়ে শিক্ষা বোর্ডগুলোর প্রধানদের কাছে জানতে চাওয়া হয়। পরীক্ষা কেন্দ্রে কীভাবে কঠোর নিরাপত্তা ও স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করা সম্ভব হবে, সে বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়।

তিনি আরও জানান, প্রশ্নপত্র ফাঁস রোধে ফয়েল পেপারে মোড়ানো প্যাকেটে কেন্দ্রে কেন্দ্রে প্রশ্নপত্র পাঠানোর সিদ্ধান্ত হয়েছে। কেন্দ্রের বাইরে অভিভাবকরা যেন অযথা ভিড় না করেন, সে জন্য কেন্দ্রসচিবের পক্ষ থেকে মাইকিং করে সতর্ক করতে বলা হয়েছে।
পরীক্ষার দিন কেন্দ্রের ২০০ গজ পর্যন্ত এলাকায় অভিভাবক ও সাধারণের প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হবে।

সভায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন সভাপতিত্ব করেন। উপস্থিত ছিলেন সব শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকসহ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের একাধিক কর্মকর্তা।

চলতি বছরে এসএসসি পরীক্ষা শুরু হবে ১৪ নভেম্বর। তা চলবে ২৩ নভেম্বর পর্যন্ত। এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে শুধু নৈর্বাচনিক বিষয়ে। অন্যান্য আবশ্যিক বিষয়ে আগের পাবলিক পরীক্ষার সাবজেক্ট ম্যাপিং করে মূল্যায়নের মাধ্যমে নম্বর দেয়া হবে। এবার চতুর্থ বিষয়েরও পরীক্ষা নেয়া হবে না।

নির্ধারিত সূচিতে সকাল ১০টা থেকে বেলা ১১টা ৩০ মিনিট এবং বেলা ২টা থেকে ৩টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত পরীক্ষা হবে।

কবে কোন পরীক্ষা
১৪ নভেম্বর পদার্থবিজ্ঞান (তত্ত্বীয়), ১৫ নভেম্বর বাংলাদেশের ইতিহাস ও বিশ্বসভ্যতা ও হিসাববিজ্ঞান এবং ১৬ নভেম্বর রসায়ন (তত্ত্বীয়), ১৮ নভেম্বর শারীরিক শিক্ষা ও ক্রীড়া (তত্ত্বীয়), ২১ নভেম্বর ভূগোল ও পরিবেশ ও ফিন্যান্স ও ব্যাকিং, ২২ নভেম্বর উচ্চতর গণিত (তত্ত্বীয়) ও জীববিজ্ঞান (তত্ত্বীয়) এবং ২৩ নভেম্বর পৌরনীতি ও নাগরিকতা, অর্থনীতি ও ব্যবসায় উদ্যোগ পরীক্ষা হবে।

পরীক্ষার্থীদের জন্য নির্দেশনা
করোনা মহামারির কারণে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরীক্ষা হবে। পরীক্ষা শুরুর ৩০ মিনিট আগে পরীক্ষার্থীদের আসন গ্রহণ করতে হবে। পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষা শুরুর তিন দিন আগে প্রতিষ্ঠানপ্রধানদের কাছ থেকে প্রবেশপত্র সংগ্রহ করতে হবে।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শুরু হলে ২০২০ সালের ১৭ মার্চ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়া হয়। দেড় বছর পর ১২ সেপ্টেম্বর খুলে দেয়া হয়েছে প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো। এরই ধারাবাহিকতায় চলছে এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা নেয়ার প্রস্তুতি।

আরও পড়ুন:
প্রধানমন্ত্রীর অনুদান পেল মারুফের পরিবার
প্রধানমন্ত্রীর অনুদান নিয়ে কী পরিকল্পনা বাহফের

শেয়ার করুন

সামিয়া-মারজানের প্রবন্ধ মানহীন, দুর্বল: ট্রাইব্যুনাল

সামিয়া-মারজানের প্রবন্ধ মানহীন, দুর্বল: ট্রাইব্যুনাল

সামিয়া রহমান ও মাহফুজুল হক মারজানের বিরুদ্ধে চৌর্যবৃত্তির প্রমাণ না পেলেও তাদের যৌথ প্রবন্ধটি গবেষণা প্রবন্ধ হিসেবে বিবেচনা না করে বিশ্ববিদ্যালয়ের জার্নাল থেকে বাতিলের সুপারিশ করেছে ট্রাইব্যুনাল। ফাইল ছবি

সামিয়া রহমান ও মাহফুজুল হক মারজানের প্রবন্ধকে দুর্বল ও মানহীন উল্লেখ করে গবেষণা জালিয়াতি নিয়ে গঠিত ট্রাইব্যুনালের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, প্রবন্ধটি জমা দেয়া থেকে শুরু করে রিভিউ, চূড়ান্তভাবে গ্রহণ ও ছাপানোর প্রক্রিয়াতে অসচ্ছতা ও অদক্ষতা রয়েছে বলে প্রত্যক্ষভাবে প্রতীয়মান হয়েছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিকতা ও গণযোগাযোগ বিভাগের শিক্ষক সামিয়া রহমান ও ক্রিমিনোলজি বিভাগের প্রভাষক সৈয়দ মাহফুজুল হক মারজানের যৌথভাবে লেখা ‘এ নিউ ডাইমেনশন অব কলোনিয়ালিজম অ্যান্ড পপ কালচার: এ কেস স্ট্যাডি অব দ্য কালচারাল ইমপেরিয়ালিজম’ শিরোনামে লেখা প্রবন্ধটি মানহীন ও দুর্বল বলে উল্লেখ করেছে ট্রাইব্যুনাল।

তাদের বিরুদ্ধে চৌর্যবৃত্তির প্রমাণ না পেলেও তাদের প্রবন্ধটি গবেষণা প্রবন্ধ হিসেবে বিবেচনা না করে বিশ্ববিদ্যালয়ের জার্নাল সোশ্যাল সাইন্স রিভিউ থেকে বাতিলের সুপারিশ করেছে ট্রাইব্যুনাল।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. রহমত উল্লাহর নেতৃত্বে গঠিত চার সদস্যের ট্রাইব্যুনাল এমনটি বলেছে।

সামিয়া রহমানের গবেষণা জালিয়াতি সংক্রান্ত তদন্ত কমিটির রিপোর্ট, গঠিত ট্রাইব্যুনালের নথিসহ সব কাগজপত্র ৩ সপ্তাহের মধ্যে আদালতে জমা দিতে গত ৫ সেপ্টেম্বর আদেশ দিয়েছিল হাইকোর্ট। ওই আদেশের পর সব নথি বৃহস্পতিবার হাইকোর্টে এসে পৌঁছে। যার একটি প্রতিবেদন নিউজবাংলার কাছে আসে।

এ বিষয়ে আগামী রোববার হাইকোর্টে শুনানি হতে পারে।

সামিয়াদের প্রবন্ধকে একটি দুর্বল ও মানহীন উল্লেখ করে গবেষণা জালিয়াতি নিয়ে গঠিত ট্রাইব্যুনালের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, প্রবন্ধটি জমা দেয়া থেকে শুরু করে রিভিউ, চূড়ান্তভাবে গ্রহণ ও ছাপানোর প্রক্রিয়াতে অসচ্ছতা ও অদক্ষতা রয়েছে বলে প্রত্যক্ষভাবে প্রতীয়মান হয়েছে।

২০১৬ সালের ডিসেম্বরে সামিয়া রহমান ও মারজানের যৌথভাবে লেখা ‘এ নিউ ডাইমেনশন অব কলোনিয়ালিজম অ্যান্ড পপ কালচার: এ কেস স্ট্যাডি অব দ্য কালচারাল ইমপেরিয়ালিজম’ শিরোনামের আট পৃষ্ঠার একটি গবেষণা প্রবন্ধ বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘সোশ্যাল সায়েন্স রিভিউ’ জার্নালে প্রকাশিত হয়।

প্রবন্ধটি নিয়ে অভিযোগ উঠলে প্রথমে একটি কমিটি গঠন করা হয়। এরপর ঢাকা বিশ্ববিদ্যায়ের আইন বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. রহমত উল্লাহকে আহ্বায়ক করে চার সদস্যের ট্রাইব্যুনাল গঠন করা হয়। এই ট্রাইব্যুনালের সদস্য করা হয় ঢাবির সমাজ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. জিনাত হুদা, গণিত বিভাগের অধ্যাপক ড. শরীফ উল্লাহ মজুমদার (অভিযুক্ত সৈয়দ মাহফুজুল হক মারজানের মনোনীত প্রতিনিধি) ও সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী মিনহাজুল হক চৌধুরী (অভিযুক্ত মিসেস সামিয়া রহমানের মনোনীতি প্রতিনিধি)।

ট্রাইব্যুনালের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, (১) অভিযুক্ত প্রবন্ধটিতে ৬০টি অনুচ্ছেদের মধ্যে প্রায় ৪৮টি অনুচ্ছেদ কপি করা হয়েছে। তন্মধ্যে কমিউনালিজম টু কালচারাল ইম্পেরিয়ালিজম: এডওয়ার্ড সাঈদ (পৃষ্ঠা: ৮৭-৯১) অংশে এডওয়ার্ড সাঈদ রচিত কালচার অ্যান্ড ইম্পেরিয়ালিজম বইয়ের বিভিন্ন অংশ থেকে প্রবন্ধটিতে ২৭ শতাংশ কপি করা হয়েছে। এছাড়াও ফরাসী দার্শনিক মিশেল ফুকোর দ্য সাবজেক্ট অ্যান্ড পাওয়ার প্রবন্ধ থেকেও আনুমানিক পাঁচ পৃষ্ঠা (৩০ শতাংশ) কপি করা হয়েছে।

এমনকি, ফুকো-কে নিয়ে রায়ান জেকবসের লেখা থেকেও কোন রেফারেন্স ছাড়াই নিজেদের লেখায় (৫ শতাংশ) কপি করা হয়েছে। টিউমোটিন পদ্ধতির মাধ্যমে দেখা যায় এই প্রবন্ধটিতে বিভিন্ন সোর্স থেকে আনীত প্রায় ৭০ শতাংশ টেক্সটের মিল আছে।

২. এই দুই লেখক এডওয়ার্ড সাঈদ ও মিশেল ফুকোর লেখাকে সরাসরি নিজেদের বলে দাবী করেননি সত্য। তবে, সাইটেশনের নিয়মানুযায়ী সরাসরি উদ্ধৃতির ক্ষেত্রে শব্দসীমা থাকে, কিন্তু তারা সেটা অনুসরণ করেননি। যদিও লেখকরা তাদের লিখিত বক্তব্যে বলছেন, প্রবন্ধটি মিশেল ফুকো এবং এডওয়ার্ড সাঈদের তাত্ত্বিক কাজের একটি তুলনামূলক বিশ্লেষণ, প্রবন্ধটির কোথাও সাঈদ বা ফুকোর বক্তব্যকে নিজেদের বক্তব্য বলে দাবি করেননি।

প্রবন্ধটির শেষের দিকে সাঈদ ও ফুকোর রেফারেন্সও দেয়া হয়েছে। আর্টিকেলটিতে সাইটেশনের ভুল আছে, তবে সম্পূর্ণ অনিচ্ছাকৃত এবং সাইটেশন ত্রুটি বলে বিবেচনা করা যায়। অভিযুক্ত আর্টিকেলটি ২০১৬ সালে সাবমিট করা হয়। সেই সময়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে টারনিটিন সফটওয়্যারের সুবিধা ছিলো না। যদি থাকতো তাহলে এই অনিচ্ছাকৃত ভুলগুলো ধরা পড়ত।

এমন একটি দুর্বল ও মানহীন প্রবন্ধ কীভাবে বিশ্ববিদ্যালয়ের জার্নালে ছাপা হলো তা ট্রাইব্যুনালের কাছে বোধগম্য নয়। রিভিউয়ার ও এডিটরিয়াল বোর্ড অবশ্যই তাদের দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করতে ব্যর্থ হয়েছেন এবং এজন্য তারা দায় এড়াতে পাবেন না। এধরনের ভুলের জন্য এডিটর ও এডিটোরিয়াল বোর্ডকে অভিযুক্ত করা উচিত ছিল বলে ট্রাইব্যুনাল মনে করে।

আরও পড়ুন:
প্রধানমন্ত্রীর অনুদান পেল মারুফের পরিবার
প্রধানমন্ত্রীর অনুদান নিয়ে কী পরিকল্পনা বাহফের

শেয়ার করুন

সংক্রমণের হার কমলে বাড়বে ক্লাসের সংখ্যা: শিক্ষামন্ত্রী

সংক্রমণের হার কমলে বাড়বে ক্লাসের সংখ্যা: শিক্ষামন্ত্রী

কেক কেটে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠান উদ্বোধন করেন শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি। ছবি: নিউজবাংলা

দীপু মনি বলেন, ‘সামনে আমাদের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা আছে। কাজেই আমরা স্কুল-কলেজে ক্লাসের সংখ্যা এখন বাড়াতে পারছি না। অতিমারি এখনও চলছে, তবে সংক্রমণের হার কম। এটা আমাদের ধরে রাখতে হবে।’

করোনার সংক্রমণ উল্লেখযোগ্য হারে কমে গেলে আগামী জানুয়ারি থেকে স্কুল-কলেজে ক্লাসের সংখ্যা বাড়ানো হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি।

গাজীপুরে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে বৃহস্পতিবার বিকেলে সাংবাদিকদের এ কথা জানান মন্ত্রী।

দীপু মনি বলেন, ‘নতুন বছরে সংক্রমণের হার আরও কমে গেলে স্কুল-কলেজে ক্লাসের সংখ্যা বাড়ানো হবে।’

মন্ত্রী বলেন, ‘সামনে আমাদের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা আছে। কাজেই আমরা স্কুল-কলেজে ক্লাসের সংখ্যা এখন বাড়াতে পারছি না। অতিমারি এখনও চলছে, তবে সংক্রমণের হার কম। এটা আমাদের ধরে রাখতে হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে বাল্যবিয়ের হার বেশি হয়েছে। আমরা চেষ্টা করছি, বিয়ে হওয়া মেয়েদের আবার ক্লাসে ফিরিয়ে আনতে। তারা অনেকেই স্থানান্তরিত হয়ে গেছে। তারা যেখানে আছে সেখানকার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ক্লাসে যেন অংশগ্রহণ করতে পারে, সেই চেষ্টা করছি।’

এর আগে অ্যাকাডেমিক ভবনে কেক কেটে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদ্‌যাপন করেন শিক্ষামন্ত্রী।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল ও জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মশিউর রহমান।

আরও পড়ুন:
প্রধানমন্ত্রীর অনুদান পেল মারুফের পরিবার
প্রধানমন্ত্রীর অনুদান নিয়ে কী পরিকল্পনা বাহফের

শেয়ার করুন

চলতি মাসেই স্কুলশিক্ষার্থীদের টিকা

চলতি মাসেই স্কুলশিক্ষার্থীদের টিকা

১২ থেকে ১৭ বছর বয়সী শিক্ষার্থীর সংখ্যা দেশে দেড় কোটি।

শিক্ষার্থীদের মাঝে যুক্তরাষ্ট্রের ফাইজারের টিকা দেয়ার পরিকল্পনা নিয়েছে সরকার। এই টিকার ৬০ লাখ ডোজ সরকারের হাতে রয়েছে। এখান থেকে ৩০ লাখ শিক্ষার্থীকে দুই ডোজ টিকা দেয়ার কাজ সম্পন্ন হবে।

করোনার সংক্রমণ থেকে সুরক্ষা নিশ্চিতে এ মাসের মধ্যে ১২ থেকে ১৭ বছর বয়সী শিক্ষার্থীদের টিকা দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

বৃহস্পতিবার দুপুরে গুলশানের একটি হোটেলে জাতীয় কৃমি নিয়ন্ত্রণ সপ্তাহের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের এ কথা জানান তিনি।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার মানিকগঞ্জের দুটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের পরীক্ষামূলক টিকা দেয়া হয়েছে।

শিক্ষার্থীদের মাঝে যুক্তরাষ্ট্রের ফাইজারের টিকা দেয়ার পরিকল্পনা নিয়েছে সরকার। এই টিকার ৬০ লাখ ডোজ সরকারের হাতে রয়েছে। এখান থেকে ৩০ লাখ শিক্ষার্থীকে দুই ডোজ টিকা দেয়ার কাজ সম্পন্ন হবে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘১২ থেকে ১৭ বছর বয়সী শিক্ষার্থীদের তালিকা আগামী ৩০ অক্টোবরের মধ্যে শিক্ষা মন্ত্রণালয়কে পাঠানোর কথা বলা হয়েছে। তালিকা পেলে চলতি মাসেই তাদের টিকা দেয়া শুরু হবে।’

জাহিদ মালেক বলেন, ‘আমাদের স্কুলশিক্ষার্থীর সংখ্যা দেড় কোটির মতো। তাদের টিকা দেয়ার প্রস্তুতি আমাদের আছে। আমাদের হাতে ফাইজারের টিকাও আছে। নতুন করে ৭২ ও ৯০ লাখ টিকার দুটি চালান শিগগিরই আসবে।’

জাহিদ মালেক জানান, দেশের মানুষকে করোনার সংক্রমণ থেকে সুরক্ষা দিতে ইতোমধ্যেই ২১ কোটি ডোজ টিকা কেনা হয়েছে।

তিনি বলেন, ‘সব মিলিয়ে আমাদের কাছে পর্যাপ্ত টিকা রয়েছে। সবকিছু ঠিক থাকলে এ মাসে প্রায় তিন কোটি টিকা দিতে পারব। টিকাদান কর্মসূচি চলমান থাকলে আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে ৫০ শতাংশ মানুষ টিকার আওতায় আসবে।’

জাহিদ মালেক বলেন, ‘কিছুদিন আগেই বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সঙ্গে আমার কথা হয়েছে। তারা বলেছে, আমরা টিকা কর্মসূচিতে ভালো করছি। আমরা বলেছিলাম আমাদের টিকা বাড়িয়ে দেয়ার জন্য। তারাও সম্মতি দিয়েছে।’

আরও পড়ুন:
প্রধানমন্ত্রীর অনুদান পেল মারুফের পরিবার
প্রধানমন্ত্রীর অনুদান নিয়ে কী পরিকল্পনা বাহফের

শেয়ার করুন