স্কুল-কলেজ খুললে এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের অগ্রাধিকার

স্কুল-কলেজ খুললে এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের অগ্রাধিকার

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ক্লাসে অংশগ্রহণের ক্ষেত্রে চলতি বছরের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের অগ্রাধিকার দেয়া হবে। ফাইল ছবি

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘চলতি বছরের এসএসসি পরীক্ষার্থীরা ৬০ দিন এবং এইচএসসি পরীক্ষার্থীরা ৮৪ দিন ক্লাসের পর পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করবে। ক্লাস শেষ হওয়ার পর দুই সপ্তাহ সময় দিয়ে পরীক্ষা গ্রহণ করা হবে।’

স্কুল-কলেজ খোলার পর চলতি বছরের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ক্লাসে অংশগ্রহণের সুযোগ দেয়ার পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের।

রাজধানীর মিন্টো রোডের সরকারি বাসভবন থেকে দুপুরে ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের চলমান ছুটি বাড়িয়ে ১২ জুন পযর্ন্ত করা হয়েছে। করোনা পরিস্থিতি অনুকূলে থাকলে আগামী ১৩ জুন থেকেই স্কুল-কলেজ খুলে দেয়া হবে।

সংবাদ সম্মেলনে মন্ত্রী বলেন, ‘স্কুল-কলেজ খোলার পর ক্লাসে অংশগ্রহণের ক্ষেত্রে চলতি বছরের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের অগ্রাধিকার দেয়া হবে। তারা সপ্তাহে ছয় দিন ক্লাস করবে। মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকের বাকি ক্লাসের শিক্ষার্থীরা সপ্তাহে এক দিন ক্লাস করবে।

দেশে করোনা শনাক্ত হয় গত বছরের ৮ মার্চ। ভাইরাসের বিস্তার রোধে গত বছরের ১৭ মার্চ থেকে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করে সরকার। দফায় দফায় বন্ধ বাড়িয়ে এ মাসের ২৯ তারিখ পর্যন্ত করা হয়েছিল।

স্কুল-কলেজ খুললে এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের অগ্রাধিকার
ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি। ফাইল ছবি

চলতি বছরের শুরুর দিকে দেশে করোনা পরিস্থিতি কিছুটা নিয়ন্ত্রণে এলে কয়েক দফা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার সিদ্ধান্ত হলেও শেষ পর্যন্ত তা আর হয়ে ওঠেনি।

গত বছর এইচএসসি পরীক্ষা হয়নি, সবাইকে পাস করানো হয়েছে। তবে এবার এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা নেয়া হবে।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘এ বছর অটোপাস দেয়ার ইচ্ছা সরকারের নেই। গত বছরের এইচএসসি পরীক্ষার্থীরা কিন্তু ক্লাস করেছিল। এ বছরের শিক্ষার্থীরা এ সুযোগ পায়নি। পরিস্থিতি খুব খারাপ না হলে পরীক্ষা নিয়েই ফল প্রকাশ করা হবে।’

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘চলতি বছরের এসএসসি পরীক্ষার্থীরা ৬০ দিন এবং এইচএসসি পরীক্ষার্থীরা ৮৪ দিন ক্লাসের পর পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করবে। ক্লাস শেষ হওয়ার পর দুই সপ্তাহ সময় দিয়ে পরীক্ষা গ্রহণ করা হবে।’

২০২২ সালের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার্থীরা যথাক্রমে ১৫০ দিন ও ১৮০ দিন ক্লাস করবে। এর পর পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করবে।

মন্ত্রী আরও জানান, আগামী ২০২২ সালের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের সিলেবাস সংক্ষিপ্ত করা হয়েছে।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান মে মাসেই খোলার কথা ছিল। তবে মার্চের শেষে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ দেখা দিলে আবার পিছিয়ে যায়। সরকার বলছে, প্রাথমিক ও মাধ্যমিকের সব শিক্ষক এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের সবাইকে টিকা দিয়ে পরে চালু করা হবে শিক্ষাঙ্গন। তবে সিরাম থেকে টিকা আসা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় এই পরিকল্পনায় ছেদ পরে।

এখন চীন ও রাশিয়া থেকে টিকা আনার চেষ্টা চলছে। জুনেই ৫০ লাখ টিকা পাওয়া যাবে বলে আশাবাদী সরকার। আর সে ক্ষেত্রে শিক্ষাঙ্গনে সবাইকে টিকা দেয়া কঠিন হবে না।

আর সরকার করোনা পরিস্থিতি বিবেচনায় এনে জুনের দ্বিতীয় সপ্তাহে স্কুল-কলেজ খুলে দেয়ার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বলে জানিয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে এখনও চূড়ান্ত কিছু আসেনি।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন, শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন, কারিগরি ও মাদ্রাসা বিভাগের সচিব মো. আমিনুল ইসলাম খান, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব গোলাম মো. জি এম হাসিবুল আলম ও বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের সদস্য অধ্যাপক ড. সাজ্জাদুল হাসান।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের মহাপরিচালক অধ্যাপক গোলাম ফারুক চৌধুরি, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আলমগীর মুহাম্মদ মনসুরুল আলম, জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের চেয়ারম্যান নারায়ণ চন্দ্র সাহা ও ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর নেহাল আহমেদ।

আরও পড়ুন:
‘অটো পাসে একদমই খুশি না’
সাবজেক্ট ম্যাপিংয়ে জিপিএ-৫ হারালেন ৫০ শিক্ষার্থী
জিপিএ-৫ বৃদ্ধির হারে শীর্ষে বরিশাল
এইচএসসি: সিলেটে জিপিএ-৫ বেড়েছে তিন গুণ

শেয়ার করুন

মন্তব্য