তিন প্রকৌশলের গুচ্ছ পরীক্ষা ১২ আগস্ট

তিন প্রকৌশলের গুচ্ছ পরীক্ষা ১২ আগস্ট

চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (চুয়েট), খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (কুয়েট) এবং রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (রুয়েট)-এর স্নাতক (সম্মান) ১ম বর্ষ (লেভেল-১) ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা একযোগে ১২ জুন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল।

করোনার সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় চুয়েট-কুয়েট-রুয়েটের ভর্তি পরীক্ষা ২ মাস পিছিয়ে আগামী ১২ আগস্ট অনুষ্ঠিত হবে।

মঙ্গলবার বিকেলে তিন প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি কমিটির সদস্যদের নিয়ে আয়োজিত ভার্চুয়াল সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়।

আনুষ্ঠানিক ঘোষণা কিংবা নোটিশ বুধবার প্রকাশ করা হবে বলে জানিয়েছেন তিন প্রকৌশল সমন্বিত ভর্তি কমিটির সদস্যসচিব ও চুয়েটের পুরকৌশল বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. মইনুল ইসলাম। তবে ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের যোগ্য প্রার্থীদের তালিকা পূর্ব নির্ধারিত ২ জুন প্রকাশ করা হবে।

মোবাইল ফোনে জানতে চাইলে কেন্দ্রীয় ভর্তি কমিটির সদস্যসচিব মইনুল ইসলাম বলেন, ‘বিষয়টি সত্য। মঙ্গলবার বিকেলে আমাদের মিটিং হয়, যেখানে সিদ্ধান্ত হয় যে আগামী ১২ আগস্ট ভর্তি পরীক্ষা হবে।’

চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (চুয়েট), খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (কুয়েট) এবং রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (রুয়েট)-এর স্নাতক (সম্মান) ১ম বর্ষ (লেভেল-১) ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা একযোগে ১২ জুন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল।

ভর্তি বিজ্ঞপ্তির লিংক: https://www.cuet.ac.bd/notice/1618926560_CKRUET.pdf

অনলাইনে আবেদনের লিংকঃ https://www.admissionckruet.ac.bd/

ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য আবেদনের যোগ্যতা ও অন্যান্য শর্তাবলি ওয়েবসাইট থেকে জানা যাবে।

আরও পড়ুন:
পেছাল চবির ভর্তি পরীক্ষা
পেছাল রাবির ভর্তি পরীক্ষা
মেডিক্যাল ভর্তি পরীক্ষার ফল বাতিল চেয়ে রিট
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে আসনপ্রতি লড়বে ৪০ জন
গুচ্ছ পদ্ধ‌তির পরীক্ষার তা‌রিখ নি‌য়ে সংশয়

শেয়ার করুন

মন্তব্য

সিরাজগঞ্জে মেডিক্যাল শিক্ষার্থীদের টিকা দেয়া শুরু

সিরাজগঞ্জে মেডিক্যাল শিক্ষার্থীদের টিকা দেয়া শুরু

শহীদ এম মনসুর আলী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের অধ্যক্ষ আমিরুল জানান, সিরাজগঞ্জের তিনটি মেডিক্যাল কলেজের ৮৬৮ শিক্ষার্থীকে পর্যায়ক্রমে করোনা প্রতিরোধী টিকা দেয়া হবে। প্রথমদিনেই তিন মেডিক্যালের ১৯২ শিক্ষার্থীকে টিকা দেয়া হয়েছে।

সিরাজগঞ্জে মেডিক্যাল শিক্ষার্থীদের করোনাভাইরাস প্রতিরোধী টিকা দেয়া শুরু হয়েছে।

সদর উপজেলার শিয়ালকোলস্থ শহীদ এম মনসুর আলী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বর্হিবিভাগে শনিবার দুপুরে এই কর্মসূচির উদ্বোধন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সিরাজগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য অধ্যাপক হাবিবে মিল্লাত মুন্না।

এ কার্যক্রম আগামী ১৯, ২২, ২৬, ২৯ জুন ও ১ জুলাই চলবে।

শহীদ এম মনসুর আলী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের অধ্যক্ষ আমিরুল হোসেন চৌধুরীর সভাপতিত্বে কোভিড-১৯ টিকাদান কার্যক্রম অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন প্রকল্প পরিচালক কৃষ্ণ কুমার পাল, পরিচালক আবুল কাশেম, সিভিল সার্জন রামপদ পাল, সদর উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা জাহিদুল ইসলাম হীরা।

আরও উপস্থিত ছিলেন প্রভাষক আব্দুল্লাহেল কাফী, টিকাদান কেন্দ্রের ভোকালপারসন সহকারী অধ্যাপক লায়লা রাজ্জাক, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান মো. রিয়াজ উদ্দিন, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি হেলাল উদ্দিন ও জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক একরামুল হক।

এ সময় সাংসদ হাবিবে মিল্লাত মুন্না বলেন, ‘করোনা সংক্রমণ থেকে বাঁচতে টিকা নেয়ার পরও সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। সুরক্ষা নীতি মেনে মাস্ক ব্যবহার ও হাত পরিষ্কার করুন। পাশাপাশি নিজেকে সুরক্ষিত রাখুন ও অন্যকেও সুরক্ষিত রাখার পরামর্শ দিন।’

মেডিক্যাল শিক্ষার্থীদের মধ্যে টিকাদান কার্যক্রমে প্রথম টিকা নেন শহীদ এম মনসুর আলী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের শিক্ষার্থী তানভীরুল ইসলাম। প্রথম দিনে ১৯২ শিক্ষার্থীকে টিকা দেয়া হয়।

এর মধ্যে শহীদ এম মনসুর আলী মেডিক্যাল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালের ৫৩ জন, নর্থ বেঙ্গল মেডিক্যাল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালের ৫৬ জন ও খাজা ইউনুস আলী মেডিক্যাল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালের ৮৩ জন টিকা পান।

শহীদ এম মনসুর আলী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের অধ্যক্ষ আমিরুল ইসলাম চৌধুরী জানান, সিরাজগঞ্জের তিনটি মেডিক্যাল কলেজের ৮৬৮ শিক্ষার্থীকে পর্যায়ক্রমে এই টিকা দেয়া হবে।

আরও পড়ুন:
পেছাল চবির ভর্তি পরীক্ষা
পেছাল রাবির ভর্তি পরীক্ষা
মেডিক্যাল ভর্তি পরীক্ষার ফল বাতিল চেয়ে রিট
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে আসনপ্রতি লড়বে ৪০ জন
গুচ্ছ পদ্ধ‌তির পরীক্ষার তা‌রিখ নি‌য়ে সংশয়

শেয়ার করুন

বিতর্কিত নিয়োগ: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন, উপাচার্য ভবনে তালা

বিতর্কিত নিয়োগ: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন, উপাচার্য ভবনে তালা

ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য অধ্যাপক আনন্দ কুমার সাহা বলেন, ‘আজকে তালা লাগানোর ঘটনাটি আমি শুনেছি। এ ধরনের ঘটনা ঘটতে পারে তা কয়েক দিন থেকেই আমি শুনছিলাম। সে কারণে প্রক্টরের মাধ্যমে নগরীর মতিহার থানায় মৌখিক ও লিখিতভাবে আমরা বিষয়টি জানিয়েছি।’

মন্ত্রণালয়ের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে মেয়াদের শেষ দিনে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের দেয়া ১৩৭ শিক্ষক-কর্মকর্তা-কর্মচারীর নিয়োগ বাতিল ঠেকাতে প্রশাসন, উপাচার্য ভবনসহ কয়েকটি ভবনে তালা দিয়েছেন বিতর্কিত নিয়োগপ্রাপ্ত ব্যক্তিরা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিন্যান্স কমিটি ও সিন্ডিকেট সভা পণ্ড করতেই এই তালা দেয়া হয়েছে। সিন্ডিকেট সভায় ওই ১৩৭ জনের নিয়োগ বাতিল করা হতে পারে বলে তারা তালা দিয়েছেন।

সদ্য বিদায়ি উপাচার্য আবদুস সোবহানের মেয়াদের শেষ দিনে ১৩৭ জনকে নিয়োগ দিয়েছিলেন তিনি। ওই নিয়োগপ্রক্রিয়া অবৈধ ঘোষণা দিয়ে তাদের যোগদান স্থগিত করে মন্ত্রণালয়। এরপর আর তারা যোগদান করতে পারেননি।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বাসভবনে ফিন্যান্স কমিটির একটি সভা হওয়ার কথা আছে শনিবার। আগামী মঙ্গলবার বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট সভার তারিখ রয়েছে। তবে এই সভা দুটি যাতে অনুষ্ঠিত হতে না পারে, সে কারণেই ভবনগুলোত তালা লাগিয়েছেন তারা।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক আবদুস সোবাহান তার বিদায়বেলায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে ১৩৭ জনের নিয়োগ দেন। মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে সেই ১৩৭ জনের যোগদান স্থগিত রেখেছেন বর্তমানে দায়িত্বপ্রাপ্ত উপাচার্য অধ্যাপক আনন্দ কুমার সাহা।

এ বিষয়ে সদ্য নিয়োগপ্রাপ্ত আতিকুর রহমান সুমন বলেন, ‘আজ ফাইন্যান্স কমিটি ও আগামী ২২ তারিখে সিন্ডিকেট সভা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা। আজ যদি ফাইন্যান্স কমিটির মিটিং হয়, তাহলে আগামী ২২ তারিখে সিন্ডিকেট হবে।

‘আমরা শুনেছি, ওই সিন্ডিকেট সভায় আমাদের নিয়োগ সম্পূর্ণভাবে বাতিলের জন্য সুপারিশ করা হবে। সে কারণে আমরা সিন্ডিকেট ও ফাইন্যান্স কমিটির মিটিং যাতে না হয়, সে জন্য ভবনগুলোতে তালা লাগিয়েছি।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য অধ্যাপক আনন্দ কুমার সাহা বলেন, ‘আজকে তালা লাগানোর ঘটনাটি আমি শুনেছি। এ ধরনের ঘটনা ঘটতে পারে তা কয়েক দিন থেকেই আমি শুনছিলাম। সে কারণে প্রক্টরের মাধ্যমে নগরীর মতিহার থানায় মৌখিক ও লিখিতভাবে আমরা বিষয়টি জানিয়েছি।’

এ ছাড়া রাজশাহীর স্থানীয় রাজনৈতিক নেতারা বিষয়টি অবগত রয়েছেন। আমি প্রশাসনের সবার সঙ্গে আবার কথা বলব, তারপর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আরও পড়ুন:
পেছাল চবির ভর্তি পরীক্ষা
পেছাল রাবির ভর্তি পরীক্ষা
মেডিক্যাল ভর্তি পরীক্ষার ফল বাতিল চেয়ে রিট
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে আসনপ্রতি লড়বে ৪০ জন
গুচ্ছ পদ্ধ‌তির পরীক্ষার তা‌রিখ নি‌য়ে সংশয়

শেয়ার করুন

জবির মাঠে মার্কেট নির্মাণে শিক্ষকদের প্রতিবাদ

জবির মাঠে মার্কেট নির্মাণে শিক্ষকদের প্রতিবাদ

শুক্রবার রাতে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. নূরে আলম আব্দুল্লাহ ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. শামীমা বেগম স্বাক্ষরিত একটি প্রতিবাদলিপি প্রকাশের মাধ্যমে এ নিন্দা জানানো হয়।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মার্কেট নির্মাণের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়টির শিক্ষক সমিতি (জবিশিস)।

শুক্রবার রাতে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. নূরে আলম আব্দুল্লাহ ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. শামীমা বেগম স্বাক্ষরিত একটি প্রতিবাদলিপি প্রকাশের মাধ্যমে এ নিন্দা জানানো হয়।

প্রতিবাদলিপিতে বলা হয়েছে, গত ১৬ জুন ২০২১ তারিখে বিভিন্ন সংবাদপত্রে প্রকাশিত “জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের খেলার মাঠে মার্কেট নির্মাণ করছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন” শীর্ষক সংবাদটিতে আমাদের দৃষ্টি নিবদ্ধ হয়েছে। এটি ধূপখোলায় অবস্থিত তিনটি মাঠের একটি এবং জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের খেলাধুলা ও শরীরচর্চার একমাত্র স্থান যা এই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা দীর্ঘদিন ব্যবহার করে আসছেন। ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের এ ধরনের উদ্যোগের ফলে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যে গভীর হতাশা ও ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

প্রতিবাদলিপিতে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি সিটি করপোরেশনের এ ধরনের উদ্যোগের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে এবং যথাথ কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

গত ১০ জুন দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৪৫ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর শামসুজ্জোহা ও সিটি করপোরেশনর সাব অ্যসিস্ট্যান্ট ইঞ্জিনিয়ার হরিদাস মল্লিক মাঠের ভেতর ম্যাপ অনুযায়ী চার কোণায় খুঁটি বসান। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে না জানিয়ে মাঠের মধ্যে মার্কেট নির্মাণের পরিকল্পনায় বিষয়টি নজরে আসার পর ক্ষোভ প্রকাশ করেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন ও শিক্ষার্থীরা।

আরও পড়ুন:
পেছাল চবির ভর্তি পরীক্ষা
পেছাল রাবির ভর্তি পরীক্ষা
মেডিক্যাল ভর্তি পরীক্ষার ফল বাতিল চেয়ে রিট
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে আসনপ্রতি লড়বে ৪০ জন
গুচ্ছ পদ্ধ‌তির পরীক্ষার তা‌রিখ নি‌য়ে সংশয়

শেয়ার করুন

আবরার স্মরণে ‘এক মুঠো ভাত’

আবরার স্মরণে ‘এক মুঠো ভাত’

আবরার ফাহাদ হত্যার দ্রুত বিচার দাবি করে বুয়েট ক্যাম্পাসে ‘এক মুঠো ভাত’ কর্মসূচি পালন করেছে অঙ্কুর ফাউন্ডেশন। ছবি: নিউজবাংলা

বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যার দ্রুত বিচার দাবি করে বুয়েট ক্যাম্পাসে ‘এক মুঠো ভাত’ কর্মসূচি পালন করেছে অঙ্কুর ফাউন্ডেশন। এ কর্মসূচির আওতায় শুক্রবার দুপুরে ক্যাম্পাসে ১০০ জনের মধ্যে খাবার বিতরণ করা হয়।

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যার দ্রুত বিচার দাবি করে বুয়েট ক্যাম্পাসে ‘এক মুঠো ভাত’ কর্মসূচি পালন করেছে অঙ্কুর ফাউন্ডেশন।

এ কর্মসূচির আওতায় শুক্রবার দুপুরে ক্যাম্পাসে ১০০ জনের মধ্যে খাবার বিতরণ করা হয়।

রাজধানীরসহ দেশের ৬৪টি জেলা শহরে শুক্রবার এ কর্মসূচি পালিত হয়েছে বলে নিউজবাংলাকে জানিয়েছেন সংগঠনটির সিনিয়র স্বেচ্ছাসেবক জুবায়ের।

জুবায়ের জানান, আবরারের নিজ জেলা কুষ্টিয়াতে আয়োজিত কর্মসূচিতে আবরার ফাহাদের বাবা উপস্থিত ছিলেন।

সংগঠন সূত্রে জানা যায়, ‘অঙ্কুর ফাউন্ডেশন’ একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। এই ফাউন্ডেশনের বেশ কয়েকটি প্রজেক্টের মধ্যে ‘এক মুঠো ভাত’ অন্যতম।

কর্মসূচির বিষয়ে সংগঠনটির মিডিয়া সমন্বয়ক মো. আলাউদ্দিন বলেন, ‘আবরার হত্যার পর আসামীদের বিরুদ্ধে দ্রুত বিচারের কথা বলা হয়েছিল। কিন্তু প্রায় এক বছর ৯ মাস পার হয়ে গেলেও বিচার কাজে তেমন অগ্রগতি হয়নি।’

আবরার স্মরণে ‘এক মুঠো ভাত’
আবরার হত্যার দ্রুত বিচার দাবি করে বুয়েট ক্যাম্পাসে অঙ্কুর ফাউন্ডেশন বিশেষ কর্মসূচী পালন করে। ছবি: নিউজবাংলা

‘সম্প্রতি আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় বুয়েট থেকে আজীবন বহিষ্কৃত শিক্ষার্থী আশিকুল ইসলাম বিটু ক্লাসে ফিরেছেন। আবার হত্যার বিচারের দীর্ঘসূত্রতা ও সাম্প্রতিক ঘটনায় আমরা উদ্বিগ্ন।’

আলাউদ্দিন বলেন, সংগঠনের অবস্থান প্রশাসন বা সরকারের বিরুদ্ধে নয়। বরং আমরা সরকারের কাছে অভিনব এই প্রক্রিয়ায় আবরার ফাহাদের জন্য দ্রুত ন্যায় বিচার দাবি করছি।

আবরার স্মরণে ‘এক মুঠো ভাত’
নিহত আবরার ফাহাদ। ফাইল ছবি

আরও পড়ুন:
পেছাল চবির ভর্তি পরীক্ষা
পেছাল রাবির ভর্তি পরীক্ষা
মেডিক্যাল ভর্তি পরীক্ষার ফল বাতিল চেয়ে রিট
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে আসনপ্রতি লড়বে ৪০ জন
গুচ্ছ পদ্ধ‌তির পরীক্ষার তা‌রিখ নি‌য়ে সংশয়

শেয়ার করুন

চা-চপ-সিঙ্গারা: বিধিনিষেধ নিয়ে সমালোচনার ঝড়

চা-চপ-সিঙ্গারা: বিধিনিষেধ নিয়ে সমালোচনার ঝড়

দ্য ডেইলি স্টারে প্রকাশিত যে প্রতিবেদন ও কার্টুনকে ঘিরে বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের একটি পুরনো মন্তব্যকে ঘিরে সংবাদপত্রে কার্টুন এবং সেই কার্টুনের জেরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিজ্ঞপ্তি জারির পর এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আলোচনা-সমালোচনার ঝড় উঠেছে। মূলত বিদ্রুপ থামাতে গিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পদক্ষেপ নতুন বিদ্রুপের জন্ম দিয়েছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য মো. আখতারুজ্জামানের সমালোচনা করা যাবে না মর্মে সাবধান করে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের বিজ্ঞপ্তির পর এ নিয়ে সমালোচনার ঝড় উঠেছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

একটি দৈনিক পত্রিকায় প্রকাশিত কার্টুন থেকে যে নিষেধাজ্ঞার সূত্রপাত, সেই নিষেধাজ্ঞাই হাস্যরসাত্মক ট্রোল ও মিমের নতুন উপলক্ষ হয়ে উঠেছে। এসব ট্রোলের বেশিরভাগই করছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থীরা।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্র ও ব্র্যাক মাইগ্রেশন বিভাগের প্রধান শরিফুল হাসান তার ফেসবুক টাইমলাইনে লেখেন:

‘এই তো আর সপ্তাহ দুয়েক পরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শতবর্ষপূর্তি। এমন মহেন্দ্রক্ষণে আরো একটি রেকর্ড করেছে আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়। শত বছরের ইতিহাসে এই প্রথম বোধ হয় কোনো উপাচার্য সংবাদ বিজ্ঞপ্তি পাঠালেন যে, সমালোচনা বা ব্যঙ্গ করলে তিনি আইনি ব্যবস্থা নেবেন।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিটি পড়ে আমার ভীষণ হাসি পেয়েছে। …

পৃথিবীর ইতিহাসে আর কোন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যকে এমন সংবাদ বিজ্ঞপ্তি দিতে হয়েছে কি না আমার জানা নেই। আমার তো মনে হয়, এই বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করার জন্য এই সংবাদ বিজ্ঞপ্তিই যথেষ্ট। খুব দক্ষতার সাথে কাজটি করায় শতবর্ষের অভিনন্দন মাননীয় উপাচার্যকে। আমার মনে হয় সবাই এবার ছা-ছপ সিঙ্গারা খাওয়ার দাওয়াত পেতে পারেন।’

চা-চপ-সিঙ্গারা: বিধিনিষেধ নিয়ে সমালোচনার ঝড়

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্র ও কবি ইমতিয়াজ মাহমুদ তার ফেসবুক টাইমলাইনে একটি গল্পের ছলে সমালোচনা করে বলেন:

‘স্কুলে আমাদের এক বন্ধু ছিলো। তার নাম মারুফ (নামটা কাল্পনিক দিলাম)। কিন্তু ক্লাসের সবাই তারে ডাকতো "বলদা মারুফ" নামে।

এই সম্বোধনে ত্যাক্ত-বিরক্ত হয়ে একদিন সে আমাদের ক্লাস টিচারের কাছে গিয়ে সবার নামে নালিশ করলো। স্যার তখন আমাদের বললেন, তোরা কেউ এখন থেকে আর ওরে 'বলদা মারুফ' ডাকবি না, এখন থেকে ওরে সবাই 'ইন্টেলিজেন্ট মারুফ'' ডাকবি।

অচিরেই সবাই তারে নতুন এই নামেই ডাকা শুরু করলো। তারপর ধীরে ধীরে এক সময়ে তার নামের মূল অংশটাও বাদ পড়লো। শুধু ইন্টেলিজেন্ট নামটা টিকে থাকলো।

কিন্ত সুন্দর এই নামটা উচ্চারণ করার সময় সবার মুখেই মুচকি একটা হাসি থাকতো...।

পুনশ্চ: খবরে দেখলাম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্তৃপক্ষ সিদ্ধান্ত নিছে তাদের চা, চপ, সিঙারারে ব্যাঙ্গ করলে তারা ব্যবস্থা নেবে। আমার ধারণা তাদের এই ব্যবস্থার ভয়ে এখন থেকে কেউ আর তাদের চা, চপ, সিঙারারে বিদ্রুপ করবে না।

তবে আশঙ্কা আছে কর্তৃপক্ষ এমন ব্যবস্থা নিতে থাকলে একসময় "ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়" নামটা উচ্চারণ করার সময়ও সবার মুখে মুচকি একটা হাসি থাকবে...।’

চা-চপ-সিঙ্গারা: বিধিনিষেধ নিয়ে সমালোচনার ঝড়

দৈনিক দেশ রূপান্তর-এর যুগ্ম সম্পাদক গাজী নাসিরুদ্দিন আহমেদ তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেছেন:

‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি এত ব্যাডাগিরি দেখায় কেন? এক্স স্টুডেন্টদের গ্রুপ দেখলেই তো বোঝা যায় কি জাতের গ্র্যাজুয়েট উনারা পয়দা করেন। আইনি পদক্ষেপের হুমকি দেন! ছা-ছপ বললে বাংলাদেশের কোন আইনটার লঙ্ঘন হয়? হাইকোর্ট দেখানোর গেরাইম্যা কালচার। রাবিশ!’

চা-চপ-সিঙ্গারা: বিধিনিষেধ নিয়ে সমালোচনার ঝড়

অনেকে স্ট্যাটাস না দিলেও বিভিন্ন ব্যাক্তিদের কমেন্ট বক্সে এমন সিদ্ধান্তের সমালোচনা করেছেন।

শরিফুল হাসানের পোস্টে কমেন্ট করেছেন রওশন হক। তিনি লিখেছেন: ‘ছা চপ সিংড়ায় সম্মান ধরে রাখতেই এই সংবাদ বিজ্ঞপ্তি দিয়েছেন।’

শাহাদাত হাসান নামে একজন কমেন্টে বলেছেন: “ঢাবির না, বরং তার নিজের ভাবমূর্তি 'রক্ষা'র বিজ্ঞপ্তি ছিল সেটি।”

মো হারুন উর রশিদ কমেন্টে লিখেছেন: ‘মাননীয় উপাচার্য কি তাকে নিয়ে কৃত ব্যঙ্গ-বিদ্রুপ দেখেও বুঝেন না যে তিনি বিগত কবছর ধরে কেমন কর্মদক্ষতা দেখিয়ে যাচ্ছেন! যদি না বুঝে থাকেন, তাহলে বিশ্বাস করুন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন প্রাক্তন ছাত্র হিসেবে আমি সত্যিই লজ্জিত!’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্রী ও সাংবাদিক শাহানা হুদা তার ওয়ালে লেখেন: “‘সম্মানিত’ কাউর ইজ্জত লই ‘চুদুর বুদুর’ চইলতোনো - প্রেস বিজ্ঞপ্তি।”

সমালোচনা শুধু ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক বা বর্তমান শিক্ষার্থীদের মধ্যেই সীমাবদ্ধ নেই। বরং তা ছড়িয়ে পড়েছে অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যেও।

স্যার সলিমুল্লাহ মেডিক্যাল কলেজের সাবেক শিক্ষার্থী সেজান মাহমুদ এই বিষয় নিয়ে একটি কবিতা লিখে তা তার ওয়ালে প্রকাশ করেন,

#খবর_থেকে_ছড়া ১১

বললেন কী বললেন কী

চা-ছপের এই ভিসি!

ছি ছি!

কেউ করিলে মানের হানি

টানতে হবে জেলের ঘানি

মান কি অতো সোজা?

পাবলিকে দেয় ট্যাক্সো-মানি

সঙ্গে কিছু খোঁচাও, জানি

যায় না বুঝি বোঝা?

তাই বলে কি মামলার ভয়,

রক্তচক্ষু ভালো?

প্রাচ্যের এই অক্সফোর্ডে আজ

‘ইনটলারেন্স’ কালো!

ছি ছি ছি ছি!

বললেন কী বললেন কী

চা-ছপের এই ভিসি!

ক্ষ্যামা দিলাম লিখতে ছড়া

একশ ঘায়ের ভয়ে

ফ্রিডম-ট্রিডম শিকেয় তুলি

সস্তা ছপের জয়ে!

চা-চপ-সিঙ্গারা: বিধিনিষেধ নিয়ে সমালোচনার ঝড়

ইংরেজি দৈনিক পত্রিকা দ্য ডেইলি স্টার-এ ১৫ জুন প্রকাশিত এক প্রতিবেদন ও কার্টুনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ডাকসু ক্যাফেটরিয়াতে স্বল্প মূল্যে পাওয়া চা, চপ, শিঙাড়া নিয়ে ২০১৯ সালে নবীন শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে উপাচার্যের দেয়া বক্তব্যের সমালোচনা করা হয়।

এর প্রতিবাদে জনসংযোগ দপ্তর থেকে পাঠানো বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘সেদিনের বক্তব্যকে খণ্ডিতভাবে প্রচার করা হয়েছে। যমুনা টেলিভিশনের এক সাংবাদিক উপাচার্যের বক্তব্যের মূল অংশ কাটছাঁট করে ক্যাফেটরিয়ার বিভিন্ন খাবার আইটেমের মূল্যমান-সংক্রান্ত বক্তব্যের অংশবিশেষ নিয়ে ১৫-২০ সেকেন্ডের একটি ভিডিও তৈরি করে। যা ভাইরাল হয়ে যায়।

‘সেদিন উপাচার্য মূলত নবাগত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে হাস্যরসে ক্যাফেটরিয়ার সাধারণ, স্বল্পমূল্যের খাবার মেন্যু ও সবার জন্য সমান সুযোগ-সুবিধার অবারিত সেবা কার্যক্রমের কথা বলেছিলেন।’

এ বিষয়ে বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, ‘সম্প্রতি কোনো কোনো দায়িত্বশীল মহল বিভিন্নভাবে বিষয়টি যথেচ্ছভাবে ব্যবহার করছে, যা খুবই অনাকাঙ্ক্ষিত।’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এই বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পর ব্লগার আরিফ জেবতিক তার স্ট্যাটাসে ছড়ার মতো করে লিখেছেন:

‘ভানুমতীর খেল! ছা-ছপ-ছিঙারা কইলে হবে জেল!’

ছড়াকার রোমেন রায়হান তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে ছড়া লিখেছেন:

‘ভিসিত্র অক্সফোর্ড

রোমেন রায়হান

অক্সফোর্ড আছে যেটা প্রাচ্যে

‘ছা-ছপ-সিঙ্গারা’ খাচ্ছে

সেটা নিয়ে বলো যদি কিচ্ছু

পিছু নেবে ‘ভিসিত্র’ বিচ্ছু

জেলে ভরে দেখা যাবে নাচছে!

অক্সফোর্ড আছে যেটা প্রাচ্যে…’

রোমেন রায়হানের এই ছড়ার পোস্টের নিচে নাফিস রহমান লিখেছেন: ‘আইনী ব্যবস্থা নেয়া হবে কি ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন, নাকি খাদ্য নিরাপত্তা আইনের আওতায়?’

জনপ্রিয় অনলাইন ফান পেজ ‘ইয়ার্কি ডট কম’ একটি পোস্টে লিখেছে:

‘যেখানে বিশ্ববিদ্যালয়ের শেখানোর কথা মুক্ত মত আর মুক্তচিন্তার চর্চা, সেখানে তারাই মানুষের কণ্ঠরোধ করতে চাইছে। কেউ সমালোচনার উর্ধ্বে নয়, বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজ মানুষের সেই বিচারশক্তি ও উপলব্ধি জাগ্রত করা। আর আমাদের প্রাচ্যের অক্সফোর্ড শিক্ষার্থীর স্বাধীন মত প্রকাশের অধিকারের কবর খুড়ছে। হ্যাঁ, এটাই দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ, সুলভে ছা-ছপ-সিঙ্গারার প্রাপ্তিস্থান।’

আরও পড়ুন:
পেছাল চবির ভর্তি পরীক্ষা
পেছাল রাবির ভর্তি পরীক্ষা
মেডিক্যাল ভর্তি পরীক্ষার ফল বাতিল চেয়ে রিট
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে আসনপ্রতি লড়বে ৪০ জন
গুচ্ছ পদ্ধ‌তির পরীক্ষার তা‌রিখ নি‌য়ে সংশয়

শেয়ার করুন

কলেজের ফটক তো এমনই মানায়

কলেজের ফটক তো এমনই মানায়

লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা ‍উপজেলার দইখাওয়া কলেজের ফটক। ছবি: নিউজবাংলা

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে দেশ-বিদেশের স্বনামধন্য কথাসাহিত্যিক ও লেখকদের উল্লেখযোগ্য ‍৫০টি বইয়ের মোড়ক দিয়ে নির্মাণ করা হয়েছে লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা ‍উপজেলার দইখাওয়া কলেজের ফটক।

একটির উপর আরেকটি বই দিয়ে তৈরি ফটক। তাতে স্থান পেয়েছে দেশ-বিদেশের বিখ্যাত সব লেখকদের বই। তার উপরে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের পতাকা সম্বলিত একটি গ্লোব।

বইয়ের সঙ্গে অবিচ্ছেদ্য সম্পর্ক থাকা একটি প্রতিষ্ঠানের ফটক তো এমনই হওয়া চাই। লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা ‍উপজেলার দইখাওয়া কলেজে তেমনই ফটক তৈরি করেছেন অধ্যক্ষ মোফাজ্জল হোসেন।

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে দেশ-বিদেশের স্বনামধন্য কথাসাহিত্যিক ও লেখকদের উল্লেখযোগ্য ‍৫০টি বইয়ের মোড়ক দিয়ে নির্মাণ করা হয়েছে এ ফটক।

কংক্রিটের ফটকটি এতটাই দৃষ্টিনন্দন যে, তা দেখতে প্রতিদিনই কলেজের সামনে ভিড় করছেন সাধারণ মানুষসহ অন্য বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাও।

কলেজটির দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী আজিজুল ইসলাম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমাদের কলেজের পুস্তক তোরণের উভয় পাশে ২৫টি করে ৫০টি বই দেয়া আছে। বাংলাদেশে সম্ভবত এটিই প্রথম বইয়ের আকারে বানানো গেট। এটি খুবই সুন্দর, মনোমুগ্ধকর গেট।’

তিনি আরও বলেন, ‘একবিংশ শতাব্দীতে এসে অনেক ছাত্র-ছাত্রী বই পড়ার আগ্রহ হারিয়েছে। তবে এই গেটটি দেখার পর বই পড়ার আগ্রহ জাগে। কেননা দুই পাশে অনেক স্বনামধন্য সাহিত্যিকদের বই রয়েছে। যারা বইপ্রেমী বা যেই এর সামনে দিয়ে যাক না কেন গেটটি দেখার জন্য একটু তাকে দাঁড়াতেই হবে।’

কলেজের ফটক তো এমনই মানায়

হাতীবান্ধা-চাপারহাট সড়কের পাশেই কলেজটির ব্যতিক্রমী ফটকটি চোখে পড়বে একটু দূর থেকেই। এর দুই পিলারের প্রতিটিতে রয়েছে কংক্রিট দিয়ে তৈরি ২৫টি করে বই। যার গায়ে রং করে লেখা হয়েছে বিভিন্ন বিখ্যাত বই ও লেখকদের নাম। ফটকের উপরে রয়েছে বিভিন্ন দেশের পতাকা সম্বলিত একটি গ্লোব।

তবে দূর থেকে দেখলে মনেই হয় না এটি সিমেন্টের তৈরি কোনো ফটক।

কলেজের ফটক তো এমনই মানায়

মনোমুগ্ধকর ফটকটি তৈরি করতে সময় লেগেছে প্রায় এক বছর। কলেজ ফান্ড থেকে কিছু টাকা বরাদ্দ দিয়ে গত বছর নির্মাণ কাজ শুরু করেন কলেজের অধ্যক্ষ মোফাজ্জল হোসেন। এরপর প্রায় এক বছর লাগে নির্মাণ কাজ শেষ করতে।

কলেজের অধ্যক্ষ মো. মোফাজ্জল হোসেন জানান, উপজেলার মদাতী ইউনিয়নের প্রান্তিক ও পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠির ছেলে-মেয়েরা পড়াশোনা করে কলেজটিতে। স্বভাবতই সেখানে নেই কোনো গণগ্রন্থাগার। কলেজে যে গ্রন্থাগারটি আছে সেটিও ছোট। এজন্য শিক্ষার্থীদের বই পড়ার প্রতি আগ্রহ তৈরি করতে অন্যদের সঙ্গে কথা বলে তিনি এমন ফটক তৈরির উদ্যোগ নেন।

তিনি বলেন, ‘এখানে বাংলা সাহিত্যের বিভিন্ন লেখকের বই বিশেষ করে যারা সাহিত্যকে সমৃদ্ধ করেছেন তাদের বই আছে। আমরা যেহেতু রংপুর বিভাগের মানুষ। আমরা রংপুরের মানুষকে উপরে রেখেছি। সে কারনে আনিসুল হক, কবি শেখ ফজলুর করিমের বই রেখেছি।

‘এ ছাড়া বঙ্কিম চন্দ্র, রবীন্দ্রনাথসহ বিভিন্ন নাম করা লেখকের বই রেখেছি ফটকটিতে। যাতে ওইসব লেখকের বই পড়ার আগ্রহ জন্মে। এটি করা, যাতে ছেলে-মেয়েরা বই পড়ে।’

কলেজের ফটক তো এমনই মানায়

ফটকটির সামনে বইপ্রেমীসহ অন্যদের ছবি তোলে দৃশ্য দেখতে তার অনেক ভালো লাগে বলেও জানান এ অধ্যক্ষ।

কলেজটির প্রধান ফটক মানুষের প্রধান আকর্ষণ হলেও ভেতরের পরিবেশও সুন্দর। রয়েছে দৃষ্টিনন্দন একটি শহীদ মিনার, যার পেছনেই রয়েছে একটি বই। দেখলে মনে হয় শহীদ মিনারটিকে আগলে রেখেছে বইটি। সেই বই জুড়ে রয়েছে কিছু বর্ণ। রয়েছে মুক্তিযুদ্ধের বিভিন্ন ছবি।

আরও পড়ুন:
পেছাল চবির ভর্তি পরীক্ষা
পেছাল রাবির ভর্তি পরীক্ষা
মেডিক্যাল ভর্তি পরীক্ষার ফল বাতিল চেয়ে রিট
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে আসনপ্রতি লড়বে ৪০ জন
গুচ্ছ পদ্ধ‌তির পরীক্ষার তা‌রিখ নি‌য়ে সংশয়

শেয়ার করুন

চাকা না ঘুরলেও ঢাবি নিচ্ছে পরিবহন ফি

চাকা না ঘুরলেও ঢাবি নিচ্ছে পরিবহন ফি

ভর্তির রসিদে দেখা যায়, আবাসিক হল ফি ছাড়া মানবিক বিভাগের শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে মোট নেয়া হচ্ছে ৩ হাজার ৭১৫ টাকা, বিজ্ঞান বিভাগ থেকে ৪ হাজার ২৮৫ টাকা এবং বাণিজ্য বিভাগ থেকে নেয়া হচ্ছে ৪ হাজার ৮৫ টাকা। এর মধ্যে ‘পরিবহন ফি’ হিসেবে নেয়া হচ্ছে ১ হাজার ৮০ টাকা। এ ছাড়া আবাসিক হলভেদে শিক্ষার্থীদের দিতে হবে গত বছরসহ এই বছরের ‘সিট ভাড়া’।

দেড় বছর ধরে বন্ধ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হল। সচল হয়নি পরিবহন ব্যবস্থা। তবুও শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে নেয়া হচ্ছে পরিবহন ফি। এমনকি বন্ধ হলের ‘সিট ভাড়া’ হিসেবে দুই বছরের ফি জমা দিতেও বলা হয়েছে।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বিস্তার রোধে গত বছরের মার্চে বন্ধ ঘোষণা করা হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। বন্ধ হয়ে যায় আবাসিক হলগুলোও। এ অবস্থায় প্রায় দেড় বছর আবাসিক হলে না থেকে এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহনে না চড়লেও হল এবং পরিবহন ফি নেয়ায় ক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা।

শিক্ষার্থীরা বলছেন, ‘আমাদের সাথে অন্যায্য ও বৈষম্যমূলক আচরণ করছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। এসব দেখার কেউ নেই। শিক্ষার্থীরা যেন বিশ্ববিদ্যালয়ের কাছে জিম্মি।’

শিক্ষার্থীদের অভিযোগের স্পষ্ট জবাব না দিলেও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য মো. আখতারুজ্জামান বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল সেবা কার্যক্রম সীমিত পরিসরে হলেও ক্রিয়াশীল রাখতে হয়। তবে এগুলো থেকে শিক্ষার্থীরা কোনো সুবিধা পাচ্ছেন না, এটা সত্য। অল্প কিছু পয়সা শিক্ষার্থীদের জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ, সেটিও আমরা বুঝি।’

এসব ফি মওকুফ করা হবে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আর্থিক বিষয় হওয়ার কারণে এ ব্যাপারে তাৎক্ষণিক কিছু বলা কঠিন। হুটহাট সিদ্ধান্ত নিলে প্রতিষ্ঠিত সেক্টরে বড় আকারের ধাক্কা পড়ে কি না সেটিও আমাদের দেখতে হবে। শিক্ষার্থীরা কিছু সুবিধা পেলে সেটিই তো আমাদের পাওয়া হয়।’

করোনাকালের শুরুতে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বলা হয়েছিল শিক্ষার্থীদের এসব ফি কমানোর বিষয়টি বিবেচনা করা হবে। সে কথা স্মরণ করিয়ে দিলে উপাচার্য বলেন, ‘সেটি দেখা যাক। এখনো সেগুলো দেখার সুযোগই হয়নি।’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে জুলাই মাস থেকে শিক্ষার্থীদের স্বশরীরের বা অনলাইনে পরীক্ষা শুরুর কথা রয়েছে। পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য শিক্ষার্থীদের ভর্তি হতে হয়। আর ভর্তি হতে গিয়েই সামনে এসেছে ‘অযাচিত ফি’ আদায়ের এসব বিষয়।

ভর্তির রসিদে দেখা যায়, আবাসিক হল ফি ছাড়া মানবিক বিভাগের শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে সর্বমোট নেয়া হচ্ছে ৩ হাজার ৭১৫ টাকা, বিজ্ঞান বিভাগ থেকে ৪ হাজার ২৮৫ টাকা এবং বাণিজ্য বিভাগ থেকে নেয়া হচ্ছে ৪ হাজার ৮৫ টাকা। এর মধ্যে ‘পরিবহন ফি’ হিসেবে নেয়া হচ্ছে ১ হাজার ৮০ টাকা। এ ছাড়া আবাসিক হলভেদে শিক্ষার্থীদের দিতে হবে গত বছরসহ এই বছরের ‘সিট ভাড়া’।

এ বিষয়ে ভাষা বিজ্ঞান বিভাগের আবাসিক শিক্ষার্থী আসিফ মাহমুদ বলেন, ‘করোনা মহামারিতে আমাদের পরিবারগুলো আর্থিক সংকটে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ থাকায় টিউশনি নেই বললেই চলে। হল বন্ধ থাকায় অনেককে মেস ভাড়া নিয়ে পরীক্ষার প্রস্তুতি নিতে হচ্ছে। ঠিক সে সময়ে শিক্ষার্থীদের থেকে অযাচিত ফি আদায়ের চেষ্টা দুঃখজনক।’

রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী মাহবুব রহমান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘করোনাকালীন ছাত্রদের অর্থনৈতিক অবস্থা নাজুক। অনেক শিক্ষার্থীর উপার্জন ছিল টিউশননির্ভর। দেড় বছর ধরে তা বন্ধ। এ সময়ে বন্ধ বিশ্ববিদ্যালয়ের হল থেকে আমরা কোনো সেবা নিইনি, হলে না থেকে কেন আমাদের চার্জগুলো দিতে হবে? শিক্ষার্থীদের ডাবল খরচ করার সামর্থ্য নেই।’

ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের শিক্ষার্থী আবদুল্লাহ মাহমুদ বলেন, ‘আমরা চাই পরিবহন ফিসহ যাবতীয় অন্যায্য ফি বাতিল করা হোক। অন্যসব ঘটনায় বিশ্ববিদালয়ের শিক্ষকরা সরব থাকলেও শিক্ষার্থীদের সমস্যায় তারা নীরব।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের এই সিদ্ধান্তের সমালোচনা করে ডাকসুর সাবেক সহসম্পাদক সাদ্দাম হোসেন বলেন, ‘হল বন্ধ থাকা অবস্থায় আবাসিক ফি, পরিবহন ফি গ্রহণ করা শিক্ষার্থীদের সাথে তামাশারই নামান্তর। এই সিদ্ধান্তগুলো সম্পূর্ণরূপে প্রত্যাহার করা উচিত।’

হলের সিট ভাড়া ও পরিবহন ফি প্রত্যাহারে হলগুলোর কিছু করার নেই বলে জানান প্রভোস্ট স্ট্যান্ডিং কমিটির সভাপতি অধ্যাপক আবদুল বাছির। নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘আবাসিক হলগুলো স্বতন্ত্র কোনো বিষয় না, এটি বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি অঙ্গ। বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্দেশনার বাইরে হল কোনো কিছুই করতে পারে না। আমরা যদি শিক্ষার্থীদের থেকে এক টাকা কম নিই তাহলে আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের কাছে জবাবদিহি করতে হবে ৷ তবে বিশ্ববিদ্যালয় যদি আমাদের ফি মওকুফ বা কম নেয়ার কোনো নির্দেশনা দেয় অবশ্যই আমরা সেভাবে চলব।’

রেগে গেলেন কোষাধ্যক্ষ

গাড়িতে না চড়েও ভাড়া গোনার বিষয় নিয়ে জানতে চাইলে রেগে যান বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক মমতাজ উদ্দীন। তিনি বলেন, ‘বিআরটিসির ভাড়া কে দেবে, তুমি দিবা? শিক্ষার্থীরা পরিবহনে না চড়লেও বিআরটিসিকে ভাড়া দিতে হচ্ছে। তাই এসব টাকা নেয়া হচ্ছে।’

তিনি জানান, পরিবহন ফি হিসেবে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে বছরে নেয়া হচ্ছে ১০৮০ টাকা করে। বছরে চালু থাকা সময় ২৫০ দিন ধরলে পরিবহন বাবদ দৈনিক ব্যয় ৪ টাকা ৩২ পয়সা। এ সামান্য টাকা নিয়ে প্রশ্ন তোলায় তিনি বিস্মিত।

তবে কোষাধ্যক্ষের বক্তব্যের সাথে মিল নেই বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন ম্যানেজার আতাউর রহমানের বক্তব্যে। আতাউর রহমান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বিআরটিসির সাথে আমাদের চুক্তি বাস হিসেবে না, ট্রিপ হিসেবে। যত ট্রিপ বাস চলবে সে অনুযায়ী টাকা। ট্রিপ না দিলে টাকা নেই। এখন যেহেতু বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ, তাই ট্রিপ বন্ধ। সুতরাং তাদের টাকা দেয়ার প্রশ্নই ওঠে না।’

‘গাড়ি না চললে ভাড়া নেই’ এমন বিষয় সম্পর্কে উপাচার্য মো. আখতারুজ্জামানকে প্রশ্ন করা হলে তিনি পরিবহন ম্যানেজারের বক্তব্যকে সমর্থন করেন। তবে শিক্ষার্থীদের পরিবহন ফি প্রত্যাহারের ব্যাপারে অবস্থান স্পষ্ট করেননি উপাচার্য।

আরও পড়ুন:
পেছাল চবির ভর্তি পরীক্ষা
পেছাল রাবির ভর্তি পরীক্ষা
মেডিক্যাল ভর্তি পরীক্ষার ফল বাতিল চেয়ে রিট
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে আসনপ্রতি লড়বে ৪০ জন
গুচ্ছ পদ্ধ‌তির পরীক্ষার তা‌রিখ নি‌য়ে সংশয়

শেয়ার করুন