পিসিআর মেশিনসহ গবেষণা সরঞ্জাম পেল জগন্নাথ

পিসিআর মেশিনসহ গবেষণা সরঞ্জাম পেল জগন্নাথ

যুক্তরাষ্ট্রের বোস্টোন থেকে জবিতে পাঠানো ল্যাবসামগ্রী। ছবি: নিউজবাংলা

‘যে গবেষণা সরঞ্জাম আমরা পেয়েছি, এতে করে একটি উচ্চ মানসম্পন্ন ল্যাব তৈরি করতে পারব। যা বায়োটেকনোলজিক্যাল গবেষণার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আমরা যেটা হাতে কলমে শিক্ষার্থীদের শেখাতে পারছিলাম না সেটা সম্ভব হবে৷ এ ছাড়াও আমাদের গবেষণার পরিবেশটা সম্প্রসারণ হবে।’

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে দুটি পিসিআর মেশিনসহ প্রায় তিন কোটি টাকার গবেষণা সরঞ্জাম এসে পৌঁছেছে।

অন্য সরঞ্জামের মধ্যে আছে ল্যামিনার ফ্লো, মাইনাস ২০ ডিগ্রি ফ্রিজসহ প্রায় ৯৪টি উচ্চতর গবেষণা সরঞ্জাম।

যুক্তরাষ্ট্রের সিডিং ল্যাব ইনস্ট্রুমেন্টাল একসেস অ্যাওয়ার্ড-২০২০ পাওয়ায় শিক্ষা ও গবেষণার উন্নয়নের জন্য এসব সরঞ্জাম পাঠানো হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড বায়োটেকনোলজি বিভাগ এই পুরস্কার পেয়েছে।

রোববার এসব যন্ত্রপাতি বিশ্ববিদ্যালয়ে এসে পৌঁছেছে বলে নিশ্চিত করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর মোস্তফা কামাল।

অ্যাওয়ার্ড ঘোষণার প্রায় ১১ মাস পর আজ সকালে যুক্তরাষ্ট্রের বোস্টোন থেকে এসব ল্যাবসামগ্রী ক্যাম্পাসে এসে পৌঁছায়।

গত বছর ২৭ মে সিডিং ল্যাবের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ অ্যাওয়ার্ড ঘোষণা করা হয়। এই প্রোগ্রামের মাধ্যমে নিম্ন ও মধ্যবিত্ত দেশের বিশ্ববিদ্যালয়ের তরুণ বিজ্ঞানীদের শিক্ষা ও গবেষণার জন্য স্বল্প খরচে উন্নতমানের বৈজ্ঞানিক যন্ত্রপাতি দেয়ার ব্যবস্থা করা হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড বায়োটেকনোলজি বিভাগের প্রধান দিলারা ইসলাম শরীফ বলেন, ‘গত বছর বিশ্বের ১০টি দেশের মোট ১৮টি বিশ্ববিদ্যালয় এই অ্যাওয়ার্ড অর্জন করে। বাংলাদেশের প্রথম বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে অ্যাওয়ার্ডটা পেয়েছি।’

তিনি বলেন, ‘যে গবেষণা সরঞ্জাম আমরা পেয়েছি, এতে করে একটি উচ্চ মানসম্পন্ন ল্যাব তৈরি করতে পারব। যা বায়োটেকনোলজিক্যাল গবেষণার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।’

গবেষণা ও শিক্ষার্থীদের জন্য এই সামগ্রীগুলো কতটা মাত্রা যোগ করবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমরা যেটা হাতে কলমে শিক্ষার্থীদের শেখাতে পারছিলাম না সেটা সম্ভব হবে৷ এ ছাড়াও আমাদের গবেষণার পরিবেশটা সম্প্রসারণ হবে। ইউজিসি ও দেশের বাইরের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান থেকে গবেষণার বিভিন্ন খাত থাকে, আমরা সেই গবেষণাগুলো নিয়মিতভাবে করতে পারব।’

পিসিআর মেশিনে করোনা টেস্ট করা যাবে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘করোনা টেস্ট এর জন্য যে ধরনের ইকুয়েপমেন্ট দরকার তার কিছু বাকি আছে। তবে করোনা টেস্ট এর জন্য যে ধরণের জীবানুমুক্তকরণ পরিবেশের ল্যাব পরিবেশ দরকার তা আমাদের নেই। সেই পরিবেশ সৃষ্টি করা গেলে আমরা করতে পারব।

‘দেশে বর্তমানে পর্যাপ্ত করোনা পরীক্ষা কেন্দ্র আছে। আমাদের ইচ্ছা করোনার ভ্যারিয়েন্ট নিয়ে গবেষণা করা, পাশাপাশি সেগুলো প্রতিরোধে কিভাবে ভ্যাকসিন তৈরি করা যাবে সেটা নিয়ে কাজ করা।’

আমেরিকার সিডিং ল্যাব নামের একটি বেসরকারি সংগঠন এই অ্যাওয়ার্ড দিয়ে থাকে। যার উদ্দেশ্য নিম্ন মধ্যবিত্ত দেশের তরুণ বিজ্ঞানীদের নতুন কিছু আবিষ্কার ও গবেষণায় উৎসাহিত করা।

এই অ্যাওয়ার্ডের মাধ্যমে গবেষণার যন্ত্রপাতি বিশ্বের ১০টি দেশের ১৮টি বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৮টি বিভাগে সরবরাহ করবে। এ ছাড়া যারা মনোনীত হয় তাদেরকে বিশ্বব্যাপী সিডিং ল্যাবের অন্য বিজ্ঞানীদের সংস্পর্শে আসার সুযোগ থাকবে।

আরও পড়ুন:
শাল্লায় হামলার প্রতিবাদে জবি শিক্ষক সমিতির মানববন্ধন
জবির শিক্ষক থেকেই উপাচার্য নিয়োগের দাবি
জবি উপাচার্যের দায়িত্বে কামালউদ্দীন আহমদ
দেশের জন্য কাজ করে যাবে জগন্নাথ বিএনসিসি: উপাচার্য
জবির শহীদমিনার পরিষ্কারে বিএনসিসি

শেয়ার করুন

মন্তব্য