20201002104319.jpg
20201003015625.jpg
অ্যাসাইনমেন্ট নিয়ে অন্ধকারে শিক্ষকরা

শিক্ষামন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলনে বার্ষিক পরীক্ষা বাতিল ও অ্যাসাইনমেন্টের মাধ্যমে মূল্যায়নের সিদ্ধান্ত আসে। ছবি: নিউজবাংলা

অ্যাসাইনমেন্ট নিয়ে অন্ধকারে শিক্ষকরা

করোনাকালে অনলাইনে বা সংসদ টেলিভিশনের মাধ্যমে ক্লাস নেয়া হলেও নিম্ন আয়ের পরিবারের শিক্ষার্থীরা সে সুবিধার বাইরে ছিল। ফলে তারা অনলাইন অ্যাসাইনমেন্টের আওতায় পড়বে কি না, এই বিষয়টি নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন শিক্ষকরা।

করোনা মহামারির কারণে বার্ষিক পরীক্ষা না নিয়ে শিক্ষামন্ত্রী যে অ্যাসাইনমেন্টের কথা বলেছেন, সে বিষয়ে কোনো ধারণা নেই শিক্ষকদের মধ্যে।

করোনাকালে অনলাইনে বা সংসদ টেলিভিশনের মাধ্যমে ক্লাস নেয়া হলেও নিম্ন আয়ের পরিবারের শিক্ষার্থীরা সে সুবিধার বাইরে ছিল। ফলে তারা অনলাইন অ্যাসাইনমেন্টের আওতায় পড়বে কি না, এই বিষয়টি নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন শিক্ষকরা।

আবার মন্ত্রী ৩০ কার্যদিবসের মধ্যে শেষ করা যাবে, এমন পাঠ্যক্রম তৈরির কথা বললেও চলতি শিক্ষাবর্ষে পর্যাপ্ত সময় আছে কি না, তা নিয়েও আছে প্রশ্ন।

শিক্ষা উপমন্ত্রী বলেছেন, এই পাঠ্যক্রম তৈরির কাজ শুরু হয়েছে। তবে কবে শেষ হবে, সেটা জানাতে পারেননি তিনি।

করোনা পরিস্থিতির কারণে চলতি বছর এইচএসসি পরীক্ষা বাতিলের সময়ই বার্ষিক পরীক্ষা না নেয়ার বিষয়ে গুঞ্জন উঠে। বুধবার শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি সংবাদ সম্মেলনে এসে জানান, পরিস্থিতির বিবেচনায় পরীক্ষা না নেয়াকেই তারা সঙ্গত মনে করছেন।

এইচএসসির মতো অটো পাস হলেও একটি মূল্যায়নের কথাও বলেন মন্ত্রী। জানান, সবাইকে অ্যাসাইনমেন্ট দেয়া হবে। অনলাইন বা স্কুল থেকে অ্যাসাইনমেন্ট নিয়ে এসে আবার স্কুলে জমা দেবে শিক্ষার্থীরা।

তবে এখানে কোনো নম্বর থাকবে না। আর কে ভালো করল, কে খারাপ করল, সে বিষয়টি বিবেচনায় আনা হবে না পরের বছরের ভর্তিতে।

মূল্যায়নের কারণ একটিই, সেটি হলো শিক্ষার্থীদের দুর্বলতা কোথায়, সেটির বিষয়ে ধারণা নেয়া। আগামী শিক্ষাবর্ষে তাদেরকে কী পড়ানো হবে, তাদের ঘাটতি দূর করতে কী কৌশল নেয়া হবে, সেটি এই অ্যাসাইনমেন্টের মূল্যায়নের ওপরই নির্ভর করবে।

তবে যে শিক্ষকরা এই মূল্যায়ন করবে, তাদের মধ্যে স্পষ্ট ধারণা নেই তারা কীভাবে কাজটি করবেন। শিক্ষামন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলনের আগে তাদেরকে এ বিষয়ে কোনো নির্দেশনা দেয়া হয়নি। এখনও কিছু বলা হয়নি।

ফরিদপুর জেলার একটি স্কুলের প্রধান শিক্ষক প্রভাষ কুমার নিউজবাংলাকে বলেন, ‘শিক্ষামন্ত্রী সংবাদ সম্মেলন দেখেছিল। কিন্তু আমরা লিখিত কোনো কিছুই পাইনি। তবে যেহেতু মন্ত্রী এমন সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছেন সেহেতু সেই নির্দেশনা অনুযায়ী অ্যাসাইমেন্ট নেওয়া হবে।’

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আমরা আমাদের স্কুলে নিয়মিত অনলাইন ক্লাস চালিয়ে যাচ্ছি। তবে আমাদের পরীক্ষাকেন্দ্রীক কোনো চিন্তা ভাবনা ছিল না। এতদিন আমাদের কাছে এমন কোন নির্দেশনাও আসেনি। যদি এমন মূল্যায়ন পদ্ধতির কথা বলা হয় তবে আমরা সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেব।

ঝিনাইদহ উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক বরিউল ইসলাম বলেন, ‘অ্যাসাইনমেন্ট নেয়ার বিষয়ে কোনো নির্দেশনা পায়নি স্কুল কর্তৃপক্ষ। কীভাবে বাস্তবায়ন করা হবে এ বিষয়েও কিছু জানি না।’

‘সংসদ টিভির মাধ্যমে ক্লাস নেয়া হচ্ছে। তবে অনেক শিক্ষার্থীর বাসায় টেলিভিশন না থাকায় তারা সে ক্লাসে অংশ নিতে পারছে না। যদি অনলাইনে অ্যাসাইনমেন্ট নেওয়া হয় আসলে তারা অংশ নিতে পারবে কি না সেটাও দেখার বিষয়।

‘তবে মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা থাকলে অবশ্যই আমার পালন করব।’

শিক্ষামন্ত্রী বলেছেন, আগামী নভেম্বর ও ডিসেম্বর মাসের মধ্যে অনলাইনে এই সংক্ষিপ্ত সিলেবাসের ক্লাস নেয়া হবে। তখনই দেয়া হবে অ্যাসাইনমেন্ট, করা হবে মূল্যায়ন। এই সময়ের মধ্যে কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কোনো রকমের পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে শিক্ষার্থীদের বাধ্য করতে পারবে না।

শিক্ষা উপমন্ত্রী মুহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমরা মূল্যায়ন পদ্ধতি গতানুগতিক ধারার পরিবর্তন করতে চাচ্ছি। মূল্যায়ন পদ্ধতির সংস্কার করার লক্ষ্যে আলাদা একটি সংস্থা গঠন করার পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।’

বাংলাদেশ শিক্ষক ইউনিয়নের সভাপতি আবুল বাশার হাওলাদার বলেন, ‘অ্যাসাইনমেন্ট পদ্ধতি শিক্ষার্থীদের ঝরে পড়া কমাবে, প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে শিক্ষার্থীদের যোগাযোগ বাড়াবে। তবে অনলাইনের মাধ্যেমে এই অ্যাসাইনমেন্টে সবাই অংশ নিতে পারবে কি না এটা দেখার বিষয়।’

‘এছাড়া ৩০ কার্যদিবসের মাধ্যমে করা সম্ভব হবে কি না এটাও প্রশ্ন থেকে যায়। জানুয়ারিতে যদি ক্লাস শুরু করা যায়, তাহলে অ্যাসাইনমেন্ট নিলে লাভ হতে পারে। কিন্তু যদি আরও দেরি হয়, তাহলে এটা করে লাভ হবে না।’-বলেন এই শিক্ষক নেতা।

স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক শাহজাহান আলম সাজু বলেন, ‘শিক্ষার্থীরা সাত মাসের বেশি সময় ধরে ক্লাসের বাইরে। গ্রাম এলাকার শিক্ষার্থী সংসদ টিভিতে ক্লাস হলেও নিয়মিত যোগদান করেনি। এখন যে অ্যাসাইনমেন্টে এর যথাযথ বাস্তবায়ন কীভাবে করা যায় এ বিষয়ে এখনি ভাবা উচিত।’

শেয়ার করুন

মন্তব্য