× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

অর্থ-বাণিজ্য
Application Opportunity for Student Empowerment Program in Easy Group
google_news print-icon

ইজি গ্রুপে স্টুডেন্ট এমপাওয়ারমেন্ট প্রোগ্রামে আবেদনের সুযোগ

ইজি-গ্রুপে-স্টুডেন্ট-এমপাওয়ারমেন্ট-প্রোগ্রামে-আবেদনের-সুযোগ
ইজি গ্রুপের স্টুডেন্ট এমপাওয়ারমেন্ট প্রোগ্রামের পোস্টার। ছবি: ইজি গ্রুপ
ইজি গ্রুপের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, স্টুডেন্ট এমপাওয়ারমেন্ট প্রোগ্রামের মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা তাদের কর্মঅভিজ্ঞতা অর্জনের পাশাপাশি পড়ালেখার ভারসাম্য বজায় রাখতে হবে। এ কর্মসূচির মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা তাদের প্রাতিষ্ঠানিক জ্ঞান প্রয়োগ করে কর্মক্ষেত্রে নিজেদের দক্ষতা এবং নিয়োগযোগ্যতা বাড়াতে পারবেন।

বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের জন্য ইজি গ্রুপ (Ezzy Group) আয়োজন করেছ স্টুডেন্ট এমপাওয়ারমেন্ট প্রোগ্রাম (Student Empowerment Program)।

এ কর্মসূচির মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা পড়ালেখার পাশাপাশি বাস্তব জীবনের কর্ম অভিজ্ঞতা লাভের সুযোগ পাবেন।

এ সময়ের কর্মক্ষেত্র, শিল্প ও বাণিজ্যের সঙ্গে ভারসাম্য রক্ষা করে কর্মসূচিটি তৈরি করা হয়েছে।

ইজি গ্রুপের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, স্টুডেন্ট এমপাওয়ারমেন্ট প্রোগ্রামের মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা তাদের কর্মঅভিজ্ঞতা অর্জনের পাশাপাশি পড়ালেখার ভারসাম্য বজায় রাখতে হবে। এ কর্মসূচির মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা তাদের প্রাতিষ্ঠানিক জ্ঞান প্রয়োগ করে কর্মক্ষেত্রে নিজেদের দক্ষতা এবং নিয়োগযোগ্যতা বাড়াতে পারবেন।

ক্যারিয়ার শুরুর এ সুযোগে অংশ নিতে [email protected] মেইলে করা যাবে আবেদন।

আরও পড়ুন:
ইন্টারন্যাশনাল আইকনিক এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ডে মনোনীত আলেয়া সারওয়ার ডেইজি
বিচারের আগে মিডিয়া ট্রায়াল অমানবিক: আইজিপি
আইনবিরোধী কাজে ব্যবস্থা নিতে দ্বিধাগ্রস্ত হলে পুলিশের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ: আইজিপি
ডিআইজি মিজানের ১৪ বছরের সাজা বহাল থাকছে
পুলিশ হেফাজতে মৃত্যুর ঘটনায় কাউকে ছাড় নয়: আইজিপি

মন্তব্য

আরও পড়ুন

অর্থ-বাণিজ্য
The deposits of Bangladeshis are decreasing at an unusual rate in Swiss banks

সুইস ব্যাংকগুলোতে অস্বাভাবিক হারে বাংলাদেশিদের আমানত কমছে

সুইস ব্যাংকগুলোতে অস্বাভাবিক হারে বাংলাদেশিদের আমানত কমছে
এসএনবির বার্ষিক প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০২৩ সালের ডিসেম্বরে সুইজারল্যান্ডে বাংলাদেশিদের আমানত কমে দাঁড়িয়েছে ১ কোটি ৭৭ লাখ সুইস ফ্রাঁ বা ২৩৪ কোটি টাকা (প্রতি ফ্রাঁ ১৩২ টাকা হিসেবে)। অথচ, ওই বছরের শুরুতে এই অর্থের পরিমাণ ছিল ৫ কোটি ৫২ লাখ ফ্রাঁ।

সুইজারল্যান্ডের বিভিন্ন ব্যাংক থেকে অস্বাভাবিক হারে কমছে বাংলাদেশি গ্রাহকদের আমানত। গত এক বছরের ব্যবধানে দেশটির বিভিন্ন ব্যাংক থেকে বাংলাদেশিদের আমানত কমেছে প্রায় ৩ কোটি ৭০ লাখ সুইস ফ্রাঁ, যা বাংলাদেশিদের মোট আমানতের প্রায় ৬৫ শতাংশ।

বৃহস্পতিবার সুইজারল্যান্ডের কেন্দ্রীয় ব্যাংক সুইস ন্যাশনাল ব্যাংকের (এসএনবি) সর্বশেষ প্রকাশিত বার্ষিক প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

শুধু ২০২২ সালেই সুইস ব্যাংকগুলো থেকে সাড়ে ১০ হাজার কোটি টাকা তুলে নেন বাংলাদেশিরা। ২০২৩ সালেও এই প্রবণতা অব্যাহত ছিল।

এসএনবির বার্ষিক প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০২৩ সালের ডিসেম্বরে সুইজারল্যান্ডে বাংলাদেশিদের আমানত কমে দাঁড়িয়েছে ১ কোটি ৭৭ লাখ সুইস ফ্রাঁ বা ২৩৪ কোটি টাকা (প্রতি ফ্রাঁ ১৩২ টাকা হিসেবে)। অথচ, ওই বছরের শুরুতে এই অর্থের পরিমাণ ছিল ৫ কোটি ৫২ লাখ ফ্রাঁ।

এ হিসেবে ২০২৩ সালে দেশটির ব্যাংকগুলোতে বাংলাদেশিদের অ্যাকাউন্ট থেকে প্রায় ৬৫ শতাংশ অর্থ সরিয়ে নেয়া হয়েছে।

তবে, এর এক বছর আগে এই আমানত হ্রাসের হার ছিল আরও বেশি। ২০২১ সালে সেখানে বাংলাদেশিদের জমা করা অর্থের পরিমাণ ছিল ৮৭ কোটি ১১ লাখ ফ্রাঁ। ২০২২ সালের শেষে তা কমে দাঁড়ায় মাত্র সাড়ে ৫ কোটি ফ্রাঁতে। এরপর ২০২৩ সালের শেষ নাগাদ তা পৌনে ২ কোটি ফ্রাঁতে পৌঁছেছে।

অর্থাৎ, গত দুই বছরে সুইজারল্যান্ডের ব্যাংকগুলো থেকে বাংলাদেশিদের আমানত কমেছে ১১ হাজার কোটি টাকার মতো।

উল্লেখ্য, গোপন অর্থ গচ্ছিত রাখার জন্য বিশ্বজুড়ে খাতি রয়েছে সুইজারল্যান্ডের ব্যাংকগুলোর। দেশটির ব্যাংকিং নীতির কল্যাণে কঠোরভাবে গ্রাহকদের নাম-পরিচয় গোপন রাখতে পারে ব্যাংকগুলো। যে কারণে প্রচলিত বিশ্বাস, অবৈধ আয় আর কর ফাঁকি দিয়ে জমানো টাকার একটি বড় অংশ ঢোকে ইউরোপের এই দেশটির ব্যাংকিং খাতে।

তবে, এক দশক ধরে নির্দিষ্ট গ্রাহকের তথ্য না দিলেও মোটা দাগে বার্ষিক প্রতিবেদন প্রকাশ করা শুরু করেছে এসএনবি। আর তাতেই উঠে আসছে এমন সব চমকপ্রদ তথ্য।

প্রায় এক দশক ধরে ধারাবাহিকভাবে বাংলাদেশিদের আমানত বৃদ্ধি পেলেও হঠাৎ করে কেন এই বিপরীতমুখী ধারা শুরু হয়েছে, তা ওই প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়নি।

বিশ্লেষকদের ধারণা, সুইজারল্যান্ডে গোপনীয়তা কমতে থাকায় বাংলাদেশিসহ অনেক দেশের ধনীরাই এখন অবৈধ টাকা জমা রাখতে লুক্সেমবার্গ, কেম্যান আইল্যান্ড, বৃটিশ ভার্জিন আইল্যান্ড ও বারমুডার মতো দেশগুলোর দিকে ঝুঁকছেন।

বেসরকারি গবেষণা সংস্থা পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর এ বিষয়ে গণমাধ্যমকে বলেছেন, দেশ থেকে এখনও প্রতি বছর অর্থ পাচার বাড়ছে। তবে পাচারের এই অর্থ আগে সুইস ব্যাংকে গোপনে রাখার সুযোগ পেলেও এখন আর সেই সুযোগ পাচ্ছে না পাচারকারীরা। তাই গোপনীয়তা রক্ষা হয়, এমন কোনো জায়গায়, যেমন: কানাডা, দুবাই বা অন্য কোনো দেশে সেসব অর্থ সরিয়ে নিতে পারেন তারা।

অবশ্য সেখানে শুধু বাংলাদেশিদের অর্থই কমছে না; ভারত, পাকিস্তান, সিঙ্গাপুর, চীন, রাশিয়া, সৌদি আরব, যুক্তরাষ্ট্রের মতো দেশের নাগরিকদের জমাকৃত অর্থের পরিমাণও উল্লেখযোগ্য হারে কমছে। ভারতের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও নাগরিকের সুইস ব্যাংকে রাখা আমানতের হার ২০২৩ সালে প্রায় ৭০ শতাংশ কমেছে।

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Reserves increased by 318 million dollars in one week

এক সপ্তাহে রিজার্ভ বেড়েছে ৩১ কোটি ৮০ লাখ ডলার

এক সপ্তাহে রিজার্ভ বেড়েছে ৩১ কোটি ৮০ লাখ ডলার রেমিট্যান্স প্রবাহের প্রতীকী চিত্র। গ্রাফিক্স: নিউজবাংলা
বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ হালনাগাদ তথ্য অনুযায়ী, গত ১২ জুন দেশে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ছিল ১৯.২১ বিলিয়ন ডলার। ১৯ জুন রিজার্ভ বেড়ে দাঁড়ায় ১৯ দশমিক ৫৩ বিলিয়ন ডলারে।

এক সপ্তাহের ব্যবধানে বাংলাদেশের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ৩১৮ মিলিয়ন বা ৩১ কোটি ৮০ লাখ ডলার বেড়ে ১৯.৫৩ বিলিয়ন ডলারে দাঁড়িয়েছে।

চলতি মাসের প্রথম দুই সপ্তাহে প্রায় ১ দশমিক ৬৫ বিলিয়ন ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন প্রবাসী বাংলাদেশিরা। ঈদ উপলক্ষে প্রবাসীরা বাড়তি রেমিট্যান্স পাঠানোয় মাত্র দুই সপ্তাহের ব্যবধানে বিপুল পরিমাণ রেমিট্যান্স আসে। খবর ইউএনবি

বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ হালনাগাদ তথ্য অনুযায়ী, গত ১২ জুন দেশে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ছিল ১৯.২১ বিলিয়ন ডলার। ১৯ জুন রিজার্ভ বেড়ে দাঁড়ায় ১৯ দশমিক ৫৩ বিলিয়ন ডলারে।

আগামী সপ্তাহগুলোতে বৈদেশিক মুদ্রার প্রবাহ বাড়তে থাকবে। কারণ জুন শেষ হওয়ার আগে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ) এবং বিশ্বব্যাংকের কাছ থেকে ১ দশমিক ৬৫ বিলিয়ন ডলার পাবে বাংলাদেশ।

জুনের শেষ সপ্তাহে আইএমএফ ৪ দশমিক ৭ বিলিয়ন ডলার ঋণের তৃতীয় কিস্তিতে ১ দশমিক ১৫ বিলিয়ন ডলার দিতে পারে এবং বিশ্বব্যাংক বাজেট সহায়তা হিসেবে ৫০০ মিলিয়ন ডলার দিতে যাচ্ছে। এতে রিজার্ভ ২১ বিলিয়ন ডলারের ওপরে উঠতে পারে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংক রেট-সেটিং মেকানিজমের ওপর নিয়ন্ত্রণ ছেড়ে দেয়া এবং তুলনামূলক নমনীয় বিনিময় হার ব্যবস্থা চালু করার এক মাস পর বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ পরিস্থিতিতে সবশেষ উন্নতি দেখা গেছে।

আরও পড়ুন:
মে মাসে রেমিট্যান্স এসেছে ২২৫ কোটি ডলার

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
A lot can still be revised in the budget Finance Minister

বাজেটে এখনও অনেক কিছু সংশোধন হতে পারে: অর্থমন্ত্রী

বাজেটে এখনও অনেক কিছু সংশোধন হতে পারে: অর্থমন্ত্রী বৃহস্পতিবার ফার্মগেটে বিএআরসি মিলনায়তনে আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী। ছবি: সংগৃহীত
আবুল হাসান মাহমুদ আলী বলেন, ‘জাতীয় সংসদে ২০২৪-২৫ অর্থবছরের বাজেট পেশের পর বিভিন্ন মহল থেকে প্রতিক্রিয়া আসছে। আমরা সব মতামত বিবেচনায় নিচ্ছি। যেগুলো বাস্তবসম্মত ও সমাধানযোগ্য সেগুলো পুনর্বিবেচনার সুযোগ রয়েছে। কারণ বাজেট এখনও পাস হয়নি।’

জাতীয় সংসদে প্রস্তাব পাসের আগে সরকার বাজেট নিয়ে সব ধরনের বাস্তবসম্মত সমালোচনা ও পরামর্শ বিবেচনা করছে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর ফার্মগেটে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিল (বিএআরসি) মিলনায়তনে ‘বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশের অর্থনীতি: প্রবৃদ্ধি, মূল্যস্ফীতি, খাদ্য ও পুষ্টি’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘জাতীয় সংসদে ২০২৪-২৫ অর্থবছরের বাজেট পেশের পর বিভিন্ন মহল থেকে প্রতিক্রিয়া আসছে। আমরা সব মতামত বিবেচনায় নিচ্ছি। বাজেটে যেগুলো বাস্তবসম্মত ও সমাধানযোগ্য সেগুলো পুনর্বিবেচনার সুযোগ রয়েছে। কারণ বাজেট এখনও পাস হয়নি। এটা নিয়ে সংসদের ভেতরে-বাইরে আলোচনা করা যেতে পারে।’

আলোচনায় বিশ্বব্যাংক প্রসঙ্গে আবুল হাসান মাহমুদ আলী বলেন, ’’বিশ্বব্যাংক বলেছে বাংলাদেশ ভালো আছে। তারা যা বলছে আমাদের তা শুনতে হবে। কারণ তারা আমাদের টাকা দেয়। আমাদের টাকা প্রয়োজন। আপনি কি টাকা দেন? আপনি টাকা দেন, তাহলে আপনার কথাও শুনব।’

বর্তমান সরকার জনগণের সরকার উল্লেখ করে তিনি বলেন, শেখ হাসিনার সরকার মানুষের কল্যাণে কাজ করতে ভালাবাসে।’

বিরোধী দলের সমালোচনার জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘তারা বলেন যে সরকারের পতন হবে। কই সরকার তো পড়ে না। দেশ দেউলিয়াও তো হলো না। বিশ্বব্যাংক কিছু বোঝে না, আপনি সবকিছু বোঝেন?’

বাজেট নিয়ে অযথা সমালোচনা না করার অনুরোধ জানান মাহমুদ আলী। বলেন, ’বাজেট দিলাম, এটা ভালোভাবে দেখেন। না বুঝে মন্তব্য করবেন না।’

অনুষ্ঠানে সাবেক পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ও অর্থনীতিবিদ ড. শামসুল আলম বলেন, ‘টাকা পাচার থেকেই মূলত ডলার সংকট তৈরি হয়েছে। প্রতিবছর ৭ থেকে ৮ বিলিয়ন ডলার দেশ থেকে পাচার হচ্ছে। এ কারণে ডলার সংকটও বাড়ছে। এটা রোধ করতে সম্মিলিত উদ্যোগ প্রয়োজন।

‘তবে পাইপলাইনে যেসব ঋণ রয়েছে তা পাওয়া গেলে ডলার সংকট কিছুটা কমে আসবে।’

ব্যাংক খাত নিয়েও কথা বলেন শামসুল আলম। তিনি বলেন, ‘২২ শতাংশ ঝুঁকিপূর্ণ ঋণ হওয়ায় ব্যাংকের খরচ বেড়ে যাচ্ছে। এর রাশ টানতে হবে। ব্যাংক কমিশন করলে ভালো, না হলে অন্তত শক্তিশালী একটা কমিটি করা উচিত বিশেষজ্ঞ অর্থনীতিবিদদের নিয়ে।’

তিনি কর ন্যায়পাল নিয়োগের পাশাপাশি এনবিআর ও আইআরডির কাজ আলাদা করার তাগিদ দেন।

সাবেক প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘উন্নয়ন প্রকল্প সময়মতো বাস্তবায়নের বিকল্প নেই। এছাড়া মূল্যস্ফীতি কমাতে আমদানি নীতি সহজ করতে হবে।’

আরও পড়ুন:
সামগ্রিক অর্থনীতিতে ভঙ্গুরতা চলছে: ওয়াহিদউদ্দিন মাহমুদ
৩৮ হাজার কোটি টাকার সম্পূরক বাজেট পাস
প্রস্তাবিত বাজেট কর-ঋণনির্ভর ও লুটেরা-বান্ধব: বিএনপি
মূল্যস্ফীতি কমিয়ে বাজেটের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন বড় চ্যালেঞ্জ: এফবিসিসিআই
ব্যবসায়ীদের মূল প্রস্তাবগুলোর প্রতিফলন বাজেটে নেই: বিজিএমইএ

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Seasonal leather traders suffer losses in Naogaon

নওগাঁয় লোকসানে মৌসুমী চামড়া ব্যবসায়ীরা

নওগাঁয় লোকসানে মৌসুমী চামড়া ব্যবসায়ীরা বদলগাছী উপজেলার চাকরাইল চামড়া আড়ৎ বুধবার চামড়া বেচাকেনার দৃশ্য। ছবি: নিউজবাংলা
মৌসুমী ব্যবসায়ীদের অভিযোগ, এ বছর লবণের দাম বেশি এবং শ্রমিকের মজুরি বেশি হওয়ায় চামড়া লবণজাত করতে তাদের খরচ বেশি পড়েছে। আর বাইরের ব্যবসায়ীরা না আসায় তাদের লোকসান করে চামড়া বিক্রি করতে হয়েছে। চামড়া সংরক্ষণের ব্যবস্থা না থাকায় ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেটের কারণে কম দামে বিক্রি করতে বাধ্য হয়েছেন বলে দাবি তাদের।

ঈদ-পরবর্তী সময়ে উত্তরের জেলা নওগাঁর বদলগাছী উপজেলার চাকরাইল চামড়া আড়তে শুরু হয়েছে চামড়া বেচাকেনা। ছাগল-ভেড়ার চামড়া প্রকারভেদে ২০ থেকে ৬০ টাকা এবং গরু-মহিষের চামড়া প্রতি পিস ৩০০ থেকে ৭০০ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে। তবে মৌসুমী ব্যবসায়ীদের অভিযোগ, এ বছর লবণ ও শ্রমিকের মজুরি বেশি এবং চামড়া ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে দাম কম রাখায় তাদের লোকসান করে বিক্রি করতে হয়েছে।

জেলা প্রাণিসম্পদ অফিসের তথ্যানুসারে, জেলায় এ বছর ৩ লাখ ৭৮ হাজার ৭৫৯টির মতো পশু কোরবানি হয়েছে।

বদলগাছী উপজেলার চাকরাইল চামড়া আড়ৎ, যেখানে সপ্তাহের প্রতি বুধবার হাট বসে। সারা বছর এ হাটে কমবেশি চামড়া বেচাকেনা হয়ে থাকে। তবে কোরবানির ঈদ-পরবর্তী সময়ে প্রচুর চামড়া বেচাকেনা হয়ে থাকে। ভোরের আলো ফোটার পর থেকে দুপুর পর্যন্ত চলে এ আড়ৎ।

জেলায় দুটি চামড়া আড়ৎ রয়েছে, যার মধ্যে চাকরাইল একটি। যেখানে জেলার বিভিন্ন উপজেলা, পার্শ্ববর্তী জয়পুরহাট জেলা ও বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলা এবং ঢাকা থেকে ব্যবসায়ীরা চামড়া কেনাবেচার জন্য আসেন।

তবে ঈদের পর বুধবার চামড়ার আড়তে বেচাকেনা জমে ওঠেনি। ঢাকা বা জেলার বাইরের ব্যবসায়ীরা না আসায় কাঙ্ক্ষিত দাম পাননি মৌসুমী ব্যবসায়ীরা। আড়তে গরুর চামড়ার সরবরাহ কম হলেও ছাগলের চামড়ার সরবরাহ হয়েছে বেশি। ব্যবসায়ীরা না আসায় তাদের লোকসান করে বিক্রি করতে হয়েছে।

মৌসুমী ব্যবসায়ীদের অভিযোগ, এ বছর লবণের দাম বেশি এবং শ্রমিকের মজুরি বেশি হওয়ায় চামড়া লবণজাত করতে তাদের খরচ বেশি পড়েছে। আর বাইরের ব্যবসায়ীরা না আসায় তাদের লোকসান করে চামড়া বিক্রি করতে হয়েছে। চামড়া সংরক্ষণের ব্যবস্থা না থাকায় ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেটের কারণে কম দামে বিক্রি করতে বাধ্য হয়েছেন বলে দাবি তাদের।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, এবছর এ আড়তে ছাগল-ভেড়ার চামড়া প্রকারভেদে প্রতি পিস ২০ থেকে ৬০ টাকা এবং গরু-মহিষের চামড়া প্রতিপিস ৩০০ থেকে ৭০০ টাকা দামে বিক্রি হয়েছে। সরকার নির্ধারিত দামে চামড়া বিক্রি হচ্ছে না।

গত বছরের তুলনায় বস্তায় লবণের দাম বেড়েছে ১০০ থেকে ১৫০ টাকা। এতে চামড়া প্রক্রিয়াজাতে খরচ বেড়েছে। এমতাবস্থায় চামড়া শিল্পকে রক্ষায় সরকারের হস্তক্ষেপ চান তারা।

সাপাহার উপজেলা থেকে চামড়া বিক্রি করতে আসা গোলাম হোসেন বলেন, ‘মাদরাসায় এবছর ২২টি ছাগলের চামড়া পাওয়া গেছে। চামড়ায় লবণজাত করতে খরচ পড়েছে ৪৪০ টাকা। আড়তে বিক্রি করেছি ৩৪০ টাকায়। এরমধ্যে ২০ টাকা খাজনা দিয়েছি। এখন ভ্যান ভাড়া দিতে হবে ৩০০ টাকা।

‘ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে চামড়ার দাম কমিয়ে দিয়েছে। আর এভাবে চলতে থাকলে চামড়া সংগ্রহ করা মানুষের আগ্রহ হারিয়ে যাবে।’

মৌসুমী চামড়া ব্যবসায়ী দিলীপ কুমার বলেন, ‘১৫০ পিস ছাগলের চামড়া কিনেছিলাম, যেখানে লবণজাত করতে খরচ হয়েছে আড়াই হাজার টাকা। আড়তে বিক্রি করেছি ২২ শ টাকা। আর খাজনা দিয়েছি ১৮০ টাকা। লাভ করতে এসে লোকসান করে চামড়া বিক্রি করতে হয়েছে। চামড়া সংরক্ষণ করার উপায় না থাকায় বাধ্য হয়ে কম দামে বিক্রি করতে হয়েছে।’

মহাদেবপুর উপজেলার চামড়া ব্যবসায়ী সাহাদত হোসেন বলেন, ‘গত বছর প্রায় ১৩ লাখ টাকার চামড়া কিনেছিলাম, যা থেকে প্রায় দুই লাখ টাকার মতো লাভ হয়। এবছর প্রায় ৭ লাখ টাকার গরু ও ছাগলের চামড়া কিনেছি। এবার খরচ অনেক বেশি, তারপরও লাভ থাকবে ইনশাল্লাহ।’

চাকরাইল চামড়া আড়তের আহ্বায়ক ও জেলা চামড়া ব্যবসায়ী সমিতির সহ-সভাপতি আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘ঈদ-পরবর্তী আড়ত হওয়ায় অনেকেই ব্যস্ত রয়েছে। মৌসুমী ব্যবসায়ীদের বাড়িতে চামড়া লবণ দিয়ে মজুত করে রাখায় আড়তে চামড়া সরবরাহ কম হয়েছে। ঈদের পর আড়তে ১৪ লক্ষাধিক টাকার চামড়া বেচাকেনা হয়েছে। তবে আগামী বুধবার আড়তে চামড়া বেচাকেনা জমজমাট হবে বলে আশা করা হচ্ছে।’

নওগাঁ জেলা চামড়া ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলী বলেন, ‘জেলায় ছোট বড় মিলিয়ে প্রায় ১৫০ জন চামড়া ব্যবসায়ী আছে। কোরবানির ঈদ উপলক্ষে আমরা নিজেরা ইতোমধ্যে ৫০ হাজার পিস চামড়া সংগ্রহ করেছি। মৌসুমী ব্যবসায়ীরা লবণ দিয়ে চাড়মা সংগ্রহ করে রেখেছেন। কয়েকদিনের মধ্যে আমাদের কাছে ওইসব চামড়া চলে আসবে। লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে গরু ও মহিষের চামড়া ৬০ থেকে ৬৫ হাজার পিস এবং ছাগল ও ভেড়ার চামড়া ১ লাখ পিস কেনা হবে, যার বাজার মূল্য প্রায় ৬ কোটি টাকা। এসব চামড়া ট্যানারিতে হস্তান্তর করা হবে।’

তিনি বলেন, ‘চামড়ার দাম ঠিক আছে। তবে যেসব চামড়া ছেঁড়া ও কাটা রয়েছে সেগুলোর দাম কম। ছাগলের চামড়া বেশি কাটাছেঁড়া হয়। তবে ভালো চামড়ার দাম ভালো আছে।’

তবে চামড়ার দাম অতিরিক্ত কম হওয়ার কারণে অনীহা রয়েছে বলে তিনিও স্বীকার করেন।

আরও পড়ুন:
ঈদ-পরবর্তী সাতদিন বাইরের চামড়া ঢাকায় ঢুকতে পারবে না
কোরবানির পশুর চামড়া বেচাকেনায় সেই নৈরাজ্য
বকেয়ার আশায় দিন গুনছেন বগুড়ার চামড়া ব্যবসায়ীরা
গরুর চামড়ায় বাড়ল ৩ টাকা
‘লেদারটেক বাংলাদেশ’ প্রদর্শনী শুরু

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
This time with the price of sacrificial skin disappointment

কোরবানির চামড়ার দাম নিয়ে এবারও হতাশা!

কোরবানির চামড়ার দাম নিয়ে এবারও হতাশা! আড়তে কাঁচা চামড়ায় লবণ দেয়ার তৎপরতা চলছে। ফাইল ছবি
নির্ধারিত দাম অনুযায়ী ঢাকায় মাঝারি আকারের ২৫ বর্গফুটের চামড়ার দাম হওয়ার কথা এক হাজার ৩৭৫ থেকে দেড় হাজার টাকা। লবণ, মজুরিসহ অন্যান্য খরচ বাদ দিলেও চামড়ার দাম দাঁড়ায় ১১শ’ থেকে ১২শ’ টাকা। অথচ পোস্তার আড়তগুলোয় গরুর চামড়া বিক্রি হয়েছে ৮০০ থেকে ৯০০ টাকায়। সায়েন্সল্যাব মোড় কিংবা হাজারীবাগে দাম আরও কম, ৭০০ থেকে ৮০০ টাকা।

বছরের সবচেয়ে বেশি চামড়া সংগ্রহের মৌসুমে এবারও কাঙ্ক্ষিত দাম পাননি বিক্রেতারা। সরকার নির্ধারিত দামের চেয়ে ঢের কম দামেই চামড়া বিক্রি করতে হয়েছে মাদ্রাসা, মৌসুমি ব্যবসায়ী ও অন্যান্য খাতের চামড়ার মালিকদের।

কোরবানির ঈদের তৃতীয় দিন বুধবারও কিছু চামড়া বেচা-বিক্রি চোখে পড়েছে পুরান ঢাকার পোস্তাসহ কয়েকটি জায়গায়।

কাঁচা চামড়ার পাইকারি বাজারখ্যাত লালবাগের পোস্তার ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন, চামড়া কেনায় এবার তাদের যে লক্ষ্যমাত্রা ছিল তা পূরণ হয়েছে। ঈদের দিন সন্ধ্যা ও পরদিন বেশিরভাগ চামড়া কেনার কাজটি সেরেছেন তারা। বুধবার চলে তা সংরক্ষণের প্রাথমিক কাজ।

তবে এবারও গরমসহ নানা কারণে ২৫ থেকে ৩০ শতাংশ চামড়া নষ্ট হওয়ার আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন তারা।

ব্যবসায়ীরা জানান, পোস্তায় এ বছর ঈদের ১ লাখের ওপরে চামড়া সংগ্রহ করা হয়েছে। সেখানকার পুরোনো ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন, এ বছর আগের বছরের তুলনায় ব্যবসায়ীর সংখ্যা কিছুটা কমেছে। তবে তারপরও তাদের লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী চামড়া সংগ্রহ করেছেন তারা। সেখানকার একজন ব্যবসায়ী জানান, ঈদের দিন বিকাল ৫টার পর থেকে চামড়া কেনা শুরু করেন তারা। সেদিন গভীর রাত পর্যন্ত চামড়া সংগ্রহ হয়। এখন পর্যন্ত যা চলমান। কেন চামড়ার দাম এবারও কম জানতে চাইলে একজন ব্যবসায়ী বলেন, ‘এবার গরমের কারণে অনেকে চামড়া কিনতে ভয় পাচ্ছে।’

ট্যানারি মালিকরা চাহিদা অনুযায়ী তাদের অর্থ সরবরাহ করেননি বলেও জানান তিনি।

ঈদের আগে একাধিক বাণিজ্য সংগঠনের নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করে কোরবানির পশুর চামড়ার দাম নির্ধারণ করে দেয় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। এবার ঢাকায় গরুর লবণযুক্ত চামড়া প্রতি বর্গফুটের দাম নির্ধারণ করে দেয়া হয় ৫৫-৬০ টাকা, যা আগের বছর ছিল ৫০-৫৫ টাকা।

ঢাকার বাইরে গরুর প্রতি বর্গফুট চামড়ার দাম নির্ধারণ করা হয় ৫০-৫৫ টাকা, যা এর আগের বছর ছিল ৪৫-৪৮ টাকা। এ ছাড়া খাসির লবণযুক্ত চামড়া ২০-২৫ টাকা বর্গফুট ও বকরির চামড়া ১৮-২০ টাকা বর্গফুট নির্ধারণ করা হয়।

নির্ধারিত দাম অনুযায়ী ঢাকায় মাঝারি আকারের ২৫ বর্গফুটের চামড়ার দাম হওয়ার কথা এক হাজার ৩৭৫ থেকে দেড় হাজার টাকা। সেখানে লবণ, মজুরি ও অন্যান্য খরচ বাদ দিলেও চামড়ার দাম দাঁড়ায় ১১শ থেকে ১২শ টাকায়। তবে ঈদ ও পরদিন পোস্তার আড়তগুলোয় বড় ও মাঝারি আকারের গরুর চামড়া বিক্রি হয়েছে ৮০০ থেকে ৯০০ টাকায়। সাইন্সল্যাব মোড় কিংবা হাজারীবাগে চামড়া বিক্রি হয়েছে আরও কম দামে, ৭০০ থেকে ৮০০ টাকায়।

বাংলাদেশ হাইড অ্যান্ড স্কিন মার্চেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি আফতাব খান বলেন, ‘পোস্তায় এ মৌসুমে ১ লাখ ৬০ হাজার চামড়া কেনার লক্ষ্যমাত্রা পূরণ হয়েছে। এখনো কোথাও চামড়া অবিক্রিত থাকলে আমাদের ব্যবসায়ীরা তা কিনবেন। তবে চামড়াটা সঠিক উপায়ে সংগ্রহ করতে হবে। সময়মতো লবণ না দিলে সেই চামড়া কেউ কিনবে না।’

চামড়ার দাম কম কেন- এমন প্রশ্নের জবাবে আফতাব খান বলেন, ‘সরকার নির্ধারিত দামেই চামড়া কেনা হচ্ছে। তবে কেউ যখন লবণ না দিয়ে চামড়া নিয়ে আসবে তখন প্রতি বর্গফুটে ৫ থেকে ৭ টাকা কম হতেই পারে।’

ব্যবসায়ীরা জানান, এ বছর বিপুলসংখ্যক কোরবানির গরু গুটি পক্সে আক্রান্ত থাকায় চামড়া নষ্ট হয়েছে। এ ছাড়াও সঠিকভাবে মাংস ছাড়াতে না পারা, সময়মতো লবণ না দেয়া আর অতিরিক্ত গরমের কারণে ২৫ থেকে ৩০ শতাংশ চামড়া নষ্ট হওয়ার শঙ্কা রয়েছে।

আলম নামের এক ব্যবসায়ী জানান, কয়েক হাজার চামড়া কিনেছে তার আড়ত। তবে সংরক্ষণ আর সঠিক সময়ে ট্যানারিতে পাঠানো নিয়ে এখনও দুশ্চিন্তায় রয়েছেন তারা।

চামড়া ব্যবসায়ীরা আরও জানান, গরম থেকে চামড়া বাঁচাতে চাইলে জবাই করার ৫ থেকে ৭ ঘণ্টার মধ্যে লবণ দেয়া প্রয়োজন। তা করতে না পারলে দ্রুত এনে তাদের কাছে বিক্রি করে দেয়ার পরামর্শ দেন কয়েকজন ব্যবসায়ী।

চামড়া জাতীয় সম্পদ উল্লেখ করে তারা বলেন, এটা নষ্ট হোক তা কারও জন্যই প্রত্যাশিত নয়। এ ছাড়া অনেক গরুর খামারে এখন মোটাতাজা করার জন্য গরুকে নানা ধরনের কেমিক্যাল মেশানো খাবার খাওয়ানো হয়। এর ফলে চামড়া দ্রুত নষ্ট হয়ে যাওয়ার শঙ্কা রয়েছে।

আরও পড়ুন:
পোস্তায় কোরবানির পশুর চামড়া বেচাকেনা চলছে
চট্টগ্রামে সাড়ে তিন লাখ চামড়া সংগ্রহের লক্ষ্য আড়ৎদারদের
কোরবানির পশুর চামড়া ঢাকায় ৫৫-৬০ ও সারা দেশে ৫০-৫৫ টাকা
পরিবেশবান্ধব পদ্ধতিতে চামড়া প্রক্রিয়াকরণে গুরুত্ব দিতে হবে
ঈদ-পরবর্তী সাতদিন বাইরের চামড়া ঢাকায় ঢুকতে পারবে না

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
1 04 08 918 animals were sacrificed on Eid ul Azha this year

ঈদুল আজহায় এবার ১,০৪,০৮,৯১৮টি পশু কোরবানি হয়েছে

ঈদুল আজহায় এবার ১,০৪,০৮,৯১৮টি পশু কোরবানি হয়েছে হাটে তোলার জন্য রাজধানীতে আনা হচ্ছে কোরবানির পশু। ছবি: পিয়াস বিশ্বাস
এ বছর ঈদুল আজহায় সারাদেশে কোরবানিযোগ্য গবাদিপশুর সংখ্যা ছিল ১ কোটি ২৯ লাখ ৮০ হাজার ৩৬৭টি। সে হিসাবে ২৫ লাখ ৭১ হাজার ৪৪৯টি পশু উদ্বৃত্ত থেকে গেছে।

চলতি বছর পবিত্র ঈদুল আজহায় সারাদেশে মোট এক কোটি চার লাখ আট হাজার ৯১৮টি গবাদিপশু কোরবানি হয়েছে। গত বছর সারাদেশে কোরবানিকৃত গবাদিপশুর সংখ্যা ছিল এক কোটি ৪১ হাজার ৮১২টি। তার আগের বছর ২০২২ সালে এই সংখ্যা ছিল ৯৯ লাখ ৫০ হাজার ৭৬৩টি। গত বছরের তুলনায় এবার তিন লাখ ৬৭ হাজার ১০৬টি গবাদিপশু বেশি কোরবানি হয়েছে।

এবার সবচেয়ে বেশি পশু কোরবানি হয়েছে ঢাকা বিভাগে এবং সবচেয়ে কম ময়মনসিংহ বিভাগে।

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ বিভাগ থেকে মঙ্গলবার পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, মাঠ পর্যায় থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী এবার ঢাকা বিভাগে ২৫ লাখ ২৯ হাজার ১৮২, চট্টগ্রাম বিভাগে ২০ লাখ ৫৭ হাজার ৫২০, রাজশাহী বিভাগে ২৪ লাখ ২৬ হাজার ১১১, খুলনা বিভাগে ১০ লাখ ৮ হাজার ৮৫৫, বরিশাল বিভাগে ৪ লাখ ২৮ হাজার ৪৩৮, সিলেট বিভাগে ৩ লাখ ৯৩ হাজার ৭৪২, রংপুর বিভাগে ১১ লাখ ৭২ হাজার ৫৫৩ ও ময়মনসিংহ বিভাগে ৩ লাখ ৯২ হাজার ৫১৭টি গবাদিপশু কোরবানি হয়েছে।

কোরবানি হওয়া গবাদিপশুর মধ্যে ৪৭ লাখ ৬৬ হাজার ৮৫৯টি গরু, ১ লাখ ১২ হাজার ৯১৮টি মহিষ, ৫০ লাখ ৫৬ হাজার ৭১৯টি ছাগল, ৪ লাখ ৭১ হাজার ১৪৯টি ভেড়া এবং ১ হাজার ২৭৩টি অন্যান্য পশু রয়েছে।

এর মধ্যে ঢাকা বিভাগে ১৩ লাখ ৩৭ হাজার ৯৫৪টি গরু, ৬ হাজার ৪৬৫টি মহিষ, ১০ লাখ ৯৪ হাজার ৮৭২টি ছাগল, ৮৯ হাজার ৯১টি ভেড়া ও অন্যান্য ৮০০টি পশু।

চট্টগ্রাম বিভাগে ১২ লাখ ১৭ হাজার ৭৪৭টি গরু, ৯১ হাজার ৮১০টি মহিষ, ৬ লাখ ৫২ হাজার ১৩০টি ছাগল, ৯৫ হাজার ৪৮৩টি ভেড়া ও অন্যান্য ৩৫০টি পশু কোরবানি হয়েছে।

রাজশাহী বিভাগে কোরবানি হয়েছে ৭ লাখ ২০ হাজার ৪৭২টি গরু, ৯ হাজার ৫৬৮টি মহিষ, ১৫ লাখ ৮৩ হাজার ৪৮৬টি ছাগল, ১ লাখ ১২ হাজার ৫৭৭টি ভেড়া ও অন্যান্য পশু ৮টি।

এছাড়া খুলনা বিভাগে ২ লাখ ৭৯ হাজার ৯৬৭টি গরু, ১ হাজার ৫০৬টি মহিষ, ৬ লাখ ৬৯ হাজার ৭৩৫টি ছাগল, ৫৭ হাজার ৫৫৯টি ভেড়া ও অন্যান্য ৮৮টি পশু; বরিশাল বিভাগে ২ লাখ ৮০ হাজার ৩৭৭টি গরু, ১ হাজার ১টি মহিষ, ১ লাখ ২৬ হাজার ৮৬৩টি ছাগল ও ২০ হাজার ১৯০টি ভেড়া, অন্যান্য পশু ৭টি এবং সিলেট বিভাগে ২ লাখ ১ হাজার ১৪৩টি গরু, ১ হাজার ৩৫৮টি মহিষ, ১ লাখ ৭৩ হাজার ২২৩টি ছাগল, ১৮ হাজার ১৪টি ভেড়া ও অন্যান্য পশু ৪টি। অন্যান্য বিভাগের মধ্যে রংপুরে ৫ লাখ ৩৮ হাজার ৩৯৪টি গরু, ৩০৪টি মহিষ, ৫ লাখ ৭৩ হাজার ৬১৬টি ছাগল, ৬০ হাজার ২২৮টি ভেড়া ও অন্যান্য পশু ১১টি এবং ময়মনসিংহ বিভাগে ১ লাখ ৯০ হাজার ৮০৫টি গরু, ৯০৬টি মহিষ, ১ লাখ ৮২ হাজার ৭৯৪টি ছাগল ও ১৮ হাজার ৭টি ভেড়া এবং অন্যান্য পশু ৫টি কোরবানি হয়েছে।

প্রসঙ্গত, এ বছর সারাদেশে কোরবানিযোগ্য গবাদিপশুর সংখ্যা ছিল ১ কোটি ২৯ লাখ ৮০ হাজার ৩৬৭টি। সে হিসাবে ২৫ লাখ ৭১ হাজার ৪৪৯টি পশু উদ্বৃত্ত থেকে গেছে।

আরও পড়ুন:
জাতীয় ঈদগাহে ঈদুল আজহার প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত
পবিত্র ঈদুল আজহা আজ
ডিএনসিসিতে ঈদের প্রধান জামাত মিরপুর গোলারটেক মাঠে
মাদারীপুরে ২৫ গ্রামে ঈদ উদযাপন
শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতিতে শব্দমুখর কামার পল্লী

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
The skins of sacrificial animals are being sold at Posta

পোস্তায় কোরবানির পশুর চামড়া বেচাকেনা চলছে

পোস্তায় কোরবানির পশুর চামড়া বেচাকেনা চলছে
বাংলাদেশ হাইড অ্যান্ড স্কিন মার্চেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের (বিএইচএসএমএ) মহাসচিব টিপু সুলতান বলেন, ‘চামড়া আসতে শুরু করেছে। আড়তের মালিকদের চামড়া কিনতে সব ধরনের প্রস্তুতি রয়েছে। মৌসুমি ব্যবসায়ীরা চামড়া যত তাড়াতাড়ি আমাদের কাছে আনবেন তত ভালো।’

রাজধানীর লালবাগের পোস্তায় চলছে কোরবানির পশুর চামড়া বেচাকেনা। সোমবার দুপুর ১২টা থেকেই রাজধানী ও আশপাশের বিভিন্ন এলাকা থেকে মৌসুমী চামড়া ব্যবসায়ীরা ট্রাক-ভ্যানে করে চামড়া নিয়ে আসছেন লালবাগের পোস্তায়।

লালবাগের শায়েস্তা খান, রাজনারায়ণ ধর ও আশপাশের বিভিন্ন সড়কে পাইকারি ব্যবসায়ীরা বিভিন্ন এলাকার মৌসুমি ব্যবসায়ীদের থেকে চামড়া সংগ্রহ শুরু করেছেন। রাতে পুরোদমে চামড়া বেচাকেনা শুরু হবে বলে মনে করছেন ব্যবসায়ীরা। তবে এবারও লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী চামড়ার সংগ্রহ হবে না বলে আশঙ্কা করছেন আড়ত-সংশ্লিষ্টরা।

চলতি বছর গরুর কাঁচা চামড়া প্রতি পিস সর্বোচ্চ ৮০০ থেকে ৯০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। আর তুলনামূলক ছোট আকারের গরুর চামড়া বিক্রি হচ্ছে ২০০ থেকে ৭০০ টাকা পিস। এ ছাড়া খাসির কাঁচা চামড়া বিক্রি হচ্ছে ১০ টাকায়।

নির্ধারিত দাম অনুযায়ী ঢাকায় মাঝারি আকারের ২৫ বর্গফুটের লবণযুক্ত চামড়ার দাম হওয়ার কথা এক হাজার ৩৭৫ থেকে এক হাজার ৫০০ টাকা। এই হিসাব থেকে লবণ, মজুরি ও অন্যান্য খরচ বাবদ ২৫০ টাকা বাদ দিলে ওই চামড়ার আনুমানিক মূল্য দাঁড়ায় এক হাজার ১২৫ থেকে এক হাজার ২৫০ টাকা।

ঢাকায় প্রতি বর্গফুট লবণযুক্ত গরুর চামড়ার দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ৫৫ থেকে ৬০ টাকা, যা গত বছর ছিল ৫০ থেকে ৫৫ টাকা। গত বছরের তুলনায় প্রতি বর্গফুটে চামড়ার দাম ৫ টাকা বাড়ানো হয়েছে।

অন্যদিকে ঢাকার বাইরে গরুর প্রতি বর্গফুট লবণযুক্ত চামড়ার দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ৫০ থেকে ৫৫ টাকা, গত বছর যা ছিল ৪৫ থেকে ৪৮ টাকা। এ ক্ষেত্রে দাম বাড়ানো হয়েছে সর্বোচ্চ ৭ টাকা। এ ছাড়া খাসির লবণযুক্ত চামড়ার দাম ২০ থেকে ২৫ টাকা এবং বকরির চামড়া ১৮ থেকে ২০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

বাংলাদেশ হাইড অ্যান্ড স্কিন মার্চেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের (বিএইচএসএমএ) মহাসচিব টিপু সুলতান বলেন, ‘চামড়া আসতে শুরু করেছে। আড়তের মালিকদের চামড়া কিনতে সব ধরনের প্রস্তুতি রয়েছে। মৌসুমি ব্যবসায়ীরা চামড়া যত তাড়াতাড়ি আমাদের কাছে আনবেন তত ভালো।’

আরও পড়ুন:
রাজধানীতে কোরবানি করতে গিয়ে আহত হয়ে ঢামেকে ১৫০

মন্তব্য

p
উপরে