× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

অর্থ-বাণিজ্য
The commerce minister said that the price of sugar is decreasing in the first week of fasting
google_news print-icon

রোজার প্রথম সপ্তাহেই চিনির দাম কমছে, বললেন বাণিজ্যমন্ত্রী

রোজার-প্রথম-সপ্তাহেই-চিনির-দাম-কমছে-বললেন-বাণিজ্যমন্ত্রী
রোববার সচিবালয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে দ্রব্যমূল্য ও বাজার পরিস্থিতি পর্যালোচনা সংক্রান্ত টাস্কফোর্সের সভা করছেন বাণিজ্যমন্ত্রী। ছবি: বাসস
তিনি বলেছেন, ‘চিনির শুল্ক ও ভ্যাট কমানোর কারণে কেজিতে সাড়ে ৪ টাকার মতো কমে আসবে। আমরা ব্যবসায়ীদের চিনির দাম কেজিতে ৫ টাকা কমানোর অনুরোধ করছি।

চিনির দাম কেজিতে পাঁচ টাকা কমাতে ব্যবসায়ীরা রাজি হয়েছেন বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। তিনি বলেছেন, ‘চিনির শুল্ক ও ভ্যাট কমানোর কারণে কেজিতে সাড়ে ৪ টাকার মতো কমে আসবে। আমরা ব্যবসায়ীদের চিনির দাম কেজিতে ৫ টাকা কমানোর অনুরোধ করছি। তারা আমাদের সঙ্গে একমত হয়েছেন। রোজার প্রথম সপ্তাহেই কম দামের চিনি বাজারে পাওয়া যাবে।’

রোববার সচিবালয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে দ্রব্যমূল্য ও বাজার পরিস্থিতি পর্যালোচনা সংক্রান্ত টাস্কফোর্সের সভা শেষে সাংবাদিকদের টিপু মুনশি এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, ‘ট্যারিফ হ্রাসকৃত চিনি এখনো বাজারে আসেনি। রোজার প্রথম সপ্তাহে ট্যারিফ সুবিধায় আমদানি হওয়া পণ্য পাওয়া যাবে। মিলগেটর মূল্য থেকে খুচরা পর্যায়ে প্রায় ৫/৬ টাকা বেশি দামে চিনি বিক্রি হয়। আমদানিকারকরা প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন মিলগেটের দামে ট্রাকসেলে তারা চিনি বিক্রি করবেন। এতে ভোক্তাদের ৫ থেকে ৬ টাকা সাশ্রয় হবে।’

রোজায় চিনির কোনো সংকট হবে না উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ‘বর্তমানে চিনির যে মজুদ আছে এবং যে পরিমাণ চিনি পাইপলাইনে রয়েছে, তাতে সরবরাহে কোনো ঘাটতি হবে না।’

রোজায় নিত্যপণ্যের দাম বাড়বে না উল্লেখ করে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘ভোজ্যতেল, পেঁয়াজ, ছোলা, ডাল, শাকসবজিসহ সব ধরনের নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের পর্যাপ্ত মজুদ রয়েছে। কোনো পণ্যের ঘাটতি বা মূল্যবৃদ্ধির সম্ভাবনা নেই।’

প্রয়োজনের অতিরিক্ত পণ্য না কেনার আহবান জানিয়ে টিপু মুনশি বলেন, ‘এক সঙ্গে বেশি পণ্য ক্রয় করে বাজারে কোনো ধরনের প্যানিক (আতঙ্ক) সৃষ্টি করবেন না।’

চাহিদা মত পেঁয়াজ আমদানি করা হবে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ‘ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে। রোজার মাসে আমরা পেঁয়াজের বাজার নিবিড় মনিটারিং করবো। কোনো কারণে দাম বেড়ে গেলে ভারত থেকে আমদানির পরিমাণ বাড়ানো হবে।’

বাজার নিয়ন্ত্রণে রাখতে নজরদারি বাড়ানো হবে উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, ‘রোজা উপলক্ষে বেগুন, টমেটো, শসা, মুরগির মাংসসহ অন্যান্য কৃষিজাত পণ্যের ব্যবহার বেড়ে যায়। সেই সুযোগে মহাসড়কে খাদ্যদ্রব্য ও শাক সবজি আনার পথে কোনোভাবেই যেন চাঁদাবাজি না হয় সে ব্যাপারে কঠোর মনিটারিং করা হবে। ইতোমধ্যে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে এ ব্যাপারে বলা হয়েছে। পাশাপাশি সকল জেলা প্রশাসনকেও বলা হবে।’

টিসিবির মাধ্যমে সরকার নিত্যপণ্যে ভর্তুকি দিচ্ছে জানিয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) মাধ্যমে ১ কোটি পরিবারকে ভর্তুকি মূল্যে নিত্যপণ্য দেয়া হচ্ছে। সে হিসাবে প্রায় ৫ কোটি মানুষ উপকৃত হচ্ছেন। দেশে দারিদ্র্যসীমার নিচে ২০ শতাংশ মানুষকে যদি ধরা হয়, তাহলেও দেখা যায় টিসিবির মাধ্যমে ২০ থেকে ৩০ শতাংশ মানুষ সুবিধা পাচ্ছেন। এবার রোজার মাসে দুইবার করে টিসিবির পণ্য দেয়া হবে। সাধারণ মানুষকে সহায়তা দিতে সরকার বছরে টিসিবির মাধ্যমে ৯৮০০ কোটি টাকার ভর্তুকি দিচ্ছে।’

অসাধু ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থার হুঁশিয়ারি দিয়ে টিপু মুনশি বলেন, ‘কোনো ব্যবসায়ী অবৈধভাবে পণ্যের মূল্য বৃদ্ধির চেষ্টা করলে তার বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। বাজারে মুরগির দাম ও সরবরাহ স্বাভাবিক রাখতে সরকার কার্যকর ব্যবস্থা নিয়েছে।’

বিশ্ববাজারে ভোজ্যতেলের দামের বিষয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আন্তর্জাতিক বাজারে ভোজ্যতেলের দাম কমেছে। কিন্তু দেশে মার্কিন ডলারের বাড়তি দাম থাকায় আন্তর্জাতিক বাজারের মূল্যহ্রাসের সুফলটা পাওয়া যাচ্ছে না।’

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিব তপন কান্তি ঘোষের সভাপতিত্বে টাস্কফোর্স সভায় বাংলাদেশ ট্রেড অ্যান্ড ট্যারিফ কমিশনের চেয়ারম্যান মো. ফয়জুল ইসলাম, টিসিবির চেয়ারম্যান ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. আরিফুল হাসান, জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এ এইচ এম শফিকুজ্জামান, এফবিসিসিআইয়ের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট মোস্তফা আজাদ চৌধুরী বাবুসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
রমজানে খাদ্যপণ্য মজুত করলে কঠোর ব্যবস্থা: বাণিজ্যমন্ত্রী
‘রোজার আগে বাজারে হুমড়ি খাবেন না, বাড়বে না দ্রব্যমূল্য’
‘ই-কমার্সে প্রতারণা রুখবে সিসিএমএস প্লাটফর্ম’
ডলার সংকট না কাটলে রমজানেও বিদেশি ফল আমদানি নয়
বাংলাদেশের সাফল্য নিয়ে বিদেশে টেবিলে টেবিলে আলোচনা হয়: বাণিজ্যমন্ত্রী

মন্তব্য

আরও পড়ুন

অর্থ-বাণিজ্য
Vidya Sinha Mim at Asian Paints Outlet

এশিয়ান পেইন্টসের আউটলেটে বিদ্যা সিনহা মিম

এশিয়ান পেইন্টসের আউটলেটে বিদ্যা সিনহা মিম এশিয়ান পেইন্টস বাংলাদেশ লিমিটেড ডিলারদের পুরস্কার তুলে দেন প্রখ্যাত চিত্রনায়িকা বিদ্যা সিনহা সাহা মিম। ছবি: নিউজবাংলা
দেশজুড়ে দেড়মাস ধরে চলা এশিয়ান পেইন্টসের নির্ধারিত মোট ২৭১ জন ডিলার প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে তাদের সৃজনশীলতা ও উদ্ভাবনী শক্তি গ্রাহকদের সামনে উপস্থাপন করেন।

সম্প্রতি এশিয়ান পেইন্টস বাংলাদেশ লিমিটেড ডিলারদের নিয়ে আয়োজন করেছে একটি ভিন্নধর্মী ডিসপ্লে কনটেস্ট প্রতিযোগিতা ‘রঙ স্টার সিজন- ২’। প্রতিযোগিতার সমাপনী দিনে বিজয়ী ডিলারদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন প্রখ্যাত চিত্রনায়িকা বিদ্যা সিনহা সাহা মিম।

দেশজুড়ে দেড়মাস ধরে চলা এশিয়ান পেইন্টসের নির্ধারিত মোট ২৭১ জন ডিলার প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে তাদের সৃজনশীলতা ও উদ্ভাবনী শক্তি গ্রাহকদের সামনে উপস্থাপন করেন।

এতে বিজয়ী মেহেদী কালার ওয়ার্ল্ড অ্যান্ড হার্ডওয়্যার পায় ১ লাখ টাকা ও রঙ স্টার ট্রফি।

বিজয়ীদের পুরস্কার বিতরণের সময় উপস্থিত ছিলেন এশিয়ান পেইন্টসের হেড অব সেলস অ্যান্ড অ্যাকটিভেশন শাহেদ মোহাম্মদ ইউসুফ ও হেড অব মার্কেটিং নাজমুল হুদা নাঈম।

এই ভিন্নধর্মী প্রতিযোগিতা দেশজুড়ে ডিলারদের তাদের সৃজনশীলতা প্রদর্শন করতে উৎসাহিত করেছে। এশিয়ান পেইন্টস বাংলাদেশ কেবলমাত্র পণ্যের প্রচার নয়, ডিলারদের সহায়তা করতেও প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। এই প্রতিযোগিতা সেই প্রতিশ্রুতির একটি প্রমাণ।

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
A call for concerted efforts to ensure water security

পানির নিরাপত্তা নিশ্চিতে সম্মিলিত প্রচেষ্টার আহ্বান

পানির নিরাপত্তা নিশ্চিতে সম্মিলিত প্রচেষ্টার আহ্বান বিশ্ব পানি দিবস-২০২৩ উপলক্ষে রেডিসন ব্লু-চট্টগ্রাম বে ভিউতে অনুষ্ঠিত 'এক্সিলারেটিং চেঞ্জ: ডিসেন্ট্রালাইজিং দ্য কনভারসেশন অন ওয়াটার স্টুয়ার্ডশিপ' শীর্ষক এক গোলটেবিল বৈঠক। ছবি: নিউজবাংলা
বক্তারা বলেন, পানি সংকটে ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে বাণিজ্যিক রাজধানী চট্টগ্রাম। গত ৪০ বছরে এখানকার ভূগর্ভস্থ পানির স্তর ২০ মিটার নিচে নেমে গেছে। কালুরঘাট শিল্প এলাকাতে তীব্র পানি ঘাটতির কারণে সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছে শিল্পকারখানা ও স্থানীয়রা। তাই পানির নিরাপত্তা নিশ্চিতে সম্মিলিত উদ্যোগ নিতে হবে।

দেশে দ্রুত ও অপরিকল্পিত শিল্পায়নের ফলে ভূগর্ভস্থ পানির স্তর নিচে নেমে যাচ্ছে, দূষিত হচ্ছে ভূপৃষ্ঠের পানি। এ অবস্থায় পানির নিরাপত্তা নিশ্চিতে শিল্পমালিকদের এলায়েন্স গঠন এবং ভূগর্ভস্থ পানি ব্যবহারের প্রভাব নিয়ে উচ্চ পর্যায়ের সমীক্ষা পরিচালনার আহবান জানিয়েছেন দেশের শীর্ষ শিল্পগ্রুপগুলোর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও গবেষকরা।

বিশ্ব পানি দিবস-২০২৩ উপলক্ষে রেডিসন ব্লু-চট্টগ্রাম বে ভিউতে অনুষ্ঠিত 'এক্সিলারেটিং চেঞ্জ: ডিসেন্ট্রালাইজিং দ্য কনভারসেশন অন ওয়াটার স্টুয়ার্ডশিপ' শীর্ষক এক গোলটেবিল বৈঠকে বক্তারা এ আহবান জানান। ইউনিলিভার বাংলাদেশ লিমিটেড, ফরেন ইনভেস্টরস চেম্বার অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (এফআইসিসিআই) এবং ওয়াটারএইড বাংলাদেশ যৌথভাবে শনিবার এই গোলটেবিল বৈঠকের আয়োজন করে।

বক্তারা বলেন, পানি সংকটে ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে বাণিজ্যিক রাজধানী চট্টগ্রাম। গত ৪০ বছরে এখানকার ভূগর্ভস্থ পানির স্তর ২০ মিটার নিচে নেমে গেছে। কালুরঘাট শিল্প এলাকাতে তীব্র পানি ঘাটতির কারণে সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছে শিল্পকারখানা ও স্থানীয়রা। তাই পানির নিরাপত্তা নিশ্চিতে সম্মিলিত উদ্যোগ নিতে হবে।

বক্তারা পানির নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে শিল্পগ্রুপগুলোর মধ্যে সহযোগিতার সুযোগ তৈরি এবং শিল্পের বাইরে চিন্তা করার প্রয়োজনীয়তার উপর জোর দেন। বৈঠকে কালুরঘাট শিল্প এলাকার শীর্ষ স্টেকহোল্ডাররা জানান, তারা ইতোমধ্যেই পানি ব্যবস্থাপনায় সর্বোত্তম ব্যবস্থা অনুশীলন শুরু করছেন।

অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক ড. তানভীর আহমেদ, যেখানে চট্টগ্রাম ও কালুরঘাটের ভারী শিল্প এলাকার পরিস্থিতি মূল্যায়ন সূচক ফলাফল এবং সুপারিশ উপস্থাপন করা হয়।

প্রবন্ধে বলা হয়, চট্টগ্রামে শিল্প দূষণ বাড়ছে, যা ভূপৃষ্ঠের পানির উৎসের জন্য মারাত্মক হুমকি সৃষ্টি করছে। ড. তানভীর আহমেদ পরিবেশ অধিদপ্তরকে পানির উৎসগুলো সংরক্ষণে শিল্পগ্রুপগুলোর উপর নজরদারি বাড়ানোর সুপারিশ করেন।

ওয়াটারএইড বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর হাসিন জাহান বলেন, 'সবাই একটি কমন ইন্টারেস্টের দিকে যাচ্ছি। শিল্পপ্রতিষ্ঠানগুলো যদি একটি এলায়েন্স গঠন করে একটি প্ল্যাটফর্মে আসতে পারে, তবে ভবিষ্যতে ভূগর্ভস্থ পানির ব্যবহার কমানোর পাশাপাশি পানির নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য সহযোগিতামূলক পদক্ষেপ নিতে সহজ হবে। এজন্য শিল্পখাত, গৃহস্থালীতে ভূগর্ভস্থ ও উপরিস্থ পানি ব্যবহারের প্রভাব নিয়ে উচ্চ পর্যায়ের এসেসমেন্টর প্রয়োজন রয়েছে।'

তিনি বলেন, 'কমবেশি সবাই ব্যাংকে টাকা রাখেন, যেন সন্তানদের ভবিষ্যৎ জীবন নিশ্চিত হয়। কিন্তু পানির মত গুরুত্ব সম্পদ আমাদের পরবর্তী প্রজন্মের জন্য রেখে যাওয়ার কথা মাথায় রাখছিনা।'

এ অবস্থায় জলবায়ু পরিবর্তনের সাথে সাথে প্রকৃতিতে কী পরিবর্তন হচ্ছে তা জানার তাগিদ দিয়ে হাসিন জাহান বলেন, 'প্রথমে আমাদের মাটির নিচের পানির কোয়ালিটি ও কোয়ানটিটির অবস্থা জানতে হবে। জানতে হবে এটার বিপর্যয় কখন হতে পারে। আরেকটি হচ্ছে, সার্ফেস ওয়াটারকে মনিটর করা। পানির অবস্থা বুঝে আমাদের অ্যাকশনে যেতে হবে। পজেটিভ বিষয় হলো শিল্পমালিকরা অনুভব করছেন, এটা নিয়ে সংলাপ হওয়া দরকার বলে মনে করছেন।'

ইউনিলিভার বাংলাদেশ লিমিটেডের সিইও এবং ব্যবস্থাপনা পরিচালক জাভেদ আখতার বলেন, 'পরিবেশ ও অর্থনীতির জন্য পানি অপরিহার্য এবং বিশুদ্ধ পানি পাওয়া একটি মৌলিক মানবাধিকার। পৃথিবীতে দুই বিলিয়নের বেশি মানুষ পানি নিয়ে সমস্যা পোহাচ্ছে, বাংলাদেশের ক্ষেত্রেও এর ব্যতিক্রম নয়।'

তিনি বলেন, ‌‌‌‌'দেশে শিল্প ও গৃহস্থালী ব্যবহারের জন্য মানুষ ভূগর্ভস্থ পানির উপর ব্যাপকভাবে নির্ভরশীল, যা অতিরিক্ত উত্তোলনের কারণে দ্রুত হ্রাস পাচ্ছে। উপরন্তু ভূপৃষ্ঠের পানির উৎসগুলো শিল্প এবং কৃষি বর্জ্য দ্বারা দূষিত হচ্ছে। ফলে বাংলাদেশের লক্ষাধিক মানুষ নিরাপদ পানীয় জলের অভাব এবং পানিবাহিত রোগে আক্রান্ত। শিল্প, কৃষি, মৎস্য সম্পদ এবং দেশের সামগ্রিক অর্থনীতিতেও পানি সংকটের সুদূরপ্রসারী প্রভাব রয়েছে।'

কোরিয়ান এক্সপোর্ট প্রসেসিং জোনের (কেইপিজেড) চেয়ারম্যান এবং এফআইসিসিআই-এর পরিচালক জাহাঙ্গীর সাদাত বলেন, 'শিল্পায়নের মাধ্যমে বাংলাদেশের দ্রুত রূপান্তর ঘটছে। যা অনেক ক্ষেত্রে পরিবেশের জন্য হুমকি তৈরী করছে। শিল্প কারখানাগুলো ভূগর্ভস্থ পানির উপর অনেক বেশি নির্ভশীল হয়ে পড়েছে, যা আগামীতে ক্রমবর্ধমানভাবে বাড়বে। দেশের বাণিজ্যিক রাজধানী চট্টগ্রামেও পানির ওপর নির্ভরশীল বেশ কিছু শিল্পকারখানা রয়েছে। যে কারণে গত ৪০ বছরে শহরের ভূগর্ভস্থ পানির স্তর ২০ মিটার পর্যন্ত হ্রাস পেয়েছে। প্রতি বছর ২ দশমিক ২ থেকে ২ দশমিক ৬৫ মিটার পর্যন্ত পানির স্তর নেমে গেছে।'

তিনি বলেন, 'নগরীর কালুরঘাট শিল্পাঞ্চলে ১৩৪ হেক্টর জমিতে ১৩৪টি শিল্প প্রতিষ্ঠান রয়েছে। ক্রমবর্ধমানভাবে উৎপাদন বৃদ্ধির পাশাপাশি এই শিল্পাঞ্চলে পানির চাহিদা তীব্র হয়েছে। এ অবস্থায় আমাদের সবার দায়িত্ব হচ্ছে এ অবস্থা থেকে উত্তরণের পথ বের করা। আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাষ করি এই সভা শিল্প মালিকদের মধ্যে সচেতনতা তৈরি করবে এবং শিল্পাঞ্চলে পানির টেকসই ব্যবহার নিশ্চিত করবে।'

আরও পড়ুন:
দেশীয় তামাক শিল্প রক্ষায় প্রতিযোগিতা আইন দ্রুত বাস্তবায়নের দাবি
রাষ্ট্রপতির শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার পেল বেঙ্গল পলিমার ওয়্যারস
টিভিতে জাতীয় পুরস্কার চালু নিয়ে কথা চলছে: তথ্যমন্ত্রী
জনবল নিচ্ছে বিজ্ঞান ও শিল্প গবেষণা পরিষদ
হারিয়ে যেতে বসেছে বাঁশ-বেত শিল্প, দুর্দিনে শিল্পীরা  

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Reserves are increasing in remittances ahead of Ramadan

রমজান সামনে রেখে রেমিট্যান্সে গতি, বাড়ছে রিজার্ভ

রমজান সামনে রেখে রেমিট্যান্সে গতি, বাড়ছে রিজার্ভ
বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র মেজবাউল হক বলেন, ‘প্রতি বছরই রোজা ও দুই ঈদের আগে রেমিট্যান্স বাড়ে। রোজা সামনে রেখে প্রবাসীরা পরিবার-পরিজনের বাড়তি প্রয়োজন মেটাতে বেশি রেমিট্যান্স পাঠাচ্ছেন। আশা করছি এই ইতিবাচক ধারা রোজার ঈদ পর্যন্ত অব্যাহত থাকবে। এরপর কোরবানির ঈদ সামনে রেখে চলতি অর্থবছরের শেষ মাস জুনেও রেমিট্যান্স বাড়বে।’

ঈদ ও রমজানসহ বিভিন্ন পার্বণ সামনে রেখে বরাবরই রেমিট্যান্সে বাড়তি প্রবাহ তৈরি হয়। ব্যতিক্রম হচ্ছে না এবারও। রমজান মাস সামনে রেখে বাড়তে শুরু করেছে রেমিট্যান্স। পরিবার-পরিজনের কাছে বেশি বেশি অর্থ পাঠাচ্ছেন প্রবাসীরা। চলতি মার্চ মাসের ১৭ দিনেই ১১৬ কোটি ৪২ লাখ ডলার দেশে পাঠিয়েছেন তারা।

ব্যাংকগুলোতে বর্তমানে রেমিট্যান্সে প্রতি ডলারের বিপরীতে ১০৭ টাকা দেয়া হচ্ছে। সে হিসাবে এই ১৭ দিনে ১২ হাজার ৪৫৬ কোটি টাকা দেশে পাঠিয়েছেন বিশ্বের বিভিন্ন দেশে অবস্থানকারী প্রবাসীরা। প্রতিদিন গড়ে এসেছে ৭৩৩ কোটি টাকা।

চলতি অর্থবছরের (২০২২-২৩) আট মাস ১৭ দিনে ১ হাজার ৫১৮ কোটি ডলার পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা, যা আগের অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় প্রায় সাড়ে ৪ শতাংশ বেশি।

রেমিট্যান্স প্রবাহে বাড়তি গতি আসায় স্ফীত হচ্ছে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ‌ও। রোববার বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভের পরিমাণ ছিল ৩১ দশমিক ৩০ বিলিয়ন ডলার।

ব্যাংকার ও অর্থনীতিবিদরা বলছেন, পবিত্র রমজান মাস শুরু হবে ২৩ মার্চ (চাঁদ দেখাসাপেক্ষে)। রোজা ও ঈদ সামনে রেখে আগামী দিনগুলোতে রেমিট্যান্স আরও বাড়বে আশা করা যায়।

দেশের অর্থনীতির গুরুত্বপূর্ণ সূচক রেমিট্যান্সের প্রবাহ টানা তিন মাস বাড়ার পর ফেব্রুয়ারিতে হোঁচট খায়। ওই মাসে ১৫৬ কোটি ১২ লাখ ডলার পাঠিয়েছিলেন প্রবাসীরা। তার আগের তিন মাসে এসেছিল যথাক্রমে ১৫৯ কোটি ৫২ লাখ, ১৬৯ কোটি ৯৭ লাখ ও ১৯৫ কোটি ৮৯ লাখ ডলার। সে হিসাবে প্রতিদিন এসেছিল ৫ কোটি ২৫ লাখ ডলার।

মার্চ মাসে এই সূচকে ফের গতি ফিরেছে। বাংলাদেশ ব্যাংক রোববার রেমিট্যান্স প্রবাহের হালনাগাদ যে তথ্য প্রকাশ করেছে তাতে দেখা যায়, এই মাসের প্রথম ১৭ দিনে ১১৬ কোটি ৪২ লাখ ডলারের যে রেমিট্যান্স এসেছে, তার মধ্যে রাষ্ট্রায়ত্ত ৬ বাণিজ্যিক ব্যাংকের মাধ্যমে এসেছে প্রায় ১৫ কোটি ডলার। বিশেষায়িত কৃষি ব্যাংকের মাধ্যমে এসেছে ২ কোটি ৫২ লাখ ২০ হাজার ডলার। ৪২টি বেসরকারি ব্যাংকের মাধ্যমে প্রবাসীরা পাঠিয়েছেন ৯৮ কোটি ৬১ লাখ ১০ হাজার ডলার। আর ৯টি বেসরকারি ব্যাংকের মাধ্যমে এসেছে ৩৭ লাখ ৪০ হাজার ডলার। এই গতিতে রেমিট্যান্স এলে মাস শেষে ২ বিলিয়ন বা ২০০ কোটি ডলার ছাড়িয়ে যাবে বলে আশা করছেন ব্যাংকাররা।

বর্তমান বিশ্ব প্রেক্ষাপটে অর্থনীতির সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ও স্পর্শকাতর সূচক বিদেশি মুদ্রার সঞ্চয়ন বা রিজার্ভের অন্যতম প্রধান উৎস প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্স।

২০২১-২২ অর্থবছরে ২ হাজার ১০৩ কোটি ১৭ লাখ ডলার রেমিট্যান্স আসে, যা আগের বছরের চেয়ে ১৫ দশমিক ১২ শতাংশ কম ছিল।

চলতি অর্থবছরটা বেশ উল্লম্ফনের মধ্য দিয়েই শুরু হয়। প্রথম মাস জুলাইয়ে ২১০ কোটি ডলার রেমিট্যান্স পাঠান প্রবাসীরা। আগস্টে আসে ২০৩ কোটি ৬৯ লাখ ডলার। পরের মাস সেপ্টেম্বরে এক ধাক্কায় তা নেমে আসে ১৫৩ কোটি ৯৬ লাখ ডলারে। অক্টোবরে তা আরও কমে দাঁড়ায় ১৫২ কোটি ৫৫ লাখ ডলারে।

রেমিট্যান্সে নিম্নগতি থেমে ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা দেখা দেয় নভেম্বরে। এই মাসে রেমিট্যান্স আসে ১৫৯ কোটি ৫২ লাখ ডলার। আর ডিসেম্বরে আসে ১৭০ কোটি ডলার। ২০২৩ সালের জানুয়ারিতে তা বেড়ে হয় ১৯৬ কোটি ডলার। কিন্তু ফেব্রুয়ারিতে তা আবার ১৫৬ কোটি ১২ লাখ ডলারে নেমে যায়।

ফেব্রুয়ারিতে রেমিট্যান্স কমার কারণ জানতে চাইলে বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র মেজবাউল হক বলেন, ‘প্রতি বছরই ফেব্রুয়ারি মাসে অন্যান্য মাসের চেয়ে রেমিট্যান্স কিছুটা কম আসে। কারণ ফেব্রুয়ারি মাস ২৮ দিনে শেষ হয়।’

বর্তমানে রেমিট্যান্স বাড়ার কারণ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘প্রতি বছরই রোজা ও দুই ঈদের আগে রেমিট্যান্স বাড়ে; এবারও তাই হচ্ছে। দুই-তিন দিন পর রোজা শুরু হবে। রোজা সামনে রেখে প্রবাসীরা পরিবার-পরিজনের বাড়তি প্রয়োজন মেটাতে বেশি রেমিট্যান্স পাঠাচ্ছেন।

‘এই ইতিবাচক ধারা রোজার ঈদ পর্যন্ত অব্যাহত থাকবে বলে আশা করছি। এরপর কোরবানির ঈদ সামনে রেখে চলতি অর্থবছরের শেষ মাস জুনেও রেমিট্যান্স বাড়বে।’

ব্যাংকের চেয়ে খোলাবাজার বা কার্ব মার্কেটে ডলারের দাম বেশি হওয়ায় বেশি টাকা পাওয়ার জন্য মাঝে কয়েক মাস প্রবাসীরা অবৈধ হুন্ডির মাধ্যমে দেশে অর্থ পাঠিয়েছেন। এর ফলে ব্যাংকিং চ্যানেলে রেমিট্যান্স কমে গিয়েছিল। বাংলাদেশ ব্যাংক হুন্ডির বিরুদ্ধে বেশ কিছু পদক্ষেপ নেয়ায় এখন ব্যাংকিং চ্যানেলে রেমিট্যান্স বাড়তে শুরু করেছে।

২০২০-২১ অর্থবছরে অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে ২৪ দশমিক ৭৮ বিলিয়ন ডলার রেমিট্যান্স এসেছিল দেশে, যা ছিল আগের বছরের চেয়ে ৩৬ দশমিক ১০ শতাংশ বেশি।

বাড়ছে রিজার্ভ

রোববার দিন শেষে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভের পরিমাণ ছিল ৩১ দশমিক ৩০ বিলিয়ন ডলার। গত ৭ মার্চ এশিয়ান ক্লিয়ারিং ইউনিয়নের (আকু) জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারি মেয়াদের ১ দশমিক শূন্য ৫ বিলিয়ন ডলার আমদানি বিল পরিশোধের পর রিজার্ভ ৩১ দশমিক ১৫ বিলিয়ন ডলারে নেমে এসেছিল। রেমিট্যান্সপ্রবাহ বাড়ায় গত কয়েক দিনে তা কিছুটা বেড়ে ৩১ দশমিক ৩০ বিলিয়ন ডলার হয়েছে।

আরও পড়ুন:
রাজশাহী-রংপুরের রেমিট্যান্স পাঠানো গ্রাহকদের পুরষ্কৃত করল রুপালী ব্যাংক
রেমিট্যান্সের পর রপ্তানি আয়েও নিম্নগতি
৪ মাসের মধ্যে সবচেয়ে কম রেমিট্যান্স ফেব্রুয়ারিতে
জানুয়ারিতে ১৯৫ কোটি ৮৯ লাখ ডলারের রেমিট্যান্স
২০ দিনে ১৪ হাজার কোটি টাকার রেমিট্যান্স

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Bangladesh Bank Sonali Bank Green Transformation Fund Agreement

বাংলাদশে ব্যাংক-সোনালী ব্যাংকের গ্রিন ট্রান্সফর্মেশন ফান্ড চুক্তি

বাংলাদশে ব্যাংক-সোনালী ব্যাংকের গ্রিন ট্রান্সফর্মেশন ফান্ড চুক্তি চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নররা ও সোনালী ব্যাংকের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। ছবি: সংগৃহীত
বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ ব্যাংকের জাহাঙ্গীর আলম কনফারেন্স হলে এই আয়োজনের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হয়। 

বাংলাদেশ ব্যাংক ও সোনালী ব্যাংকের মধ্যে গ্রিন ট্রান্সফর্মেশন ফান্ড (জিটিএফ) এর আওতায় পার্টিসিপেশন এগ্রিমেন্টে-এর স্বাক্ষর হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ ব্যাংকের জাহাঙ্গীর আলম কনফারেন্স হলে এই আয়োজনের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হয়।

চুক্তি স্বাক্ষর শেষে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদার সোনালী ব্যাংকের সিইও অ্যান্ড ম্যানেজিং ডিরেক্টর মো. আফজাল করিমের কাছে চুক্তিপত্র হস্তান্তর করেন। এসময় বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নররা ও সোনালী ব্যাংকের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
জন্মবার্ষিকীতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে রূপালী ব্যাংকের শ্রদ্ধা
জন্মবার্ষিকীতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ইসলামী ব্যাংকের শ্রদ্ধা
নানা আয়োজনে জাতির পিতার জন্মদিন উদযাপন সোনালী ব্যাংকের

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Bimans Hajj flights started on May 21

বিমানের হজ ফ্লাইট শুরু ২১ মে

বিমানের হজ ফ্লাইট শুরু ২১ মে
বিমানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শফিউল আজিম বলেন, ‘চলতি বছর বাংলাদেশ থেকে ১ লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ জন হজযাত্রী সৌদি আরবে পবিত্র হজ পালনের অনুমতি পেয়েছেন। এর মধ্যে বিমান ৫০ শতাংশ অর্থাৎ ৬৩ হাজার ৫৯৯ জন পরিবহন করবে। হজযাত্রী পরিবহনে বিমানের নিজস্ব ৪টি বোয়িং ৭৭৭-৩০০ইআর উড়োজাহাজ এবং ৭৮৭ ড্রিমলাইনার ব্যবহৃত হবে।’

চলতি হজ মৌসুমে হজযাত্রীদের প্রথম ফ্লাইট শুরু হবে ২১ মে। ওইদিন রাত পৌনে ৪টায় প্রথম হজ ফ্লাইট হজযাত্রীদের নিয়ে সৌদি আরবের উদ্দেশে ছেড়ে যাবে।

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স কর্তৃপক্ষ জানায়, বিমানের প্রথম ফ্লাইট বিজি-৩০০১ ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে জেদ্দার উদ্দেশে যাত্রা করবে এবং ফ্লাইটটি জেদ্দা বিমানবন্দরে স্থানীয় সময় ২২ মে সকাল সাড়ে ৭টায় অবতরণ করবে। আর ২২ জুন বিমানের প্রি-হজ ফ্লাইট শেষ হবে।

রাজধানীর কুর্মিটোলায় বলাকা ভবনে রোববার বিকেলে সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান বিমানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা শফিউল আজিম। হজসহ সমসাময়িক বিভিন্ন বিষয় নিয়ে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে বিমান।

বিমানের হজ ফ্লাইট শুরু ২১ মে
রাজধানীর কুর্মিটোলায় বলাকা ভবনে রোববার সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন বিমানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শফিউল আজিম। ছবি: নিউজবাংলা

বিমানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বলেন, ‘চলতি বছর বাংলাদেশ থেকে ১ লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ জন হজযাত্রী সৌদি আরবে পবিত্র হজ পালনের অনুমতি পেয়েছেন। এর মধ্যে বিমান ৫০ শতাংশ অর্থাৎ ৬৩ হাজার ৫৯৯ জন পরিবহন করবে। হজযাত্রী পরিবহনে বিমানের নিজস্ব ৪টি বোয়িং ৭৭৭-৩০০ইআর উড়োজাহাজ এবং ৭৮৭ ড্রিমলাইনার ব্যবহৃত হবে।’

শফিউল আজিম জানান, এবারের প্রি-হজ ফ্লাইটে মোট ১৬০টি ডেডিকেটেড ফ্লাইট পরিচালনা করা হবে। এর মধ্যে ঢাকা-জেদ্দা রুটে ১১৬টি, ঢাকা-মদিনা রুটে ২০টি, চট্টগ্রাম-জেদ্দা রুটে ১৪টি, চট্টগ্রাম-মদিনা রুটে ৬টি, সিলেট-জেদ্দা ও সিলেট-মদিনা রুটে ২টি করে ফ্লাইট পরিচালনা করা হবে।

আরও পড়ুন:
হজযাত্রী নিবন্ধনের সময় আরও ৯ দিন বৃদ্ধি
হজের খরচ ৪ লাখে আনতে আইনি নোটিশ
ফের বাড়ল হজ নিবন্ধনের সময়
হজের নিবন্ধনের সময় বাড়ল
হজযাত্রীদের করোনা ছাড়াও দুটি টিকা নিতে হবে

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Gold load 98 794 taka

স্বর্ণের ভরি ৯৮,৭৯৪ টাকা

স্বর্ণের ভরি ৯৮,৭৯৪ টাকা
রোববার থেকে দেশের বাজারে সবচেয়ে ভালো মানের (২২ ক্যারেট) প্রতি ভরি স্বর্ণ বিক্রি হবে ৯৮ হাজার ৭৯৪ টাকায়। অন্যান্য মানের স্বর্ণের দামও একই হারে বাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছে বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি (বাজুস)।

দেশের বাজারে স্বর্ণের দাম এক লাফে রেকর্ড ৭ হাজার টাকার বেশি বাড়ানো হয়েছে। আর স্বর্ণের ভরি ছুঁতে চলেছে লাখ টাকার ঘর।

বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি (বাজুস) শনিবার এক বিজ্ঞপ্তিতে জানায়, রোববার থেকে দেশের বাজারে সবচেয়ে ভালো মানের (২২ ক্যারেট) প্রতি ভরি স্বর্ণ বিক্রি হবে ৯৮ হাজার ৭৯৪ টাকায়।

এছাড়া ২১ ক্যারেট ৯৪ হাজার ৩০৩ টাকা, ১৮ ক্যারেট ৮০ হাজার ৮৩২ টাকা ও সনাতন পদ্ধতির সোনা ৬৭ হাজার ৩০১ টাকা ভরি বিক্রি হবে।

দেশে তিন সপ্তাহের ব্যবধানে স্বর্ণের দামে এমন উল্লম্ফন ঘটল। বাংলাদেশে এর আগে আর কখনোই এক দিনে স্বর্ণের দাম এমন অংকে বাড়েনি।

এর আগে ২৬ ফেব্রুয়ারি ভরিতে ১ হাজার ১৬৬ টাকা কমিয়ে স্বর্ণের দাম নির্ধারণ করে দিয়েছিল বাজুস। সেই দর অনুযায়ী শনিবার পর্যন্ত ২২ ক্যারেটের প্রতি ভরি স্বর্ণ বিক্রি হয়েছে ৯১ হাজার ৯৬ টাকায়।

এদিকে স্বর্ণের দাম কমা‌নো হ‌লেও অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে রুপার দাম। ক্যাটাগরি অনুযায়ী, ২২ ক্যারেটের রুপার দাম প্রতি ভ‌রি ১ হাজার ৭১৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। ২১ ক্যারেটের দাম ১ হাজার ৬৩৩ টাকা, ১৮ ক্যারেট ১৪০০ টাকা এবং সনাতন পদ্ধতির রুপার দাম ১০৫০ টাকায় অপরিবর্তিত আছে।

গত বছরের ২৯ ডিসেম্বর পর্যন্ত প্রতি ভরি স্বর্ণের (২২ ক্যারেট) দাম ছিল ৮৭ হাজার ২৪৭ টাকা। ওইদিন ১ হাজার ১৬৬ টাকা বেড়ে হয় ৮৮ হাজার ৪১৩ টাকা। এরপর থেকে ক্রমাগত বাড়ছে স্বর্ণের দাম।

৭ জানুয়ারি ২ হাজার ৩৩৩ টাকা বেড়ে হয় ৯০ হাজার ৭৪৬ টাকা, ১৪ জানুয়ারি ২ হাজার ৬৮৩ টাকা বেড়ে হয় রেকর্ড ৯৩ হাজার ৪২৯ টাকা। এরপর ৪ ফেব্রুয়ারি স্বর্ণের দাম কিছুটা কমলেও তা ৯০ হাজারের ঘরেই থেকে যায়।

সবশেষ শনিবার এক লাফে ৭ হাজার ৬৯৮ টাকা বাড়িয়ে প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম নির্ধারণ করা হলো ৯৮ হাজার ৭৯৪ টাকা।

আরও পড়ুন:
স্বর্ণের দাম কমেছে ভরিতে ১১৬৭ টাকা
স্মারক স্বর্ণ ও রৌপ্য মুদ্রার দাম বাড়ল
ইতিহাসের সর্বোচ্চ দামে স্বর্ণ, ভরি ৯০,৭৪৬ টাকা
স্বর্ণের ভরি ৮৮ হাজার টাকা ছাড়াল

মন্তব্য

p
উপরে