× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

অর্থ-বাণিজ্য
42 percent growth in denim exports to the United States
hear-news
player
google_news print-icon

যুক্তরাষ্ট্রে ডেনিম রপ্তানিতে ৪২ শতাংশ প্রবৃদ্ধি

যুক্তরাষ্ট্রে-ডেনিম-রপ্তানিতে-৪২-শতাংশ-প্রবৃদ্ধি
বিজিএমইএ সভাপতি ফারুক হাসান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমরা ডেনিমে বিশ্বে এক নম্বরে অবস্থান করছি। আর তৈরি পোশাকে আমাদের অবস্থান দ্বিতীয়। সারা বিশ্বের পাশাপাশি যুক্তরাষ্ট্রেও ডেনিম রপ্তানিতে আমরা ভালো করছি। ডেনিমে আমরা অনেক বিনিয়োগ করেছি। যেহেতু প্রায় সবকিছুই আমাদের নিজস্ব, তাই আশা করি ডেনিমে আমরা শীর্ষ অবস্থানটা ধরে রাখতে পারব।’

তৈরি পোশাক খাতে বিশ্বে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশ। আর ডেনিমে অবস্থান সবার শীর্ষে। সাশ্রয়ী দাম আর গুণগত মান ভালো হওয়ায় এখানকার ডেনিমের কদর বিশ্বজুড়ে। সে সুবাদে চলতি বছরের প্রথম ৯ মাসে যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে বাংলাদেশ ডেনিম রপ্তানি করেছে ৭৪ কোটি ডলারের। গত বছরের একই সময়ের তুলনায় তা ৪২ শতাংশ বেশি।

যুক্তরাষ্ট্রের ইউএস ডিপার্টমেন্ট অফ কমার্সের অফিস অফ টেক্সটাইল অ্যান্ড অ্যাপারেল (অটেক্সা) সম্প্রতি এই হালনাগাদ পরিসংখ্যান প্রকাশ করেছে।

অটেক্সার তথ্য থেকে জানা যায়, গত বছরের প্রথম ৯ মাসে (জানুয়ারি-সেপ্টেম্বর) যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে বাংলাদেশ ডেনিম রপ্তানি করেছিল ৫২ কোটি ডলারের। চলতি বছরের একই সময়ে দেশটিতে রপ্তানি হয়েছে ৭৩ দশমিক ৮ কোটি ডলারের ডেনিম পণ্য। এর মাধ্যমে আগের বছরের একই সময়ের চেয়ে চলতি বছরে প্রবৃদ্ধি বেড়েছে ৪২ শতাংশ।

বাংলাদেশের পরই যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে ডেনিম রপ্তানিতে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে মেক্সিকো। চলতি বছরের প্রথম ৯ মাসে দেশটি রপ্তানি করেছে ৫৬ দশমিক ১ কোটি ডলার। আগের বছর একই সময়ে তা ছিল ৪৭ কোটি ডলার। এতে এ বছর দেশটির প্রবৃদ্ধি হয়েছে ১৮ শতাংশ।

যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে ডেনিম রপ্তানিতে তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে পাকিস্তান। দেশটি এ সময়ে ডেনিম রপ্তানি করেছে ৩৭ দশমিক ৬ কোটি ডলার। আগের বছরের একই সময়ে তা ছিল ২৭ দশমিক ৫ কোটি ডলার। এতে এ বছর দেশটির প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৩৬ দশমিক ৬৩ শতাংশ।

যুক্তরাষ্ট্রে ডেনিম রপ্তানিতে এরপর যথাক্রমে রয়েছে ভিয়েতনাম, চায়না, মিসর ও কম্বোডিয়া। দেশগুলো এ সময়ে রপ্তানি করেছে ৩৪ কোটি ৮০ লাখ, ২৯ কোটি ১০ লাখ, ১৭ কোটি ৮ লাখ ও ১৬ কোটি ৮০ লাখ ডলার।

এতে দেশগুলোর প্রবৃদ্ধি হয়েছে যথাক্রমে ২৫ শতাংশ, ৬ শতাংশ, ৬০ দশমিক ৩০ শতাংশ ও ৪৭ দশমিক ৪০ শতাংশ।

বাংলাদেশের পোশাক রপ্তানিকারকদের শীর্ষ সংগঠন বিজিএমইএ-এর সভাপতি ফারুক হাসান এ বিষয়ে নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমরা ডেনিমে বিশ্বে এক নম্বরে অবস্থান করছি। আর তৈরি পোশাকে আমাদের অবস্থান দ্বিতীয়। সারা বিশ্বের পাশাপাশি যুক্তরাষ্ট্রেও ডেনিম রপ্তানিতে আমরা ভালো করছি।’

তিনি বলেন, ‘ডেনিমে যে ফেব্রিক দরকার পড়ে তেমন কয়েকটি ফেব্রিক মিল আমাদের এখানে হয়েছে। পাশাপাশি ডেনিমে যে ওয়াশিং দরকার হয় তার জন্যও আমাদের বেশকিছু লন্ড্রি ও উন্নতমানের ওয়াশিং ফ্যাক্টরি রয়েছে। এসব কিছু মিলে আমরা ডেনিমে অনেক ভালো করছি এবং আগামীতে আরও ভালো করব। ডেনিমে আমরা অনেক বিনিয়োগ করেছি।’

উন্নত প্রযুক্তির বিষয়ে ফারুক হাসান বলেন, ‘আমরা আরও উন্নত প্রযুক্তির সমন্বয়ে পুরো উৎপাদন ব্যবস্থাপনা হালনাগাদ করেছি। নিট খাতে আমরা ভালো করেছি। নিটের ৮০ শতাংশের বেশি ফেব্রিক আমরা নিজেরাই করে থাকি। যেহেতু প্রায় সবকিছুই আমাদের নিজস্ব, তাই আশা করি ডেনিমে আমরা শীর্ষ অবস্থানটা ধরে রাখতে পারব।’

আরও পড়ুন:
ওমিক্রন: পোশাক খাতে ‘ধীরে চলো’ নীতি ক্রেতাদের
যুক্তরাষ্ট্রে পোশাক রপ্তানিতে রেকর্ড গড়ছে বাংলাদেশ
কেবল অর্ডার নয়, বাড়ছে দামও  
পোশাকশিল্পে বিপুল অর্ডার, প্রচুর চাকরি
চীন-ভিয়েতনামকে টপকে বাংলাদেশের তৈরি পোশাক

মন্তব্য

আরও পড়ুন

অর্থ-বাণিজ্য
Financial institutions also have mountains of defaulted loans

আর্থিক প্রতিষ্ঠানেও খেলাপি ঋণের পাহাড়

আর্থিক প্রতিষ্ঠানেও খেলাপি ঋণের পাহাড়
আহসান মনসুর বলেন, ‘বিতরণ করা এসব ঋণের বেশির ভাগই অসৎ উপায় অবলম্বন করে দেয়া হয়েছে। এমন লোকদের ঋণ দেয়া হয়েছে, যারা পরবর্তী সময়ে এসব টাকা আর পরিশোধ করছে না। আর্থিক প্রতিষ্ঠানের পরিচালনা পর্ষদ এসব ঋণ দেয়ার ক্ষেত্রে জড়িত থাকে। এসব ঋণ এখন আর ফেরত আসছে না।’

ব্যাংকের মতো আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোও খেলাপি ঋণের ভারে জর্জরিত। সেপ্টেম্বর শেষে দেশের ব্যাংকবহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোতে (এনবিএফআইএস) খেলাপি ঋণের মোট পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১৭ হাজার ৩২৭ কোটি টাকা। এই অঙ্ক মোট বিতরণ করা ঋণের প্রায় ২৫ শতাংশ।

বাংলাদেশ ব্যাংক বুধবার এই হালনাগাদ তথ্য প্রকাশ করেছে।

সেপ্টেম্বর পর্যন্ত আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো মোট ৭০ হাজার ৪১৬ কোটি টাকার ঋণ বিতরণ করেছে।

তথ্যে দেখা যায়, ব্যাংকের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোতে প্রতি প্রান্তিকেই বাড়ছে খেলাপি ঋণের পরিমাণ। তিন মাস আগে জুন পর্যন্ত দেশের ৩৪টি আর্থিক প্রতিষ্ঠানে মোট খেলাপি ঋণের পরিমাণ ছিল ১৫ হাজার ৯৩৬ কোটি টাকা, যা ছিল বিতরণ করা ঋণের ২২ দশমিক ৯৯ শতাংশ। এ হিসাবে তিন মাসে খেলাপি ঋণে বেড়েছে ১ হাজার ৩৯১ কোটি টাকা। এপ্রিল শেষে মোট খেলাপি ঋণের পরিমাণ ছিল ১২ হাজার ১৬ কোটি টাকা।

ব্যাংকের মতো আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোতেও খেলাপি ঋণের পরিমাণ বাড়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করে পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বিতরণ করা এসব ঋণের বেশির ভাগই অসৎ উপায় অবলম্বন করে দেয়া হয়েছে। এমন লোকদের ঋণ দেয়া হয়েছে, যারা পরবর্তী সময়ে এসব টাকা আর পরিশোধ করছে না। আর্থিক প্রতিষ্ঠানের পরিচালনা পর্ষদ এসব ঋণ দেয়ার ক্ষেত্রে জড়িত থাকে। এসব ঋণ এখন আর ফেরত আসছে না। ফলে আর্থিক প্রতিষ্ঠানে দিন দিন খেলাপি ঋণের পরিমাণ বাড়ছে। আর্থিক খাত দুর্বল হওয়ার কারণ খেলাপি ঋণ বাড়ছে।’

তিনি বলেন, ‘গত কয়েক বছরে আর্থিক খাতে নানা রকমের কেলেঙ্কারি সংঘটিত হয়েছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংক এসব খেলাপি ঋণের বিষয়ে যথাযথ পদক্ষেপ নিতে ব্যর্থ হয়েছে। যেসব বিষয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কঠোর পদক্ষেপ নেয়া জরুরি, সেসব বিষয়ে তারা এড়িয়ে যায়।’

আহসান মনসুর বলেন, ‘যারা ভালো কাজ করে কেন্দ্রীয় ব্যাংক তাদের শাস্তি দেয়। আর যারা খারাপ কাজ করে তাদের বিষয়ে কোনো কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করে না।’

আরেক গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফল পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) রিসার্চ ফেলো সৈয়দ ইউসুফ সাদাত নিউজবাংলাকে বলেন, ‘কোভিডের সময় ঋণ পরিশোধে ছাড় দিয়েছিল। ফলে সে সময় খেলাপিরা কিছুটা হলেও চাপমুক্ত ছিল। তখন খারাপ লোনগুলোকে খেলাপির আওতায় আনা হয়নি। এখন সেগুলো বাড়ছে।’

তিনি বলেন, ‘একটি প্রতিষ্ঠানকে অনেক বেশি ঋণ দিয়েছে। যখন ঋণ সুদে-আসলে পাওয়ার কথা, তখন আর ফেরত পাচ্ছে না। ফলে খেলাপির সংখ্যা বাড়ছে।’

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সবশেষ তথ্য বলছে, চলতি বছরের সেপ্টেম্বর শেষে দেশের ব্যাংকিং খাতে মোট খেলাপি ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে এক লাখ ৩৪ হাজার ৩৯৬ কোটি টাকা। যা মোট বিতরণ করা ঋণের ৯ দশমিক ৩৬ শতাংশ।

বছরের প্রথম প্রান্তিক (জানুয়ারি-মার্চ) শেষে খেলাপি ঋণ ছিল ১ লাখ ১৩ হাজার ৪৪০ কোটি টাকা। জুন শেষে খেলাপি ‍ঋণের পরিমাণ দাঁড়ায় এক লাখ ২৫ হাজার ২৫৭ কোটি টাকা।

২০২১ সালের ডিসেম্বরে খেলাপি ঋণ ছিল ১ লাখ ৩ হাজার ২৭৩ কোটি টাকার বেশি, যা মোট ঋণের প্রায় ৮ শতাংশ। অর্থাৎ জানুয়ারি থেকে সেপ্টেম্বর নয় মাসে খেলাপি বেড়েছে ৩১ হাজার ১২৩ কোটি টাকা।

আরও পড়ুন:
আট ব্যাংকের প্রভিশন ঘাটতি প্রায় ২০ হাজার কোটি টাকা
তিন মাসে খেলাপি ঋণ বেড়েছে ৯,১৩৯ কোটি টাকা
সোয়া লাখ কোটি টাকা ছাড়াল খেলাপি ঋণ
বাংলাদেশ ব্যাংকের সিদ্ধান্তে খেলাপি ঋণ আদায় বাড়বে: বিএবি
তিন মাসে খেলাপি ঋণ বাড়ল ১০ হাজার কোটি টাকা

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Secretaries should step down from BATB board Planning Minister

বিএটিবি পরিচালনা পর্ষদ থেকে সচিবদের সরে আসা উচিত: পরিকল্পনামন্ত্রী

বিএটিবি পরিচালনা পর্ষদ থেকে সচিবদের সরে আসা উচিত: পরিকল্পনামন্ত্রী পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ে বুধবার সেমিনারে বক্তব্য দেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। ছবি: নিউজবাংলা
এম এ মান্নান বলেন, ‘সরকারপ্রধান দেশকে তামাকমুক্ত করার ঘোষণা দিয়েছেন। তাই আমি মনে করি ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো বাংলাদেশের (বিএটিবি) পরিচালনা পর্ষদে যেসব সচিব আছেন তাদের সরে আসা উচিত। এই কোম্পানিতে সরকারের যে বিনিয়োগ আছে সেখান থেকেও বের হয়ে আসা দরকার।’

বহুজাতিক সিগারেট কোম্পানি ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো বাংলাদেশের (বিএটিবি) পরিচালনা পর্ষদ থেকে সচিবদের বেরিয়ে আসা উচিত। তামাক নিয়ন্ত্রণ ও সরকারের নীতিতে যাতে কোনো ধরনের হস্তক্ষেপ না হয় সেজন্যই এমন পদক্ষেপ থাকা উচিত।

পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের এনইসি কনফারেন্স রুমে বুধবার এক সেমিনারে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান এসব কথা বলেন।

এম এ মান্নান বলেন, ‘সরকারপ্রধান দেশকে তামাকমুক্ত করার ঘোষণা দিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রীর কমিটমেন্ট মানে আমাদের সবার কমিটমেন্ট। তাই আমি মনে করি ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকোর পরিচালনা পর্ষদে যেসব সচিব আছেন তাদের বের হয়ে আসা উচিত। সময়-সুযোগ হলে বিষয়টি আমি তুলব।’

এছাড়া ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকোতে সরকারের যে বিনিয়োগ আছে সেখান থেকেও বের হয়ে আসা উচিত বলে মনে করেন পরিকল্পনামন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘বিএটিবিতে সরকারের একেবারেই সামান্য শেয়ার আছে। আমি এটা প্রত্যাহারের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ করব।’

মন্ত্রী বলেন, ‘বিদেশে মানি ট্রান্সফারের বিষয়ে শুধু তামাক খাত নয়, অন্য খাতগুলোকেও গুরুত্ব দিয়ে দেখতে হবে। নবম পঞ্চবার্ষিকীতে কীভাবে তামাক নিয়ন্ত্রণের বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত করা যায় তা নিয়ে সবাইকে ভাবতে হবে।’

‘তামাক কোম্পানির সিএসআর: মিথ ও বাস্তবতা’ শীর্ষক এই সেমিনার যৌথভাবে আয়োজন করে ওয়ার্ক ফর বেটার বাংলাদেশ ট্রাস্ট ও ইনিশিয়েটিভ ফর পাবলিক হেলথ রিসার্চ অ্যান্ড কমিউনিকেশন (আইপিএইচআরসি)।

সেমিনারে মূল বক্তব্য উপস্থাপন করেন তামাক নিয়ন্ত্রণ গবেষক ও একাত্তর টেলিভিশনের বিশেষ প্রতিনিধি সুশান্ত সিনহা। তিনি ‘তামাক কোম্পানির সিএসআর, মিথ ও বাস্তবতা: বিএটিবি-র ১০ বছরের আর্থিক প্রতিবেদন বিশ্লেষণ’ শীর্ষক গবেষণার ফল উপস্থাপন করেন।

সুশান্ত সিনহা বলেন, ‘বছরে মাত্র ৬ কোটি টাকা সিএসআর ব্যয় করে ফলাও করে প্রচার করে বিএটিবি। সরকার যখন তামাক নিয়ন্ত্রণে কোনো পদক্ষেপ নেয় তখন সিএসআরে ব্যয় বৃদ্ধি করে বিএটিবি। ইতোমধ্যে বিশ্বের ৬২টি দেশ সিএসআর নিষিদ্ধ করেছে। কিন্তু বাংলাদেশে তামাক কোম্পানি নামে-বেনামে কৌশলে তাদের সিএসআর কার্যক্রম পরিচালনা করছে।’

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার শামীম হায়দার পাটোয়ারী বলেন, ‘আমি যেসব পলিসি নিয়ে কাজ করছি সেগুলো সরকারের জন্য খুবই দরকারি হলেও এসব খাতে তেমন কোনো উন্নতি হয়নি। এনবিআরের কোনো কর্মকর্তা ট্যাক্স নিয়ে কথা শুনতে চান না।’

জাতীয় তামাক নিয়ন্ত্রণ সেল (এনটিসিসি)-এর সমন্বয়কারী (অতিরিক্ত সচিব) হোসেন আলী খোন্দকার বলেন, ‘যখন সরকার তামাক নিয়ন্ত্রণে কোনো পদক্ষেপ নেয় তখন তামাক কোম্পানি সিএসআর বাড়িয়ে দেয়- এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ ফাইন্ডিংস। প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা বাস্তবায়নে এনটিসিসি ইতোমধ্যে রোডম্যাপ প্রণয়নে কাজ শুরু করেছে। সরকারের সব প্রতিষ্ঠানের উচিত প্রধানমন্ত্রীর স্বপ্নের তামাকমুক্ত দেশ গড়ায় সহায়তা করা।’

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. নাসির উদ্দীন আহমেদ বলেন, ‘তামাক কোম্পানির রাজস্ব দেয়া নিয়ে অনেক বিভ্রান্তি হয়। এ খাত থেকে টাকা এলেও জনস্বাস্থ্যের বিষয়টি এড়িয়ে যাওয়া যায় না। তামাকের বিকল্প খাত থেকে রাজস্ব আয় করতে সরকারকে নতুন খাতের খোঁজ করতে হবে।’

আন্তর্জাতিক সংস্থা দ্য ইউনিয়নের কারিগরি পরামর্শক অ্যাডভোকেট সৈয়দ মাহবুবুল আলম তাহিন বলেন, ‘আমরা ট্যাক্স বাড়ানোর কথা বললে তামাক কোম্পানি নানা ধরনের তথ্য প্রচার করে। তারা সিএসআর নিয়ে প্রচার বাড়ায়। তাদের ব্যবসা প্রতিবছর বহু গুণে বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাদের হস্তক্ষেপ বন্ধ করতে হবে।’

আরও পড়ুন:
বিএটিবিসির ইপিএস ২১ নয়, ৭.১৭ টাকা
ব্যাপক মুনাফা দিল বিএটিবিসির শেয়ার
বিএটিসিবির ফ্লোর প্রাইস সমন্বয় যেভাবে
৮০০ শতাংশ লভ্যাংশেও বিএটিবিসির এমন পতন!
বিএটিবিসির শেয়ারের ফ্লোর প্রাইস কত হবে

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
3 officials of Sonali Bank were dismissed on the charges of irregularities and corruption

অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগে সোনালী ব্যাংকের ৩ কর্মকর্তা বরখাস্ত

অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগে সোনালী ব্যাংকের ৩ কর্মকর্তা বরখাস্ত
সোনালী ব্যাংক বেনাপোল শাখার বর্তমান ব্যবস্থাপক সিনিয়র প্রিন্সিপাল অফিসার মহসিন আলী জানান, এ শাখার ৩ কর্মকর্তাকে চাকরি থেকে বরখাস্তের তথ্য বুধবার জানানো হয়েছে। বিভিন্ন সময়ে তাদের অনিয়ম এবং দুর্নীতি তদন্তে ধরা পড়ায় কর্তৃপক্ষ এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগে সোনালী ব্যাংকের বেনাপোল শাখার ব্যবস্থাপকের বদলির পর এবার ৩ কর্মকর্তাকে বরখাস্ত করা হয়েছে।

বুধবার তাদের বরখাস্তের আদেশ দিয়েছে সোনালী ব্যাংক কর্তৃপক্ষ।

এই কর্মকর্তারা হলেন প্রিন্সিপাল অফিসার মহিদুল ইসলাম, সাদেক আলী ও অফিসার (ক্যাশ) দবির হোসেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সোনালী ব্যাংক বেনাপোল শাখার বর্তমান ব্যবস্থাপক সিনিয়র প্রিন্সিপাল অফিসার মহসিন আলী।

তিনি জানান, এ শাখার তিন কর্মকর্তাকে চাকরি থেকে বরখাস্তের তথ্য বুধবার জানানো হয়েছে। বিভিন্ন সময়ে তাদের অনিয়ম এবং দুর্নীতি তদন্তে ধরা পড়ায় কর্তৃপক্ষ এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। বিষয়টি নিয়ে মাঠপর্যায়ে তদন্তের জন্য সোনালী ব্যাংকের একটি দল কাজ করছে।

তিনি আরও জানান, গেল সপ্তাহেই যশোরের প্রধান শাখায় বদলি করা হয়েছে বেনাপোল শাখা ব্যবস্থাপক প্রিন্সিপাল অফিসার আক্তার ফারুককে।

ব্যাংকসূত্রে জানা গেছে, খালিদ এন্টারপ্রাইজ নামে একটি আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান সম্প্রতি একাধিক এলসির মাধ্যমে ভারত থেকে কয়েক কোটি টাকার ফল আমদানি করে। এসব পণ্যের চালানগুলো খালাস নিতে আমদানিকারকের পক্ষে কাস্টম হাউসে বিল অফ এন্ট্রি জমা দেয় বেনাপোলের সিএন্ডএফ এজেন্ট আলেয়া এন্টারপ্রাইজ পরিচালনার দায়িত্বে থাকা মো. শান্ত।

কিন্তু তারা আমদানিপণ্যের বিপরীতে আসা ১ কোটি ৬০ লাখ টাকা শুল্ক পরিশোধ না করেই সোনালী ব্যাংক বেনাপোল শাখার ছাড়পত্র (রিলিজ অর্ডার) নিয়ে আমদানিকরা মালামাল খালাস করে নিয়ে যায়। বিষয়টি বাংলাদেশ ব্যাংকের নজরে এলে তাদের একটি দল গেল সপ্তাহে বেনাপোল সোনালী ব্যাংকে অভিযান চালায়।

সোনালী ব্যাংক যশোর অঞ্চলের উপমহাব্যবস্থাপক মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘আমদানি করা পণ্যের শুল্ক পরিশোধ না করে চালানের কাগজপত্র নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে একটি প্রতিষ্ঠান। পরে আমরা শুল্ক আদায় করেই ছাড়পত্র দিয়েছি। এ ঘটনায় তদন্ত চলছে।

‘তদন্তের স্বার্থে শাখা ব্যবস্থাপক আক্তার ফারুককে গত সপ্তাহে যশোরে বদলি করা হয়েছে। আজ বুধবার আরও তিন কর্মকর্তাকে বরখাস্ত করা হয়েছে। তদন্তে যারা দোষী হবেন তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

আরও পড়ুন:
বেসিক ব্যাংকের অর্থ লোপাট নিয়ে ৩ মাসের মধ্যে প্রতিবেদনের নির্দেশ
টাকায় ঋণ পাবে বিদেশি মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান
সোনালী ব্যাংকের সঙ্গে চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির চুক্তি
কর্মকর্তাদের অনিয়ম, দুর্নীতি ধামাচাপা দেন ডিজিএম
ব্যাংকিং খাত নিয়ে ভিডিওর যথার্থতা যাচাইয়ের নির্দেশ

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Reserves fell below 34 billion

৩৪ বিলিয়নের নিচে নামল রিজার্ভ

৩৪ বিলিয়নের নিচে নামল রিজার্ভ
বাজার স্বাভাবিক রাখতে রিজার্ভ থেকে অব্যাহতভাবে ডলার বিক্রির ফলেই রিজার্ভ কমছে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তা ও অর্থনীতিবিদরা।

আমদানি কমার পরও বাংলাদেশের বিদেশি মুদ্রার সঞ্চয়ন বা রিজার্ভ কমে ৩৪ বিলিয়ন (৩ হাজার ৪০০ কোটি) ডলারের নিচে নেমে এসেছে।

বুধবার রিজার্ভ থেকে রাষ্ট্রায়ত্ত কয়েকটি ব্যাংকের কাছে ৭ কোটি ১০ লাখ ডলার বিক্রির ফলে দিন শেষে অর্থনীতির গুরুত্বপূর্ণ ও স্পর্শকাতর এই সূচক ৩৩ দশমিক ৮৬ বিলিয়ন (৩ হাজার ৩৮৬ কোটি) ডলারে দাঁড়িয়েছে। আগের দিন মঙ্গলবার বিক্রি করা হয়েছিল ১০ কোটি ৯০ লাখ ডলার। সোমবার বিক্রি করা হয় ১৫ কোটি ২০ লাখ ডলার।

বাজার স্বাভাবিক রাখতে রিজার্ভ থেকে অব্যাহতভাবে ডলার বিক্রির ফলেই রিজার্ভ কমছে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তা ও অর্থনীতিবিদরা।

সব মিলিয়ে চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরে পাঁচ মাসে (জুলাই-নভেম্বর) রিজার্ভ থেকে ৬০৫ কোটি (৬.০৫ বিলিয়ন) ডলার বিক্রি করা হয়েছে।

মঙ্গলবার রিজার্ভের পরিমাণ ছিল ৩৪ দশমিক শূন্য ৫ বিলিয়ন ডলার। এক মাস আগে ১ নভেম্বর রিজার্ভ ছিল ৩৫ দশমিক ৭২ বিলিয়ন ডলার; এক বছর আগে গত বছরের ২৩ নভেম্বর এই সূচকের পরিমাণ ছিল ৪৪ দশমিক ৯৫ বিলিয়ন ডলার।

গত বছরের আগস্টে এই রিজার্ভ অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে ৪৮ বিলিয়ন ডলারের মাইলফলক অতিক্রম করেছিল।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য বিশ্লেষণে দেখা যায়, ৭ নভেম্বর রিজার্ভের পরিমাণ ছিল ৩৫ দশমিক ৭৭ বিলিয়ন ডলার। ৮ নভেম্বর এশিয়ান ক্লিয়ারিং ইউনিয়নের (আকু) সেপ্টেম্বর-অক্টোবর মেয়াদের ১৩৫ কোটি (১.৩৫ বিলিয়ন) ডলার আমদানি বিল পরিশোধ করার পর রিজার্ভ নেমে আসে ৩৪ দশমিক ২৮ বিলিয়ন ডলারে।

৩৪ বিলিয়নের নিচে নামল রিজার্ভ

প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্স ও রপ্তানি আয় কমায় রিজার্ভ কমেছে বলে জানিয়েছেন অর্থনীতির গবেষক পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর মনসুর।

নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘সরকার ও কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নানা পদক্ষেপের ফলে আমদানি ব্যয় বেশ কমেছে। এটা একটা ভালো দিক। কিন্তু রিজার্ভের প্রধান দুই উৎস রপ্তানি আয় ও রেমিট্যান্সও কমছে। সেস কারণে আমদানি ব্যয় কমার পরও রিজার্ভ কমছেই।

‘রিজার্ভ কমতে কমতে কিন্তু বেশ নিচে নেমে এসেছে। এক বছরের ব্যবধানে কিন্তু ১২ বিলিয়ন ডলার কমেছে। এই সূচককে আর কমাতে দেওয়া যাবে না। যে করেই হোক রপ্তানি ও রেমিট্যান্স বাড়াতে হবে। ফেব্রুয়ারিতে আইএমএফের ঋণের প্রথম কিস্তি আসবে বলে আত্মতুষ্টিতে ভুগলে চলবে না। যুদ্ধের মধ্যেও রপ্তানি ও রেমিট্যান্স বাড়ানোর পদক্ষেপ নিতে হবে। হুন্ডি বন্ধ করতে হবে।’

কাটছে না রেমিট্যান্সের অশনি গতি

আড়াই বছরের করোনা মহামারি ও রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের মধ্যে দেশের অর্থনীতি নিয়ে নানা উদ্বেগ আর উৎকণ্ঠার মধ্যে রপ্তানি আয় ও রেমিট্যান্স আশার আলো জ্বালিয়ে রেখেছিল। কিন্তু গত সেপ্টেম্বর থেকে রিজার্ভের প্রধান এই দুই সূচকেও দুঃসংবাদ এসেছে।

রিজার্ভ বাড়াতে প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্সে গতি আনতে নানা পদক্ষেপ নিচ্ছে বাংলাদেশ ব্যাংক। অবৈধ হুন্ডি বন্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে; দেশের স্বার্থে জন্য ব্যাংকিং চ্যানেলে টাকা পাঠাতে প্রবাসীদের অনুরোধ করা হচ্ছে।

৩৪ বিলিয়নের নিচে নামল রিজার্ভ

কিন্তু তাতে কোনো ইতিবাচক ফল পাওয়া যাচ্ছে না। বাড়ছে না অর্থনীতিরি গুরুত্বপূর্ণ এই সূচক। সেপ্টেম্বর-অক্টোবরের মতো চলতি নভেম্বর মাসেও প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্সের নিম্নমুখী ধারা অব্যাহত রয়েছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্যে দেখা যায়, চলতি নভেম্বর মাসের প্রথম ২৫ দিনে ১৩৪ কোটি ৭১ লাখ ৫০ হাজার (১.৩৫ বিলিয়ন) ডলার পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। এই হিসাবে প্রতিদিন গড়ে ৫ কোটি ৩৮ লাখ ডলার রেমিট্যান্স এসেছে দেশে।

অথচ চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম দুই মাস জুলাই ও আগস্টে প্রতিদিন গড়ে ৭ কোটি ডলার করে রেমিট্যান্স পাঠিয়েছিলেন প্রবাসীরা।

চলতি মাসের বাকি ৫ দিনে এই হারে রেমিট্যান্স এলে সেপ্টেম্বর-অক্টোবরের মতো নভেম্বর মাসেও দেড় বিলিয়ন ডলারের কিছু বেশি রেমিট্যান্স আসবে।

চলতি অর্থবছরের প্রথম দুই মাসে (জুলাই-আগস্ট) ২ বিলিয়ন ডলারের বেশি রেমিট্যান্স পাঠিয়েছিলেন প্রবাসীরা। জুলাইয়ে এসেছিল ২ দশমিক ১ বিলিয়ন ডলার; যা ছিল আগের ১৪ মাসের মধ্যে সবচেয়ে বেশি। আর গত বছরের জুলাইয়ের চেয়ে বেশি ছিল ১২ শতাংশ। আগস্টে আসে ২ দশমিক শূন্য ৪ বিলিয়ন ডলার। প্রবৃদ্ধি হয়েছিল ১২ দশমিক ৬০ শতাংশ। ওই দুই মাসে মোট রেমিট্যান্স এসেছিল ৪ দশমিক ১৩ বিলিয়ন ডলার। গত অর্থবছরের একই সময়ের চেয়ে যা ছিল ১২ দশমিক ৩০ শতাংশ বেশি।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্যে দেখা যায়, গত সেপ্টেম্বরে বিভিন্ন দেশে অবস্থানকারী প্রবাসীরা ১৫৩ কোটি ৯৫ লাখ ডলার দেশে পাঠিয়েছেন, যা ছিল গত বছরের সেপ্টেম্বরের চেয়ে ১০ দশমিক ৮৪ শতাংশ কম। ২০২১ সালের সেপ্টেম্বরে ১৭২ কোটি ৬৭ লাখ ডলার এসেছিল। পরের মাস অক্টোবরে এসেছিল ১৫২ কোটি ৫৪ লাখ ডলার। এ মাসে ১৫২ কোটি ৫৪ লাখ (১.৫২ বিলিয়ন) ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা, যা গত আট মাসের মধ্যে সবচেয়ে কম।

গত বছরের অক্টোবরে ১৬৪ কোটি ৬৯ লাখ (১.৬৪ বিলিয়ন) ডলার এসেছিল। আগের মাস সেপ্টেম্বরে এসেছিল ১৫৪ কোটি ডলার। এ হিসাবে গত বছরের অক্টোবরের চেয়ে এই অক্টোবরে ৭ দশমিক ৩৭ শতাংশ রেমিট্যান্স কম এসেছে। আর সেপ্টেম্বরের চেয়ে কম এসেছে ১ শতাংশের মতো।

গত ফেব্রুয়ারিতে ১৪৯ কোটি ৪৪ লাখ (১.৪৯ বিলিয়ন) ডলার পাঠিয়েছিলেন প্রবাসীরা। এর আট মাস পর সর্বনিম্ন রেমিট্যান্স আসে অক্টোবরে।

তবে ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম চার মাসের (জুলাই-অক্টোবর) হিসাবে রেমিট্যান্স প্রবাহে এখনো প্রবৃদ্ধি ধরে রেখেছে বাংলাদেশ। এই চার মাসে ১১৯ কোটি ৮৩ লাখ ডলার পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। এই অঙ্ক গত বছরের একই সময়ের চেয়ে ২ শতাংশ বেশি।

রপ্তানি আয়েও হোঁচট

গত অর্থবছরের ধারাবাহিকতায় চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম দুই মাসেও (জুলাই-আগস্ট) রপ্তানি আয়ে প্রবৃদ্ধি হয়েছিল ২৫ দশমিক ৩১ শতাংশ। তবে সেপ্টেম্বরে ৬ দশমিক ২৫ শতাংশ নেতিবাচক প্রবৃদ্ধি হয়েছে। অক্টোবর মাসে রপ্তানি আয় কমেছে প্রায় ৮ শতাংশ।

৩৪ বিলিয়নের নিচে নামল রিজার্ভ

আর এই দুই সূচকে নেতিবাচক ধারার কারণেই আমদানি ব্যয় কমার পরও রিজার্ভ নেমেছে ৩৪ বিলিয়ন ডলারে। ২০২০ সালের ৩০ জুনের পর যা সর্বনিম্ন। গত সেপ্টেম্বর মাসে আমদানি খাতে ব্যয় হয়েছে ৬ দশমিক ৬৫ বিলিয়ন ডলার। এ হিসাবে বর্তমানের রিজার্ভ দিয়ে পাঁচ মাসের কিছু বেশি সময়ের আমদানি ব্যয় মেটানো সম্ভব।

আমদানি কমছে

কয়েক মাস আগেও অর্থনীতির উদ্বেগজনক সূচক ছিল অস্বাভাবিক আমদানি। গত অর্থবছরে আগের বছরের চেয়ে আমদানি খাতে প্রায় ৪০ শতাংশ বেশি ডলার খরচ হয়েছিল। চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম তিন মাসে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) সেই প্রবৃদ্ধি নেমে এসেছে ১১ দশমিক ৭ শতাংশে। আরও খুশির খবর হচ্ছে, এই তিন মাসে পণ্য আমদানির ঋণপত্র বা এলসি খোলার পরিমাণ কমেছে ৮ দশমিক ৫৭ শতাংশ।

হুন্ডি বাড়ায় কমছে রেমিট্যান্স

আহসান এইচ মনসুর বলেন, ‘ব্যাংকিং চ্যানেলের বদলে অবৈধভাবে হুন্ডিতে অর্থ পাঠানোর কারণ, সেখানে ডলারের দর বেশি পাওয়া যায়। প্রতি ডলারের বিপরীতে তিন থেকে চার টাকার ব্যবধান অনেককেই এভাবে অর্থ পাঠানোতে আগ্রহী করছে।’

তিনি বলেন, খোলাবাজার বা কার্ব মার্কেটে ডলারের দর এখন ১১২ থেকে টাকা। ব্যাংকের মাধ্যমে রেমিট্যান্স পাঠালে ১০৭ টাকা পাওয়া যায়। তার সঙ্গে আড়াই শতাংশ প্রণোদনা যোগ হয়ে পাওয়া যায় ১০৯ টাকা ৫০ পয়সা। আর হুন্ডির মাধ্যমে রেমিট্যান্স পাঠালে, যার নামে পাঠান তিনি ১১৩ টাকা পর্যন্ত পাচ্ছেন।

সে কারণেই সাম্প্রতিক সময়ে হুন্ডির মাধ্যমে রেমিট্যান্স পাঠানোর পরিমাণ বেড়ে গেছে বলে মনে করছেন আহসান এইচ মনসুর। তার মূল্যায়ন, এ কারণেই ব্যাংকিং চ্যানেলে রেমিট্যান্স কম আসছে।

দীর্ঘ সময় আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করে আসা আহসান মনসুর বলেন, ‘মূলত হুন্ডি বেড়ে যাওয়ার কারণেই এই সূচক কমছে। এটা বন্ধ করতে হবে। হুন্ডি কারবারকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে। তা না হলে কিন্তু রেমিট্যান্স বাড়বে না; রিজার্ভ আরও কমে যাবে।’

৩৪ বিলিয়নের নিচে নামল রিজার্ভ

৫ মাসে ৬ বিলিয়ন ডলার বিক্রি

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্যে দেখা যায় গত ১ জুলাই থেকে শুরু হওয়া ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম পাঁচ মাসে (জুলাই-নভেম্বর) রিজার্ভ থেকে ব্যাংকগুলোর কাছে মোট ৬ দশমিক শূন্য পাঁচ বিলিয়ন ডলার বিক্রি করা হয়েছে।

মুদ্রাবাজার স্বাভাবিক রাখতে গত ২০২১-২২ অর্থবছরে রিজার্ভ থেকে ৭৬২ কোটি ১০ লাখ (৭.৬২ বিলিয়ন) ডলার বিক্রি করেছিল বাংলাদেশ ব্যাংক। এর বিপরীতে বাজার থেকে ৭০ হাজার কোটি টাকার মতো তুলে নেয়া হয়েছে।

বাংলাদেশের ইতিহাসে এর আগে কখনই কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে এত ডলার বাজারে ছাড়া হয়নি। এরপরও বাজারের অস্থিরতা কাটছে না। বেড়েই চলেছে যুক্তরাষ্ট্রের মুদ্রাটির দর। দুর্বল হচ্ছে টাকা।

অথচ তার আগে ২০২১-২২ অর্থবছরে বাজার থেকে প্রায় ৮ বিলিয়ন ডলার কিনেছিল কেন্দ্রীয় ব্যাংক। সেই অঙ্কও ছিল অতীতের যে কোনো সময়ের চেয়ে বেশি।

আরও পড়ুন:
রেমিট্যান্সে ভাটায় ‘হুন্ডির প্রভাব’, রিজার্ভ আরও কমার শঙ্কা
৩৪ বিলিয়নে নামল রিজার্ভ
৪ মাসেই ৫ বিলিয়ন বিক্রি, তারপরও ডলার নেই ব্যাংকে
রিজার্ভ থেকে ডলার পাবে না বেসরকারি ব্যাংকগুলো
রিজার্ভ এখনও বিএনপি আমলের ১২ গুণ: তথ্যমন্ত্রী

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
NBR in search of new taxpayers in big cities

বড় শহরে নতুন করদাতার সন্ধানে এনবিআর

বড় শহরে নতুন করদাতার সন্ধানে এনবিআর সেগুনবাগিচায় এনবিআর কার্যালয়ে বুধবার আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন এনবিআর চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম। ছবি: নিউজবাংলা
এনবিআর চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম বলেন, ‘সম্ভাব্য করদাতা গাড়ির মালিকদের খুঁজে বের করতে ইতোমধ্যে বিআরটিএ-র সঙ্গে কাজ শুরু হয়েছে। আর বাড়ি ও ফ্ল্যাটের মালিকদের শনাক্ত করতে ডিপিডিসির কাছে তথ্য চাওয়া হয়েছে। এসব উদ্যোগের ফলে নতুন করদাতা বাড়বে আশা করা যায়।’

করের আওতা বাড়াতে রাজধানী ঢাকা ও এর বাইরে দেশের বড় বড় শহরে নতুন করদাতা খুঁজে বের করার উদ্যোগ নিয়েছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড-এনবিআর। বড় বড় শহরগুলোতে যাদের বাড়ি-গাড়ি আছে কিংবা ফ্ল্যাটের মালিক কিন্তু করের আওতায় নেই, তাদেরকে শনাক্ত করে করের আওতায় আনা হচ্ছে।

এনবিআর চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম বুধবার জাতীয় আয়কর দিবস উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে এসব কথা জানান।

সেগুনবাগিচায় এনবিআর কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে এই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন কম্পট্রোলার অডিটর জেনারেল-সিএজি মোহাম্মদ মুসলিম চৌধুরী।

অনুষ্ঠানে ‘প্রত্যক্ষ কর ব্যবস্থাপনা ও কর নেট সম্প্রসারণ: প্রাসঙ্গিক ভাবনা’ মূল প্রবন্ধ উপস্হাপন করেন এনবিআর সদস্য (কর-নীতি) ড. সামস উদ্দিন আহমেদ।

বক্তব্য দেন এনবিআরের সদস্য (শুল্ক নীতি) মাসুদ সাদিক, সদস্য প্রদ্যুৎ কুমার ও কর কমিশনার ফজুলল হক।

আয়কর আদায় বাড়াতে ডিজিটালাইজেশনের ওপর গুরুত্বারোপ করে সিএজি বলেন, ‘এটি নিশ্চিত করা হলে কর কর্মকর্তাদের অযাচিত হস্তক্ষেপ আর থাকবে না। কর আদায় ব্যবস্থা সহজ করতে হলে ডিজিটালাইজেশনের কোন বিকল্প নেই।’

বিদেশি পরামর্শকের পরিবর্তে দেশীয় কর্মকর্তাদের দিয়ে ডিজিটালাইজেশন করার পরামর্শ দেন তিনি।

এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, ‘ডিজিটাল সংযোগের মাধ্যমে করদাতা শনাক্তকরণে বেশি গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। এ লক্ষ্যে বিদ্যুৎ বিতরণ কোম্পানি ডিপিডিসি, বিআরটিএ-র সঙ্গে সমঝোতা স্মারক চুক্তি করেছি। তিতাসসহ আরও কয়েকটি সরকারি সংস্থার সঙ্গে চুক্তি করা হবে। ডোর টু ডোর না গিয়ে ডিজিটাল সংযোগের মাধ্যমে এ কাজটি করা হচ্ছে, যাতে করদাতাদের মাঝে কোনো ধরনের ভয়ভীতির সৃষ্টি না হয়।’

তিনি জানান, সম্ভাব্য করদাতা গাড়ির মালিকদের খুঁজে বের করতে ইতোমধ্যে বিআরটিএ-র সঙ্গে কাজ শুরু হয়েছে। আর বাড়ি ও ফ্ল্যাটের মালিকদের শনাক্ত করতে ডিপিডিসির কাছে তথ্য চাওয়া হয়েছে। এসব উদ্যোগের ফলে নতুন করদাতা বাড়বে আশা করা যায়।

এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, ‘বর্তমানে মোট রাজস্বে আয়করের অংশ ৩৪ শতাংশ। আমরা এটাকে ৫০ শতাংশে উন্নীত করার লক্ষ্য স্থির করেছি। এই লক্ষ্য অর্জন করতে হলে করের আওতা বাড়ানোর বিকল্প নেই। এ জন্য ডিজিটালাইজেশনের ওপর জোর দেয়া হয়েছে।

‘গতানুগতিক প্রক্রিয়ায় কর আহরণ বাড়ানো যাবে না। প্রয়োজন বড় ধরনের সংস্কার। কর ব্যবস্থাকে যত সহজ করা যাবে নেট তত বেশি বাড়বে। সে লক্ষ্যে কাজ করছে এনবিআর।’

আয়কর আইন খুবই জটিল মন্তব্য করে এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, ‘এটা সহজ করা কঠিন। তবে সংস্কারের সুযোগ আছে। বিগত সময়ে যেসব সংস্কার হয়েছে সেগুলো সফল হয়নি। এখন থেকে যেসব সংস্কার করা হবে সেগুলো কার্যকর হবে। আমরা নিজেরাই নিজেদের মতো করে সংস্কার করব।’

আরও পড়ুন:
পুঁজিবাজারের লভ্যাংশে করমুক্তির দাবি
৩২৭ কোটিতে তিন কাস্টম হাউসে বসছে ৬ অত্যাধুনিক স্ক্যানার
কাস্টমসের ওয়ান স্টপ সেবা মিলবে কবে?
ভ্যাট: ৫০ শীর্ষ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এনবিআর নজরদারিতে
শুরু হলো কর সেবা মাস

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Income tax return submission time extended by one month

আয়কর রিটার্ন জমার সময় বাড়ল এক মাস

আয়কর রিটার্ন জমার সময় বাড়ল এক মাস করমেলায় অংশ নেয়া করদাতাদের একাংশ। ফাইল ছবি
এনবিআরের প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, ‘বিদ্যমান আয়কর আইন অনুযায়ী ব্যক্তিশ্রেণির করদাতার ২০২২-২৩ করবর্ষের আয়কর রিটার্ন দাখিলের সময়সীমা ৩০ নভেম্বর থেকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত বর্ধিত করা হলো।’

ব্যক্তিশ্রেণির করদাতাদের বার্ষিক আয়কর রিটার্ন জমার সময় আগামী ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত বাড়িয়েছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)।

এ সিদ্ধান্তের ফলে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত করদাতারা তাদের রিটার্ন জমা দিতে পারবেন।

এনবিআর বুধবার দুপুরে এ বিষয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে।

এতে বলা হয়, ‘বিদ্যমান আয়কর আইন অনুযায়ী ব্যক্তিশ্রেণির করদাতার ২০২২-২৩ করবর্ষের আয়কর রিটার্ন দাখিলের সময়সীমা ৩০ নভেম্বর থেকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত বর্ধিত করা হলো।’

এনবিআর বলেছে, ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইসহ সংশ্লিষ্ট অংশীজনদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনা করে সময় বাড়ানো হয়েছে।

এর আগে এনবিআরের চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম সময় বাড়ানোর আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেন।

তিনি বলেন, ‘করদাতাদের সুবিধার্থে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময় বাড়ানো হলো। এরপর আর সুযোগ দেয়া হবে না।’

গত বছর ২৫ লাখ করদাতা আয়কর রিটার্ন জমা দিয়েছেন। এবারের বাজেটে ৩৯ ধরনের সেবা নিতে আয়কর রিটার্নের সঙ্গে প্রমাণপত্র দেখানো বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

এনবিআর চেয়ারম্যান জানান, এসব পদক্ষেপের ফলে আশা করা হচ্ছে ২০২২-২৩ করবর্ষ গতবারের চেয়ে বেশি রিটার্ন জমা পড়বে।

এনবিআর কর্মকর্তাদের প্রত্যাশা, এবার ৩৫ লাখ রিটার্ন জমা পড়বে।

আরও পড়ুন:
রিটার্ন বাড়লেও আয়কর আদায় কম
অনলাইনে আয়কর রিটার্ন চালু
আয়কর রিটার্ন জমার সময় বাড়ল ১ মাস
অনলাইনে রিটার্ন জমা দিলে ২ হাজার টাকা কর ছাড়
এবার সীমিত পরিসরে অনলাইনে আয়কর রিটার্ন জমা

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Green channel open in all ports in April

এপ্রিলে সব বন্দরে ‘গ্রিন চ্যানেল’ চালু

এপ্রিলে সব বন্দরে ‘গ্রিন চ্যানেল’ চালু চট্টগ্রাম বন্দরে রাখা সারি সারি কনটেইনার। ছবি: নিউজবাংলা
এনবিআরের কাস্টমস নিরীক্ষা মূল্যায়ন কমিশনারেটের কমিশনার এনামূল হক নিউজবাংলাকে বলেন, ‘যাকে তাকে গ্রিন চ্যানেল ব্যবহারের সুবিধা দেয়া যায় না। অতীত রেকর্ড স্বচ্ছ, কোনো ধরনের মামলা-মোকদ্দমা নেই, নিয়মিত কর দিয়েছে এমন প্রতিষ্ঠানকে অগ্রাধিকার দেয়া হয়েছে। যেসব প্রতিষ্ঠান গ্রিন চ্যানেল ব্যবহারের সুবিধা পেয়েছে, তাদের কাস্টমসে কোনো পরীক্ষার সম্মুখীন হতে হবে না। ফলে তাদের পণ্য-আনা নেয়া সহজ হবে এবং ব্যবসার খরচ কমবে।’

আগামী বছরের এপ্রিলে সব বন্দরে ‘গ্রিন চ্যানেল’ চালু করছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। এতে ব্যবসায়ীদের আর্থিক ব্যয় ও সময় কমবে।

এনবিআর সূত্র বলেছে, সুনামের সঙ্গে ব্যবসা করছে এবং অতীত রেকর্ড ভালো এমন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো এ ‘গ্রিন চ্যানেল’ সুবিধা পাবে। আর যোগ্য প্রতিষ্ঠান নিবার্চনের জন্য একটি নীতিমালা তৈরি করা হয়েছে। তার আলোকেই সুবিধাভোগী প্রতিষ্ঠান নির্বাচন করা হবে।

গ্রিন চ্যানেল ব্যবহার করলে আমদানি-রপ্তানি পণ্যের কায়িক কোনো পরীক্ষার প্রয়োজন পড়বে না। বন্দরে জাহাজ ভেড়ার পর বিল অফ এন্ট্রি দাখিল করলেই প্রযোজ্য শুল্ক-কর পরিশোধ করে দ্রুত পণ্য খালাস করা যাবে। একইভাবে রপ্তানিকারকরাও তাদের পণ্য দ্রুত শিপমেন্ট করতে পারবেন।

এনবিআর কর্মকর্তা বলেন, যেসব দেশীয় প্রতিষ্ঠান গ্রিন চ্যানেল ব্যবহারের সুবিধা পাবে, তাদের মালামাল খালাস ২৪ ঘণ্টার মধ্যে হবে। সে সুবাদে বন্দরে মালামাল আটকে থাকার জন্য যে ক্ষতি হয়, তা থেকে পরিত্রাণ পাওয়া যাবে। পণ্য লোড-আনলোড বা ওঠানামার খরচ লাগবে না। লিড টাইম (ক্রেতার কাছে পণ্য পৌঁছাতে) কমবে। ফলে ব্যবসা-বাণিজ্য সহজ হওয়ার পাশাপাশি খরচ কমবে।

তারা আরও বলেন, কাস্টমসকে আধুনিকায়ন করতে বেশ কিছু উদ্যোগ নিয়েছে এনবিআর। তারই অংশ হিসেবে গ্রিন চ্যানলে চালু করা হচ্ছে। অথরাইজড ইকনোমিক অপারেটর বা এইওর আওতায় এটি চালু করা হচ্ছে।

কাস্টমসকে আধুনিকায়ন করার লক্ষ্যে অথরাইজড ইকনোমিক অপারেটর চালু করা হয় ২০১৯ সালে। এটি চালুর উদ্দেশ্য হলো আমদানি পণ্য দ্রুত খালাস ও রপ্তানি পণ্য দ্রুত শিপমেন্ট করা। যেসব প্রতিষ্ঠান যোগ্য বিবেচিত হবে, শুধু তারাই গ্রিন চ্যানেল ব্যবহার করতে পারবে।

বিশ্ব শুল্ক সংস্থা (ডব্লিউওসি) ২০০৫ সালে পণ্যের নির্বিঘ্ন চলাচলের জন্য এইও কর্মসূচি চালু করে। কাস্টমসের আনুষ্ঠানিকতা সহজ করার লক্ষ্যে বাংলাদেশ সরকার ২০১৭ সালে বিদ্যমান শুল্ক আইন সংশোধন করে।

২০১৮ সালে এনবিআর এইও সুবিধা পাওয়ার মানদণ্ড উল্লেখ করে একটি আদেশ জারি করে। পরের বছর ওষুধ খাতের তিনটি প্রতিষ্ঠানকে এ সুবিধা দেয়া হয়। যদিও প্রতিষ্ঠানগুলো এখনও গ্রিন চ্যানেলের সুবিধা পায়নি।

সূত্র বলেছে, এ পর্যন্ত ৬১টি প্রতিষ্ঠান অথরাইজড ইকনোমিক অপারেটর (গ্রিন চ্যানেল) সুবিধা পাওয়ার জন্য এনবিআরের কাছে আবেদন করেছে। এর মধ্যে ২৪টিকে যোগ্য বলে বিবেচনায় নেয়া হয়েছে।

অথরাইজড ইকনোমিক অপারেটর প্রক্রিয়ার সঙ্গে এনবিআরের কাস্টমস নিরীক্ষা মূল্যায়ন কমিশনারেট যুক্ত।

কমিশনার এনামূল হক নিউজবাংলাকে বলেন, ‘যাকে তাকে গ্রিন চ্যানেল ব্যবহারের সুবিধা দেয়া যায় না। অতীত রেকর্ড স্বচ্ছ, কোনো ধরনের মামলা-মোকদ্দমা নেই, নিয়মিত কর দিয়েছে এমন প্রতিষ্ঠানকে অগ্রাধিকার দেয়া হয়েছে।

‘যেসব প্রতিষ্ঠান গ্রিন চ্যানেল ব্যবহারের সুবিধা পেয়েছে, তাদের কাস্টমসে কোনো পরীক্ষার সম্মুখীন হতে হবে না। ফলে তাদের পণ্য আনা-নেয়া সহজ হবে এবং ব্যবসার খরচ কমবে।’

এ পর্যন্ত তিনটি প্রতিষ্ঠানকে অথরাইজড ইকনোমিক অপারেটরের মর্যাদা দেয়া হয়েছে। এগুলো হলো বেক্সিমকো, স্কয়ার ও ইনসেপটা। যদিও সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলো বলেছে, পণ্য খালাসে কোনো হেরফের হয়নি এখনও।

এনবিআর বলেছে, এইও চালুর জন্য কিছু প্রক্রিয়া অসম্পূর্ণ রয়ে গেছে। আশা করা যাচ্ছে, এপ্রিলে এটি চালু করা যাবে।

কাস্টমস সূত্র বলেছে, আরও তিনটি প্রতিষ্ঠানকে গ্রিন চ্যানেল ব্যবহারের জন্য নির্বাচন করা হয়েছে। শিগগিরই তাদের অনুমোদন দেবে এনবিআর। পাইপলাইনে আছে আরও পাঁচটি প্রতিষ্ঠান।

কাস্টমস নিরীক্ষা অফিস সূত্রে জানা যায়, যারা গ্রিন চ্যানেল ব্যবহারের অনুমতি পাবে, তাদের আমদানি-রপ্তানি সংক্রান্ত তথ্য দেখভাল করার জন্য বিশেষ সফটওয়্যার ডেভেলপ করা হচ্ছে। এই সফটওয়্যার এনবিআরের এসআই কুডা সিস্টেমের সঙ্গে ডিজিটাল সংযোগ বা কানেক্ট করা হবে। এটা করা হলে যোগ্য প্রতিষ্ঠানগুলোকে কেন্দ্রীয়ভাবে এনবিআরে বসে‌ই নিয়ন্ত্রণ করা যাবে।

কমিশনার এনামূল হক বলেন, ‘ডিজিটাল সংযোগ করা হলে বন্দরে পণ্য খালাসের সময় ফিজিক্যাল ভেরিফিকেশনের দরকার হবে না। অফিসে বসেই মনিটর করা যাবে।’

কয়েকটি নির্দিষ্ট মানদণ্ডের ভিত্তিতে এইও সুবিধা দেয়া হয়। এর মধ্যে কাস্টমস, ভ্যাট ও আয়কর আইনের আওতায় সন্তোষজনক কমপ্লায়েন্স রেকর্ড থাকতে হবে। আবেদনকারীকে আগের তিন বছর অপরাধমুক্ত থাকতে হবে। কোনো রাজস্ব বকেয়া থাকা যাবে না; যেকোনো মামলায় জরিমানার পরিমাণ মোট পণ্য বা সেবামূল্যের ১ শতাংশের বেশি হওয়া যাবে না।

এ ছাড়া আবেদনকারী প্রতিষ্ঠানের অনুমোদিত মূলধন কমপক্ষে ১৫ কোটি টাকা ও পরিশোধিত মূলধন অন্তত ৫ কোটি টাকা হতে হবে। আর বার্ষিক আমদানি-রপ্তানির পরিমাণ ন্যূনতম ৫ কোটি টাকা হতে হবে।

এ ব্যবস্থা পরীক্ষামূলক চালু হওয়ার সময় এনবিআরের পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল, এক মাসের মধ্যে টেক্সটাইল, ওষুধ ও চামড়া খাতকে অগ্রাধিকার দিয়ে আরও ১০টি প্রতিষ্ঠানকে এইও সনদ দেয়ার জন্য বাছাই করা হবে, কিন্তু এখন পর্যন্ত তিনটি প্রতিষ্ঠানকে এইওর আওতায় আনা হয়েছে।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, এনবিআর প্রক্রিয়াটি আরও উন্নত ও জনপ্রিয় করতে না পারায় অথরাইজড ইকোনমিক অপারেটর উদ্যোগে ভাটা পড়ে। তা ছাড়া কাস্টমস কর্মকর্তাদের মনোভাব পরির্বতন করা দরকার।

এদিকে সুবিধাভোগী প্রতিষ্ঠানগুলোর কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, কাস্টমস ক্লিয়ারেন্সে এখনও আগের মতোই তিন থেকে চার দিন সময় লাগছে। এ জন্য কাস্টমসের আমলাতান্ত্রিক জটিলতাকে দায়ী করেন তারা।

এ বিষয়ে এনবিআরের এক কর্মকর্তা নিউজবাংলাকে বলেন, সনদপ্রাপ্ত ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য বিশেষ সফটওয়্যার ব্যবহার বাধ্যতামূলক করা হলেও তারা তা করছে না। সে কারণে এইও সুবিধা পাচ্ছে না কোম্পানিগুলো।

ডব্লিউসিওর তথ্য বলছে, যুক্তরাষ্ট্রে এইও সনদ পাওয়া প্রতিষ্ঠান ১১ হাজার ২০টি। ইউরোপীয় ইউনিয়নে (ইইউ) ১৭ হাজার ৮৯৫টি, চীনে ৩ হাজার ২০৩টি, দক্ষিণ কোরিয়ায় ৮৪৫টি এবং জাপানে ৭০৬টি।

বিশ্বব্যাংকের সবশেষ ২০২০ সালের ‘ইজ অফ ডুয়িং বিজনেস’ প্রতিবেদনে ১৯০টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ১৬৮তম। কাস্টমস ও বন্দরে দক্ষতার অভাব বাংলাদেশের এই পিছিয়ে থাকার অন্যতম কারণ।

এ ছাড়া বিশ্বব্যাংকের ২০১৮ সালের লজিস্টিক পারফরম্যান্স ইনডেক্স (এলপিআই) অনুযায়ী চীন, ভিয়েতনাম, ভারত, কম্বোডিয়াসহ প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী দেশগুলোর চেয়ে পিছিয়ে বাংলাদেশ। এই সূচকেও বাংলাদেশ কাস্টমস ক্লিয়ারেন্সে সবচেয়ে খারাপ পারফরম্যান্স করেছিল।

এমন বাস্তবতায় বাংলাদেশ নিটওয়্যার ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিকেএমইএ) নির্বাহী সভাপতি মোহাম্মদ হাতেম আরও বেশিসংখ্যক প্রতিষ্ঠানকে এইও সনদ দেয়ার দাবি জানিয়ে বলেন, ‘এ উদ্যোগ বন্দরে জট কমানোর পাশাপাশি ব্যবসায় সময় ও খরচ কমাতে সাহায্য করবে।’

আরও পড়ুন:
শাহজালাল বিমানবন্দরে মশা নিধনে ব্যবস্থা নিতে হাইকোর্টের নির্দেশ
রিজার্ভ কেউ চিবিয়ে খায়নি: প্রধানমন্ত্রী
দ্রুত পণ্য খালাসের উদ্যোগে সাড়া নেই
৩ কেজি স্বর্ণসহ দুবাইফেরত দুই যাত্রী গ্রেপ্তার
গ্রিড বিপর্যয়েও সচল বন্দর

মন্তব্য

p
উপরে