× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

অর্থ-বাণিজ্য
Orion Beximcos bid loss impacts index trading
hear-news
player
google_news print-icon

ওরিয়ন-বেক্সিমকোর আবেদন হারানোর প্রভাব সূচক-লেনদেনে

ওরিয়ন-বেক্সিমকোর-আবেদন-হারানোর-প্রভাব-সূচক-লেনদেনে
সব মিলিয়ে সূচক কমেছে ১৩.২৩ শতাংশ। আর দুই গ্রুপের চার কোম্পানি কমিয়েছে ১২.৬৪ পয়েন্ট। এর মধ্যে বেক্সিমকো লিমিটেডের ১.২২ শতাংশ দরপতনে সূচক কমেছে ৪.৬৬ পয়েন্ট। ওরিয়ন ফার্মার দর ৩.১৮ শতাংশ কমায় সূচক কমেছে ৩.৪২ পয়েন্ট। বেক্সিমকো ফার্মার ১.১৮ শতাংশ দরপতনে সূচক পড়েছে ২.৯৬ পয়েন্ট। আর কোহিনূর কেমিক্যালসের দর ৩.০৫ শতাংশ কমায় সূচক কমেছে ১.৬ পয়েন্ট।

সপ্তাহের প্রথম দিন বাড়লেও পরের দিনই সূচক ও লেনদেনের পতন হল ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই)। সার্বিক সূচক ডিএসইএক্স ১৩ পয়েন্ট কমার দিন লেনদেন কমেছে আড়াই শ কোটি টাকার মতো।

আগের দিন দর হারানো কোম্পানির চেয়ে দর বৃদ্ধি পাওয়া কোম্পানির সংখ্যা বেশি দেখা গেলেও সোমবার ছিল উল্টো চিত্র। এদিন দর বেড়েছে ৭৪টি কোম্পানির, আর হারিয়েছে ১২২টি। আর সবচেয়ে বেশি ১৭৮টি কোম্পানির শেয়ার লেনদেন হয়েছে আগের দিনের দরে, সেগুলোর মধ্যে হাতে গোনা এক দুইটি ছাড়া সবগুলোই বেঁধে দেয়া সর্বনিম্ন দর বা ফ্লোর প্রাইসে রয়েছে।

প্রভাব কমছে বেক্সিমকো ও ওরিয়ন গ্রুপের

প্রায় দুই মাস ধরে চাঙ্গা থাকা ওরিয়ন ও বেক্সিমকো গ্রুপের কোম্পানিগুলো দর হারানে থাকার প্রভাব পড়েছে গোটা বাজারে।

দুই গ্রুপের দুই কোম্পানি বেক্সিমকো লিমিটে ও ওরিয়ন ফার্মায় লেনদেন নেমে এসেছে এক শ কোটি টাকার নিচে, যা কিছুদিন আগে এক দিনে আড়াইশ কোটি ছাড়িয়ে লেনদেন হয়েছে।

সূচক যতটুকু কমেছে, তার মধ্যে সবচেয়ে বেশি কমিয়েছে দুই গ্রুপের চার কোম্পানি। এগুলো হলো বেক্সিমকো লিমিটেড, ওরিয়ন ফার্মা, বেক্সিমকো ফার্মা ও কোহিনূর কেমিক্যালস।

এই চার কোম্পানিই সূচক কমিয়েছে ১২.৬৪ পয়েন্ট, যা সামগ্রিক পতনের ৯৫ শতাংশেরও বেশি।

বেক্সিমকো লিমিটেডের ১.২২ শতাংশ দরপতনে সূচক কমেছে ৪.৬৬ পয়েন্ট।

ওরিয়ন ফার্মার দর ৩.১৮ শতাংশ কমায় সূচক কমেছে ৩.৪২ পয়েন্ট।

বেক্সিমকো ফার্মার ১.১৮ শতাংশ দরপতনে সূচক পড়েছে ২.৯৬ পয়েন্ট। আর কোহিনূর কেমিক্যালসের দর ৩.০৫ শতাংশ কমায় সূচক কমেছে ১.৬ পয়েন্ট।

গত ৩১ জুলাই থেকে পুঁজিবাজারে সূচকের যে উত্থান দেখা গিয়েছিল, তার পেছনে প্রধানভাবে ভূমিকায় ছিল এই গ্রুপের ছয় কোম্পানি। এসব কোম্পানির মধ্যে সবচেয়ে বেশি দর বৃদ্ধি পাওয়া ওরিয়ন ইনফিউশনের দর এদিনও বেড়েছে। তিন মাস আগেও ৮০ টাকার ধরে লেনদেন হওয়া কোম্পানিটির দর এখন ৬৫২ টাকা। গ্রপের অন্য কোম্পানিগুলো দর হারালেও স্বল্প মূলধনি কোম্পানিটির দর বেড়েছে সাড়ে ৫ শতাংশ।

তবে দুই গ্রুপের যেসব কোম্পানি এদিন দর হারিয়েছে, তাদের পরিশোধিত মূলধন বেশি হওয়ায় সূচকে প্রভাব থাকে বেশি। এর মধ্যে ওরিয়ন ফার্মা গত এক মাসে তার সর্বোচ্চ দর ১৫৬ টাকা ৫০ পয়সা থেকে নেমে এসেছে ১৩৪ টাকায়।

ওরিয়ন-বেক্সিমকোর আবেদন হারানোর প্রভাব সূচক-লেনদেনে
সোমবার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে লেনদেনের চিত্র

বেক্সিমকো লিমিটেড গত এক মাসে তার সর্বোচ্চ দর ১৪৫ টাকা থেকে নেমে এসেছে ১২৯ টাকা ৯০ পয়সায়।

বেক্সিমকো ফার্মার শেয়ার গত এক মাসে ১৯৫ টাকা ছাড়িয়েও লেনদেন হয়েছে সেটি এখন নেমে এসেছে ১৬৭ টাকা ৮০ পয়সায়।

কোহিনূর কেমিক্যালস গত এক মাসে মাসে তার সর্বোচ্চ দর ৭৫৭ টাকা ৪০ পয়সা থেকে নেমে এসেছে ৬০১ টাকা ৪০ পয়সায়।

ওরিয়ন গ্রুপের আরেক কোম্পানি বিকন ফার্মা এদিন দর ধরে রাখতে পারলেও চলতি মাসের সর্বোচ্চ দর ৩৯৩ টাকা থেকে তা অনেকটাই কম, ৩২২ টাকা ২০ পয়সা।

দর হারানোর সঙ্গে সঙ্গে কোম্পানিগুলোতে লেনদেনও কমছে।

বেক্সিমকো লিমিটেডের ২ কোটি ৩৮ লাখেরও বেশি শেয়ার হাতবদল হয় গত ২০ সেপ্টেম্বর। সেটি এখন ৫৪ লাখ ৮২ হাজারে।

গত ২০ সেপ্টেম্বর ওরিয়ন ফার্মার প্রায় ২ কোটি ২০ লাখ শেয়ার হাতবদল হয়। সেটি এখন নেমে এসেছে ৬০ লাখে।

বেক্সিমকো ফার্মার প্রায় ৩০ লাখ শেয়ার হাতবদল হয়েছে গত ৭ সেপ্টেম্বর। সেটি নেমে এসেছে ২ লাখ ৮০ হাজার ২৬৭টিতে।

বিকন ফার্মার ৬ লাখ ৬১ হাজার শেয়ার হাতবদল হয়েছিল গত ১৮ সেপ্টেম্বর। সেটি এখন নেমে এসেছে ৮০ হাজারে।

গত ৮ সেপ্টেম্বর ৪ লাখ ৩৩ হাজার এবং ১৯ সেপ্টেম্বর ৩ লাখ ৯০ হাজার শেয়ার হাতবদল হয়েছিল কোহিনূর কেমিক্যালসের। সেটি এখন নেমে এসেছে ৪৪ হাজারে।

ভারসাম্যহীন লেনদেন

লেনদেনে যে ভারসাম্যহীনতা, সেটি দূর হওয়ার কোনো আভাসও নেই। সামগ্রিক লেনদেনের ৩৮.৪২ শতাংশ হয়েছে কেবল ১০টি কোম্পানিতে। অন্যদিকে লেনদেনের ৪.১৯ শতাংশ হয়েছে ২০০টি কোম্পানি মিলিয়ে।

কেবল ওরিয়ন ফার্মা, বেক্সিমকো ফার্মা, ইস্টার্ন হাউজিং ও বিবিএস ক্যাবলস-এই চারটি কোম্পানির প্রতিটিতেই এই ২০০টি কোম্পানির সম্মিলিত লেনদেনের বেশি ছিল।

এদিন দর বৃদ্ধির শীর্ষে কোনো একক খাতের প্রাধান্য দেখা যায়নি। কোনো একটি কোম্পানিও দিনের দর বৃদ্ধির সর্বোচ্চ সীমা ছুঁয়ে লেনদেন হয়নি, আগের দিন যে সংখ্যাটি ছিল আট এর বেশি।

দরপতনের শীর্ষ তালিকাতেও ছিল মিশ্র খাত। কোনো কোম্পানি দর পতনের সর্বোচ্চ সীমা ছুঁয়ে হাতবদল হয়নি।

ফ্লোর প্রাইস থেকে উঠে আসারও কোনো লক্ষণ দেখা যায়নি কোম্পানিগুলোর লেনদেনে।

দিনের শুরুতে কিছুটা সূচক বেড়ে হলেও পরবর্তীতে লেনদেন হয়েছে সূচকের পতনে। তাতেও ব্যাপক ওঠনামা করেছে। সকাল ৯টা ৫১ মিনিটে আগের দিনের চেয়ে ২৪ পয়েন্ট বেড়ে লেনদেন হয়। তবে তারপর থেকে সূচক কেবল পড়েছেই। মাঝে ওঠার চেষ্টা করলেও দিনের সর্বোচ্চ অবস্থান বা আগের দিনের অবস্থান অতিক্রম করতে পারেনি।

দিন শেষে হাতবদল হয় এক হাজার ২৮৪ কোটি ৭৩ লাখ ৭২ হাজার টাকার শেয়ার যা আগের দিনের চেয়ে ২৪৮ কোটি ৬৭ লাখ ৯ হাজার টাকা কম।

রোববার চার কর্মদিবস পর লেনদেন দেড় হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়ে হয় এক হাজার ৫৩৩ কোটি ৪০ লাখ ৮১ হাজার টাকা।

লেনদেনের বিষয়ে মিয়া আব্দুর রশিদ সিকিউরিটিজের শীর্ষ কর্মকর্তা শেখ ওহিদুজ্জামান স্বাধীন বলেন, ‘যেসব শেয়ারের কারণে সূচকে বেশি প্রভাব পড়ে সেগুলোর দর সামান্য করে কমেছে। বেশি কমেনি এবং অনেক বেশি কোম্পানির শেয়ার ফ্লোরে লেনদেন হচ্ছে বলেই সূচকের পতন বেশি হয়নি।’

তিনি বলেন, ‘যেসব কোম্পানির লেনদেন কয়েকদিন আগেও কয়েক শ কোটি হয়েছে, সেগুলোর লেনদেন এখন তলানিতে নেমেছে। বাজারের ট্রেন্ড বোঝার জন্য অনেকেই সাইড লাইনে গিয়ে পর্যবেক্ষণ করছেন। যার কারণে লেনদেনও কমেছে।’

সূচকের পতন আরও যাদের কারণে

বেক্সিমকো ও ওরিয়ন গ্রুপের চার কোম্পানি ছাড়াও বসুন্ধরা পেপার, একমি ল্যাব, জেএমআই হসপিটাল, আইডিএলসি, বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবল ও ইউনিক হোটেল অ্যান্ড রিসোর্ট সূচক পতনে ভূমিকা রেখেছে।

এই দশ কোম্পানির দরপতনে সূচক পড়েছে ২৫.২৩ পয়েন্ট।

বিপরীতে সি পার্ল, ডাচ্-বাংলা ব্যাংক, ওরিয়ন ইনফিউশন, সামিট অ্যালায়েন্ট পোর্ট, ইউনাইটেড পাওয়ার, আল-আরব ব্যাংক, কেয়া কসমেটিকস, লুবরেফ, ইস্টার্ন হাউজিং ও তিতাস গ্যাস মিলে সূচকে যোগ করেছে ১৮.৬৯ পয়েন্ট।

লেনদেন কমেছে ওরিয়ন-বেক্সিমকোর

দরপতন হলেও শীর্ষস্থান ধরে রেখেছে ওরিয়ন ফার্মা ও বেক্সিমকো লিমিটেড। আগের কর্মদিবসেও একই চিত্র দেখা যায়। তবে দুটি কোম্পানির লেনদেনই নেমে এসেছে প্রায় অর্ধেকে।

ওরিয়নে লেনদেন হয়েছে ৮২ কোটি ১৫ লাখ ৩৬ হাজার টাকার। শেয়ার হাতবদল হয়েছে ৬০ লাখ ৭০ হাজার ৬৭৪টি। আগের দিনে লেনদেন হয়েছিল ১২১ কোটি ৪৮ লাখ ৪৭ হাজার টাকা।

বেক্সিমকোর ৫৪ লাখ ৮২ হাজার ২০১টি শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৭১ কোটি ৮৩ লাখ ৮৩ হাজার টাকায়। অথচ আগের দিনে লেনদেন হয় ১০০ কোটি ৯৩ লাখ ৫২ হাজার টাকা।

ইস্টার্ন হাউজিংয়ের লেনদেন কমেছে ১৩ কোটির বেশি। ৬০ কোটি ৪৩ লাখ ৭৬ হাজার টাকায় হাতবদল হয়েছে ৫২ লাখ ৭২ হাজার ৭২৬টি শেয়ার। যেখানে আগের দিনে এই পরিমাণ ছিল ৭৩ কোটি ৭৪ লাখ ৫৪ হাজার টাকা।

চতুর্থ স্থানে থাকা বিবিএস ক্যাবলসের লেনদেন হয়েছে ৫৭ কোটি ৪ লাখ ৩০ হাজার টাকার। বাকি কোম্পানির লেনদেন হয়েছে ৫০ কোটির নিচে।

শীর্ষ দশে থাকা বাংলাদেশ বিল্ডিং সিস্টেমস, জেএমআই হসপিটাল, শাইনপুকুর সিরামিকস, কপারটেক, ইন্ট্রাকো রি-ফুয়েলিং ও ন্যাশনাল পলিমারের লেনদেন হয়েছে ৩০ থেকে ৫০ কোটির মধ্যে।

লেনদেনে ফের সেরা প্রকৌশল খাত

ওষুধ ও রসায়ন এবং বিবিধ খাতকে টপকে রোববার শীর্ষে চলে আসে প্রকৌশল খাত। শীর্ষ অবস্থান ধরে রাখার পাশাপাশি লেনদেনও বেড়েছে।

হাতবদল হয়েছে ২৭৫ কোটি ৯০ লাখ টাকা, যা আগের দিন ছিল ২৩৩ কোটি ১ লাখ টাকা।

খাতটিতে ১৫টি কোম্পানির দরবৃদ্ধির বিপরীতে দরপতন হয়েছে ১৮টির। আর ৯টির লেনদেন হয়েছে অপরিবর্তিত দরে।

দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা ওষুধ ও রসায়ন খাতে কমেছে লেনদেন। হাতবদল হয়েছে ১৯১ কোটি ৬৮ লাখ। আগের দিনে লেনদেনর পরিমাণ ছিল ২২৯ কোটি ৫০ লাখ টাকা।

১১টি কোম্পানির দরবৃদ্ধি ও ৯টি অপরিবর্তিত দরে লেনদেন হয়েছে। আর ১০টির দর কমেছে।

তৃতীয় সর্বোচ্চ লেনদেন হয়েছে বিবিধ খাতে। ১৫১ কোটি ৮০ লাখ টাকার হাতবদলের বিপরীতে খাতের ৯টি কোম্পানির দরপতন হয়েছে। একটির দর বেড়ে ও তিনটির লেনদেন হয়েছে অপরিবর্তিত দরে।

সেবা ও আবাসন খাতে সমান দুটি করে কোম্পানির দরবৃদ্ধি ও দরপতন হয়েছে। লেনদেন হয়েছে ১১০ কোটি ৯১ লাখ টাকা।

আর কোনো খাতের লেনদেন শত কোটির ঘর অতিক্রম করতে পারেনি।

পঞ্চম স্থানে থাকা বস্ত্র খাতে লেনদেন হয়েছে ৯৩ কোটি ৫১ লাখ টাকা। ১৭টি কোম্পানির দরপতনের বিপরীতে ৬টির দরবৃদ্ধি ও ৩৬টি অপরিবর্তিত দরে লেনদেন হয়েছে।

এর বাইরে দরপতনের কারণে জ্বালানি ছাড়া কোনো খাতেই দরবৃদ্ধি দেখা যায়নি। জ্বালানি খাতে ১৩টি বা ৫৬.৫২ শতাংশ কোম্পানির দরবৃদ্ধি হয়েছে। বিপরীতে আটটির দরপতন ও দুটির লেনদেন হয়েছে আগের দরে।

এ ছাড়া উল্লেখ করার মতো ব্যাংকে সাতটি বা ২১.২১ শতাংশ ও বিমা খাতে পাঁচটি বা ১২.২০ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে।

দর বৃদ্ধির শীর্ষ ১০

৮.২৩ শতাংশ দর বেড়েছে সামিট অ্যালায়েন্স পোর্টের শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৩৮ টাকা ১০ পয়সায়। আগের দিনে দর ছিল ৩৫ টাকা ২০ পয়সা।

৭.৮৯ শতাংশ দর বেড়ে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে লুবরেফ বাংলাদেশ। ওই পরিমাণ দর বেড়ে ৩৮ টাকা থেকে ৪১ টাকায় শেয়ারটি সর্বশেষ লেনদেন হয়েছে।

জেমিনি সি ফুডের দর ৬ দশমিক ৪০ শতাংশ বেড়ে শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৪২৩ টাকা ৬০ পয়সায়।

এ ছাড়াও দরবৃদ্ধির তালিকায় ছিল লোকসানি ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স, ইয়াকিন পলিমার, অ্যাডভেন্ট ফার্মা, ওরিয়ন ইনফিউশন, কেয়া কসমেটিকস, আনোয়ার গ্যালভানাইজিং ও সি-পার্ল।

দর পতনের শীর্ষ ১০

পতনের তালিকার শীর্ষে রয়েছে এডিএন টেলিকম। ৬ দশমিক ৭৭ শতাংশ কমে প্রতিটি শেয়ার সর্বশেষ ৭৭ টাকা ১০ পয়সায় লেনদেন হয়। আগের দিনে লেনদেন হয় ৮২ টাকা ৭০ পয়সায়।

পরের স্থানে ছিল বসুন্ধরা পেপার। ৫ দশমিক ৪৫ শতাংশ দর কমে শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৮৮ টাকা ৪০ পয়সায়।

তৃতীয় সর্বোচ্চ দর হারিয়েছে মনোস্পুল পেপার। ৫ দশমিক ২৪ শতাংশ কমে শেয়ারটি সর্বশেষ ২২৬ টাকায় হাতবদল হয়। আগের দিনের দর ছিল ২৩৮ টাকা ৫০ পয়সা।

এ ছাড়া দরপতনের তালিকায় ছিল আমান ফিড, মোজাফফর হোসেন স্পিনিং, বাংলাদেশ বিল্ডিং সিস্টেমস, জুট স্পিনার্স, আজিজ পাইপস, বিডি থাই ফুড ও ইন্ট্রাকো রি-ফুয়েলিং স্টেশন।

আরও পড়ুন:
পুঁজিবাজারে ব্যাংকের বিনিয়োগের তথ্য চায় বিএসইসি
লভ্যাংশ ঘোষণায় মনোস্পুলের শেয়ারে হুলুস্থুল
সোমবার থেকে ১০ দিনের বিনিয়োগকারী সপ্তাহ
ক্রেতা নেই শেয়ারের, ২০০ কোম্পানিতে লেনদেন ৪০ কোটি
পুঁজিবাজারের নিয়ে বিএমবিএ-বিআইসিএমের সমঝোতা

মন্তব্য

আরও পড়ুন

অর্থ-বাণিজ্য
DSE will sit with BSEC to restore momentum in the capital market

পুঁজিবাজারে গতি ফেরাতে বিএসইসির সঙ্গে বসবে ডিএসই

পুঁজিবাজারে গতি ফেরাতে বিএসইসির সঙ্গে বসবে ডিএসই পুঁজিবাজারের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে সোমবার জরুরি বৈঠক করে ডিএসই ও ডিবিএ। ছবি: নিউজবাংলা
ডিএসই ও ডিবিএ’র বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে, পুঁজিবাজারের চলমান পরিস্থিতি নিয়ে তারা কয়েকদিনের মধ্যেই নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসির সঙ্গে বসবে। দেশীয় ও আন্তর্জাতিক পরিস্থিতি বিবেচনায় পুঁজিবাজার উন্নয়নের বিভিন্ন পলিসি নিয়ে সরকারের নীতি-নির্ধারণী মহলের সঙ্গে আলোচনারও সিদ্ধান্ত হয়েছে।

পুঁজিবাজারের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে সোমবার জরুরি বৈঠক করেছে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) ও ডিএসই ব্রোকার্স অ্যাসোসিয়েশন অফ বাংলাদেশের (ডিবিএ)।

বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে, কয়েকদিনের মধ্যে ডিএসই ও ডিবিএ বাংলাদেশের পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসির সঙ্গে বসবে।

ডিএসই এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানায়, পুঁজিবাজারের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে সোমবার ডিএসই ও ডিবিএ প্রতিনিধিদের জরুরি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে ডিএসই চেয়ারম্যান মো. ইউনুসুর রহমান, পরিচালক মো. শাকিল রিজভী, মোহাম্মদ শাহজাহান, শরীফ আনোয়ার হোসেন, ব্যবস্থাপনা পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) এম. সাইফুর রহমান মজুমদার এবং ডিবিএ’র পক্ষে প্রেসিডেন্ট রিচার্ড ডি রোজারিও, সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট মো. সাজেদুল ইসলাম ও ভাইস প্রেসিডেন্ট মো. সাইফুদ্দিন এবং সদস্য এম. রাজিব আহসান উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকে পুঁজিবাজারের চলমান পরিস্থিতি গুরুত্বসহকারে আলোচনা করা হয় এবং সিদ্ধান্ত হয় যে, আগামী কয়েকদিনের মধ্যে ডিএসই ও ডিবিএ’র প্রতিনিধিবৃন্দ বিএসইসির সঙ্গে বাজারের বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা করবেন।

বর্তমান দেশীয় ও আন্তর্জাতিক পরিস্থিতি বিবেচনায় পুঁজিবাজার উন্নয়নের বিভিন্ন পলিসি নিয়ে সরকারের নীতি-নির্ধারণী মহলের সঙ্গে আলোচনারও সিদ্ধান্ত হয়েছে।

আরও পড়ুন:
‘পুঁজিবাজার এভাবে চলতে পারে না’
শেয়ার কেনার ‘কেউ নেই’, দেড় বছরে দ্বিতীয় সর্বনিম্ন লেনদেন
প্রি ওপেনিংকে ফের কারসাজির সুযোগ ভাবল বিএসইসি
এসএমইতে বিনিয়োগ: বিএসইসির আবেদন শোনেনি চেম্বার আদালত
এক দিন পরই সূচকের ধপাস, ‘ক্রেতাশূন্য’ তিন শ কোম্পানি

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
BPML Orion Infusions prices drop at breakneck speed

ঝড়ের গতিতে দর কমছে বিপিএমএল-ওরিয়ন ইনফিউশনদের

ঝড়ের গতিতে দর কমছে বিপিএমএল-ওরিয়ন ইনফিউশনদের প্রতীকী ছবি
সোমবার প্রধান সূচক ডিএসইএক্স আগের দিনের তুলনায় দ্বিগুণ ৩৪ পয়েন্ট কমে অবস্থান করে ৬ হাজার ১৯৭ পয়েন্টে। সূচকের অবস্থান এর চেয়ে কম ছিল পাঁচ কর্মদিবস আগে ২১ নভেম্বর। সেদিন ডিএসইএক্সের অবস্থান ছিল ৬ হাজার ১৯০ পয়েন্টে।

আগের দিন সূচক ১৭ পয়েন্ট ও লেনদেন সামান্য বাড়লেও হতাশা কাটাতে না পারা পুঁজিবাজারে এক দিন পরই দ্বিগুণ পতন হলো।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সোমবার দরপতনের কারণ ফ্লোর প্রাইস কার্যকরের পর উড়তে থাকা কোম্পানিগুলো দরপতন। কারণ ওই সব কোম্পানির দর কমছে ঝড়ের গতিতে।

প্রধান সূচক ডিএসইএক্স আগের দিনের তুলনায় দ্বিগুণ ৩৪ পয়েন্ট কমে অবস্থান করে ৬ হাজার ১৯৭ পয়েন্টে। সূচকের অবস্থান এর চেয়ে কম ছিল পাঁচ কর্মদিবস আগে ২১ নভেম্বর। সেদিন ডিএসইএক্সের অবস্থান ছিল ৬ হাজার ১৯০ পয়েন্টে।

সূচক পতনে ভূমিকা রেখেছে লাফিয়ে দর বাড়া বিকন ফার্মা, বসুন্ধরা পেপার, ওরিয়ন ইনফিউশন, ওরিয়ন ফার্মা ও ইস্টার্ন হাউজিংয়ের মতো কোম্পানিগুলো। গত ৩১ জুলাই ফ্লোর প্রাইস আরোপের পর ৩০টি শেয়ারের দরবৃদ্ধির ওপর ভর করে পুঁজিবাজারে যে উত্থান দেখা দেয়, ওই দরবৃদ্ধির তালিকায় রয়েছে এসব কোম্পানির শেয়ার।

সেই উত্থানে সামগ্রিক পুঁজিবাজার লাভবান না হলেও বর্তমানে সেসব শেয়ারের দরপতনে নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে শেয়ারবাজারে।

আজ ওরিয়ন গ্রুপের বিকন ফার্মার দর ৫ শতাংশ দরপতনে সূচক কমেছে ৭ দশমিক ৩৮ শতাংশ। বসুন্ধরা পেপার কমিয়েছে ৩ দশমিক ২৯ শতাংশ। বহুল আলোচিত ওরিয়ন ইনফিউশন ও ওরিয়ন ফার্মা যথাক্রমে ২ দশমিক ০৩ ও ২ দশমিক ২৯ পয়েন্ট করে সূচক কমিয়েছে।

এ ছাড়া বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবল, জেনেক্স ইনফোসিস, সামিট পোর্ট অ্যালায়েন্স, ইস্টার্ন হাউজিং, লাফার্জ হোলসিম, জেএমআই হসপিটালের দরপতনে সূচক কমেছে। এ ১০টি কোম্পানি ২৫ দশমিক ১৯ পয়েন্ট সূচক কমিয়েছে।

ডিএসইতে শেয়ার হাতবদল হয়নি ১০১টি কোম্পানির। এর মধ্যে রেকর্ড ডেটের কারণে ১১টি কোম্পানির লেনদেন বন্ধ ছিল।

বাকি যে ২৮৯টি কোম্পানির লেনদেন হয়, তার মধ্যে ২০৬টির শেয়ার হাতবদল হয় সর্বনিম্ন মূল্যস্তর বা ফ্লোর প্রাইসে। আর দরবৃদ্ধির তুলনায় দরপতনের সংখ্যা সাত গুণের বেশি। এদিন ১০টি কোম্পানির দরবৃদ্ধির বিপরীতে দরপতন হয় ৭৩টির।

আগের দিনের মতো আজও লেনদেন কিছুটা বেড়েছে। দিনভর হাতবদল হয়েছে ৪১৬ কোটি ৭৫ লাখ ২৫ হাজার টাকার, যা আগের দিনের তুলনায় ৭৭ কোটি ১ লাখ ৫৫ হাজার টাকা বেশি। রোববার লেনদেন হয়েছিল ৩৩৯ কোটি ৭৩ লাখ ৭০ হাজার টাকার।

১১৪টি কোম্পানির শেয়ার লেনদেন হয় ১ থেকে ১ হাজারের মধ্যে। কোটি টাকার বেশি শেয়ার লেনদেনে হয়েছে মাত্র ৫১টি কোম্পানির। এ লেনদেনের পরিমাণ ২৮৮ কোটি ২১ লাখ ৩ হাজার টাকার। বাকি ২৩৮টি কোম্পানিতে লেনদেন হয় ১২৮ কোটি ৫৪ লাখ ২২ হাজার টাকার।

যেভাবে কমছে দর

তুমুল আলোচিত ওরিয়ন ইনফিউশনের দর কমছে ধারাবাহিকভাবেই। ২৮ জুলাইয়ে ১০৪ টাকা ৭০ পয়সা লেনদেন হওয়া শেয়ারটি ফ্লোর প্রাইস কার্যকরের পর উড়তে শুরু করে। ২৭ অক্টোবর এর দর সর্বোচ্চ ৯৭৩ টাকা ৯০ পয়সায় ঠেকে। মাঝেমধ্যে বাড়লেও ক্রমাগত দর হারাচ্ছে কোম্পানিটি। ৭ দশমিক ৪৯ শতাংশ দর কমে সোমবার শেয়ারটি হাতবদল হয় ৫৬৬ টাকা ৯০ পয়সায়।

জুলাইয়ের শেষ সপ্তাহে ৭৮ টাকায় লেনদেন হওয়া গ্রুপের আরেক কোম্পানি ওরিয়ন ফার্মার দর সেপ্টেম্বরে ১৪৯ টাকায় ঠেকে। সোমবার ৫ দশমিক ১২ শতাংশ কমে শেয়ার হাতবদল হয় ৮৩ টাকা ৪০ পয়সায়।

ওই গ্রুপেরই বিকন ফার্মার দর কমে ৫ দশমিক ০৬ শতাংশ। জুলাইয়ে এ কোম্পানির দর ছিল ২৪০ টাকার মতো। অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহেই তা ৩৮০ টাকা ছাড়িয়ে যায়। সোমবার সেটি হাতবদল হয় ২৭৫ টাকা ৮০ পয়সায়।

অক্টোবরের শেষ সপ্তাহেও বসুন্ধরা পেপারের লেনদেন হয়েছিল ৭০ টাকার নিচে। ১৫ দিনের ব্যবধানে শেয়ারটির দর গিয়ে দাঁড়িয়েছিল ১২১ টাকার ওপরে। এরপর মাঝে মাঝে বাড়লেও প্রায় প্রতিদিনই দর কমছে।

সোমবার ১০ শতাংশ কমে শেয়ারটি হাতবদল হয় ৭৮ টাকা ৩০ পয়সায়। আগের দিনে দর ছিল ৮৭ টাকা।

দর দ্বিগুণ বেড়ে ১১৬ টাকায় উঠেছিল জেনেক্স ইনফোসিসের শেয়ারদর। এরপরই উল্টো পথে ছুটতে দেখা গেছে শেয়ারটি। আজ ৯ দশমিক ৭৮ শতাংশ কমে শেয়ার লেনদেন হয় ৯০ টাকা ৪০ পয়সা।

সামিট পোর্ট অ্যালায়েন্সের দর উঠেছিল ৩৮ টাকা ২০ পয়সায়, যা ৯ দশমিক ৭০ শতাংশ কমে লেনদেন হয় ৩০ টাকায়।

সেপ্টেম্বরে ৭৬ টাকায় লেনদেন হওয়া ইস্টার্ন হাউজিং অক্টোবরে ১৪০ টাকায় গিয়ে ঠেকে। সেখান থেকে কমতে কমতে আজ হাতবদল হয় ৭৬ টাকা ৮০ পয়সায়। দর কমেছে ৮ দশমিক ৭৮ শতাংশ।

একই সময়ে বিডি কমের দর ৩২ টাকা ৭৫ টাকায় ঠেকেছিল। বর্তমানে দর দাঁড়িয়েছে ৩৪ টাকা ৪০ পয়সা। দর কমেছে ৮ দশমিক ৭৮ শতাংশ।

লেনদেনের বিষয়ে ট্রেজার সিকিউরিটিজের শীর্ষ করকর্তা মোস্তফা মাহবুব উল্লাহ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বাজারের বর্তমান অবস্থায় ফান্ড অ্যাক্টিভ হওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম। যারা শেয়ার বিক্রি করে ক্যাশ করতে পেরেছিলেন, তারা সবাই সাইডলাইনে রয়েছেন, বাজার পর্যবেক্ষণ করছেন। আর যারা ক্যাশ করতে পারেননি, ফ্লোর প্রাইসে বা লোকসানের কারণে আটকে আছেন তাদের থেকে অ্যাক্টিভিটি আসা করা যায় না।’

সূচক বাড়ানোর চেষ্টায় যারা

সবচেয়ে বেশি ১ দশমিক ১৪ পয়েন্ট সূচক বাড়িয়েছে সোনালী পেপার। এদিন শেয়ারটির দর বেড়েছে ২ দশমিক ৩৮ শতাংশ। বেক্সিমকো সুকুকের দর শূন্য দশমিক ৫৭ শতাংশ বাড়ায় সূচক বেড়েছে শূন্য দশমিক ৬৫ পয়েন্ট। পূবালী ব্যাংক সূচকে যোগ করেছে শূন্য দশমিক ৪৫ পয়েন্ট। কোম্পানির দর বেড়েছে শূন্য দশমিক ৪৫ শতাংশ।

এর বাইরে সূচকে পয়েন্ট যোগ করেছে যমুনা অয়েল, পেপার প্রসেসিং, মুন্নু অ্যাগ্রো, কে অ্যান্ড কিউ, জুট স্পিনার্স, সোনালী আঁশ ও বাংলাদেশ জেনারেল ইন্স্যুরেন্স। সব মিলিয়ে এই ১০টি কোম্পানি সূচক বাড়িয়েছে ২ দশমিক ৯২ পয়েন্ট।

দরবৃদ্ধির যেমন

যে ১০টি কোম্পানির দরবৃদ্ধি হয়েছে তার মধ্যে সর্বোচ্চ ৭ দশমিক ৪৮ শতাংশ দর বেড়ে জুট স্পিনার্সের শেয়ার লেনদেন হয়েছে ২১২ টাকা ৬০ পয়সায়, যা আগের দিন ছিল ১৯৭ টাকা ৮০ পয়সায়।

এরপরই ৩ দশমিক ৫৯ শতাংশ বেড়ে মুন্নু অ্যাগ্রোর শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৫৯৯ টাকা ৮০ পয়সায়, যা আগের দিন ছিল ৫৭৯ টাকা। তালিকার তৃতীয় স্থানে ছিল পেপার প্রসেসিং। ৩ দশমিক ১৮ শতাংশ দর বেড়ে শেয়ারটি হাতবদল হয়েছে ১৯৭ টাকা ৭০ পয়সায়। আগের দিনের দর ছিল ১৯১ টাকা ৬০ পয়সা।

এর পর কে অ্যান্ড কিউ এবং সোনালী পেপারের দর বেড়েছে ২ শতাংশের বেশি। এর বাইরে সোনালী আঁশ, পূবালী ব্যাংক, যমুনা অয়েল, বেঙ্গল উইন্ডসর ও বাংলাদেশ জেনারেল ইন্স্যুরেন্সের দর বেড়েছে ১ শতাংশের কম।

আরও পড়ুন:
শেয়ার কেনার ‘কেউ নেই’, দেড় বছরে দ্বিতীয় সর্বনিম্ন লেনদেন
প্রি ওপেনিংকে ফের কারসাজির সুযোগ ভাবল বিএসইসি
এসএমইতে বিনিয়োগ: বিএসইসির আবেদন শোনেনি চেম্বার আদালত
এক দিন পরই সূচকের ধপাস, ‘ক্রেতাশূন্য’ তিন শ কোম্পানি
ফেসবুকে পুঁজিবাজার নিয়ে ভীতি ছড়িয়ে মামলার আসামি

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
55 companies are getting ICMAB Best Corporate Award

৫৫ কোম্পানি পাচ্ছে আইসিএমএবি বেস্ট করপোরেট অ্যাওয়ার্ড

৫৫ কোম্পানি পাচ্ছে আইসিএমএবি বেস্ট করপোরেট অ্যাওয়ার্ড বিজয়নগরে ক্যাপিটাল মার্কেট জার্নালিস্ট ফোরামের কার্যালয়ে সোমবার মিট দ্য প্রেসে আয়োজকরা। ছবি: নিউজবাংলা।
করপোরেট প্রতিষ্ঠানগুলোর বার্ষিক প্রতিবেদন ও নিরীক্ষিত হিসাবসহ সার্বিক অর্থনৈতিক উন্নয়ন এবং সামাজিক দায়দায়িত্ব প্রতিপালনের বিষয়ে বিচার-বিশ্লেষণ করে প্রতিবছর বেস্ট করপোরেট অ্যাওয়ার্ড দেয়া হয়। ২০০৭ সাল থেকে ইনস্টিটিউট এই পুরস্কার দিয়ে আসছে।

পাবলিক ও প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানিগুলোর ২০২১ সালের গভর্ন্যান্স, ট্রান্সপারেন্সি ও পারফরম্যান্সের ভিত্তিতে বেস্ট করপোরেট অ্যাওয়ার্ড দেবে ইনস্টিটিউট অব কস্ট অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট অ্যাকাউন্ট্যান্ট অব বাংলাদেশ (আইসিএমএবি)।

আগামী ১ ডিসেম্বর রাজধানীর ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেলে এক আয়োজনের মাধ্যমে এই পুরস্কার দেয়া হবে।

বিজয়নগরে পুঁজিবাজার নিয়ে কাজ করা সাংবাদিকদের সংগঠন ক্যাপিটাল মার্কেট জার্নালিস্ট ফোরামের (সিএমজেএফ) কার্যালয়ে সোমবার মিট দ্য প্রেসে এই তথ্য জানানো হয়।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন আইসিএমএবির সভাপতি মামুনুর রশিদ, সাবেক সভাপতি ও বেস্ট করপোরেট অ্যাওয়ার্ড কমিটির চেয়ারম্যান আব্দুল আজিজ, ইনস্টিটিউটের সেক্রেটারি একেএম কামরুজ্জামান, কোষাধ্যক্ষ আলী হায়দার চৌধুরী এবং সাফা উপদেষ্টা ও সাবেক সাফা প্রেসিডেন্ট এ কে এম দেলোয়ার হোসেন।

বেস্ট করপোরেট অ্যাওয়ার্ড কমিটির চেয়ারম্যান আব্দুল আজিজ জানান, ১ ডিসেম্বরের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে পুরস্কার দেবেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। বিশেষ অতিথি থাকবেন বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল ইসলাম, বাণিজ্যসচিব তপন কান্তি ঘোষ ও ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (এফবিসিসিআই) সভাপতি জসীম উদ্দীন।

করপোরেট প্রতিষ্ঠানগুলোর বার্ষিক প্রতিবেদন ও নিরীক্ষিত হিসাবসহ সার্বিক অর্থনৈতিক উন্নয়ন এবং সামাজিক দায়দায়িত্ব প্রতিপালনের বিষয়ে বিচার-বিশ্লেষণ করে প্রতিবছর বেস্ট করপোরেট অ্যাওয়ার্ড দেয়া হয়। ২০০৭ সাল থেকে ইনস্টিটিউট এই পুরস্কার দিয়ে আসছে।

এবার ১৬৫টি প্রতিষ্ঠান প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে। ২৮টি মানদণ্ডের ভিত্তিতে ১৭ বিভাগে তিনটি করে (গোল্ডেন, সিলভার, ব্রোঞ্জ) মোট ৫৫ প্রতিষ্ঠানকে পুরস্কার দেয়া হবে।

জুরিবোর্ডের চেয়ারম্যান ছিলেন বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিন। সদস্য হিসেবে ছিলেন বেসরকারি ব্যাংক নির্বাহীদের সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশের (এবিবি) সাবেক চেয়ারম্যান নুরুল আমিন ও বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক জামাল উদ্দিন আহমেদ।

আইসিএমএবি বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের নিয়ন্ত্রাণাধীন পেশাগত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। এটি বাংলাদেশে কস্ট অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট অ্যাকাউন্টিং পেশার উন্নয়ন, নিয়ন্ত্রণ ও প্রসারের লক্ষ্যে দেশের সর্বোচ্চ ডিগ্রি প্রদান এবং এসব বিষয়ে গবেষণা ও প্রশিক্ষণ প্রদানকারী সংস্থা।

আইসিএমএবির সভাপতি মামুনুর রশিদ বলেন, ‘আইসিএমএবি করপোরেট ব্যবস্থাপনায় স্বচ্ছতা, জবাবদিহি এবং সুশাসনের প্রচারের জন্য প্রতিবছর দেশের যোগ্য করপোরেট সংস্থাগুলোকে পুরস্কৃত করে। এই অ্যাওয়ার্ড একটি মর্যাদাপূর্ণ ইভেন্ট, যা পুঁজিবাজারকে চাঙা করতে এবং বিদেশি বিনিয়োগ আকর্ষণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। ’

আরও পড়ুন:
জন্মনিয়ন্ত্রণ পিল: সারাবিশ্বে বিডের যোগ্যতা অর্জন রেনাটার
‘যেভাবে চলতে পারে না’, সে বৃত্তেই পুঁজিবাজার
চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বিএসইসি, যুদ্ধ শেষের অপেক্ষা

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Birth Control Pills Renata Qualifies Bid Worldwide

জন্মনিয়ন্ত্রণ পিল: সারাবিশ্বে বিডের যোগ্যতা অর্জন রেনাটার

জন্মনিয়ন্ত্রণ পিল: সারাবিশ্বে বিডের যোগ্যতা অর্জন রেনাটার গাজীপুরের রাজেন্দ্রপুরে রেনাটার কারখানা। ছবি: কোম্পানির ওয়েবসাইট থেকে নেয়া
১৯৭২ সালে আমেরিকার ওষুধ জায়ান্ট ফাইজারের একটি কোম্পানি হিসেবে বাংলাদেশে যাত্রা করে। ১৯৯৩ সালে ফাইজার স্থানীয় শেয়ারহোল্ডারদের কাছে তাদের মালিকানা বিক্রি করে চলে যায় এবং কোম্পানির নাম ফাইজার (বাংলাদেশ) লিমিটেডের বদলে হয় রেনাটা লিমিটেড।

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ওষুধ ও রসায়ন খাতের কোম্পানি রেনাটা লিমিটেডের রাজেন্দ্রপুর পোটেন্ট প্রোডাক্ট ফ্যাসিলিটি (আরপিপিএফ) বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) জেনেভা থেকে অনুমোদন পেয়েছে। এর ফলে তারা রেনাটা জন্মনিয়ন্ত্রণ পিলের জন্য বিশ্বের বেশিরভাগ দেশেই টেন্ডার বিড করতে পারবে।

রোববার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) ওয়েবসাইটের মাধ্যমে এ তথ্য জানিয়েছে রেনাটা।

কোম্পানিটি ডিএসইকে আরও জানিয়েছে, রাজেন্দ্রপুর পোটেন্ট প্রোডাক্ট ফ্যাসিলিটি হল বাংলাদেশে একমাত্র কারখানা, যেটি জন্মনিয়ন্ত্রণ পিলের জন্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা থেকে প্রাক-যোগ্যতা অর্জন করেছে।

১৯৭২ সালে আমেরিকার ওষুধ জায়ান্ট ফাইজারের একটি কোম্পানি হিসেবে বাংলাদেশে যাত্রা করে। ১৯৯৩ সালে ফাইজার স্থানীয় শেয়ারহোল্ডারদের কাছে তাদের মালিকানা বিক্রি করে চলে যায় এবং কোম্পানির নাম ফাইজার (বাংলাদেশ) লিমিটেডের বদলে হয় রেনাটা লিমিটেড।

বর্তমানে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে কোম্পানিটির ওষুধ রপ্তানি হচ্ছে। ১৯৭৯ সালে কোম্পানিটি পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়।

কোম্পানিটির অনুমোদিত মূলধন ২৫০ কোটি টাকা। এর পরিশোধিত মূলধন ১০৭ কোটি ১৯ লাখ ৩০ হাজার টাকা। বর্তমানে কোম্পানিটি ‘এ’ ক্যাটাগরিতে লেনদেন করছে।

গত জুনে সমাপ্ত অর্থবছরে কোম্পানিটি কর পরবর্তী ৫১১ কোটি ৯ লাখ ৬১ হাজার ৪২৯ টাকা মুনাফা করেছে।

কোম্পানিটির ৫১ দশমিক ২৯ শতাংশ উদ্যোক্তা-পরিচালক, ১৯ দশমিক ২৮ শতাংশ প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী, ২২ দশমিক ৮৪ শতাংশ বিদেশি বিনিয়োগকারী ও ৬ দশমিক ৫৯ শতাংশ শেয়ার সাধারণ বিনিয়োগকারীদের হাতে রয়েছে।

কোম্পানিটির শেয়ার রোববার সর্বশেষ এক হাজার ২১৭ টাকা ৯০ পয়সায় লেনদেন হয়েছে।

আরও পড়ুন:
যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে রেনাটার আরেকটি ওষুধ
ফ্লোরের ‘বাধা’ ভাঙার চেষ্টা শুরু?
আরও একগুচ্ছ কোম্পানির লভ্যাংশ ঘোষণা
৯ মাসে মুনাফা ১৪ কোটি, ৩ মাসে লোকসান ৩৬ কোটি
আয় বাড়লেও তালিকাভুক্তির পর এস্কয়ার নিটের সর্বনিম্ন লভ্যাংশ

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
The capital market cannot run in a circle

‘যেভাবে চলতে পারে না’, সে বৃত্তেই পুঁজিবাজার

‘যেভাবে চলতে পারে না’, সে বৃত্তেই পুঁজিবাজার নতুন সপ্তাহের শুরুতে সূচক বাড়লেও পুঁজিবাজারের হতাশা দূর হওয়ার কোনো লক্ষণই নেই। ফাইল ছবি/নিউজবাংলা
একটি শেয়ারও লেনদেন হয়নি ৮৬টি কোম্পানির। ২১৬টি কোম্পানির শেয়ার হাতবদল হয়েছে বেঁধে দেয়া সর্বনিম্ন দর বা ফ্লোর প্রাইসে, যেগুলোর লাখ লাখ শেয়ারের বিক্রেতার বিপরীতে ক্রেতা ছিল নগণ্য।

নতুন সপ্তাহের প্রথম দিন পুঁজিবাজারে সূচক, লেনদেন কিছুটা বেড়েছে। তবে হতাশার যে বৃত্ত, তা থেকে বের হয়ে আসার সামান্যতম আভাসও নেই। ‘পুঁজিবাজার এভাবে চলতে পারে না বলে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ বা ডিএসইসির সাবেক এক পরিচালক বৃহস্পতিবার যে মন্তব্য করেছিলেন, সেভাবেই চলছে বাজার।

রোববার ডিএসইসর সার্বিক সূচক ডিএসইএক্সে যোগ হয়েছে ১৭ পয়েন্ট। দরপতন হওয়া কোম্পানির তুলনায় দর বৃদ্ধি পাওয়া কোম্পানির সংখ্যা ৬টি বেশি, আগের দিনের চেয়ে লেনদেন বেড়েছে প্রায় ১৬ কোটি টাকা। তবে এদিনও প্রায় তিন শ কোম্পানির ক্রেতা ছিল না বললেই চলে।

এর মধ্যে একটি শেয়ারও লেনদেন হয়নি ৮৬টি কোম্পানির। ২১৬টি কোম্পানির শেয়ার হাতবদল হয়েছে বেঁধে দেয়া সর্বনিম্ন দর বা ফ্লোর প্রাইসে, যেগুলোর লাখ লাখ শেয়ারের বিক্রেতার বিপরীতে ক্রেতা ছিল নগণ্য।

কেবল ৫৬টি কোম্পানিতে এক কোটি টাকার বেশি লেনদেন হয়েছে। ১০ লাখ টাকার বেশি লেনদেন হয়েছে এমন কোম্পানির সংখ্যা সব মিলিয়ে ৯৮টি।

যে ৪৭টি কোম্পানির দর বেড়েছে, তার মধ্যে কেবল তিনটি কোম্পানির দর দিনের সর্বোচ্চ সীমা ছুঁয়ে লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে একটি কোম্পানি পুঁজিবাজারে কদিন আগে তালিকাভুক্ত হয়েছে।

সব মিলিয়ে দুটি কোম্পানির ৯ শতাংশের বেশি, একটির ৮ শতাংশের, একটি করে কোম্পানির ৭, ৬, ৫ ৪ ও ৩ শতাংশের বেশি, ৬টি কোম্পানির ২ শতাংশের বেশি এবং ১০টি কোম্পানির এক শতাংশের বেশি দর বেড়েছে।

অন্যদিকে দর হারানো ৪১টি কোম্পানির মধ্যে একটির দর কমেছে সর্বোচ্চ সীমা পর্যন্ত। একটির ৬ শতাংশ, একটির ৫ শতাংশ, ৩টির ৪ শতাংশ, ৬টির ৩ শতাংশ, দুটির ২ শতাংশ, ১২টির এক শতাংশের বেশি বেড়েছে।

‘যেভাবে চলতে পারে না’, সে বৃত্তেই পুঁজিবাজার
সূচক কিছুটা বেড়ে নতুন সপ্তাহের লেনদেন শুরু হলেও বিপুল সংখ্যক কোম্পানির ক্রেতা না থাকা বিনিয়োগকারীদের হতাশার কারণ

এদিন সূচক বৃদ্ধির কারণ মূলত ওরিয়ন গ্রুপের বিকন ফার্মা এবং স্কয়ার গ্রুপের স্কয়ার ফার্মার শেয়ারদর বৃদ্ধি। এই দুটি কোম্পানির কারণেই সূচক বেড়েছে ১৯ পয়েন্টের বেশি।

অস্বাভাবিক উত্থানের পর বেশ কম সময়ে ব্যাপক দরপতনে ফ্লোর প্রাইসের কাছাকাছি নেমে আসা বিকন ফার্মার দর হঠাৎ করেই ৭ শতাংশ বেড়ে যাওয়ার কারণে সূচকে যোগ হয়েছে ১৩.২৫ পয়েন্ট।

তালিকাভুক্তির পর নিজেদেরে ইতিহাসের সর্বোচ্চ ১০০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ ঘোষণার রেকর্ড ডেটের আগের দিন ফ্লোর প্রাইস ছাড়িয়ে লেনদেন হলো স্কয়ার ফার্মা। দীর্ঘদিন ধরেই ফ্লোরে পড়ে থাকা কোম্পানিটির দর কিছুটা বেড়েও আবার ধপাস করে পড়ে গিয়েছিল। ১.০৯ শতাংশ দর বৃদ্ধির কারণেই সূচক বেড়েছে ৬.১৬ শতাংশ।

তবে এতটুকু উন্নতি নেই লেনদেনে। দিনভর হাতবদল হয়েছে কেবল ৩৩৯ কোটি ৭৩ লাখ ৭০ হাজার টাকার শেয়ার, যা কয়েকমাস আগেও আধা ঘণ্টার লেনদেন ছিল। বৃহস্পতিবার হাতবদল হয়েছিল ৩২৩ কোটি ৮০ লাখ ২৮ হাজার টাকা।

এদিনও লাখ লাখ শেয়ার বিক্রির আশায় বসিয়ে রেখে হতাশ হতে হয়েছে বিনিয়োগকারীদের। বিশেষ করে যারা মার্জিন ঋণ নিয়ে শেয়ার কিনেছেন, তারা আছেন বিকাপে। দরপতন একটি ইস্যু, শেয়ার বিক্রি করতে না পারায় দিনে দিনে বাড়ছে সুদের বোঝা, এটি আরেক ইস্যু।

বৃহস্পতিবার এই হতাশা থেকে ডিএসই ব্রোকার্স অ্যাসোসিয়েশনের (ডিবিএ) সাবেক সভাপতি আহমেদ রশীদ লালী নিউজবাংলাকে বলেছিলেন, ‘পুঁজিবাজারে ভাইব্রেন্সি খুব প্রয়োজন। তা ছাড়া এভাবে চলতে পারে না। বছরের ১২ মাসের মধ্যে ১০ মাস ডিপ্রেসড থাকবে, আর দুই মাস ভালো থাকবে, আমরা উচ্ছ্বসিত থাকব, এভাবে চলে না।’

কিন্তু রোববার বাজারের আচরণে এটা স্পষ্ট যে, যেভাবে বাজার চলতে পারে না বলেছিলেন লালী, সেখান থেকে সহজে উত্তরণ হচ্ছে না।

এই লেনদেন নিয়ে লালী বলেন, ‘বাজার ঘুরে দাঁড়াবে, যেগুলো রিফর্মেশনের কথা বলেছিলাম, সেগুলো হতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘ডিএসইর কাজ হলো বাজারে বড় ও প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের সঙ্গে আলোচনা করে তাদের সমস্যা বিএসইসির কাছে তুলে ধরা। যাতে করে তারা বাজারে সক্রিয় ভূমিকা রাখেন। ডিএসই কি এটা করতে পারছে? কোনো কাজ করতে পারছে?

‘ডিএসই বোর্ডকে পলিসি মেকিংয়ের দায়িত্ব নিতে হবে। ব্রেইন স্টর্মিংয়ের মাধ্যমে বাজারের জন্য ভালো প্রস্তাব বিএসইসিকে দিতে হবে।’

তবে কিছুটা আশাও দেখছেন লালী। বলেন, ‘বাজারে একটা অটো সাপোর্ট আসবে, বাজার ঘুরে দাঁড়াবে, তবে ধৈর্য ধরতে হবে।’

সূচকে প্রভাব যাদের

সবচেয়ে বেশি ১৩ দশমিক ২৫ পয়েন্ট সূচক বাড়িয়েছে বিকন ফার্মা। এদিন শেয়ারটির দর বেড়েছে ৭ শতাংশ।

স্কয়ার ফার্মার দর ১ দশমিক ০৯ শতাংশ বাড়ায় সূচক বেড়েছে ৬ দশমিক ১৬ পয়েন্ট।

নাভানা ফার্মা সূচকে যোগ করেছে ১ দশমিক ৭২ পয়েন্ট। কোম্পানির দর বেড়েছে ৫ দশমিক ৮৩ শতাংশ।

এর বাইরে সূচকে পয়েন্ট যোগ করেছে বাংলাদেশ শিপিং করপোরেশন, ওরিয়ন ফার্মা, আমরা নেটওয়ার্ক, জেনেক্স ইনফোসিস, চার্টার্ড লাইফ ইন্স্যুরেন্স, বিডি কম ও উত্তরা ব্যাংক।

‘যেভাবে চলতে পারে না’, সে বৃত্তেই পুঁজিবাজার
সূচক যতটা বেড়েছে তার প্রায় পুরোটাই বেড়েছে বিকন ফার্মা ও স্কয়ার ফার্মার কারণে

সব মিলিয়ে এই ১০টি কোম্পানি সূচক বাড়িয়েছে ২৬ দশমিক ২৭ পয়েন্ট।

বিপরীতে সবচেয়ে বেশি ৩ দশমিক ০৫ পয়েন্ট সূচক কমেছে ওরিয়ন ইনফিউশনের দরপতনে। কোম্পানিটির দর কমেছে ৭ দশমিক ৪৯ শতাংশ।

২ দশমিক ১৭ পয়েন্ট সূচক কমেছে সোনালী পেপারের কারণে। শেয়ার প্রতি দাম কমেছে ৩ দশমিক ১৫ শতাংশ।

বসুন্ধরা পেপারের দর ৩ দশমিক ৪৪ শতাংশ কমার কারণে সূচক কমেছে ১ দশমিক ৬৩ পয়েন্ট।

এ ছাড়া বেক্সিমকো গ্রিন সুকুক বন্ড, অলিম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজ, বাটা সুজ, অ্যাডভেন্ট ফার্মা, হা-ওয়েল টেক্সটাইল, পদ্মা লাইফ ইন্স্যুরেন্স ও পপুলার লাইফ ইন্স্যুরেন্সের দরপতনে সূচক কমেছে।

সব মিলিয়ে এই ১০টি কোম্পানি সূচক কমিয়েছে ১০ দশমিক ৪৯ পয়েন্ট।

দরবৃদ্ধির শীর্ষ ১০

সর্বোচ্চ ৯ দশমিক ৯৭ শতাংশ দর বেড়ে আমরা নেটওয়ার্কসের শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৫১ টাকা ৮০ পয়সায়, যা আগের দিন ছিল ৪৭ টাকা ১০ পয়সায়।

এরপরেই ৯ দশমিক ৯২ শতাংশ বেড়ে চার্টার্ড লাইফ ইন্স্যুরেন্সের শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৭২ টাকায়, যা আগের দিন ছিল ৬৫ টাকা ৫০ পয়সা।

তালিকার তৃতীয় স্থানে ছিল অ্যাপেক্স ফুডস। ৮ দশমিক ৬৩ শতাংশ দর বেড়ে শেয়ারটি হাতবদল হয়েছে ২৮১ টাকা ৯০ পয়সায়। আগের দিনের দর ছিল ২৫৯ টাকা ৫০ পয়সা।

তালিকার পরের স্থানে থাকা বিডি কমের ৭.৪ শতাংশ, বিকন ফার্মার ৬.৯৯ শতাংশ, নাভানা ফার্মা ৫.৮৩ শতাংশ, কে অ্যান্ড কিউ ৪.১০ শতাংশ, সিনোবাংলা ৩.৩৯ শতাংশ, জেমিনি সি-ফুড ২.৪৯ শতাংশ ও বেঙ্গল উইন্ডসরের ২.৪১ শতাংশ দর বেড়েছে।

দরপতনের শীর্ষ ১০

দরপতনের শীর্ষে রয়েছে ওরিয়ন ইনফিউশন। ৭ দশমিক ৪৮ শতাংশ কমে শেয়ারটি লেনদেন হয়েছে ৬১২ টাকা ৮০ পয়সায়, যা আগের কর্মদিবসে ছিল ৬৬২ টাকা ৪০ পয়সা।

অ্যাডভেন্ট ফার্মার দর ৬ দশমিক ০১ শতাংশ কমে শেয়ার লেনদেন হয়েছে ২৫ টাকায়, আগের দিন ক্লোজিং প্রাইস ছিল ২৬ টাকা ৬০ পয়সা।

তৃতীয় সর্বোচ্চ পদ্মা ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের দর কমেছে ৫ দশমিক ২১ শতাংশ। শেয়ার হাতবদল হয়েছে ৫৪ টাকা ৫০ পয়সায়। আগের দিনে দর ছিল ৫৭ টাকা ৫০ পয়সা।

তালিকার পরের স্থানে থাকা রিপাবলিক ইন্স্যুরেন্স, প্রগ্রেস লাইফ ইন্স্যুরেন্স ও হা-ওয়েল টেক্সটাইলের দর কমেছে ৪ শতাংশের বেশি।

এ ছাড়া বসুন্ধরা পেপার, এএফসি অ্যাগ্রো, সানলাইফ ইন্স্যুরেন্স ও সোনালী পেপারের দর কমেছে ৩ শতাংশের বেশি।

আরও পড়ুন:
এক দিন পরই সূচকের ধপাস, ‘ক্রেতাশূন্য’ তিন শ কোম্পানি
ফেসবুকে পুঁজিবাজার নিয়ে ভীতি ছড়িয়ে মামলার আসামি
দুর্দশায় পুঁজিবাজার: ২১৪ কোম্পানি মিলিয়ে লেনদেন আড়াই কোটির কম
ওরিয়ন, মনোস্পুলের শেয়ার দেখছে মুদ্রার উল্টো পিঠ
পুঁজিবাজারের চাপের মধ্যে আরও একটি আইপিও আবেদন শুরু

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
BSEC continues to try and wait for the war to end

চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বিএসইসি, যুদ্ধ শেষের অপেক্ষা

চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বিএসইসি, যুদ্ধ শেষের অপেক্ষা বিএসইসির কমিশন সভা। ছবি: নিউজবাংলা
২০২০ সালের মে মাসে বিএসইসির দায়িত্ব নেয়ার পর থেকে শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলামের নেতৃত্বে যেসব পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে, তা আগে নেয়া হয়নি, তবে ইউক্রেন যুদ্ধে বিশ্ব অর্থনীতির টালমাটাল পরিস্থিতিতে বাংলাদেশে পুঁজিবাজার ক্রমেই গতিহীন হয়ে পড়েছে। অথচ যেসব পরিবর্তন গত দুই বছরে হয়েছে, তাতে পুঁজিবাজার আরও গতিশীল হওয়া উচিত ছিল বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।

ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধের কারণে বিশ্ব অর্থনীতির টানাপোড়েনের মধ্যে বাংলাদেশে পুঁজিবাজারের পরিস্থিতি বেশ হতাশাজনক, তবে ২০২০ সালের মাঝামাঝি সময় থেকে ২০২১ সালের অক্টোবর পর্যন্ত টানা উত্থান বিনিয়োগকারীদের বেশ আশাবাদী করেছিল।

এরপর নানা ইস্যুতে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি এবং আর্থিক খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ ব্যাংকের মধ্যে মতভিন্নতার প্রভাবে টানা কয়েক মাস সংশোধন শেষে নতুন বছরে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা চলে। সেটি প্রথমে ধাক্কা খায় শ্রীলঙ্কায় অর্থনৈতিক বিপর্যয়ে। এরপর ফেব্রুয়ারির শেষে ইউক্রেনে রুশ হামলা, পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞা আর বিশ্ব অর্থনীতিতে নামে বিপর্যয়।

এমনিতেই প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর অভাবে ভুগতে থাকে দেশের পুঁজিবাজার। ব্যক্তি-শ্রেণির যে বিনিয়োগকারীরা আছেন, তারা বিনিয়োগের মূলতত্ত্বের বাইরে গিয়ে গুজব, গুঞ্জনে কান দেন বেশি। নানা সময় দেখা যায়, তারা গুজবে শেয়ার কেনেন; আতঙ্কে বেচেন। অথচ পরিস্থিতি এমনটা হওয়ার কথা ছিল না।

২০২০ সালের মে মাসে বিএসইসির দায়িত্ব নেয়ার পর থেকে শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলামের নেতৃত্বে যেসব পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে, তা আগে নেয়া হয়নি। বন্ধ হয়ে যাওয়া বেশ কিছু কোম্পানিতে প্রাণ ফিরেছে কমিশনের উদ্যোগে।

কয়েকটি কোম্পানিতে উৎপাদন শুরু হয়েছে। কিছু কোম্পানি পরীক্ষামূলক উৎপাদন শুরু করেছে। ২০০৯ সালে ওভার দ্য কাউন্টার বা ওটিসিতে পাঠিয়ে দেয়া কয়েকটি কোম্পানি ‍মুনাফায় ফেরার পর পুঁজিবাজারেও ফিরেছে।

যেসব কোম্পানি টাকা তুলে হাওয়া হয়ে গিয়েছিল, সেগুলোকে ডি লিস্টিংয়ের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এতে তারা বিনিয়োগকারীদের তাদের টাকা ফিরিয়ে দেবে।

বেশ কিছু আইন-কানুন, বিধিবিধান সংস্কার করা হয়েছে, যাতে বিনিয়োগকারীদের স্বার্থ সংরক্ষণ হয়। কোম্পানিগুলোকে বোনাস লভ্যাংশের বদলে নগদ লভ্যাংশ দিতে অনুপ্রাণিত করা হচ্ছে।

সংকটের মধ্যে শেয়ারের সর্বনিম্ন দর বেঁধে দিয়ে পুঁজির সুরক্ষা দেয়া হচ্ছে, যে অস্ত্র এখন পর্যন্ত দুবার প্রয়োগ করেছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা। বাজারে কারসাজির কারণে নিয়মিত শাস্তির ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

এ কমিশনের চেষ্টা ও বারবার আলোচনার পর বিনিয়োগকারীদের এক যুগের একটি দাবিও পূরণ হয়েছে। ব্যাংকের বিনিয়োগসীমার গণনা শেয়ারের বাজারমূল্যের বদলে ক্রয়মূল্যে নির্ধারণের কারণে ব্যাংকের দীর্ঘমেয়াদি বিনিয়োগের সুযোগ তৈরি হয়েছে।

মিউচুয়াল ফান্ডগুলোকে শৃঙ্খলায় আনতে কমিশনের উদ্যোগ দৃশ্যমান। ফান্ডগুলো নগদে গত দুই বছর দারুণ লভ্যাংশ দিয়েছে। ইউনিটদরের তুলনায় তাদের লভ্যাংশ যেকোনো সঞ্চয়ী আমানতের চেয়ে বেশি।

বন্ড মার্কেট উন্নয়নেও কমিশনের ভূমিকা রয়েছে। ইসলামী গ্রিন সুকুকের পাশাপাশি সরকারি ট্রেজারি বন্ডেরও লেনদেন শুরু হয়েছে, যা বিনিয়োগকারীকে নির্দিষ্ট অঙ্কের নগদ লভ্যাংশ নিশ্চিত করবে।

সবার জন্য আইপিও শেয়ার নিশ্চিত করাও কমিশনের উল্লেখযোগ্য একটি পরিবর্তন। এর আগে লটারি করে শেয়ার বণ্টন হতো। তাতে হাতে গোনা কয়েকজন পেতেন সুবিধা।

এত সব পরিবর্তন ও চেষ্টার পরও পুঁজিবাজার তার কাঙ্ক্ষিত গতিতে ছুটতে পারছে না। ব্যক্তিশ্রেণির বিনিয়োগকারীর সংখ্যা বেশি হওয়ায় তারা অল্পতেই ভীত হন। প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর হাতে বাজারের নিয়ন্ত্রণ নেই।

২০২০ সালের মে মাসে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিবলী রুবাইয়াত-উল ইসলামকে বাংলাদেশের পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থার চেয়ারম্যান হিসেবে নিয়োগ দেয় সরকার। কমিশনার হিসেবে যোগ দেন একই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক শেখ শামসুদ্দিন আহমেদ, মিজানুর রহমান ও রুমানা ইসলাম। যোগ দেন সাবেক বাণিজ্যসচিব আব্দুল হালিমও।

এই কমিশন দায়িত্ব নেয়ার সময় ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের বা ডিএসইর সাধারণ সূচক ছিল ৪ হাজারের নিচে। আর লেনদেন নেমে এসেছিল ১০০ কোটি টাকার নিচে।

১৫ মাসের মধ্যে সূচক বেড়ে হয় ৭ হাজার ৩০০ পয়েন্ট, লেনদেন তিন হাজার কোটি টাকাও ছাড়িয়ে যায়। এরপর ঘটে ছন্দঃপতন।

এর ওপর বিশ্ব অর্থনীতিতে টালমাটাল পরিস্থিতি, ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধের হাত নেই, তবে বিএসইসি চেয়ারম্যান মনে করেন, যুদ্ধ থামলেই মানুষের মনে আতঙ্ক কাটবে। তখন আবার ঊর্ধ্বমুখী ধারায় ফিরবে পুঁজিবাজার।

নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘আমরা মিসিং লিংকগুলো নিয়ে কাজ করেছি। অর্থাৎ যে জায়গাগুলোতে কাজ করা দরকার ছিল, কিন্তু করা হয়নি বা করা যাচ্ছিল না, তার সব জায়গায় হাত দিয়েছি। আশা করি ভবিষ্যতে বিনিয়োগকারীরা এর সুফল পাবে।’

তিনি বলেন, ‘রিয়েল এস্টেট সেক্টরকে সাহায্য করার জন্য আরইআইটি করতে যাচ্ছি আমরা। বিশ্বব্যাংকের দেয়া ৯ মিলিয়ন ডলার দিয়ে দেশের পুঁজিবাজারকে পামটপে নিয়ে আসার পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করছি। ডিএসই ও সিএসইকে আধুনিক করার চেষ্টা করছি।’

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) পরিচালক শাকিল রিজভী বলেন, ‘বর্তমান কমিশন যত কাজ করেছে, চেষ্টা করেছে, এর আগে কেউ এত করেনি।’

নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘কমিশন গণমাধ্যমে বিভিন্ন ইতিবাচক বক্তব্য প্রচার করে। বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গেও বহু বছরের কাঙ্ক্ষিত সমন্বয়টা তারা তৈরি করতে পেরেছেন।’

স্টক ব্রোকার অ্যাসোসিয়েশন বা ডিবিএর সভাপতি রিচার্ড ডি রোজারিও বলেন, ‘দেশের পুঁজিবাজারে কাজ শুরু করার পরপরই রিং সাইনের মতো কিছু কোম্পানিকে তারা শাস্তির আওতায় নিয়ে এসেছিল। এটা বেশ ভালো কাজ করেছিল দেশের পুঁজিবাজারে বিনিয়োগকারীদের আস্থা ফেরাতে।

‘এ ছাড়া কোম্পানির পরিচালকদের কমপক্ষে ২ শতাংশ ও সার্বিকভাবে ৩০ শতাংশ শেয়ার ধারণে ভালো ভূমিকা রেখেছে এই কমিশন। এটা দেশের পুঁজিবাজারে ইতিবাচক প্রভাব রেখেছে।’

এতগুলো উদ্যোগের পরও পুঁজিবাজারে কাঙ্ক্ষিত গতি নেই কেন, এমন প্রশ্নে মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাবেক সভাপতি মোহাম্মদ এ হাফিজ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বিএসইসি অনেক আইন করেছে, আবার অনেক কিছু দ্রুত পরিবর্তনও করছে। এতে বিনিয়োগকারীরা বিভ্রান্ত হচ্ছে। যেমন প্রি ওপেনিং সেশনের কথাই বলি। একবার এটি চালু হয়, একবার বন্ধ হয়। এসব বিষয়ে বিএসইসির আরও একটি সতর্ক হওয়া উচিত।’

ফ্লোর প্রাইস নিয়ে এখন গুজব চলছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘বিএসইসির সরাসরি ঘোষণা দেয়া উচিত যে আগামী তিন বা ছয় মাস আগে এই ফ্লোর উঠবে না। গুজব ঠেকাতে তাদের আরও সক্রিয় হওয়া উচিত।’

পাশাপাশি বিনিয়োগকারীর বিনিয়োগ শিক্ষা, প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ বাড়ানোর বিকল্প নেই বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

বন্ধ কোম্পানিতে ফিরছে প্রাণ

এমারেল্ড অয়েলের কথাই ধরা যাক। ২০১৬ সালের ২৭ জুন বন্ধ হয়ে গিয়েছিল কোম্পানিটি। বন্ধ হওয়ার সময় শেয়ারদর ছিল ৭০ টাকা। আর তা একপর্যায়ে নেমে আসে ৮ টাকায়।

আর কখনও পুঁজি ফিরে পাওয়া যাবে না, এমন শঙ্কার মধ্যে থাকা কোম্পানিটির বোর্ড পুনর্গঠন করার পর বদল হয় মালিকানা। ঘুরতে শুরু করে বন্ধ চাকা। দেশের বাজারে তেল বিপণন শুরুর পাশাপাশি জাপানে রপ্তানির স্বপ্নও ডানা মেলছে। বেশ কিছু মানুষের চাকরিও হয়েছে কোম্পানিতে। সরকার পাচ্ছে কর।

মৃত কোম্পানি আলহাজ টেক্সটাইল, সিঅ্যান্ডএ টেক্সটাইল, ফ্যামিলি টেক্সটাইলেও উৎপাদন ফেরানো হয়েছে একই প্রক্রিয়ায়। এমনকি ইউনাইটেড এয়ারকেও আবার আকাশে তোলার চেষ্টা হচ্ছে।

বর্তমান কমিশন দায়িত্ব গ্রহণের পর ২৮টি কোম্পানির বোর্ড পুনর্গঠন করেছে, যার মধ্যে ২০টি কোম্পানি বর্তমানে তাদের কাজ চালু করেছে।

এক্সপোজার লিমিটের সংজ্ঞা পরিবর্তন

ব্যাংকের বিনিয়োগসীমা শেয়ারের বাজারমূল্য নির্ধারণের কারণে দীর্ঘমেয়াদি বিনিয়োগ বাধাগ্রস্ত হচ্ছিল। এক যুগ ধরে দেনদরবার করেও শেয়ারের ক্রয়মূল্যে এক্সপোজার লিমিট গণনা করতে রাজি করা যাচ্ছিল না কেন্দ্রীয় ব্যাংককে, তবে গত আগস্টে কেন্দ্রীয় ব্যাংক একটি কৌশলী সিদ্ধান্ত নেয়।এতে বলা হয়, শেয়ারের ক্রয়মূল্যই বাজারমূল্য হিসেবে বিবেচিত হবে।

ফলে এখন ব্যাংকের কেনা শেয়ারের দর বেড়ে দ্বিগুণ বা তার চেয়ে বেশি বেড়ে গেলেও এক্সপোজার লিমিট অতিক্রম করে গেছে বলে শেয়ার বিক্রি করে দিতে হবে না। এটি পুঁজিবাজারে দীর্ঘমেয়াদি বিনিয়োগের সুযোগ তৈরি করেছে।

বাংলাদেশ ব্যাংককে এই পরিবর্তনে রাজি করতে বিএসইসি সংস্থাটির সঙ্গে একাধিকবার বৈঠক করেছে, অর্থ মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে আলোচনা করেছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গেও বারবার দেখা করেছেন বিএসইসি চেয়ারম্যান।

কমিশনের সবচেয়ে বড় একটি সাফল্য ছিল বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গে সমন্বয় বাড়ানো। ফলে বেশ কিছু সুবিধা পেয়েছে দেশের পুঁজিবাজার। একটি সত্যকে প্রতিষ্ঠা করা গেছে যে ব্যাংক করবে কম সময়ের জন্য আর পুঁজিবাজার করবে দীর্ঘমেয়াদি অর্থায়ন।

বন্ড মার্কেটের বিকাশ শুরু

অনেক দিন ধরে বলা হচ্ছিল বাংলাদেশের পুঁজিবাজারের গভীরতা কম। দেশের পুঁজিবাজারের গভীরতা বাড়াতে খুব বাস্তবমুখী কিছু সিদ্ধান্ত নেয় এই কমিশন।

নতুন কমিশন আসার পর থেকে প্রচুর বন্ডের অনুমোদন দেয়া হয়। আর সেসব বন্ড দেশের অল্টারনেটিভ ট্রেডিং বোর্ডে লেনদেনের শর্ত জুড়ে দেয়া হয়েছে। এই নিয়ম না হলে এ ধরনের বন্ডের নাগাল বিনিয়োগকারীরা পেতেন না।

সরকারি সিকিউরিটি লেনদেন চালু করেছে নতুন কমিশন। এর ফলে এক দিনেই বাজার মূলধন বেড়েছে আড়ই লাখ কোটি টাকা। ফলে দেশের পুঁজিবাজারের গভীরতা বেড়েছে।

শুধু শেয়ার দিয়ে বাজার বড় করা যাবে না- এই মন্ত্র মেনে বন্ডের পাশাপাশি কমডিটি স্টক এক্সচেঞ্জ স্থাপানের উদ্যোগ নিয়েছে বিএসইসি। এর মধ্যে বসুন্ধরাকে পার্টনার হিসেবে পেয়েছে চিটাগং স্টক এক্সচেঞ্জ বা সিএসই)। সামনে বাংলাদেশে কমোডিটি স্টক এক্সচেঞ্জ আনছে তারা।

সবার জন্য শেয়ার

আইপিও থেকে লটারিব্যবস্থা তুলে দেয়া একটি বিরাট পরিবর্তন। লটারি থাকার সময় লাখো বিও হিসাব শুধু আইপিও করার জন্য ব্যবহৃত হতো। দেখা যেত পাওয়া যায় না বলে সাধারণ বিনিয়োগকারীরা আবেদন করাই ছেড়ে দেয়।

আর আইপিও শিকারিরা নিয়মবহির্ভূতভাবে ১০০টি বা তার বেশি অ্যাকাউন্ট রাখতেন। লটারিতে শেয়ার পেয়ে লাভে বিক্রি করে দিয়ে দেশের পুঁজিবাজার থেকে টাকা বের করে নিয়ে যেতেন।

নতুন নিয়মে পুঁজিবাজারে আইপিতে শেয়ার পেতে হলে বিনিয়োগ থাকতে হবে সেকেন্ডারি মার্কেটে। প্রকৃত বিনিয়োগকারীরা এখন শেয়ার পাচ্ছেন।

ভালো কোম্পানি বাড়ানোর চেষ্টা হিসেবে তালিকাভুক্তির বাইরে থাকা বিমা ও ব্যাংকগুলোকে আনতে কাজ করেছে নতুন কমিশন। এর মধ্যে বেশে কয়েকটি কোম্পানিকে তালিকাভুক্ত করা হয়েছে।

বাজারে আনা হয়েছে বহুজাতিক কোম্পানি রবিকে। বাংলালিংককে তালিকাভুক্তির চেষ্টাও চলছে।

ক্ষুদ্র ও মাঝারি ব্যবসাগুলোকে টাকা দেয়ার জন্য এসএমই মার্কেট চালু করেছে নতুন কমিশন। আর তালিকার বাইরে থাকা কোম্পানিগুলোর শেয়ার লেনদেনের জন্য অল্প কিছুদিনের মধ্যে চালু হবে অল্টারনেটিভ ট্রেডিং বোর্ড বা এটিবি।

আইপিও অনুমোদনে সাবধানতা

গত কমিশনের সময় এক বড় অভিযোগ ছিল খারাপ কোম্পানি মিথ্যা তথ্য দিয়ে দেশের পুঁজিবাজার থেকে টাকা তুলে নিয়ে যাচ্ছে।

নতুন কমিশন বেশ গুরুত্ব দিয়ে এই ফুটো বন্ধ করার কাজে হাত দেয়। প্রথম আগের কমিশনের সময় আবেদন করা প্রায় ৮ থেকে ১০টি কোম্পানির আবেদন বাতিল করে দেয়া হয়।

তবে শুধু আইপিও বাতিল করেই বসে থাকেননি। যেসব ভালো কোম্পানি দেশের পুঁজিবাজার থেকে টাকা নিতে চায় তাদের রাস্তা সহজ করতে অনেকগুলো অভ্যন্তরীণ উদ্যোগ নিয়েছে কমিশন।

ফিন্যানশিয়াল রিপোর্টিং কাউন্সিল বা এফআরসিকেও সচল করা হয়েছে যাতে কোম্পানি মিথ্যা তথ্য দিলে নীরিক্ষককে ধরা যায়।

পর পর দুই বাজেটে বর্তমান কমিশন বড় ভূমিকা রেখেছে করপোরেট কর কমিয়ে আনার জন্য। যাতে ভালো কোম্পানি বাজারে আসে।

অদাবীকৃত লভ্যাংশ দিয়ে স্ট্যাবিলাইজেশন ফান্ড

বছরের পর বছর ধরে বিনিয়োগকারীর জন্য ঘোষিত যে লভ্যাংশ বিনিয়োগ না করার কারণে অলস পড়ে ছিল, সেগুলোতে একটি ছাতার তলে আনার উদ্যোগ এরই মধ্যে দৃশ্যমান হয়েছে। অদাবিকৃত এসব ল্যভাংশ দিয়ে কয়েক শ কোটি টাকায় গঠন করা হয়েছে পুঁজিবাজার স্থিতিশীলতা তহবিল।

এরই মধ্যে এই তহবিল পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ শুরু করেছে। বাজারে যাত্রা শুরু করেছে একটি মিউচুয়াল ফান্ড।

এটা অবশ্য ঠিক যে, শুরুতে যত টাকা পাওয়া যাবে বলে ধারণা করা হয়েছিল, পাওয়া গেছে তার একাংশই। এর কারণ কোম্পানিগুলো পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দিয়ে বিনিয়াগকারীদেরকে লভ্যাংশ নিয়ে যেতে বলার পর অনেক লভ্যাংশ বিতরণ করা হয়।

তবে তহবিলে আরও টাকা জমা পড়ছে এবং বিপুলসংখ্যক শেয়ারও জমা পড়বে যেগুলোও বাজারের স্থিতিশীলতায় কাজ করবে বলে আশা করা হচ্ছে।

কারসাজির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা

পুঁজিবাজারে সূচক বৃদ্ধির সময় বেশ কিছু কোম্পানির শেয়ারের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধির বিষয়টি খতিয়ে দেখে বারবার ব্যবস্থা নিয়েছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা। জরিমানা করা হয়েছে বারবার। এর মধ্যে আলোচিত বিনিয়োগকারী আবুল খায়ের হিরু ও তার সহযোগীদের ১৪ কোটি টাকার বেশি জরিমানা করা হয়েছে ১০টি কোম্পানির শেয়ারে কারসাজির প্রমাণ পেয়ে।

এই তদন্ত এখনও চলমান আছে। কমিশনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, কারসাজি করলে সাজা পেতেই হবে।

ডিজিটাল মাধ্যম ব্যবহার করে শেয়ারের দাম বাড়ানো-কমানো ঠেকাতে নতুন উদ্যোগ নিয়েছে কমিশন। নির্দেশনা জারি করে ডিএসই, বিএসইসি, সিএসই বা দেশের পুঁজিবাজার সম্পর্কিত লোগো কেউ ব্যবহার করতে পারবেন না। পাশাপশি বিএসইসির একটি টিম সার্বক্ষণিক নজর রাখছে সামাজিক মাধ্যমগুলোর ওপরে।

ফ্লোর প্রাইস

এটির প্রথম প্রয়োগ অবশ্য করে আগের কমিশন। ২০২০ সালের মার্চে দেশে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব নিশ্চিত হওয়ার পর শেয়ারদরে যখন ধস নামে, তখন প্রতিটি শেয়ারের সর্বনিম্ন দর বা ফ্লোর প্রাইস বেঁধে দেয়া হয়।

বর্তমান কমিশন দায়িত্ব নেয়ার পর বাজারে দেখা দেয় ঊর্ধ্বমুখী ধারায়। আর ধীরে ধীরে প্রত্যাহার করে নেয়া হয় ফ্লোর প্রাইস।

এবারও একই কৌশলে শেয়ারদর ধরে রাখা হয়েছে। যদিও প্রায় তিন শ কোম্পানির শেয়ার ফ্লোর প্রাইসেও লেনদেন হচ্ছে না, তারপরও যেহেতু এগুলোর দরপতন ঘটছে না, বিনিয়োগকারীদের এক ধরনের সুরক্ষা দেয়া যাচ্ছে।

আরও পড়ুন:
‘পুঁজিবাজার এভাবে চলতে পারে না’
শেয়ার কেনার ‘কেউ নেই’, দেড় বছরে দ্বিতীয় সর্বনিম্ন লেনদেন
প্রি ওপেনিংকে ফের কারসাজির সুযোগ ভাবল বিএসইসি
এসএমইতে বিনিয়োগ: বিএসইসির আবেদন শোনেনি চেম্বার আদালত
এক দিন পরই সূচকের ধপাস, ‘ক্রেতাশূন্য’ তিন শ কোম্পানি

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
The capital market cannot operate like this

‘পুঁজিবাজার এভাবে চলতে পারে না’

‘পুঁজিবাজার এভাবে চলতে পারে না’ ডিএসইর পরিচালক শাকিল রিজভী, ডিবিএর সাবেক সভাপতি আহমেদ রশীদ লালী ও ডিবিএর বর্তমান সভাপতি রিচার্ড ডি রোজারিও। ছবি কোলাজ: নিউজবাংলা
‘পুঁজিবাজারে ভাইব্রেন্সি খুব প্রয়োজন। তা ছাড়া এভাবে চলতে পারে না। বছরের ১২ মাসের মধ্যে ১০ মাস ডিপ্রেসড থাকবে, আর দুই মাস ভালো থাকবে, আমরা উচ্ছ্বসিত থাকব, এভাবে চলে না।’

বৈশ্বিক অর্থনৈতিক সংকটের মধ্যে দেশে পুঁজিবাজারের যে আচরণ, তাতে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের পাশাপাশি হতাশ হয়ে পড়েছেন খোদ স্টক এক্সচেঞ্জের সঙ্গে জড়িত বড় বিনিয়োগকারীরাও।

ফ্লোর প্রাইসের প্রভাবে শেয়ারের দরপতন ঠেকানো গেছে বটে, কিন্তু ৩৯০টি কোম্পানির মধ্যে কার্যত ৭০ থেকে ৮০টি কোম্পানির শেয়ারে হাতবদল হচ্ছে, তাও সংখ্যায় কম। বাকি কোম্পানিগুলোর মধ্যে কোনো দিন ৭০টি, কোনো দিন ৮০টির ক্রেতা থাকে না। আর দুই শতাধিক কোম্পানির কিছু শেয়ার হাতবদল হয় বটে, কিন্তু তা এতটাই নগণ্য যে গুরুত্ব পাওয়ার মতো না।

মাস দুয়েক আগেও সেখানে দুই হাজার কোটি বা তার চেয়ে বেশি লেনদেন হচ্ছিল, সেটি এখন নেমে এসেছে তিন শ কোটির ঘরে।

ডিএসই ব্রোকার্স অ্যাসোসিয়েশনের (ডিবিএ) সাবেক সভাপতি আহমেদ রশীদ লালী পুঁজিবাজারের এই পরিস্থিতিতে পুরোপুরি হতাশ। নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘পুঁজিবাজারে ভাইব্রেন্সি খুব প্রয়োজন। তা ছাড়া এভাবে চলতে পারে না। বছরের ১২ মাসের মধ্যে ১০ মাস ডিপ্রেসড থাকবে, আর দুই মাস ভালো থাকবে, আমরা উচ্ছ্বসিত থাকব, এভাবে চলে না।’

‘বাজারের মধ্যে এখন বড় বিনিয়োগকারীরা ওয়েট অ্যান্ড সি বা সাইডলাইনে বসে গেছেন। একটা বৈশ্বিক কারণ আর দ্বিতীয় হলো যে, এই যে কোটি কোটি টাকা ফাইন হয়, সেটা দেখে আতঙ্কিত হয়ে পড়েন।’

তিনি বলেন, কেউ দোষ যদি করে তাহলে শাস্তি হবে, কিন্তু যেভাবে মিডিয়ায়, পত্রিকায় আসে, সেভাবে আসলে বড় বিনিয়োগকারীরা শাই হয়ে যায়। তারা যদি বিনিয়োগ করতে ভয় পায়, তাদের জন্য প্যানিক সিচুয়েশন হয়, তাহলে বাজারের ভাইব্রেন্সি থাকবে না। তখন আমাদের মতো বিনিয়োগকারীরা বাজারকে ওইভাবে সাপোর্ট দিতে পারি না। সাপোর্ট দিতে হলে বড় বিনিয়োগকারীদের আনতে হবে।’

কী করার আছে?

লালী বলেন, ‘বাজারে যে জিনিসগুলো প্রয়োজন তা হলো ডিএসইর আমূল পরিবর্তন করতে হবে। বৃহত্তর রিফর্মেশন আনতে হবে। ডিএসই কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য না, কোনো কাজই করছে না, অগ্রহণযোগ্য। একটা ইনএফিশিয়েন্ট এক্সচেঞ্জ যেটাকে বলা হয়, সেটা হলো ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ।’

কোনো নীতি বা বড় সিদ্ধান্ত গ্রহণের আগে সবার অংশ্রহণের ওপর জোর দেন তিনি। বলেন, ‘পলিসির কনসিসটেন্সি থাকতে হবে। ডিএসই থেকে বা বিএসইসি থেকেই হোক ধারাবাহিকতা থাকতে হবে। কোনো নীতি করার আগে সব স্টেকহোল্ডারের সঙ্গে বসে একটা ভালো জিনিস বের করে আনতে হবে।’

ডিবিএর বর্তমান সভাপতি রিচার্ড ডি রোজারিও বলেন, ‘রিফর্মেশন দরকার আছে, তবে ভালো লোককে বাদ দিয়ে অযোগ্য লোককে নিয়ে এলে হবে না। আইটি সেক্টরে দুর্বলতা রয়েছে, সেটা বারবারেই দেখা যাচ্ছে। এ ছাড়া দুইটা স্টক এক্সচেঞ্জই চলছে ভারপ্রাপ্ত এমডি দিয়ে, এটা কোনোভাবেই কাম্য নয়।’

ট্রেজার সিকিউরিটিজের শীর্ষ কর্মকর্তা মোস্তফা মাহবুব উল্লাহ বলেন, ‘ডিএসইর রিফর্মেশন অবশ্যই দরকার আছে। এমডি পদেই একজন লোক ঠিক করা যাচ্ছে না, আসছেন আর যাচ্ছেন। এটা কেমন কথা? এটা তো প্রতিষ্ঠানের পথচলা বাধাগ্রস্ত করছে।’

‘পুঁজিবাজার এভাবে চলতে পারে না’

ট্রেজার সিকিউরিটিজের শীর্ষ কর্মকর্তা মোস্তফা মাহবুব উল্লাহ। ছবি: নিউজবাংলা

কারসাজির সাজা এত দেরিতে কেন?

পুঁজিবাজারে কোনো শেয়ার নিয়ে কারসাজি হলে মাসের পর মাস তা দেখে আরও কয়েক মাস পর ব্যবস্থা নিয়ে তা ঠেকানো যাবে না বলেও মনে করেন লালী।

বলেন, নিউ ইয়র্কে ডেইলি বিচার হয়। জুমের মাধ্যমে তারা অভিযুক্তকে জিজ্ঞেস করেন আপনি এটা এটা করেছেন। আপনি কি দোষী? উত্তর ‘হ্যাঁ’ হলে বলা হয়, ১০ হাজার ডলার পাঠিয়ে দিন। এভাবে কেসটা চলে।

‘এখন তো অনলাইন সার্ভেলেন্স। আপনি কেন সঙ্গে সঙ্গে বলছেন না, আপনি ভুল করছেন। এটা ঠিক করেন। তাহলেই তো আমি সাবধান হয়ে যাই। আমাকে ভুল করিয়ে কমিটি করবেন, ইনকোয়ারি করবেন, তারপর কোটি কোটি টাকা ফাইন করবেন।’

যেটা সঙ্গে সঙ্গে সারাতে পারেন সেটা তিন মাস ধরে করে করছেন, এটা কি টাকা কামাই করার মেশিন নাকি? তিন মাস ধরে বিচার করবেন, আর তিন মাস ধরে বাজার ক্ষতিগ্রস্ত হবে সেটা তো হতে পারে না।’

ডিবিএ সভাপতি রিচার্ড বলেন, ‘সার্ভেলেন্সের মাধ্যমে ম্যানুপুলেশন রোধে তড়িৎ ব্যবস্থা নিলে ব্রোকারেজ হাউজটাও রক্ষা পায়, ওই লোকটাও বাঁচে আবার পুঁজিবাজারও ক্ষতির সম্মুখীন হয় না।’

সার্ভেলেন্সের মাধ্যমে ম্যানুপুলেশন ব্যবস্থা নেয়ার পক্ষে মোস্তফা মাহবুব। ‍তিনি বলেন, ‘সার্ভেলেন্সে রিয়েল টাইম ট্রেড দেখা যায়। সুতরাং সময়েই ফোন করেই এটা বন্ধ করা যায় বা ব্যবস্থা নেয়া যায়।’

জরিমানার অঙ্ক নিয়ে অসন্তুষ্ট ট্রেজার সিকিউরিটিজের শীর্ষ কর্মকর্তা মোস্তফা মাহবুব উল্লাহ। তিনি বলেন, ‘যত আয় করছে, তার ২ থেকে ৩ শতাংশ জরিমানা করা হচ্ছে। এটা কি জরিমানা নাকি জাকাত? জরিমানা হতে হবে, যতখানি ম্যানুপুলেশন তার কয়েকগুণ বেশি।’

লালী বলেন, ‘ইনডেক্স, ভলিউম কন্ট্রোল করা থেকে বিরত থাকতে হবে। বাজারের মধ্যে ব্যাড প্লে করছে কি-না, বাজার সুস্থ রাখার জন্য সেটা দেখা দরকার। বাজারকে অযাচিতভাবে খারাপ রাখার চেষ্টা করছে কিনা তা দেখবে নিয়ন্ত্রক সংস্থা। তবে কোনো অবস্থাতেই ভলিউম বা ইনডেক্স কন্ট্রোল করলে পরে বাজার ক্ষতিগ্রস্ত হবে।’

বড় বিনিয়োগকারীদের সঙ্গে বসে তাদের কী সমস্যা, সেগুলো একটু দেখে সমস্যার সমাধানের পরামর্শও দেন তিনি। বলেন, ‘বাজারে সবসময় মার্কেট মেকার থাকতে হয়। না থাকলে সারাজীবন নড়বড়ে থাকবে।’

ট্রেজার সিকিউরিটিজের শীর্ষ কর্মকর্তা মোস্তফা মাহবুব উল্লাহও মনে করেন মার্কেট মেকার থাকা জরুরি। তিনি বলেন, ‘মার্কেট মেকার লাইসেন্স দিয়ে মার্কেট ভালো করা যায়। সব ডুজ অ্যান্ড ডোন্ট মেনে চলতে হবে।’

বিনিয়োগকারীদের স্বার্থে নগদ পেমেন্ট পদ্ধতির চালু থাকা দরকার বলে জানান ডিএসইর পরিচালক শাকিল রিজভী। বলেন, ‘পুঁজিবাজারে অ্যাসেট দ্রুত লিকুইডেট করা যায় বলেই তারা সাধারণ বিনিয়োগকারীরা এখানে আসেন। যখন কোনো ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারী চেক ছাড়া নগদ টাকা নিতে পারেন না, সেটা তাকে মার্কেট বিমুখ করে। কারণ অল্প কিছু টাকার জন্য এত ঝক্কিঝামেলা পোহাতে চান না কেউই। সুতরাং এই বিষয়টা একটু দেখা দরকার।’

কী বলছেন বিএসইসি চেয়ারম্যান

পুঁজিবাজার সংশ্লিষ্টদের এসব বক্তব্যের বিষয়ে জানতে চাইলে বিএসইসির চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল ইসলাম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘প্রায় সবই ঠিক বলেছেন। তবে সার্ভেলেন্সটা ডিএসই করে থাকে। তারা এনফোর্সমেন্টের জন্য পাঠানোর পরে আমাদের কাজ শুরু করতে হয়। যার জন্য দেরি হয়ে যায়।’

তিনি বলেন, ‘আর আমরা তো মিডিয়াতে প্রেস রিলিজ হিসেবে জরিমানার খবর প্রচার করি না। আমাদের ওয়েবসাইটে আপলোড করা থাকে, সেখান থেকে হয়তো দেখে করে।

‘ডিএসইর বোর্ড রিফর্মেশনের দরকার আছে। সেটাও বিবেচনায় নেয়া হবে।’

আরও পড়ুন:
শেয়ার কেনার ‘কেউ নেই’, দেড় বছরে দ্বিতীয় সর্বনিম্ন লেনদেন
প্রি ওপেনিংকে ফের কারসাজির সুযোগ ভাবল বিএসইসি
এসএমইতে বিনিয়োগ: বিএসইসির আবেদন শোনেনি চেম্বার আদালত
এক দিন পরই সূচকের ধপাস, ‘ক্রেতাশূন্য’ তিন শ কোম্পানি
ফেসবুকে পুঁজিবাজার নিয়ে ভীতি ছড়িয়ে মামলার আসামি

মন্তব্য

p
উপরে