× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

অর্থ-বাণিজ্য
War hit export earnings fell 625 percent in September
hear-news
player
google_news print-icon

রপ্তানি আয়ে যুদ্ধের ধাক্কা, সেপ্টেম্বরে কমেছে ৬.২৫ শতাংশ

রপ্তানি-আয়ে-যুদ্ধের-ধাক্কা-সেপ্টেম্বরে-কমেছে-৬২৫-শতাংশ
রপ্তানির বিভিন্ন খাত। ফাইল ছবি
পোশাক রপ্তানিকারক ও অর্থনীতিবিদরা বলছেন, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে বাংলাদেশের পোশাকের প্রধান দুই বাজার যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের দেশগুলোতে মূল্যস্ফীতি অস্বাভাবিক বেড়ে যাওয়ায় তারা পোশাক কেনা কমিয়ে দিয়েছে। তাদের এখন খাদ্যের পেছনেই অনেক বেশি খরচ করতে হচ্ছে। সে কারণেই রপ্তানি আয় কমছে।

যেমনটা আশঙ্কা করা হচ্ছিল, তেমনটিই ঘটতে শুরু করেছে। রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের ধাক্কার প্রভাবে কমতে শুরু করেছে বাংলাদেশের রপ্তানি আয়।

সদ্য সমাপ্ত সেপ্টেম্বর মাসে বিভিন্ন দেশে ৩৯০ কোটি ৫০ লাখ (৩.৯০ বিলিয়ন) ডলারের পণ্য রপ্তানি করেছে বাংলাদেশ। এই অঙ্ক গত বছরের সেপ্টেম্বর মাসের চেয়ে ৬ দশমিক ২৫ শতাংশ কম। আর নির্ধারিত লক্ষ্যমাত্র চেয়ে ৭ দশমিক শূন্য দুই শতাংশ কম।

এ বছরের সেপ্টেম্বরে পণ্য রপ্তানি থেকে ৪ দশমিক ২০ বিলিয়ন ডলার আয়ের লক্ষ্য ধরেছিল সরকার।

গত বছরের সেপ্টেম্বর মাসে আয় হয়েছিল ৪ দশমিক ১৬ বিলিয়ন ডলার।

দীর্ঘদিন পর পণ্য রপ্তানিতে নেতিবাচক প্রবৃদ্ধি দেখল বাংলাদেশ।

পোশাক রপ্তানিকারক ও অর্থনীতিবিদরা বলছেন, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে বাংলাদেশের পোশাকের প্রধান দুই বাজার যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের দেশগুলোতে মূল্যস্ফীতি অস্বাভাবিক বেড়ে যাওয়ায় তারা পোশাক কেনা কমিয়ে দিয়েছে। তাদের এখন খাদ্যের পেছনেই অনেক বেশি খরচ করতে হচ্ছে। সে কারণেই রপ্তানি আয় কমছে।

চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম প্রন্তিকের (জুলাই-সেপ্টেম্বর) হিসাবে এখনও প্রবৃদ্ধি ধরে রেখেছে বাংলাদেশ।

রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) রোববার প্রকাশিত তথ্যে দেখা যায়, চলতি অর্থবছরের জুলাই-সেপ্টেম্বর সময়ে বাংলাদেশের রপ্তানিকারকরা ১২ দশমিক ৫০ বিলিয়ন ডলারের পণ্য রপ্তানি করছেন, যা গত বছরের একই সময়ের চেয়ে ১৩ দশমিক ৩৮ শতাংশ বেশি। আর লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি দশমিক ৬২ শতাংশ।

১৩ মাস পর নেতিবাচক প্রবৃদ্ধি

১৩ মাস পর রপ্তানি আয়ের প্রবৃদ্ধিতে হোঁচট খেলো বাংলাদেশ। ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়ে আগের বছরের জুলাইয়ের চেয়ে রপ্তান আয় কমেছিল ৬ দশমিক শূন্য এক শতাংশ।

এর পর থেকে এক বছরের বেশি সময় ধরে রপ্তানি আয়ে বড় প্রবৃদ্ধি হচ্ছিল। ৩৪ দশমিক ৩৮ শতাংশ প্রবৃদ্ধি নিয়ে ২০২১-২২ অর্থবছর শেষ হয়েছিল।

চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম দুই মাসে প্রবৃদ্ধি হয়েছিল ২৫ দশমিক ৩১ শতাংশ।

কিন্তু সেপ্টেম্বর মাসে এসে ৬ দশমিক ২৫ শতাংশ নেতিবাচক প্রবৃদ্ধি হয়েছে।

ইপিবির তথ্য বিশ্লেষণে দেখা যায়, সেপ্টেম্বর মাসে রপ্তানি আয়ে যে ধাক্কা লেগেছে, তা মূলত তৈরি পোশাক রপ্তানি কমার কারণে হয়েছে। গত মাসে ৩১৬ কোটি ডলারের তৈরি পোশাক রপ্তানি হয়েছে, যা গত বছরের সেপ্টেম্বরের তুলনায় ৭ দশমিক ৫২ শতাংশ কম। গত মাসে ওভেন ও নিট উভয় ধরনের পোশাক রপ্তানিই হ্রাস পেয়েছে।

চলতি অর্থবছরের জুলাই-সেপ্টেম্বর পোশাক রপ্তানিতে ১৩ দশমিক ৩৮ শতাংশের বেশি, পাট ও পাটজাত দ্রব্যে ১৫ দশমিক ৭১ শতাংশ, প্লাস্টিক পণ্যে ৫৬ দশমিক ৫৫ শতাংশ ও চামড়াজাত পণ্যে ২০ দশমিক ৮৭ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হয়েছে।

অন্যদিকে গত অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় কম আয় হয়েছে একাধিক পণ্যে। কৃষিপণ্যে ১৭ দশমিক ৯৮ শতাংশ, কেমিক্যাল পণ্যে ২৩ দশমিক ২৮ শতাংশ ও কাচঁজাত পণ্যে ৫২ দশমিক ৭৯ শতাংশ কম আয় হয়েছে।

পোশাক শিল্পমালিকদের শীর্ষ সংগঠন বিজিএমইএর সাবেক সভাপতি এবং বাংলাদেশ চেম্বারের বর্তমান সভাপতি আনোয়ার-উল-আলম চৌধুরী (পারভেজ) নিউজবাংলাকে বলেন, ‘রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে বাংলাদেশের পোশাকের প্রধান দুই বাজার যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের দেশগুলোতে মূল্যস্ফীতি অস্বাভাবিক বেড়ে যাওয়ায় তারা পোশাক কেনা কমিয়ে দিয়েছে। তাদের এখন খাদ্যের পেছনেই অনেক বেশি খরচ করতে হচ্ছে। সে কারণেই আমাদের রপ্তানি আয় কমছে। বিশ্বব্যাংক-আইএমএফসহ বিভিন্ন সংস্থা বিশ্ব অর্থনীতিতে মন্দার আশঙ্কা করছে। এ অবস্থায় আগামী দিন আমাদের রপ্তানি আয়ে সুখবর নেই বলেই মনে হচ্ছে।’

বিজিএমইএ পরিচালক ও মুখপাত্র মহিউদ্দিন রুবেল নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সেপ্টেম্বর থেকে যে প্রবৃদ্ধিতে মন্দা হবে, সে বিষয়ে ইতোমধ্যে আশঙ্কা প্রকাশ করেছে বিজিএমইএ। যা সেপ্টেম্বরের রপ্তানি পরিসংখ্যানে স্পষ্টতই প্রতিফলিত হয়েছে। কোভিড পরবর্তীতে বিশ্বব্যাপী খুচরা বাজার বিভিন্ন সংকটের কারণে ব্যাহত হচ্ছে। বিশেষ করে, কনটেইনারের অপ্রতুলতা এবং সাপ্লাই চেইন সংকট, কাঁচামালের মূল্য বৃদ্ধি এবং পরবর্তীতে বিশ্ব অর্থনীতিতে পূর্বাভাষ অনুযায়ী মন্দার আবির্ভাব যার কারণে খুচরা বিক্রয়ে ধ্বস নেমেছে, ক্রেতাদের পোশাকের চাহিদা হ্রাস পাচ্ছে, প্রভৃতি সংকটে শিল্প বিপযর্স্ত।

তিনি বলেন, ‘ক্রেতারা তাদের ইনভেন্টরি এবং সাপ্লাই চেইনকে নিজেদের জন্য লাভজনক রাখতে সতর্কতামূলক পদক্ষেপগুলো গ্রহণ করেছে, এমনকি তাদের মধ্যে কেউ কেউ উৎপাদন এবং অর্ডার পযর্ন্ত আটকে রেখেছে।’

মহিউদ্দিন রুবেল বলেন, ‘সামগ্রিকভাবে শিল্পের জন্য একটি বিপর্যয়কর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। যদিও আমরা টেকসই উন্নয়ন এবং প্রতিযোগী সক্ষমতায় আমাদের শক্তি আমরা দেখিয়েছি, তারপরও বৈশ্বিক অর্থনৈতিক পরিস্থিতি ২০২২ সালের শেষ ত্রৈমাসিকের জন্য আশাব্যাঞ্জক কিছু অনুমান করা কঠিন করে তোলে।’

এর আগে ইউরোপের বাজারে বাংলাদেশ প্রবৃদ্ধিতে প্রথম হয়। ইউরোস্ট্যাট প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে দেখা যায়, চলতি বছরের প্রথম ৬ মাসে ১ হাজার ২২৩ কোটি বা ১২.২৩ বিলিয়ন ডলারের পোশাক রপ্তানি করে ইইউ অঞ্চলে চীন প্রথমে রয়েছে। একই সময়ে ১ হাজার ১৩১ কোটি বা ১১.৩১ বিলিয়ন ডলার পোশাক রপ্তানি করে বাংলাদেশ দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে। তবে প্রবৃদ্ধির দিক দিয়ে বাংলাদেশ সবাইকে ছাড়িয়ে গেছে। যেখানে সারা বিশ্ব থেকে ইউরোপে পোশাক রপ্তানি ২৫ শতাংশ বেড়েছে, সেখানে শুধু বাংলাদেশ থেকেই বেড়েছে ৪৪ দশমিক ৬০ শতাংশ। আগের বছর একই সময়ে বাংলাদেশ ইউরোপের বাজারে পোশাক রপ্তানি করেছিল ৭৮২ কোটি বা ৭.৮২ বিলিয়ন ডলার।

আরও পড়ুন:
লক্ষ্যের চেয়েও বেশি রপ্তানি, অর্থনীতির চাপ কাটার আশা
মাঠ পর্যায়েও আমলাতন্ত্রের পরিবর্তন চান সালমান
ইউরোপে বাংলাদেশের পোশাকের দাপট
এবার চীনে রপ্তানি বাড়ার হাতছানি
বাংলাদেশের বড় রপ্তানি বাজার হতে যাচ্ছে ভারত

মন্তব্য

আরও পড়ুন

অর্থ-বাণিজ্য
Meeting with Japanese investors on Tuesday

জাপানের বিনিয়োগকারীদের সঙ্গে বৈঠক মঙ্গলবার

জাপানের বিনিয়োগকারীদের সঙ্গে বৈঠক মঙ্গলবার
জাপানে গিয়ে এই সম্মেলন করার কথা থাকলেও সেই সফর বাতিল করা হয়। যাদের জাপানে যাওয়ার কথা ছিল তারা বাংলাদেশে বসে জুম-এর মাধ্যমে বৈঠকে যুক্ত থাকবেন। আর টোকিওতে এএনএ ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেলে থাকবেন জাপানের অংশগ্রহণকারীরা।

দেশে বিনিয়োগ টানতে জাপানের বিনিয়োগকারীদের সঙ্গে বৈঠক করবে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) ও বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (বিডা)।

মঙ্গলবার বাংলাদেশ সময় বিকেল সাড়ে ৩টায় ভার্চুয়াল মাধ্যমে এই বৈঠক হবে বলে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে বিএসইসি।

এর আগে জাপানে গিয়ে এই সম্মেলন করার কথা থাকলেও সেই সফর বাতিল করা হয়। এখন বাংলাদেশ থেকে যাদের জাপানে যাওয়ার কথা ছিল তারা বাংলাদেশে বসে জুম-এর মাধ্যমে বৈঠকে যুক্ত থাকবেন। আর জাপানে এএনএ ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেলে জাপানের অংশগ্রহণকারীরা থাকবেন।

বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক মাহাবুব আলম বলেন, ‘এই বৈঠক হাইব্রিডভাবে অনুষ্ঠিত হবে। জাপানে থাকবেন সে দেশে থাকা বাংলাদেশিরা, জাপান দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত শাহাবুদ্দিন আহমেদ আর জাপানি বিনিয়োগকারীরা। আর বাংলাদেশে থাকবেন বিএসইসি চেয়ারম্যান, বিআইডিএ চেয়ারম্যান, প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টাসহ আরও অনেকে।’

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, বাংলাদেশ ও জাপানের কূটনৈতিক সম্পর্কের ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে বিএসইসি ও বিডা এই ‘ইনভেস্টমেন্ট ফ্ল্যাশ মব’ আয়োজন করেছে।

অনুষ্ঠানে বিএসইসি চেয়ারম্যান শিবলী রুবাইয়াত উল ইসলাম বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের বিভিন্ন দিক তুলে ধরবেন। বিডার নির্বাহী চেয়ারম্যান লোকমান হোসেন মিয়া কথা বলবেন বাংলাদেশে বিদেশি বিনিয়োগের পরিবেশ নিয়ে। বিএসইসি কমিশনার শেখ শামসুদ্দিন কথা বলবেন বাংলাদেশের পুঁজিবাজারে কিভাবে বাইরে থেকে বিনিয়োগ করা যাবে সেসব নিয়ে।

এছাড়াও কথা বলবেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মাসুদ বিন মোমেন ও প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান।

আর জাপানে থাকবেন দুই দেমের গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, বিনিয়োগকারীগণ এবং শিল্পপতি-ব্যবসায়ীরা। তারা থাকবেন জাপানের টোকিওতে এএনএ ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেলে।

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
80 percent of vehicles come through Mongla Port Barbida

৮০ শতাংশ গাড়ি আসে মোংলা বন্দর দিয়ে: বারবিডা 

৮০ শতাংশ গাড়ি আসে মোংলা বন্দর দিয়ে: বারবিডা 
বারবিডা সভাপতি মো. হাবিব উল্লাহ ডন বলেন, ‘মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ এখন নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তাব্যবস্থা নিয়েছে। গাড়ির যন্ত্রাংশ চুরির ঘটনা এখন আর মোংলা বন্দরে ঘটে না। আমদানিকৃত গাড়ির প্রায় ৮০ শতাংশই এখন মোংলা বন্দর দিয়ে আমদানি করা হয়।’

দেশে আমদানি হওয়া গাড়ির প্রায় ৮০ শতাংশই আসে মোংলা বন্দর দিয়ে। ২০২১-২২ অর্থবছরে এই বন্দর দিয়ে এসেছে ২০ হাজার ৮০৮টি গাড়ি, যা এই বন্দরের এ যাবতকালের রেকর্ড।

মোংলায় সোমবার দুপুরে মতবিনিময় সভায় এসব তথ্য জানিয়েছে বন্দর কর্তৃপক্ষ ও বাংলাদেশ রিকন্ডিশন ভেহিক্যালস ইম্পোর্টার্স অ্যান্ড ডিলার্স অ্যাসোসিয়েশন (বারবিডা)।

বন্দর কর্তৃপক্ষের সম্মেলনকক্ষে ওই সভায় অংশ নেয়া কর্মকর্তারা জানান, পদ্মা সেতু চালুর পর থেকে মোংলা বন্দরের মাধ্যমে গাড়ি আমদানি বেড়েছে। এ খাত থেকে প্রতি বছর উল্লেখযোগ্য পরিমাণ রাজস্ব আয় হচ্ছে সরকারের। এই মুহূর্তে বন্দর চ্যানেলের গভীরতা বাড়াতে পারলে বন্দরে আরও বড় জাহাজ আসতে পারবে। তখন একসঙ্গে অনেক বেশি গাড়ি আনা যাবে, কমবে পরিবহন খরচ।

বারবিডা সভাপতি মো. হাবিব উল্লাহ ডন বলেন, ‘মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ এখন নিচ্ছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়েছে। গাড়ির যন্ত্রাংশ চুরির ঘটনা এখন আর মোংলা বন্দরে ঘটে না। আমদানিকৃত গাড়ির প্রায় ৮০ শতাংশই এখন মোংলা বন্দর দিয়ে আমদানি করা হয়।’

বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান রিয়ার অ্যাডমিরাল মোহাম্মদ মুসা বলেন, ‘আমদানিকৃত গাড়ির শতভাগ নিরাপত্তা নিশ্চিত করার দায়িত্ব মোংলা বন্দরের। আপনাদের কোনো ধরণের অভিযোগ থাকলে আমাকে সরাসরি লিখিত জানাবেন, আমরা সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা নেব।’

বন্দর কর্তৃপক্ষের তথ্য অনুযায়ী, বন্দর প্রতিষ্ঠার ৬০ বছর পর ২০০৯ সালে ৮ হাজার ৯০০টি গাড়ি আমদানির মাধ্যমে মোংলা বন্দর দিয়ে এই কার্যক্রম শুরু হয়। সব রেকর্ড ভেঙে ২০২১-২০২২ অর্থ বছরে মোংলা বন্দর দিয়ে সর্বোচ্চ ২০ হাজার ৮০৮টি গাড়ি আমদানি হয়েছে।

আরও পড়ুন:
বিলাস দ্রব্যের তালিকা থেকে গাড়িকে বাদ দেয়ার দাবি
রিজার্ভ কেউ চিবিয়ে খায়নি: প্রধানমন্ত্রী
দ্রুত পণ্য খালাসের উদ্যোগে সাড়া নেই
গাজীপুরে ফিলিং স্টেশনে বিস্ফোরণ: দগ্ধ আরেকজনের মৃত্যু
৩ কেজি স্বর্ণসহ দুবাইফেরত দুই যাত্রী গ্রেপ্তার

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Instructions to verify the accuracy of the video about the banking sector

ব্যাংকিং খাত নিয়ে ভিডিওর যথার্থতা যাচাইয়ের নির্দেশ

ব্যাংকিং খাত নিয়ে ভিডিওর যথার্থতা যাচাইয়ের নির্দেশ মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম। ছবি: সংগৃহীত
মন্ত্রিপিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম এক ব্রিফিংয়ে বলেন, ‘আপনারাও বলছেন, আমার কাছে বেশ কয়েকটা ভিডিও আসছে, এগুলোর যথার্থতা যাচাই করে যদি হয়ে থাকে, কেন হয়েছে; কী হলো, এটা উনারা জানিয়ে দিবেন।’

ব্যাংকিং খাতের বর্তমান অবস্থা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ ও গণমাধ্যমে প্রচারিত বিভিন্ন আলোচনা ও সমালোচনা ভিডিওর যথার্থতা যাচাইয়ে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দিয়েছে প্রশাসন।

সচিবালয়ে সোমবার মন্ত্রিসভা বৈঠক পরবর্তী ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকেদর প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রিপিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম এ কথা বলেন।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, ‘ইতোমধ্যে আমরা ব্যাংকের ওদেরকে বলে দিয়েছি এটার সিনারিও জানানোর জন্য। আপনারাও বলছেন, আমার কাছে বেশ কয়েকটা ভিডিও আসছে, এগুলোর যথার্থতা যাচাই করে যদি হয়ে থাকে, কেন হয়েছে; কী হলো, এটা উনারা জানিয়ে দিবেন।’

আরও পড়ুন:
এবার বন্ধ সান্ধ্যকালীন ব্যাংকিং
মোবাইল ব্যাংকিং লেনদেনে নতুন রেকর্ড
ইন্টারনেট ব্যাংকিংয়ে লেনদেন যতবার খুশি
মোবাইল ব্যাংকিংয়ে লেনদেন সীমা বাড়ল
ইসলামি অর্থ ব্যবস্থা এবার মোবাইল লেনদেনে

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
The High Courts verdict on the check dishonor case has not been suspended

চেক ডিজঅনার মামলা নিয়ে হাইকোর্টের রায় স্থগিত হয়নি

চেক ডিজঅনার মামলা নিয়ে হাইকোর্টের রায় স্থগিত হয়নি প্রতীকী ছবি
আইনজীবী আব্দুল্লাহ আল বাকী পরে সাংবাদিকদের বলেন, ‘কোনো ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠান ঋণ আদায়ের জন্য কোনো ব্যক্তির বিরুদ্ধে চেক ডিজঅনার মামলা করতে পারবে না, হাইকোর্টের এমন রায় স্থগিত করেননি চেম্বার জজ আদালত। এ বিষয়ে শুনানির জন্য ফুল কোর্টে পাঠিয়ে দিয়েছেন।’

ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানের করা চেক ডিজঅনার মামলার কার্যক্রম স্থগিত করে হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত করেনি আপিল বিভাগের চেম্বার আদালত।

হাইকোর্টের রায় স্থগিত চেয়ে ব্র্যাক ব্যাংকের করা আবেদন সাড়া না দিয়ে চেম্বার জজ বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ‘নো অর্ডার’ দিয়েছেন। পাশাপাশি শুনানির জন্য মামলাটি তিনি আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে পাঠিয়েছেন। এ বিষয়ে আপিল বিভাগে শুনানি হবে বৃহস্পতিবার।

আদালতে ব্র্যাক ব্যাংকের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন। অন্যদিকে ছিলেন আইনজীবী আব্দুল্লাহ আল বাকী।

আইনজীবী আব্দুল্লাহ আল বাকী পরে সাংবাদিকদের বলেন, ‘কোনো ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠান ঋণ আদায়ের জন্য কোনো ব্যক্তির বিরুদ্ধে চেক ডিজঅনার মামলা করতে পারবে না- হাইকোর্টের এমন রায় স্থগিত করেননি চেম্বার জজ আদালত। এ বিষয়ে শুনানির জন্য ফুল কোর্টে পাঠিয়ে দিয়েছেন।’

হাইকোর্ট ২৩ নভেম্বর এ-সংক্রান্ত রায় দেয়। তবে সেটি স্থগিত চেয়ে আবেদন করে ব্র্যাক ব্যাংক।

ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠান ঋণ আদায়ের জন্য শুধু ২০০৩ সালের অর্থঋণ আইনের বর্ণিত উপায়ে অর্থঋণ আদালতে মামলা করা যাবে বলে হাইকোর্টের আদেশে বলা হয়েছে।

রায়ে বিচারিক আদালতের প্রতি নির্দেশনা দিয়ে হাইকোর্ট বলে, কোনো ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠান যদি চেক ডিজঅনার মামলা করে তাহলে আদালত তা সরাসরি খারিজ করে দেবে। একই সঙ্গে তাদের ঋণ আদায়ের জন্য অর্থঋণ আদালতে পাঠিয়ে দেবে।

এ বিষয়ে নির্দেশনা জারি করতে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নরকেও নির্দেশ দেয় হাইকোর্ট।

আরও পড়ুন:
জামালপুরের ইসলামপুরে ইসলামী ব্যাংক
এসএমই মেলায় পদ্মা ব্যাংকের বিশেষ এসএমই সেবা
ওসি মোয়াজ্জেমের হাইকোর্টে জামিন
চেক প্রত্যাখ্যান মামলা করতে পারবে না ব্যাংক: হাইকোর্ট
খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতে কৃষিতে ঋণ বাড়ানোর নির্দেশ

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
The government can directly increase the price of oil gas electricity

তেল গ্যাস বিদ্যুতের দাম সরাসরি বাড়াতে পারবে সরকার  

তেল গ্যাস বিদ্যুতের দাম সরাসরি বাড়াতে পারবে সরকার  
মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, ‘একটি ছোট সংশোধন নিয়ে আসা হয়েছে। বিশেষ পরিস্থিতিতে সরকারই ট্যারিফ নির্ধারণ করতে পারবে।’

তেল, গ্যাস ও বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর ক্ষমতা বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের (বিইআরসি) পাশাপাশি সরকারের কাছেও আসছে।

এ-সংক্রান্ত বিধান রেখে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (সংশোধন) অধ্যাদেশ ২০২২-এর খসড়ায় চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে সোমবার মন্ত্রিসভা বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সভাপতিত্ব করেন। পরে সচিবালয়ে বৈঠকের বিস্তারিত তুলে ধরেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম।

তিনি বলেন, ‘একটি ছোট সংশোধন আনা হয়েছে। বিশেষ পরিস্থিতিতে সরকারই ট্যারিফ নির্ধারণ করতে পারবে।

‘এখন বিইআরসি এগুলো সব হ্যান্ডেল করে। কিন্তু বিইআরসির কিছু কিছু জায়গায় একটু সমস্যা হয়। যেমন ৯০ দিন পর্যন্ত তারা সিদ্ধান্ত না দিয়েও থাকতে পারে। কারণ আইনে বলা আছে, বিইআরসি ৯০ দিনের মধ্যে এগুলো সব শুনানি নিয়ে সিদ্ধান্ত দেবে। অনেক সময় আমাদের জরুরি প্রয়োজন আসে। সে ক্ষেত্রে অনেক সময় তারা সঠিকভাবে সমন্বয় করতে পারে না।’

তিনি বলেন, ‘বিশেষ অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে, যেমন এখন ধরুন ৯০ দিন সময় নিয়ে তারা শুনানি নেয়। একটা ইমার্জেন্সি এলো। আবার অনেক সময় দাম কমে গেল। কিন্তু বিআরসি ৯০ দিন ধরে দাম কমাবে। সরকার হস্তক্ষেপ করে একটা নোটিফিকেশন দিয়ে দাম কমিয়ে আনতে পারবে।

‘স্বাভাবিকভাবে দাম সমন্বয়ের কাজ বিইআরসি-ই করবে। তবে বিশেষ পরিস্থিতিতে সরকার এক্ষেত্রে হস্তক্ষেপ করবে।’

বেসরকারি খাতে জ্বালানি আমদানির সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের নির্দেশ

সরকারি বিভিন্ন সংস্থার পাশাপাশি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে জ্বালানি আমদানি করা যায় কিনা তার পথ খুঁজতে নির্দেশ দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘ফুয়েলসহ অন্যান্য এনার্জি বেসরকারিভাবে আমদানির ব্যবস্থা করা যায় কিনা সে বিষয়ে বৈঠকে আলোচনা হয়েছে। সেক্ষেত্রে দুটি অপশন- তারা এনে নিজেরাই বাজারে বিক্রি করলে কি বেটার হবে? এখন যে আইন আছে সে অনুযায়ী তারা ক্রুড অয়েল আনবে। এনে তারা যদি রিফাইন করে? এখন তো বিপিসি (বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশন) ছাড়া কেউ জ্বালানি বাজারজাত করতে পারে না। সাধারণত ক্রুড অয়েল রিফাইন করে ৪১ থেকে ৪২ শতাংশ রিফাইনড অয়েল হয়।’

খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, ‘রিফাইনড অয়েলটা তারা বিপিসির কাছে দিয়ে দিলো। অথবা তারা সরাসরি বাজারজাত করতে পারে কিনা সেটাও দেখতে হবে। তবে যেটা করতে হবে সেটা হলো, ক্রুড অয়েল রিফাইন করার পর বিটুমিনসহ অন্যান্য উপজাত পণ্য আসবে। এগুলো হয় তারা স্থানীয় বাজারে বিক্রি করবে অথবা বাইরে রপ্তানি করবে।

‘তবে রিফাইনড অয়েলের বিষয়ে দুটি অপশন নিয়ে আলোচনা হয়েছে। হয় তারা বিপিসির কাছে বিক্রি করে দিতে পারে। অথবা অন্য কোনো ম্যাকানিজম কিংবা আইন সংশোধন করে বিক্রির অনুমতি দেয়া যেতে পারে। এক্ষেত্রে বিএসটিআইকে মনিটরিং করতে হবে যেটা রিফাইনড হলো সেটা আমাদের জন্য গ্রহণযোগ্য কিনা।’

এ বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত না হলেও খুব শিগগির একটি সিদ্ধান্তে যেতে মন্ত্রিসভা নির্দেশ দিয়েছে বলে জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব।

আরও পড়ুন:
কঠিন সময়ে পাইকারিতে বাড়ল বিদ্যুতের দাম
পল্লী বিদ্যুতের শ্রমিককে কুপিয়ে আহত
বিদ্যুৎ খাতে সহায়তা দেবে সিঙ্গাপুর
৩ হাজার বকেয়া সংযোগ বিচ্ছিন্নের মিশন তিতাসের
বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মায়ের সামনে প্রাণ গেল ছেলের

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Project on modernization of three toll stations

তিন শুল্ক স্টেশন আধুনিকায়নে প্রকল্প

তিন শুল্ক স্টেশন আধুনিকায়নে প্রকল্প সোনা মসজিদ স্থল বন্দর। ছবি: সংগৃহীত
চাঁপাইনবাবগুঞ্জের সোনামসজিদ, সিলেটের তামাবিল ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া শুল্ক স্টেশন আধুনিকায়নে ৩১৩ কোটি টাকা ব্যয়ে একটি প্রকল্প নিয়েছে এনবিআর।

রাজস্ব আদায়ের দিক থেকে গুরুত্বপূর্ণ দেশের তিনটি শুল্ক স্টেশন আধুনিকায়নে উদ্যোগ নিচ্ছে সরকার। এগুলো হলো চাঁপাইনবাবগুঞ্জের সোনামসজিদ, সিলেটের তামাবিল ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া।

শুল্ক স্টেশনগুলো আধুনিকায়নে ৩১৩ কোটি টাকা ব্যয়সাপেক্ষ একটি প্রকল্প নিয়েছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড-এনবিআর, যা গত মাসে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় অনুমোদন দেয়া হয়।

সূত্র জানায়, এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) অর্থায়নে প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হবে। প্রকল্পের আওতায় কাস্টমসের অবকাঠামো তৈরি ও শুল্কায়ন প্রক্রিয়া আধুনিকায়ন করা হবে।

এনবিআরের নীতিনির্ধারক পর্যায়ের এক কর্মকর্তা নিউজবাংলাকে বলেন, উল্লিখিত শুল্ক স্টেশনগুলো রাজস্ব আদায়ের দিক থকে গুরুত্বপূর্ণ হলেও শুল্ক স্টেশনের অবকাঠামো খুবই দুর্বল। জনবলেরও ঘাটতি রয়েছে। পূর্ণাঙ্গ শুল্ক স্টেশনের জন্য যা দরকার এসব শুল্ক স্টেশনে তা নেই। অথচ বাণিজ্যিক কর্মকাণ্ড দিন দিন বাড়ছে। প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে এসব শুল্ক স্টেশন দিয়ে পণ্য আনা-নেয়া সহজ হবে। গতি বাড়বে আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্যে। একইসঙ্গে বাড়বে রাজস্ব আদায়।

বর্তমানে এনবিআরের অধীনে সারাদেশে ৫০টি শুল্ক স্টেশন সক্রিয় রয়েছে। এর মধ্যে অর্ধেকেরই অবকাঠামো দুর্বল। এনবিআর সূত্র বলেছে, তিনটি শুল্ক স্টেশন আধুনিকায়নের পর অন্যগুলোতেও পর্যায়ক্রমে বাস্তবায়ন করা হবে।

জানা যায়, প্রকল্পের আওতায় যেসব কাজ হবে তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে- কাস্টম অফিস ও কর্মকর্তাদের জন্য আবাসিক ভবন নির্মাণ, আধনিক ল্যাব তৈরি, কম্পিউটার ক্রয় ইত্যাদি।

বর্তমানে এসব শুল্ক স্টেশনে ম্যানুয়াল বা প্রচলিত প্রথায় পণ্যের শুল্কায়ন করা হয়। প্রকল্পের কাজ শেষ হলে শুল্কায়ন প্রক্রিয়া আধুনিক হবে। এতে করে পণ্য দ্রুত খালাস হবে। সহজ হবে আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্য।

বর্তমানে সারা দেশে কাস্টমসের শুল্ক স্টেশনের মাধ্যমে যে পরিমাণ পণ্য আমদানি-রপ্তানি হয় তার ৩০ ভাগ এই তিনটি স্টেশনের মাধ্যমে সম্পন্ন হয়। এনবিআরের কর্মকর্তারা বলেন, আধুনিকায়নের কাজ শেষ হলে বাণিজ্যক কর্মকাণ্ড কমপক্ষে ২০ ভাগ বাড়বে।

ত্রিপুরা, আসাম, মেঘালয়সহ ভারতের পূর্বাঞ্চলীয় ৭টি রাজ্যে প্রবেশের অন্যতম দুয়ার ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া শুল্ক স্টেশন। ১৯৯৪ সালে চালু হওয়া এই স্থলবন্দর দিয়ে মাছ, পাথর, সিমেন্ট, ইট, বালি, শুটকি, প্লাস্টিক সামগ্রী, তুলাসহ প্রায় ৪২টি বাংলাদেশি পণ্য ভারতে রপ্তানি হয়।

ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের রাজ্যগুলোর সঙ্গে বাংলাদেশের যোগাযোগের ক্ষেত্রে তামাবিল অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ শুল্ক স্টেশন হলেও এটি চলছে দুর্বল অবকাঠামো ও স্বল্প লোকবল দিয়ে।

কাস্টমস সূত্র বলেছে, এটিকে পূর্ণাঙ্গ শুল্ক স্টেশনে উন্নীত করা হলে রাজস্ব আদায় বর্তমানের চেয়ে দ্বিগুণ হবে। গত অর্থবছরে তামাবিল শুল্ক স্টেশন থেকে ১ হাজার ২০০ কোটি টাকার রাজস্ব আহরণ হয়। এই শুল্ক স্টেশন দিয়ে ভারত থেকে পাথর ও কয়লা বেশি আসে।

এছাড়া সোনা মসজিদ স্থল বন্দর দিয়ে পাথর, চাল, পেঁয়াজ, শুটকি, ভুট্টাসহ অন্যান্য পণ্য আমদানি করা হয়। এর মধ্যে বেশি আসে পাথর। এই শুল্ক স্টেশন থেকে মাসে গড়ে ৭০ থেকে ৮০ কোটি টাকার রাজস্ব আহরণ হয়।

আরও পড়ুন:
সীমানা জটিলতায় থেমে আছে বিলোনিয়া স্থলবন্দরের উন্নয়ন

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Housing traders are seeing challenges in the new DAP

নতুন ড্যাপে চ্যালেঞ্জ দেখছেন আবাসন ব্যবসায়ীরা

নতুন ড্যাপে চ্যালেঞ্জ দেখছেন আবাসন ব্যবসায়ীরা রোববার এফবিসিসিআই কার্যালয়ে স্ট্যান্ডিং কমিটি অন রিয়েল এস্টেট অ্যান্ড হাউজিংয়ের সভা অনুষ্ঠিত হয়। ছবি: নিউজবাংলা
উদ্যোক্তারা বলছেন, আগে প্রশস্ত রাস্তা না থাকলেও ৮ থেকে ১০ তলাবিশিষ্ট ভবন নির্মাণ করা যেত। এখন সেখানে অনুমোদন পাওয়া যাবে চার থেকে পাঁচ তলার। এতে স্বল্প প্রস্থের রাস্তার পাশের জমির মালিকরা ক্ষতিগ্রস্ত হবেন। বৈষম্যের শিকার হবেন আবাসন ব্যবসায়ীরাও। ক্ষতির মুখে পড়বে আবাসন শিল্প।

পরিকল্পিত আবাসন ও উন্নত রাজধানী গড়তে নতুন বিশদ অঞ্চল পরিকল্পনা বা ড্যাপ অনুমোদন পেয়েছে। রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (রাজউক) নতুন এই পরিকল্পনায় টেকসই নগরায়ণ-বান্ধব উদ্যোগ থাকলেও আবাসন শিল্পের জন্য বেশকিছু চ্যালেঞ্জ রয়ে গেছে বলে দাবি রিয়েল এস্টেট অ্যান্ড হাউজিং অ্যাসোসিয়েশন অফ বাংলাদেশের (রিহ্যাব)।

রোববার এফবিসিসিআই কার্যালয়ে আয়োজিত স্ট্যান্ডিং কমিটি অন রিয়েল এস্টেট অ্যান্ড হাউজিংয়ের দ্বিতীয় সভায় আবাসন খাতের উদ্যোক্তারা এমনটা জানিয়েছেন।

উদ্যোক্তারা জানান, নতুন ড্যাপে রাস্তার প্রশস্ততা অনুপাতে ফ্লোর এরিয়া রেশিও (এফএআর) নির্ধারণ করা হয়েছে। ফলে আগে যেখানে প্রশস্ত রাস্তা না থাকলেও ৮ থেকে ১০ তলাবিশিষ্ট ভবন নির্মাণ করা যেত, এখন সেখানে অনুমোদন পাওয়া যাবে চার থেকে পাঁচ তলার। এ কারণে স্বল্প প্রস্থের রাস্তার পাশের জমির মালিকরা ক্ষতিগ্রস্ত হবেন। বৈষম্যের শিকার হবেন আবাসন ব্যবসায়ীরাও। এমন অবস্থায় শিল্পটি ক্ষতির মুখে পড়বে বলে দাবি তাদের।

বৈঠকে জানানো হয়, আগে রাজধানীতে জমির নিবন্ধন ফি নির্ধারণ হতো মৌজার দর অনুযায়ী। নতুন ড্যাপে সেটিকে পরিবর্তন করে বাজার মূল্য অনুযায়ী নির্ধারণের বিধান করা হয়েছে। এটিকেও আবাসন শিল্পের জন্য চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখছেন উদ্যোক্তারা।

এফবিসিসিআই সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন জানান, আবাসন খাতের সংকট নিয়ে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে আলোচনার সুযোগ রয়েছে। নিজেদের ধারণা সমৃদ্ধ করতে আবাসন ব্যবসায়ীদের ড্যাপ বিষয়ে গভীর বিশ্লেষণের পরামর্শ দেন তিনি। অন্যদিকে টেকসই নগরায়ণ নিশ্চিতে ড্যাপকে বাস্তবতার আলোকে সমন্বয় করতে রাজউকের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

বৈঠকে কমিটির ডিরেক্টর ইনচার্জ ও রিহ্যাব সভাপতি আলমগীর শামসুল আলামিন বলেন, ‘ড্যাপে বেশকিছু ভালো দিক রয়েছে। তবে আবাসন খাতের জন্য কিছু জটিলতাও থেকে গেছে। এসব বিষয়ে সমাধানে আসতে রাজউক, সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়সহ অন্য অংশীজনদের সঙ্গে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে রিহ্যাব। ‘আমরা সরকারের প্রতিপক্ষ নয়, সহযোগী হয়ে কাজ করতে চাই।’

বৈঠকে এফবিসিসিআই-এর সহ-সভাপতি আমিন হেলালী বলেন, ‘এই বৈঠকের আলোচ্য বিষয়গুলো নীতিনির্ধারণী পর্যায়ে তুলে ধরা আমাদের কাজ। আবাসন শিল্পের সঙ্গে জড়িত সংশ্লিষ্ট অন্যান্য সমিতির সঙ্গে বসে সুনির্দিষ্ট সমস্যাগুলো চিহ্নিত করতে হবে।’ একইসঙ্গে আবাসন খাতের অসাধু ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে কঠোর হতে রিহ্যাবের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

নির্মাণসামগ্রীর উচ্চ মূল্যের কারণে এমনিতেই সংকটে রয়েছে আবাসন খাত। তার সঙ্গে যুক্ত হয়েছে নতুন ড্যাপ নিয়ে শঙ্কা। এমন সংকট থেকে উত্তরণে নীতিনির্ধারক ও অংশীজনদের নিয়ে আলোচনা-পর্যালোচনা অব্যাহত থাকবে বলে জানান কমিটির চেয়ারম্যান লিয়াকত আলী ভূঁইয়া মিলন।

তিনি বলেন, ‘আবাসন ব্যবসায়ীরা ড্যাপের বিরুদ্ধে নয়। তাদের আপত্তি কেবল টেকসই নগরায়ণ এবং আবাসন খাতের সঙ্গে সাংঘর্ষিক বিষয়গুলো নিয়ে।

এফবিসিসিআইর পরিচালক এম জি আর নাসির মজুমদার, শফিকুল ইসলাম ভরসা, বিজয় কুমার কেজরিওয়াল, হাফেজ হারুন, আবু মোতালেব, আক্কাস মাহমুদ, মহাসচিব মোহাম্মদ মাহফুজুল হক, কমিটির কো-চেয়ারম্যান নিজাম উদ্দিন জিটু, মোহাম্মদ আলী দ্বীন, কামাল মাহমুদ, এ.এফ.এম ওবায়দুল্লাহসহ অন্য সদস্যরা বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
ড্যাপের সম্মিলিত বাস্তবায়নে জোর স্থানীয় সরকারমন্ত্রীর
ড্যাপ চূড়ান্ত, কারও প্রতি অবিচার হলে সংশোধন
‘উঁচু ভবন করলে বাড়বে ডায়াবেটিস’
ড্যাপের অনুমোদন ডিসেম্বরে: মন্ত্রী তাজুল
ডিসেম্বরের মধ্যে ড্যাপ গেজেট: স্থানীয় সরকার মন্ত্রী

মন্তব্য

p
উপরে