× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

অর্থ-বাণিজ্য
The government wants more speed on motorcycles
hear-news
player
print-icon

মোটরসাইকেলে আরও গতি চায় সরকার

মোটরসাইকেলে-আরও-গতি-চায়-সরকার
দেশি-বিদেশি কোম্পানিগুলো যার যার সক্ষমতা অনুযায়ী দেশে মোটরসাইকেলের একটা স্থায়ী বাজার তৈরি করেছে। ছবি: সংগৃহীত
মোটরসাইকেল উৎপাদনে এখন পর্যন্ত দেশি-বিদেশি ১০ কোম্পানি বিনিয়োগ করেছে। এদের সম্মিলিত বিনিয়োগ দাঁড়িয়েছে সাড়ে ৯ হাজার কোটি টাকা। দেশে এখন প্রতি ৫৪ জনে একজন মোটরসাইকেল ব্যবহার করছেন। পাঁচ বছর আগে এ সংখ্যা ছিল প্রতি ১৬১ জনে মাত্র একজন।

দেশে উৎপাদিত ও সংযোজিত মোটরসাইকেলের গতি আরও বাড়াতে চায় সরকার। বর্তমানে সর্বনিম্ন ৮০ সিসি থেকে সর্বোচ্চ ১৬০ সিসি ক্ষমতাসম্পন্ন ফোর স্ট্রোক ও টু স্ট্রোক মোটরসাইকেল স্থানীয়ভাবে বাজারজাত হচ্ছে। সরকার চায় এগুলোকে ২৫০ সিসির ওপরে নিয়ে যেতে।

মোটরসাইকেল উৎপাদনে এখন পর্যন্ত দেশি-বিদেশি ১০ কোম্পানি বিনিয়োগ করেছে। এদের সম্মিলিত বিনিয়োগ দাঁড়িয়েছে সাড়ে ৯ হাজার কোটি টাকা। এখানে কর্মসংস্থান হয়েছে প্রায় ২০ হাজার লোকের।

কোম্পানিগুলো যার যার সক্ষমতা অনুযায়ী ইতোমধ্যে দেশে মোটরসাইকেলের একটা স্থায়ী বাজার তৈরি করেছে। এখন চেষ্টা সেই বাজার অংশীদারত্বকে আরও বড় করার। এ জন্য ক্রেতা টানতে মোটরসাইকেলে যুক্ত করা হচ্ছে নিত্যনতুন প্রযুক্তি। নতুন ডিজাইন করা হচ্ছে। বাড়ানো হচ্ছে ইঞ্জিনের শক্তি। এ উদ্যোক্তাদের নীতি-সহায়তা দিয়ে আরও এক ধাপ এগিয়ে দিতে চায় সরকার। এবারের বাজেটে সেই পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।

মোটরসাইকেলে আরও গতি চায় সরকার

দেশে এখন প্রতি ৫৪ জনে একজন মোটরসাইকেল ব্যবহার করছেন। পাঁচ বছর আগে এ সংখ্যা ছিল প্রতি ১৬১ জনে মাত্র একজন। ছবি: নিউজবাংলা

ফোর স্ট্রোক ইঞ্জিন চারটি ধাপে জ্বালানিকে ব্যবহার উপযোগী করে। এটি একই সঙ্গে যেমন জ্বালানি-সাশ্রয়ী, তেমনি মাইলেজ বেশি, শব্দ কম এবং তুলনামূলক পরিবেশবান্ধব। অন্যদিকে টু স্ট্রোক ইঞ্জিন দুই ধাপে জ্বালানিকে ব্যবহার উপযোগী করে। তবে এ জ্বালানির একটি বড় অংশ অব্যবহৃত থাকে। ফলে এর জ্বালানিও বেশি লাগে এবং এটি কালো ধোঁয়া উৎপন্ন করে।

সরকারের পরিকল্পনা হলো আগামীতে দেশে তৈরি সব ধরনের মোটরসাইকেল হবে আরও বেশি গতিসম্পন্ন। তাই কারখানায় ফোর স্ট্রোক বা টু স্ট্রোক ইঞ্জিন মোটরসাইকেলের উৎপাদন বা সংযোজন পর্যায়েই দুই চাকার এই বাহনটির গতি ২৫০ সিসির ওপরে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে। ইতোমধ্যে এ খাতে বিনিয়োগ করা কোম্পানিগুলোকে সুরক্ষা দেয়ার অংশ হিসেবে উচ্চগতির মোটরসাইকেল আমদানিতে সম্পূরক শুল্ক বাড়িয়েছে।

বাজেটে কী পেল মোটরসাইকেল খাত

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল তার প্রস্তাবিত ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেট বক্তব্যে বলেছেন, দেশে ২৫০ সিসির ঊর্ধ্বের ইঞ্জিন ক্যাপাসিটি ক্ষমতাসম্পন্ন মোটরসাইকেল প্রস্তুত করার কারখানা গড়ে উঠেছে। অন্যদিকে ২৫০ সিসি পর্যন্ত মোটারসাইকেল আমদানিতে ফোর স্ট্রোকের ক্ষেত্রে ৬০ শতাংশ এবং টু স্ট্রোকের ক্ষেত্রে ২৫০ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক আরোপিত আছে।

অর্থমন্ত্রী ২৫০ সিসির ঊর্ধ্বের ইঞ্জিন ক্ষমতাসম্পন্ন মোটরসাইকেল আমদানিতে ফোর স্ট্রোকের ক্ষেত্রে সম্পূরক শুল্ক বাড়িয়ে ৬০ শতাংশ থেকে ১০০ শতাংশ এবং টু স্ট্রোকের ক্ষেত্রে ২৫০ শতাংশ বহাল রাখার প্রস্তাব করেছেন বাজেটে।

খাতসংশ্লিষ্টরা এই বাজেট পদক্ষেপের পর্যালোচনা করতে গিয়ে বলেছেন, মোটরসাইকেল ইস্যুতে অর্থমন্ত্রী বাজেটে যে রাজস্ব পদক্ষেপ নিয়েছেন, তার অন্যতম উদ্দেশ্য হলো স্থানীয় মোটরসাইকেল শিল্পের সক্ষমতা বাড়ানো ও উৎপাদিত কিংবা সংযোজিত মোটরসাইকেলের গতিকে উন্নত দেশের মতো করা, যাতে স্থানীয় চাহিদা পূরণ করেও উন্নত দেশে রপ্তানির সুযোগ তৈরি হয়। একই সঙ্গে আমদানিনির্ভর বিদেশি মোটরসাইকেলের প্রতি ঝোঁক কমিয়ে ক্রেতাকে দেশে তৈরি মোটরসাইকেল কিনতে উৎসাহিত করাও উদ্দেশ্য।

এ ক্ষেত্রে আরেকটি উদ্দেশ্য হলো বৈশ্বিক অর্থনীতির মন্দার প্রেক্ষাপটে এই মুহূর্তে মোটরসাইকেলের মতো বিলাসপণ্যের আমদানি ঠেকাতে ক্রেতাকে নিরুৎসাহিত করা, যা দেশের বৈদেশিক মুদ্রার অহেতুক অপচয় রোধ করতে ভূমিকা রাখবে।

বাড়ছে মোটরসাইকেলের ব্যবহার

দেশে মোটরসাইকেলের ব্যবহার দিন দিন বাড়ছে। সেই সঙ্গে বাড়ছে স্থানীয় উৎপাদনও। পরিসংখ্যান বলছে, দেশে এখন প্রতি ৫৪ জনে একজন মোটরসাইকেল ব্যবহার করছে। পাঁচ বছর আগে এ সংখ্যা ছিল প্রতি ১৬১ জনে মাত্র একজন। অর্থাৎ ব্যবহারকারী বেড়েছে প্রায় তিন গুণ (২ দশমিক ৯৮ গুণ)। এখন দেশে সর্বনিম্ন ৭৭ হাজার টাকা থেকে আড়াই লাখ টাকার মধ্যে প্রায় সব ব্র্যান্ডের যেকোনো মডেলের মোটরসাইকেল মিলছে।

চলতি বছরের জুন পর্যন্ত বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটির (বিআরটিএ) হিসাব অনুযায়ী, সারা দেশে নিবন্ধিত মোটরসাইকেলের সংখ্যা ২৯ লাখ ৯১ হাজার।

বিআরটিএর তথ্য বলছে, সম্প্রতি দেশে ভাড়ায় চালিত অ্যাপভিত্তিক মোটরসাইকেল বৃদ্ধির কারণে এর ক্রয়-বিক্রয় এবং নিবন্ধনের হারও ঊর্ধ্বমুখী। নিবন্ধিত প্রায় ৩০ লাখ মোটরসাইকেলের মধ্যে ২৫ শতাংশই চলাচল করছে ঢাকায়।

মোটরসাইকেলের বাজার

বাংলাদেশ মোটরসাইকেল অ্যাসেম্বলার্স অ্যান্ড ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএএমএ) তথ্যমতে, ২০১৭ সালে প্রতিদিন এক হাজারের বেশি মোটরসাইকেল বিক্রি হতো। ২০১৯ সালে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৫২৩টিতে। ২০১৭ সালে মোটরসাইকেলের বাজার ছিল ৪ হাজার কোটি টাকার। সেটি ২০১৯ সালে বেড়ে প্রায় ৬ হাজার কোটি টাকায় উন্নীত হয়েছে।

সংগঠনটির তথ্যমতে, ২০১৪ সালে দেশে সবকটি ব্র্যান্ড মিলে মোটরসাইকেল বিক্রি হয়েছিল ১ লাখ ৮৫ হাজার ইউনিট। ২০১৮ সালে সেই বিক্রি বেড়ে হয় ৪ লাখ ৯২ হাজার ৫০০ ইউনিট, যা ২০১৯ সালে এসে দাঁড়ায় ৫ লাখ ৫৬ হাজার ৫০০ ইউনিটে।

মোটরসাইকেলে আরও গতি চায় সরকার

দেশে উৎপাদিত ও সংযোজিত মোটরসাইকেল বর্তমানে সর্বনিম্ন ৮০ সিসি ও সর্বোচ্চ ১৬০ সিসি ক্ষমতাসম্পন্ন ফোর স্ট্রোক ও টু স্ট্রোক। স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত মোটরসাইকেলকে ২৫০ সিসির ওপরে নিয়ে যেতে চায় সরকার। ছবি: সংগৃহীত

এর মধ্যে বাজার অংশীদারত্বের হিসাব অনুযায়ী ভারতীয় ব্র্যান্ড বাজাজের একক অংশীদারত্ব ছিল ৫৩ শতাংশ এবং টিভিএসের ১২ শতাংশ। এ ছাড়া ভারতীয় ও জাপানি ব্র্যান্ড হিরো হোন্ডার ১৫ শতাংশ এবং দেশীয় ব্র্যান্ড রানারের ৮ শতাংশ। বাকি ১২ শতাংশের বাজার ছিল দেশীয় ও বিদেশি অন্য ব্র্যান্ডগুলোর। তবে বাজার অংশীদারত্বে ক্রমেই প্রভাব বিস্তার করতে শুরু করেছে বিশ্বখ্যাত ব্র্যান্ড ইয়ামাহা, সুজুকি ও মাহেন্দ্রাও।

আগামীর সম্ভাবনা যেখানে

খাতসংশ্লিষ্ট উদ্যোক্তাদের দাবি, সরকারের নীতি-সহায়তার কারণেই মোটরসাইকেল শিল্পে এই বিপ্লব ঘটেছে। তবে উন্নতির এখনও অনেক বাকি। মালয়েশিয়া, ভিয়েতনাম ও থাইল্যান্ডে প্রতি চারজনে একজন মোটরসাকেল ব্যবহারকারী। ভারতে সেটি প্রতি ২০ জনে একজন। সেদিক থেকে বাংলাদেশ জনবহুল হয়েও মোটরসাইকেল ব্যবহারে অনেক পিছিয়ে। আর এটাই হলো দেশের মোটরসাইকেলের বাজারের ভবিষ্যৎ সম্ভাবনার জায়গা। যার ওপর দাঁড়িয়ে আজ দেশে বিশ্বখ্যাত বিভিন্ন ব্র্যান্ডের মোটরসাইকেল দাপিয়ে বেড়াচ্ছে।

সরকারের দায়িত্বশীল মহল থেকে দাবি করা হচ্ছে, আগামীর বাংলাদেশে মোটরসাইকেল শিল্পের সম্ভাবনা বিরাট।

এ প্রসঙ্গে শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন নিউজবাংলাকে বলেন, সরকারের নীতি-সহায়তার কারণেই মোটরসাইকেল শিল্পে বিপ্লব ঘটেছে। দেশি-বিদেশি উদ্যোক্তারা এগিয়ে এসেছেন। খাতটির উন্নয়নে ভবিষ্যতেও প্রয়োজনীয় নীতিসহায়তা অব্যাহত রাখা হবে। তিনি জানান, স্থানীয় উদ্যোক্তাদের পাশাপাশি এ শিল্প খাতে সরাসরি বিদেশি বিনিয়োগ বাড়ানোরও উদ্যোগ রয়েছে।

লক্ষ্য প্রতি বছর ১০ লাখ ইউনিট উৎপাদন

শিল্প মন্ত্রণালয়ের দাবি, চাহিদার ৬০ শতাংশ মোটরসাইকেল দেশেই উৎপাদন হয়। বাকি ৪০ শতাংশ এখনও আমদানি হয়। তবে সরকারের মোটরসাইকেল শিল্প উন্নয়ন নীতি ২০১৭ অনুযায়ী, প্রতি বছর ৪ দশমিক ৪ শতাংশ হারে মোটরসাইকেল উৎপাদন প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এভাবে ২০২৭ সালের মধ্যে সরকার স্থানীয়ভাবে মোটরসাইকেলের উৎপাদন বছরে ১০ লাখ ইউনিটে নিয়ে যেতে চায়। এর পাশাপাশি ব্যাকওয়ার্ড লিংকেজ শিল্পও সম্প্রসারণের পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের।

মোটরসাইকেলে বাজার মাত করছে যারা

বর্তমানে ভারতের বাজাজ, টিভিএস ও হিরো, জাপানের হোন্ডা, সুজুকি ও ইয়ামাহার মতো আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন বিদেশি মোটরসাইকেল উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানগুলো এখন বাংলাদেশে যৌথ উদ্যোগে কারখানা স্থাপন করেছে। কোনো ক্ষেত্রে বিনিয়োগ করেছে বাংলাদেশি কোম্পানি, কারিগরি সহায়তা দিয়েছে ব্র্যান্ডের মূল প্রতিষ্ঠান। স্থানীয় বিনিয়োগকারীদের একক বিনিয়োগের মাধ্যমে রানার, গ্রামীণ মোটরস, লিফান, রোডমাস্টারের মতো স্থানীয় ব্র্যান্ডও ইতোমধ্যে সুপরিচিত হয়ে গেছে।

পাশাপাশি এসব কোম্পানির মাধ্যমে এ শিল্পের যন্ত্রাংশ তৈরিতে রানার ইন্ডাস্ট্রিজ, নিটল মেশিনারিজ, কিউভিসিসহ বিভিন্ন সহযোগী শিল্পও গড়ে উঠেছে। বাজারজাতকারী এসব প্রতিষ্ঠান যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে বৈশ্বিক সর্বশেষ প্রযুক্তির সমন্বয়ে ক্রেতার রুচি অনুযায়ী সামনে আনছে বিভিন্ন ব্র্যান্ডের মোটরসাইকেলের নতুন নতুন মডেল, যা বাজারে আসামাত্র লুফে নিচ্ছেন ক্রেতারা।

যেভাবে দেখছে উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠানগুলো

দেশে ভারতের হিরো ও জাপানোর হোন্ডা ব্র্যান্ডের পরিবেশক ও উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান হচ্ছে নিটল-নিলয় গ্রুপ। প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান আবদুল মাতলুব আহমাদ নিউজবাংলাকে এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘মোটরসাইকেলের প্রতি মানুষের আকর্ষণ, চাহিদা ও ক্রয়ক্ষমতা সমান্তরাল বাড়ছে। এখন এটি মোটেও বিলাসপণ্য নয়। বরং দ্রুত সময়ে সবার গন্তব্যে পৌঁছানোর নিরাপদ ও অত্যাবশ্যকীয় বাহন।’

তিনি বলেন, ‘প্রস্তাবিত বাজেটে সরকারের নেয়া পদক্ষেপের মূল বার্তা হচ্ছে: সরকার স্থানীয় শিল্পকে সুরক্ষা দিতে চায়। সক্ষমতা বাড়াতে চায়। এ ক্ষেত্রে ২৫০ সিসি পর্যন্ত সুরক্ষা শুল্ক বা সম্পূরক শুল্কের উদ্দেশ্য হলো স্থানীয় কোম্পানিগুলোও যাতে সেই সক্ষমতা অর্জন করতে পারে। আবার এ পদক্ষেপ নেয়ার আরেকটি সময়োপযোগী উদ্দেশ্য হলো, সারা বিশ্ব এখন অর্থনৈতিকভাবে খুবই খারাপ অবস্থায় রয়েছে। সে ক্ষেত্রে আমদানি যতটা সংকুচিত করা যাবে, বৈশ্বিক ঝুঁকি তত কম থাকবে। ফলে রিজার্ভও সুরক্ষিত থাকবে। এখানে পদক্ষেপ একটি, কিন্তু কাজ হয়েছে দুটি।’

এ বিষয়ে বাংলাদেশ অটোমোবাইল অ্যাসেম্বলার অ্যান্ড ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান ও দেশীয় ব্র্যান্ড ‘রানার’-এর উদ্যোক্তা হাফিজুর রহমান খান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমদানি নীতি আদেশ ২০২১-২৪ অনুযায়ী সুস্পষ্টভাবে বলে দেয়া হয়েছে, উৎপাদক প্রতিষ্ঠানের স্থানীয় কারখানায় কম্পোনেন্ট কাজে ব্যবহার ছাড়া দেশে ১৬৫ সিসির ঊর্ধ্বে কোনো মোটরসাইকেল আমদানি করা যাবে না। তবে শুধু পুলিশ বাহিনীর কাজে ব্যবহার প্রয়োজনে যথাযথ প্রক্রিয়া অনুসরণসাপেক্ষে আমদানি করার সুযোগ রাখা হলেও বাকিদের জন্য তা পুরোপুরি নিষিদ্ধ।

‘প্রস্তাবিত বাজেটে ২৫০ সিসি পর্যন্ত মোটরসাইকেল আমদানিতে ২৫০ সিসি ক্ষমতাসম্পন্ন ফোর স্ট্রোকের ক্ষেত্রে ১০০ শতাংশ ও টু স্ট্রোকের ক্ষেত্রে ২৫০ শতাংশ পর্যন্ত সম্পূরক শুল্কারোপের হ্রাস-বৃদ্ধির বিষয়টি সেই অর্থে কিছু যায় আসে না। কারণ দেশীয় শিল্পের সুরক্ষার বিষয়টি আমদানিনীতির মাধ্যমেই সুস্পষ্ট করা হয়েছে। রাজস্ব পদক্ষেপের আওতায় কম শুল্কেই উদ্যোক্তারা শিল্পের প্রয়োজনে আনার সুযোগ রাখা হয়েছে। এখানে আমদানিকারকদের সঙ্গে দেশীয় শিল্পের কোনো সম্পর্ক নেই।

‘তবে এটা ঠিক, এখন পর্যন্ত দেশে মোটরসাইকেল শিল্পের যে অগ্রগতি সেটি সরকারের নীতি-সহায়তার ওপর ভর করেই হয়েছে। সামনে সম্ভাবনা আরও উজ্জ্বল হবে যদি কম্পোনেন্ট ম্যানুফ্যাকচারিং বাংলাদেশে আরও বেশি হয়। এর জন্য স্থানীয়ভাবে যন্ত্রাংশ উৎপাদনের সক্ষমতা আরও বাড়াতে হবে। যত বেশি উৎপাদন স্থানীয়ভাবে করতে পারব, তত বেশি যন্ত্রাংশ স্থানীয় মার্কেট থেকেই কেনা সম্ভব হবে। তখন প্রতিযোগিতার বাজারে দামও কমে আসবে, যা আমাদের মোটরসাইকেলের বাজারে টিকে থাকার সক্ষমতা বাড়াবে।’

দেশে ইয়ামাহা ব্র্যান্ডের মোটরসাইকেল উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান এসিআই মোটরসের অ্যাসিস্ট্যান্ট মার্কেটিং ম্যানেজার ও ইয়ামাহা মোটরসাইকেল বাংলাদেশের হেড অফ মার্কেটিং হুসেইন মোহাম্মদ অপশন বলেন, ‘দেশে এখন ৮০, ১১০, ১২৫, ১৩৫, ১৫০, ১৫৫ ও ১৬০ সিসির গতিবেগসম্পন্ন মোটরসাইকেল বাজারজাত হচ্ছে। এই মোটরসাইকেল উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর বিনিয়োগ হয় দীর্ঘমেয়াদি। অথচ কোনো নতুন মডেল কিংবা ভিন্ন ভিন্ন সিসির মোটরসাইকেল উৎপাদনে ভিন্ন ভিন্ন প্ল্যান্টের প্রয়োজন হয়। সে ক্ষেত্রে যে বিনিয়োগ করতে হয়, তা খুবই ব্যয়বহুল।

বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে কোম্পানিগুলোর সেই ব্যয়বহুল বিনিয়োগ সক্ষমতা এখন নেই। তবে সবাই চায় তাদের সক্ষমতাকে আরও ছাড়িয়ে যেতে। নতুন উচ্চতায় পৌঁছাতে। সেই চেষ্টাও হয়তো অনেকে করছে। তবে প্রস্তাবিত ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেটে সম্পূরক শুল্ক বাড়িয়ে স্থানীয় শিল্পের সুরক্ষা দেয়ার যে চেষ্টা হয়েছে, তা খুবই উৎসাহব্যঞ্জক। এখনই তার সুফল পাওয়া যাবে না, তবে ভবিষ্যতের পথ প্রশস্ত হচ্ছে।’

সামনে যত চ্যালেঞ্জ

খাতসংশ্লিষ্টরা বলছেন, মোটরসাইকেল শিল্পের বর্তমানে চার চ্যালেঞ্জ আছে।

প্রথমত, মোটরসাইকেল শিল্পে ব্যবহৃত যন্ত্রাংশের ৭০ শতাংশ এখনও আমদানিনির্ভর। বাকি ৩০ শতাংশ স্থানীয় জোগান আসে। তাই মোটরসাইকেল শিল্পের ব্যাকওয়ার্ড লিংকেজ বা সহযোগী শিল্প কিংবা ভেন্ডরের উন্নয়ন প্রয়োজন, যারা কারখানার জন্য বিভিন্ন খুচরা যন্ত্রাংশ তৈরি করবে।

দ্বিতীয়ত, মোটরসাইকেলের নিবন্ধন ব্যয় হ্রাস।

তৃতীয়ত, সহজ শর্তে ক্রেতাকে মোটরসাইকেল কেনায় ঋণ প্রদান।

চতুর্থত, মোটরসাইকেল চালনার প্রশিক্ষণের জন্য সহায়তা প্রদান।

মন্তব্য

আরও পড়ুন

অর্থ-বাণিজ্য
Stress in the economy is not a cause for temporary panic

‘অর্থনীতিতে চাপ সাময়িক, আতঙ্কের কারণ নেই’  

‘অর্থনীতিতে চাপ সাময়িক, আতঙ্কের কারণ নেই’  
ডিসিসিআই নেতারা মনে করেন, বৈশ্বিক যে সংকট চলছে, তা শুধু বাংলাদেশেই প্রভাব ফেলছে না, সারা বিশ্বের অর্থনীতিতে এর প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধের কারণে জ্বালানি সংকট তৈরি হয়েছে। এ সংকট বেশি দিন থাকবে না।

বৈশ্বিক ও অভ্যন্তরীণ পরিস্থিতির কারণে অর্থনীতিতে যে চাপ সৃষ্টি হয়েছে, তা সাময়িক। এটা নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কোনো কারণ নেই। ঢাকা চেম্বার অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (ডিসিসিআই) আয়োজিত ‘অর্থনীতির সামগ্রিক পরিস্থিতি’বিষয়ক এক আলোচনা সভায় রোববার এ কথা বলেন আলোচকরা।

ঢাকা চেম্বারের সভাপতি রিজওয়ান রাহমানের সভাপতিত্বে এ আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম। এতে ঢাকা চেম্বারের অন্য সদস্যরা বক্তব্য রাখেন।

ডিসিসিআইয়ের নেতারা মনে করেন, বৈশ্বিক যে সংকট চলছে, তা শুধু বাংলাদেশেই প্রভাব ফেলছে না, সারা বিশ্বের অর্থনীতিতে এর প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধের কারণে জ্বালানি সংকট তৈরি হয়েছে। এতে করে সরবরাহ ব্যবস্থার ক্ষতি হয়েছে, যার প্রভাব বাংলাদেশেও এসে পৌঁছেছে। বেড়েছে মূল্যস্ফীতি। চাপে পড়েছে অভ্যন্তরীণ অর্থনীতি। এ সংকট বেশি দিন থাকবে না বলে মত দেন বক্তারা।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম বলেন, ‘সৃষ্ট সংকট দীর্ঘস্থায়ী হবে না। কারণ বিশ্ববাজারে জ্বালানিসহ সবকিছুর দাম কমছে। কাজেই অর্থনীতি নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার তেমন কোনো কারণ দেখছি না।’

প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, ‘রিজার্ভের চাপ কমাতে ব্যবসা-বাণিজ্যের অনুকূল পরিবেশ নিশ্চিত করতে এবং বিনিয়োগ বৃদ্ধির লক্ষ্যে সরকার বিদেশি উৎস থেকে ঋণ নেয়ার উদ্যোগ নিয়েছে। আশা করা যাচ্ছে, দ্রুত ঋণ পাওয়া যাবে এবং পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে।’

বর্তমান পরিস্থিতিতে ব্যাংকে আমানতের সুদের হার কিছুটা বাড়ানোর বিষয়টি পুনঃবিবেচনা করা যেতে পারে বলে অভিমত দেন প্রতিমন্ত্রী।

তিনি বলেন, গত অর্থবছরে দেশের উৎপাদন খাতে প্রবৃদ্ধি ছিল প্রায় ২৩ শতাংশ, ফলে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড বেগবান হয়। কর আহরণ বৃদ্ধি এবং করজাল সম্প্রসারণে দেশের রাজস্ব কাঠামোর অটোমেশনের কোনো বিকল্প নেই বলে জানান তিনি।

গত অর্থবছরে দেশ থেকে ১০ লাখ শ্রমিক বিদেশ গেছে। ফলে আমাগীতে রেমিট্যান্স আরও বাড়বে বলে আশা প্রকাশ করেন প্রতিমন্ত্রী।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে সংসদ্য সদস্য ও এফবিসিসিআইয়ের সাবেক সভাপতি মো. শফিউল ইসলাম (মহিউদ্দিন) বলেন, ‘বিশ্বের প্রায় সব দেশই জ্বালানি সংকটে রয়েছে। আমাদের টেকসই জ্বালানি নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে অফশোর গ্যাসকূপ অনুসন্ধান কার্যক্রম বৃদ্ধি করতে হবে। পাশাপাশি বাপেক্সকে আরও শক্তিশালী করা দরকার।’

ঢাকা চেম্বারের সভাপতি বলেন, ‘এলডিসি উত্তরণ-পরবর্তী আমাদের রপ্তানি আয় প্রায় ৫ দশমিক ৭৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার কমে যেতে পারে। এ চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হলে বিদ্যমান শুল্ক প্রতিবন্ধকতা দূর করা, বাণিজ্য সহযোগী দেশগুলোর সঙ্গে আঞ্চলিক কম্প্রিহেনসিভ ইকোনমিক পার্টনারশিপ এগ্রিমেন্ট (সেপা) স্বাক্ষর এবং দ্রুত ব্যবসা সহায়ক পরিবেশ নিশ্চিত করা অপরিহার্য।’

ডিসিসিআই সভাপতি বলেন, ‘অভ্যন্তরীণ অর্থনীতি যে চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছে, তা মোকাবিলা করতে হলে রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করতে হবে। কর নেট বৃদ্ধি এবং পুরো রাজস্ব বিভাগের অটোমেশনের বিকল্প নেই।’

সাম্প্রতিক সময়ে সরকারের ঋণের চাহিদা বৃদ্ধির কারণে বেসরকারি খাতে ঋণপ্রবাহ আশাব্যঞ্জক নয় বলে মত প্রকাশ করেন ঢাকা চেম্বারের সভাপতি।

জ্বালানি তেলের সাম্প্রতিক মূল্যবৃদ্ধি এবং ডলারের দামের ঊর্ধ্বগতির কারণে চলতি অর্থবছরে রপ্তানির লক্ষ্যমাত্রা অর্জন ব্যাহত হতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেন তরুণ এই ব্যবসায়ী নেতা।

আরও পড়ুন:
ঢাকা-হ্যানয় ফ্লাইট চায় ডিসিসিআই
অটোমোবাইলে জাপানি বিনিয়োগ চেয়েছে ‘ঢাকা চেম্বার’
ইনভেস্টমেন্ট সামিট আয়োজনে সহযোগিতা করবে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়
মুদ্রানীতিকে গতানুগতিক বলল ডিসিসিআই
সম্ভাবনাময় শিল্পে সমান সুযোগ চায় ডিসিসিআই

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
On the occasion of the National Day of Mourning SFIL held a memorial service and prayers

জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে এসএফআইএলের স্মরণসভা ও দোয়া অনুষ্ঠিত

জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে এসএফআইএলের স্মরণসভা ও দোয়া অনুষ্ঠিত জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে এফএফআইএলের আয়োজনে স্মরণসভা ও দোয়া মাহফিল। ছবি: পিয়াস বিশ্বাস/নিউজবাংলা
এসএফআইএলের এমডি ও সিইও ইরতেজা আহমেদ খান বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ আমি যতোবার শুনি ততবারই নতুন মনে হয়। এই ভাষণের মধ্যে তিনি যত দিক নির্দেশনা দিয়ে গেছেন, সেটা তখনকার জন্য যেমন প্রযোজ্য, এখনকার জন্যও তেমনি প্রযোজ্য।’

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে স্ট্রাটেজিক ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেডে মতবিনিময় সভা ও দোয়া মহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

রাজধানীর বাড্ডায় র‍্যাংগস আরএল টাওয়ারে স্ট্রাটেজিক ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেডের প্রধান কার্যালয়ে রোববার বিকেল ৫টায় আয়োজনটি অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় বক্তারা বলেন, শেখ মুজিব ছিলেন আপোষহীন নেতা, তিনি প্রথমে মুজিব ভাই ছিলেন, পরে শেখ মুজিব হয়েছেন, তার পর বঙ্গবন্ধু হয়েছে। আমাদের সবাইকে তাকে অনুসরণ করা উচিত। আমরা যারা স্বধীনতার পরের প্রজন্ম, আমাদের সবারই তার সম্পর্কে বিশদ জানতে হবে। তার আদর্শ আমাদের লালন করতে হবে।

সভায় কানাডিয়ান ইউনির্ভাসিটির উপাচার্য প্রফেসর ড. এইচ এম জহিরুল হক বলেন, ‘স্বাধীনতার আগে আমদের ৭ কোটি মানুষ খেয়ে না খেয়ে থাকত, আর এখন ১৬ কোটির উপর মানুষ নিয়ে ভালো ভাবে খেয়ে পরে বেঁচে আছি। সবই সম্ভব হয়েছে বঙ্গবন্ধুর কারণে। কারণ, তিনি স্বাধীনতা না এনে দিলে আমরা এই অবস্থানে আসতে পারতাম না।’

জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে এসএফআইএলের স্মরণসভা ও দোয়া অনুষ্ঠিত
স্মরণসভায় বক্তব্য দেন কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অফ বাংলাদেশের উপাচার্য প্রফেসর ড. এইচ এম জহিরুল হক। ছবি: পিয়াস বিশ্বাস/নিউজবাংলা

স্মরণসভায় বক্তব্যে নিউজবাংলা টোয়েন্টিফোর ডটকমের নির্বাহী সম্পাদক হাসান ইমাম রুবেল বলেন, ‘ন্যায্যতার বিষয়ে বঙ্গবন্ধু ছিলেন আপোষহীন, তিনি সারা জীবন অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়তে কাজ করে গেছেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু হত্যার মাধ্যমে আমরা অনেক পিছিয়ে পড়েছি, তিনি বেঁচে থাকলে এখন বাংলাদেশ যে অবস্থানে আছে, সেটা আরও ৩০-৪০ বছর আগে হতো। কিন্তু আশার কথা হলো, বঙ্গবন্ধুর রক্ত এখনো কারো ধমনীতে প্রবাহিত হচ্ছে। তিনিই এখন এই দেশটাকে উন্নত করে যাচ্ছেন। তিনি হলেন আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।’

জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে এসএফআইএলের স্মরণসভা ও দোয়া অনুষ্ঠিত
বক্তব্য দিচ্ছেন নিউজবাংলা টোয়েন্টিফোর ডটকমের নির্বাহী সম্পাদক হাসান ইমাম রুবেল। ছবি: পিয়াস বিশ্বাস/নিউজবাংলা

এসএফআইএলের ডেপুটি ম্যানেজিং ডিরেক্টর তামিম মারজান হুদার সঞ্চালনায় সভাপতিত্ব করেন এসএফআইএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ইরতেজা আহমেদ খান।

তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ আমি যতোবার শুনি ততবারই নতুন মনে হয়। এই ভাষণের মধ্যে তিনি যত দিক নির্দেশনা দিয়ে গেছেন, সেটা তখনকার জন্য যেমন প্রযোজ্য, এখনকার জন্যও তেমনি প্রযোজ্য।

জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে এসএফআইএলের স্মরণসভা ও দোয়া অনুষ্ঠিত
স্মরণসভায় বক্তব্য দেন এসএফআইএলের এমডি ও সিইও ইরতেজা আহমেদ খান। ছবি: পিয়াস বিশ্বাস/নিউজবাংলা

‘তখন তার নির্দেশে দেশের মানুষ যুদ্ধ করেছে, আর এখন আমরা করছি অর্থনৈতিক যুদ্ধ। বঙ্গবন্ধুকে অনুসরণ করলে দেশে যত বাধাই আসুক, আমরা সেটা কাটিয়ে উঠতে পারব।’

স্বরণ সভায় এসএফআইএলের হেড অফ রিটেইল মো. সাজেদুল হক মৃধাসহ বিভিন্ন বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
এসএফআইএল ও নগদের মধ্যে চুক্তি
সাশ্রয়ী গৃহঋণে এসএফআইএল-জেবিএস হোল্ডিংস চুক্তি
দেড় বছরেই গ্রাহকের আস্থায় এসএফআইএল
গ্রিন প্রোডাক্টসে অর্থায়ন করবে এসএফআইএল
এসএফআইএল-এনডিবি ক্যাপিটাল সমঝোতা

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Goodbye to loadshedding oil prices to fall in two months in September State Minister

লোডশেডিং বিদায় সেপ্টেম্বরে: প্রতিমন্ত্রী

লোডশেডিং বিদায় সেপ্টেম্বরে: প্রতিমন্ত্রী
‘আশা করছি আগামী মাসের শেষেই লোডশেডিং বিদায় নেবে। আস্তে আস্তে সব ঠিক হয়ে যাবে। আমরা ভালো আছি। ভালো থাকব। সকলের সহায়তা প্রয়োজন।… আপনাদের একটু ধৈর্য ধরতে বলব। এক-দুই মাসের মধ্যেই মূল্য সমন্বয় করা হবে।’

জ্বালানি সাশ্রয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদন কমিয়ে সরকার যে লোডশেডিং করছে, এক মাসের মধ্যে সেটির সমাধান হয়ে যাবে বলে জানিয়েছেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ। জানিয়েছেন, জ্বালানি তেলের দাম আন্তর্জাতিক বাজারের সঙ্গে তাল মিলিয়ে সমন্বয় করা হবে নিয়মিত।

জ্বালানি তেলের দাম লিটারে ৩৪ থেকে ৪৬ টাকা পর্যন্ত বাড়ানো নিয়ে সমালোচনার মধ্যে রোববার বিদ্যুৎ ভবনে ‘জ্বালানি নিরাপত্তা ও বাংলাদেশ পরিপ্রেক্ষিত’ বিষয়ে এক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ তথ্য জানান।

মন্ত্রী বলেন, ‘আশা করছি আগামী মাসের শেষেই লোডশেডিং বিদায় নেবে। আস্তে আস্তে সব ঠিক হয়ে যাবে। আমরা ভালো আছি। ভালো থাকব। সকলের সহায়তা প্রয়োজন।’

গত ১৯ জুলাই থেকে দিনে ১ ঘণ্টা করে লোডশেডিং করার ঘোষণা দেয়ার পর বিদ্যুৎ বিতরণ কোম্পানিগুলো সূচি তৈরি করে। তবে সূচিতে ১ ঘণ্টা দেয়া থাকলেও এমনকি ১০ থেকে ১২ ঘণ্টা পর্যন্ত বিদ্যুৎ বন্ধ থাকার তথ্য পাওয়া যাচ্ছে। তীব্র গরমে এই পরিস্থিতিতে জনক্ষোভ স্পষ্ট হয়ে ওঠে।

এর মধ্যে গত ৫ আগস্ট মধ্যরাত থেকে ডিজেল ও কেরোসিনের দাম লিটারে ৩৪ টাকা এবং পেট্রলের দাম ৪৪ টাকা আর অকটেনের দাম ৪৬ টাকা বাড়ায় সরকার।

লোডশেডিংয়ের মধ্যে জ্বালানি নিয়ে এই সিদ্ধান্ত আগুনে যেন ঘি ঢালে। এর প্রতিক্রিয়ায় বাড়াতে হয়েছে বাস ভাড়া, এমনিতে বেড়ে যাওয়া নিত্যপণ্যের বাজার দিয়েছে আরেক লাফ।

এর মধ্যে তেলের দাম কমানোর উপায় খুঁজছে সরকার। ভ্যাট ও ট্যাক্স কমিয়ে জনসাধারণকে কিছুটা স্বস্তি দেয়া যায় কি না, সে বিষয়ে চিন্তাভাবনা চলছে।

জ্বালানি প্রতিমন্ত্রীও এই বিষয়ে ইঙ্গিত দিলেন। তিনি বলেন, ‘কেবল তো দর সমন্বয় করা হলো। আপনাদের একটু ধৈর্য ধরতে বলব। এক-দুই মাসের মধ্যেই মূল্য সমন্বয় করা হবে।’

দেশে দেশে জ্বালানি তেলের দাম বিশ্ববাজারের সঙ্গে মিল রেখে ওঠানামা করলেও বাংলাদেশে সরকার কিছুদিন পর পর একটি দর ঠিক করে দেয়। ২০১৬ সালে একবার লিটারপ্রতি তেলের দাম ৩ টাকা করে কমানোর পর বাস ভাড়া থেকে কোনো কিছু না কমার পর দাম আর কমায়নি সরকার, যদিও সে সময় আন্তর্জাতিক বাজারে দাম অনেকটাই কমে গিয়েছিল।

বিশ্ববাজারের সঙ্গে মিল রেখে জ্বালানি তেলের দাম ঠিক করার ইঙ্গিতও দেন প্রতিমন্ত্রী। বলেন, ‘বারবার সমন্বয় করা হবে। যতবার বিশ্ববাজারে দাম কমবে, ততবারই দাম সমন্বয় হবে।’

সরকার জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির পেছনে আন্তর্জাতিক বাজারদর বেশি থাকার যে বিষয়টি জানিয়েছিল, সেটি আবার তুলে ধরলেন প্রতিমন্ত্রী। বলেন, ‘জ্বালানি দাম বাড়ানোর বিষয়টি সাময়িক। এটা আমি বারবার বলছি। বৈশ্বিক পরিস্থিতিতে অনেকটা বাধ্য হয়ে সরকারকে সমন্বয়ে যেতে হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
জ্বালানি ও বিদ্যুৎ সাশ্রয়ে শাবিতে সপ্তাহে এক দিন অনলাইনে ক্লাস
বিদ্যুৎ সাশ্রয়ে শিল্পাঞ্চলে জোনভিত্তিক ছুটি নির্ধারণ
সমালোচনার মুখে জ্বালানি তেলের দাম কমানোর উদ্যোগ
জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির যৌক্তিকতা তুলে ধরার নির্দেশ মন্ত্রিসভার
জার্মানিতে বিদ্যুতের দাম বেড়ে ৫ গুণ

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Modi mourns the death of billionaire Jhunjhunwala

ভারতের ‘ওয়ারেন বাফেট’ ঝুনঝুনওয়ালার মৃত্যু

ভারতের ‘ওয়ারেন বাফেট’ ঝুনঝুনওয়ালার মৃত্যু ভারতের পুঁজিবাজারে অন্যতম বিনিয়োগকারী রাকেশ ঝুনঝুনওয়ালা। সিএনবিসি-টিভি
শোকবার্তায় নরেন্দ্র মোদি বলেন, ‘অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে অদম্য ও কিংবদন্তি বিনিয়োগকারী রাকেশ ঝুনঝুনওয়ালার অবদান ভোলার নয়। গোটা দেশের উন্নয়ন নিয়ে তিনি অত্যন্ত আগ্রহী ছিলেন। তার এই প্রয়াণ অনেক দুঃখের। তার পরিবার ও অনুরাগীদের প্রতি আমার সমবেদনা।’

ভারতের পুঁজিবাজারে অন্যতম বিনিয়োগকারী ও দেশটির ৩৬তম ধনী রাকেশ ঝুনঝুনওয়ালার মৃত্যু হয়েছে। তার এয়ারলাইনস আকাশা এয়ারের বাণিজ্যিকভাবে উদ্বোধনের এক সপ্তাহের মাথায় মৃত্যু হয় তার।

সেই অনুষ্ঠানে হুইলচেয়ারে করে এসেছিলেন তিনি। পরে সেখানে অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি। বেশ কয়েক দিন ধরেই তিনি শারীরিক সমস্যায় ভুগছিলেন।

স্থানীয় সময় রোববার সকাল ৬টা ৪৫ মিনিটে হার্ট অ্যাটাকে আক্রান্ত হন তিনি। মুম্বাইয়ের ব্রিচ ক্যান্ডি হাসপাতালে নেয়ার আগে শেষনিঃশ্বাস ত্যাগ করেন বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক। তার বয়স হয়েছিল ৬২ বছর।

তার মৃত্যুতে পুঁজিবাজার, বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানসহ দেশের বিভিন্ন ক্ষেত্রে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। শোক প্রকাশ করেছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

শোকবার্তায় নরেন্দ্র মোদি বলেন, ‘অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে অদম্য ও কিংবদন্তি বিনিয়োগকারী রাকেশ ঝুনঝুনওয়ালার অবদান ভোলার নয়। গোটা দেশের উন্নয়ন নিয়ে তিনি অত্যন্ত আগ্রহী ছিলেন। তার এই প্রয়াণ অনেক দুঃখের। তার পরিবার ও অনুরাগীদের প্রতি আমার সমবেদনা।’

পুঁজিবাজারের অন্যতম নিয়ন্ত্রক এই প্রভাবশালী ঝুনঝুনওয়ালাকে বলা হয় ভারতের ওয়ারেন বাফেট। যুক্তরাষ্ট্রের ওয়ারেন বাফেটকে বলা হয় সর্বকালের সেরা বিনিয়োগকারী।

সব মিলিয়ে তিন ডজনেরও বেশি কোম্পানিতে ঝুনঝুওয়ালার ব্যাপক মাত্রায় বিনিয়োগ ছিল। টাইটান, স্টার হেলথ, টাটা মোটরস এবং মেট্রো ব্র্যান্ড ছিল তার সবচেয়ে বড় হোল্ডিং। তিনি হাঙ্গামা মিডিয়া ও অ্যাপটেকের চেয়ারম্যানও ছিলেন।

প্রভাবশালী এই ব্যবসায়ী ও বিনিয়োগকারী দালাল স্ট্রিটের ‘বিগ বুল’ নামে পরিচিত। ফোর্বস ম্যাগাজিনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে প্রায় ৬ বিলিয়ন ডলার সম্পদের মালিক তিনি। তিনি ভারতের ৩৬তম ধনী বিলিয়নেয়ার ছিলেন।

জি গ্রুপের চেয়ারম্যান, রাজ্যসভার সাবেক সংসদ সদস্য ও ব্যাবসায়িক অংশীদার সুভাষ চন্দ্র, জেট এয়ারের সিইও ভিনয় দুবে, ইন্ডিগো প্রধান অদিত্য ঘোষও শোক জানিয়েছেন।

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Swiss Ambassadors statement contradictory High Court

সুইস রাষ্ট্রদূতের বক্তব্যের সত্যতা পাওয়া যায়নি: হাইকোর্ট

সুইস রাষ্ট্রদূতের বক্তব্যের সত্যতা পাওয়া যায়নি: হাইকোর্ট জাতীয় প্রেস ক্লাবে গত ১০ আগস্ট ডিক্যাব আয়োজিত ‘ডিক্যাব টক’ অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন ঢাকায় নিযুক্ত সুইজারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত নাথালি শুয়ার্ড। ছবি: নিউজবাংলা
উচ্চ আদালত বলেছে, দুদক ও রাষ্ট্রপক্ষের দেয়া প্রতিবেদন অনুযায়ী সুইস রাষ্ট্রদূতের বক্তব্যের সত্যতা পাওয়া যায়নি; বরং এটা সাংঘর্ষিক।

সুইজারল্যান্ডের বিভিন্ন ব্যাংকে বাংলাদেশিদের জমা রাখা অর্থের বিষয়ে বাংলাদেশ সরকার সুনির্দিষ্ট তথ্য চায়নি বলে ঢাকায় সুইস রাষ্ট্রদূত যে বক্তব্য দিয়েছেন, তাকে সাংঘর্ষিক মনে করছে হাইকোর্ট।

উচ্চ আদালত বলেছে, দুদক ও রাষ্ট্রপক্ষের দেয়া প্রতিবেদন অনুযায়ী সুইস রাষ্ট্রদূতের বক্তব্যের সত্যতা পাওয়া যায়নি; বরং এটা সাংঘর্ষিক।

বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি খিজির হায়াতের হাইকোর্ট বেঞ্চ রোববার এ মন্তব্য করে।

গত ১০ আগস্ট জাতীয় প্রেস ক্লাবে ডিপ্লোম্যাটিক করেসপনডেন্টস অ্যাসোসিয়েশন বাংলাদেশ (ডিক্যাব) আয়োজিত ‘ডিক্যাব টক’ অনুষ্ঠানে ঢাকায় নিযুক্ত সুইজারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত নাথালি শুয়ার্ড বলেন, ‘সুইস ব্যাংকে জমা রাখা অর্থের বিষয়ে বাংলাদেশ সরকার সুনির্দিষ্ট কোনো ব্যক্তির জন্য তথ্য চায়নি। সুইস ব্যাংকের ত্রুটি সংশোধনে সুইজারল্যান্ড কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে, তবে আমি আপনাদের জানাতে চাই, সুইজারল্যান্ড কালো টাকা রাখার কোনো নিরাপদ ক্ষেত্র নয়।’

তিনি আরও বলেন, ‘গত বছর সুইজারল্যান্ডের বিভিন্ন ব্যাংকে বাংলাদেশ থেকে প্রায় তিন হাজার কোটি টাকা জমা হয়েছে, তবে উভয় দেশের সম্মতিতে ব্যাংকিং তথ্য লেনদেন হতে পারে এবং সেটা সম্ভবও। এটা নিয়ে আমরা কাজ করছি।’

সুইস রাষ্ট্রদূতের এ বক্তব্য সব সংবাদমাধ্যমে প্রকাশ করা হয়। গত বৃহস্পতিবার বিষয়টি নজরে নিয়ে সুইস ব্যাংকে অর্থ জমাকারীদের তথ্য কেন জানতে চাওয়া হয়নি, তা রাষ্ট্রপক্ষ ও দুর্নীতি দমন কমিশনকে জানাতে নির্দেশ দেয় হাইকোর্ট।

এ বিষয়ে সুইস রাষ্ট্রদূতের বক্তব্যসংবলিত সংবাদের অনুলিপিও জমা দিতে বলে আদালত।

আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী রোববার বাংলাদেশ ব্যাংকের ফিন্যানশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের (বিএফআইইউ) প্রতিবেদন জমা দেয়া হয়।

আদালতে দুদকের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী খুরশীদ আলম খান। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিক।

প্রতিবেদন উপস্থাপনের পর রাষ্ট্রপক্ষ আর দুদকের আইনজীবীর উদ্দেশে হাইকোর্টের বেঞ্চ বলে, ‘আপনারা যে ডকুমেন্ট দিয়েছেন, তাতে তো মনে হয়, সুইস রাষ্ট্রদূতের বক্তব্যের সত্যতা নাই; বরং সাংঘর্ষিক।’

ওই বেঞ্চ আরও বলেন, ‘আপনারা যে তথ্য চেয়েছিলেন, সেটি জাতির সামনে প্রকাশ করুন, যাতে বিষয়টি পরিষ্কার হয়।’

তখন দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম খান সুইস রাষ্ট্রদূতের বক্তব্য জানাতে আদেশ চান। তিনি বলেন, ‘একজন রাষ্ট্রদূত সঠিক তথ্য না নিয়ে এভাবে একটা বক্তব্য দিলেন আর তাতে দুদক সবার কাছে প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে। উনি কীভাবে এমন বক্তব্য দিলেন, তা আমাদের কাছে বোধগম্য নয়।’

পরে আদালত দুদক ও রাষ্ট্রপক্ষকে হলফনামা আকারে তাদের বক্তব্য জমা দিয়ে আগামী রোববার পরবর্তী দিন ঠিক করে দেয়।

কী আছে বিএফআইইউর প্রতিবেদনে

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিক আদালতে বিএফআইইউর প্রতিবেদন জমা দেন।

ওই প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, সুইস ব্যাংক চলতি বছরের ১৬ জুন বার্ষিক প্রতিবেদন প্রকাশ করে। পরের দিন এগন্ট সিকিউর ওয়েবের (ইএসডব্লিউ) মাধ্যমে সুইজারল্যান্ডের বিভিন্ন ব্যাংকে বাংলাদেশি ব্যাংক ও ব্যক্তির জমানো অর্থের বিষয়ে প্রয়োজনীয় তথ্য সরবরাহ করতে সুইজারল্যান্ডের এফআইইউকে অনুরোধ করা হয়, তবে এ বিষয়ে এখনও কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি।

অর্থ পাচার ও সন্ত্রাসী কাজে অর্থায়ন প্রতিরোধ, অনুসন্ধান ও তদন্তের জন্য বিএফআইইউ বিদেশি এফআইইউদের সঙ্গে তথ্য আদান-প্রদান করে থাকে, তবে বিশ্বব্যাপী এসব তথ্য আদান-প্রদানের মাধ্যম হলো ইএসডব্লিউ।

২০১৩ সালের জুলাইতে ইএসডব্লিউর সদস্য হওয়ার পর চুক্তি অনুযায়ী, ২০২২ সালের জুলাই পর্যন্ত ৬৭ জন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের বিষয়ে তথ্য চায় বাংলাদেশ। ইএসডব্লিউর মাধ্যমে সুইজারল্যান্ডের এফআইইউকে এ তথ্য দেওয়ার অনুরোধ করা হয়, কিন্তু ২০১৪ সালে একজন ছাড়া অন্যদের বিষয়ে কোনো তথ্য নেই বলে জানায় সুইজারল্যান্ড। আর ওই একজনের তথ্য দুদককে দিয়েছে বিএফআইইউ।

আরও পড়ুন:
চট্টগ্রামে পাহাড়ে ঘর-বাড়ি, স্থাপনা অপসারণের নির্দেশ
সড়ক দুর্ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত সাতজনকে ক্ষতিপূরণ প্রশ্নে রুল
খালাসের ৭ বছর পরও কারাগারে কাশেম: তদন্তের নির্দেশ
রেল ক্রসিং দুর্ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত চেয়ে রিট
অসদাচরণে পদ খোয়ালেন সহকারী অ্যাটর্নি মারুফা

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
The BFIU sought information about the money in the Swiss bank

সুইস ব্যাংকে অর্থের বিষয়ে ‘তথ্য চেয়েছিল বিএফআইইউ’

সুইস ব্যাংকে অর্থের বিষয়ে ‘তথ্য চেয়েছিল বিএফআইইউ’ সুইস ন্যাশনাল ব্যাংক ভবন। ছবি: সংগৃহীত
বিএফআইইউর প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, সুইস ব্যাংক চলতি বছরের ১৬ জুন বার্ষিক প্রতিবেদন প্রকাশ করে। পরের দিন এগন্ট সিকিউর ওয়েবের মাধ্যমে সুইজারল্যান্ডের বিভিন্ন ব্যাংকে বাংলাদেশি ব্যাংক ও ব্যক্তির জমানো অর্থের বিষয়ে প্রয়োজনীয় তথ্য সরবরাহ করতে ইউরোপের দেশটির এফআইইউকে অনুরোধ করা হয়, তবে এ বিষয়ে এখনও কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি। 

সুইজারল্যান্ডের বিভিন্ন ব্যাংকে বাংলাদেশিদের অর্থ রাখার বিষয়ে তথ্য জানাতে গত ১৭ জুন সর্বশেষ চিঠি দেয়া হয়েছিল বলে হাইকোর্টকে জানিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংকের ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ)।

বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি খিজির হায়াতের হাইকোর্ট বেঞ্চে রোববার বিএফআইইউর প্রতিবেদনটি জমা দেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিক।

পরে বিষয়টি সাংবাদিকদের জানান ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল।

বিএফআইইউর প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, সুইস ব্যাংক চলতি বছরের ১৬ জুন বার্ষিক প্রতিবেদন প্রকাশ করে। পরের দিন এগন্ট সিকিউর ওয়েবের (ইএসডব্লিউ) মাধ্যমে সুইজারল্যান্ডের বিভিন্ন ব্যাংকে বাংলাদেশি ব্যাংক ও ব্যক্তির জমানো অর্থের বিষয়ে প্রয়োজনীয় তথ্য সরবরাহ করতে সুইজারল্যান্ডের এফআইইউকে অনুরোধ করা হয়, তবে এ বিষয়ে এখনও কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি।

অর্থপাচার ও সন্ত্রাসীকাজে অর্থায়ন প্রতিরোধ, অনুসন্ধান ও তদন্তের জন্য বিএফআইইউ বিদেশি এফআইইউদের সঙ্গে তথ্য আদান-প্রদান করে থাকে, তবে বিশ্বব্যাপী এসব তথ্য আদান-প্রদানের মাধ্যম হলো ইএসডব্লিউ।

২০১৩ সালের জুলাইতে ইএসডব্লিউর সদস্য হওয়ার পর চুক্তি অনুযায়ী, ২০২২ সালের জুলাই পর্যন্ত ৬৭ জন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের বিষয়ে তথ্য চায় বাংলাদেশ। ইএসডব্লিউর মাধ্যমে সুইজারল্যান্ডের এফআইইউকে এ তথ্য দেওয়ার অনুরোধ করা হয়, কিন্তু ২০১৪ সালে একজন ছাড়া অন্যদের বিষয়ে কোনো তথ্য নেই বলে জানায় সুইজারল্যান্ড। আর ওই একজনের তথ্য দুদককে দিয়েছে বিএফআইইউ।

গত ১০ আগস্ট জাতীয় প্রেস ক্লাবে ডিপ্লোম্যাটিক করেসপন্ডেন্টস অ্যাসোসিয়েশন বাংলাদেশ (ডিকাব) আয়োজিত ‘ডিক্যাব টক’ অনুষ্ঠানে ঢাকায় নিযুক্ত সুইজারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত নাথালি শুয়ার্ড বলেন, ‘সুইস ব্যাংকে জমা রাখা অর্থের বিষয়ে বাংলাদেশ সরকার সুনির্দিষ্ট কোনো ব্যক্তির তথ্য চায়নি। সুইস ব্যাংকের ত্রুটি সংশোধনে সুইজারল্যান্ড কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে, তবে আমি আপনাদের জানাতে চাই, সুইজারল্যান্ড কালো টাকা রাখার কোনো নিরাপদ ক্ষেত্র নয়।’

সুইস রাষ্ট্রদূত আরও বলেন, ‘গত বছর সুইজারল্যান্ডের বিভিন্ন ব্যাংকে বাংলাদেশ থেকে প্রায় তিন হাজার কোটি টাকা জমা হয়েছে, তবে উভয় দেশের সম্মতিতে ব্যাংকিং তথ্য লেনদেন হতে পারে এবং সেটা সম্ভবও। এটা নিয়ে আমরা কাজ করছি।’

সুইস রাষ্ট্রদূতের এ বক্তব্য সব সংবাদমাধ্যমে প্রকাশ হয়। গত বৃহস্পতিবার বিষয়টি নজরে নিয়ে সুইস ব্যাংকে অর্থ জমাকারীদের তথ্য কেন জানতে চাওয়া হয়নি, তা রাষ্ট্রপক্ষ ও দুর্নীতি দমন কমিশনকে জানাতে নির্দেশ দেয় হাইকোর্ট।

এ বিষয়ে সুইস রাষ্ট্রদূতের বক্তব্য নজরে এনে প্রকাশিত সংবাদের অনুলিপিও জমা দিতে বলা হয়।

আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী, রোববার বিএফআইইউর প্রতিবেদন জমা দেয়া হয়।

আদালতে দুদকের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী খুরশীদ আলম খান। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিক।

সুইস রাষ্ট্রদূত সঠিক তথ্য দেননি বলে আদালতকে জানিয়েছেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ও দুদকের আইনজীবী। রাষ্ট্রদূতের বক্তব্য জানাতে নির্দেশনা চেয়েছেন দুদকের আইনজীবী।

আরও পড়ুন:
সড়ক দুর্ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত সাতজনকে ক্ষতিপূরণ প্রশ্নে রুল
খালাসের ৭ বছর পরও কারাগারে কাশেম: তদন্তের নির্দেশ
রেল ক্রসিং দুর্ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত চেয়ে রিট
অসদাচরণে পদ খোয়ালেন সহকারী অ্যাটর্নি মারুফা
হলফনামা দিয়ে বলুন, কত ফি নিয়েছেন: হাইকোর্ট

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
New Governors move will reduce bad loans Tarek Riaz Khan

নতুন গভর্নরের পদক্ষেপে খেলাপি ঋণ কমবে: তারেক রিয়াজ খান

নতুন গভর্নরের পদক্ষেপে খেলাপি ঋণ কমবে: তারেক রিয়াজ খান পদ্মা ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা তারেক রিয়াজ খান। ছবি: নিউজবাংলা
পদ্মা ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা তারেক রিয়াজ খান বলেন, ‘করোনার সময় সরকার এবং নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ ব্যাংকের বেশ কিছু পদক্ষেপের কারণে বাংলাদেশের অর্থনীতির গতিটা থেমে যায়নি। বিভিন্ন সময়ে লকডাউন দেয়া হয়। সবকিছু বন্ধ থাকলে পুরো সময় ব্যাংক খাতের কর্মীরা প্রচণ্ডভাবে এবং সাংঘাতিক একটা হেরোইক পদক্ষেপ নিয়ে আমাদের অর্থনীতির পাশে থেকেছে। অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে সরকারের বড় পদক্ষেপ ছিল প্রণোদনা প্যাকেজ। বাংলাদেশ ব্যাংক এটা বাস্তবায়নে সব সময় সাপোর্ট দিয়েছে। এ জন্য আমি সাধুবাদ জানাই।’

বাংলাদেশ ব্যাংকের নতুন গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদার দায়িত্ব নেয়ার পরপরই যে পদক্ষেপ নিয়েছেন, তাতে ব্যাংকিং খাতে খেলাপি ঋণ কমবে বলে মনে করছেন পদ্মা ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা তারেক রিয়াজ খান।

তিনি বলেছেন, ‘নতুন গভর্নর মহোদয় এসে ঋণ পুনঃ তফসিল ও পুনর্গঠনে ব্যাংকগুলোর ওপর যে দায়িত্ব দিয়েছেন, সেই নির্দেশনা মানলে, সঠিকভাবে এ-সংক্রান্ত সার্কুলার ব্যাংকগুলো অনুসরণ করলে আমরা আমাদের ব্যাংকব্যবস্থাকে উন্নত করতে পারব। ব্যাংকিং খাতের প্রধান সমস্যা খেলাপি ঋণ সামনের দিনে কমে আসবে।’

নিউজবাংলাকে দেয়া এক একান্ত সাক্ষাৎকারে এই আশার কথা শুনিয়েছেন তারেক রিয়াজ খান।

২০১৯ সালের ২৪ জানুয়ারি পদ্মা ব্যাংকের নবযাত্রা হয়। নবজন্মের পর সাড়ে তিন বছরের বেশি সময় পার হয়ে গেছে। এ সময়ে ব্যাংকটির খেলাপি ঋণ কমেছে, মূলধন বেড়েছে। আমানত বেড়েছে কয়েক গুণ।

ব্যাংকটির ৬০ শতাংশ ইক্যুইটি রয়েছে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংক সোনালী, অগ্রণী, জনতা ও রূপালী এবং ইনভেস্টমেন্ট করপোরেশন অব বাংলাদেশের (আইসিবি) কাছে। ডিজিটাল ট্রান্সফরমেশনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে পদ্মা ব্যাংক। এ বছরের শেষ নাগাদ বেসরকারি খাতের এই ব্যাংকটিতে আসছে বিদেশি বিনিয়োগ।

মহামারি করোনার ধকল কাটতে না কাটতেই রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের ধাক্কায় ওলটপালট হয়ে যাওয়া বিশ্ব অর্থনীতিতে বাংলাদেশের ব্যাংক খাতের চ্যালেঞ্জ, মুদ্রাবাজারের অস্থিরতা, খেলাপি ঋণ, নতুন গভর্নরের নেয়া বিভিন্ন পদক্ষেপসহ ব্যাংক খাতের নানা বিষয় নিয়ে খোলামেলা কথা বলছেন পদ্মা ব্যাংকের প্রধান নির্বাহী তারেক রিয়াজ খান।

নতুন গভর্নরের পদক্ষেপে খেলাপি ঋণ কমবে: তারেক রিয়াজ খান

নিউজবাংলার সঙ্গে একান্ত সাক্ষাৎকারে পদ্মা ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা তারেক রিয়াজ খান। ছবি: নিউজবাংলা

নিউজবাংলা: করোনা-যুদ্ধ বিশ্ব অর্থনীতিকে বড় ধরনের চ্যালেঞ্জের মধ্যে ফেলে দিয়েছে। বাংলাদেশ এর বাইরে নেই। করোনার মধ্যে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ব্যাংক খাত গ্রাহকদের সেবা দিয়েছে। সেই ব্যাংক খাতের সার্বিক অবস্থা এখন কেমন?

তারেক রিয়াজ খান: করোনার সময় সরকার এবং নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ ব্যাংকের বেশ কিছু পদক্ষেপের কারণে বাংলাদেশের অর্থনীতির গতিটা থেমে যায়নি। বিভিন্ন সময়ে লকডাউন দেয়া হয়। সব কিছু বন্ধ থাকলে পুরো সময় ব্যাংক খাতের কর্মীরা প্রচণ্ডভাবে এবং সাংঘাতিক একটা হেরোইক পদক্ষেপ নিয়ে আমাদের অর্থনীতির পাশে থেকেছেন। অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে সরকারের বড় পদক্ষেপ ছিল প্রণোদনা প্যাকেজ। বাংলাদেশ ব্যাংক এটা বাস্তবায়নে সব সময় সাপোর্ট দিয়েছে। এ জন্য আমি সাধুবাদ জানাই। প্রণোদনার সুফল প্রত্যন্ত অঞ্চলে পৌঁছে দেয়ার ফলে অর্থনীতির অগ্রযাত্রা থেমে যায়নি।

করোনায় এখনো পুরোপুরি শেষ হয়নি, তৃতীয় ঢেউ চলমান। করোনা-পরবর্তী এখন ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধ চলছে। গ্লোবাল ইকোনমিতে এটার প্রভাব পড়ছে। জ্বালানি তেল, খাদ্যপণসহ সব কমোডিটির মূল্যের ওপর বেশি প্রভাব পড়েছে।

সারা বিশ্বে মূল্যস্ফীতি ঊর্ধ্বমুখী। ফলে কৃচ্ছ্রসাধন করছে সবাই। আমাদের দেশেও কৃচ্ছ্রসাধনের জন্য বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এটা ধীরে ধীরে কমে আসবে বলে আমি মনে করি।

নিউজবাংলা: সারাবিশ্বে অস্থির ডলার বাজার। মুদ্রাবাজার নিয়ন্ত্রণে বাংলাদেশ ব্যাংক বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়েছে। মানি এক্সচেঞ্জ ও ব্যাংকগুলোতে চলছে পরিদর্শন কার্যক্রম। ডলার সাশ্রয়ে আমদানির ওপর কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছে। ফলে আমদানি কমতে শুরু হয়েছে। আগামী ২-৩ মাসের মধ্যে কি এর সুফল পাওয়া যাবে?

তারেক রিয়াজ খান: ডলারের যে সংকট হচ্ছে- এটা কমন ফেনোমেনা। কারণ আমদানি খরচ বেড়েছে। কমোডিটি প্রাইস বেড়েছে। আমরা আমদানিনির্ভর দেশ। রপ্তানির চেয়ে আমদানি অনেক বেশি করতে হয়। কমোডিটি, ফুয়েল, এনার্জি প্রাইস ওভার না হলে ঘাটতি হতো না।

এটা নিয়ন্ত্রণ করার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক সব ধরনের পদক্ষেপ নিচ্ছে। রেমিট্যান্স বাড়ানোর জন্যও পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে। টাকা অবমূল্যায়ন করা হয়েছে। আমদানি কমানোর জন্য বিভিন্ন নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে এর সুফল আমরা পাচ্ছি।

ব্যাংক রেটের সঙ্গে কার্ব মার্কেট বা খোলাবাজারে ডলারের পার্থক্য বেশি। কার্ব মার্কেটে বা মানি এক্সচেঞ্জ হাউসগুলো চড়া দামে ডলার বিক্রির কারণে আমাদের নিয়ন্ত্রণ সংস্থা আরও কঠোর হয়েছে। বিভিন্ন অভিযান পরিচালনা করছে। কিন্তু দেশের নাগরিক হিসেবে প্রতিষ্ঠানের লাভের আগে দেশের ভালো সবার মাথায় রাখতে হবে। দেশ ভালো থাকলে আমরাও ভালো থাকব।

নিয়ন্ত্রক সংস্থা বলেছে, আগামী দুই মাসের মধ্যে আমরা ভালো দিন দেখতে পাব। আমিও সে ব্যাপারে আশাবাদী।

নিউজবাংলা: ব্যাংক খাতের প্রধান সমস্যা খেলাপি ঋণ। এ থেকে উত্তরণের উপায় কী? ঋণখেলাপিদের বিভিন্ন সুবিধা দেয়ার কারণে অনেকে ইচ্ছা করে ঋণ পরিশোধ করেন না। এই ‘ইচ্ছাকৃত খেলাপি’দের থেকে ঋণ আদায় কি ধরণের পদক্ষেপ নেয়া যেতে পারে বলে আপনি মনে করেন।

তারেক রিয়াজ খান: খেলাপি ঋণ আদায়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের সুস্পষ্ট নির্দেশনা রয়েছে। ‘আগ্রাসী ব্যাংকিং’ শব্দটা মাঝে মাঝে আমরা ব্যবহার করি। আগ্রাসী ব্যাংকিং ও প্রুডেন্ট ব্যাংকিং-এর মধ্যে পার্থক্য রয়েছে। প্রফেশনাল ব্যাংকারদের এ বিষয়টা মাথায় রাখতে হবে।

আমরা অনেক ক্ষেত্রে বলছি, ঋণগ্রহীতারা ইচ্ছাকৃত খেলাপি হয়ে যাচ্ছে। তাদের দোষ দেয়ার আগে নিজের কাঁধে দোষটা নিতে হবে। আমি কেন, ওই লোনগুলো এক্সটেন করছি, কেন আননেসাসারিলি নর্মস ও ক্রেডিটের যে স্ট্যান্টার্ডগুলো আছে, ক্রেডিট পলিসির যে গাইডলাইন আছে সেগুলো বাইপাস করে কেন আমরা একটা অসুস্থ প্রতিয়োগিতায় লিপ্ত?

ব্যাংকিং ইন্ডাস্ট্রি ও প্রফেশনাল ব্যাংকাররা যদি স্ট্রং হয়ে যায়, কঠিন একটা জায়গায় যদি চলে যায় যে, না আমরা আমাদের ইন্ডাস্ট্রি বাঁচাব, দেশকে বাঁচাব তাহলে আগামী কয়েক বছরের মধ্যে দেশের অবস্থা অনেক ভালো হবে।

সোয়া লাখ কোটি টাকার ওপর যে খেলাপি ঋণ সেখানে বসে থাকলে হবে না। এর থেকে আলোর পথে এগোতে হবে। সেই পথে এগোনোর জন্য নিয়ন্ত্রক সংস্থার নেয়া পদক্ষেপের আবারও স্যালুট জানাই। কারণ সম্প্রতি ঋণ পুনঃ তফসিল ও পুনর্গঠনে মাস্টার সার্কুলার দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এ নির্দেশনার আলোকে আরও স্বচ্ছতা ও জবাবাদিহি নিশ্চিত করা হয়েছে। কারণ কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কাজ অপারেশনাল না। নতুন গভর্নর এসে ঋণ পুনঃ তফসিল ও পুনর্গঠনে ব্যাংকগুলোর ওপর যে দায়িত্ব দিয়েছেন, সেই নির্দেশনা মানলে, সঠিকভাবে সার্কুলার অনুসরণ করলে আমরা আমাদের ব্যাংকব্যবস্থাকে উন্নত করতে পারব। ব্যাংকিং খাতের প্রধান সমস্যা খেলাপি ঋণ সামনের দিনে কমে আসবে।

পদ্মা ব্যাংক সম্পর্কে বলতে হয়, ২০১৯ সালের ২৪ জানুয়ারি ব্যাংকটির নবজন্ম হয়েছে। এরপর থেকে আমাদের টিম খেলাপি ঋণ কমিয়ে এনেছে। ৭৮ শতাংশ খেলাপি ঋণ এখন ৬৭ শতাংশে নেমেছে। এ বছরে আরও ১০ শতাংশ কমানোর জন্য বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছি। আমাদের লোন রিকভারি ডিভিশনকে ঢেলে সাজানো হয়েছে। রিকভারি রিলেশনশিপ অফিসার হিসেবে যারা ফ্রন্ট লাইনে আছেন তারা ছাড়াও হেড অফিসের মনিটরিং আরও জোরদার করা হয়েছে। আগামী দুই-তিন বছরের মধ্যে আমরা খেলাপি ঋণের কশাঘাত থেকে বেরিয়ে আসব।

নিউজবাংলা: নতুন গভর্নর যোগদান করার পর বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছেন। এর মধ্যে অন্যতম হলো দুর্বল ১০ ব্যাংককে সবল করার উদ্যোগ। তিনি বলেছেন, ‘আমরা চাই না কোনো ব্যাংক বন্ধ হয়ে যাক, যারা দুর্বল তাদের সবল করতে বিভিন্ন পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। আমানতকারীদের ব্যাংক খাতের ওপর আস্থা ধরে রাখতে এ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।’ নতুন গভর্নরের নতুন এ প্রচেষ্টা আপনি কিভাবে দেখছেন?

তারেক রিয়াজ খান: নতুন গভর্নর মহোদয় যোগদানের পর ব্যাংক খাতকে এগিয়ে নেয়ার জন্য যেসব পদক্ষেপ নিচ্ছেন, সেগুলো খুবই সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত। দিকনির্দেশনাগুলো খুব ইউনিক। আমাদের বর্তমানে ৬২টি ব্যাংক রয়েছে। এর মধ্যে ১০টি নয়, খেলাপি ঋণ, মূলধন পর্যাপ্ততার হারের দিকে এ সংখ্যা আরও বেশি হবে। ব্যাসেল-৩-এর গাইডলাইন অনুসরণ করে মূলধন সংরক্ষণের বিষয়ে যা বলা হয়েছে, অধিকাংশ ব্যাংক সেটা বাস্তবায়নে স্ট্রাগল (লড়াই) করে যাচ্ছে। কিন্তু চারটি প্রাইমারি ইন্ডিকেটরের (সূচক) ওপর বেজ করে ১০টি ব্যাংককে চিহ্নিত করা হয়েছে। এর মধ্যে খেলাপি ঋণের হার, লিকুইডিটি, মূলধন সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা সঞ্চিতি- এ চারটি ইন্ডিকেটর ছাড়াও আরও কিছু সাব-ইন্ডিকেটর রাখা হয়েছে।

নতুন গভর্নর যে স্ট্রাটেজিক প্ল্যান নিয়েছেন, সেটা শুধু ব্যাংকগুলো বাঁচানোর জন্য নয়। এরা যেন আরও শক্তিশালী হয়, সে চেষ্টাও করছেন। এসব ব্যাংকের সঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংক একটা সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) করে কিছু ইন্ডিকেটরের ব্যাপারে উল্লেখ করবেন। বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তারা এসব তদারকি করবেন।

পদ্মা ব্যাংকে রেগুলেটর হিসেবে কেন্দ্রীয় ব্যাংক অলরেডি তিনটি পলিসি সাপোর্ট দিয়েছে। যেমন- আমাদের ফিন্যানশিয়াল স্টেটমেন্ট রিস্ট্রাকচারিং করে দিয়েছে।দ্বিতীয়ত- ক্যাপিটাল রিস্ট্রাকচারিংয়ের ফলে পেইড আপ ক্যাপিটাল ফিরে পেয়েছি। তৃতীয়ত-রিভাইজড লিক্যুইডিটি ফ্রেমওয়ার্ক। এটার ফলে ব্যাংকে নগদ জমার হার (সিআরআর) ও বিধিবদ্ধ সংরক্ষণের হারের (এসএলআর) ক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় ব্যাংক কিছু সুবিধা দিয়েছে। ফলে আমাদের লিক্যুইডিটির অনেক উন্নতি হয়েছে। রিভাইজড লিক্যুইডিটির ফলে আমরা এ মুহূর্তে মানি মার্কেটে নেট বরোয়ার না, নেট লেন্ডার। আমরা অন্যান্য ব্যাংককে লিক্যুইডিটি সাপোর্ট দিচ্ছি।

নিউজবাংলা: এখন দেশে অনেক ব্যাংক কার্যক্রম পরিচালনা করছে। তীব্র প্রতিযোগিতামূলক এ সময়ে ব্যাংক খাতের সামনে কী ধরনের চ্যালেঞ্জ রয়েছে?

তারেক রিয়াজ খান: আমাদের ব্যাংক খাত ডিজিটাল ট্রান্সফরমেশনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। ট্রাডিশনাল ব্যাংকিং দিয়ে আমরা বেশি দিন চালাতে পারব না। নতুন জেনারেশন ব্যাংকে যায় না। মোবাইল অ্যাপ-ইন্টারনেটে ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকেন। এ কম্পিটিশনে বেঁচে থাকা এবং নিজেকে সেভাবে গড়ে তোলা বড় চ্যালেঞ্জ।

পদ্মা ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদ থেকে অলরেডি কোর ব্যাংকিং সিস্টেম মাইগ্রেশন অ্যাপ্রুভাল পেয়েছি। পদ্মা ওয়ালেট ও পদ্মা ইন্টারনেট ব্যাংকিং পুরোপুরি ঢেলে সাজাচ্ছি। আমরা নিজেদের ভালোভাবে তৈরি করছি, আগামী ৫-৭ বছরের মধ্যে ডিজিটাল স্যাভিব্যাংকে পরিণত হওয়ার জন্য। এ প্রতিযোগিতায় পদ্মা ব্যাংক অবশ্যই টিকে থাকবে।

নতুন গভর্নরের পদক্ষেপে খেলাপি ঋণ কমবে: তারেক রিয়াজ খান

পদ্মা ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা তারেক রিয়াজ খানের সাক্ষাৎকার নিয়েছেন নিউজবাংলার প্রতিবেদক মৌসুমী ইসলাম। ছবি: নিউজবাংলা

নিউজবাংলা: পদ্মা ব্যাংকের গ্রাহকদের উদ্দেশে কিছু বলুন।

তারেক রিয়াজ খান: গ্রাহকের বলতে চাই, ২০১৯ সালের ২৪ জানুয়ারি পদ্মা ব্যাংকের নবযাত্রা হয়েছে। ব্যাংকের ৬০ শতাংশ ইক্যুইটি হোল্ড করছে রাষ্ট্রীয় ব্যাংক সোনালী, অগ্রণী, জনতা ও রূপালী এবং ইনভেস্টমেন্ট করপোরেশন অব বাংলাদেশ। আমাদের শক্তিশালী পরিচালনা পর্ষদ আছে। এখানে ইনডিভিজ্যুয়াল কোনো ডিরেক্টর নেই। সবাই প্রাতিষ্ঠানিক ও নমিনেটেড। আমরা বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নরের নির্দেশে খুব তাড়াতাড়ি একটা এমওইউ করব। সেখানে অনেকে কী পারফরম্যান্স ইন্ডিকেটর এগ্রি করব। বেশ কিছু সাপোর্ট বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে পেয়েছি। এ বছরের শেষ নাগাদ পদ্মা ব্যাংকে ফরেন ডাইরেক্ট ইনভেস্টমেন্টের (এফডিআই) মাধ্যমে ফরেন ইক্যুইটি ইনজেক্ট করে ব্যাংকের আর্থিক অবস্থান আরও বাড়িয়ে নেব।

আমানতকারীদের উদ্দেশে বলতে চাই, ব্যাংকের কাছে আপনাদের যে টাকা জমা সেটা সম্পূর্ণ নিরাপদ। গত বছরের তুলনায় আমানত চার গুণ বেড়েছে এবং এটা হয়েছে আমানতকারীদের আস্থার কারণে। আমানতকারীদের এই আস্থার প্রতিদান দিতে ব্যাংকের ম্যানেজমেন্ট ও পরিচালনা পর্ষদ বদ্ধপরিকর।

আরও পড়ুন:
শোকাবহ আগস্টে পদ্মা ব্যাংক পরিচালনা পর্ষদের শোক প্রস্তাব
পদ্মা ব্যাংক ও গার্ডিয়ান লাইফ ইন্স্যুরেন্সের মধ্যে চুক্তি
বানভাসিদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে পদ্মাসহ ৪৫ ব্যাংকের অনুদান
পদ্মা ব্যাংকে এএমএল অ্যান্ড সিএফটি সচেতনতা সপ্তাহ শুরু
পদ্মা ব্যাংকের বেসিকস অফ ক্রেডিট ট্রেনিং অনুষ্ঠিত

মন্তব্য

p
উপরে