× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

অর্থ-বাণিজ্য
Russia is the first foreign debt defaulter in 100 years
hear-news
player
print-icon

১০০ বছরের মধ্যে প্রথম বৈদেশিক ঋণখেলাপি রাশিয়া

১০০-বছরের-মধ্যে-প্রথম-বৈদেশিক-ঋণখেলাপি-রাশিয়া
এর আগে শেষবার রাশিয়া বৈদেশিক ঋণখেলাপি হয়েছিল ১৯১৮ সালে। ছবি: সংগৃহীত
রুশ কর্তৃপক্ষ বলছে, রাশিয়ার কাছে অর্থ রয়েছে এবং ঋণ পরিশোধের জন্য দেশটি অর্থ প্রদান করতে ইচ্ছুক। কিন্তু নিষেধাজ্ঞা আন্তর্জাতিক ঋণদাতাদের অর্থ প্রদান করা অসম্ভব করে তুলেছে। রাশিয়ার বৈদেশিক ঋণের পরিমাণ ৪০ বিলিয়ন ডলার। রুশ অর্থমন্ত্রী এন্তোন সিলুয়ানভ জানিয়েছেন, ভবিষ্যতে আর কোনো বৈদেশিক ঋণ নেবে না রাশিয়া। 

ইউক্রেনে চলছে রুশ সামরিক অভিযান। পশ্চিমা বাধা উপেক্ষা করে ইউক্রেনে সামরিক অভিযান চালানোতে নজিরবিহীন নিষেধাজ্ঞার মধ্যে পড়েছে রাশিয়া।

এমন পরিস্থিতিতে বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ১০০ বছরেরও বেশি সময় পর এই প্রথমবারের মতো বৈদেশিক ঋণের কিস্তি পরিশোধে ব্যর্থ হয়েছে দেশটি।

রোববারের মধ্যে রাশিয়ার ১০০ মিলিয়ন ডলার শোধ করার কথা ছিল।

ঋণখেলাপ এড়াতে সংকল্পবদ্ধ ছিল রাশিয়া- এমনটাই জানিয়ে ক্রেমলিন বলছে, ‘এটি রাশিয়ার মর্যাদার ওপর আঘাত।’

রুশ কর্তৃপক্ষ বলছে, রাশিয়ার কাছে অর্থ রয়েছে এবং ঋণ পরিশোধের জন্য দেশটি অর্থ প্রদান করতে ইচ্ছুক। কিন্তু নিষেধাজ্ঞাগুলো আন্তর্জাতিক ঋণদাতাদের অর্থ প্রদান করা অসম্ভব করে তুলেছে।

রুশ অর্থমন্ত্রী এন্তোন সিলুয়ানভ এই পরিস্থিতিকে একটি প্রহসন হিসেবে উল্লেখ করেছেন।

রাশিয়ার বৈদেশিক ঋণের পরিমাণ ৪০ বিলিয়ন ডলার। এদিকে রাশিয়া জ্বালানি সরবরাহ করে দৈনিক ১ বিলিয়ন ডলার আয় করছে।

এমন পরিস্থিতিতে অর্থমন্ত্রী সিলুয়ানভ জানিয়েছেন, ভবিষ্যতে আর কোনো বৈদেশিক ঋণ নেবে না রাশিয়া।

শেষবার রাশিয়া বৈদেশিক ঋণখেলাপি হয়েছিল ১৯১৮ সালে। বলশেভিক বিপ্লবের সময় নতুন কমিউনিস্ট নেতা ভ্লাদিমির লেনিন রুশ সাম্রাজ্যের ঋণ পরিশোধ করতে অস্বীকার করেছিলেন।

১৯৯৮ সালেও দেশটি একবার অভ্যন্তরীণ ঋণ পরিশোধে ব্যর্থ হলেও সে সময়ও দেশটির বৈদেশিক ঋণখেলাপ হয়নি।

ইউক্রেনে রুশ সামরিক অভিযান শুরুর পর যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের নিষেধাজ্ঞায় বৈশ্বিক ব্যাংকিং সিস্টেম সুইফট থেকে ছিটকে পড়ে রাশিয়া। সে সময়েই রাশিয়ার ঋণখেলাপি হওয়া অনিবার্য বলে মনে ধরে নেয়া হচ্ছিল।

ইউক্রেন আক্রমণের পর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন কর্তৃক প্রথম নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার পর থেকে রাশিয়া ডিফল্টের একটি অনিবার্য পথে বলে ধারণা করা হচ্ছিল।

রাশিয়া প্রতিদিন ১ বিলিয়ন ডলারের জ্বালানি রপ্তানি করছে এবং ভবিষ্যতে তাদের ঋণ নেয়ার কোনো পরিকল্পনা নেই বলে জানিয়েছে দেশটির কর্মকর্তারা।

আরও পড়ুন:
পাবনায় পালিত হলো রাশিয়া ডে
বাল্টিক সাগরে রুশ মহড়া
যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সরাসরি যুদ্ধের ঝুঁকি দেখছে রাশিয়া
যুদ্ধ মহড়ায় রাশিয়ার পরমাণু বাহিনী
চাঁদে ফিরছে রাশিয়া

মন্তব্য

আরও পড়ুন

অর্থ-বাণিজ্য
Europes water is drying up electricity production is decreasing

শুকিয়ে যাচ্ছে ইউরোপের জলাধার

শুকিয়ে যাচ্ছে ইউরোপের জলাধার
পানিবিদ্যুৎ প্রকল্পে বিদ্যুৎ উৎপাদন করতে ব্যবহার করা হয় পানি; পানি নিয়ে সংকটময় সময় পার হওয়ার এই সময়ে এ উপায়ে বিদ্যুৎ উৎপাদন ২০ ভাগ কমে এসেছে যুক্তরাজ্যে।

পরিবর্তিত জলবায়ু পরিস্থিতিতে শুকিয়ে যাচ্ছে যুক্তরাজ্যসহ ইউরোপের বিভিন্ন দেশের নদ-নদী,খাল-বিলসহ পানির উৎস, তৈরি হচ্ছে শুষ্ক অবস্থা। এ প্রেক্ষাপটে প্রভাব পড়ছে বিদ্যুৎ উৎপাদনে। এই মুহূর্তে বড় ধরনের সংকটে না পড়লেও আগামী দিনে আসলে যুক্তরাজ্য এবং ওই সব দেশের বিদ্যুতের অবস্থা কোন দিকে যাচ্ছে, তা নিয়ে উদ্বেগ ছড়াচ্ছে প্রতিদিনই।

পানিবিদ্যুৎ প্রকল্পে বিদ্যুৎ উৎপাদন করতে ব্যবহার করা হয় পানি; পানি নিয়ে সংকটময় সময় পার হওয়ার এই সময়ে এ উপায়ে বিদ্যুৎ উৎপাদন ২০ ভাগ কমে এসেছে যুক্তরাজ্যে। খরাময় অবস্থা শুধু যে বিদ্যুৎ উৎপাদনব্যবস্থাকে প্রভাবিত করছে তা-ই নয়, এই সমস্যা ছড়িয়ে পড়েছে অন্য ক্ষেত্রেও।

বিবিসি বলছে, পারমাণবিক স্থাপনায় যেখানে নদীর পানি ব্যবহার করে ঠান্ডা পরিবেশ তৈরি করা হয়; সেখানেও পানির ব্যবহার সীমিত করা হয়েছে।

এমন পরিস্থিতিতে যুক্তরাজ্যের মতো দেশেও সামনের শীতে জানুয়ারিতে শিল্প-কারখানা ও সাধারণ পরিবারগুলোর জন্যও সাময়িকভাবে বিদ্যুৎ সংযোগ পুরোপুরি বন্ধ করে দেয়া হতে পারে।

দেশটির কর্তৃপক্ষ বলছে, ‘সবচেয়ে খারাপ পরিস্থিতির’ বিষয় মাথায় রেখে সরকারি পরিকল্পনার অংশ হিসেবে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র চালু করার পরও সর্বোচ্চ বিদ্যুৎ ব্যবহারের ছয় ভাগের এক ভাগ ঘাটতি থাকবে।

এদিকে টেমস নদী আগের থেকে অনেক বেশি শুকিয়ে গেছে। বিভিন্ন অঞ্চলে দেখা দিয়েছে খরা। এ অবস্থায় দক্ষিণ, মধ্য ও পূর্ব ইংল্যান্ডে আনুষ্ঠানিকভাবে খরা পরিস্থিতি ঘোষণা করেছে ব্রিটিশ সরকার। যুক্তরাজ্যের ন্যাশনাল গ্রিড বিদ্যুৎ বিপর্যয় এড়াতে বিশালসংখ্যক গ্রাহকের বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ করে দিতে পারে।

বিবিসি বলছে, ইউরোপে বিদ্যুৎ উৎপাদনের একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হলো পানি। কিন্তু নদী ও জলাশয়ে পানির অভাব এখন বিদ্যুৎ উৎপাদনের ক্ষমতা উল্লেখযোগ্যভাবে কমিয়ে ফেলছে।

ইতালিতে মোট বিদ্যুতের পাঁচ ভাগের এক ভাগ পাওয়া যায় পানিবিদ্যুৎ থেকে। অথচ গত ১২ মাসে এই উৎসের বিদ্যুৎ কমে এসেছে ৪০ ভাগ।
প্রায় একই অবস্থা স্পেনেও। এ দেশে উৎপাদন কমেছে ৪৪ ভাগ। পানি বিদ্যুৎ নিয়ে সংকটে পড়েছে নরওয়েও।

বিদ্যুৎ নিয়ে গবেষণা করা ফ্যাবিয়ান রনিনগেন বলেছেন, এ প্রক্রিয়ায় বিদ্যুৎ উৎপাদন কমবেশি হতে পারে। তবে উৎপাদন ৪০ ভাগ কম মানে হলো, চরম পরিস্থিতি বিরাজ করছে।

তিনি বলেন, পানিবিদ্যুৎ নিয়ে এই পরিসংখ্যান শুধু ইউরোপের একটি অংশে কার্যকর তা নয়। এমন ঘটনা ঘটেছে সব বড় বড় পানিবিদ্যুৎ উৎপাদনকারী দেশগুলোতেও। সব জায়গায়ই বিদ্যুৎ উৎপাদন কমে গেছে।

এটি সত্যিই একটি বড় প্রভাব, মন্তব্য করেন ফ্যাবিয়ান।

বিশ্লেষকরা বলছেন, বিদ্যুৎ নিয়ে ফ্রান্স ও যুক্তরাজ্য একে অন্যের ওপর নির্ভরশীল। একই সঙ্গে যদি দুই দেশ বিদ্যুৎ সংকটে পড়ে তাহলে আসলে কী ঘটবে কেউই তা জানে না।

আরও পড়ুন:
বিদ্যুৎ সাশ্রয়ে শিল্পাঞ্চলে জোনভিত্তিক ছুটি নির্ধারণ
জার্মানিতে বিদ্যুতের দাম বেড়ে ৫ গুণ
সেচ দিতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে প্রাণ গেল কৃষকের

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Ukraines Western allies will be responsible for the nuclear disaster

‘পারমাণবিক বিপর্যয়ে দায়ী থাকবে ইউক্রেনের পশ্চিমা মিত্ররা’

‘পারমাণবিক বিপর্যয়ে দায়ী থাকবে ইউক্রেনের পশ্চিমা মিত্ররা’ চেরনোবিল দুর্ঘটনায় পরিত্যক্ত ভবন। ছবি: সংগৃহীত
জাতিসংঘে রাশিয়ার স্থায়ী প্রতিনিধি ভ্যাসিলি নেবেনজিয়া বলেছেন, পারমাণবিক অবকাঠামোতে কিয়েভের অপরাধমূলক আক্রমণ বিশ্বকে একটি পারমাণবিক বিপর্যয়ের দ্বারপ্রান্তে ঠেলে দিচ্ছে, যা চেরনোবিলের মতো ঘটনার জন্ম দেবে এবং ইউরোপকে সবচেয়ে বড় তেজস্ক্রিয় দূষণের দিকে নিয়ে যাবে। এর প্রভাব রাজধানী কিয়েভসহ অন্তত আটটি ইউক্রেনীয় অঞ্চলকে প্রভাবিত করতে পারে। এ ছাড়া লুহানস্ক ও দোনেৎস্ক ছাড়াও মলদোভা, রোমানিয়া, বুলগেরিয়া ও বেলারুশেরও ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

ইউরোপের সবচেয়ে বড় পরমাণু বিদ্যুৎকেন্দ্র জাপোরিজ্জা রুশ সেনাদের নিয়ন্ত্রণে। কিয়েভের দাবি, সেখানে সমরাস্ত্র জমা করে ঘাঁটি হিসেবে ব্যবহার করেছে রুশ সেনারা। পাল্টা অভিযোগ করে কিয়েভ বলছে, ইউক্রেনীয় সেনারা পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রে গোলা নিক্ষেপ করছে।

রাশিয়া টুডের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এমন পরিস্থিতিতে জাতিসংঘে রাশিয়ার স্থায়ী প্রতিনিধি ভ্যাসিলি নেবেনজিয়া বৃহস্পতিবার নিরাপত্তা পরিষদে বলেছেন, কিয়েভের বেপরোয়া কর্মকাণ্ড বিশ্বকে বড় পারমাণবিক বিপর্যয়ের দিকে ঠেলে দিচ্ছে।

তিনি বলেন, ‘আমরা বারবার আমাদের পশ্চিমা সহকর্মীদের সতর্ক করে দিয়েছি যে, তারা কিয়েভের সঙ্গে কথা বলতে ব্যর্থ হলে এটি সবচেয়ে জঘন্য ও বেপরোয়া পদক্ষেপ নেবে, যার পরিণতি ইউক্রেনের বাইরেও পড়বে।’

ভ্যাসিলি এ সময় পশ্চিমাদের উদ্দেশে বলেন, যেকোনো পারমাণবিক বিপর্যয়ের জন্য কিয়েভের পশ্চিমা সমর্থকদেরই দায় বহন করতে হবে।

তার মতে, পারমাণবিক অবকাঠামোতে কিয়েভের অপরাধমূলক আক্রমণ বিশ্বকে একটি পারমাণবিক বিপর্যয়ের দ্বারপ্রান্তে ঠেলে দিচ্ছে, যা চেরনোবিলের মতো ঘটনার জন্ম দেবে এবং ইউরোপকে সবচেয়ে বড় তেজস্ক্রিয় দূষণের দিকে নিয়ে যাবে। এর প্রভাব রাজধানী কিয়েভসহ অন্তত আটটি ইউক্রেনীয় অঞ্চলকে প্রভাবিত করতে পারে। এ ছাড়া লুহানস্ক ও দোনেৎস্ক ছাড়াও মলদোভা, রোমানিয়া, বুলগেরিয়া ও বেলারুশেরও ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

‘পারমাণবিক বিপর্যয়ে দায়ী থাকবে ইউক্রেনের পশ্চিমা মিত্ররা’
জাতিসংঘে রাশিয়ার স্থায়ী প্রতিনিধি ভ্যাসিলি নেবেনজিয়া

নেবেনজিয়া আরও বলেন, এই ধরনের মাত্রার পারমাণবিক বিপর্যয় কল্পনা করা কঠিন।

রুশ সেনাদের নিয়ন্ত্রণে থাকা ইউক্রেনীয় শহর এনারগোদারে অবস্থিত জাপোরিজ্জা প্ল্যান্টটি গত কয়েক সপ্তাহ যাবৎ ধারাবাহিক হামলার শিকার হচ্ছে।

চীন সমস্যা সমাধানে ইউক্রেন ও রাশিয়াকে আলোচনার আহ্বান জানিয়েছে। অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্র এই পরিস্থিতির জন্য রাশিয়াকেই দায়ী করছে।

গত ৬ আগস্ট ইউক্রেনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, শনিবার রাশিয়ার রকেট হামলায় পারমাণবিক স্থাপনার গুরুতর ক্ষতি হয়েছে। তিনটি তেজস্ক্রিয় শনাক্তকরণ যন্ত্র ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ফলে যেকোনো তেজস্ক্রিয় লিকের ক্ষেত্রে প্রাথমিক অবস্থায় তা শনাক্তকরণ ও বিকিরণ প্রতিরোধ অসম্ভব হয়ে গেছে।

কিয়েভ বলছে, এবার ভাগ্যক্রমে পারমাণবিক বিপর্যয় থেকে রক্ষা পেলেও বার বার ভাগ্য সহায়ক হবে না।

এমন পরিস্থিতিতে আইএইএ প্রধান রাফায়েল মারিয়ানো গ্রসি বলেছেন, ইউরোপের বৃহত্তম পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রে গোলাগুলির খবরে তিনি অত্যন্ত উদ্বিগ্ন।

জাতিসংঘের আণবিক পর্যবেক্ষক সংস্থা (আইএইএ) ইউক্রেনের জাপোরিজ্জা পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের কাছে যেকোনো ধরনের সামরিক পদক্ষেপ অবিলম্বে বন্ধ করার আহ্বান জানিয়েছেন।

গ্রসি বলেছেন, শুক্রবারের হামলা পারমাণবিক বিপর্যয়ের সত্যিকারের ঝুঁকি তৈরি করেছে, যা ইউক্রেন এবং এর বাইরে জনস্বাস্থ্য ও পরিবেশকে হুমকির মুখে ফেলতে পারে।

আমরা বারবার আমাদের পশ্চিমা সহকর্মীদের সতর্ক করে দিয়েছি যে, তারা কিয়েভের সঙ্গে কথা বলতে ব্যর্থ হলে এটি সবচেয়ে জঘন্য ও বেপরোয়া পদক্ষেপ নেবে, যার পরিণতি ইউক্রেনের বাইরেও পড়বে।

তিনি বলেন, ইউক্রেনীয় কর্মীদেরর অবশ্যই হুমকি ও চাপ ছাড়াই তাদের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করতে দিতে হবে এবং আইএইএকে প্রযুক্তিগত সহায়তার অনুমতি দেয়া উচিত।

গ্রসি আরও বলেন, ইউক্রেন এবং অন্যত্র একটি সম্ভাব্য পারমাণবিক দুর্ঘটনা থেকে জনগণকে রক্ষা করার স্বার্থে আমাদের মতভেদ ভুলে একসঙ্গে কাজ করতে হবে।

তবে মস্কোর পক্ষ থেকে দাবি করা হয়, এই হামলা চালিয়েছে ইউক্রেন।

জাপোরিজ্জায় বর্তমান ভারপ্রাপ্ত রুশ প্রধান ইয়েভজেনি বালিতস্কি রোবরার টেলিগ্রামে এক বার্তায় বলেন, ইউক্রেনীয় সেনারাই বিদ্যুৎকেন্দ্রের তেলের মজুত লক্ষ্য করে হামলা চালিয়েছে। তাদের হামলায় প্রশাসনিক ভবন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

‘পারমাণবিক বিপর্যয়ে দায়ী থাকবে ইউক্রেনের পশ্চিমা মিত্ররা’
জাপোরিজ্জা পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রে প্রহরারত রুশ সেনা

তবে নিরপেক্ষভাবে কিয়েভ ও মস্কোর দাবির সত্যতাই যাচাই করা সম্ভব হয়নি।

যেহেতু পারমাণবিক প্রকল্পটি রুশ সেনাদের নিয়ন্ত্রণেই রয়েছে এবং সেখানে রুশ সেনারাই অবস্থান করছে, তাহলে ঠিক কী কারণে রুশ সেনারাই সেখানে হামলা চালাবে তা স্পষ্ট করেনি কিয়েভ।

এদিকে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলদিমির জেলেনস্কি বলেছেন, ‘পারমাণবিক প্রকল্পে যেকোনো বোমা হামলা নির্লজ্জ অপরাধ, সন্ত্রাসের কাজ।’

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন গত সপ্তাহের শুরুর দিকে অভিযোগ করেছেন, ইউক্রেনীয় বাহিনীর ওপর হামলা চালানোর জন্য এই প্ল্যান্টটিকে নিরাপদ সামরিক ঘাঁটি হিসেবে ব্যবহার করছে রাশিয়া। কারণ বিদ্যুৎকেন্দ্রে ক্ষতি হওয়ার শঙ্কা থাকায় ইউক্রেনীয় সেনারা সেখানে গোলা বর্ষণ করতে পারবে না।

গত মার্চে ইউক্রেনে সামরিক অভিযানের মধ্যেই দেশটিতে অবস্থিত ইউরোপের সবচেয়ে বড় পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র জাপোরিজ্জাতে হামলা চালায় রুশ সেনারা। ইউক্রেন সে সময় দাবি করে, রুশ গোলার আঘাতে বিদ্যুৎকেন্দ্রটিতে আগুন ধরে যায়।

ইউক্রেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী দিমিত্র কুলেবা জানিয়েছিলেন, এই কেন্দ্রের চুল্লি গলে যাওয়া চেরনোবিলের থেকে ১০ গুণ বেশি ভয়াবহ হতে পারে।

এর আগে ১৯৮৬ সালে ইউক্রেনের চেরনোবিলে সোভিয়েত আমলে এক পারমাণবিক দুর্ঘটনায় ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়। পারমাণবিক প্রযুক্তির ইতিহাসে এটিই ছিল সবচেয়ে বড় দুর্ঘটনা।

২০০৫ সালে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়, চেরনোবিল দুর্ঘটনার পর ২০ বছরে তেজস্ক্রিয়তার পরোক্ষ প্রভাবে প্রায় ৪ হাজার মানুষ প্রাণ হারিয়েছিলেন।

আরও পড়ুন:
ইউরোপে পারমাণবিক বিপর্যয়ের শঙ্কা জাতিসংঘের
‘রাজাকার’ ধরতে ইউক্রেনীয় শহরে অভিযান
রুশ-ইউক্রেন যুদ্ধে মুসলমানরা কোন পক্ষে?
যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বন্দি বিনিময়ে রুশ মন্ত্রীর ইঙ্গিত
খাদ্যশস্যের আরও ৩ জাহাজ ইউক্রেন ছাড়বে আজ

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Burnt ashes Italian billionaires pleasure

পুড়ে ছাই ইতালিয়ান ধনকুবেরের প্রমোদতরী

পুড়ে ছাই ইতালিয়ান ধনকুবেরের প্রমোদতরী
আগুনের কারণে সৃষ্ট কালো ধোঁয়া প্রতিবেশী দ্বীপ ইবিজা থেকেও দেখা গেছে। আগুনের কারণ জানা যায়নি এখনও।

মাত্র এক মাস আগেই ১ কোটি ৯০ লাখ টাকা দিয়ে বিলাসবহুল একটি প্রমোদতরী কিনেছিলেন ইতালিয়ান ধনকুবের পাওলো স্কুডিয়ারি। ভূমধ্যসাগরীয় দ্বীপ ফরমেন্তেরার পশ্চিম উপকূলে ক্যালা সাওনায় এটি ভাসছিল। বৃহস্পতিবার দুপুরের দিকে আগুন ধরে যায় প্রমোদতরীতে।

আরিয়া এসএফটি নামে প্রমোদতরীর আয়তন ১৫০ ফুট। আগুন লাগার সময় এটিতে ৯ যাত্রী এবং সাতজন ক্রু ছিলেন। স্প্যানিশ দুটি উপকূলরক্ষী জাহাজ তাদের অক্ষত অবস্থায় উদ্ধার করেছে। তবে এটা স্পষ্ট নয় তাদের মধ্যে প্রমোদতরীর মালিক স্কুডিয়ারি ছিলেন কি না।

আগুনের কারণে সৃষ্ট কালো ধোঁয়া প্রতিবেশী দ্বীপ ইবিজা থেকেও দেখা গেছে। আগুনের কারণ জানা যায়নি এখনও।

ইতালির নেপলসে জন্ম শিল্পপতি স্কুডিয়ারির। গাড়ির অভ্যন্তরীণ উপাদান প্রযোজক গ্রুপো অ্যাডলারের চেয়ারম্যান তিনি, যার আনুমানিক মূল্য ৪০০ মিলিয়ন ডলারের বেশি। ১৯৫৬ সালে তার বাবা অ্যাচিল এটি প্রতিষ্ঠা করেন।

পুড়ে ছাই ইতালিয়ান ধনকুবেরের প্রমোদতরী
পাওলো স্কুডিয়ারি। ফাইল ছবি

এ ছাড়া ট্যুরিজম এবং বেশ কিছু নামকরা রেস্তোরাঁর মালিক ৬২ বছর বয়সী পাওলো স্কুডিয়ারি।

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Take the turbine but give the gas

টারবাইন ফেরত নিয়ে গ্যাস দিন: রাশিয়াকে জার্মানি

টারবাইন ফেরত নিয়ে গ্যাস দিন: রাশিয়াকে জার্মানি জার্মান চ্যান্সেলর ওলাফ স্কোলজ গত ৩ আগস্ট নর্ড স্ট্রিম ১ গ্যাস পাইপলাইনের টারবাইনের সামনে দাঁড়িয়ে আছেন। ছবি: সংগৃহীত
নর্ড স্ট্রিম ১-এর মাধ্যমে ইউরোপীয় ইউনিয়নে রাশিয়ান গ্যাস সরবরাহ গত মাসে তাদের সর্বোচ্চ স্তরের ২০ শতাংশে নেমে এসেছে। কারণ বর্তমানে ছয়টি টারবাইনের মাত্র একটি চালু আছে। বাকিগুলোর মেরামত প্রয়োজন।

ইউরোপে প্রাকৃতিক গ্যাস সরবরাহের পরিমাণ বাড়াতে রাশিয়ার প্রতি আহ্বান জানিয়েছে জার্মানি। বার্লিনে বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে জার্মান চ্যান্সেলর ওলাফ স্কোলজ বলেন, ‘নর্ড স্ট্রিম-১ পাইপলাইনের জন্য মেরামত করা টারবাইন নিয়ে যান আপনারা (রাশিয়া)। এরপর ইউরোপে গ্যাস সরবরাহ বাড়ান।’

কানাডায় রক্ষণাবেক্ষণের পর নর্ড স্ট্রিম ১ গ্যাস টারবাইন নিয়ে রাশিয়া এবং জার্মানির শীতল যুদ্ধ চলছে। মে মাসে রাশিয়ার পাইপলাইনের কম্প্রেসার স্টেশনে যুক্ত করা হয়েছিল এ টারবাইন, যেন ইইউতে গ্যাসের পূর্ণ প্রবাহ থাকে।

তবে ইউক্রেন ইস্যুতে মস্কোর ওপর নিষেধাজ্ঞার কারণে টারবাইনটি ফেরত দিতে অস্বীকৃতি জানায় কানাডা। যদিও কয়েক সপ্তাহ দেরি করে সেটি জার্মানির কাছে হস্তান্তত করা হয়।

রাশিয়ান জ্বালানি জায়ান্ট গ্যাজপ্রম বলছে, পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞার কারণে টারবাইন ফেরত নিতে বাধা দিচ্ছে জার্মানি। তবে জার্মানির দাবি, কাগজ-পত্র ঠিক না থাকায় ফেরত দেয়া হচ্ছে না টারবাইন।

গ্যাজপ্রম জোর গলায় বলছে, টারবাইনটি রাশিয়ায় পাঠানোর পরও ঝুঁকি থাকে যাবে। কারণ এটিকে চুক্তির লঙ্ঘন হিসেবে দেখবে কানাডিয়ান কর্তৃপক্ষ। জবাবে নিজেদের মাটিতে টারবাইন রক্ষণাবেক্ষণের সুযোগ বন্ধ করে দেবে অটোয়া।

নর্ড স্ট্রিম ১-এর মাধ্যমে ইউরোপীয় ইউনিয়নে রাশিয়ান গ্যাস সরবরাহ গত মাসে তাদের সর্বোচ্চ স্তরের ২০ শতাংশে নেমে এসেছে। কারণ বর্তমানে ছয়টি টারবাইনের মাত্র একটি চালু আছে। বাকিগুলোর মেরামত প্রয়োজন।

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Putin is conquering Europe by turning energy into a weapon

জ্বালানিকে অস্ত্র বানিয়ে ইউরোপ জয় করছেন পুতিন

জ্বালানিকে অস্ত্র বানিয়ে ইউরোপ জয় করছেন পুতিন বিপুল জ্বালানির মজুত রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনকে বলীয়ান করে তুলছে। কার্টুন: সংগৃহীত
জ্বালানিকে রাশিয়া সাফল্যের সঙ্গে অস্ত্রে পরিণত করেছে। পশ্চিমা সরকারগুলো গৃহস্থালি খরচের ভর্তুকি দিতে শত শত কোটি ডলার খরচের চাপে পড়বে। বাড়তি চাহিদার কারণে পুতিন ইউরোপে গ্যাসের সাপ্লাই কমিয়ে দেবেন। এর ফলে অক্টোবর থেকে ঘরে ও অফিসে বিদ্যুতের দাম অনেক বেড়ে যাবে। যুক্তরাজ্যে দাম বাড়বে প্রায় ৭৫ শতাংশ আর জার্মানিতে নিত্যপ্রয়োজনীয় বেশ কিছু পণ্যের দাম বাড়বে শতভাগেরও বেশি।

ইউক্রেনে রাশিয়ার সামরিক অভিযান শুরুর পর পুতিনের ক্ষমতা ধসে পড়ার ভবিষ্যদ্বাণী করেছিল পশ্চিমা বিশ্ব। তবে ছয় মাস পর উল্টো ফল দেখা যাচ্ছে। রাশিয়া জ্বালানি গ্যাস তেলের জোগান কমিয়ে দিয়ে ইউরোপকে বিপর্যয়ের মুখে ঠেলে দিয়েছে। আমেরিকার সংবাদমাধ্যম ব্লুমবার্গে এক নিবন্ধে জ্বালানি পণ্যবিষয়ক প্রতিবেদক হাভিয়ের ব্লাস লিখেছেন, চলমান লড়াইয়ে পুতিনের জয়কে নিশ্চিত করছে দেশটির বিপুল জ্বালানি সক্ষমতা। নিবন্ধটি ভাষান্তর করা হয়েছে নিউজবাংলার পাঠকদের জন্য।

যেভাবেই দেখা হোক না কেন, রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন জ্বালানি বাজারে জিতে যাচ্ছেন। মস্কো তেলের খনি থেকে প্রতিদিন লাখ লাখ ডলার আয় করছে। এই মুনাফা তারা ইউক্রেনে সামরিক অভিযান ও নিজ দেশে যুদ্ধের প্রতি সমর্থন অর্জনের পেছনে খরচ করছে।

রাশিয়ান বাণিজ্যের ওপর নভেম্বরে ইউরোপের নিষেধাজ্ঞা শুরু হলে জ্বালানি সংকট নিয়ে এ অঞ্চলের দেশগুলোর বেশ কিছু কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে হবে। এতে ভোক্তা ও প্রতিষ্ঠানগুলো তীব্র জ্বালানি সংকটে পড়তে পারে।

জ্বালানি তেলের বাড়তি চাহিদার কারণে পুতিন ইউরোপে গ্যাসের সাপ্লাই কমিয়ে দেবেন। এর ফলে অক্টোবর থেকে ঘরে ও অফিসে বিদ্যুতের দাম অনেক বেড়ে যাবে। যুক্তরাজ্যে দাম বাড়বে প্রায় ৭৫ শতাংশ আর জার্মানিতে নিত্যপ্রয়োজনীয় বেশ কিছু পণ্যের দাম বাড়বে শতভাগেরও বেশি।

জ্বালানিকে রাশিয়া সাফল্যের সঙ্গে অস্ত্রে পরিণত করেছে। পশ্চিমা সরকারগুলো গৃহস্থালি খরচের ভর্তুকি দিতে শত শত কোটি ডলার খরচের চাপে পড়বে। এ সমস্যা নিয়ে ফ্রান্স এরই মধ্যে সমস্যায় পড়েছে।

তীব্র জ্বালানি সংকট

পুতিন যেভাবে জ্বালানি তেলের সুবিধা নিজের দিকে ঘুরিয়েছেন তা রাশিয়ান অপরিশোধিত তেল উৎপাদনের দিকে তাকালেই বোঝা যায়। গত মাসে দেশটির উৎপাদন যুদ্ধের আগের অবস্থায় ফিরে এসেছে। প্রতিদিন গড়ে প্রায় ১ কোটি ৮ লাখ ব্যারেল উৎপাদন হচ্ছে, যা ইউক্রেন আক্রমণের ঠিক আগে জানুয়ারিতে উৎপাদিত ১ কোটি ১০ লাখ ব্যারেল থেকে সামান্য কম। চলতি মাসে এখন পর্যন্ত তেলের উৎপাদন ওই হারের চেয়েও বেশি।

এটা বিচ্ছিন্ন কোনো ঘটনা নয়। জুলাইয়ে টানা তৃতীয় মাসের মতো তেলের উৎপাদন আগের অবস্থায় ফিরেছে। চলতি বছর এপ্রিলে ইউরোপীয় দেশগুলো তেল কেনা বন্ধ করে দেয়ার পর উৎপাদন ১ কোটি ব্যারেলে নেমে এসেছিল। মস্কো তখন বাধ্য হয়ে নতুন ক্রেতা খোঁজায় মনোযোগী হয়।

উৎপাদন আগের অবস্থায় ফিরিয়ে নেয়া

মার্চ ও এপ্রিলে রাশিয়ার তেলের উৎপাদন দ্রুত কমে যায়। তবে এখন তা ইউক্রেন আক্রমণের আগের অবস্থার কাছাকাছি পর্যায়ে ফিরে এসেছে।

ইউরোপীয় দেশগুলোর নিষেধাজ্ঞার পর তাদের কাছে প্রতিদিন এক লাখ ব্যারেল তেল বিক্রি করতে পারছিল না মস্কো। তবে এখন তারা নতুন ক্রেতা খুঁজে পেয়েছে।

রাশিয়ার অপরিশোধিত তেলের (ক্রুড অয়েল) ক্রেতা এখন এশিয়া, বিশেষ করে ভারত। মধ্যপ্রাচ্য ও তুরকিয়েকেও তারা নতুন ক্রেতা হিসেবে পেয়েছে। ইউরোপেও নভেম্বরে আনুষ্ঠানিক নিষেধাজ্ঞার আগে কিছু দেশ রাশিয়ার কাছ থেকে তেল কিনেছে।

যারা ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন, রাশিয়ার তেলের উৎপাদন বন্ধ হয়ে যাবে, তারা ভুল প্রমাণিত হয়েছেন।

দ্বিতীয় সূচকটি হলো, রাশিয়ান তেলের দাম। প্রাথমিকভাবে মস্কো ক্রেতাদের প্রলুব্ধ করতে বিভিন্ন দেশের কাছে বিশাল ছাড়ে অপরিশোধিত তেল বিক্রি করেছে। এরপর সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলোতে ক্রেমলিন একটি আঁটসাঁট বাজারের সুবিধা নিয়ে মূল্য নির্ধারণের ক্ষমতা ফিরে পেয়েছে।

নতুন এ ধারার ভালো উদাহরণ হচ্ছে ইএসপিও ক্রুড। এটি বিশেষ এক ধরনের তেল, যা রাশিয়ার দূরবর্তী অঞ্চল থেকে আসে। এ বছরের শুরুর দিকে এটি এশিয়ার তেলের বেঞ্চমার্ক দুবাই ক্রুডের কাছে ব্যারেল প্রতি ২০ ডলারের বেশি ছাড়ে বিক্রি করা হয়েছে। তবে সম্প্রতি ইএসপিও ক্রুড অয়েল দুবাইয়ে তেলের সমতায় পরিবর্তন এনেছে।

রাশিয়ার মধ্যবর্তী ও ইউরোপের নিকটবর্তী উরাল অঞ্চলের ক্রুড অয়েল ইউরোপের বাজারে বিক্রি করত মস্কো। এখন আর উরাল ক্রুড অয়েল থেকে ইএসপিওর মতো লাভ হচ্ছে না। কারণ এর মূল ক্রেতা ঐতিহ্যগতভাবে জার্মানির মতো দেশ। তবে সম্প্রতি এর দামও আগের মতো হয়ে আসছে।

মস্কো নতুন পণ্যের বাজারও খুঁজছে। এসব বাজার মধ্যপ্রাচ্য ও এশিয়ায় এবং যেখানে রাশিয়া অর্থায়ন করে। এরা রাশিয়ার ক্রুড অয়েল কিনতে ও চাহিদার বাজারে পাঠাতে ইচ্ছুক। ব্রেন্ট ক্রুড অয়েল প্রতি ব্যারেল ১০০ ডলারের কাছাকাছি থাকা ও রাশিয়া বিপুল ছাড় দিতে সক্ষম হওয়ায় ক্রেমলিনে প্রচুর অর্থ আসছে। ফলে আপাতত জ্বালানি নিষেধাজ্ঞা কাজ করছে না।

রাশিয়ান সাফল্যের সবশেষ সূচকটি সরাসরি বাজার সম্পর্কিত নয়, সেটি রাজনৈতিক। মার্চ ও এপ্রিলে পশ্চিমা নীতিনির্ধারকদের আশা ছিল, সৌদি আরব ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের নেতৃত্বে ওপেক রাশিয়ার সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করবে। অথচ বাস্তবে উল্টোটা ঘটেছে।

আমেরিকান প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের রিয়াদ সফরের পরেও পুতিন ওপেক প্লাস জোটে তার প্রভাব বজায় রেখেছেন। বাইডেন সৌদি আরব থেকে চলে যাওয়ার পরপরই ওপেকের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষাকারী মূল ব্যক্তি রাশিয়ার উপপ্রধানমন্ত্রী আলেকজান্ডার নোভাক সৌদি আরবে যান। তার কয়েক দিন পর ওপেক বিশ্বব্যাপী জ্বালানি বাজারের ওপর চাপ বজায় রেখে তেলের উৎপাদন সামান্য বৃদ্ধির ঘোষণা দেয়।

জ্বালানি বাজারে জয়ের অর্থ হল পুতিন ইউরোপে প্রাকৃতিক গ্যাস বিক্রি সীমাবদ্ধ করে বার্লিন, প্যারিস ও লন্ডনের ওপর চাপ সৃষ্টির সক্ষমতা রাখেন। এসব দেশ এবারের শীতে রেশনিং হতে পারে এমন খুচরা জ্বালানির দাম বৃদ্ধি ও সম্ভাব্য ঘাটতির জন্য প্রস্তুত। মস্কো তেল বিক্রি করে বিপুল অর্থ উপার্জন করছে। এ জন্য রাশিয়া পূর্ব ইউরোপীয় দেশগুলোতে অপরিশোধিত তেলের সরবরাহ সীমিত করে দিলেও বিশেষ ক্ষতির মুখে পড়বে না।

শীতল আবহাওয়া, বিদ্যুতের ক্রমবর্ধমান চাহিদা ও বছরের শেষ দিকে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি, সব মিলিয়ে ইউক্রেনের জন্য পশ্চিমাদের সমর্থন কমিয়ে দেয়ার ঝুঁকি তৈরি করেছে। ইউরোপীয় রাজনীতিকরা এতদিন কিয়েভের প্রতি সমর্থন জানিয়ে আন্তর্জাতিক প্রশংসা পেতে আগ্রহী ছিলেন। এখন তারা ভোটারদের জ্বালানি সংকটে পড়া ঠেকাতে নিজের দেশে পণ্যমূল্য বাগে আনতে চাইবেন।

জনসমক্ষে ইউরোপীয় সরকারগুলো রাশিয়ান শক্তি থেকে নিজেদের মুক্ত করার জন্য দৃঢ়সংকল্পে অটুট। তবে গোপনে তাদের স্বীকার করতেই হচ্ছে, এমন অবস্থান অর্থনীতিতে আঘাতের হুমকি বাড়িয়ে দিচ্ছে।

আরও পড়ুন:
ইউরোপে রুশ তেলের পাইপলাইন বন্ধ করল ইউক্রেন
ট্রাক ভাড়া বাড়ায় বেনাপোলে পণ্য পরিবহনে অচলাবস্থা
রেলের ভাড়া বাড়ানোর আলোচনা চলছে: রেলমন্ত্রী
বাস ভাড়ার প্রতারণা কাদেরকে জানালেন জাফরউল্লাহ
বিদ্যুতের দাম বাড়ালে সরকার পতনের আন্দোলন: ইসলামী আন্দোলন

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Citizens at risk of Ukraines bases in settlements Amnesty

জনগণকে ঢাল বানানোয় ইউক্রেনের সমালোচনা অ্যামনেস্টির

জনগণকে ঢাল বানানোয় ইউক্রেনের সমালোচনা অ্যামনেস্টির রুশ হামলায় ধ্বংসস্তুপে পরিণত হওয়া বিদ্যালয় ভবনের সামনে দিয়ে বিষন্ন মনে হেঁটে যাচ্ছে এক শিক্ষার্থী। গত ৩ মার্চ ইউক্রেনের জেমটোমার অঞ্চলে চালানো হয় বিমানহামলাটি। ছবি: এএফপি
চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে শুরু হওয়া রুশ বাহিনীর হামলা প্রতিহত করতে এমন রণকৌশল কাজে লাগাচ্ছে কিয়েভ। এমন অভিযোগ করেছে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল।

ইউক্রেনীয় বাহিনী স্কুল ও হাসপাতালসহ জনবহুল আবাসিক এলাকায় ঘাঁটি স্থাপন এবং সেখান থেকে যুদ্ধ পরিচালনা করার মাধ্যমে রুশ বাহিনীর হামলার মুখে ফেলে দিয়েছে নিজ দেশের বেসামরিক নাগরিকদের।

চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে শুরু হওয়া রুশ বাহিনীর হামলা প্রতিহত করতে এমন রণকৌশল কাজে লাগাচ্ছে কিয়েভ। এমন অভিযোগ করেছে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল।

এই ধরনের রণকৌশল আন্তর্জাতিক মানবাধিকার আইন লঙ্ঘন করে এবং বেসামরিক লোকদের বিপদে ফেলে দেয়। এর মাধ্যমে কিয়েভ বেসামরিক নাগরিক ও স্থাপনাকে সামরিক লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত করছে। এতে এমনসব জনবহুল এলাকায় চালানো রুশ হামলার বলি হচ্ছে বেসামরিক মানুষ ও অবকাঠামো।

অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের সেক্রেটারি জেনারেল অ্যাগনেস ক্যালামার্ড বলেন, ‘ইউক্রেনীয় বাহিনী কীভাবে বেসামরিক নাগরিকদের ঝুঁকির মধ্যে ফেলে এবং জনবহুল এলাকা থেকে যুদ্ধ পরিচালনার মাধ্যমে যুদ্ধের আইন লঙ্ঘন করছে সেগুলোর ধরন ও নমুনা আমরা নথিভুক্ত করেছি।’

রুশ হামলার বিপরীতে আত্মরক্ষামূলক অবস্থানে থাকা সত্ত্বেও আন্তর্জাতিক মানবিক আইন অমান্য করলে তা থেকে দায়মুক্তি পেতে পারে না ইউক্রেনের সামরিক বাহিনী।

অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল এও মনে করে না যে রণকৌশল ও যুদ্ধনীতি মেনে ইউক্রেনে হামলা চালিয়েছে মস্কো। অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল জানিয়েছে খারকিভ, দোনভাসসহ বিভিন্ন জায়গায় হামলা চালাতে গিয়ে যুদ্ধাপরাধ করেছে রুশ বাহিনীও।

বেসামরিক এলাকায় ইউক্রেনীয় বাহিনীর স্থাপনা বেআইনিভাবে রুশ সামরিক বাহিনীর লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত হয়েছে এমন তথ্য পায়নি সংস্থাটি।

চলতি বছর এপ্রিল থেকে জুলাইয়ের মধ্যে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের গবেষকরা খারকিভ, ডনবাস এবং মাইকোলাইভ অঞ্চলে রুশ হামলার ধরন পর্যালোচনা করেছেন। তারা কয়েক সপ্তাহ সেসব অঞ্চলে অবস্থান করেন।

সংগঠন হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত স্থাপনা পরিদর্শন, বেঁচে যাওয়া ও প্রত্যক্ষদর্শীদের সাক্ষাৎকার নেয়া এবং রিমোট সেন্সিং এবং অস্ত্রের ধরন বিশ্লেষণ করেন। এরপর তৈরি করেন প্রতিবেদন।

আরও পড়ুন:
ভয়াবহ বিস্ফোরণের জেরে ক্রিমিয়া ছেড়ে পালাচ্ছে রুশরা
যুদ্ধের থ্রিল নিতে পর্যটক ডাকছে ইউক্রেনীয় প্রতিষ্ঠান
ইউরোপে রুশ তেলের পাইপলাইন বন্ধ করল ইউক্রেন
ইউরোপে পারমাণবিক বিপর্যয়ের শঙ্কা জাতিসংঘের
‘রাজাকার’ ধরতে ইউক্রেনীয় শহরে অভিযান

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
The price of electricity has increased five times in Germany during the drought

জার্মানিতে বিদ্যুতের দাম বেড়ে ৫ গুণ

জার্মানিতে বিদ্যুতের দাম বেড়ে ৫ গুণ জার্মানির একটি বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র। ছবি: সংগৃহীত
ইউরোপের জ্বালানি সংকটে নতুন মাত্রা যোগ করেছে রাইন নদীর পানি কমে যাওয়া। চলতি সপ্তাহের শেষের দিকে নদীটি দৃশ্যত নৌযান চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়বে। এর ফলে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্রগুলোতে জ্বালানির সরবরাহ বাধাগ্রস্ত হবে। সড়ক বা রেলপথে জ্বালানি পরিবহন সম্ভব হলেও সেটি অনেক বেশি ব্যয়সাপেক্ষ।

চলমান দাবদাহ ও খরায় ইউরোপের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ জলপথ দিয়ে জ্বালানি সরবরাহ ব্যাপকভাবে কমে আসায় জার্মানিতে বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধির রেকর্ড হয়েছে।

ব্লুমবার্গের প্রতিবেদনে জানানো হয়, একদিকে ইউক্রেনের সঙ্গে যুদ্ধে থাকা রাশিয়া গ্যাস রপ্তানি সীমিত করেছে ইউরোপে, অন্যদিকে গ্রীষ্মের খরতাপে পুড়ছে পুরো মহাদেশ। এমন পরিস্থিতি ইউরোপের জ্বালানি ব্যবস্থার ওপর বাড়তি চাপ সৃষ্টি করেছে। শীতে জ্বালানির চাহিদা বেড়ে গেলে এ সংকট আরও বাড়বে বলে মনে করা হচ্ছে।

ইউরোপের জ্বালানি সংকটে নতুন মাত্রা যোগ করেছে রাইন নদীর পানি কমে যাওয়া। চলতি সপ্তাহের শেষের দিকে নদীটি দৃশ্যত নৌযান চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়বে। এর ফলে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্রগুলোতে জ্বালানির সরবরাহ বাধাগ্রস্ত হবে।

সড়ক বা রেলপথে জ্বালানি পরিবহন সম্ভব হলেও সেটি অনেক বেশি ব্যয়সাপেক্ষ।

এ বিষয়ে এএমই গ্রুপের এক নোটে বলা হয়, ‘রাইন নদীর পানির স্তর নেমে যাওয়া এসব কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রে কাঙ্ক্ষিত উৎপাদনের জন্য প্রয়োজনীয় কয়লার জোগান ব্যাহত করবে।’

বিদ্যমান পরিস্থিতিতে ইউরোপিয়ান এনার্জি এক্সচেঞ্জে জার্মানির বিদ্যুতের প্রতি মেগাওয়াটের দাম ৩.২ শতাংশ বেড়ে ৪২০ ইউরো হয়েছে। এটি এক বছর আগের দামে চেয়ে পাঁচ গুণেরও বেশি।

প্রচণ্ড তাপ ও খরায় জলবিদ্যুতের জোগান দেয়া নদী, জলাধারগুলোও শুকিয়ে যাচ্ছে।

এ বিষয়ে নরওয়ের অসলোভিত্তিক জ্বালানি প্রযুক্তি কোম্পানি ভলুর পানি বিশেষজ্ঞ সিলজে এরিকসেন হলমেন বলেন, ইউরোপে শুষ্ক অবস্থা কাটার কোনো আলামত দেখা যাচ্ছে না। এটা এ কারণে নয় যে, শুধু এ গ্রীষ্মটাই শুষ্ক; সময়টা দীর্ঘ হওয়ায় খরার প্রভাব আরও বেড়েছে।

আরও পড়ুন:
মেশিনে ঘাস কাটতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে দুই ভাইয়ের মৃত্যু
বিদ্যুতের খুঁটিতে ঝুলছিল যুবকের দেহ
বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতে সরকারের সাফল্য বৈপ্লবিক: কাদের
পিকনিকের লঞ্চ বিদ্যুতায়িত: নিখোঁজ কিশোরের মরদেহ উদ্ধার
পিকনিকের লঞ্চ বিদ্যুতায়িত, নিখোঁজ ১

মন্তব্য

p
উপরে