× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

অর্থ-বাণিজ্য
The way it came to provide its own money
hear-news
player
print-icon

নিজস্ব অর্থের জোগান এলো যেভাবে

নিজস্ব-অর্থের-জোগান-এলো-যেভাবে
বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. আতিউর রহমান। ফাইল ছবি
বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. আতিউর রহমান বলেন, ‘আমার মনে আছে, ২০১৪ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ ব্যাংকে পদ্মা সেতু প্রকল্পের কর্মকর্তা, বাংলাদেশ ব্যাংকের ফরেন এক্সচেঞ্জ বিভাগের কর্মকর্তা আর অগ্রণী ব্যাংকের কর্মকর্তারা মিলে আমরা একটা সভা করেছিলাম। সে সভায় সিদ্ধান্ত হয়েছিল, অগ্রণী ব্যাংক তার তহবিল থেকে ফরেন এক্সচেঞ্জ দেবে। বাজারে কিনতে পাওয়া গেলে কিনবে এবং না পেলে বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে সমর্থন দেয়া হবে।’

২০১২ সালের ৪ জুলাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজস্ব অর্থে পদ্মা সেতু নির্মাণের ঘোষণা দেন। এর পরই শুরু হয় স্বপ্নের এই সেতু নিমার্ণের কর্মযজ্ঞ। সেতু নির্মাণে বিদেশি কেনাকাটায় বিপুল অঙ্কের যে বিদেশি মুদ্রার প্রয়োজন, তা জোগানের আশ্বাস দেন সে সময়কার বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ড. আতিউর রহমান।

জরুরি প্রয়োজনে আতিউর রহমান বর্তমানে কানাডায় অবস্থান করছেন। সেখান থেকে বৃহস্পতিবার জুমে যুক্ত হয়ে নিউজবাংলা টোয়েন্টিফোর ডটকমকে দেয়া বিশেষ সাক্ষাৎকারে পদ্মা সেতুতে বিদেশি মুদ্রা সরবরাহের গল্প শোনান তিনি। সেই সঙ্গে পদ্মা সেতু বাংলাদেশের অর্থনীতিতে কী বিপ্লব আনবে, একজন অর্থনীতিবিদ হিসেবে সে বিষয়েও বিস্তারিত বলেছেন।

আতিউর বলেন, ‘আমরা সম্ভাব্যতার বড় জায়গাটায় না গেলাম, সর্বনিম্ন সমীক্ষাটিই যদি গ্রহণ করি, তাও তো জিডিপি বাড়ার হার ন্যূনতম এক শতাংশ হবে। এটাই হলো আমাদের পদ্মা সেতু, যা বাংলাদেশের সক্ষমতা, সমৃদ্ধি, অহংকার ও সাহসের প্রতীক, যার স্বপ্ন দেখিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।’

তিনি বলেন, ‘উত্তরবঙ্গে যমুনা নদীতে বঙ্গবন্ধু সেতু চালু হওয়ার হওয়ার পর দেশের অর্থনীতিতে বিরাট বিস্ফোরণ ঘটেছিল, যার ধারাবাহিকতা এখনও আছে। পদ্মা সেতু চালুর ফলে আগামীর অর্থনীতিতে তার চেয়েও বড় বিস্ফোরণ ঘটাতে যাচ্ছে।’

নিজস্ব অর্থের জোগান এলো যেভাবে

নিজস্ব অর্থে পদ্মা সেতু নির্মাণের সাহস প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কীভাবে পেয়েছিলেন, এমন প্রশ্নের জবাবে আতিউর রহমান বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সাহস কখনোই কম ছিল না। সেই সময়ও তিনি সাহসী ভূমিকা পালন করেছেন। বিশ্বব্যাংক যে নোংরামি করেছিল, তা আমাদের ক্ষুব্ধ করে। সেটা আমি খুব কাছে থেকে দেখেছি। আমার স্পষ্ট মনে আছে, আমরা বাজেট নিয়ে মিটিং করেছি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনে।

‘মিটিং শেষ করার পর আমি ও প্রধানমন্ত্রী বসেছিলাম। সেখানে আমরা জানতে পেরেছিলাম, কী ধরনের নোংরামি বিশ্বব্যাংক শুরু করেছে। বিশ্বব্যাংকের ইন্টিগ্রিটি ডিপার্টমেন্ট থেকে বাংলাদেশ সম্পর্কে এমন অভিযোগ আনা হয়েছিল, যেটা আমাদের জন্য মোটেও গ্রহণযোগ্য নয়। সেই সময় প্রধানমন্ত্রী সাহস জুগিয়েছিলেন এটি বলে যে, আমরা কি পারব না এই পরিমাণ অর্থ জোগাড় করতে?’

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সাবেক এ গভর্নর বলেন, ‘২০০৯ সালে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যখন সরকার গঠন করেন, তখন বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ৭ বিলিয়ন ডলারের নিচে। পরের বছরই এটা আমরা ১০ বিলিয়নে নিয়ে গেলাম। তার পরের বছর থেকে এটা বাড়ছে। যখন আমরা পদ্মা সেতুর অর্থায়ন নিয়ে আলাপ করছি, তখন এটা ১৪ থেকে ১৫ বিলিয়ন হয়ে গেছে। সেই সময়ই প্রবাসী আয়, রপ্তানি আয় বাড়ছে।

‘প্রধানমন্ত্রীর সাহসের বড় জায়গা হলো যে, তিনি বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ গ্রোথ (অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি) দেখতে পেয়েছিলেন। বাংলাদেশে যে এত দ্রুতগতিতে এগিয়ে যাবে, এশিয়ার মধ্যে সবচেয়ে গতিশীল দেশ হবে এবং সেখানে যে এমন এক সময় আসবে, যখন বাংলাদেশের এক্সপোর্ট দ্রুত এগিয়ে যাবে, এগুলো তিনি অনুধাবন করেছিলেন বলে সাহস করেছিলেন।

‘প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে একাত্মতা জানিয়ে আমরাও বলেছিলাম অবশ্যই সম্ভব। এক দিনেই তো এই পরিমাণ ডলার লাগবে না। ১.৪ বিলিয়ন ডলারের কথা বলা হচ্ছে; সেটা তো একবারেই লাগছে না। কোনো বছরে হয়তো ২০০ মিলিয়ন ডলার, কোনো বছরে হয়তো ৫০০ মিলিয়ন ডলার লাগবে। এভাবে ভেঙে ভেঙে আমরা ফরেন এক্সচেঞ্জ দিতে পারব।

‘আমরা বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে কথা দিয়েছিলাম, একটা কমফোর্ট লেটার দিতে হয় যে কনসালট্যান্ট কাজ করবে তাকে। অগ্রণী ব্যাংক কমফোর্ট লেটার দেয়ার কাজটা করেছে। আমার মনে আছে, ২০১৪ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ ব্যাংকে পদ্মা সেতুর প্রকল্পের কর্মকর্তা, বাংলাদেশ ব্যাংকের ফরেন এক্সচেঞ্জ বিভাগের কর্মকর্তা আর অগ্রণী ব্যাংকের কর্মকর্তারা মিলে আমরা একটা সভা করেছিলাম। সে সভায় সিদ্ধান্ত হয়েছিল, অগ্রণী ব্যাংক তার তহবিল থেকে ফরেন এক্সচেঞ্জ দেবে। বাজারে কিনতে পাওয়া গেলে কিনবে এবং না পেলে বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে সমর্থন দেয়া হবে।

‘এর বাইরেও আলোচনা হয়েছিল ইন্টারন্যাশনাল কোম্পানিকে কমফোর্ট লেটার অগ্রণী ব্যাংক দেবে। খুব দ্রুত সময়ে যাতে অনুমোদন দিতে পারে, বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে তার ব্যবস্থা করেছিলাম। যখনই ফরেন এক্সচেঞ্জ কোথাও পাঠাতে হয়, বাংলাদেশ ব্যাংকের পূর্ব অনুমোদন লাগে। আমরা বলেছি, যতবার লাগবে ততবার দেবার প্রয়োজন নেই। একবারে আমরা দিয়ে দেব। পদ্মা সেতুর যত খরচ লাগে, বছরের শুরুতে একবারে আমরা সেই অনুমোদন দিয়ে দেব। এ রকম একটা সুবিধা আমরা করেছিলাম।’

সে সময়কার পরিস্থিতি নিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর বলেন, ‘আরেকটি সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম। চিঠিতে রিকুয়েস্ট আসবে না বাংলাদেশ ব্যাংকে। সরাসরি আমাদের সংশ্লিষ্ট জেনারেল ম্যানেজারের কাছে আসবে অগ্রণী ব্যাংক বা অন্য যেকোনো ব্যাংক থেকে এবং সরাসরি সেখানে অনুমোদন দিয়ে দেয়া হবে।

‘এ রকম অনেকগুলো সিদ্ধান্ত নেয়ার ফলে যেটাকে বলে রেগুলেটরি কমফোর্ট, সেটা আমরা বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে দিতে সমর্থ হয়েছিলাম। আমাদের এই ব্যবস্থাটা খুব কাজে লেগেছিল। এ রকম সংকটকালে কেন্দ্রীয় ব্যাংক যে উন্নয়নমুখী পদক্ষেপ নিতে পেরেছিল, তার প্রশংসা করেছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, এর জন্য তার কাছে আমরা কৃতজ্ঞ।’

তিনি বলেন, ‘কোভিডকালে উন্নয়নমুখী পদক্ষেপে বাংলাদেশ ব্যাংক ভূমিকা রাখতে পেরেছিল। এটা সম্ভব হয়েছিল আমাদের প্রবাসীদের কারণে। প্রবাসীরা এমনই অনুপ্রাণিত ছিল পদ্মা সেতুর ব্যাপারে। সেই সময় আমরা শত শত ইমেইল ও এসএমএস পেয়েছি। তারা জানতে চেয়েছিলেন, কোথায় কীভাবে ডলার পাঠাবেন। আমরা তাদের আশ্বস্ত করেছিলাম, যখন আমাদের দরকার হবে, তখন আমরা চাইব।’

পদ্মা সেতু কোথায় নিয়ে যাবে বাংলাদেশকে এমন প্রশ্নের জবাবে আতিউর বলেন, “পদ্মা সেতু শুধু একটি সেতু নয়। পদ্মা সেতু আমাদের আত্মমর্যাদার প্রতীক, সক্ষমতার স্মারক। পদ্মা সেতুর কারণে আমাদের জাতীয় মননে ‘আমরাও পারি’ সংস্কৃতিটি বেশ জোরদার হয়েছে।

‘প্রয়াত জাতীয় অধ্যাপক জামিলুর রেজা চৌধুরী স্যার, যিনি এই পদ্মা সেতুর কারিগরি কমিটির প্রধান ছিলেন, তিনি আমাকে ব্যক্তিগতভাবে এবং একটি অনুষ্ঠানে বলছিলেন, বিশ্বব্যাংক যে অন্যায় অভিযোগ এনেছে, তার কোনো বাস্তব ভিত্তি নেই। এই পদ্মা সেতু আমরা করতে পারি এবং করব। এর ফলে আমাদের যে সক্ষমতা তৈরি হবে, তাতে আমরা এ রকম আরও ১০টি সেতু ভবিষ্যতে তৈরি করতে পারব। আমাদের প্রকৌশলীরা, কন্ট্রাক্টররা, ব্যবস্থাপকরা এই পদ্মা সেতুতে এমনভাবে হাত পাকাবে যে ভবিষ্যতে আমরা এর চেয়ে বড় বড় সেতু তৈরি করব।’

আতিউর রহমান বলেন, ‘এটি ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের দিক থেকে চ্যালেঞ্জিং সেতু। পৃথিবীর মধ্যে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ খরস্রোতা নদী হলো পদ্মা। ১২৮ মিটার গভীর পিলারের ওপরে সেতু বসাতে হয়েছে। এটি কঠিন বাস্তবতার মধ্যে বসাতে হয়েছে। আমাদের জাতীয় অধ্যাপক জামিলুর রেজা চৌধুরীর নেতৃত্বে কারিগরি টিম এটাকে গাইড করেছে। সেনাবাহিনীর প্রকৌশলী, আব্দুল মোনেম গ্রুপ এবং বিদেশিরা একসঙ্গে মিলে এখানে আমরা কাজ করেছি। এর ফলে এ রকম মেগা প্রকল্প আমরা করতে পারব। এই সক্ষমতার বীজ প্রধানমন্ত্রী আমাদের মধ্যে বুনে দিলেন। এটা প্রথম অর্জন।

‘দ্বিতীয়ত, পদ্মা সেতুর কারণে দক্ষিণ বাংলার সঙ্গে সারা বাংলাদেশের একটা সংযোগ বেড়ে গেল। কানেকটিভিটি আরও বাড়বে, যখন রেল চালু হবে। আমরা হিসাব করে দেখেছি, সেতু চালু হওয়ার পরে আমাদের জাতীয় আয়ে বছরে আরও ১.২৬ শতাংশ যুক্ত হবে। ওই ২১টি জেলার যে জিডিপি, সেখানে সাড়ে ৩ শতাংশ হারে বাড়তি জিডিপি যুক্ত হবে। যতই দিন যাবে ততই তা বাড়তে থাকবে।

‘বঙ্গবন্ধু সেতু যেটি রয়েছে, সেটির আলোকে বলছি। সেখানে প্রায় ২ শতাংশ নতুন জিডিপি যুক্ত হয়েছে বছরে। আমাদের এখানেও যুক্ত হবে। আমরা আরেকটি হিসাব করে দেখেছি, পদ্মা সেতুর কারণে অর্থনীতির যে বিস্ফোরণ ঘটবে, দক্ষিণ বাংলায় তার প্রভাবে কলকারখানা, স্মল ও মিডিয়াম এন্টারপ্রাইজ, রিসোর্টে হবে। ট্যুরিজমের সুযোগ বাড়বে। বরিশাল, খুলনায় জাহাজ শিল্প গড়ে উঠবে। পায়রা ও মোংলা বন্দরের ক্যাপাসিটি অনেক বাড়বে।

‘রেলে ও সড়কে কলকাতা যেতে সময় অর্ধেক হয়ে যাবে। এর কারণে এই অঞ্চলে ভুটান, নেপাল, পশ্চিমবঙ্গ, আসাম–এসব জায়গাতে আমাদের ব্যবসা-বাণিজ্য বেড়ে যাবে। একই সঙ্গে এর মাধ্যমে আমরা ট্রান্স এশিয়ান হাইওয়ে ও রেলের সঙ্গে যুক্ত হব। দক্ষিণ বাংলায় অনেক রাস্তাঘাট রয়েছে, যেগুলো ব্যবহার হয় না। এই কানেকটিভিটির কারণে এগুলোর ব্যবহার বেড়ে যাবে এবং সক্ষমতা বেড়ে যাবে।’

পদ্মা সেতু দারিদ্র্য কমাবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করে আতিউর বলেন, ‘প্রতি বছর পদ্মা সেতুর কারণেই ১.০২ শতাংশ দারিদ্র্য কমবে। এই ২১ জেলার যে দারিদ্র্য, তা আমাদের দেশের গড় দারিদ্র্যের চেয়ে ৫ শতাংশ বেশি। অথচ পদ্মা সেতু হওয়ার পরই আরও ১ শতাংশের বেশি করে দারিদ্র্যের হার কমতে থাকবে।

‘যে কর্মসংস্থান হবে, তাতে টোটাল লেবার ফোর্সের ১.২ শতাংশ করে কর্মীর বাড়তি কর্মসংস্থান হবে। সেটা হিসাব করলে দেখা যায়, ২ লাখেরও বেশি মানুষের নতুন করে কর্মসংস্থান হবে। এটা বাড়তেই থাকবে। ৫ বছরের মধ্যে এটা ১০ লাখ ছাড়িয়ে যাবে।’

কৃষকরা কী সুফল পাবেন, তা নিয়ে আতিউর রহমান বলেন, ‘কৃষকরা যারা পণ্য উৎপাদন করেন, তারা কিন্তু ঢাকার বাজার ধরতে পারছিলেন না। তারা ঘাটে এসে বসে থাকতেন; ট্রাক বসে থাকত, মাল পচে যেত, সেগুলো এখন দ্রুত চলে আসবে।

‘এ ছাড়া ছোট ব্যবসায়ী, যাদের কাঁচামাল নরসিংদী থেকে বা ঢাকা থেকে নিতে কষ্ট হত, এগুলো এখন সহজেই চলে যাবে। সুতরাং পণ্য ও মানুষের এই চলাচলের ফলে অর্থনীতিতে চাঙা ভাব চলে আসবে। আরেকটি ঘটনা ঘটবে, জামিলুর রেজা স্যারই বলেছিলেন। পদ্মা সেতু এমন সম্ভাবনা তৈরি করবে যে, সেতুর ওই পারে আমরা সাংহাইয়ের মতো নতুন শহর তৈরি করতে পারব। আমরা সেই দিকেই যাচ্ছি। সেখানে নতুন বিমানবন্দর হতে পারে। সেখানে ইতোমধ্যে বেশ কিছু অবকাঠামো শুরু হয়েছে। একটি তাঁতপল্লি হচ্ছে জাজিরাতে।’

ফরিদপুরের সম্ভাবনা নিয়ে আতিউর রহমান বলেন, ‘ফরিদপুর একটা বড় সেন্টার হিসেবে গড়ে উঠবে। ভাঙ্গা একটি নতুন স্মার্ট শহর হয়ে যাবে। শরীয়তপুর, মাদারীপুর এসব জায়গায় নতুন নতুন শহর গড়ে উঠবে। সুতরাং আমার মনে হয় যে, পদ্মা সেতু আমাদের অর্থনীতির জন্য নতুন সম্ভাবনার দুয়ার খুলে দিচ্ছে।’

আরও পড়ুন:
ঝিনাইদহে পদ্মা সেতুর আদলে প্রতীকী পদ্মা সেতু
‘পদ্মা সেতু আমার লাগবে আপনার লাগবে’
পদ্মা সেতু হয়েছে কি না দেখে যান: খালেদাকে প্রধানমন্ত্রী
কেক কেটে পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উদযাপন টাইগারদের
পদ্মা সেতুর উদ্বোধনে চবিতে উচ্ছ্বাস, শোভাযাত্রা-মিষ্টি বিতরণ

মন্তব্য

আরও পড়ুন

অর্থ-বাণিজ্য
50 paisa increase the price of four taka increase the logic?

‘৫০ পয়সা খরচ বাড়ায় দাম চার টাকা বাড়ার লজিক আছে?’

‘৫০ পয়সা খরচ বাড়ায় দাম চার টাকা বাড়ার লজিক আছে?’ সচিবালয়ে বুধবার এক কোটি পরিবারের মধ্যে টিসিবির ভর্তুকি মূল্যে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য বিক্রি কার্যক্রম নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। ছবি: নিউজবাংলা
ধরেন তেলের দাম বাড়ায় পরিবহন খরচের জন্য প্রতি কেজিতে ৫০ পয়সা করে বাড়তে পারে, সেখানে ব্যবসায়ীরা ৪ টাকা পর্যন্ত বাড়িয়েছে। এখানে কোনো লজিক আছে? নাই: বাণিজ্য মন্ত্রী

জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর কারণে চালের পরিবহন ব্যয় কেজিপ্রতি ৫০ পয়সা বাড়তে পারে বলে মনে করেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। আর এর সুযোগ নিয়ে ব্যবসায়ীরা দাম চার টাকা পর্যন্ত বাড়িয়ে দিয়েছেন জানিয়ে উষ্মা প্রকাশ করেছেন তিনি। বলেছেন, এটা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়।

মন্ত্রী বলেন, ‘এভাবে দাম বাড়ানোর কোনো যৌক্তিকতা নেই। সুযোগ পেয়ে লাফিয়ে পড়েছে ব্যবসায়ীরা।’

সচিবালয়ে বুধবার এক কোটি পরিবারের মধ্যে টিসিবির ভর্তুকি মূল্যে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য বিক্রি কার্যক্রম নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা জানান।

গত ৫ আগস্ট থেকে ডিজেলের দাম লিটারে ৩৪ টাকা বাড়ানোর পর পণ্যমূল্য আরেক দফা লাফ দেয়ায় জনসাধারণের জীবন হয়েছে আরও কঠিন। তবে পণ্যমূল্য যে হারে বেড়েছে, তা পরিবহন খরচ বৃদ্ধির তুলনায় অনেক বেশি বলে মনে করে সরকার।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সম্প্রতি বলেছেন, পণ্যমূল্য এতটা বাড়ার কোনো কারণ নেই।

মাত্রাতিরিক্ত মুনাফার প্রবণতা তুলে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘ব্যবসায়ীরা সুযোগ যখন নেয়, সবাই একবারে লাফ দিয়ে নেয়।…ধরেন তেলের দাম বাড়ায় পরিবহন খরচের জন্য প্রতি কেজিতে ৫০ পয়সা করে বাড়তে পারে, সেখানে ব্যবসায়ীরা ৪ টাকা পর্যন্ত বাড়িয়েছে। এখানে কোনো লজিক আছে? নাই৷’

এই অতিমুনাফার প্রবণতা সহজে থামানো যাবে না বলেও মনে করেন টিপু মুনশি। বলেন, ‘আমরা তো এসব একবারে শেষ করতে পারব না। তাদের সঙ্গে বসে সেটেল (নিষ্পত্তি) করতে হবে। আমাদের একটু সময় দেন। আমরা সবাই মিলে চেষ্টা করছি।

‘আমাদের একটু সময় দেন। আমরা সবাই মিলে চেষ্টা করছি। আমরা কষ্টে আছি, স্বীকার করছি।’

মন্ত্রী আরও বলেন, ‘আমরা এ বিষয়গুলো দেখছি। তবে সবকিছু বাণিজ্য মন্ত্রণালয় নিয়ন্ত্রণ করে না। আর সব ব্যাপারে আমি আপনাদের বোঝাতে পারব, তা কিন্তু নয়। আমার যেটা কথা…হঠাৎ করে সুযোগ কেউ কেউ নিয়েছে। যে পরিমাণ বাড়ার কথা, তার থেকে অনেক বেশি সুযোগ নিয়েছে, এটা সত্যি কথা। আমরা চেষ্টা করছি।’

ডলারে ক্রমবর্ধমান দরও দুশ্চিন্তায় ফেলেছে মন্ত্রীকে। তিনি বলেন, ‘ডলারের দাম হঠাৎ করে এত বেশি। খুব চেষ্টা করা হচ্ছে কীভাবে কী করা যায়। আমাদের কাছে হিসাব আছে।’

কবে নাগাদ বাজার পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, ‘সেটা বলা যাবে না, তবে আমরা খুব আশাবাদী অক্টোবরের মধ্যে কিছুটা কমে আসবে। কতগুলো ফ্যাক্টর কাজ করে। আমি জানি না, পুতিন সাহেব কবে যুদ্ধ বন্ধ করবেন। সেটা তো আমার হিসাবের মধ্যে নেই।’

আরও পড়ুন:
দাম নিয়ন্ত্রণে ডিম আমদানির চিন্তা
রাশিয়ার তেল কেনার কী উপায়, বাধা কোথায়?
রুশ তেল আমদানি ইস্যুতে বিশেষজ্ঞ দল আসছে
রাশিয়া থেকে জ্বালানি তেল আনতে চান প্রধানমন্ত্রী
বিশ্ববাজারে অশোধিত তেলের ব্যারেল ৯০ ডলারের নিচে

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
The thought of importing eggs to control prices

দাম নিয়ন্ত্রণে ডিম আমদানির চিন্তা

দাম নিয়ন্ত্রণে ডিম আমদানির চিন্তা এক মাসে ডিমের দাম এক-তৃতীয়াংশ বেড়ে গেছে। ফাইল ছবি
ডিম আমদানি করতে তো একটু সময় লাগবে। আমরা দেখি, যদি এমনটাই হয় যে সত্যি ডিম আমদানি করলে এটা কমবে, তাহলে আমরা ডিম আমদানির প্রক্রিয়ায় যাব: বাণিজ্যমন্ত্রী

প্রায় প্রতিদিনই বেড়ে যাওয়া দাম নিয়ন্ত্রণে এবার ডিম আমদানির চিন্তা-ভাবনা করছে সরকার। পাশাপাশি দেশে কেন এভাবে হুট করে পণ্যটির দাম অস্বাভাবিক হারে বেড়ে গেছে, সেটিও মূল্যায়ন করা হবে।

এক মাস ধরে ডিমের দাম এক-তৃতীয়াংশ বেড়ে যাওয়ার পর তীব্র জন-অসন্তোষ ও অস্বস্তির মধ্যে বুধবার সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা জানান। এক কোটি পরিবারের মধ্যে ভর্তুকি মূল্যে নিত্যপণ্য বিক্রির কার্যক্রম নিয়ে জানাতে তিনি আসেন গণমাধ্যমের সামনে।

ডিম নিয়ে এক প্রশ্নে মন্ত্রী মনে করেন, সুযোগ বুঝে ব্যবসায়ীরা বেশি মুনাফা করছে। তিনি বলেন, ‘সুযোগ যখন নেয় সবাই একবারে লাভ দিয়ে করে নেয়।’

রাতারাতি পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসা সম্ভব নয় উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘আমরা কৃষি, মৎস্যসহ কয়েকটি মন্ত্রণালয় মিলে ডিমের ব্যাপারটি নিয়ে আলোচনা করব দাম কীভাবে কমানো যায়।’

আমদানির বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘ডিম আমদানি করতে তো একটু সময় লাগবে। আমরা দেখি, যদি এমনটাই হয় যে সত্যি ডিম আমদানি করলে এটা কমবে, তাহলে আমরা ডিম আমদানির প্রক্রিয়ায় যাব।’

সরকারি সংস্থা টিসিবির হিসাবে ফার্মের মুরগির ডিমের হালি এখন ৫০ থেকে ৫৫ টাকা। এক সপ্তাহ আগেও যা ছিল ৪৩ থেকে ৪৭ টাকা। এক মাস আগে ছিল ৩৮ থেকে ৪০ টাকা হালি। আর এক বছর আগে ছিল ৩৩ থেকে ৩৫ টাকা।

অর্থাৎ এক সপ্তাহের ব্যবধানে দাম বেড়েছে ২০ শতাংশের মতো, এক মাসে বেড়েছে প্রায় এক-তৃতীয়াংশ আর এক বছরে বেড়েছে ৫৪ শতাংশের বেশি।

ডিমের এই দাম বৃদ্ধির বিষয়টি খতিয়ে দেখতে আজই বৈঠকে বসার কথাও জানান টিপু মুনশি। বলেন, ‘সেখানে আলোচনা হবে কেন ডিমের দাম এমন হলো। তৃণমূলে কোনো সমস্যা হচ্ছে কি না, আমরা সেগুলো দেখছি। বিভিন্ন সময় এমন অসুবিধা হয়েছে, সেগুলো আমরা অ্যাড্রেস করেছি। দু-চার বা পাঁচ দিন সময় অবশ্য লেগেছে।’

ভোজ্যতেলের দাম বাড়বে কি?

বিশ্ববাজারে দাম কমলেও ডলারের বিপরীতে টাকার অবমূল্যায়নের কারণে ব্যবসায়ীরা ভোজ্যতেলের দাম বাড়ানোর যে প্রস্তাব দিয়েছেন, সেটি নিয়েও বাণিজ্যমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেন সাংবাদিকরা। তিনি বলেন, ‘আমাদের সেই সিদ্ধান্ত হয়নি এখনও। আলোচনা চলছে। বিশ্ববাজারে ভোজ্যতেলের দাম কমেছে, আবার ডলারের দাম বেড়েছে। এ দুটিকে বিবেচনায় নিয়ে একটি দাম নির্ধারণ করতে হবে।

‘আমরা সেই চেষ্টাই করছি। খুব শিগগিরই তেলের দাম পুনর্নির্ধারণ করা হবে। আমরা বসে আছি যদি ডলারের দামটা একটু কমে। আমাদেরও ওদের সঙ্গে নেগোশিয়েট করার একটু সুযোগ হবে।’

ভর্তুকি মূল্যের পণ্য বিতরণে অনিয়ম প্রসঙ্গ

ভর্তুকি মূল্যে পণ্য বিতরণে এক কোটি মানুষ বাছাইয়ে অনিয়ম হয়েছে কি না- এমন প্রশ্নে মন্ত্রী বলেন, ‘শহরগুলো থেকে ৭০ লাখ লোক ঠিক করা হয়েছে। রমজানের মাসে ঈদকে সামনে রেখে সময় কম থাকায় তখন একটু তাড়াহুড়া ছিল। স্থানীয় কমিটি এ তালিকা করেছে, বাণিজ্য মন্ত্রণালয় করেনি।

‘টিআইবি যে রিপোর্ট করে, সেটা প্রথম দিককার রিপোর্ট, মার্চ ও এপ্রিলের দিকে তারা চেক করেছে। তারা এক কোটি কার্ডধারীর মধ্যে এক হাজার ৪৭ জনকে নিয়েছেন। যেটার পার্সেন্টেজ পয়েন্ট দশমিক ০০০১৪ শতাংশ। এর মধ্যে বাদ দেয়া সাড়ে ৮ লাখ মানুষও তো আছে।’

তিনি বলেন, ‘আমরা অ্যাপ্রিসিয়েট করি, যেকোনো রিপোর্ট যেকোনো তদন্ত- সেটা আমাদের চোখ-কান খুলে দেয়। কিন্তু সেটি যদি যৌক্তিক হয় বা সেটা যথার্থ হয়, তাহলে আমাদের পক্ষে কাজ করতে সুবিধা হয়। তা না হলে মানুষের মধ্যে কনফিউশন সৃষ্টি করে। তারপরও আমরা কাউকে আন্ডারমাইন্ড করতে চাই না। আমাদের দায়িত্ব যে, সত্যিটা কী, কী ঘটনা ঘটেছে।’

মন্ত্রী বলেন, ‘বলা হয়েছে নাম ঢোকার ক্ষেত্রে অনিয়ম হয়েছে। আমি একেবারে অস্বীকার করতে চাই না যে হয়নি। কিন্তু রিয়েলিটিটা কী, আমাদের দেশটা কোথায়? পশ্চিমা বিশ্বের মতো না যে, একটা চাপ দিয়ে বিস্তারিত পাওয়া যাবে। আমাদের নির্ভর করতে হয়েছে কমিটির ওপর। হতে পারে ৫ শতাংশ মানুষ নজর ফাঁকি দিয়ে ঢুকে গেছে। কিন্তু আমরা ৯৫ শতাংশ মানুষের কাছে তো পৌঁছে গেলাম। আমরা পর্যায়ক্রমে কিন্তু সেগুলোও দেখছি।

‘আমরা আমাদের কর্মসূচি অব্যাহত রাখতে চাই। এ চলার পথে যদি কোথাও কোনো কারেকশন দরকার হয়, কোথাও কোনো অনিয়ম থাকে, সেটাও আমরা অ্যাড্রেস করব।

‘এক কোটি কার্ডের মধ্যে ৮০ শতাংশ কার্ড করা হয়েছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ঢাকা শহরে এখনও কার্ড দেয়া হয়নি। আশা করি এক মাসের মধ্যে শতভাগ হয়ে যাবে।’

আরও পড়ুন:
বাজারে কম ডিমের দাম, হোটেলে বেশি
জনগণকে গাছের পাতা খাওয়ার পরামর্শ মিসরের প্রেসিডেন্টের
ডিমের বাজারও চড়া
ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিডসমৃদ্ধ মুরগির মাংস-ডিমে ‘সাফল্য’
বিশ্বজুড়ে ডিমের দাম বাড়ল কেন

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Where is the way to buy Russian oil?

রাশিয়ার তেল কেনার কী উপায়, বাধা কোথায়?

রাশিয়ার তেল কেনার কী উপায়, বাধা কোথায়? প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। ফাইল ছবি
বিশেষজ্ঞরা বলছেন, রাশিয়া থেকে তেল আমদানির বিল পরিশোধ করা কোনো সমস্যা নয়, সমস্যা হচ্ছে আমরা রাশিয়া থেকে তেল আমদানি করব কি না? এটা একটা রাজনৈতিক সিদ্ধান্তের বিষয়। রাশিয়া থেকে তেল কিনলে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন যদি বিরাগভাজন হয়, তাহলে এই পথে যাওয়া ঠিক হবে না।

রাশিয়া থেকে জ্বালানি তেল কেনার ‍উপায় খুঁজে বের করার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় মঙ্গলবার তিনি এ নির্দেশ দেন।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ভারতসহ অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশও রাশিয়া থেকে সস্তায় জ্বালানি তেল কিনতে পারে। অনেক পথও আছে, তবে সমস্যা হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। সবচেয়ে বড় অর্থনীতির এই দেশটিকে ‘না চটিয়ে’ রাশিয়া থেকে তেল কেনার পরামর্শ দিচ্ছেন তারা।

বিশেষজ্ঞদের শঙ্কা, যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন অখুশি হলে এই দুই বড় বাজারে বাংলাদেশের ৩৫ বিলিয়ন ডলারের রপ্তানি হুমকিতে পড়তে পারে। বিশেষ করে তারা বাংলাদেশ থেকে পোশাক রপ্তানি না করলে বা কমিয়ে দিলে দেশ বড় ধরনের সংকটের মুখে পড়বে।

বেশ কিছুদিন ধরেই রাশিয়া থেকে জ্বালানি তেল আমদানি নিয়ে আলোচনা হচ্ছে। গত মে মাসে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদও এমন ইঙ্গিত দেন। তবে কীভাবে আমদানি হবে, দাম কীভাবে পরিশোধ করা হবে, সে বিষয়ে কোনো উপায় নির্ধারণ হয়নি।

একনেক সভা শেষে মঙ্গলবার পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান সাংবাদিকদের বলেন, ‘বৈঠকে দেশের সামগ্রিক পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনার একপর্যায়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘‘ভারত যদি রাশিয়া থেকে তেল আমদানি করতে পারে, তাহলে আমরা কেন পারব না?”'

রাশিয়ার কাছ থেকে তেল আমদানি করা গেলে বিনিময় মুদ্রা কী হবে, সে বিষয়েও একটি সমাধান খুঁজে বের করতে প্রধানমন্ত্রী সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দিয়েছেন বলে জানান মান্নান।

যুক্তরাষ্ট্র ও সৌদি আরবের পরে বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম তেল উৎপাদনকারী দেশ রাশিয়া আগে প্রতিদিন প্রায় ৫ মিলিয়ন ব্যারেল অপরিশোধিত তেল রপ্তানি করত, যার অর্ধেকের বেশি যেত ইউরোপে। ।

গত ফেব্রুয়ারিতে রুশ বাহিনী ইউক্রেনে অভিযান শুরু করলে যুক্তরাষ্ট্র এবং তাদের ইউরোপীয় মিত্ররা একের পর এক মস্কোর ওপর অবরোধ আরোপ শুরু করে।

একপর্যায়ে যুক্তরাষ্ট্র রাশিয়ার তেলের ওপরও নিষেধাজ্ঞা দেয়। ইউরোপীয় ইউনিয়নও জ্বালানির জন্য রাশিয়ার ওপর নির্ভরশীলতা কমিয়ে আনার ঘোষণা দেয়।

রাশিয়ার তেল কেনার কী উপায়, বাধা কোথায়?

নিষেধাজ্ঞার মুখে অন্য ক্রেতারা রুশ তেল কেনা থেকে পিছু হটলেও বিশ্বের তৃতীয় সর্বোচ্চ তেল আমদানিকারক ও ভোক্তা দেশ ভারত সেই সুযোগ কাজে লাগিয়ে ব্যাপক মূল্য ছাড়ে তাৎক্ষণিক টেন্ডারের মাধ্যমে রাশিয়া থেকে বাড়তি তেল কেনা শুরু করে। চীনও রাশিয়া থেকে তেল কেনা বাড়িয়েছে বলে খবর এসেছে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে।

ইউক্রেন যুদ্ধ নিয়ে কূটনৈতিক টানাপোড়েনের মধ্যে রাশিয়া থেকে ভারতের অতিরিক্ত তেল কেনার বিষয়টি ভালোভাবে না নেয়ার বিষয়টি এরই মধ্যে স্পষ্ট করেছে ওয়াশিংটন।

রাশিয়ার পণ্য কেনার ক্ষেত্রে দাম পরিশোধ নিয়েও জটিলতা রয়েছে। সুইফটে নিষেধাজ্ঞার কারণে ব্যাংকিং চ্যানেলে ডলারে দাম পরিশোধ সম্ভব নয়। আর রাশিয়াও অনেক দেশের ক্ষেত্রে রুবলে দাম পরিশোধের শর্ত দিচ্ছে।

যুদ্ধ শুরুর পরপর বিশ্ববাজারে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের দাম ব্যারেলে ১৩০ ডলার ছাড়িয়ে গেলেও এখন তা অনেকটা কমে এসেছে। কিন্তু তেল আমদানির খরচ বেড়ে যাওয়ায় ভর্তুকি কমাতে আর ডলার বাঁচাতে সরকার আগস্টের শুরুতে জ্বালানি তেলের দাম ৫০ শতাংশ পর্যন্ত বাড়িয়েছে, যার প্রভাবে জীবনযাত্রার ব্যয় বেড়ে গেছে অনেকটা।

তেল বাঁচাতে সরকার বিদ্যুৎ উৎপাদনও কমিয়ে দিয়েছে, পরিস্থিতি সামাল দিতে রুটিন করে সব এলাকায় লোডশেডিং করতে হচ্ছে।

এ অবস্থায় রাশিয়া থেকে তেল কেনা হলে অনেক কম দামে পাওয়া যাবে বলে বাংলাদেশ সরকার আশা করছে। মধ্যপ্রাচ্য থেকে যে দামে তেল কেনে ভারত, তার তুলনায় ব্যারেলপ্রতি প্রায় ২০ ডলার বা তারও বেশি ছাড় দিচ্ছে রাশিয়া৷ তাই ভারত এখন যেসব দেশ থেকে তেল কেনে, সেই তালিকায় দুই নম্বরে উঠে গেছে রাশিয়া৷ আগে সৌদি আরব ছিল দুই নম্বরে৷ এখন তারা তিন নম্বরে আছে৷ এক নম্বরে আগের মতোই ইরাক আছে৷

বাংলাদেশ রাশিয়া থেকে তেল কিনলে মূল্য পরিশোধ করা যাবে কীভাবে- এ প্রশ্নের উত্তরে অর্থনীতির গবেষক বেসরকারি গবেষণা সংস্থা পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর নিউজবাংলাকে বলেন, ‘তিনভাবে দাম পরিশোধ করা যেতে পারে। প্রথমত, আমরা এখন রাশিয়ায় প্রায় ১ বিলিয়ন ডলারের মতো পণ্য রপ্তানি করে থাকি। আমরা যে তেল কিনব সেই দাম রপ্তানি থেকে যে আয় হবে তা দিয়ে একটা সমন্বয় করা যেতে পারে।

’দ্বিতীয়ত, আমাদের রূপপুর পারমণবিক বিদুৎ কেন্দ্রের জন্য বড় ধরনের কেনাকাটা করতে হচ্ছে, সেই কেনাকাটার বিলের সঙ্গে তেল আমদানির বিল সমন্বয় করা যেতে পারে। আর শেষেরটি হচ্ছে, যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়া সম্মতি দিলে ডলারেও পেমেন্ট করা যেতে পারে।’

তিনি বলেন, ‘রাশিয়া থেকে তেল আমদানির বিল পরিশোধ করা কোনো সমস্যা নয়, সমস্যা হচ্ছে আমরা রাশিয়া থেকে তেল আমদানি করব কি না? এটা একটা রাজনৈতিক সিদ্ধান্তের বিষয়। রাশিয়া থেকে তেল কিনলে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন যদি বিরাগভাজন হয়, তাহলে এই পথে যাওয়া ঠিক হবে না।

’কেননা, এই দুই বড় বাজারে বাংলাদেশের ৩৫ বিলিয়ন ডলারের রপ্তানি। রাশিয়া থেকে তেল কেনা শুরু করলে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের দেশগুলো যদি নাখোশ হয়, তারা বাংলাদেশ থেকে পোশাক রপ্তানি না করে বা কমিয়ে দেয় তাহলে বাংলাদেশ বড় ধরনের সংকটের মুখে পড়বে।’

এক হিসাব দিয়ে আহসান মনসুর বলেন, ‘রাশিয়া থেকে কম দামে তেল কিনলে হয়তো আমাদের ৩০-৪০ কোটি ডলারের মতো সাশ্রয় হবে। কিন্তু রাশিয়া-ইউরোপ অখুশি হলে ৩৫-৪০ বিলিয়ন ডলারের রপ্তানি ঝুঁকির মধ্যে পড়বে।

‘তাই আমি মনে করি, সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে তাড়াহুড়া না করে ভেবেচিন্তে ঠান্ডা মাথায় সিদ্ধান্ত নিতে হবে। সব দিক বিবেচনায় রাখতে হবে। আমাদের মনে রাখতে হবে, আমরা কিন্তু ভারতের মতো বড় দেশ নই। যুক্তরাষ্ট্র অনেক কিছুতে ভারতের ওপর নির্ভরশীল। ভারতের অনেক বড় বড় বহুজাতিক কোম্পানি আছে। যাদের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের ব্যবসা-বাণিজ্য ও বিনিয়োগ নির্ভর করে।

‘কিন্তু আমাদের কিন্তু সে রকম অবস্থা নেই। আমরা ছোট দেশ, ছোট অর্থনীতি। যে অর্থনীতির অনেক কিছুই যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের দেশগুলোর ওপর নির্ভরশীল। তাই এই দুই দেশ নাখোশ হয়, এমন সিদ্ধান্ত নেয়া ঠিক হবে না।

‘যুক্তরাষ্ট্র যদি নীরব থাকে আমরা ভারতের মতো রাশিয়া থেকে তেল কিনতে পারি, কিন্তু তারা চটে গেলে দুদেশের মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্ক ঝুঁকির মধ্যে পড়বে। সেই ঝুঁকি আমরা নেব কি না-সেটাই এখন বড় বিষয়। মনে রাখতে হবে, যুক্তরাষ্ট্র চটলে, ইইউও চটবে।’

পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী শামসুল আলম বলেন, ‘দ্বিপক্ষীয় মুদ্রা বিনিময় (কারেন্সি সোয়াপ) নিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক কাজ করছে। রাশিয়া, চীন ও ভারত—এই তিন দেশের সঙ্গে এমন হতে পারে। আমরা এসব দেশ থেকে আমদানি বেশি করি। তাহলে তারা আমাদের টাকা কী করবে? এ নিয়ে কী করা যায়, তা নিয়ে আলোচনা চলছে।’

নাম প্রকাশ না করার শর্তে বাংলাদেশ ব্যাংকের এক কর্মকর্তা নিউজবাংলাকে বলেন, ‘রাশিয়ার আর্থিক লেনদেনের ওপর চলমান নিষেধাজ্ঞার কারণে সুইফট সিস্টেমের বাইরে গিয়ে চীনের মুদ্রা বা টাকা এবং রুবলে লেনদেনের বিষয়টি নিয়ে ঢাকা ও মস্কো ভাবছে। এটা সম্ভব। রাশিয়ায় আমাদের যে ১ বিলিয়ন ডলারের মতো রপ্তানি হয়, সেই রপ্তানি বিল রাশিয়ার মুদ্রা রুবলে নিলে, সেই রুবল দিয়ে আমরা তেলের দাম শোধ করতে পারি। আবার ডলার বা টাকা দিয়ে চীনের মুদ্রা ইউয়ান কিনে সেই ইউয়ান দিয়েও তেলের দাম পরিশোধ করা যেতে পারে।’

দেশের আরেক গবেষণা সংস্থা সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) সম্মানীয় ফেলো মোস্তাফিজুর রহমান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ভারত রাশিয়া থেকে রুবলে তেল আমদানির উদ্যোগ নিয়েছে। সেটা সম্ভব হলে বাংলাদেশ ও রাশিয়ার মধ্যে বাণিজ্যও রুবল-টাকায় হওয়া সম্ভব।

‘তবে একটা বিষয় মনে রাখতে হবে, সরকার টু সরকার বাণিজ্য হলে সেটা রুবল-টাকাতে হওয়ায় খুব একটা সমস্যা নেই। কিন্তু বেসরকারি পর্যায়ে বাণিজ্যের ক্ষেত্রে সমস্যা হবে। কেননা, বেসরকারি উদ্যোক্তারা টাকা দিয়ে যেমন সহজেই ডলার কিনতে পারেন; রুবল তো সেভাবে পাবেন না।’

ভারতের রাষ্ট্রীয় তেল পরিশোধনকারী সংস্থা হিন্দুস্তান পেট্রোলিয়াম করপোরেশন (এইচপিসিএল) সূত্রে জানা যায়, ২০২১ সালের এপ্রিল-মে মাসে রাশিয়া থেকে মাত্র ৪৪ কোটি ১০ লাখ ডলারের তেল কিনেছিল ভারত৷ আর চলতি ২০২২ সালের শুধু মে মাসেই ১৯০ কোটি ডলারের তেল কিনেছে ভারত৷

আগে বছরে চাহিদার মোট ২ শতাংশ রাশিয়া থেকে আমদানি করত ভারত। এবার এপ্রিল-মে মাসে চাহিদার ১০ শতাংশ তেল রাশিয়া থেকে আমদানি করেছে। যত সময় গড়াচ্ছে, ততই রাশিয়া থেকে তেল আনার পরিমাণও বাড়ছে৷ কারণ রাশিয়া সস্তায় তেল দিচ্ছে ভারতকে।

কিছুদিন আগে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন ভারত সফরে গিয়ে বাংলাদেশও যাতে ভারতের মতো সস্তায় রাশিয়া থেকে তেল কিনতে পারে, সেই রাস্তা বাতলে দিতে দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্করকে অনুরোধ করেছিলেন।

দীর্ঘদিন আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলে (আইএমএফ) গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করা আহসান মনসুর বলেন, ‘ইউরোপ-আমেরিকার চোখ রাঙানিকে ভারত ভয় না পেয়ে রাশিয়ার কাছ থেকে তেল কেনা বাড়িয়ে দিচ্ছে। তার কারণ হলো- আয়তনে ও প্রভাবে ভারত অনেকটাই বড়৷ ভারতের বিশাল বাজার ধরতে সব দেশের কোম্পানি উদগ্রীব৷ ভারতের বাজার হারালে অনেক বহুজাতিক কোম্পানি রীতিমতো বিপাকে পড়বে৷’

‘অস্ত্র থেকে শুরু করে ভোগ্যপণ্য- সবকিছুর ক্ষেত্রেই ভারতের বাজার তাদের কাছে খুবই লোভনীয়৷ সে জন্য ভারত এই চাপকে উপেক্ষা করতে পারে।’

‘কিন্তু বাংলাদেশ পারে না, এটাই বাস্তব সত্য,’ বলেন আহসান মনসুর।

আরও পড়ুন:
‘পারমাণবিক বিপর্যয়ে দায়ী থাকবে ইউক্রেনের পশ্চিমা মিত্ররা’
মুসলিম লীগের মতো হাওয়ায় মিলিয়ে যাবে বিএনপি: তথ্যমন্ত্রী
পরিত্যক্ত ঘরে মিলল ৩ হাজার লিটার ডিজেল
কাঁচাবাজার নিয়ন্ত্রণহীন
আমদানি কমছে, বাড়ছে রেমিট্যান্স, ফিরছে স্বস্তি

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
The hearing of the ruling on the cancellation of Dr Yunuss case is going on

ড. ইউনূসের মামলা বাতিল প্রশ্নে রুলের শুনানি চলছে

ড. ইউনূসের মামলা বাতিল প্রশ্নে রুলের শুনানি চলছে শান্তিতে নোবেলজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূস ও গ্রামীণ টেলিকমের লোগো। ছবি কোলাজ: নিউজবাংলা
গত বছরের ৯ সেপ্টেম্বর ঢাকার তৃতীয় শ্রম আদালতে কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান অধিদপ্তরের শ্রম পরিদর্শক আরিফুজ্জামান বাদী হয়ে ড. ইউনূসসহ চারজনের নামে মামলা করেন। এ মামলা বাতিল চেয়ে হাইকোর্টে আবেদন করেন ড. ইউনূস।

শ্রম আইন লঙ্ঘনের অভিযোগে শান্তিতে নোবেলজয়ী ও গ্রামীণ টেলিকমের চেয়ারম্যান ড. মুহাম্মদ ইউনূসের নামে করা মামলা বাতিলে জারি করা রুলের শুনানি চলছে।

বিচারপতি এস এম কুদ্দুস জামান ও বিচারপতি ফাহমিদা কাদেরের হাইকোর্ট বেঞ্চে বুধবার এ শুনানি শুরু হয়।

ইউনূসের পক্ষে শুনানি করছেন আইনজীবী আব্দুল্লাহ আল মামুন।

গত বছরের ৯ সেপ্টেম্বর ঢাকার তৃতীয় শ্রম আদালতে কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান অধিদপ্তরের শ্রম পরিদর্শক আরিফুজ্জামান বাদী হয়ে ড. ইউনূসসহ চারজনের নামে ওই মামলা করেন।

ড. ইউনূস ছাড়াও গ্রামীণ টেলিকমের এমডি আশরাফুল হাসান, পরিচালক নুরজাহান বেগম ও মো. শাহজাহানকে মামলায় বিবাদী করা হয়েছে।

মামলায় শ্রমিক কল্যাণ ফাউন্ডেশনে নির্দিষ্ট লভ্যাংশ জমা না দেয়া, শ্রমিকদের চাকরি স্থায়ী না করা, গণছুটি নগদায়ন না করায় শ্রম আইনের ৪ এর ৭, ৮, ১১৭ ও ২৩৪ ধারায় অভিযোগ আনা হয়।

এ মামলা বাতিল চেয়ে হাইকোর্টে আবেদন করেন ড. ইউনূস।

আরও পড়ুন:
আইনজীবীকে ইউনূসের প্রতিষ্ঠানের ‘১২ কোটি টাকা দেয়ার’ ঘটনা তদন্ত চেয়ে রিট
চাকরিচ্যুতদের আইনজীবীর সঙ্গে ইউনূসের প্রতিষ্ঠানের ‘সমঝোতা’, অ্যাকাউন্ট জব্দ
ইউনূস সেন্টারের বিবৃতি বিভ্রান্তিমূলক: সেলিম মাহমুদ
চাকরিচ্যুতদের ‘ঠকাতে’ ইউনূসের প্রতিষ্ঠানের অনিয়মে হাইকোর্টের বিস্ময়
পদ্মা সেতু নিয়ে ইউনূস সেন্টারের ব্যাখ্যা সত্যের অপলাপ: তথ্যমন্ত্রী

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Reserve Theft Case Investigation Report October 2

রিজার্ভ চুরির মামলা: তদন্ত প্রতিবেদন ২ অক্টোবর

রিজার্ভ চুরির মামলা: তদন্ত প্রতিবেদন ২ অক্টোবর বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ের ফটক। ফাইল ছবি
রিজার্ভ চুরির মামলায় প্রতিবেদন জমার দিন ছিল বুধবার, তবে তদন্ত সংস্থা সিআইডি প্রতিবেদন জমা দিতে না পারায় ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আরাফাতুল রাকিব নতুন দিন ঠিক করেন।

বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির ঘটনায় করা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন জমার তারিখ আবারও পিছিয়েছে।

আগামী ২ অক্টোবর প্রতিবেদন জমার নতুন দিন ঠিক করেছে আদালত।

প্রতিবেদন জমার দিন ছিল বুধবার, তবে তদন্ত সংস্থা সিআইডি প্রতিবেদন জমা দিতে না পারায় ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আরাফাতুল রাকিব নতুন এ দিন ঠিক করেন।

২০১৬ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক থেকে জালিয়াতি করে সুইফট কোডের মাধ্যমে বাংলাদেশ ব্যাংকের ৮ কোটি ১০ লাখ ডলার হাতিয়ে নেয় দুর্বৃত্তরা। পরে ওই টাকা তারা ফিলিপাইনের রিজল ব্যাংকে পাঠিয়ে দেয়।

দেশীয় কোনো চক্রের সহায়তায় হ্যাকার গ্রুপ রিজার্ভের অর্থ পাচার করেছে বলে তদন্তসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা ধারণা করেন। এর পেছনে উত্তর কোরীয় হ্যাকারদের সংশ্লিষ্টতার তথ্যও এসেছে আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে।

এ ঘটনায় ২০১৬ সালের ১৫ মার্চ বাংলাদেশ ব্যাংকের অ্যাকাউন্টস অ্যান্ড বাজেটিং ডিপার্টমেন্টের উপপরিচালক জোবায়ের বিন হুদা অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তিদের আসামি করে মতিঝিল থানায় মামলা করেন।

ওই মামলার তদন্তে নামে সিআইডি। প্রতিবেদন জমা দিতে ২০১৬ সালের ১৯ এপ্রিল প্রথমবারের মতো দিন ঠিক করে দেয় আদালত। এর পর থেকে দফায় দফায় পিছিয়েছে প্রতিবেদন জমার তারিখ।

রিজার্ভ চুরির ঘটনায় ফিলিপাইনের রিজল কমার্শিয়াল ব্যাংকের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের আদালতে মামলা করেছিল বাংলাদেশ ব্যাংক। গত বছরের মার্চে সে মামলা খারিজ হয়ে যাওয়ার খবর আসে সংবাদমাধ্যমে।

রিজল ব্যাংক থেকে অর্থ তুলে একটি ক্যাসিনোতে নিয়ে যাওয়ার খবর প্রকাশের পর সেই ক্যাসিনো মালিকের কাছ থেকে দেড় কোটি ডলার উদ্ধার করে বাংলাদেশ সরকারকে বুঝিয়ে দেয় ফিলিপাইন। বাকি অর্থ উদ্ধারে তেমন অগ্রগতি নেই।

আরও পড়ুন:
ঋণ পুনঃতফসিল ও পুনর্গঠনে সংশোধনী আনল কেন্দ্রীয় ব্যাংক
অনিবাসীদের বৈদেশিক মুদ্রা আমানতে সুদ বাড়ল
শিল্প ও সেবা খাতে ৩০ হাজার কোটি টাকার ঋণ
বাংলাদেশ ব্যাংকের পুঁজিবাজারবান্ধব আরেক সিদ্ধান্ত
ডলারের দাম নিয়ন্ত্রণে মাঠে কেন্দ্রীয় ব্যাংক

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Bidens signature on the bill of 74 billion dollars

৭৪ হাজার কোটি ডলারের বিলে সই বাইডেনের

৭৪ হাজার কোটি ডলারের বিলে সই বাইডেনের হোয়াইট হাউসে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। ছবি: এএফপি
হোয়াইট হাউসের অনুষ্ঠানে বাইডেন বলেন, ‘আমেরিকার জনগণ জিতেছে এবং বিশেষ স্বার্থান্বেষী গোষ্ঠী হেরেছে। এ বিল জলবায়ু ইস্যুতে সব সময়ের জন্য এগিয়ে যাওয়ার বৃহত্তম পদক্ষেপ।’

জলবায়ু পরিবর্তন, স্বাস্থ্যসেবা ও করসংক্রান্ত ৭৪ হাজার কোটি ডলারের বিলটি সই করে আইনে পরিণত করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন।

এর মধ্য দিয়ে চলতি বছরের নভেম্বরে অনুষ্ঠেয় মধ্যবর্তী নির্বাচনের আগে কৌশলগত বড় জয় হলো ডেমোক্রেটিক পার্টির।

আল জাজিরার প্রতিবেদনে জানানো হয়, স্থানীয় সময় মঙ্গলবার হোয়াইট হাউসে এক অনুষ্ঠানে বিলটিতে সেই করেন বাইডেন। সে সময় তিনি বলেন, ‘ইনফ্লেশন রিডাকশন অ্যাক্ট’ (মূল্যস্ফীতি হ্রাস আইন) নামের আইনটি কার্বন নিঃসরণ কমাতে বড় ভূমিকা রাখবে।

আইনটিতে জীবাশ্ম জ্বালানির বিকল্প উৎসগুলোতে ৩৭ হাজার কোটি ডলার বরাদ্দ রাখা হয়েছে।

হোয়াইট হাউসের অনুষ্ঠানে বাইডেন বলেন, ‘আমেরিকার জনগণ জিতেছে এবং বিশেষ স্বার্থান্বেষী গোষ্ঠী হেরেছে।

‘এ বিল জলবায়ু ইস্যুতে সব সময়ের জন্য এগিয়ে যাওয়ার বৃহত্তম পদক্ষেপ।’

আইনে ৭৪ হাজার কোটি ডলারের প্যাকেজের মধ্যে ৪৪ হাজার কোটি ডলার নতুন করে ব্যয় করা হবে। ৩০ হাজার কোটি ডলার ব্যয় হবে ঘাটতি কমাতে।

বিলটি পাস হওয়াকে কংগ্রেসে এখন পর্যন্ত বাইডেনের সবচেয়ে বড় জয় হিসেবে দেখছেন বিশ্লেষকরা। তার দল ডেমোক্রেটিক পার্টির আশা, বিলটিকে আইনে পরিণত করার মধ্য দিয়ে মৌলিক প্রতিশ্রুতি পূরণে দলটি যে সক্ষম, সে বার্তা জনগণের মধ্যে পৌঁছে দেওয়া যাবে।

আরও পড়ুন:
জাপা চেয়ারম্যানের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাস প্রতিনিধিদলের সাক্ষাৎ
চীনের নতুন সামরিক মহড়া ঘোষণা
যুক্তরাষ্ট্রে পরিবেশ বাঁচাতে রেকর্ড বিনিয়োগের বিল পাস
ভারি বৃষ্টিতে যুক্তরাষ্ট্রে বাতিল ৯১২ ফ্লাইট
নিউ মেক্সিকোতে ৪ মুসলিম হত্যায় সন্দেহের কেন্দ্রে রুপালি ভক্সওয়াগন

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Bangladesh is not in crisis IMF

বাংলাদেশ সংকটে নেই: আইএমএফ

বাংলাদেশ সংকটে নেই: আইএমএফ যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন ডিসিতে আইএমএফ সদরদপ্তরের সামনে দিয়ে হেঁটে যাচ্ছেন এক নারী। ছবি: এএফপি
আইএমএফের এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় বিভাগের প্রধান রাহুল আনন্দ বলেন, ‘বাংলাদেশ কোনো সংকটময় পরিস্থিতিতে নেই এবং বিদেশি ঋণের ক্ষেত্রে এ অঞ্চলের অন্য দেশগুলোর তুলনায় বেশ ভিন্ন অবস্থানে রয়েছে।’

বাংলাদেশ সংকটে নেই বলে পরিষ্কার জানিয়ে দিয়েছে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ)।

চলমান বৈশ্বিক সংকটে সৃষ্ট অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জ কাটিয়ে ওঠার শক্তি বাংলাদেশের আছে বলেও জানিয়েছে সংস্থাটি।

বাংলাদেশ আইএমএফের কাছে যে ঋণ চেয়েছে, সে বিষয়ে অক্টোবরে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে। এর সঙ্গে সরকার সম্প্রতি জ্বালানি তেলের যে দাম বাড়িয়েছে তার কোনো সম্পর্ক নেই বলে জানিয়েছে ওয়াশিংটনভিত্তিক আন্তর্জাতিক আর্থিক প্রতিষ্ঠানটি।

মঙ্গলবার বাংলাদেশের সাংবাদিকদের সঙ্গে ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে আইএমএফের এশিয়া–প্রশান্ত মহাসাগরীয় বিভাগের প্রধান রাহুল আনন্দ এসব কথা বলেন।

ওই সময় আরও যুক্ত ছিলেন আইএমএফের পলিসি অ্যান্ড রিভিউ ডিপার্টমেন্টের ডেপুটি ডিরেক্টর উমা রামাকৃষ্ণান।

রাহুল আনন্দ বলেন, ‘বাংলাদেশের ঋণখেলাপি হওয়ার পথে যাওয়ার ঝুঁকি খুবই কম। দেশটির পরিস্থিতি শ্রীলঙ্কা থেকে বেশ আলাদা।’

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ কোনো সংকটময় পরিস্থিতিতে নেই এবং বিদেশি ঋণের ক্ষেত্রে এ অঞ্চলের অন্য দেশগুলোর তুলনায় বেশ ভিন্ন অবস্থানে রয়েছে।’

আইএমএফের এ কর্মকর্তা বলেন, ‘বাংলাদেশের বৈদেশিক ঋণ তুলনামূলক অল্প, যা জিডিপির ১৪ শতাংশের মতো। সে কারণেই দেশটির ঋণখেলাপির পথে যাওয়ার ঝুঁকি কম। শ্রীলঙ্কার সঙ্গে বাংলাদেশের তুলনা করার কোনো কারণ নেই।’

আইএমএফের কাছে বাংলাদেশ সরকারের ঋণ আবেদনের প্রসঙ্গে রাহুল আনন্দ বলেন, “অনুরোধটি ‘স্বতঃপ্রণোদিত’। বাংলাদেশকে সহায়তা করতে আইএমএফ প্রস্তুত এবং তহবিল বিষয়ে নিয়মমাফিক নীতিমালা ও প্রক্রিয়া অনুসারে আইএমএফের কর্মকর্তারা বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষের সঙ্গে প্রোগ্রাম ডিজাইন বিষয়ে আলোচনা করছেন।

“অক্টোবরের মাঝামাঝি সময়ে আইএমএফের বার্ষিক সভা হবে। সেখানে এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে।”

সম্প্রতি কয়েক দফায় ডলারের বিপরীতে টাকার বেশ খানিকটা অবমূল্যায়ন করেছে বাংলাদেশ।

এ বিষয়ে রাহুল বলেন, ‘পৃথিবীর সব দেশই ডলারের বিপরীতে তাদের মুদ্রার অবমূল্যায়ন করেছে। বাংলাদেশও সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে করেছে।’

‘যদিও বাংলাদেশের রিজার্ভ কমে এসেছে, তারপরও বর্তমানের রিজার্ভ দিয়ে দেশের চার থেকে পাঁচ মাসের আমদানি ব্যয় মেটানো যাবে।’

‘তেলের দাম বাড়ানোর সঙ্গে ঋণের সম্পর্ক নেই’

জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত একান্তই বাংলাদেশ সরকারের মন্তব্য করে আইএমএফের এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের প্রধান বলেন, ‘এর সঙ্গে আইএমএফের কোনো সম্পর্ক নেই। বাংলাদেশের চাওয়া ঋণ নিয়ে অক্টোবরে সিদ্ধান্ত হবে। এ অবস্থায় কোনো শর্ত দেয়ার প্রশ্নই আসে না।’

তিনি বলেন, ‘চলমান বৈশ্বিক সংকটে সৃষ্ট অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জ কাটিয়ে ওঠার শক্তি বাংলাদেশের আছে।’

আইএমএফের এ কর্মকর্তা বলেন, ‘বাংলাদেশ এই অঞ্চলের অন্য কোনো দেশের মতো সংকটে নেই, তবে চলমান বৈশ্বিক অস্থিরতার কারণে কিছুটা চ্যালেঞ্জের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে অর্থনীতি।

‘চলমান বৈশ্বিক সংকটে অর্থনীতিতে কিছু চ্যালেঞ্জ থাকলেও তা কাটিয়ে ওঠার মতো শক্তি বাংলাদেশের রয়েছে।’

আইএমএফের এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় বিভাগের প্রধান রাহুল আনন্দের নেতৃত্বে সংস্থাটির একটি প্রতিনিধিদল বাংলাদেশ সফরে এসেছিল। ৯ দিনের ওই সফরে প্রতিনিধিদলের সদস্যরা অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল, পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান, বাংলাদেশ ব্যাংক, অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগ, আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেন।

সেই সময় অর্থ মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে আইএমএফের কাছ থেকে তিন কিস্তিতে সাড়ে ৪ বিলিয়ন (প্রতি কিস্তিতে দেড় বিলিয়ন) ডলার ঋণ চাওয়া হয়েছিল।

আরও পড়ুন:
মূল্যস্ফীতি-ডলার সংকট: আইএমএফের সহায়তা চায় বাংলাদেশ
রাজস্ব আয় বাড়াতে পরিকল্পনা জানতে চেয়েছে আইএমএফ
খেলাপি ঋণ নিয়ে আইএমএফের উদ্বেগ
ভর্তুকির চাপ কমাতে বলবে আইএমএফ
খাদ্যের আগুনে বেশি ‘পুড়বে’ গরিব দেশগুলো: আইএমএফ

মন্তব্য

p
উপরে